আসহাবে রাসূলের জীবনকথা – দ্বিতীয় খন্ড

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

উমাইর ইবন ওয়াহাব রা:

নাম উমাইর, কুনিয়াত বা ডাকনাম আবু উমাইয়া। পিতা ওয়াহাব, মাতা উম্মু সাখীলা। কুরাইশদের অন্যতম বীর নেতা। ইসলাম পূর্ব জীবনে ইসলাম ও রাসুলুল্লাহর সা: চরম দুশমন। তীক্ষ ও গভীর দৃষ্টি সম্পন্ন প্রখর অনুধাবন ক্ষমতার অধিকারী ব্যক্তিত্ব।

তিনি বদর যুদ্ধে মক্কার কুরাইশ বাহিনীর সাথে যোগ দেন এবং যুদ্ধ শুরুর পূর্ব মুহুর্তে কুরাইশ বাহিনী তাকে মুসলিম বাহিনীর শক্তি নিরূপণের দায়িত্ব দেয়। তিনি ঘোড়া ছুটিয়ে মুসলিম বাহিনীর আশে পাশে চক্কর মেরে কুরাইশ চাউনীতে ফিরে গিয়ে জানান, ‘তারা তিনশোর মত হবে। এর কিছু কম বা বেশিও হতে পারে।’ তার অনুমান যথাযথ ছিল। কুরাইশরা তাকে জিজ্ঞেস করে,‘পেছনে তাদের কোন সাহায্য আসার সম্ভাবনা আছে কি? তিনি জবাব দেন, ‘তেমন কিছু আমি পাইনি। তবে হে কুরাইশগণ! আমি তাদের উটগুলিকে কঠিন মৃত্যুকে বহন করতে দেখেছি। তরবারিগুলি ছাড়া তাদের আত্মরক্ষার আর কিছু নেই, আশ্রয় নেওয়ারও কোন স্থান নেই। আল্লাহর কসম, আমার মনে হয়েছে, তোমরা তাদের একজনকে হত্যা করলে তোমাদেরও একজন নিহত হবে। যদি তাদেরই সমসংখ্যক তোমাদের নিহত হতে হয় তাহলে আর লাভ কি? এখন তোমরা ভেবে দেখ কি করবে।’ যুদ্ধ থেকে বিরত রাখার জন্য তিনি কুরাইশদেরে এ কথাও বলেন, ‘মদীনার লোকদের চেহারা সাপের মত, চরম পিপাসায়ও তারা কাতর হয় না। আমাদের সাথে যুদ্ধ করে প্রতিশোধ নেওয়া তাদের পক্ষে সম্ভব। তোমাদের মত উজ্জ্বল চেহারার লোকদের তাদের সাথে যুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়া উচিত নয়।’

কুরাইশ নেতৃবর্গের অনেকেই তার কথায় প্রভাবিত হয়। তারা প্রায় মক্কায় ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে বসে। কিন্তু আবু জাহল তাদের সিদ্ধান্তে বাধ সাধে। হিংসা ও যুদ্ধের আগুনে তার অন্তর জ্বলছিল। আল্লাহর ইচ্ছায় এ যুদ্ধের প্রথম ইন্ধন হয় আবু জাহল। আর অনেকের সাথে মুসলিম বাহিনীর হাতে বন্দী হয় উমাইরের পুত্র ওয়াহাব।

উমাইর ইবন ওয়াহাব স্বীয় পুত্র ওয়াহাবকে মুসলমানদের হাতে বন্দী অবস্থায় ফেলে রেখে বদর থেকে নিজে প্রাণ বাঁচিয়ে মক্কায় ফিরে আসেন। তার ভয় হচ্ছিল, মক্কায় তিনি রাসুলুল্লাহ ও তার ‍সাহাবীদের ওপর যে অত্যাচার করেছেন হয়তো তার বদলা নেওয়া হবে বন্দী পুত্রের ওপর। মক্কায় ফিরে এসে একদিন সকালবেলা ঘর থেকে বেরিয়ে কাবার দিকে গেলেন তাওয়াফ ও মূর্তিকে সিজদার উদ্দেশ্যে। সেখানে তিনি সাফওয়ান ইবন উমাইয়্যাকে কাবার চত্বরে বসা দেখতে পেলেন। তিনি সাফওয়ানের কাছে গিয়ে বললেন:

