আসহাবে রাসূলের জীবনকথা – দ্বিতীয় খন্ড

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

আবু রাফে রা:

হযরত আবু রাফে’র রা: প্রকৃত নামের ব্যাপারে প্রচুর মতভেদ দেখা যায়। যেমন: ইবরাহীম, আসলাম, সিনান, ইয়াসার, সালেহ, আবদুর রহমান, কারমান, ইয়াযীদ, সাবেত, হুরমুয ইত্যাদি। এর মধ্যে আসলাম নামটিই সর্বাধিক প্রসিদ্ধ। (আল ইসাবা-৪/৬৭) আবু রাফে তার কুনিয়াত বা ডাকনাম। বংশ কৌলিন্যের জন্য এতটুকুই যথেষ্ট যে, হযরত রাসূলে কারীমের সা: খিদমত করার সৌভাগ্য তার হয়েছিল। রাসুল সা: তাকে স্বীয় পরিবারের মধ্যে শামিল করে নেন। এর বেশি খান্দানী শরাফত কোন মানুষের জন্য আর হতে পারে ‍না। আসলে তিনি ছিলেন একজন হাবশী দাস।

হযরত আবু রাফে প্রথম হযরত আব্বাসের রা: দাস ছিলেন। তিনি রাসুল সা:কে হিবা বা দান করেন। পরে হযরত রাসূলে কারীম সা: হযরত আব্বাসের রা: ইসলাম গ্রহণের খুশীতে আবু রাফেকে আযাদ করে দেন।

তার ইসলাম সম্পর্কে বলা হয়েছে, হযরত রাসূলে পাকের সা: পবিত্র মুখমন্ডলের দীপ্তি দেখে যারা ইসলামের প্রতি আকৃষ্ট হন, আবে তাদের অন্যতম। এ সম্পর্কে আবু রাফে নিজেই বলছেন: একবার কুরাইশরা আমাকে ‍তাদের কোন একটি কাজে রাসুল সা: এর নিকট পাঠায়। রাসুল সা: কে দেখা মাত্র আমার অন্তর ইসলামের প্রতি ঝুঁকে পড়ে। আমি আরজ করলাম, ইয়া রাসুল সা: আমি আর ফিরে যাব না। তিনি বললেন: ‘আমি কাসেদ বা দূতকে ঠেকিয়ে রাখিনা এবং প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করি না। এখন তুমি ফিরে যাও। এভাবে যদি কিছু দিন তোমার অন্তরে ইসলামের প্রতি আবেগ বিদ্যমান থাকে তাহলে চলে এসো। তখনকার মত তো তিনি ফিরে গেলে এবং কিছুদিন পর আবার ফিরে এসে ইসলাম গ্রহণ করেন।

হযরত আবু রাফে অত্যাচারী কুরাইশ শক্তির ভয়ে বদর যুদ্ধ পর্যন্ত ইসলাম গ্রহণের কথা গোপন রাখেন। বদর যুদ্ধ সবে মাত্র শেষ হয়েছে এমন সময় একদিন তিনি কাবার পাশে যমযম কুয়োর ঘরে বসে তীর তৈরী করছেন। হযরত আব্বাসের স্ত্রী তার পাশেই বসা। এ সময় নরাধম আবু লাহাব সেখানে এসে বসে। আবু লাহাব তার কাছে বদর যুদ্ধের অবস্থা জিজ্ঞেস করতে লাগলো। উল্লেখ্য যে, আবু লাহাব বদর যুদ্ধে নিজে যোগদান না করে প্রতিনিধি হিসাবে আস ইবন হিশামকে পাঠায়। আবু লাহাবের জিজ্ঞাসার জবাবে আবু সুফইয়ান বললো: তুমি কি জিজ্ঞেস করছো, মুসলমানরা আমাদের সকল শক্তি চুরমার করে দিয়েছে, অনেককে হত্যা ও বহু লোককে বন্দী করেছে। এ প্রসঙ্গে এক অভিনব কাহিনী বলা হয় যে, ভূমি থেকে আকাশ পর্যন্ত ‍সাদা কালো পোশাকের অশ্বারোহীতে পরিপূর্ণ ছিল। তার এ কথা শুনে আবু রাফে অকস্মাৎ বলে ওঠেন, তারা ফিরিশতা। আর যায় কোথায়! সঙ্গে সঙ্গে আবু সুফইয়ান আবু রাফের গালে প্রচণ্ড থাপ্পড় বসিয়ে দেয়। আবু রাফে আঘাতটা সামলে নিয়ে রুখে দাড়ান; কিন্তু তিনি ছিলেন দূর্বল। আবু লাহাব তাকে মাটিতে ফেলে দেয় এবং বুকের ‍উপর উঠে বসে আচ্ছামত মার দেয়। হযরত আব্বাসের স্ত্রী এ অত্যাচার দেখে সহ্য করতে পারলেন না। তিনি একটি খুটি তুলে নিয়ে নরপশু আবু লাহাবের মাথায় কষে মারলেন এক বাড়ি। পাপাচারী আবু লাহাবের মাথা কেটে গেল। হযরত আব্বাসের স্ত্রী তখন বলতে লাগলেন, আবু রাফে’র মনিবের অনুপস্থিতির সুযোগে তাকে দুর্বল মনে করে মারছো? এ ঘটনার এক সপ্তাহ পর ‘আদাসী’ (বসন্ত) নামক রোগে আবু লাহাবের মৃত্যু হয়। (হায়াতুস সাহাবা-৩/৫৩০-৩১)।

