আসহাবে রাসূলের জীবনকথা – দ্বিতীয় খন্ড

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

ফাদল ইবন আব্বাস রা:

নাম ফাদল, ডাক নাম আবু মুহাম্মাদ। পিতা প্রখ্যাত সাহাবী হযরত আব্বাস ইবন আবদুল মুত্তালিব রা: এবং মাতা লুবাবা বিনতুল হারেস আল হিলালিয়্যাহ। রাসূল সা: এর চাচাতো ভাই। পিতার জ্যেষ্ঠ সন্তান। এ কারণে পিতা আব্বাসকে ডাকা হতো আবুল ফাদলের পিতা বলে এবং ‍মাতা লুবাবাকে বলা হতো উম্মুল ফাদল বা ফাদলের মা।

বদর যুদ্ধের পূর্বেই পরিবারের অন্যদের সাথে ইসলাম গ্রহণ করেন ; কিন্তু মক্কার কাফিরদের ভয়ে প্রকাশ করেননি। মক্কা বিজয়ের অল্প কিছুদিন পূর্বে পিতা হযরত আব্বাস ও ছোট ভাই আবদুল্লাহর রা: সাথে মদীনায় হিজরাত করেন। হিজরাতের সময় তার বয়স ছিল তের বছর এবং আবদুল্লাহর বয়স আট বছর। (হায়াতুস সাহাবা-১/৩৭৩) তিনি মদীনায় হিজরাতের পর সর্ব প্রথম মক্কা অভিযানে অংশ গ্রহণ করেন। অত:পর হুনাইন অভিযানেও যোগদান করেন। আক্রমণের প্রথম পর্যায়ে মুসলিম বাহিনী যখন পরাজয়ের দ্বারপ্রান্তে উপনীত হয়ে পালাতে শুরু করে তখনও তিনি হযরত রাসূলে কারীমের সা: সাথে ময়দানে অটল থাকেন। বিদায় হজ্জে তিনি রাসূলুল্লাহর সা: সাথে একই বাহনে বসা ছিলেন। এ কারণে সেই দিন থেকে তিনি ‘রাদিফুর রাসূল’ উপাধিতে ভূষিত হন। এই সময় খাইসাম গোত্রের এক যুবক ও এক সুন্দরী যুবতী রাসূলুল্লাহর সা: নিকট হজ্জের বিভিন্ন মাসয়ালা জিজ্ঞেস করতে আসে। হজ্জের সময় মহিলাদের মুখে নেকাব দেওয়া যেহেতু জায়েয নয়, এ কারণে মহিলাটির মুখ খোলা ছিল। ফাদল ছিলেন সুদর্শন নওজোয়ান। মহিলাটি তার দিকে আড় চোখে ‍তাকাতে থাকে এবং ফাদলও তাকে দেখতে থাকেন, হযরত রাসূলে কারীম সা: কয়েকবার ফাদলের মুখ অন্য দিকে ফিরিয়ে দেন। রাসূল সা: বললেন: আজ যে ব্যক্তি স্বীয় চোখ, কান ও জিহবা সংযত রাখতে পারবে তার সকল গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে।’ (ইবন সা’দ-৪/৩৭, আল ইসাবা-৩/২০৮) এবং বুখারী শরীফে বাবু হজ্জিল মারয়াতে অধ্যায়ে বিষয়টি বর্ণিত হয়েছে।)

মিনায় পাথর নিক্ষেপের সময় চাদর উঁচু করে ধরে তিনি রাসূল সা: কে ছায়াদান করেন। মদীনায় রাসূল সা: তাকে বিয়ে দেন এবং নিজেই তার দেন মোহর পরিশোধ করেন।

হযরত ফাদল রা: রাসূলুল্লাহর সা: পার্থিব জীবনের সর্বশেষ খিদমাতের সুযোগ লাভে ধন্য হন। অন্তিম রোগশয্যায় রাসূল সা: সর্বশেষ ভাষণ দান করেন। এ ভাষণ দেওয়ার জন্য যে দুজন সৌভাগ্যবান ব্যক্তির সাহায্য নিয়ে তিনি ঘর থেকে বের হন তাদের একজন ফাদল। আর রাসূল সা: যে ভাষণ দেবেন এ কথাটিও ফাদল জনগণের মধ্যে ঘোষণা করেন। (আল ইসাবা-৩/২০৮) রাসূলুল্লাহর সা: ইনতিকালের পর যে কজন সৌভাগ্যবান ব্যক্তি পবিত্র দেহ গোসল দেওয়ার সুযোগ লাভ করেন ফাদল রা: তাদের অন্যতম। হযরত আলী রা: গোসল করান, ফাদল পানি ঢেলে দেন, রাসূল সা: কাপড় ধরে রাখেন এবং আউস ইবন খাওলী নামক এক আনসারী পানি এগিয়ে দেন। (আল ইসতীয়াব, হায়াতুস সাহাবা-২/৩৪১)। ওয়াকিদী বলেন: হযরত ফাদল হযরত উমারের খিলাফতকালে আমওয়াসের প্লেগের মহামারিতে মারা যান। আবার অনেকে বলেছেন, হযরত আবু বকরের খিলাফতকালে আজনদাইন অথবা ইয়ামামার যুদ্ধে তিনি শাহাদাত বরণ করেন। আবার কেউ কেউ বলেছেন, হিজরী ১৫ সনে ইয়ামামার যুদ্ধে তিনি শহীদ হন। তার মৃত্যুসন সম্পর্কে বিস্তর মতপার্থক্য রয়েছে। তবে ইমাম বুখারী আজনাদাইনের মতটি গ্রহণযোগ্য বলে মনে করেছেন। (আল ইসাবা-৩/২০৯)।

হযরত ফাদল রা: হতে ২৪টি হাদীস বর্ণিত হয়েছে। ইবন আব্বাস ও আবু হুরাইরার মত বিশিষ্ট সাহাবীরাও তার থেকে হাদীস গ্রহণ করেছেন। তাছাড়া কুরাইব, কুসাম ইবন আব্বাস, আব্বাস ইবন উবাইদিল্লাহ, রাবীয়া ইবন হারেস, উমাইর, আবু সাঈদ, সুলাইমান ইবন ইয়াসার, শাবী, আতা ইবন আবী রিবাহ প্রমূখ তাবেয়ী তার নিকট থেকে হাদীস গ্রহণ করেছেন। (আল ইসাবা-৩/২০৯)।

 

About ড. মুহাম্মদ আবদুল মাবুদ