হাদীছের তত্ত্ব ও ইতিহাস

চতুর্থ যুগের

কতিপয় প্রসিদ্ধ মোহাদ্দেছ

১। মহীউছছুন্নাহ বাগাবী –আবু মোহাম্মদ হোছাইন ইবনে মাছউদ (মৃঃ ৫১৬ হিঃ)। হাদীছে তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে। যথা –‘মো’জাম, ‘শরহে ছুন্নাহ’, ‘মাছাবীহুছ ছুন্নাহ (মেশকাত শরীফ ইহারই সংশোধিত আকার), ‘আল জামউ বাইনাছ ছহীহাইন’ (আরবী*****************) প্রভৃতি।

২। রজীন –আবুল হোছাইন ইবনে মুআবিয়া আবদারী ইমামুল হারামাইন (মৃঃ ৫৩৫ হিঃ)। ইনিই প্রথম ছেহাহ ছেত্তাকে একত্র করিয়াছেন। ‘জামেউল উছুল’ ইহারই সংশোধিত সংস্করণ।

৩। মাজরী –আবু আবদুল্লাহ মোহাম্মদ ইবনে আলী (মৃঃ ৫৩৬ হিঃ)। ‘শরহে মোছলেম’ প্রভৃতি তাঁহার কিতাব।

৪। ইবনুল আরবী –কাজী আবু বকর মোহাম্মদ ইবনে আবদুল্লাহ মালেকী (৫৫৩ হিঃ)। ‘আহকামুল কোরআন’ ও ‘আরেজাতুল আহওয়াজী’ (শরহে তিরমিজী) তাঁহার দুইটি প্রসিদ্ধ কিতাব।

৫। কাজী ইয়াজ –আবুল ফজল ইবনে আমর ছবতী মালেকী (মৃঃ ৫৪৪ হিঃ)। ছীরাতুননবী সম্পর্কে ‘শাফা’ নামে তাঁহার একটি অতি মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে। ‘মাশারেকুল আনওয়ার’ তাঁহার অপর একটি প্রসিদ্ধ কিতাব। ইহাতে তিনি মোআত্তা ও ছহীহাইনের হাদীছসমূহ একত্র করিয়া উহার শরাহ করিয়াছেন।

৬। ফিরদাউছ দায়লামী হামদানী (মৃঃ ৫৫৮ হিঃ)। ‘মোছনাদে ফিরদাউছ’ তাঁহার একটি মূল কিতাব।

৭। ইবনুল আছাকের –আবুল কাছেম ইবনে হাছান (মৃঃ ৫৭১ হিঃ)। ‘মো’জাম’ তাঁহার একটি মূল কিতাব। এছাড়া ‘আরবাঈন’ ও ‘মোয়াফেকাত’ (আরবী**********) নামে হাদীছে তাঁহার আরো দুইটি কিতাব রহিয়াছে। ‘তারীখে দেমাশক’ তাঁহার ইতিহাসের প্রসিদ্ধ কিতাব।

৮। ইবনে জাওজী –আবুল ফরজ আবদুর রহমান বাগদাদী হাম্বলী (মৃঃ ৫৭৭ হিঃ)। হাদীছে তাঁহার বহু মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

৯। ইবনুল খারাত –আবদুল হক ইশবেলী (মৃঃ ৫৮১ হিঃ)। ‘আল আহকাম’ প্রভৃতি তাঁহার কিতাব।

১০। ছুহাইলী –আবুল কাছেম আবদুর রহমান মালেকী (মৃঃ ৫৮১ হিঃ)। ‘রাওজুল আনাফ’ শরহে –ছীরাতে ইবনে হিশাম তাঁহার প্রসিদ্ধ কিতাব।

১১। আবদুল গনী মাকদেছী হাম্বলী (মৃঃ ৬০০ হিঃ)। হাদীছে ‘উমদাতুল আহকাম’ (আরবী**********) এবং রেজালে ‘আল কামাল’ তাঁহার দুইটি মূল্যবান কিতাব।

