ইসলাম ও জাতীয়তাবাদ

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

সংগঠন ও বিপেনের ইসলামী নীতি

কিন্তু, ইসলাম সমগ্র মানবিক ও বাস্তব সম্পর্ককে সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেছে-এরূপ সন্দেহ করলে তা মারাত্মক ভুল হবে। ইসলাম মুসলমানদেরকে আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষা করে চলার নির্দেশ দিয়েছে, সম্পর্ক ছিন্ন করতে স্পষ্ট ভাষায় নিষেধ করেছে। পিতামাতার আনুগত্য ও নির্দেশ পালনের জন্যে জোর তাগিদ করেছে। রক্তের সর্ম্পক সম্পন্ন লোকদের মধ্যে মীরাসী আইন অনুসারে উত্তরাধিকার জারী করেছে, দান-খয়রাতের ব্যাপারে নিকটাত্মীয়দের প্রথম অধিকার স্বীকার করেছে। নিজেদের পরিবার-পরিজন, ঘর-বাড়ী এবং ধন-সম্পত্তিকে শত্রু“র আক্রমণ থেকে রক্ষা করার নির্দেম দিয়েছে। অত্যাচারীর মুকাবিলায় যুদ্ধ করার আদেশ দিয়েছে এবং এ ধরণের যুদ্ধ-বিগ্রহে নিহত ব্যক্তিদেরকে ‘শহীদ’ আখ্যা দেয়া হয়েছে। জীবনের সমগ্র ব্যাপারে, ধর্ম নির্বিশেষে প্রত্যেকটি মানুষের প্রতি সহানুভূতি, সদাচার, প্রেম ও ভালবাসার ব্যবহার করার শিক্ষা দিয়েছে। দেশ ও জাতির সেবা সংরক্ষণের জন্য চেষ্টা করতে কিংবা অমুসলিম প্রতিবেশীর সাথে সন্ধি ও সৌজন্যের ব্যবহার করতে ইসলাম নিষেধ করেছে, একথা ইসলামের কোনো একটি নির্দেশ থেকেও বুঝা যায় না-তা বুঝানোও যেতে পারে না।

মানুষের পরস্পরের সাথে সম্পর্ক রাখার যে নির্দেশ ইসলাম দিয়েছে, তা ঐসব বাস্তব সম্পর্ক সম্বন্ধের সংগত ও স্বাভাবিক অভিব্যক্তি মাত্র। কিন্তু অবশ্য জাতীয়তার ব্যাপারে ইসলাম ও অ-ইসলাম মধ্যে নীতিগত পার্থক্য বর্তমান রয়েছে। সে পার্থক্য এদিক দিয়েও সুপ্রকট হয়ে উঠেছে যে, দুনিয়ার অন্যান্য মানুষ ঐসব জড় বিষয়ের উপর জাতীয়তার ভিত্তিস্থাপন করেছে, কিন্তু ইসলাম তার কোনো একটির উপরও জাতীয়তার ভিত্তি স্থাপিত করেনি। ইসলামের দৃষ্টিতে উল্লিখিত বৈষয়িক সম্পর্ক সম্বন্ধ অপেক্ষা ঈমানের সম্পর্কই অগ্রগণ্য ও গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি প্রয়োজন হলে একমাত্র এ একটি দিকের সম্পর্ক রক্ষার জন্য অন্যান্য সকল প্রকার সম্পর্ককে কুরবান করতেও প্রস্তুত হতে হবে। ইসলামের ঘোষণা এইঃ

قَد كَانت لكم اُسْوَةٌ حَسَنَةٌ فىْ اِبْرَاهِيْمَ وَالَّذِيْنَ مَعَهُ ج اِذ قَالوُا لِقَوْمِهِم اِنَّا بُرِءَؤُا منكم وَ مِمَّا تعبدون من دُوْنِ اللهِ ز كَفَرْنَا بِكُمْ وَبَدَاْ بَيْنَنَا وَبَيْنَكم العَدَاوَةَ وَألبَغَضَاءُ اَبَدًا حَتَّى تَؤْمِنُوْا بِاللهِ وَحدَهُ – (الممتحنة : ৪)

