সীরাতে সরওয়ারে আলম – ৩য় ও ৪র্থ খন্ড

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

s-3-4

সীরাতে সারওয়ারে আলম (স)

৩য় ও ৪র্থ খন্ড

সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদূদী

অনুবাদ : আব্বাস আলী খান


স্ক্যান কপি ডাউনলোড

বাংলা তৃতীয় সংস্কারণ সম্পর্কে কিছু কথা

মাওলানা সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদূদী (র)-এর বিখ্যাত গ্রন্থ সীরাতে সরওয়ারে আলম দ্বিতীয় খন্ডকে আমরা বাংলা ভাষায় তিন খন্ডে অর্থাৎ ৩য়, ৪র্থ ও ৫ম খন্ডে প্রকাশ করে আসছিলাম। পাঠকগণের সুবিধার কথা বিবেচনা করে এখন থেকে আমরা বাংলা ৩য় ও ৪র্থ খন্ডকে এক ভলিউমে প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং এ সংস্করণ থেসে সেভাবেই প্রকাশ হলো।

বাংলা প্রথম খন্ডে মূলত নবুওয়ত ও রিসালাত সম্পর্কে তাত্ত্বিক আলোচনা করা হয়েছে। আর দ্বিতীয় খন্ডে আলোচিত হয়েছে অতীত জাতিগুলোর ধ্বংসের ইতিহাস। তৃতীয় খন্ড থেকে ‍মুহাম্মদ রাসূলুল্লাহ (সা) এর সীরাতের ইতিহাস আলোচনা শুরু হয়েছে।

ঢাকাস্থ সাইয়েদ আবুল আ[’লা মওদূদী রিসার্চ একাডেমী মাওলানার সবগুলো গ্রন্থই বাংলাভাষী পাঠকদের সামনে দ্রুত পেশ করার পরিকল্পনা করেছে। ইতোমধ্যে আলহামদুলিল্লাহ তাঁর সবগুলো গ্রন্থই বাংলা ভাষায় অনূদিত ও প্রকাশিত হয়েছে। বর্তমান গ্রন্থটি অনুবাদ করেছেন মাওলানার ঘনিষ্ঠ সহকর্মী সুসাহিত্যিক জনাব আব্বাস আলী খান। তাঁর অনুবাদ কাজের পারদর্শীতা, শব্দ প্রয়োগের নিপুণতা এবং ভাষায়র বলিষ্ঠতা সম্পর্কে সুধী পাঠকগণকে নতুন করে বলার আছে বলে আমরা মনে করি না।

গ্রন্থটি প্রকাশ করতে পারায় আমরা আল্লাহ তায়ালার শুকরিয়া আদায় করছি। এ গ্রন্থের সকল পাঠককে তিনি নবূওয়তের প্রকৃত মিশন উপলব্ধির তৌফিক দিন। আমীন।