১২। ইবনুল আছীর –মাজদুদ্দীন মোবারক বিন মোহাম্মদ জজরী (মৃঃ ৬০৬ হিঃ)। প্রসিদ্ধ ‘জামেউল উছুল’ তাঁহারই কিতাব। তাঁহার ‘নেহায়া’ হাদীছের অভিধান সম্পর্কে একটি মূল্যবান কিতাব।

১৩। ইবনুল আছীর –উজ্জুদ্দীন আবুল হোছাইন আলী ইবনে মোহাম্মদ জজরী (মৃঃ ৬৩০ হিঃ)। ছাহাবীদের জীবনী সম্পর্কে ‘উছদুল গাবাহ’ (আরবী********) এবং ইতিহাস সম্পর্কে ‘আল কামেল’ তাঁহার দুইটি জগদ্বিখ্যাত কিতাব। (প্রকাশিত)

১৪। ইবনুছ ছালাহ –তকীউদ্দীন ইবনে ওছমান (মৃঃ ৬৪৩ হিঃ)। উছুলে হাদীছ সম্পর্কে তাঁহার ‘আল মোকাদ্দমা’ অতি মূল্যবান কিতাব। ইহা প্রকাশিত হইয়াছে।

১৫। মাজদুদ্দীন মোহাম্মদ ইবনে মাহমুদ (মৃঃ ৬৪৩ হিঃ)। ‘আনছাবুল মোহাদ্দেছীন’ তাঁহার রেজালের কিতাব।

১৬। শায়খ হাছান লাহোরী হানাফী (মৃঃ ৬৫০ হিঃ)। ‘মাশারেকুল আনওয়ার’ এবং ‘শরহে বোখারী’ প্রভৃতি তাঁহার অনেক মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

১৭। শায়খুল ইছলাম ইবনে তাইমিয়াঃ মাজদুদ্দীন আবদুছছালাম হাররানী (মৃঃ ৬৫২ হিঃ)। প্রসিদ্ধ ইমাম তকীউদ্দীন ইবনে তাইমিয়া তাঁহারই পৌত্র। ‘মোন্তাকাল আখবার’ তাঁহার প্রসিদ্ধ কিতাব।

১৮। আল মুনজেরী –আবদুল আজীম ইবনে আবদুল করীম (মৃঃ ৫৬৫ হিঃ)। ‘আততারগীব ওয়াততারহীব’ ও ‘মোকতাছারে আবু দাঊদ’ প্রভৃতি তাঁহার প্রসিদ্ধ কিতাব।

১৯। ইবনে ছাইয়্যেদুননাছ –আবু বকর মোহাম্মদ ইবনে মোহাম্মদ (মৃঃ ৬৫৯ হিঃ)। (আরবী*******) ‘উয়নুল আছর’ ও ‘শরহে তিরমিজী’ প্রভৃতি তাঁহার অনেক কিতাব রহিয়াছে।

২০। তূরে পেশতী –শিহাবুদ্দীন ফজলুল্লাহ (মৃঃ ৬৬০ হিঃ)। ‘শরহে মাছাবীহ’ প্রভৃতি তাঁহার কিতাব।

২১। ইজ্জুদ্দীন ইবনে আবদুছ ছালাম ‘শায়খুল ইসলাম’ (মৃঃ ৬৬০ হিঃ)।

২২। নাওয়াবী –মুহীউদ্দীন আবু জাকারিয়া ইয়াহইয়া ইবনে শরফুদ্দীন (মৃঃ ৬৭৬ হিঃ)। তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে যথা –‘শরহে মোছলেম’, ‘কিতাবুল আজকার’, ‘কিতাবুর রিয়াজ’ প্রভৃতি।

২৩। ইবনে দাকীকুল ঈদ –আবুল ফাতহ তকীউদ্দীন মোহাম্মদ (মৃঃ ৭০২ হিঃ)। ‘শরহে উমদাতুল আহকাম’ প্রভৃতি তাঁহার কিতাব।

২৪। দামইয়াতী আবু মোহাম্মদ (মৃঃ ৭০৭ হিঃ)। ‘মো’জাম’ প্রভৃতি তাঁহার অনেক কিতাব রহিয়াছে।