“ইবরাহীম এবং তাঁর সঙ্গী-সাথীদের কাজকর্মে তোমাদের জন্য অনুসরণযোগ্য আদর্শ রয়েছে। তারা স্বদেশী ও বংশভিত্তিক জাতিকে স্পষ্টভাষায় বলে দিয়েছেন যে, তোমাদের এবং আল্লাহ ছাড়া যাদেরকে তোমরা উপাস্যরূপে গ্রহণ করেছ তাদের সাথে আমাদের কোনোই সম্পর্ক নেই। আমরা তোমাদের সাথে সকল সম্পর্ক ছিন্ন করলাম। তোমাদের সাথে আমাদের চিরকালীন শত্রু“তার সূত্রপাত হলো-যতোক্ষণ না তোমরা এক আল্লাহর প্রতি ঈমান আনবে।” -সূরা মুমতাহিনাঃ ৪

ইসলাম বলেছেঃ

لاَ تَتَّخذوا ابَاءَكم وَاِخوانكم اَوْ لياءَ اِنِ اِسْتَحَبُّوا الكُفرَ على الايْمَان ط وَمن يَتَوَلَّهم منكم فَاُلَــــئِك هُمُ الطَّلِمُوْنَ – (التَّوبة : ২৩)

“তোমাদের পিতামাতা এবং ভাইও যদি আল্লাহর প্রতি ঈমান আনার পরিবর্তে কুফরকে পছন্দ করে ও ভালবাসে, তবে তোমরা তাদেরকেও নিজেদের ‘আপন লোক’ বলে মনে করবে না। তোমাদের কোনো লোক যদি তাদেরকে বন্ধু বলে মনে করে, তবে সে নিশ্চয়ই জালেমদের মধ্যে গণ্য হবে।”-সূরা আত্ তাওবাঃ ২৩

আরো- اِنَّ مِنْ اَزواجكم وِاَوْلاَدكم عَدُوًّا لَّكم فاحذَرُوْهُمْ ج – (التَّغَابُنْ : ১৪)

“তোমাদের স্ত্রী এবং সন্তানদের মধ্যে এমন লোকও আছে, যারা (তোমাদের মুসলমান হওয়ার দিক দিয়ে) তোমাদের দুশমন, তাদের সম্পর্কে সাবধান হও।” -সূরা আত তাগাবুনঃ ১৪

ইসলামের নির্দেশ এই যে, তোমাদের দ্বীন ইসলাম এবং তোমাদের মার্তৃভূমির মধ্যে যদিও বিরোধ ও দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয় তাহলে দ্বীন ইসলামের জন্যে মার্তৃভূমি পরিত্যাগ করে চলে যাও। যে ব্যক্তি দ্বীনের ভালবাসার জন্যে স্বদেশ-প্রেম ভুলে হিজরত করতে পারে না সে মুনাফিক, তার সাথে তোমাদের কোনোই সম্পর্ক থাকতে পারে না।

فَلاَ تَتَّخِذُوْا منهم اَوْلــياءَ حَتَّى يُهَاجِرُوا فى سَبِيْل اللهِ ط – (النســـاء : ৮৯)

“যতোক্ষণ পর্যন্ত তারা আল্লাহর পথে হিজরত না করবে, ততোক্ষণ পর্যন্ত তাদের মধ্যে থেকে কাউকে তোমরা বন্ধু হিসাবে গ্রহণ করো না।” -সূরা আন নিসাঃ ৮৯

ইসলাম ও কুফরে পার্থক্যের জন্য রক্তের নিকটতম সম্পর্ক বন্ধনও ছিন্ন হয়ে যায়। পিতামাতা, ভাই, পুত্র কেবল ইসলামের বিরোধী হওয়ার কারণেই সম্পর্কহীন হয়। আল্লাহর সাথে শত্রু“তা করার কারণে একই বংশের লোকদের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করা হয়। কুফর ও ইসলামের মধ্যে চরম শত্রু“তা শুরু হওয়ার ফলে জন্মভূমিকেই পরিত্যাগ করতে হয় অকুন্ঠচিত্তে। এর পরিষ্কার অর্থ এই যে, দুনিয়ার সমগ্র বস্তু এবং সম্পর্কের উপরেই হচ্ছে ইসলামের স্থান। ইসলামের উদ্দেশ্য অতি অনায়াসেই দুনিয়ার সর্বস্ব কুরবান করা যায়; কিন্তু কোনো জিনিসের জন্যই ইসলামকে ত্যাগ করা যেতে পারে না। অন্য দিকেও অনুরূপ দৃশ্য-অনুরূপ ভাবধারা পরিলক্ষিত হয়। যেসব লোকেরা পরস্পরের মধ্যে রক্ত, স্বদেশ, ভাষা, বর্ণ প্রভৃতি কোনো জড় বস্তুরই সম্পর্ক বা সামঞ্জস্য নেই, সেসব লোককে ইসলাম নিবিড় ভ্রাতৃবন্ধনে আবদ্ধ করে-তারা পরস্পর ‘ভাই’ হয়ে যায়। কুরআন মজীদে সমগ্র মুসলমানকে সম্বোধন করে বলা হয়েছেঃ

