আসান ফেকাহ – ১ম খণ্ড

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

আকায়েদ অধ্যায়

আরকানে ইসলাম

যে কোন দালানকোঠা অথবা ঘরদোর হোক, তা অবশ্যই কোন ভিত্তি বা স্তম্ভের উপরেই দাঁড়িয়ে থাকে। এ ঘরদোর ততোক্ষণ পর্যন্তই ঠিক থাকে, যতোক্ষণ তার ভিত্তি বা স্তম্ভ মজবুত থাকে। এ স্তম্ভ নড়বড়ে হয়ে যায় অথবা দুর্বল হয়ে পড়ে তাহলে তার উপর যে ঘর সেটাও দুর্বল হয়ে যাবে। আর যদি সে স্তম্ভ গোড়া থেকেই নড়ে যায় অথবা জরাজীর্ণ হয়ে পড়ে যেতে চায়, তাহলে ঘরখানাও দাড়িয়ে থাকতে পারবে না এবং যে কোন সময়ে ধড়াস করে মাটিতে পরে যাবে। ইসলামের দৃস্টান্ত ঠিক একটি ঘরের মতো। এর পাঁচটি আরকান বা স্তম্ভ আছে। এগুলোকে ইসলামে আরকান বলে।

ইসলামী অট্রালিকা বা ঘরের এসব স্তম্ভ যতোটা মজবুত হবে ইসলামী দালানটাও ততোটা স্থয়ী হবে। যদি আল্লাহ না করুন এসব আরকান দুর্বল হয়, গোড়া আলগা হয়ে যায় অথবা পড়ে যাওয়ার মতন হয়, তাহলে ইসলামী দালানও ঠিক থাকতে পারবে না। ধাড়াস  করে এক সময় যমীনের উপরে পড়ে যাবে।

এখন ইসলাম যদি আমাদের কাছে প্রিয় হয় এবং যদি আমরা এ ঘরের ছায়ায় থেকে নিশ্চিত মনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে এক আল্লাহর বন্দেগী করতে চাই এবং সেই সাথে এ মহৎ আকাংখাও পোষণ করি যে, আল্লাহর সকল বান্দা এ দালান ঘরে আশ্রয় নিয়ে কুফর ও শির্কের বিপদ থেকে দূরে থাক, আল্লাহর প্রিয় বান্দাহ হিসাবে জীবনযাপন করুক এবং দ্বীন ও দুনিয়ায় সাফল্য লাভ করুক, তাহলে আমাদের কর্তব্য হচ্ছে এই যে, আমাদেরকে আরকানের ইসলামের মর্মকথা ভালভাবে জানতে হবে এবং তার স্থায়িত্ব ও মজবুতির পুরোপুরি ব্যবস্থা করতে হবে। তারপর কোন অবস্থাতেই তাকে দুর্বল হতে দেয়া যাবে না। তার কারণ এই যে, ইসলামের এ বিরাট দালান ঘর তার অসংখ্য বরকতসহ তখনই কায়েম থাকতে পারে যখন তার এসব স্তম্ভ মজবুদ হয়ে বিদ্যমান থাকবে।

ইসলামের আরকান পাঁচটিঃ

১. কালেমায়ে তাইয়েবাহ। অর্থাৎ কুফর ও শির্কের ধারণা বিশ্বাস পরিত্যাগ করে ইসলামী আকায়েদের উপর ঈমান আনা।

২. নামায কায়েম করা।

৩. যাকাত দেয়া।

৪. রমযানের রোজা রাখা।

৫. বায়তুল্লাহর হজ্জ করা।

নবী (সা) বলেন :  بني الاسلام على خمس

ইসলামের ভিত্তি পাঁচটি জিনিসের উপর

شهادة ان لأ اله الأالله و ان محمدا رسول الله-

এ সাক্ষ্য দেয়া যে, আল্লাহ ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই এবং মুহাম্মাদ (সা) আল্লাহর রসূল।

واقام الصلوة

এবং নামায কায়েম করা।

وايتاء الزكوة

এবং যাকাত দেয়া।

وصوم رمضان

এবং রমযানের রোযা রাখা।

وحج البيت

এবং আল্লাহর ঘরের যিয়ারত করা বা হজ্জ করা।

ইসলামী ধারণা- বিশ্বাস ও চিন্তাধারা

নেক আমলের বুনিয়াদ

ইসলামে যাবতীয় এবাদত ও নেক বুনিয়াদ হচ্ছে ঈমান। ঈমান ব্যতিরেকে কোন এবাদত নির্ভরযোগ্য নয় কোন নেকী কবুল হবার নয় এবং নাজাতও সম্ভব নয়। যে কোন আমল দেখতে যতোই নেক মনে হোক না কেন, ঈমান যদি তার বুনিয়াদ না হয়, তাহলে আল্লাহর কাছে তার কোনই মর্যাদা হবে না, কুরআন সেই আমলকে নেক আমল বলে, যার প্রেরণার উৎস ঈমান।

আল্লাহ বলেন :

যে ব্যক্তিই নেক আমল করবে, তা সে পুরুষ হোক অথবা নারী, সে যদি মুমেন হয়, তাহলে তার জন্যে আমি পূতপবিত্র জীবনযাপনের ব্যবস্থা করে দেব। (সূরা আন-নমল : ৯৭)

কুরআনের অন্যত্র বলা হয়েছে :

(হে রাসূল) তাদেরকে বলুন, তোমাদের কি বলে দেব কারা তাদের আমলের দিকদিয়ে সবচেয়ে অকৃতকার্য ও ব্যর্থ মনোরথ? তারা সেসব লোক যাদের সকল চেষ্টা-চরিত্র দুনিয়ার জীবনে গোমরাহীর মধ্যে ব্যয়িত হয়। অথচ তারা মনে করে যে, তারা নেক আমলই করছে। তারা ওসব লোক যারা আল্লাহর নিদর্শনাবলী অস্বীকার করেছে এবং আল্লাহর নিকটে হাযির হওয়ার ব্যাপার বিশ্বাস করেনি। সে জন্যে তাদের সব আমল ব্যর্থ হয়েছে। কিয়ামতের দিনে সে সবের কোনই মূল্য হবে না। ( সূরা আল-কাহাফ : ১০৩-১০৫)

ঈমান বলতে কি বুঝায়?

