আল-কুরআনের শৈল্পিক সৌন্দর্য

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

Slide1

আল-কুরআনের শৈল্পিক সৌন্দর্য

সাইয়েদ কুতুব শহীদ

ভাষান্তর : মুহাম্মদ খলিলুর রহমান মুমিন


স্ক্যান কপি ডাউনলোড

প্রকাশকের কথা

আল-কুরআনের শৈল্পিক সৌন্দর্য গ্রন্থটি আধুনিক প্রকাশনী ১৯৯৭ সালে প্রথম এবং ২০০১ সালে এর ২য় সংস্করণ প্রকাশ করে। মাস তিনেক আগে অনুবাদক সাহেব আমাদের কাছে গ্রন্থটির তৃতীয় সংস্করণ প্রকাশের জন্য নিয়ে আসে। অনুবাদকের কাছ থেকে অনুবাদস্বত্ব নিয়ে আমরা এর তৃতীয় সংস্করণ প্রকাশ করছি।

আল্লাহ অহী এ কুরআনকে অনুপম রচনাশৈলীর মাধ্যমে উপস্থাপনের জন্য লেখক যেমন মহান আল্লাহর কাছে পুরষ্কৃক হবেন। তেমনি বর্তমান মুসলিম জাতির কাছেও অমর হয়ে রইলেন। সাথে সাথে এর অনুবাদকও বাংলা ভাষাভাষী মানুষের কাছে অপূর্ব এ গ্রন্থটি উপহার দেওয়ার জন্য কৃতজ্ঞতার জালে আবদ্ধ হয়ে রইলেন।

খায়রুন প্রকাশনী এ গ্রন্থটি উপহার দেওয়ার জন্য কৃতজ্ঞতার জালে আবদ্ধ হয়ে রইলেন।

খাইরুন প্রকাশনী এ গ্রন্থখানি প্রকাশ করে জাতির কাছে ভালো ভালো গ্রন্থ উপহার দেওয়ার তাদের যে ওয়াদা তা পূরণ করে যাচ্ছে।

প্রকাশক

লেখকের সংক্ষিপ্ত পরিচয়

নাম ও বংশ পরিচয় : নাম সাইয়েদ। কুতুব তাঁদের বংশীয় উপাধি। তাঁর পূর্বপুরুষগণ আরব উপদ্বীপ থেকে এসে মিসরের উত্তরাঞ্চলে মূসা নামক স্থানে বসবাস শুরু করেন। তাঁর পিতার নাম হাজী ইব্রাহীম কুতুব। মায়ের নাম ফাতিমা হুসাইন ওসমান। তিনি অত্যন্ত দ্বীনদার ও আল্লাহভীরু মহিলা ছিলেন। সাইয়েদ কুতুব ১৯০৬ সনের ২০শে জানুয়ারী শুক্রবার পিত্রালয়ে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বড় সন্তান। মেজো মুহাম্মদ কুতুব। তারপর তিন বোন, হামিদা কুতুব, আমিনা কুতুব, তৃতীয় বোনের নাম জানা যায়নি।

শিক্ষা জীবন: মায়ের ইচ্ছোনুযায়ী তিনি শৈশবেই পবিত্র কুরআন কণ্ঠন্ষ (হিফয) করেন। তারপর গ্রাম্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তাঁকে ভর্তি করে দেয়া হয়। তখনকার একটি আইন ছিল, কেউ যদি তার সন্তানকে মিসরে আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ৈ পড়াতে ইচ্ছে করতেন তাহলে সর্বপ্রথম তাকে কুরআন হিফ্‌য করাতে হতো। যেহেতু পিতা-মাতার ঐকান্তিক ইচ্ছে ছিল তাদের বড় ছেলে সাইয়েদকে আল-আজহারে পড়াবেন, তাই তাকে হাফেযে কুরআন বানান। পরবর্তীতে পিতা মূসা গ্রাম ছেড়ে কায়রোর উপকণ্ঠে এসে হালওয়ান নামক স্থানে বসবাস শুরু করেন এবং তাঁকে তাজহীযিয়াতু দারুল উলুম মাদ্রাসায় ভর্তি করে দেন। এ মাদ্রাসায় শুধু তাদেরকেই ভর্তি করা হতো যারা এখান থেকে পাশ করে কায়রো ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হতে চাইত। তিনি এ মাদ্রাসা থেকে ১৯২৯ সনে কৃতিত্বের সাথে পাশ করে দারুল উলুম কায়রো (বর্তমান নাম কায়রো ইউনিভার্সিটিতে) ভর্তি হোন। এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ১৯৩৩ সনে বি, এ, পাশ করেন এবং ডিপ্লোমা-ইন-এডুকেশন ডিগ্রী লাভ করেন। এ ডিগ্রীই তখন প্রমাণ করতো, এ ছেলে অত্যন্ত মেধাবী।