২৫। ইমাম ইবনে তাইমিয়া –তকীউদ্দীন ইবনে আবদুল হালীম ইবনে আবদুছ ছালাম হাররানী (মৃঃ ৭২৮ হিঃ)। ‘মিনহাজুছছুন্নাহ’ প্রভৃতি তাঁহার বহু মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

২৬। কুতবুদ্দীন হালাবী হানাফী (মৃঃ ৭৪০ হিঃ)। ‘শরহে বোখারী’ প্রভৃতি তাঁহার অনেক কিতাব রহিয়াছে।

২৭। খতীব তাবরিজী –ওলীউদ্দীন আবু আবদুল্লাহ মোহাম্মদ (৮ শতকের শেষ)। ‘মেছকাত’ তাঁহার প্রসিদ্ধ কিতাব।

২৮। মেজ্জী –আবুল হাজ্জাজ জামালুদ্দীন ইউছুফ (মৃঃ ৭৪২ হিঃ)। রেজাল শাস্ত্রে ‘তাহজীবুল কামাল’ তাঁহার কিতাব।

২৯। হাফেজ জিয়াউদ্দীন মাকদেছী (মৃঃ ৭৪৩ হিঃ)। ‘মোয়াফেকাত’ নামে তাঁহার একটি কিতাব রহিয়াছে।

৩০। তীবী –শরফুদ্দীন মোহাম্মদ ইবনে হাছান (মৃঃ ৭৪৩ হিঃ)। তিনি মেশকাত প্রণেতা খতীব তাবরিজীর উস্তাদ এবং ‘মেশকাতের’ প্রথম ব্যাখ্যাকার।

৩১। ইবনে কুদামাহ –মোহাম্মদ ইবনে আহমদ হাম্বলী (মৃঃ ৭৪৪ হিঃ)। ‘আল মুহাররার’, ‘আল মুগনী’ তাঁহার দুইটি মূল্যবান কিতাব।

৩২। জাহবী –শামছুদ্দীন আবু আবদুল্লাহ মোহাম্মদ (মৃঃ ৭৪৮ হিঃ)। ইনি রেজাল শাস্ত্রের বিখ্যাত ইমাম। তাঁহার বহু মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে। রেজালের প্রসিদ্ধ কিতাব ‘তাযকেরাতুল হোফফাজ’, ‘মীজানুল ইতেদাল’, ‘তাজরীদু আছমাইছ ছাহাবা’ এবং ইতিহাসের প্রসিদ্ধ কিতাব ‘দুওয়ালুল ইসলাম’ তাঁহারই কিতাব।

৩৩। ইবনুল কাইয়্যেম –শামছুদ্দীন আবু আবদুল্লাহ (মৃঃ ৭৫১ হিঃ)। ইমাম ইবনে তাইমিয়ার শাগরিদ। ‘এলামুল মুয়াক্কেয়ীন’ ‘এহকামুল আহকাম’ ‘জাদুল মাআদ’ (আরবী*******) প্রভৃতি তাঁহার মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

৩৪। তকীউদ্দীন ছুবকী (মৃঃ ৭৫৬ হিঃ)। ইনি মিছরের প্রধান বিচারপতি ছিলেন। ‘শিফাউছ ছাকাম’ (আরবী******) প্রভৃতি তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে।

৩৫। হাফেজ জামালুদ্দীন জায়লায়ী হামদানী (মৃঃ ৭৬২ হিঃ)। ‘নছবুর রায়াহ’ –(আরবী******) তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে।

৩৬। শায়খ আলাউদ্দীন মোগলতায়ী হানাফী (মৃঃ ৭৬২ হিঃ)। ‘শরহে ইবনে মাজাহ’ প্রভৃতি তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে।

৩৭। আলাউদ্দীন মারদীনী হানাফী (মৃঃ ৭৬৩ হিঃ)। ‘আল জওহারুন নাকী’ (আরবী********) তাঁহার একটি প্রসিদ্ধ কিতাব।

৩৮। কিরমানী –শামছুদ্দীন মোহাম্মদ ইবনে ইউছুফ (মৃঃ ৭৮৬ হিঃ)। তাঁহার বোখারীর শরাহ একটি প্রসিদ্ধ কিতাব (প্রকাশিত)।