কালেমায়ে তাইয়েবা এবং কালেমায়ে শাহাদাতের মর্ম অন্তর দিয়ে মেনে নিয়ে মুখে উচ্চারণ করাকেই বলে ঈমান।

কালেমায়ে তাইয়েবাহ : لااله الا الله محمد رسول الله

আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ নেই। মুহাম্মদ (সা) আল্লাহর রসূল।

কালেমায়ে শাহাদাত : اشهد ان لأ اله الا الله واشهد ان محمدا عبده ورسوله

আমি শাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ নেই এবং আরও সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, মুহাম্মদ (সা) তাঁর বান্দাহ এবং রাসূল।

কালেমায়ে তাইয়েবাহ এবং কালেমায়ে শাহাদাতের উপর ঈমান আনার পর যে সব বিষয়ের মোটামুটি স্বীকৃাতি দিতে হয় তাকে বলা হয় ইসলামী আকায়েদ।

ইসলামী আকায়েদ ছয়টি :

১. আল্লাহর ব্যক্তিসত্তা ও গুণাবলীর উপর ঈমান।

২. ফেরেশতাদের উপর ঈমান।

৩. রসূলগণের প্রতি ঈমান (খতমে নবুয়তের প্রতি ঈমানসহ)।

৪. আসমানী কেতাবসমূহের উপর ঈমান।

৫. আখেরাতের উপর ঈমান।

৬. তকদীরের উপর ঈমান।

এ ছটি আকীদা প্রকৃতিপক্ষে ঈমানের ছটি অংশ। এ সবের মধ্যে পারস্পারিক গভীর ও অনিবার্য সম্পর্ক আছে। এ সবের কোন একটিকে মেনে নিলে অন্যসব কয়টিকেই মেনে নিতে হয় এবং কোন একটিকে অস্বীকার করলে সবগুলোকেই অস্বীকার করা হয়। ঈমানের প্রকৃত অর্থ এই যে, এ সবগুলোকে অন্তর দিয়ে মেনে নেয়া। কেউ যদি এ সবের মধ্যে কোন একটি মেনে নিতে অস্বীকার করে, তাহলে তাকে কিছুতেই মুমেন বলা যাবে না। ঠিক তেমনি সেও মুমেন নয় যে ইসলামের এ ছটি আকীদার অতিরিক্ত কোন নতুন আকীদা নিজের পক্ষ থেকে ঈমানের অংশ বলে মনে করে এবং ঈমানের জন্যে তা প্রয়োজনীয় মনে করে।

আল্লাহর সত্তা ও গুণাবলীর উপর ঈমান

১. এই যে বিরাট বিশাল প্রকৃতি জগত, তার মধ্যে অসংখ্য সৌর জগত আছে। এ ধরণের আরো বহু জগত আছে। তাদের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের ব্যবস্থাপনাও আছে। এসব কত বিরাট বিশাল তা আমাদের কল্পনার অতীত। এসব সৃষ্টি হঠাৎ করে ঘটনাক্রমে অস্তিত্ত্ব লাভ করেনি। বহু বছর যাবত বন্তুর স্বাভাবিক ক্রিয়ার ফলও এসব সৃষ্টি নয়। বরঞ্চ আল্লাহ তায়ালা তার আপন ইচ্ছায় ও নির্দেশে বিশেষ পরিকল্পনার ভিত্তিতে এসব সৃষ্টি করেছেন। তিনি এসবের প্রকৃত মালিক। তিনি তাঁর অসীম কুদরতে এসব কায়েম রেখেছেন এবং যতো দিন ইচ্ছা কায়েম রাখবেন।

২. প্রকৃতি রাজ্যের প্রতিটি বন্তুর স্রষ্টা আল্লাহ তায়ালা। এমন কোন কিছু নেই যা তার দ্বারা সৃষ্টি না হয়ে আপনা আপনিই অস্তিত্বে এসেছে। প্রতিটি বস্তুর অস্তিত্ব ও স্থায়িত্ব তাঁর উপর নির্ভরশীল। তিনিই সকলের প্রতিপালক। তিনি যাকে ইচ্ছা তাকে রক্ষা করেন এবং যাকে ইচ্ছা ধ্বংস করেন।

৩. তিনি আনাদি কাল থেকে আছেন এবং অনন্ত কাল পর্যন্ত থাকবেন। তিনি চির জীবিত ও চির শাশ্বত। তার ধ্বংস নেই।

৪. তিনি এক ও একক। সকলেই তার মুখাপেক্ষী। তিনি কারো মুখাপেক্ষী নন। তিনি সর্বশক্তিমান। কেউ তার ইচ্ছা ও সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে পারে না। তাঁর পিতা-মাতাও নেই, সন্তান-সন্তুতিও নেই। স্ত্রী, পুত্র-পরিজন, ভাই, বেরাদার, জ্ঞাতি, গোষ্ঠী কিছুই নেই।

৫. তিনি সকল বিষয়ে লা-শারীক। তাঁর সত্তায় ও গুণাবলীতে অধিকার ও এখতিয়ারে কোনই শরীক বা অংশীদার নেই। তিনি আপনা আপনি অস্তিত্ববান। তার অধিকার ও এখতিয়ারে, সত্তা ও গুণাবলীতে কারো সাহায্যের মুখাপেক্ষী তাঁকে হতে হয় না।

৬. কোন কিছুই তাঁর সাধ্যের অতীত নয়। এমন কোন বিষয়ের কল্পনা করা যেতে পারে না যা করতে তিনি অক্ষম। সকল প্রকারের বাধ্যবাধকতা, অক্ষমতা ও দোষ-ত্রুটির উর্ধে তিনি। তিনি সকল মঙ্গলের উৎস । যতো পবিত্র নাম উৎকৃষ্ট গুনাবলী তা সবই তাঁর জন্যে। নিদ্রা অথবা তন্দ্রা তাঁকে স্পর্শ করতে পারে না। তিনি পাক পবিত্র এবং সকল দোষ ত্রুটির উর্ধে।

৭. তিনি সমগ্র বিশ্ব প্রকৃতির একমাত্র বাদশাহ বা শাসক। সকল কর্তৃত্বের উৎস তিনি। বিশ্ব প্রকৃতিতে একমাত্র তারই কর্তৃত্ব চলছে। তার কর্তৃত্ব ও প্রভুত্ব প্রয়োগের ব্যাপারে তিনি কারো মুখাপেক্ষী নন। তিনি ব্যতীত কর্তৃত্ব প্রভুত্ব আর কারো হতে পারে না। তিনি যা ইচ্ছা তাই করেন এবং তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করারও কেউ নেই।