কর্মজীবন: বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রী নেবার পর সেখানেই তাঁকে অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। বেশ কিছুদিন সফলভাবে অধ্যাপনা করার পর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে স্কুল ইন্সপেক্টর নিযুক্ত হন। এ পদটি ছিল মিসরে অত্যন্ত সম্মানজনক পদ। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকেই তাঁকে ১৯৪৯ সনে শিক্ষার ওপর গবেষণামূলক উচ্চতর ডিগ্রী সংগ্রহের জন্য আমেরিকা পাঠানো হয়। সেখানে দু’বছর লেখাপড়া ও গবেষণা শেষে ১৯৫১ সনে দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। আমেরিকা থাকাকালিন সময়েই বস্তুবাদী সমাজের দুরাবস্থা লক্ষ্য করেন এবং তাঁর দৃঢ় বিশ্বাস জন্মে, একমাত্র ইসলামই আক্ষরিক অর্থে মানব সমাজকে কল্যাণের পথে নিয়ে যেতে পারে।

এরপর তিনি দেশে ফিরে ইসলামের ওপর ব্যাপক অধ্যয়ন ও গবেষণা শুরু করেন। সেই গবেষণার ফসল ‘কুরআনে আঁকা কিয়ামতের চিত্র’ ও ‘আল কুরআনের শৈল্পিক সৌন্দর্য’।

ইসলামী আন্দোলনে যোগদান : আমেরিকা থেকে ফিরেই তিনি ‘ইখওয়ানুল মুসলিমুন’ নামক ইসলামী আন্দোলনের লক্ষ্য উদ্দেশ্য কর্মসূচী যাচাই করে মনোপুত হওয়ায় ঐ দলের সদস্য হয়ে যান। ১৯৫২ সনের জুলাই মাসে তিনি ইখওয়ানুল মুসলিমুনের কেন্দ্রীয় ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। তখন থেকে তিনি পরিপূর্ণ ইসলামী আন্দোলনে আত্মনিয়োগ করেন। ১৯৫৪ সনে সাইয়েদ কুতুবের সম্পাদনায় ইখওয়ানের একটি সাময়িকী প্রকাশ করা হয়। কিন্দু দু’মাস পরই কর্ণেল নাসেরের সরকার তা বন্ধ করে দেন।

গ্রেফতার ও শাস্তি: শুরু হয় ইখওয়ান নেতা ও কর্মীদেরকে গ্রেফতার ও নির্যাতন। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে সাইয়েদ কুতুবও ছিল। সাইয়েদ কুতুবকে বিভিন্ন জেলে রাখা হয় এবং তাঁর ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়। তাঁরই এক সহকর্মী জনাব ইউসুফ আল আযম লিখেছেন: ‘নির্যাতনের পাহাড় তাঁর ওপর চাপিয়ে দেয়া হয়েছিল্ তাঁকে আগুনে ছ্যাঁকা দেয়া হতো, কুকুর লেলিয়ে দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করা হতো, মাথার ওপর কখনো অত্যন্ত গরম পানি আবার কখনো অত্যন্ত ঠান্ডা পানি ঢালা হতো। লাথি, ঘুষি, বেত্রাঘাত ইত্যাদির মাধ্যমেও নির্যাতন করা হতো, কিন্তু তিনি ছিলেন ঈমান ও ইয়াকীনে অবিচল- নির্ভিক।– (শহীদ সাইয়েদ কুতুব’ পৃষ্ঠা-৩০)