তাবরানী ইবন আব্বাস থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, রাসুল সা: হিজরাতের পঞ্চম বছরে আমরা রাসুল সা: এর সাথে মিলিত হই। সেটা ছিল আহযাব যুদ্ধের সময়। আমি ছিলাম আমার ভাই ফদল ইবন আব্বাসের সাথে। আমাদের সাথে আমাদের গোলাম আবু রাফেও ছিল। মদীনায় পৌঁছে আমরা রাসুল সা:কে খন্দকের মধ্যে পেলাম। এ বর্ণনা দ্বারা বুঝা যায় যে, আবু রাফে হিজরী ৫ম সনে মক্কা থেকে মদীনায় হিজরাত করেন। (হায়াতুস সাহাবা-১/৩৭৩)।

তবে ইবন হিশাম হযরত আয়িশার রা: একটি বর্ণনা নকল করেছেন। হযরত আয়িশা রা: বলেছেন, রাসুল সা: মদীনায় হিজরাতের কিছুদিন পর একটু স্থির হয়ে আমাদেরকে নেওয়ার জন্য যায়িদ ইবন হারিসা ও আবু রাফেকে মদীনা থেকে মক্কায় পাঠান। (সীরাতু ইবন হিশাম)

এ বর্ণনা দ্বারা বুঝা যায় আবু রাফে ৫ম হিজরীর পূর্বেই মদীনায় পৌঁছেন। মদীনায় তিনি হযরত রাসূলে কারীমের সা: সাথে বসবাস করতে থাকেন।

একমাত্র বদর যুদ্ধ সম্পর্কে আবু রাফে বর্ণনা করেন: আমরা আলীর নেতৃত্বে খাইবারে গেলাম। রাসুল সা: স্বীয় পতাকা আলীর হাতে দিয়ে খাইবারে পাঠান। আমরা দূর্গের কাছাকাছি গেলে দূর্গবাসীরা বের হয়ে এসে আমাদের সাথে যুদ্ধ শুরু করলো। আলী দূর্গের একটি দরযা ছিড়ে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেন। যুদ্ধের শেষ পর্যন্ত সেটা তার হাতে ছিল। তারপর ফেলে দেন। আমরা আটজন প্রাণপণ চেষ্টা করেও সেটা উল্টাতে সক্ষম হইনি। (হায়াতুস সাহাবা-১/৫৪৬)।

হিজরী সপ্তম সনে রাসুল সা: হুদাইবিয়ার সন্ধির চুক্তি অনুযায়ী মক্কায় গিয়ে ‘উমরাতুল কাদা’ আদায় করেন। আবু রাফে এই সফরেও রাসুল সা: সঙ্গী ছিলেন। এই সফরে মক্কায় অবস্থানকালে রাসুল সা: এর সাথে হযরত মায়মুনার শাদী মুবারক অনুষ্ঠিত হয়। মক্কায় অবস্থানের মেয়াদ শেষ হলে হযরত রাসূলে কারীম সা: আবু রাফেকে মক্কায় রেখে ‘সারফে’ চলে যান। পরে আবু রাফে হযরত মায়মুনাকে রা: নিয়ে ‘সারফে’ পৌঁছেন এবং সেখানেই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়। তারপর সকলে মদীনায় প্রত্যাবর্তন করেন। (সীরাতু ইবন হিশাম-২/৩৭২)।

হযরত রাসূলে রাসূলে কারীম সা: হযরত আলী রা: নেতৃত্বে যে বাহিনীটি ইয়ামনে পাঠান তাতে আবু রাফেও ছিলেন। হযরত আলী রা: নিজের অনুপস্থিতিতে আবু রাফে কে বাহিনীর নেতৃত্ব দান করেন।