-ওহে কুরাইশদের সরদার, সুপ্রভাত।

-আবু ওয়াহাব, সুপ্রভাত। বস, একটু কথা বলি। কথা বললে সময় একটু কাটবে। উমাইর সাফওয়ানের পাশে বসলেন। তারা বদরের অবস্থা, বদরে আপতিত মুসীবতের কথা আলোচনা করলেন এবং মুহাম্মাদ ও তার সংগীদের হাতে বদরে কে কে বন্দী হয়েছে তা গুণলেন। বদরে যেসব কুরাইশ নেতাকে হত্যা করে ‘কালীব’ কূপে নিক্ষেপ করে মাটি চাপা দেওয়া হয়েছে তাদের জন্য তারা দু:খ প্রকাশ করলেন।

আবেগ-উত্তেজনায় এক পর্যায়ে সাফওয়ান ইবন উমাইয়া বললো: আল্লাহর কসম, এভাবে তাদের নিহত হওয়ার পর কোন কিছুই আর ভালো লাগছে না। উমাইর বললেন:

-তুমি সত্য বলেছ। কিছুক্ষণ চুপ থেকে আবার বললেন: কাবার প্রভুর নামে শপথ করে বলছি, যদি আমার ঘাড়ে ঋণের বোঝা এবং পরিবার পরিজনের দায় দায়িত্ব না থাকতো, আমি এক্ষুণি মদীনায় গিয়ে মুহাম্মাদের একটা দফা রফা করে তার সকল অপকর্মের পরিসমাপ্তি ঘটাতাম। তারপর গলাটি একটু নিচু করে বললেন, ‘আমার ছেলে ওয়াহাব তো সেখানে তাদের হাতে বন্দী। আমি সেখানে গেলে কেউ কোন রকম সন্দেহ করবে না।’

সাফওয়ান ইবন উমাইয়া সুযোগটি হাতছাড়া করলো না। উমাইরের দিকে তাকিয়ে সে বললো: -উমাইর, তোমার সকল ঋণ, তা যতই হোক না কেন, তার দায়িত্ব আমার ঘাড়ে তুলে নিলাম। আর আমি যতদিন বেঁচে থাকি এবং তোমার পরিবার পরিজনও যতদিন বেঁচে থাকে, তারা আমার সাথেই থাকবে। আমার অর্থ সম্পদের কোন অভাব নেই। তারা সুখেই থাকবে।

উমাইর বললেন:

-আমাদের এ আলোচনা গোপন থাকুক, কেউ যেন না জানে।

সাফওয়ান বললো:

-তাই হবে।

উমাইর কাবার চত্বর থেকে উঠে বাড়ী গেলেন। মুহাম্মাদের প্রতিহিংসার আগুনে তার অন্তর জ্বলছে। তিনি তার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ শুরু করলেন। তার সফর প্রস্তুতির ব্যাপারে কেউ কোন রকম সন্দেহ করলো না। কারণ, বদর-বন্দীদের ছাড়ানোর জন্য মুক্তিপণ নিয়ে প্রতিনিধিদল তখন মক্কা মদীনা ছুটাছুটি করছে।

উমাইর তরবারীতে ধার দিয়ে তীব্র বিষের মধ্যে চুবিয়ে রাখলেন। সোয়ারী প্রস্তুত করা হলো। তিনি সোয়ার হয়ে মদীনা অভিমূখে যাত্রা করলেন। হিংসা বিদ্বেষে তখন তার অন্তরটি জ্বলে কয়লা হয়ে যাচ্ছে।

উমাইর মদীনায় পৌঁছে সোজা মসজিদের দিকে চললেন। মসজিদের দরযার কাছে সোয়ারী থেকে নেমে পড়লেন।