وَاعتَصِمُوا بحبل اللهِ جَمِيْعَا وَّلاَ تَفَرَّقُوا ص وَاذكُرُوا نِعمِةَ اللهِ عليكم اِذ كنتم اعداءً فَالَّفَ بَيْنَ قُلُبِكم فَاصْبحتُم بِنِِعمته اِخْوَانَا ج وَكنتم على شَفَا حُفْرَةٍ مِّنَ النَّارِ فَانْقَذَكم مِنْهَا ط – (ال عِمران : ১০৩)

“তোমরা সকলে মিলে আল্লাহর রজ্জু ধারণ কর এবং পরস্পর বিচ্ছিন্ন হয়ে যেওনা। তোমাদের উপর আল্লাহর অনুগ্রহের কথা স্মরণ করো, এক সময় তোমরা পরস্পরের প্রকাশ্য দুশমন ছিলে, কিন্তু আল্লাহ তোমাদের মনে পারস্পারিক ভালবাসা জাগিয়ে দিয়েছেন। এবং তোমরা তাঁর নিয়ামত-ইসলামের দৌলতে পরস্পর ভ্রাতৃবন্ধনে আবদ্ধ হলে। তোমরা নিজেদের (আভিজাত্যবোধ ও হিংসা-দ্বেষের কারণে) এক গভীর প্রজ্জ্বলিত অগ্নি গহ্বরের প্রান্তে দাঁড়িয়ে ছিলে, আল্লাহ তা’য়ালা তোমাদেরকে তা থেকে রক্ষা করেছিলেন।” -সূরা আলে ইমরানঃ ১০৩

সকল প্রকার অমুসলিমদের সম্পর্কে বলা হয়েছেঃ

فَاِنْ تَابُوا وَاَقَامُوا الصَّلوة وَاَتُوا الزَّكوة فَاِخْوَانكم فى الدِّيْنِ ط – (التَّوبة : ১১)

“তারা যদি কুফর ত্যাগ করে তাওবা করে, এবং সালাত কায়েম করে ও যাকাত দেয়, তাহলে তারা তোমাদের দ্বীনি ভাইরূপে গণ্য হবে।” -সূরা আত তাওবাঃ ১১

পান্তরে মুসলমানদের পরিচয় দিয়ে বলা হয়েছেঃ

مُحَمَّدُ الرَّسُولُ اللهِ ط وَالَّذِيْن َمَعَهُ اَشِدَّءُ على الكُفَّارِ رُحُمَاءُ بَيْنَهُم – (الفتح : ২৯)

“মুহাম্মদ (সা.) আল্লাহর রাসূল এবং তাঁর সঙ্গী-সাথীগণ কাফেরদের সমীপে দুর্বিনীত, ইস্পাত-কঠিন অনমনীয় ও দৃঢ়, কিন্তু নিজেদের পরস্পরের মধ্যে অতুলনীয় স্নেহ-ভালবাসার নিবিড় সম্পর্কে জড়িত।” -সূরা আল ফাতহঃ ২৯

হযরত নবী করিম (সা.) বলেনঃ

“আমাকে লোকদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে যতোণ না তারা স্যা দিবে যে, আল্লাহ ছাড়া আর কোনো মাবুদ নেই, (হযরত) মুহাম্মদ (সা.) তাঁর নবী। এবং আমাদের কেবলার দিকে মুখ করবে, আমাদের যবেহকৃত জন্তু আহার করতে প্রস্তুত হবে এবং আমাদের অনুরূপ সালাত আদায় করবে। তারা যখনই এরূপ করবে তখনই তাদের জানমাল আমাদের উপর ‘হারাম’। অবশ্য তারপরও হক ও ইনসাফের খাতিরে তাদের উপর হস্তপে করার পথ উন্মুক্ত থাকবে। তাদের অধিকার অন্যান্য মুসলমানদের অধিকারের সমান হবে এবং তাদের কর্তব্যও অন্যান্য মুসলমানদের কর্তব্যের অনুরূপ।” – আবু দাউদ, কিতাবুল জিহাদ।