ইসলাম দাস তথা দূর্বল শ্রেণীর লোকদের উন্নতির যে সুযোগ দান করেছে, আবু রাফে তার উজ্জল দৃষ্টান্ত। তিনি দাস ছিলেন, তবে মর্যাদা ও যোগ্যতায় ছিলেন আযাদ লোকদের সমকক্ষ। হাদীসের গ্রন্থসমূহে তার বর্ণিত ৬৮টি হাদীস পাওয়া যায়। তার মধ্যে একটি ইমাম বুখারী ও তিনটি ইমাম মুসলিম এককভাবে বর্ণনা করেছেন।

দাসত্ব থেকে মুক্তির পরও তিনি হযরত রাসূলে কারীমের সা: খিদমতের গৌরব হাতছাড়া করেননি। এ কারণে রাসুল সা: প্রাত্যাহিক ক্রিয়াকলাপ ও অভ্যাস সম্পর্কে তার জানা ছিল অনেক। বিশিষ্ট সাহাবীরা এ বিষয়ে তার কাছে জানার জন্য ভিড় করতেন। হযরত ইবন আব্বাস রা: একজন সেক্রেটারী সংগে করে তার কাছে আসতেন এবং জিজ্ঞেস করতেন, রাসুল সা: অমুক অমুক দিন কি কি কাজ করতেন? আবু রাফে বলতেন আর সেক্রেটারী তা লিখে নিতেন। (আল ইসাবা-৪/৯২)।

রাসুলুল্লাহ সা: তাকে আযাদ করে দেওয়া সত্ত্বেও তিনি নিজেই রাসুল সা: এর খিদমতে আবদ্ধ থাকেন। রাসূল সা: যখন তাকে মুক্তি দেন, তখন আবু রাফের দু চোখ বেয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়তে থাকে। লোকেরা তাকে বলে, দাসত্ব থেকে মুক্তি পাচ্ছ, এতে কান্নার কি আছে! তিনি বললেন, আজ একটি সোয়াব আমার হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছে। এরপর থেকে যদিও তিনি আইনগত মুক্ত বা স্বাধীন হয়ে যান, তবে রাসুল সা: এর খিদমতের মর্যাদা শক্তভাবে আঁকড়ে ধরে থাকেন। সফরের সময় রাসুল সা: তার তাঁবু তিনিই তৈরী করতেন। রাসুল সা: এর সাথে তার এই গোলামীর সম্পর্কটা এত মধুর ও প্রিয় ছিল যে, আমরণ তিনি রাসুল সা: গোলাম বা দাস বলে নিজের পরিচয় দিতেন।

হযরত রাসূলে কারীম সা: এক সাহাবী নাওফিল ইবন হারিসকে এক মহিলার সাথে বিয়ে দিলেন। বিয়ের পর খাওয়ার মত কোন কিছু তার কাছে চাইলেন; কিন্তু পেলেন না। তখন রাসূল সা: স্বীয় বর্মটি আবু রাফে ও আবু আইয়ুবের হাতে দিয়ে বিক্রির জন্য পাঠালেন। তার বর্মটি এক ইয়াহুদীর নিকট বন্ধক রেখে তিরিশ সা’ যব নিয়ে রাসুল সা: এর নিকট পৌঁছলেন। রাসূল সা: যবগুলি নাওফিলের হাতে তুলে দিলেন। নাওফিল বলেন, আমরা সেই যবগুলি অর্ধ বছর খেয়েছিলাম। তারপর ওজন করে দেখলাম তা মোটেই কমেনি, পূর্বের মতই আছে। এ কথা রাসুল সা: কে বললে তিনি মন্তব্য করলেন, যদি ওজন না করতে তাহলে সারা জীবন খেতে পারতে। (হায়াতুস সাহাবা-৩/৬৩০)।