এদিকে মসজিদের দরযার কাছে তখন হযরত উমার ইবনুল খাত্তাব ও কয়েকজন সাহাবী বসে বসে বদরের ঘটনাবলী আলোচনা করছিলেন। কুরাইশদেরকে কিভাবে নিহত হলো, কে কেমন করে বন্দী হলো এবং মুহাজির ও আনসারদের কে কেমন বীরত্ব ও সাহসিকতা প্রদর্শন করলো ইত্যাদি বিষয়ে তারা আলাপ জমিয়েছিলেন।

হঠাৎ হযরত উমারের চোখ পড়ে উমাইরের দিকে। তিনি সোয়ারী থেকে নেমে সোজা মসজিদের দিকে আসছেন। কাঁধে তার তরবারী ঝোলানো। উমার সন্ত্রস্ত হয়ে বলে উঠলেন:- ‘এ তো সেই কুত্তা, আল্লাহর দুশমন উমাইর ইবন ওয়াহাব। আল্লাহর কসম, তার উদ্দেশ্য ভালো নয়। মক্কায় সে আমাদের বিরুদ্ধে সবসময় কাফিরদের উত্তেজিত করতো। বদর যুদ্ধের পূর্বে সে ছিল মক্কার গুপ্তচর।’ তিনি সংগীদের দিকে ফিরে বললেন:

-তোমরা রাসুলুল্লাহর সা: দিকে যাও, তার আশেপাশে থাক। এই পাপাত্মা যেন কোন রকম ধোকা দিতে না পারে।

উমার দৌড়ে রাসুলুল্লাহর সা: কাছে গিয়ে বললেন: ইয়া রাসুলুল্লাহ, সেই আল্লাহর দুশমন উমাইর এসেছে তরবারি কাঁধে ঝুলিয়ে। আমার মনে হয়, কোন রকম অসৎ উদ্দেশ্য ছাড়া সে আসেনি।

রাসুলুল্লাহ সা: বললেন:

-তাকে আমার কাছে নিয়ে এসো।

হযরত উমার রা: উমাইরের দিকে এগিয়ে গিয়ে একহাত তার গলার কাছে জামা ধরেন এবং অন্য হাতে তার তরবারির বাঁটের সাথে ঘাড়টি ঠেসে ধরে তাকে রাসুলুল্লাহর সা: নিকট হাজির করেন। তার এ অবস্থা দেখে রাসূল সা: উমারকে ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন। উমার ছেড়ে দিলেন। রাসুল সা: এর নির্দেশে উমার তার নিকট থেকেও সরে দাড়ালেন। রাসুল সা: উমাইরকে লক্ষ্য করে বলেন: উমাইর একটু কাছে এসো।

উমাইর একটু কাছে গিয়ে বলেন: সুপ্রভাত।

জাহিলী আরবে লোকেরা এভাবে সম্ভাষণ জানাতো।

রাসূল সা: বললেন, ‘উমাইর, তোমার সম্ভাষণ অপেক্ষা উত্তম সম্ভাষণ শিক্ষা দিয়ে আল্লাহ আমাদের সম্মানিত করেছেন। সালামের মাধ্যমে আল্লাহ মর্যাদা বৃদ্ধি করেছেন। এ সালাম হচ্ছে জান্নাতের অধিবাসীদের সম্ভাষণ।’

উমাইর বললেন, ‘আমাদের সম্ভাষণও আপনার কাছে অপরিচিত নয়।’

রাসূল সা: জিজ্ঞেস করলেন, ‘কি উদ্দেশ্যে এসেছ?’

-আপনাদের হাতে আমার যে বন্দীটি আছে তাকে ছাড়াতে এসেছি। আর যাই হোক আপনিও তো আমাদের একই খান্দানের একই গোত্রের লোক। তার ব্যাপারে আমার প্রতি অনুগ্রহ করুন।

-তাহলে ঘাড়ে এ ঝুলন্ত তরবারি কেন?