১৯৫৫ সনের ১৩ই জুলাই বিচারের নামে এক প্রহসন অনুষ্ঠিত হয় এবং তাঁকে পনের বৎসর সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। তাঁকে নির্যাতন করে এতো অসুস্থ ও দুর্বল করা হয়, যার ফলে তিনি আদালতে পর্যন্ত হাজির হতে পারেননি। এক বছর সশ্রম দণ্ড ভোগের পর নাসের সরকার তাকে প্রস্তাব করেন, তিনি যদি সংবাদপত্রের মাধ্যমে ক্ষমা প্রার্থনা করেন তবে তাকে মুক্তি দেয়া হবে। মর্দে মুমিন এ প্রস্তাবের যে উত্তর দিয়েছিলেন তা যুগে যুগে ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের আলোকবর্তিকা হিসেবে কাজ করবে। তিনি বলেছিলেন:

আমি এ প্রস্তাবে এ কারণেই বিস্ময় বোধ করছি যে, একজন জালিম কি করে একজন মজলুমকে ক্ষমা প্রার্থনা করতে বলতে পারে। আল্লাহর কসম! যদি ক্ষমা প্রার্থনার কয়েকটি শব্দ আমাকে ফাঁসি থেকেও রেহাই দিতে পারে তবু আমি এরূপ উচ্চারণ করতে রাজী নই। আমি আল্লাহর দরবারে এমনভাবে পৌঁছুতে চাই যে, তিনি আমার ওপর এবং আমি তাঁর ওপর সন্তুষ্ট।

জেল থেকে মুক্তি লাভ: ১৯৬৪ সনের মাঝামাঝি ইরাকের প্রেসিডেন্ট আবদুস সালাম আরিফ মিসর সফরে যান এবং তিনি সাইয়েদ কুতুবের মুক্তির সুপারিশ করেন। ফলে তাঁকে জেল থেকে মুক্তি দিয়ে গৃহবন্দী করে রাখা হয়। তিনি জেলে থাকা অবস্থায় দীর্ঘ ১০ বছরে বিশ্ববিখ্যাত তাফসীর “ফি যিলালিল কুরআন’ রচনা করেন।

দ্বিতীয়বার গ্রেফতার ও শাহাদাত:

এক বছর যেতে না যেতেই তাঁকে ক্ষমতা দখলের চেষ্টার অপবাদ দিয়ে আবার গ্রেফতার করা হয়। সাথে চার ভাই-বোনসহ বিশ হাজার লোককে গ্রেফতার করা হয়েছিল, তার মধ্যে প্রায় ৭শ’ মহিলাও ছিল।

অতঃপর নামমাত্র বিচার অনুষ্ঠান করে তাঁকে এবং তাঁর দুই সাথীকে ফাঁসির নির্দেশ দেয়া হয় এবং ১৯৬৬ সনের ২৯শে আগস্ট সোমবার তা কার্যকর করা হয়। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

সাইয়েদ কুতুব রচিত গ্রন্থাবলী

(ক) গবেষণামূলক:

(১) ফী যিলালিল কুরআন (৬ খণ্ড)

(২) আত তাসবীরুল ফান্নী যিল কুরআন (আল কুরআনের শৈল্পিক সৌন্দর্য)

(৩) মুশাহিদুল কিয়ামতি ফিল কুরআন (কুরআনের আঁকা কিয়ামতের চিত্র)

(৪) আল আদালাতুল ইজতিমাইয়্যা ফিল ইসলাম (ইসলাম ও সামাজিক সুবিচার)

(৫) আস সালামুল ‘আ’লামী ওয়াল ইসলাম (বিশ্বশান্তি ও ইসলাম)

(৬) দারাসাতে ইসলামীয়্যা (ইসলামী রচনাবলী)

(৭) মা’রিফাতুল ইসলাম ওয়ার রিসালিয়াহ (ইসলাম ও পুঁজিবাদের দ্বন্দ্ব)

(৮) নাহ্বু মুজতামিউ’ ইসলামী (ইসলামের সমাজ চিত্র)

(৯) মুয়াল্লিম ফিত্‌ তরীক (ইসলামী সমাজ বিপ্লবের ধারা)

(১০) হাযা আদ্‌ দ্বীন (ইসলাম একটি জীবন ব্যবস্থা)

(খ) কাব্য ও কবিতা

১। কাফিলাতুর রাকীক (কাব্য)