৮. তিনিই সকল শক্তির আসল উৎস ও কেন্দ্র। অন্য সকল শক্তি তাঁর কাছে নগণ্য। বিশ্ব প্রকৃতিতে এমন কিছু নেই যা তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ করতে পারে অথবা তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে নিঃশ্বাস ফেলতে পারে। তা সে মানুষ হোক, ফেরেশতা অথবা জ্বিন হোক অথবা অন্য কোন শক্তিশালী সৃষ্টি হোক। প্রকৃতি রাজ্যের কোন বৃহত্তম গ্রহ অথবা দৃশ্য অদৃশ্য কোন শক্তি ( ) তারা যতো বড়ো ও শক্তিশালী হোক- তারা আল্লাহর অসীম কুদরত ও ক্ষমতার কাছে কিছুমাত্র নয়।

৯. তিনি সর্বত্র সর্বদা বিরাজমান। তিনি সর্বদ্রষ্টা। প্রত্যেকটি বন্তু তিনি দেখতে পান তা সে ভূগর্ভে হোক অথবা অসীম আকাশের কোন স্থানে হোক। তিনি ভবিষ্যত সম্পর্কে অবহিত। মানুষের মনের কথা তার অন্তরের অন্তঃস্থলে লুক্কায়িত ভাবধারা ও আবেগ অনুভূতি এবং সকল প্রকার গোপন সহস্য তাঁর পুরোপুরি জানা। তিনি মানুষের কাঁধের শিরা-উপশিরা থেকেও নিকটে অবস্থান কেরন। তিনি পূর্বাপর সকল বিষয়ের সুনিশ্চিত জ্ঞান রাখেন। গাছ থেকে এমন কোন পাতা পড়ে না যা  তাঁর জ্ঞানের বাইরে অথবা ভূখন্ডে লুক্কায়িত এমন শস্যবীজ নেই যা তাঁর জানানেই।

১০. জীবন মৃত্যু তাঁর হাতে। যাকে ইচ্ছা তাকে জীবন ও মৃত্যু দান করেন। যাকে তিনি মারতে চান তাক রক্ষা করার কেউ নেই এবং যাকে তিনি জীবিত রাখতে চান তাকে কেউ মারতে পারে না।

১১. সকল সম্পদের একচ্ছত্র মালিকানা তাঁর। এ সম্পদ থেকে যাকে তিনি বঞ্চিত করতে চান তাকে কেউ কিছু দিতে পারে না। যাকে তিনি দিতে চান তাকে কেউ তা ঠেকাতে পারে না। কাউকে সন্তান দান করা না করা সম্পূর্ণ তার এখতিয়ার। যাকে ইচ্ছা তাকে পুত্র সন্তান দেন, যাকে ইচ্ছা তাকে কন্যা অথবা যাকে ইচ্ছা তাকে উভয়ই দেন। আবার যাকে ইচ্ছা তাকে উভয় থেকেই বঞ্চিত করেন। তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করার কারো এতটুকু ক্ষমতা নেই।

১২. লাভ-লোকসান একমাত্র তাঁর একতিয়ার। তিনি কাউকে ক্ষতি অথবা বিপদের সম্মুখীন করতে চাইলে কেউ তা ঠেকাতে পারে না। আর যদি তিনি কারো মংগল করতে চান, তাহলে কেউ তার কোন ক্ষতি বা অমংগল করতে পারে না। মোট কথা, আল্লাহ ব্যতীত আর কেউ কারো কোন মংগল-অমংগল করতে পারে না।

১৩. একমাত্র তিনিই সকলের রিজিকদাতা। রিজিকের চাবিকাঠি একমাত্র তাঁরাই হাতে। তিনিই তার যাবতীয় সৃষ্টি সম্পর্কে পূর্ণ অবহিত। সকল-কেই তিনি রুজি দান করেন। রুজি রোজগারের ব্যাপারে কমবেশী করাও তার হাতে। যার জন্যে তিনি যাতটুকু নির্ধারিত করে রেখেছেন, সে ততটুকুই ঠিক মতো পাবে। এর কমবেশী কারার অধিকার কারো নেই।

১৪. তিনি অত্যন্ত ন্যায়পরায়ণ। তিনি বিজ্ঞ ও সুস্থ বিচার সম্পন্ন। তিনি সঠিক সিদ্ধান্তকারী। তিনি কোন হকদারের হক নষ্ট করেন না এবং কারো উপর যুলুম করেন না। এ তাঁর ন্যায়-নীতির খেলাপ যে, সুকৃতিকারী এবং দুষ্কৃতিকারী তার নিকটে সমান হবে। প্রত্যেককে তার আপন আপন কৃতকর্ম অনুযায়ী তিনি প্রতিদান দেন। কোন অপরাধীকে তিনি তার অপরাধের অধিক শাস্তি দেন না এবং কোন নেক লোককে তার যথোপযুক্ত পুরষ্কার থেকে বঞ্চিত করেন না। তাঁর একটি সিদ্ধান্ত তাঁর পরিপূর্ণ জ্ঞান সুস্থ বিচার-বুদ্ধি ও ন্যায়ের ভিত্তিতে হয়ে থাকে।

১৫. তিনি তাঁর বান্দাহকে অত্যন্ত ভালোবাসেন। তিনি গুনাহ মাফ করে দেন, তওবাকারীর তওবা কবুল করেন। তিনি তাঁর বান্দাহদের উপর সর্বদা রহমত বর্ষণ করে থাকেন। তাঁর রহমত ও মাগফিরাত থেকে মুমেনদের নিরাশ হওয়া উচিত নয়।

১৬. তিনিই একমাত্র সত্তা যাকে ভালোবাসা যেতে পারে। একমাত্র তাঁরই সন্তুষ্টি অর্জন করতে হবে। তাঁকে ব্যতীত আর কাউকে ভালোবাসতে হলে তাঁরই জন্যে ভালোবাসতে হবে, তাঁর ভালোবাসাই সকল ভালোবাসাকে নিয়ন্ত্রন করবে।

১৭. একমাত্র তিনিই আমাদের কৃতজ্ঞতা পাওয়ার হকদার। সকল এবাদত দাসত্ব ও আনুগত্য পাওয়ার অধিকার একমাত্র তাঁরই। তিনি ব্যতীত অপর কেউ না আনুগত্য লাভের অধিকারী হতে পারে আর না তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রদর্শন করা যেতে পারে। একমাত্র তাঁর সামনেই সবিনয়ে দাঁড়ানো যেতে পারে। তাঁকেই সিজদা করা যেতে পারে। তাঁর কাছেই সব কিছু চাওয়া যেতে পারে। তাঁর কাছেই সবিনয়ে কাকুতি মিনতি করা যেতে পারে।