-আল্লাহ এই তরবারির অকল্যাণ করুন। বদরে এই তরবারি আমাদের কোন কাজে এসেছে?

সোয়ারী থেকে নামার সময় ঘাড় থেকে নামিয়ে ফেলতে ভুলে গেছি। ঐ অবস্থায় রয়ে গেছে।

-‘উমাইর, আমার কাছে সত্য কথাটি বল, তুমি কেন এসেছ?’

-আমি শুধু বন্দী মুক্তির উদ্দেশ্যেই এসেছি। রাসূল সা: বললেন, ‘তুমি সাফওয়ানের সাথে কী শর্ত করেছো?’

এই প্রশ্নে উমাইর ভীষণ ভয় পেয়ে যান। তিনি পাল্টা প্রশ্ন করেন, ‘কী শর্ত করেছি?’

রাসূল সা: বললেন, ‘তুমি ও সাফওয়ান ইবন উমাইয়্যা কা’বার চত্বরে বসে কালীব কূপে নিক্ষিপ্ত নিহত কুরাইশ নেতৃবৃন্দের সম্পর্কে আলোচনা করেছো। তুমি বলেছ, যদি আমার ঘাড়ে ঋণের বোঝা এবং পরিবার পরিজনের দায়িত্ব না থাকতো, আমি মদীনায় গিয়ে মুহাম্মাদকে হত্যা করতাম। তুমি আমাকে হত্যা করবে-এই শর্তে সাফওয়ান তোমার সকল দায়িত্ব গ্রহণ করেছে। আল্লাহ তোমার ও তোমার উদ্দেশ্যের মাঝে প্রতিবন্ধক হয়ে আছেন।’

উমাইর কিছুক্ষণের জন্য হতভম্ব হয়ে গেলেন। তারপর একটু সচেতন হয়ে বলে উঠলেন: আশহাদু আন্নাকা রাসুলুল্লাহ- আমি ঘোষণা করছি, আপনি নিশ্চিত আল্লাহর রাসূল। ইয়া রাসূলুল্লাহ, আপনি আসমানের যেসব খবর আমাদের কাছে নিয়ে আসতেন, আপনার ওপর যে ওহী নাযিল হতো, আমরা তা অবিশ্বাস করতাম। কিন্তু সাফওয়ানের সাথে আমার যে আলোচনা, তাতো আমি আর সে ছাড়া আর কেউ জানে না। আল্লাহর কসম, আমার বিশ্বাস জন্মেছে এ খবর একমাত্র আল্লাহই আপনাকে দিয়েছেন। আল হামদুলিল্লাহ সকল প্রশংসা সেই আল্লাহর যিনি আমাকে হিদায়াত দানের জন্য আপনার কাছে নিয়ে এসেছেন। এ কথা বলে তিনি আবারো উচ্চারণ করেন, ‘আশহাদু আন লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আন মুহাম্মাদান রাসুলুল্লাহ।’

হযরত রাসূলে কারীম সা: সাহাবীদের নির্দেশ দেন, ‘তোমরা তোমাদের ভাই উমাইরকে দ্বীন শিক্ষা দাও, তাকে কুরআনের তালীম ‍দাও এবং তার বন্দীকে মুক্তি দাও।

ইসলাম গ্রহণের পূর্বে হযরত উমাইর ছিলেন কুরাইশদের অন্যতম ‘শয়তান’ বা নেতা। মুসলমান হওয়ার পর তিনি হলেন ইসলামের এক বিশিষ্ট হাওয়ারী বা সাথী। তার ইসলাম গ্রহণের পর হযরত উমার ইবনুল খাত্তাব রা: বলেন, ‘যে সত্তার হাতে আমার জীবন তার শপথ, উমাইর যখন মদীনায় আবির্ভূত হয় তখন একটি শুকরও আমার নিকট তার চেয়ে বেশি প্রিয় ছিল। আর আজ সে আমার কোন একটি সন্তানের চেয়েও আমার নিকট অধিকতর প্রিয়।” (রিজালুন হাওলার রাসূল-৩২৫)