২। হুলমুল ফাজরী (কাব্য)

৩। আল শাতিয়্যুল মাজহুল (কাব্য)

(গ) উপন্যাস:

১। আশওয়াক (কাঁটা)

২। তিফলে মিনাল ক্বারিয়া (গ্রামের ছেলে)

৩। মদীনাতুল মাসহুর (যাদুর শহর)

(ঘ) শিশু-কিশোরদের জন্য:

১। কাসাসুদ দীনিয়াহ্‌ (নবী কহিনী)

(ঙ) অন্যান্য:

১। মুহিম্মাতুশ শায়ির ফিল হায়াত (কবি জীবনের আসল কাজ)

২। আল আত্‌ইয়াফুল আরবাআ (চার ভাই বোনের চিন্তাধারা)

৩। আমেরিকা আলআতি রাআইতু (আমার দেখা আমেরিকা)

৪। কিতাব ওয়া শাখছিস্যাত (গ্রন্থ ও ব্যক্তিত্ব)

৫। আন নাকদুল আদাবী উছুলুহু ওয়া মানাহাজাহু (সাহিত্য সমালোচনার মূলনীতি ও পদ্ধতি)

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম

নিবেদন

মুহতারামা আম্মা! আমি এ গ্রন্থখানাকে আপনার নামে নিবেদন করছি।

প্রিয় মা আমার! স্মৃতিপটে একটা কথা এখনো জ্বলজ্বল করছে, প্রতিটি রমযান মাস এলে কারী সাহেব আমাদের ঘরে এসে কুরআন তিলাওয়াত করতেন। আর আপনি ঘন্টার পর ঘন্টা তা কান লাগিয়ে পর্দার আড়াল থেকে তন্ময় হয়ে শুনতেন। যখন আমি শিশুসুলভ চীৎকার জুড়ে দিতাম তখন আপনি ইঙ্গিতে আমাকে চুপ করতে বলতেন। তখন আমিও আপনার সাথে কুরআন শ্রবণে শরীক হয়ে যেতাম। যদিও আমি তখন তা অনুধাবন করতে সক্ষম ছিলাম না। কিন্তু আমার মনে আক্ষরিক উচ্চারণগুলো বদ্ধমূল হয়ে যেতো। তারপর আমি যখন আপনার হাত ধরে হাটতে শিখলাম তখন আপনি আমাকে গ্রামের প্রাইমারী স্কুলে ভর্তি করে দিলেন। আপনার বড় ইচ্ছে ছিল আল্লাহ যেন তাঁর কালামকে কণ্ঠস্থ করার জন্য আমার হৃদয়কে উন্মুক্ত করে দেন। অবশ্য আল্লাহ আমাকে খুশ ইলহানের মতো নিয়ামত দান করেছেন। আম যেন আপনার সামনে বসে প্রায় সময় তা তিলাওয়াত করতে পারি। আমি পূর্ণ কুরআন হিফজ করে নিলাম। আপনার অহংকার একটি অংশ পূর্ণ হয়ে গেল।

প্রিয় আম্মা আমার! আজ আপনি আমার ধরা ছোঁয়ার বাইরে। কিন্তু এখনো আপনার সেই ছবি আমার স্মৃতিপটে অম্লান। ঘরে আপনি রেডিও সেটের কাছে বসে যেভাবে কারী সাহেবের তিলাওয়াত শুনতেন, আমি আজও সে স্মৃতি ভুলতে পারিনি। তিলাওয়াত শ্রবণরত অবস্থায় মুখমণ্ডল যে সুন্দর ও পবিত্র রূপ ধারণ করতো, আপনার মন-মস্তিষ্কে তার যে প্রভাব পড়তো সে স্মৃতি আজও মূর্তমান আমার হৃদয় পটে।

ওগো আমার জন্মদাত্রী! আপনার সেই মা’সুম শিশুটি আজ নওজোয়ান যুবক। আপনার সেই চেষ্টার ফসল আজ আপনার নামে নিবেদন করছি। আল্লাহ যেন আপনার কবরের ওপর ভোরে শিশিরের মতো শান্তি অবতীর্ণ করেন এবং আপনার সন্তানকেও যেন মাহফুজ রাখেন।