হযরত আবু রাফে জীবনের এক পর্যায়ে দারুণ অভাব ও অর্থ কষ্টে পড়েন। এমনকি মানুষের কাছে হাত পেতে সাদকা ও সাহায্য গ্রহণ করেছেন। তবে কক্ষণো প্রয়োজনের অতিরিক্ত গ্রহণ করেননি। তার জীবনের এ পর্যায় সম্পর্কে রাসুল সা: ভবিষ্যদ্বাণী ছিল। আবু রাফে বলছেন একদিন রাসূল সা: তাকে জিজ্ঞেস করলেন: ‘ওহে আবু রাফে’, যখন তুমি দরিদ্র হয়ে যাবে তখন কেমন হবে? আবু রাফে বললেন, আমি কি সে অবস্থায় সাদকা গ্রহণ করবো? রাসূল সা: বললেন: হা। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, আমার ‍দারিদ্র কখন আসবে? বললেন, আমার মৃত্যুর পরে। বর্ণনাকারী আবু সুলাইম বলেন, আমি তাকে দরিদ্র অবস্থায় দেখেছি। পথের ধারে বসে তিনি বলতেন, অন্ধ বৃদ্ধকে কে সাদকা করতে চায়, কে সেই ব্যক্তিকে দান করতে চায় যাকে রাসুলুল্লাহ সা: বলে গেছেন যে, সে ভবিষ্যতে দরিদ্র হবে? তিনি আরও বলে গেছেন, ধনী ব্যক্তির জন্য সাদকা গ্রহণ বৈধ নয় এবং বৈধ নয় সুস্থ্য ব্যক্তির জন্যও। আবু সুলাইম বলেন, আমি এক ব্যক্তিকে দেখলাম, সে আবু রাফেকে চারটি দিরহাম দান করলো। কিন্তু তিনি একটি দিরহাম ফেরত দিলেন। লোকটি বলল, আবদুল্লাহ, আমার দান আপনি ফেরত দেবেন না। আবু রাফে বললেন রাসুল সা: আমাকে অতিরিক্ত সম্পদ জমা করতে নিষেধ করেছেন। আবু সুলাইম আরও বলেন, আমি শেস পর্যন্ত আবু রাফেকে ধনী ব্যক্তি হিসেবে দেখেছি এবং তাকে বলতে শুনেছি, আফসুস, আবু রাফে যদি দরিদ্র অবস্থায় মারা যেত! (হায়াতুস সাহাবা-২২৫৩-৫৪) ওয়াকেদীর মতে হযরত আলীর খিলাফতকালে মদীনায় ইনতিকাল করেন। (আল ইসাবা-৪/৬৭)।

উবাইদাহ ইবনুল হারিস সা:

নাম উবাইদাহ, কুনিয়াত আবুল হারিস বা আবু মুআবিয়া। পিতা আল হারিস এবং মাতা সুখাইলা। দাদা আব্দুল মুত্তালিব ইবন আবদে মান্নাফ। কুরাইশ গোত্রের সন্তান।

উবাইদাহ ইবনুল হারিস, আবু সালামা ইবনে আবদিল আসাদ, আল আরকাম ইবন আবিল ‍আরকাম এবং উসমান ইবন মাজউন হযরত আবু বকরের দাওয়াতে সাড়া দিয়ে এক সাথে ঈমান আনেন। হযরত রাসূলে কারীম সা: তখন আল আরকাম ইবন আবিল আরকামের গৃহে আশ্রয় নেননি। হযরত উবাইদাহ যখন ইসলাম গ্রহণ করেন তখন তিনি বনী আবদে মান্নাফের একজন নেতা। মক্কায় হযরত বিলালকে তিনি দ্বীনী ভাই হিসাবে গ্রহণ করেন।

মদীনায় হিজরাতের নির্দেশ হলো। হযরত উবাইদাহ তার দুই ভাই তুফাইল, হুসাইন এবং মিসতাহ ইবন উসাসাহকে সাথে করে মদীনায় রওয়ানা হলেন। পথে মিসতাহ হাঁটা চলা করতে একেবারে অক্ষম হয়ে পড়লেন। অগ্রগামী কাফিলার লোকেরা খবর পেয়ে ফিরে এসে তাকে উঠিয়ে মদীনায় নিয়ে যান। মদীনায় হযরত আবদুর রহমান আজলানী রা: তাদের স্বাগত জানান এবং অত্যন্ত যত্নের সাথে তাদের আতিথেয়তা করেন। হযরত রাসূলে কারীমের সা: মদীনায় আগমনের পর পর হযরত উমাইর ইবন হুমাম আল আনসারীর সাথে তার ভাতৃ সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়। পৃথকভাবে বসবাসের জন্য রাসূল সা: তাকে এক খন্ড জমিও দান করেন। তার পুরো খান্দান সেখানে বসতি স্থাপন করে।