১৮. এ অধিকার তাঁর যে, মানুষ তাঁর আনুগত্য করবে। তাঁর আইন মেনে চলবে। নিরংকুশভাবে তাঁর নির্ধারিত শরীয়তের বিধান মেনে চলবে। হালাল হারাম নির্ধারণ করার অধিকার একমাত্র তাঁর। এ ব্যাপারে কারো কণামাত্রও অধিকার নেই।

১৯. একমাত্র তাকেই ভয় করতে হবে। তাঁর উপরেই আশা ভরসা রাখতে হবে। প্রতিটি ব্যাপারে সাহায্য তাঁর কাছেই চাইতে হবে। তাঁকেই বাসনা পূরণকারী, ত্রাণকর্তা, অভিভাবক ও সাহায্যদাতা মনে করতে হবে। সকল ব্যাপারে নির্ভর তাঁর উপরেই করতে হবে।

২০. হেদায়াত তাঁর কাছেই চাইতে হবে। সুপথ দেখানো তার কাজ। তিনি যাকে হেদায়াত করেন তাকে কেউ পথভ্রষ্ট করতে পারে না এবং তিনি যাকে পথভ্রষ্ট করেন তাকে কেউ সুপথে আনতে হবে না।

২১.  কুফর, শির্ক, নাস্তিকতা বিদাআত প্রভৃতি ইহকাল ও পরকালের জন্যে ধ্বংস নিয়ে আসে। দুনিয়ার মধ্যে নিকৃষ্ট মানুষ তারাই যারা আল্লাহর অস্তিত্বকে অস্বীকার করে, তাঁর দ্বীন কবুল করে না, তাঁর সাথে অন্যকে অংশীদার বানায় এবং তাঁর আনুগত্য করার পরিবর্তে আপন প্রবৃত্তির আনুগত্য করে।

২২. কুফরী অবস্থায় যারা মৃত্যুবরণ করে তাদের উপর আল্লাহর লানৎ, ফেরেশেতাদের লানৎ এবং সমগ্র মানবজাতির লানৎ।

২৩. কুফর ও শির্কের পরিণাম আল্লাহর অসুন্তুষ্টি এবং তার ফলে চিরন্তন শাস্তি ও লাঞ্ছনা ভোগ করতে হবে।

২৪. শির্ক সুস্পষ্ট যুলুম ও মিথ্যা। অন্যান্য সকল গুনাহ আল্লাহ মাফ করে দিতে পারেন। কিন্তু শির্কের গুনাহ কিছুতেই মাফ করবেন না।

ان الله لايغفر ان يشرك به ويغفر ما دون ذالك لمن يشاء

তাকদীরের উপর ঈমান

তাকদীরের উপর ঈমান বলতে গেলে আল্লাহ তায়ালার সত্তা ও গুণাবলীর উপর ঈমানেরই একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এ জন্যে কুরআনে তার উল্লেখ করা হয়েছে। অবশ্য হাদীসে এর গুরুত্বের দিকে লক্ষ্য করে একে ইসলামের স্থায়ী আকীদাহ হিসাবে গণ্য করা হয়েছে।

তাকদীরের উপর ঈমানের প্রকৃত অর্থ এই যে, বিশ্ব প্রকৃতির মধ্যে যা কিছু ভালো ও মন্দ আছে অথবা ভবিষ্যতে হবে তা সবই আল্লাহর পক্ষ থেকে হয় এবং সবই তাঁর জ্ঞানের অন্তর্ভূক্ত। ভালো মন্দের কোন সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম দিকও তাঁর জ্ঞানের বহির্ভূত নয়। তাঁর জ্ঞান প্রতিটি বন্তুকে পরিবেষ্টিত করে রেখেছে। মানুষ দুনিয়ায় জন্মগ্রহন করে ভাল কাজ করবে, না মন্দ কাজ করবে, তা তার জন্মের পূর্ব থেকেই আল্লাহর জানা আছে। বিশ্ব প্রকৃতির কোন অণুপরমাণু তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে গতিশীল ও ক্রিয়াশীল হতে পারে না, আর না কোন সূক্ষ্ম বস্তুরও কার্যক্রম বা গতিশীলতা তার জ্ঞানের বাইরে থাকতে পারে। আল্লাহ যার জন্যে যা লিখে রেখেছেন তা খণ্ডন করার এতটুকু শক্তি কারো নেই। তিনি কাউকে কোন কিছু থেকে বঞ্চিত করে থাকলে তা দেবার ক্ষমতাও কারো নেই। ভালো মন্দ ভাগ্য নির্ধারণ একমাত্র তাঁরই হাতে এবং মানুষের সৌভাগ্য ও দুর্ভগ্য তাঁর পূর্ব নির্ধারিতভ। [আল্লাহ তায়ালা দুনিয়ার বুকে মানুষকে পরীক্ষা করার জন্যে তার সীমিত পরিবণ্ডলে ভাল-মন্দ কাজ করার যে স্বাধীনতা বা এখতিয়ার দিয়েছেন, তার সব কিছু জানা থাকলেও সে এখতিয়ার ক্ষুণ্ণ হয় না। দ্বীন ইসলামের শিক্ষা এইযে, মানুষ যেন সর্বদা নেক আমল করতে থাকে এবং দ্বীনের আনুগত্যের ব্যাপারে অবহেলা না করে। তাকদীর প্রসঙ্গটি নিয়ে মাথা ঘামানো এবং তার জটিল তথ্যনুসন্ধান থেকে বিরত থাকতে হবে। শুধু এতটুকু মনে রাখতে হবে যে, নেক আমলকারী মুমেনের জন্যে আল্লাহ বেহেশত তৈরী করে রেখেছেন এবং দুষ্কৃতিকারীদের জন্য জাহান্নাম। ঈমান এনে আমি যদি নেক আমল করি, তাহলে আমি বেহেশতের হকদার হবো। আর কাফের হয়ে যদি মন্দ কাজ করি তাহলে আমাকে জাহান্নামেই নিক্ষেপ করা হবে ]

নবী পাক (সা) এর এরশাদঃ-

كتب الله مقاديرالخلائق قبل ان يخلق السموت والارض بخمسين الف سنة قال وكان عرشه على الماء (مسلم)

আসমান-যমীন সৃষ্টির পঞ্চাশ হাজার বছর আগে আল্লাহ তাঁর সৃষ্টিজগতের তাকদীর লিখে রেখেছেন। তিনি বলেন, তখন আল্লাহর আরশ ছিল পানির উপর। অর্থাৎ পানি ব্যতীত কোন সৃষ্টিই তখন ছিল না। (মুসলিম)