আপনার সন্তান

সাইয়েদ কুতুব

অনুবাদকের কথা

আপনি কি কুরআন বুঝতে চান? কুরআন যে এক জীবন্ত মুজিযা, সম্মোহনী শক্তির উৎস তা কি স্বীকার করেন? আপনি কুরআন পড়েন ঠিকই কিন্তু তা আপনাকে পুরোপুরি আকৃষ্ট করতে পারে না, কিন্তু কেন? এ কুরআনে এমন কাহিনি আছে যা রূপকথাকেও হার মানায়, এমন ছবি আছে যা আজ পর্যন্ত কোন শিল্পীই আঁকতে পারেনি, এমন সুরের মুর্ছনা ও ব্যাথার রাগিনী আছে যা সমস্ত সুরের জগতকে আচ্ছন্ন করে রাখে- এগুলোর সাথে আপনার পরিচয় হয়েছে কি? না হলে আল-কুরআন জনাব সাইয়েদ কুতুবের এ গ্রন্থখানা পড়ুন। এটি আপনাকে দেবে এক নতুন দিগন্তের পথ-নির্দেশ। আপনার সামনে উন্মক্ত করে দেবে কুরআনের সমস্ত রহস্যের দ্বার। আপনি হারিয়ে যাবেন কুরআনের অসীমতায়, অতল গহনে। কোন শক্তিই আপনাকে ফেরাতে পারবে না সে গভীর মায়াপুরী থেকে।

সাইয়েদ কুতুব একজন গবেষক ও ইসলামী চিন্তাবিদ ছিলেন, এ পরিচয়েই ইসলামী ‍দুনিয়া তাঁকে চেনেন। কিন্তু তিনি যে আধুনিক আরবী সাহিত্যের উঁচুস্তরের একজন সাহিত্যিক ছিলেন এবং তিনি ছিলেন এক অমর কথাশিল্পী সে কথা ক’জন খবর রাখেন। শুধু তাই নয়, শিল্পকলা, ললিত কলা, চারু ও কারুকলা ইত্যদি বিষয়েও তিনি পারদর্শী ছিলেন। তাই আল-কুরআনকে তিনি বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেছেন। কারাজীবনে ঘন্টার পর ঘন্টা, দিনের পর দিন তিনি এ কুরআন নিয়ে গবেষণা চালিয়েছেন। তিনি ছিলেন একদিকে হাফেজে কুরআন, অপরদিকে তাঁর মাতৃভাষা ছিল আরবী, আর এ দুটো দিকই গবেষণা কর্মে তাঁকে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। তিনি নিজেই বলেছেন:

আমার মতে এক অধক ব্যক্তির ওপর আল্লাহ তা’আলার এক বিরাট অনুগ্রহ, আমি যখন আল-কুরআন নিয়ে চিন্তা-ভাবনা শুরু করেছি, তখন তিনি আমার জন্য রহমতের সব ক’টি দরজা খুলে দিয়েছেন এবং আমাকে আল-কুরআনের রূহের এতো নিকটবর্তী করে দিয়েছেন, মনে হয় যেন কুরআন নিজেই বুঝি আমার জন্য তার সমস্ত সত্য ও রহস্যের দ্বার উন্মুক্ত করে দিয়েছে। -(ফী যিলালিল কুরআনের মূল ভূমিকা থেকে)