ইসলাম গ্রহণের পর উমাইর ইসলামী শিক্ষা দ্বারা নিজেকে পবিত্র করা এবং কুরআনের নূরের দ্বারা স্বীয় হৃদয়কে পূর্ণ করে তোলার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। তিনি মক্কা এবং মক্কায় যাদের রেখে এসেছেন তাদের কথা প্রায় ভুলে গেলেন।

এদিকে সাফওয়ান ইবন উমাইয়্যা প্রতিদিন মনে মনে রঙ্গীন স্বপ্ন দেখে। সে মক্কায় কুরাইশদের বিভিন্ন আড্ডায় গিয়ে বলতে থাকে, শিগগির, একটা মহাসুখবর তোমাদের কাছে এসে পৌঁছবে। তোমরা তাতে বদরের সান্ত্বনা পাবে।

সাফওয়ানের প্রতীক্ষা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হয়ে চললো। প্রথমে সে কিছুটা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হলো, পরে অস্থির হয়ে পড়লো। মদীনার দিক থেকে আগত প্রতিটি কাফেলা বা আরোহীকে ধরে ধরে সে উমাইর সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করতে শুরু করলো। কিন্তু কেউ সন্তোষজনক জবাব দিতে পারলো না। এমন সময় মদীনা থেকে আগত এক আরোহীকে সে পেল। ঔৎসুক্যের আতিশয্যে সাফওয়ান তাকে প্রথমেই জিজ্ঞেস করলো, ‘মদীনায় কি নতুন কোন ঘটনা ঘটেনি? লোকটি জবাব দিল, হাঁ বিরাট এক ঘটনা ঘটে গেছে।’ সাফওয়ানের মুখমন্ডল দীপ্তিমান হয়ে ওঠে এবং আনন্দ উল্লাসে তার হৃদয় মন ফেটে পড়ার উপক্রম হয়। সাথে সাথে সে আবার প্রশ্ন করে, ‘কী ঘটেছে আমাকে একটু খুলে বল তো।’ লোকটি বলল, ‘উমাইর ইসলাম গ্রহণ করেছে। সেখানে সে নতুন দ্বীনের দীক্ষা নিচ্ছে এবং কুরআন শিখছে।’ সাফওয়ানের দুনিয়াটা যেন ওলট পালট হয়ে গেল। তার মাথায় যেন বাজ পড়লো। তার ধারণা ছিল, দুনিয়ার সব মানুষ ইসলাম গ্রহণ করলেও উমাইর কক্ষণো ইসলাম গ্রহণ করবে না।

ইসলাম গ্রহণের সাথে সাথে এই দ্বীনের প্রতি যে দায়িত্ব তা হযরত উমাইর যথাযথভাবে উপলদ্ধি করেন। তিনি অনুধাবন করেন, এ দ্বীনের বিরোধিতায় তিনি যে শক্তি ব্যয় করেছে ঠিক সেই পরিমাণ শক্তি এর খিদমতে ব্যয় করতে হবে। এ দ্বীনের বিরুদ্ধে যতখানি অপপ্রচার তিনি চালিয়েছেন ঠিক ততখানি এর দিকে আহবান জানাতে হবে। আল্লাহ ও তার রাসূলকে তিনি যে কতখানি মুহাব্বত করেন তা সততা, জিহাদ ও ইতায়াতের মাধ্যমে প্রমাণ করতে হবে।

কিছুদিন মদীনায় ইসলামের তালীম ও তারবিয়াত নেওয়ার পর একদিন হযরত উমাইর রাসুলুল্লাহর সা: খিদমতে হাজির হয়ে আরজ করেন, ‘ইয়া রাসুলুল্লাহ, আমি আমার জীবনের বিরাট এক অংশ আল্লাহর নূর নিভিয়ে দেওয়ার জন্য এবং ইসলামের অনুসারীদের ওপর অত্যাচার উৎপীড়নে কাটিয়ে দিয়েছি। আমার ইচ্ছা -আপনি যদি অনুমতি দেন, আমি মক্কায় যাই এবং কুরাইশদের আল্লাহ ও তার রাসুলের দিকে আহবান জানাই। তারা যদি আমার দাওয়াত কবুল করে তাহলে তা হবে অতি উত্তম কাজ। আর যদি প্রত্যাখ্যান করে, আমি তাদের এমন কষ্ট দেব যেমন ইতিপূর্বে রাসুলুল্লাহর সংগী সাথীদের দিয়েছি।’