ফেরেশতাদের উপর ঈমান

১. ফেরেশতা আল্লাহ তায়ালার এক অনুগত সৃষ্টি। এ নূরের পয়দা। এ আমাদের দৃষ্টি বহির্ভূত। তাঁরা নারীও নন, পুরুষও নন। আল্লাহ তাঁদেরকে বিভিন্ন দায়িত্বে নিয়োজিত রেখেছেন। সে কাজই তাঁরা করে যাচ্ছেন।

২. ফেরেশতাগণ আপন মর্জি মত কিছু করেন না। আল্লাহর শাসন ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব প্রভুত্বেও তাঁদের কোন অধিকার নেই। তাঁরা আল্লাহর এখতিয়ার বিহীন প্রজা। আল্লাহর পক্ষ থেকে তাদেরকে যে আদেশ করা হয়, তা দ্বীধাহীন চিত্তে পালন করার কাজেই তাঁরা লেগে যান। তাদের এমন সাধ্য নেই যে, তাঁর হুকুমের বিপরীত কিছু করেন।

৩. তারা হরহামেশা আল্লাহর স্তবস্তুতি করে থাকেন। না তাঁরা আল্লাহর কোন আদেশ লংঘন করেন, আর না তাঁরা আল্লাহর সার্বক্ষনিক স্তবস্তুতিতে ক্লান্তিবোধ করেন। দিন রাত নিরবিচ্ছিন্নভাবে তাঁরা আল্লাহর পবিত্রতা বর্ণনা করেন।

৪. ফেরেশতাগণ সর্বদা আল্লাহর ভয়ে ভীত সন্ত্রস্ত থাকেন। আল্লহর নাফরমানী অথবা বিদ্রোহের ধারণাও তাঁরা করতে পারেন না।

৫. যে কাজে তাঁরা নিয়োজিত তা পরিপূর্ণ দায়িত্ব সহকারে সমাধা করেন। কর্তব্যে কোন অবহেলা প্রদর্শন অথবা কাজে ফাকি দেয়ার কোন মনোভাব তাদের থাক না।

৬. তাঁদের সংখ্যা কত তা আল্লাহ তায়ালাই জানেন। তবে চারজন অতি প্রসিদ্ধ এবং আল্লাহর সান্নিধ্য লাভকারী। তার হচ্ছেন:

ক. হযরত জিবারাইল (আ)। তার কাজ ছিল আল্লাহর কেতাব ও পয়গাম নবীগণের নিকট পৌছানো। সে কাজ তাঁর শেষ হয়েছে। এ জন্যে যে, নবী মুহাম্মাদ মুস্তফা (সা) ছিলেন সর্বশেষ নবী।

খ. হযরত ঈসরাফীল (আ)। ইনি কিয়ামতের পূর্ব মুহূর্তে সিংগায় ফু’ক দিবেন।

গ. হযরত মিকাইল (আ)। বৃষ্টি বর্ষণ ও আল্লাহর সৃষ্টি জীবের প্রতি রিজিক পৌছানোর দায়িত্ব তার উপর।

ঘ. হযরত আযরাইল (আ)। তিনি প্রতিটি সৃষ্টি জীবের জীবন গ্রহণের কাজে নিয়োজিত।

৭. দুজন করে ফেরেশতা প্রত্যেক মানুষের সাথে থাকেন। একজন তার ভালো কাজ এবং অন্যজন তার মন্দ কাজ লিপিবদ্ধ করেন। তাদেরকে বলা হয় ‘কেরামান কাতেবীন’ (সম্মানিত লেখর বৃন্দ)।

৮. দুজন ফেরেশতা মানুষের মৃত্যুর পর তার কবরে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তাদেরকে বলা হয় মুনকির ও নাকির।

রসূলগণের প্রতি ঈমান

১. আল্লাহ তায়ালা তাঁর বান্দাদের প্রতি তাঁর হুকুম আহকাম ও হেদায়াত পৌছাবার জন্যে যে ব্যবস্থা করেন তাকে ‘রেসালাত’ বলা হয়। যারা মানুষের কাছে এ হেদায়াত এবং পায়গাম পৌছিয়ে দেন, তাদেরকে বলা হয় নবী, রসূল অথবা পয়গাম্বার।

২. রসুল বা নবী আল্লাহর বানী মানুষের কাছে ঠিকমত পৌছিয়ে দেন। এ ব্যাপারে তারা কোন খেয়ানত করেন না। না অতিরঞ্জিত করেন। না কিছু গোপন করেন। আল্লাহর পক্ষ থেকে তাদের প্রতি অহী নাযিল হয়। তা মানুষের কাছে পৌছাবার পুরোপুরি হক আদায় করেন।

৩. ‘রেসালাত’ আল্লাহর দান। যাকে ইচ্ছা তাঁকে তা দান করেন। এ মর্যাদা মানুষের কোন ইচ্ছা-অভিলাষ এবং কোন চেষ্টা-চরিত্রের ফল নয়। এ আল্লাহর বিশেষ দান। তিনিই জানেন এ মহান খেদমত কার কাছ থেকে নেবেন এবং কিভাবে নেবেন।

৪. ‘রসূল’ অবশ্যই মানুষ হয়ে থাকেন। ফেরেশতা, জ্বীন অথবা অন্য কোন সৃষ্টি এ মর্যাদা লাভ করতে পারে না। আল্লাহর উপরেও তাদের কোন অধিকার অথবা প্রভাব থাকে না। তাঁদের বৈশিষ্ট্য এই যে, আল্লাহ তাঁদেরকে তাঁর প্রতিনিধি এবং রেসালাতের দায়িত্ব পালনের জন্যে বেছে নেন। তাঁদের কাছে তিনি তাঁর অহী পাঠান।

৫. যে জীবন বিধান বা দ্বীন তিনি পেশ করেন, তা তিনি স্বয়ং পুরোপুরি মেনে চলেন এবং তিনি তাঁর দাওয়াতের আদর্শ বা নমুনা হয়ে থাকেন। তার এ কাজ নয় যে, তিনি অন্যকে দ্বীনের আনুগত্যের দাওয়াত দিবেন এবং স্বয়ং তা থেকে দুরে থাকবেন।