এ মূল্যবান গ্রন্থখানার পরতে পরতে সাহিত্যের ছোঁয়া, এটি বিনিসূতার এক কথামালা। ভাষা এতো উন্নত ও সমৃদ্ধ যে, আমি ইতোপূর্বে তিনবার এ গ্রন্থখানা অনুবাদে মনস্থ করে বিরত রয়েছি। সাহস পাইনি। তাই বলে এটি অনুবাদের লোভও সম্বরণ করতে পারিনি। পরিশেষে চতুর্থবারে মহান আল্লাহর কাছে কুকুতি মিনতির সাথে কৃপাভিক্ষা চেয়ে এ মহান কাজে হাত দিয়েছি। কাজ পিঁপড়ের গতিতে আগালেও করুণাময়ের রহমতের পরশে তা পূর্ণতায় পৌছে গেল। তবে সাহিত্যের সেই উচ্চ মানটা পুরোপুরি ধরে রাখতে পেরেছি সে দাবি আমি করছি না, কিন্তু লেখক যা বুঝাতে চেয়েছেন তা আপনাদের সামনে হুবহু উপস্থাপরে স্বেচ্ছায় কোন ত্রুটি করিনি। তারপরও কথা থেকে যায়, আমি একেতো কোন বড় আলিম নই। তারপর আধুনিক আরবী সাহিত্য সম্পর্কে জ্ঞান নেই বললেই চলে, তদুপরি আমি এক দুর্বল মানুষ,ভুল-ত্রুটিই যার নিত্যদিনের সাথী। তাই এ কাজ করতে গিয়েও হয়তো কোন জায়গায় ভুল করে থাকতে পারি, যা আমি এখনো অবগত নই। যদি কোন আল্লাহর বান্দার নিকট এ ধরনের কোন ভুল-ত্রুটি দৃষ্টিগোচর হয় তবে মেহেরবানী করে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে আমি পরবর্তী সংশোধন করে দেবার চেষ্টা করবো, ইনশা আল্লাহ্‌।

পরিশেষে দরবারে ইলাহীতে নতশিরে প্রার্থনা, তিনি যেন এ গ্রন্থের লেখককে জান্নাতে উচ্চ মর্যাদান প্রদান করেন। তার সাথে এ অধম অনুবাদক, প্রকাশক ও পাঠকগণকেও যেন আল্লাহ মা’ফ করে দেন এবং জান্নাতে লেখকের সাথে মিলিত হবার তওফিক দেন। আরো মিনতি এই যে, লেখকের মতো আমাদের কাছেও যেন আল্লাহ তাঁর কুরআনে হাকীমের সমস্ত রহস্যের দ্বার উন্মুক্ত করে দেন। আমীন।

বিনীত

মুহাম্মদ খলিলুর রহমান মুমিন

সূচি পত্র

বিষয়

লেখকের কথা

আমি কুরআনকে কিভাবে পেয়েছি?

প্রথম অধ্যায়

আল-কুরআনের সম্মোহনী শক্তি

হযরত উমর (রা)-এর ইসলাম গ্রহণ

ওয়ালীদ বিন মুগিরার ঘটনা

আল কুরআন সম্মোহনী শক্তির উৎস

ইসলাম গ্রহণের মূল চালিকা শক্তি

আল-কুরআনের সম্মোহনী শক্তির উৎস কোথায়?

দ্বিতীয় অধ্যায়

আল-কুরআনের গবেষণা ও তাফসীর

সাহাবায়ে কিরাম ও তাবেঈদের যুগে তাফসীর

তৃতীয় অধ্যায়

শৈল্পিক চিত্র

ভাবকে বোধগম্য ভাষায় প্রকাশ

মনোজাগতিক চিত্র

মানবিক চিত্র

সংঘটিত বিপর্যয়ের চিত্র

রূপক ঘটনাবলীর চিত্র

১. বাগান মালিকদের কাহিনী

২. দুটো বাগানের মালিকের কাহিনী

প্রকৃত ঘটনাবলীর চিত্র

১. হযরত ইবরাহীম (আ) ও হযরত ইসমাঈল (আ)

২. হযরত নূহ (আ)- এর প্লাবন

কিয়ামতের চিত্র

শান্তি ও শাস্তির দৃশ্যাবলী

চতুর্থ অধ্যায়

কল্পনা ও রূপায়ণ

পঞ্চম অধ্যায়

আল-কুরআনের শৈল্পিক বিন্যাস

শৈল্পিক বিন্যাসের ধরন

ষষ্ঠ অধ্যায়

আল-কুরআনের সুর ও ছন্দ

প্রথশ অবস্থা

দ্বিতীয় অবস্থা

বাক্যান্তে বিরতি ও অন্তমিল

সপ্তম অধ্যায়

কুরআনী চিত্রের উপাদান

শৈল্পিক বিন্যাসের একটি সূক্ষ্ম দিক

কুরআনী চিত্রের স্থায়িত্বকাল

দীর্ঘ চিত্র

অষ্টম অধ্যায়

প্রসঙ্গঃ আল কুরআনে বর্ণিত ঘটনাবলীর উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য