রাসুল সা: তাকে অনুমতি দিলেন। একদিন উমাইর তরবারি কাঁধে ঝুলিয়ে যুদ্ধের সাজে সজ্জিত হয়ে মক্কায় ফিরলেন। মক্কায় সর্ব প্রথম সাফওয়ান ইবন উমাইয়্যার সাথে দেখা করে বললেন, -‘ওহে সাফওয়ান তুমি মক্কার একজন নেতা, কুরাইশদের অন্যতম শ্রেষ্ঠ জ্ঞানী। এই যে তোমরা পাথরের পূজা কর, মূর্তির নামে জীবজন্তু জবেহ কর-এটা কি কোন দ্বীন বা ধর্ম তুমি মনে কর? তবে আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, আল্লাহ ছাড়া অন্য কোন ইলাহ নেই এবং মুহাম্মাদ আল্লাহর রাসূল।’ সাফওয়ান উমাইরের ওপর ঝাপিয়ে পড়তে উদ্যত হল। কিন্তু উমাইরের তরবারি তাকে সঠিকভাবে থামিয়ে দিল। ক্ষোভে দু:খে সাফওয়ান অশ্রাব্য কিছু গালি উমাইরের কানে ছুড়ে দিয়ে পথ ছেড়ে চলে গেল।

এভাবে উমাইর মুসলমান হয়ে মক্কায় ফিরলেন। কদিন আগে যিনি মুশরিক অবস্থায় মক্কা ছেড়ে যান, তিনি যখন আবার মক্কায় প্রবেশ করেন তখন তার রূপটি ছিল ঠিক তেমন যেমন রূপ ধারণ করেছিলেন হযরত উমার রা: ইসলাম গ্রহণের দিন। ইসলাম গ্রহণের পর উমার চিৎকার করে বলেছিলেন, ‘আল্লাহর নামে শপথ করে বলছি, কুফর অবস্থায় যে যে স্থানে আমি বসেছি, ঈমান অবস্থায় সে সে স্থানে আমি বসবো।’

উমাইর যেন এ ক্ষেত্রে উমার রা: কে নেতা হিসাবে মানলেন। তিনি রাত দিন মক্কার অলি গলিতে দাওয়াত দিয়ে চললেন। মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যে উমাইরের হাতে বিপুল সংখ্যক লোক ঈমান আনলেন। উহুদ যুদ্ধের পূর্বে মুমিনদের এই দলটি সংগে করে তিনি আবার মদীনায় চলে যান। উহুদ, খন্দক ও মক্কা বিজয় সহ সকল অভিযানে তিনি রাসুলুল্লাহ রা: সাথে অংশগ্রহণ করেন।

মক্কা বিজয়ের আনন্দের দিন উমাইর তার বন্ধু ও সাথী সাফওয়ানকে ভুলে যাননি। রাসূলুল্লাহ সা: মক্কা পৌঁছার পর সাফওয়ান প্রাণভয়ে মক্কা থেকে পালিয়ে ইয়ামনের পথে জিদ্দা পৌঁছে। উমাইর এ খবর পেয়ে ভীষণ ব্যথিত হন। সাফওয়ানকে শয়তানের হাত থেকে উদ্ধারের জন্য তিনি দৃঢ় সংকল্প হন। দৌড়ে রাসুলুল্লাহর সা: কাছে গিয়ে বলেন, ‘হে আল্লাহর নবী! সাফওয়ান ইবন উমাইয়্যা তার সম্প্রদায়ের একজন নেতা। সে আপনার ভয়ে মক্কা থেকে পালিয়েছে। নিজেকে সে সাগরে নিক্ষেপ করবে। আপনি তাকে আমার বা নিরাপত্তা দিন।’ রাসুল সা: বললেন, ‘সে নিরাপদ।’ উমাইর বললেন, ‘ইয়া রাসুলুল্লাহ, আমাকে এমন একটি নিদর্শন দিন যা দ্বারা বুঝা যায় আপনি তাকে আমান দিয়েছেন।’ রাসূল সা: যে চাদরটি মাথায় দিয়ে মক্কায় প্রবেশ করেন সেটি তাকে দান করেন।