৬. প্রত্যেক যুগে নবী এসেছেন। প্রত্যেক জাতির জন্যে এসেছেন। প্রত্যেক দেশে এসেছেন। মুসলমান সব নবীর উপর ঈমান আনে। কারো নবুয়তকে অস্বীকার করে না। যেসব নবী রাসূলগণের উল্লেখ কুরআন ও হাদীসে আছে মুসলমান তাদের প্রতি ঈমানের স্বীকৃতি দেয় এবং তাদের প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে। কিন্তু যাদের উল্লেখ কুরআন হাদীসে নেই, তাদের ব্যাপারে নীরবতা অবলম্বন করে। না তাদের নবী হওয়ার কথা স্বীকার করে, আর না তাদের সম্পর্কে এমন কোন উক্তি করে যার দ্বারা তাদের প্রতি অবজ্ঞা প্রদর্শন করা হয়।

৭. প্রত্যেক নবীর দাওয়াত একই ছিল। তাদের কোন এক জনকে অস্বীকার করলে সকলকে অস্বীকার করা বুঝায়। তাঁরা সকলে একই দলভূক্ত ছিলেন এবং সকলে একই বাণী নিয়ে এসেছেন।

৮. নবীর উপর ঈমান আনার অর্থ এই যে, তাঁর পুরোপুরি আনুগত্য করতে হবে। নবীর আনুগত্য করা না হলে শুধু মৌখিক নবী বলে স্বীকার করলে তা হবে একেবারে অর্থহীন।

৯. নবী মুহাম্মাদ (সা) পর্যন্ত এসে নবুয়ত শেষ হয়ে গেছে। কেয়ামত পর্যন্ত আর কোন নবী আসবেন না। সে জন্যে তিনি খাতামুন নাবিয়ীন। তাঁর নবুয়ত সমগ্র বিশ্বের জন্যে এবং যতোদিন দুনিয়া থাকবে, ততোদিনের জন্য তাঁর নবুয়ত থাকবে। আল্লাহর কাছে তারাই নাজাত পাবে যারা তাঁর উপর ঈমান এনে তাঁর আনুগত্যের ভেতরেই জীবন যাপন করবে।

১০. আমাদের জন্যে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে পরিপূর্ণ আদর্শ নবী মুহাম্মাদ (সা) এর জীবন। দ্বীনের ব্যাপারে তাঁর হুকুমই চূড়ান্ত। মুসলমানের কাজ হচ্ছে এই যে, যে কাজের নির্দেশ তাঁর পক্ষ থেকে আসবে তা মন প্রাণ দিয়ে পালন করতে হবে। যে কাজ করতে তিনি নিষেধ করেছেন, তা থেকে বিরত থাকতে হবে। মোট কথা তাঁর প্রত্যেকটি সিদ্ধান্ত মাথা পেতে নিতে হবে।

১১. রসূলের আনুগত্য প্রকৃতিপক্ষে আল্লাহরই আনুগত্য। রাসুলের নাফরমানী তেমনি আল্লাহর নাফরমানী হবে। আল্লাহর মহব্বতের তাগিদেই রসূলের আনুগত্য, এ হচ্ছে ঈমানের কষ্টিপাথর। রসূলের নাফরমানী মুনাফেকীর আলামত।

১২. রসূলের প্রতি আন্তরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা ঈমানের পরিচায়ক। তাঁর প্রতি অশ্রদ্ধা ও বেয়াদবি যাবতীয় নেক আমল বরবাদ করে দেয়। মুসলমানের অবশ্য কর্তব্য হলো রসূলকে তা মা-বাপ, সন্তানাদি ও আত্মীয়-স্বজন থেকেই শুধু অধিকতর প্রিয় মনে করবে না, বরঞ্চ তার নিজের জীবন অপেক্ষাও অধিকতর প্রিয় মনে করবে।

কুরআন বলে :  النَّبِيُّ أَوْلَى بِالْمُؤْمِنِينَ مِنْ أَنْفُسِهِمْ

নবী মুমেনদের জন্যে তাদের নিজেদের জীবন অপেক্ষাও অধিকতর প্রিয়। (আহযাব : ৬)

১৩. রেসালাতের উপরে ঈমানের সুস্পষ্ট দাবী হচ্ছে এই যে, প্রত্যেক মুসলমান নবী মুস্তফা (সা) এর উপর দরূদ পড়বে এবং তাঁর জন্যে দোয়া করবে।

আসমানী কিতাবসমূহের উপর ঈমান

১. আল্লাহ তায়ালা তার বন্দাদের হেদায়াতের জন্যে বহু ছোট বড় কিতাব নাযিল করেছেন। এসব কিতাবে তিনি দ্বীনের কথা বলেছেন এবং জীবন পরিচালনার জন্যে বিধানও দিয়েছেন। নবীগণ এসব কিতাবের মর্মকথা সুস্পস্ট করে বুঝিয়ে দিয়েছেন এবং নিজে আমল করে দেখিয়েছেন।

২. সমস্ত আসমানী কিতাবের উপর ঈমান আনতে হবে। কারণ এসব কিতাবের বুনিয়াদী শিক্ষা ছিল এক ও অভিন্ন। অর্থাৎ বলা হয়েছে, আল্লাহর বন্দেগী কর এবং কুফর ও শির্ক থেকে দূরে থাক।

৩. আসমানী কিতাবগুলোর মধ্যে চারটি প্রসিদ্ধ যা চার জন প্রখ্যাত পয়গাম্বেরের উপর নাযিল করা হয়েছিল। যথা:-

ক. তাওরাত। এ নাযিল হয়েছিল হযরত মূসা (আ) এর উপর।

খ. যবুর। এ নাযিল হয়েছিল হযরত দাউদ (আ) এর উপর।

গ. ইঞ্জিল। এ নাযিল হয়েছিল হযরত ঈসা (আ) এর উপর।

ঘ. কুরআন মজীদ। নাযিল হয়েছিল সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মাদ মুস্তাফা (সা) এর উপর।

৪. আসমানী কিতাবসমূহের মধ্যে শুধুমাত্র কুরআন মজীদ তার আসল রূপ ও আকৃতিতে তার প্রতিটি আসল শব্দ, অক্ষর ও যের-যবর-পেশসহ অবিকল বিদ্যমান আছে এবং কিয়ামত পর্যন্ত এভাবেই সংরক্ষিত থাকবে। আল্লাহ স্বয়ং তার সংরক্ষণের ওয়াদা করেছেন। কিছু যালেম-পাপাচারী যদি (নাউযুবিল্লাহ) কুরআনের সকল অনুলিপি জ্বালিয়ে ফেলে, তথাপি তা সংরক্ষিত থাকবে। তার কারণ এই যে, সকল যুগে সকল দেশে এমন কোটি কোটি মুসলমান ছিল, আছে এবং থাকবে যাদের বক্ষে কুরআন অবিকল সংরক্ষিত ছিল, আছে এবং থাকবে।