১. ওহী ও রিসালাতের স্বীকৃতি

২. এক ও অভিন্ন দ্বীন

৩. আল্লাহর ওপর ঈমান

৪. সমস্ত নবী-রাসূল একই দাওয়াত দিয়েছেন

৫. প্রত্যেক নবী-রাসূলের দ্বীনের যোগসূত্র৬. নবী-রাসূলদের সফলতা ও মিথ্যেবাদীদের ধ্বংস

৭. সুসংবাদ ও সতর্কীকরণের সত্যতা

৮. নবী-রাসূলদেরকে প্রদত্ত নিয়ামতসমূহের বর্ণনা

৯. আদম সন্তানকে শয়তানের শত্রুতা থেকে সতর্ক করা

১০. অন্যান্য আরো কতিপয় কারণ

নবম অধ্যায়

আল কুরআনের ঘটনাবলী দ্বীনি উদ্দেশ্যের অনুগামী হওয়ার প্রমাণ

কাহিনীর সংক্ষেপ ও বিস্তৃতি

উপসংহার ও পরিণতি বর্ণনা

কাহিনী বর্ণনায় দ্বীনি ও শৈল্পিক সংমিশ্রণ

কাহিনীর শৈল্পিক রূপ

দশম অধ্যায়

কাহিনীর শৈল্পিক বৈশিষ্ট্য

১. বর্ণনার বিভিন্নতা

২. হঠাৎ রহস্যের জট খোলা

৩. দৃশ্যান্তরে বিরতি

৪. ঘটনার মাধ্যমে দৃশ্যাংকন

আবেগ অনুভূতির চিত্র

কাহিনীতে ব্যক্তিত্বের ছাপ

১. চঞ্চল প্রকৃতির নেতা

২. কোমল হৃদয়- সহনশীল ব্যক্তিত্ব

৩. হযরত ইউসুফ (আ)

৪. হযরত আদম (আ)

৫. হযরত সুলাইমান (আ)- এর ঘটনা

এগার অধ্যায়

মানুষের স্বরূপ

১. মানব প্রকৃতি

২. ঠুনকো বিশ্বাসী

৩. সুবিধাবাদী ধূর্ত প্রকৃতির লোক

৪. ভীরু কাপুরুষ

৫. হাসি-কৌতুক উদ্রেককারী লোক

৬. শুধু আকৃতিতেই মানুষ

৭. প্রশংসাকাংখী

৮. সুবিধাবাদী

৯. অদ্ভূদ অহংকারী

১০. ভীত বেহায়া

১১. দুর্বল মুনাফিক

১২. ওজর আপত্তিকারী

১৩. নির্বোধ প্রতারক

১৪. বিপর্যয় সৃষ্টিকারী

১৫. পার্থিব জীবনের মোহ মোহগ্রস্ত

১৬. গোঁয়ার ও স্থবির প্রকৃতির লোক

১৭. স্বেচ্ছাচারী দল

১৮. সত্য হোক কিংবা মিথ্যে, ঝগড়া তারা করবেই

১৯. কৃপণ

২০. ভেতর ও বাইরের বৈপরীত্য

২১. মুমূর্ষু অবস্থায় তওবাকারী

২২. স্বল্প বুদ্ধির লোক

২৩. প্রকৃত ঈমানদার

২৪. দরিদ্র অথচ অল্পে তুষ্ট

২৫. আল্লাহকে ভয়কারী

২৬. আল্লাহর প্রকৃত বান্দা

২৭. দানশীল ও উদার

২৮. ধৈর্যশীল

২৯. অপর ভাইকে অগ্রাধিকার দানকারী

৩০. ক্রোধ দমনকারী ও অপরকে ক্ষমাকারী

বারো অধ্যায়

প্রজ্ঞা প্রসূত যুক্তি

আল-কুরআনের সহজ সরল বক্তব্য

তওহীদ (একত্ববাদ) সমস্যা

মৃত্যুর পর ‍পুনরুত্থান

আল-কুরআনের বর্ণনা রীতি

উপসংহার]

আল-কুরআনের বর্ণনাভঙ্গির আরোএকটি বৈশিষ্ট্য

পরিশিষ্ট-১

পরিশিষ্ট-২

আল-কুরআনের সূরা অবতীর্ণের ক্রমধারা

About শিবির অনলাইন লাইব্রেরী