তারা কেবল যে অধিকার ও কর্তব্যেই সমান হবে, তা নয়। প্রকৃতপক্ষে কোনো দিকে দিয়েই তাদের মধ্যে পার্থক্য ও বৈষম্য সৃষ্টির অবকাশ নেই। উপরোক্ত হাদীসের সাথে একথাও উল্লিখিত হয়েছেঃ

المسلم للمسلمِ كالبنيانِ يَشُدُّ بَعضَهُ بَعْضًا –

“মুসলমানদের পরস্পরের মধ্যে একটি প্রাচীরের ন্যায় মযবুত সম্পর্ক বর্তমান। তার প্রত্যেকটি অংশ অপর অংশকে দৃঢ় করে দেয়।”

مَثَلُ المُؤمِنِيْنَ فِىْ تَوَادِّهِمْ وَتَرَحُمِهم وَتَعَاطُفِهِمْ كَمَثَلِ الجَسَدِ الوَاحِدِ اِذَا اشْتَكَ منه عُضْوٌ تداعى له سائِرُ الجَسَد بالسَّهْرِ وَالحُمَّى –

“পারস্পারিক প্রেম-ভালবাসা ও স্নেহ-বৎসল্যের দিক দিয়ে মুসলিম জাতি একটি পুর্ণাঙ্গ দেহের সমতুল্য। তার একটি অংগে কোনো ব্যাথা অনুভূত হলে গোটা দেহই সেজন্য নিদ্রহীন ও বিশ্রামহীন হয়ে পড়ে।”

মিল্লাতে ইসলামীয়ার এ ‘দেহ’কে নবী করীম (সা.) ‘জামায়াত’ নামে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেছেনঃ

يَدُ اللهِ على الجماعة وَمنْ شَذَ شُذَ فِىْ النَّارِ-

“জামায়াতের উপর আল্লাহর হাত রয়েছে। যে জামায়াতের বর্হিভূত হবে সে জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হবে।”

مَنْ فَارَقَ الجمعة شِبرًا خلع رِقْبَةً الاِسْلامِ من عُنُقِهِ –

“যে ব্যক্তি অংগুলি পরিমাণ স্থানও জামায়াত হতে বিচ্ছিন্ন ও দূরবর্তী হবে, সে যেন তার নিজ গলদেশ থেকে ইসলামের রজ্জু ছিন্ন করে দিল।”

এখানেই শেষ নয়, এতোদূর পর্যন্ত বলা হয়েছেঃ

مَنْ اَرَدَ اَنْ يُفَرِّقُ جَمَاعتَكم فَاقْتُلُوهُ –

“যে ব্যক্তি তোমাদের জামায়াতে ভাঙ্গন সৃষ্টি করতে ইচ্ছা করবে, তাকে তোমরা ‘কতল’ কর।” এবং مَنْ اَرَدَ اَنْ يُفَرِّقُ اَمرالاُمَّةِ وَهِىَ جَمِيعُ فَاضْرِبُهُ بالسُّيُفِ كَائنا من كان – (مسلم, كتاب الامارة) “এ (ইসলামী) জাতির সুদৃঢ় সূত্রকে যে ব্যক্তি ছিন্ন করতে চাইবে তাকে তরবারী দ্বারা শায়েস্তা কর-সে যেই হোক না কেন।”

ইসলামী জাতীয়তা কিভাবে গঠিত হলো?