৫. অন্য তিনটি আসমানী কিতাবের বহুলাংশ পরিবর্তন করা হয়েছে। তার কোনটি এখন তার আসল রূপে বিদ্যমান নেই। প্রথমতঃ এ কিতাবগুলো সে সব নবী দুনিয়া থেকে বিদায় নেয়ার অনেক পরে সংকলিত হয়েছে।

দ্বিতীয়তঃ পথভ্রষ্ট ও দুনিয়ার স্বার্থ শিকারী লোকেরা এসব কিতাবে বর্ণিত শিক্ষার সাথে এমন কিছু সংযোজিত করেছে যা দ্বীনের বুনিয়াদী শিক্ষার পরিপন্থী এবং এমন সব বিষয় ছাঁটাই করেছে যা ছিল তাদের স্বার্থের পরিপন্থী। এ জন্যে আজকাল আল্লাহর প্রকৃতি দ্বীন জানবার এবং তার উপর আমল করার একটি মাত্র সংরক্ষিত, নির্ভরযোগ্য ও সর্বজন গৃহীত উপায় রয়েছে এবং তা হচ্ছে কুরআন মজীদ। তাকে অস্বীকার করে এবং তার মুখাপেক্ষী না হয়ে কেউই আল্লাহর সত্যিকার দ্বীনের আনুগত্য করতে পারে না। কেয়ামত পর্যন্ত জন্মগ্রহণকারী মানবজাতির উচিত এ কিতাবের উপর ঈমান আনা। তার উপর ঈমান আনা ব্যতীত নাজাত কিছুতেই সম্ভব নয়।

৬. কুরআন পাকের মধ্যে পরিবর্তন পরিবর্ধন করার অধিকার কারো নেই। নবীর কাজও শুধু এই ছিল যে, তিনি ঠিক মতো তা মেনে চলবেন। কুরআন পাক থেকে নিজের মন মতো অর্থ বের করা এবং ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ দ্বারা তার আয়াতসমূহকে নিজের স্বার্থে ব্যবহার করা নেহায়েতে বেদ্বীন লোকের কাজ।

৭. কুরআনে মানব জাতির সকল সমস্যার সমাধান আছে। ব্যক্তিগত ও সামাজিক জীবনের এমন কোন বিষয় নেই যার সম্পর্কে কুরআনে সুস্পষ্ট হেদায়েত দেয়া হয়নি। এ জন্যে জীবনের কোন এক ক্ষেত্রে কুরআন থেকে বেপরোয়া হওয়া এবং তার দেয়া মূলনীতির মুকাবিলায় অন্য মূলনীতি অনুযায়ী জীবন গড়ে তোলা পথ ভ্রষ্টতা এবং কুরআনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা।

আখেরাতের উপর ঈমান

১. মানুষের জীবন শুধু এ দুনিয়ার জীবনই নয়। বরঞ্চ মরণের পর পুরর্জীবন লাভ করার পর এক দ্বিতীয় জীবন শুরু হবে যা হবে চিরন্তন জীবন এবং যার পর মৃত্যু আর কাউকে স্পর্শ করবে না। এ জীবন আপন আপন কর্ম অনুযায়ী অত্যন্ত সুখের হবে অথবা অত্যন্ত দুঃখ-কষ্টের। এ জীবনের উপর বিশ্বাসকেই বলে আখেরাতের উপর বিশ্বাস।

২. মরণের পর প্রত্যেক মৃত ব্যক্তির নিকটে মনকির ও নকীর ফেরেশতাদ্বয় এসে জিজ্ঞাস করবেন :

বল তোমার রব কে?

বল তোমার দ্বীন কি?

নবী মুস্তফা (সা) কে দেখিয়ে বলবেন বল ইনি কে?

এই হচ্ছে আখেরাতের পরীক্ষার প্রথম ঘাঁটি।

৩. একদিন যখন শিংগায় ফুক দেয়া হবে তখন সমগ্র বিশ্বপ্রকৃতি লন্ড-ভন্ড হয়ে যাবে। পৃথিবী ভয়ংকর ভাবে এবং থর থর করে কাঁপাতে থাকবে। সূর্য চন্দ্রের মধ্যে সংঘর্ষ হবে। তারকারাজি আলোক বিহীন অবস্থায় চারদিকে বিচ্ছিন্ন ও বিক্ষিপ্ত হযে পড়বে। পাহাড় পর্বত ধৃনানো তুলার মতো উড়তে থাকবে। আকাশ ও পৃথিবীর সকল প্রকার জীব মৃত্যুবরণ করবে এবং গোটা বিশ্বজগত সম্পুর্ণ ধ্বংস হয়ে যাবে।

৪. অতপর আল্লাহর আদেশে দ্বিতীয়বার শিংগায় ফক দেয়া হবে। তখন সকল মৃত ব্যক্তি পুনর্জীবনর লাভ করবে। এক নতুন জগত অস্তিত্বলাভ করবে। এবার মানুষের জীবন হবে চিরন্তন জীবন। একেই বলে কেয়াকমতের দিন এবং এ দিনটি হবে অত্যন্ত ভয়ংকর। ভয় ও সন্ত্রাসে মানুষ ভীত সন্ত্রস্ত হতে থাকবে। দৃষ্টি থাকবে নীচের দিকে। প্রত্যেকে তার পরিণামের প্রতীক্ষা করবে।

৫. সকল মানুষ হাশরের ময়দানে আল্লাহর সম্মুখে একত্র হবে। আল্লাহ বিচারের আসনে সমাসীন হবেন সেদিন সকল। কর্তৃত্ব প্রভূত্ব একমাত্র তারই হবে। তাঁর অনুমতি ব্যতীত কারো মুখ ‍খুলবার সাহস হবে না। আল্লাহ প্রত্যেকের পৃথক পৃথকভাবে হিসাব নেবেন। তিনি তাঁর জ্ঞান, সুস্থবিচার বুদ্ধি ও ন্যায় পরায়ণতার ভিত্তিতে সঠিক ফয়সালা করবেন। প্রত্যেকের তার সঠিক ও ন্যায় সংগত প্রতিদান দেয়া হবে। কারো প্রতি কণামাত্র অবিচার করা হবে না।