উমাইর ইবন যুবাইর বর্ণনা করেন:

‘চাদরটি নিয়ে উমাইর বের হলেন। তিনি যখন সাফওয়ানের কাছে পৌঁছলেন তখন সে সাগর পাড়ি দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। তিনি বললেন: ‘সাফওয়ান, আমার মা ‍বাবা তোমার প্রতি কুরবান হোক! এভাবে তুমি নিজেকে ধ্বংস করোনা। এই তোমার জন্য রাসুলুল্লাহর আমান নিয়ে এসেছি।

সাফওয়ান বললো:

-‘তোমার ধ্বংস হোক। আমার কাছ থেকে সরে যাও। আমার সাথে কথা বলো না।’ উমাইর বললেন, ‘সাফওয়ান! আমার মা বাবা তোমার প্রতি কুরবান হোক। নিশ্চয় রাসুলুল্লাহ সা: সর্বোত্তম মানুষ। সর্বাধিক নেককার ও ধৈর্য্যশীল মানুষও তিনিই। তার ইজ্জত তোমারই মর্যাদা।’ সাফওয়ান বললো:- ‘আমি আমার জীবনের আশংকা করছি।’ উমাইর বললেন: ‘তিনি তার থেকেও সহনশীলও সম্মানিত।

উমাইর রা: সাফওয়ানকে সংগে করে রাসুলুল্লাহর সা: খিদমতে হাজির হলেন। সাফওয়ান বললো: এ ব্যক্তির ধারণা আপনি আমাকে নিরাপত্তা দান করেছেন।

রাসুলুল্লাহ সা: বললেন: সে সত্যই বলেছে।

সাফওয়ান বললো: আমাকে দু মাসের সময় দিন।

রাসূল সা: বললেন: তোমাকে চার মাসের সময় দেওয়া হলো।

অল্প দিনের মধ্যেই হযরত সাফওয়ান রা: ইসলাম গ্রহণ করেন। (রিজালুন হাওলার রাসূল ৩২৫, হায়াতুস সাহাবা-১)

হযরত আবু বকরের খিলাফতকালে হযরত উমাইর রা: সকল গুরুত্বপূর্ণ কাজে খলীফাকে সহযোগিতা করেন। হযরত উমারের খিলাফতকালে আমর ইবনুল আস রা: মিসর অভিযান পরিচালনা করেন। ইসকান্দারিয়া বিজয়ে যখন তার বিলম্ব ঘটছিল তখন হযরত উমার রা: তার সাহায্যার্থে মদীনা থেকে চারজন জাদরেল সেনা কমান্ডারের নেতৃত্বে দশ হাজার সৈন্য পাঠান। এই চার কমান্ডারের একজন ছিলেন হযরত উমাইর ইবন ওয়াহাব।

হযরত উমার এ চার কমান্ডার সম্পর্কে আমর ইবনুল আসকে হিদায়াত দেন যে, আক্রমণের সময় তাদেরকে অগ্রভাগে ‍রাখবে। তাদের প্রচেষ্ঠায় ইসকান্দারিয়া অভিযান সফল হয়। ইসকান্দারিয়া বিজয়ের পর আমরের নির্দেশে তিনি মিসরের বহু এলাকা পদানত করেন। হযরত উমারের রা: খিলাফতের শেষ দিকে তিনি ইনতিকাল করেন।

 

About ড. মুহাম্মদ আবদুল মাবুদ