আবদুস শহীদ নাসিম

পরিচালক

সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদীদী রিসার্চ একাডেমী।

১৯.১০.২০০০ইং

ইসলাম প্রকৃতপক্ষে সেই আন্দোলনের নাম যা এক আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ধারণা-বিশ্বাসের ওপর মানব জীবনের গোটা প্রাসাদ নির্মাণ করতেচায়। এ আন্দোলন অতি প্রাচীনকাল থেকে একই ভিত্তির ওপর এবং একই পদ্ধতিতে চলে আসছে। এর নেতৃত্ব তাঁরা দিয়েছেন, যাঁদেরকে আল্লাহ তায়ালার নবী রসূল বলা হয়। আমাদেরকে যদি এ আন্দোলন পরিচালনা করতে হয়, তাহলে অনিবার্যরূপে সেসব নেতৃবৃন্দের কর্মপদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। কারণ এছাড়া অন্য কোন কর্মপদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। কারণ এছাড়া অন্য কোন কর্মপদ্ধতি এ বিশেষ ধরনের আন্দোলনের জন্যে না আছে আর না হতে পারে। এ সম্পর্কে যখন আমরা আম্বিয়ায়ে কেরাম (আ) এর পদাংক অনুসন্ধানের চেষ্টা করি, তখন আমরা বিরাট অসুবিধার সম্মুখীন হই। প্রাচীনকালে যেসব নবী তাঁদের জীবন অতিবাহিত করেছেন, তাঁরেদ কাজকর্ম সম্পর্কে আমরা বেশী কিছু জানতে পারি না। কোরআনে কিছু সংক্ষিপ্ত ইঙ্গিত পাওয়া যায়। কিন্তু তার থেকে গোটা পরিকল্পনা উদ্ধার করা যায়না। বাইবেলের নিউ টেষ্টামেন্টে হযরত ঈসা (আ) এর কিছু অনির্ভরযোগ্য বাণী পাওয়া যায় যা কিছু প্রামণে একটি দিকের ওপর আলোকপাত করে এবং তা হলো এই যে, ইসলামী আন্দোলন তার একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে কিভঅবে পরিচালনা করা যায় এবং কি কি সমস্রার সম্মুখীন তাকে হতে হয়। কিন্তু হযরত ঈসা (আ)কে পরবর্তী পর্যায়ে সম্মখীন হতে হয়নি এবং সে সম্পর্কে কোন ইঙ্গিতও পাওয়া যায় না। এ ব্যাপারে একটিমাত্র স্থান থেকে আমরা সুস্পষ্ট ও পরিপূর্ণ পথ নির্দেশ পাই এবং তা হচ্ছে নবী মুহাম্মদ মুস্তফা (সা) এর জীবন তাঁর দিকে আমাদের প্রত্যাবর্তন তাঁর প্রতি আমাদের শুধু শ্রদ্ধাশীল হওয়ার কারণে নয়, বরং প্রকৃতপক্ষে এ পথের চড়াই উৎরাই সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করার জন্যে তাঁর দিকে প্রত্যাবর্তন করতে আমরা বাধ্য। ইসলামী আন্দোলনের সকল নেতৃবৃন্দের মধ্যে শুধু নবী মুহাম্মদ (সা)ই একমাত্র নেতা যাঁর জীবনে আমরা এ আন্দোলনের প্রাথমিক দাওয়াত থেকে শুরু করে ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা পর্যন্ত এবং অতঃপর রাষ্ট্রের কাঠামো, সংবিধান, আভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক নীতি এবং রাষ্ট্র পরিচালনার নীতি-পদ্ধতি পর্যন্ত এক একটি দিকের পূর্ণ বিবরণ এবং অদি নির্ভরযোগ্য বিবরণ আমরা জানতে পারি।

ভূমিকা

আমার বিভিন্ন রচনায় রিাসালাত ও সীরাতে পাক সম্পর্কি আলোচনাসমূহকে চমৎকারভাবে একত্রে সংকলিত করে জনাব নঈম সিদ্দীকী ও জনাব আবদুল ওয়াকীল আলভী এ গ্রন্থের প্রথম (বাংলায় ১ম ও ২য় খন্ড) তৈরী করেন। সেখানে পরিবর্ধন ও পরিমার্জনের তেমন প্রয়োজন অনুভব করিনি।

কিন্তু এ খন্ডের জন্যে তাঁরা আমার যেসব লেখা সংকলন করেছেন,  সেগুলোতে মাঝে মাঝে শূন্যতা রয়ে গেছে। এসব শূন্যতা নিয়ে কিছুতেই একটি সীরাত গ্রন্থ প্রণীত হতে পারে না। তাই, এতে আমি ব্যাপকহারে সংযোজন ও পরিবর্ধন করেছি। এখন একটি অবিচ্ছিন্ন ও ধারাবাহিক সীরাত গ্রন্থে পরিণত হয়েছে।

এই (মূল) দ্বিতীয় খন্ড হিজরতের বর্ণনায় এসে সমাপ্ত হয়েছে। এরপরই শুরু হবে মাদানী অধ্যায়। সে অধ্যায় মূলত অকূল সমুদ্র সম। মহান আল্লাহর কাছে পার্থনা করছি, তিনি যেন আমাকে এ গ্রন্থটি পূর্ণ করার শক্তি ও তৌফিক দান করেন এবং এটিকে যেন তাঁর বান্দাদের জন্যে কল্যাণময় করেন।

আবুল আ’লা

 

এই সম্পর্কিত আরও বই

Top