৬. নেক বান্দাহদের ডান হাতে এবং পাপীদের বাম হাতে তাদের নামায়ে আমল দেয়া হবে। নেক লোকেরা নাজাত ও সাফল্য লাভ করবেন এবং পাপাচারী ব্যর্থ মনোরথ হবে। সাফল্যকারীদের মুখমন্ডল আনন্দে সমুজ্জল হবে। পক্ষান্তরে পাপাচারীদের মুখমন্ডল দুঃখ-বেদনায় মলীন ও কালো হবে। নেক ও ধার্মিক লোকেরা বেহেশতে আনন্দ ও আত্মতৃপ্তি লাভ করবেন এবং খোদাদ্রোহীদেরকে জ্বলন্ত অগ্নিকুন্ডে নিক্ষেপ করা হবে।

৭. সে দিনের সিদ্ধন্ত হবে অটল ও অপরিবর্তনীয়। এ সিদ্ধন্ত কেউ এড়াতে পারবে না। মিথ্যা কথা বলে অথবা কোন বাহানা করে কেউ আল্লাহকে প্রতারিত করতে পারবে না। আর না কেউ অলী অথবা কোন নবী কারো অন্যায় সুপারিশ করবেন। শাফায়াত বা সুপারিশের জন্যে একমাত্র তিনি মুখ খুলতে পারবেন যাকে আল্লাহ অনুমতি দেবেন। একমাত্র তারই জন্যে সুপারিশ করা হবে যার জন্যে আল্লাহ সুপারিশের অনুমতি দেবেন। দ্বিতীয়বার দুনিয়ায় আসারও সুযোগ করো হবে না যাতে করে সে নেক আমল করে আখেরাতের জীবন সার্থক করবে। করো ক্রন্দন ও বিলাপও কাউকে জাহান্নামের শাস্তি থেকে বাচাতে পারবে না।

৮. দুনিয়ার প্রতিটি মানুষের আমল সংরক্ষিত করা হচ্ছে। আমরা যা কিছুই বলছি এবং করছি তা সবই আল্লাহর ফেরেশতাগণ লিখে রাখছেন। মুখ থেকে কোন কথা বেরুবার সাথে সাথেই ফেরেশতা তা অবিকল সংরক্ষিত করে রাখছেন।

৯. মানুষের কোন আমলই সেদিন আল্লাহর দৃষ্টির অগোচরে থাকবে না। তা সরিষা পরিমাণ কোন কঠিন পাথরের মধ্যে প্রেথিত হোক, আকাশে বাতাসে হোক অথবা ভগর্ভের কোন অন্ধকার স্তরে লুক্কায়িত হোক, আল্লাহ সেদিন তা এনে হাজীর করবেন। প্রত্যেকেই সেদিন আল্লাহর সামনে ধরা পড়বে।

১০. জান্নাতবাসী মুমেনদেরকে এমন অনুপম ও অফুরন্ত সুখসম্পদ দান করা হবে যে, যা চোখ কোন দিন দেখেনি, কান এ সম্পর্কে কিছু শুনেনি এবং অন্তর তা কোনদিন অল্পনাও করেনি। যেদিকেই তারা যাবেন, চারদিকে থেকে সালাম সালাম খোশ আমদেদ, খোশ আমদেদ, ধ্বনীই শুধু শুনা যাবে। এ আনন্দ সুখ থেকে তাদেরকে কোনদিন বঞ্চিত করা হবে না। তাদের সব চেয়ে বড় পাওয়া হবে এই যে, আল্লাহ তাদেরকে তার দীদার দান করবেন এবং বলবেন, হে আমার বন্দাগণ। আজ আমি তোমাদের প্রতি আমার সন্তোষ প্রকাশ করছি। এখন আমি আর কখনো তোমাদের প্রতি নারাজ হবো না।

১১. খোদাদ্রোহীদেরকে জাহান্নামের দাউ দাউ করে জ্বলা অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ করা হবে। আগুনে তাদেরকে ঘিরে রাখবে এবং সেখান থেকে কোনদিন তারা পালাতে পারবে না। তারা মরেও যাবে না যে, যন্ত্রনা থেকে নিষ্কৃতি পাবে। আর না তারা জীবিত থাকবে জীবন উপভোগ করার জন্যে। নৈরাশ্যে প্রতি মুহূর্তে তারা মৃত্যু কামনা করবে। কিন্তু মৃত্যু তাদের কপালে আর ঘটবে না। জাহান্নামের আগুন রাগে ফেটে পড়তে থাকবে এবং কখনো নিভে যাবে না। পিপাসায়কাতর হয়ে যখন জাহান্নামবাসী ছটফট করবে, তখন তাদেরকে উত্তপ্ত গলিত ধাতু পানীয় হিসাবে দেয়া হবে। যার ফলে মুখ পুড়ে যাবে। অথবা এমন জিনিস দেয়া হবে যা গলদেশ পার হতে পারবে না। তাদের গলায় আগুনের হাসুলি এবং আলকাতরা ও আগুনের পোশাক পরানো হবে। ক্ষধায় তাদেরকে কন্টকযুক্ত খাদ্য খেতে দেয়া হবে। আল্লাহ তাদের প্রতি ভয়ানক ক্রুদ্ধ থাকবেন।

১২. কে বেহেশতবাসী এবং কে জাহান্নামবাসী তার সঠিক জ্ঞান আল্লাহ তায়ালার রয়েছে। অবশ্যি যে কাজগুলো একজন মানুষকে বেহেশতে নিয়ে যাবে তা নবী করীম (সা) সুস্পষ্ট করে বলে দিয়েছেন। অনুরূপভাবে যে কাজগুলোর পরিণাম জাহান্নাম তাও সুস্পষ্ট করে তিনি বলে দিয়েছেন। দুনিয়ার আমরা কাউকে নিশ্চিত সহকারে বেহেশতী বলতে পারি না। অবশ্যি ঐ সব ভাগ্যবান ব্যতীত যাদেরকে নবী পাক (সা) বেহেশতী হওয়ার সুসংবাদ দিয়েছেন। কিন্তু ভালো নিদর্শন দেখে আল্লাহর রহমতের আশা অবশ্যই করা যেতে পারে।

১৩. আল্লাহ ইচ্ছা করলে যে কোন গুনাহ মাফ করে দিতে পারেন। কুরআন বলে, আল্লাহ কুফর ও শির্কের গুনাহ মাফ করবেন না। তবে খাটি দেলে তওবা করলে তিনি মাফ করবেন।” (সূরায়ে ফুরকান)।

১৪. জীবনের যে কোন সময়ে ঈমান আনলে অথবা গুনাহ থেকে তওবা করলে তার ঈমান এবং তওবা আল্লাহ কবুল করেন। মৃত্যুর সময় যখন আযাবের ফেরেশতা দেখা যায় তখন না করো ঈমান কবুল হবে না তওবা।

About মাওলানা ইউসুফ ইসলাহী