ইসলামী আদর্শের ভিত্তিতে রক্ত, মাটি, বর্ণ ও ভাষার মধ্যে কোনোই বৈষম্য ছিল না। ইরানের সালমান ছিলেন এ জাতির একজন প্রসিদ্ধ ব্যক্তি। তাঁর বংশ পরিচয় জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলতেন, “সালমান বিন ইসলাম”-ইসলামের পুত্র ইসলাম। হযরত আলী (রা.) তাঁর সম্পর্কে বলেতেন, -“সালমান আমাদেরই ঘরের লোক।” বাযান বিন্ সাসান এবং তাঁর ছেলে শাহার বিন্ বাযানও সেই সমাজে বাস করতেন। এরা ছিলেন বাহরামগোর-এর বংশধর। হযরত নবী করীম (সা.) বাযানকে ইয়ামানের এবং তাঁর পুত্রকে ছানয়া’র শাসনকর্তা নিযুক্ত করেছিলেন। আবিসিনিয়ার নিগ্রো বিলালও ছিলেন এ জামায়াতেরই একজন। হযরত উমর ফারুক (রা.) তাঁর সম্পর্কে বলতেন-ইনি ‘নেতা’র দাস এবং আমাদেরও নেতা।” রোমের ছোহাইব-ও এ জাতিরই একজন ছিলেন। হযরত উমর (রা.) তাঁকে নিজের স্থানে সালাতের ইমামতি করার জন্যে নিযুক্ত করতেন। হযরত আবু হোযাইফার ক্রীতদাস সালিম সম্পর্কে হযরত উমর জীবনের শেষ মুহূর্তে বলেছেন-“আজও সালিম যদি বেঁচে থাকতো, তাহলে আমার পরবর্তী খলিফার জন্যে আমি তাঁর নাম প্রস্তাব করতাম। যায়েদ বিন হারেসা ছিলেন একজন ক্রীতদাস, (কিন্তু তিনিও ইসলামী জাতির অন্তর্ভূক্ত ছিলেন বলে) হযরত নবী করীম (সা.) তাঁর ফুফাতো ভগ্নি উম্মুল মু’মিনীন হযরত যয়নবকে তাঁর কাছে বিয়ে দিয়েছিলেন। যায়েদের পুত্র উসামাও এ জামায়াতের একজন ‘সদস্য’ ছিলেন-হযরত নবী করীম (সা.) তাঁকে সৈন্যবাহিনীর ‘নেতা’ নিযুক্ত করেছিলেন এবং তাতে হযরত আবু বকর, উমর ফারুক, আবু উবায়দা বিন র্জারাহ্ প্রমুখ শ্রেষ্ঠ সাহাবায়ে কিরাম সাধারণ সৈনিক হিসাবে শরীক ছিলেন। এ উসামা সম্পর্কেই হযরত উমর (রা.) তাঁর পুত্র আব্দুল্লাহর নিকট বলেছিলেন-“উসামার পিতা তোমার পিতা অপেক্ষা উত্তম ছিলেন এবং উসামা তোমার অপেক্ষা উত্তম।”

মুহাজিরদের আদর্শ

ইসলামী আদর্শে গঠিত জাতি বা (জামায়াত) ইসলামের শাণিত তরবারির আঘাতে বংশ, স্বদেশ, বর্ণ ও ভাষা প্রভৃতি নামে অভিহিত সকল দেবতা এবং আবহমানকাল থেকে চলে আসা হিংসা-বিদ্বেষের ভিত্তিসমূহ চূর্ণ করেছে। রাসূলে করীম (সা.) নিজের জন্মভূমি ত্যাগ করলেন এবং সংগী-সাথীদের নিয়ে মদীনায় হিজরত করলেন। এর অর্থ এই নয় যে, হযরত (সা.) এবং তাঁর সংগী-সাথীদের মনে জন্মভূমির প্রতি কোনো টান-স্বাভাবিক দরদও ছিল না। মক্কা ত্যাগ করার সময় তিনি বলেছিলেনঃ “হে মক্কা, তুমি আমার কাছে দুনিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশী প্রিয়। কিন্তু কি করবো, তোমার অধিবাসীগণ এদেশে আমাকে থাকতে দিলে না।” হযরত বিলাল (রা.) মদীনায় গিয়ে যখন অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তখন তিনি মক্কার এক ব্যক্তি একটি জিনিস স্মরণ করেছিলেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও এ সকল মহান ব্যক্তি একমাত্র ইসলামের জন্যেই হিজরত করেছিলেন এবং সে জন্যে তাঁরে মনে কখনো কোন ক্ষোভ জাগ্রত হয়নি।

الاليت شعرى هل ابيتن ليلة * بفتح وحولى اذخرو جليل وهل اردن يوما مياه مجنة * وهل تبدو الى شامة وطفيل