৩৯। ইবনে রজব হাম্বলী (আরবী******) –জায়নুদ্দীন (মৃঃ ৭৯৫ হিঃ)। ‘শরহে বোখারী’ ‘শরহে তিরমিজী’ ‘শরহে আরবাঈনে নাওয়াবী’ প্রভৃতি তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে।

৪০। জায়নুদ্দীন ইরাকী –আবদুর রহীম ইবনে ছোলাইমান শাফেয়ী (মৃঃ ৮০৬ হিঃ)। ‘আলফিয়াহ’, ‘তাখরীজে আহাদীছে এহয়াউল উলুম’ প্রভৃতি তাঁহার অনেক কিতাব রহিয়াছে।

৪১। নূরুদ্দীন শিরাজী (মৃঃ ৮১৬ হিঃ)। ইনি ছৈয়দ শরীফ জুরজানীর শাগরীদ ছিলেন। তিনি ইরান হইতে হাদীছ লইয়া হিন্দুস্থান আগমন করেন।

৪২। দামীরী –কামালুদ্দীন মোহাম্মদ ইবনে মূছা (মৃঃ ৮০৮ হিঃ)। ‘শরহে ইবনে মাজাহ’ এবং জীববিজ্ঞানের বিখ্যাত কিতাব ‘হায়াতুল হায়ওয়ান’ তাঁহারই কিতাব।

৪৩। নূরুদ্দীন শিরাজী (মৃঃ ৮১৬ হিঃ)। ইনি ছৈয়দ শরীফ জুরজানীর শাগরিদ ছিলেন। তিনি ইরান হইতে হাদীছ লইয়া হিন্দুস্থানে আগমন করেন।

৪৪। ফিরোজাবাদী –মজদুদ্দীন আবু তাহের মোহাম্মদ ইবনে ইয়াকুব (মৃঃ ৮১৭ হিঃ)। হাদীছে ‘আল আহাদীছুজ জঈফাহ’ এবং ‘লোগাতে কামূছ’ প্রভৃতি তাঁহার বহু বিখ্যাত কিতাব রহিয়াছে।

৪৫। হাফেজ ইবনে হাজার আছকালানী –আবুল ফজল শিহাবুদ্দীন শাফেয়ী (মৃঃ ৮৫২ হিঃ)। হাদীছ ও রেজাল শাস্ত্রে তাঁহার বহু মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে। বোখারীর শরাহ ‘ফাতহুল বারী’ (আরবী********) তাঁহার অমর কীর্তি। ‘বুলুগুল মারাম’ ‘তাহজীবুত তাহজীব’, ‘লেছানুল মীজান’, ‘নোখবাতুল ফিকর’ প্রভৃতি তাঁহার হাদীছ ও রেজালের কিতাব।

৪৬। আইনী –হাফেজ বদরুদ্দীন মাহমুদ ইবনে আহমদ হানাফী (মৃঃ ৮৫৫ হিঃ)। তাঁহার বোখারীর শরাহ ‘উমদাতুল কারী’ (আরবী**********) অতি মূল্যবান কিতাব। এছাড়া ‘মুগনীল আখইয়ার’ প্রভৃতি তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে।

৪৭। তকীউদ্দীন শোমান্নী (আরবী********) আবুল আব্বাছ হানাফী (মৃঃ ৮৭২ হিঃ)।

৪৮। কাছেম ইবনে কুতলুবাগা হানাফী (মৃঃ ৮৭৯ হিঃ)। ‘শরহে মাফাতীহ’, (আরবী*********) ‘শরহে ফাতহুল মুগীছ’ প্রভৃতি তাঁহার অনেক কিতাব রহিয়াছে।

৪৯। ছাখাবী –শামছুদ্দীন মোহাম্মদ ইবনে আলী (মৃঃ ৯০২ হিঃ)। ‘আলকওলুল বাদী’, ‘আল মাকাছেদুল হাছানাহ’ প্রভৃতি তাঁহার বহু মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