মক্কার মুশরিকদের গতিবিধি লক্ষ্য করার জন্য হিজরাতের আট মাস পরে ৬০ জন মুহাজিরের একটি দলের নেতৃত্ব দিয়ে রাসূল সা: তাকে রাবেগের দিকে পাঠান। ইসলামের ইতিহাসে এটা ছিল দ্বিতীয় অভিযান। রাসুল সা: এ বাহিনীর ঝান্ডা উবাইদার হাতে সমর্পণ করেন। তারা রাবেগের নিকটে পৌঁছলে আবু সুফইয়ানের নেতৃত্বে দুশো মুশরিকের একটি বাহিনীর সাথে তাদের সামান্য সংঘর্ষ হয়। ব্যাপারটি যুদ্ধ ও রক্তপাত পর্যন্ত না গড়িয়ে কিছু তীর ও বর্শা ছোঁড়াছুড়ির মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে।

এ ঘটনার পর তিনি হক ও বাতিলের প্রথম সংঘর্ষ বদর যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। কাতারবন্দী হওয়ার পর মুশরিকদের পক্ষ থেকে উতবা. শাইবা ও ওয়ালীদ বেরিয়ে এসে চিৎকার করে বলতে থাকে- আমাদের সাথে লড়বার কেউ আছে কি? ইসলামী ফৌজ থেকে কয়েকজন নওজোয়ান আনসারী এগিয়ে গেলেন। তখন তারা চেঁচিয়ে বললো: ‘মুহাম্মাদ, আমরা অসম লোকদের সাথে লড়তে পারিনে। আমাদের যোগ্য প্রতিদ্বন্ধীদের পাঠাও।’ রাসূল সা: আলী, হামযা, ও উবাইদাহকে এগিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিনে। তারা এ আদেশের অপেক্ষায় ছিলেন। এ তিন বীর আদেশ পাওয়া মাত্র আপন আপন নিযা দোলাতে দোলাতে তিন প্রতিপক্ষের সামনে গিয়ে দাড়ালেন। হযরত উবাইদাহ ও ওয়ালীদের মধ্যে দীর্ঘ সময় লড়াই চললো। তারা দুজনই মারাত্মক যখম হলেন। তবে আলী ও হামযা উভয়েই প্রতিপক্ষকে ধরাশায়ী করে ফেলেছিলেন। তারা এক সাথে ওয়ালীদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে তাকে হত্যা করেন এবং হযরত উবাইদাহকে রণাঙ্গণ থেকে আহত অবস্থায় তুলে নিয়ে আসেন।

হযরত উবাইদাহর একটি পা হাঁটুর নীচ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তিনি আপাদমস্তক রক্তে রঞ্জিত হয়ে পড়েন। রাসুল সা: তাকে সান্তনা দেওয়ার জন্য তার হাটুর ওপর স্বীয় মাথাটি রেখে দেন। এ অবস্থায় উবাইদাহ বলেন, ইয়া রাসুলুল্লাহ,এ সময় আবু তালিব জীবিত থেকে আমার এ অবস্থা দেখলে তার প্রত্যয় হতো যে, তার এ কথা বলার অধিকতর যোগ্য ব্যক্তি আমি। এই বলে তিনি আবু তালিবের একটি কবিতার এই পংক্তি আবৃত্তি করেন, “আমরা মুহাম্মাদের হিফাজত করবো। এমনকি চারপাশে মরে পড়ে থাকবো এবং আমাদের সন্তান ও স্ত্রীদের আমরা ভুলে যাব।” (সীরাতু ইবন হিশাম-২)

যুদ্ধ শেষ হওয়ার পর রাসূলুল্লাহ সা: তাকে সাথে করে মদীনার দিকে রওয়ানা হন। তিনি মারাত্মকভাবে আহত হয়েছিলেন। পথে ‘সাফরা’ নামক স্থানে ৬৩ বছর বয়সে ইনতিকাল করেন। সাফরার বালুর মধ্যে তাকে দাফন করা হয়।

হযরত রাসূলে কারীমের কাছে তার উচু মর্যাদা ছিল। রাসূল সা: তাকে অত্যন্ত সম্মান দেখাতেন। একবার রাসূল সা: ‘সাফরায়’ তার কবরের কাছে তাবু স্থাপন করেন। সাহাবীরা আরজ করেন: ইয়া রাসুলুল্লাহ এখান থেকে মিশকের ঘ্রাণ আসছে। তিনি বললেন: এখানে তো আবু মুআবিয়ার কবর ছিল। সুতরাং আশ্চর্য হওয়ার কি আছে?”

হযরত উবাইদার রা: মৃত্যুতে হিন্দা বিনতু উসাসা ও কাব সহ বহু কবি শোকগাথা রচনা করেছিলেন। (সীরাতু ইবন হিশাম-২/২৪, ২৫, ৪১)।

 

About ড. মুহাম্মদ আবদুল মাবুদ