৫০। ছুয়ুতী –জালালুদ্দীন শাফেয়ী (মৃঃ ৯১১ হিঃ)। হাদীছ প্রভৃতি বহু শাস্ত্রে তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে। হাদীছের ‘জামউল জাওয়ামে’ তাঁহারই কিতাব।

৫১। কাস্তালানী –শিহাবুদ্দীন শাফেয়ী (মৃঃ ৯২২ হিঃ)। বোখারীর শরাহ ‘আল ইরশাদুছছারী’ (আরবী*********) এবং ছীরাতের ‘আল মাওয়াহিবুল লাদুনিয়া’ (আরবী*******) তাঁহার প্রসিদ্ধ কিতাব।

৫২। ইবনে হাজার মক্কী –আবুল আব্বাছ আহমদ ইবনে মোহাম্মদ (মৃঃ ৯৫৪ হিঃ)। ‘জাওয়াজির’ (আরবী******) প্রভৃতি তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে।

৫৩। শায়খ আলী মোত্তাকী বোরহানপুরী মক্কী (মৃঃ ৯৭৫ হিঃ)। হাদীছ, কোরআন সম্পর্কে তাঁহার শতাধিক কিতাব রহিয়াছে। হাদীছের বিখ্যাত কিতাব ‘কানজুল উম্মাল’ (আরবী*******) তাঁহারই অমর কীর্তি।

৫৪। শায়খ মোহাম্মদ তাহির পাট্রনী গুজরাটী (মৃঃ ৯৮৬ হিঃ)। ‘মাজমাউল বেহার’ (আরবী******) নামে হাদীছের অভিধান সম্পর্কে তাঁহার একটি বিরাট ও মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে। এছাড়া ‘মাওজু’ হাদীছ সম্পর্কে ‘আল মাওজুআত’ ও ‘কানূনুল মাওজুআত’ নামে তাঁহার আরো দুইটি কিতাব রহিয়াছে। রেজাল শাস্ত্রে তাঁহার ‘আল মুগনী (আরবী******) একটি সংক্ষিপ্ত ও মূল্যবান কিতাব।

৫৫। মোল্লা আলী কারী –নূরুদ্দীন আলী ইবনে ছূলতান মোহাম্মদ হারাবী (মৃঃ ১০১৪ হিঃ)। হাদীছে মেশকাত শরীফের শরাহ ‘মেরকাত’ (আরবী******) এবং অন্যান্য বিষয়ে তাঁহার আরো বহু কিতাব রহিয়াছে।

৫৬। ইমামে রব্বানী মুজাদ্দেদে আলফে ছানী –শায়খ আহমদ সারহিন্দী (মৃঃ ১০৩৫ হিঃ)। ‘আরবাঈন’ নামে হাদীছে তাঁহার একটি কিতাব রহিয়াছে। এছাড়া তাঁহার মিশনের ভিত্তিই ছিল হাদীছের উপর।

৫৭।  মোনাবী –শামছুদ্দীন মোহাম্মদ আবদুর রউফ (মৃঃ ১০৩৫ হিঃ)। ‘আল আতহাফুছ ছানিয়া’ তাঁহার হাদীছের কিতাব।

৫৮। আজীজী –আলী ইবনে আহমদ (মৃঃ ১০৪৩ হিঃ)। ‘আছছিরাজুল মুনীর’ নামে তিনি ছুয়ুতীর ‘জামেয়ে ছগীরের’ এক শরাহ করিয়াছেন।

৫৯। শায়খ আবদুল হক মোহাদ্দেছ দেহলবী (মৃঃ ১০৫২ হিঃ)। বিভিন্ন বিষয়ে তাঁহার এক শতকের মত কিতাব রহিয়াছে। মেশকাত শরীফের শরাহ ‘লুমআত’, ‘আশেয়্যাতুল লুমআন’ (আরবী*******) তাঁঞারই কিতাব। ছীরাতে তাঁহার ‘মাদারেজুন নুবুওত’ ‘শরহে ছিফরুছ ছাআদাত’ (আরবী******) দুইটি প্রসিদ্ধ কিতাব।

৬০। হাফেজ ফোররুখ শাহ ইবনে খাজিনুর রহমাত ইবনে ইমাম রব্বানী (মৃঃ ১০৭০ হিঃ)। ছনদসহ তাঁহার ৭০ হাজার হাদীছ মুখস্থ ছিল।

৬১। শায়খ মোহাম্মদ নুরুল হক ইবনে শায়খ আবদুল হক দেহলবী (মৃঃ ১০৭৩ হিঃ)। তিনি ‘তাইছীরুল কারী’ নামে বোখারী শরীফের একটি শরাহ করেন। এছাড়া ভারত ইতিহাস সম্পর্কে তাঁহার একটি মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

৬২। শায়খ আবুল হাসান সিন্ধী (মৃঃ ১১২৯ হিঃ)। তিনি বোখারী শরীফ ব্যতীথ ছেহাহ ছেত্তার অপর পাঁচ কিতাব এবং মোছনাদে আহমদের শরাহ করিয়াছে। -ওলামায়ে হিন্দ। কিন্তু মুফতী আমীমুল এহছান ছাহেব মোছনাদে আহমদের স্থলে মোছনাদে আবু হানীফার উল্লেখ করিয়াছেন।

৬৩। শাহ ওলীউল্লাহ মোহাদ্দেছ দেহলবী (মৃঃ ১১৭৬ হিঃ)। তিনি ইমাম ও মুজতাহিদ ছিলেন। হাদীছে তাঁহার ‘মোআত্তা-এ-মালেকের’ আরবী শরাহ ‘আল মুছাওয়া’ (আরবী******) ফারছী শরাহ ‘আল মুছাফফা’ (আরবী*****) এবং বোখারী শরীফের “শরহে তারাজেমে আবওয়াবে বোখারী” অতি মূল্যবান কিতাব। এছাড়া তাঁহার জগদ্বিখ্যাত কিতাব ‘হুজ্জাতুল্লাহিল বালেগাহ’-এর শেষাংশও আসলে হাদীছেরই শরাহ।

৬৪। ছৈয়দ মোরতাজা হোছাইন বিলগিরামী জাবীদী (মৃঃ ১২০৫ হিঃ)। হাদীছে তাঁহার ১৭/১৮টি কিতাব রহিয়াছে। ‘তাজরীদুল-বোখারী’ তাঁহারই কিতাব।

৬৫। শাহ আবদুল আজীজ দেহলবী (মৃঃ ১২৩৯ হিঃ)। তিনি শাহ ওলীউল্লাহ দেহলবীর জ্যেষ্ঠ পুত্র ও তাঁহার স্থলাভিষিক্ত ছিলেন। ‘উজালায়ে নাফেয়াহ’, ‘বুস্তানুল মোহাদ্দেছীন’, ‘তা’লীকাতুল মুছাওয়া’ ও ‘আল মাওজুআত’ তাঁহার হাদীছ সম্পর্কীয় কিতাব। মাওলানা আবদুল আহাদ কাছেমী ‘উজালা’র আরবী অনুবাদ করিয়াছেন।

৬৬। কাজী মোহাম্মদ ইবনে আলী শাওকানী ইয়ামানী (মৃঃ ১২৫০ হিঃ)। তিনি এ যুগের একজন বিখ্যাত মোহাদ্দেছ। ‘নায়লুল আওতার’ (আরবী**********) তাঁহার একটি মূল্যবান কিতাব।

৬৭। শায়খ আবেদ সিন্ধী (মৃঃ ১২৫৭ হিঃ)। হাদীছে তাঁহার ‘শরহে তাইছীরুল উছুল, ‘শরহে বুলুগুল মারাম, ‘হছরুল শারিদ’ (আরবী*********) প্রভৃতি অনেক মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

৬৮। শাহ মোহাম্মদ ইছহাক দেহলবী (মৃঃ ১২৬২ হিঃ)। তিনি শাহ আবদুল আজীজ দেহলবীর দৌহিত্র ও তাঁহার স্থলাভিষিক্ত ছিলেন।

৬৯। শাহ আবদুল গনী মুজাদ্দেদী দেহলবী (মৃঃ ১২৯৬ হিঃ)। ইবনে মাজাহর শরাহ ‘ইনজাহুল হাজাহ’ (আরবী*******) তাঁহার একটি প্রসিদ্ধ কিতাব। তিনি শাহ ইছহাকের শাগরিদ এবং মাওলানা রশীদ আহমদ গঙ্গুহী ও দেওবন্দ ‘দারুল উলুম’ এর প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা কাছেম ছাহেব প্রমৃখ মোহাদ্দেছগণের ওস্তাদ ছিলেন।

৭০। মাওলানা আহমদ আলী মাহারনপুরী (মৃঃ ১২৯৭ হিঃ)। হাদীছে তাঁহার বোখারী শরীফের একটি সুপ্রচলিত শরাহ রহিয়াছে। (বোখারীর হাশিয়ায় প্রকাশিত।)

৭১। নওয়াব ছিদ্দীক হাছান খাঁ (মৃঃ ১৩০৭ হিঃ)। হাদীছ প্রভৃতি বিষয়ে তাঁহার বহু কিতাব রহিয়াছে।

৭২। মিঞা ছাহেব –ছৈয়দ নজীর হোছাইন দেহলবী (মৃঃ ১৩২০ হিঃ)। তিনি এ যুগের একজন বিখ্যাত মোহাদ্দেছ ও ওস্তাদ ছিলেন।

৭৩। মাওলানা শামছুল হক ডায়ানবী (মৃঃ ১৩২৯ হিঃ)। তাঁহার ‘গায়াতুল মাকছুদ’ নামে আবু দাঊদ শরীফের একটি উত্তম শরাহ রহিয়াছে।

৭৪। মাওলানা খলীল আহমদ সাহারনপুরী (মৃঃ ১৩২৯ হিঃ)। তাঁহার ‘গায়াতুল মাকছুদ’ নামে আবু দাঊদ শরীফের একটি উত্তম শরাহ রহিয়াছে।

৭৫। শায়খুল হিন্দ মাওলানা মাহমূদুল হাছান দেওবন্দী (মৃঃ ১৩৩৯ হিঃ মোঃ ১৯২০ ইং)। তিনি এ যুগের একজন বিখ্যাত মোহাদ্দেছ এবং দেওবন্দ মাদ্রাছার শায়খুল হাদীছ ছিলেন।

৭৬। মাওলানা ছৈয়দ আনওয়ার শাহ কাশ্মীরী দেওবন্দী (মৃঃ ১৩৫২ হিঃ)। তিনি এ যুগের একজন বিখ্যাত মোহাদ্দেছ ছিলেন। বোখারী শরীফেল মলঅঞ ‘ফয়জুল বারী’ (আরবী******) এবং তিরমিজী শরীফের শরাহ ‘আল আরফুশশাজী’ (আরবী**********) তাঁহারই তাকরীরের (বক্তৃতার) সমষ্টি। উভয় কিতাব প্রকাশিত হইয়াছে।

৭৭। মাওলানা শিব্বীর আহমদ ওছমানী দেওবন্দী (মৃঃ ১৩৬৯ হিঃ মোঃ ১৯৪৯ ইং)। মোছলেম শরীফের শরাহ ‘ফতহুল মুলহিম’ তাঁহার প্রসিদ্ধ কিতাব।

৭৮। আল্লামা জাহিদুল কাওছারী ইস্তাম্বুলী মিছরী (মৃঃ ১৩৭৪ হিঃ)। তিনি এ যুগের একজন বিখ্যাত ব্যক্তি। তিনি মোস্তফা কামাল কর্তৃক ইস্তাম্বুল হইতে নির্বাসিত হন এবং মিছরে শেষ নিঃশাস ত্যাগ করেন। হাদীছ প্রভৃতি বিষয়ে তাঁহার বহু মূল্যবান কিতাব রহিয়াছে।

৭৯। মাওলানা ছৈয়দ হোছাইন আহমদ (ফয়জ আবাদী) মদনী (মৃঃ ১৩৭৭ হিঃ)। তিনি দেওবন্দ দারুল উলুমের শায়খুল হাদীছ ছিলেন।

 

About মাওলানা নূর মোহাম্মদ আ’জমী (রঃ)