আনসারদের কর্মর্নীতি

অন্যদিকে মদীনাবাসীগণ রাসূলে করীম (সা.) এবং অন্যান্য মুহাজিরীনকে বিপুল সংবর্ধনা জানিয়েছিলেন। তাদের জন্যে নিজেদের জান ও মাল পর্যন্ত অকাতরে উৎসর্গ করেছিলেন। হযরত আয়েশা (রা.) এ কারণেই বলেছিলেনঃ “মদীনা কুরআনের দ্বারা জয় করা হয়েছে।” হযরত নবী করীম (সা.) আনসার ও মুহাজিরীনকে পরস্পর ভ্রাতৃবন্ধনে বেঁধে দিয়েছিলেন। আর তাঁরাও এমন গভীর ভ্রাতৃবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন যে, দীর্ঘকাল যাবত একে অপরের উত্তরাধিকার (মীরাস) পেয়ে আসছিলেন। অতপর, আল্লাহকে এ আয়াত নাযিল করেই এ কাজ বন্ধ করেছিলেনঃ وَاُولُو الارحام بَعضَهُم اَولى بِبَعضٍ মীরাসের ব্যাপারে রক্ত সম্পর্কই বেশী হকদার। আনসারগণ নিজেদের জমি-তে আধাআধি ভাগ করে মুহাজির ভাইদের মধ্যে বন্টন করেছিলেন। পরে বনী নযীরের ভূমিসহ যখন অধিকার করা হয়, তখন এ জমিগুলোকেও মুহাজির ভাইদের দান করার জন্য আনসারগণ নবী করীম (সা.) এর নিকট দাবী জানিয়েছিলেন। এ আত্মদানের প্রশংসা করে আল্লাহ তা’য়ালা এরশাদ করেছেনঃ وَيُؤثرونَ على اَنْفُسِهِم وَلو كان بِهِم خِصَاصةٌ –

“তারা নিজেদের অভাব ও কষ্ট থাকা সত্ত্বেও নিজেদের উপর মুহাজিরদেরকে অধিক প্রাধান্য দিচ্ছে।”

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আওফ ও হযরত সা’দ বিন রবী আনসারী পরস্পর ভ্রাতৃবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন। অতপর হযরত সা’দ তাঁর এ দ্বীনি ভাইকে অর্ধেক সম্পত্তি দিলেন এবং তাঁর একাধিক স্ত্রীদের মধ্যে থেকে একজনকে তালাক দিয়ে তাঁর নিকট বিবাহ দিতে প্রস্তুত হলেন। নবী করীম (সা.)-এর যুগের মুহাজিরগণই যখন ক্রমাগত খলীফা নিযুক্ত হতে লাগলেন, তখন মদীনার কোনো এক ব্যক্তিও তাদেরকে একথা বলেননি যে, তোমরা বিদেশী লোক, আমাদের দেশে কর্তৃত্ব করার তোমাদের কি অধিকার আছে। রাসূলে করীম (সা.) এবং হযরত উমর ফারুক (রা.) মদীনার অদূরে মুহাজিরদেরকে ভূমি দান করেছিলেন; কিন্তু কোনো আনসার সে সম্পর্কে ‘টু’ শব্দ পর্যন্ত করেননি।

ইসলামী সম্পর্ক রক্ষার জন্য পার্থিব সম্পর্কচ্ছেদ

অতঃপর বদর ও ওহুদ যুদ্ধে মক্কার মুহাজিরগণ দ্বীন ইসলামের জন্য নিজেদেরই আত্মীয় বান্ধবদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম করেছেন। হযরত আবু বকর (রা.) স্বয়ং তাঁর পুত্র আব্দুর রহমানের উপর তরবারির আঘাত হেনেছিলেন, হযরত হুযায়ফা নিজের পিতা আবু হুযায়ফার উপর আক্রমণ করেছিলেন, হযরত উমর (রা.) তাঁর মামাকে হত্যা করেছিলেন,স্বয়ং নবী করীম (সা.)-এর পিতৃব্য আব্বাস চাচাতো ভাই আকীল, জামাতা আবুল আছ বদর যুদ্ধে বন্দী হয়ে আসে এবং তাদেরকেও সাধারণ কয়েদীদের ন্যায় রাখা হয়। হযরত উমর (রা.) প্রস্তাব করেছিলেন যে, সমগ্র যুদ্ধবন্দীকে হত্যা করা হোক এবং প্রত্যেকেই নিজের নিকটাত্মীয় বন্দীকে হত্যা করুক।

মক্কা বিজয়কালে রাসূলে করীম (সা.) অনাত্মীয় বৈদেশিক লোকদের সহযোগিতায় নিজ গোত্র এবং আপন জন্মভূমি আক্রমণ করেছিলেন। অপরের দ্বারা আপন লোকদের গর্দান কেটেছিলেন। আরবের কোনো ব্যক্তির পক্ষে তার গোত্র বর্হিভূত লোকদের নিয়ে নিজ গোত্র-গোষ্ঠীর উপর আক্রমণ করা-তাও আবার কোনো প্রতিশোধ গ্রহণ কিংবা সম্পদ বা সম্পত্তি দখল করার জন্যে নয়, কেবলমাত্র একটি কালেমাকে বাস্তবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্যে আরবের ইতিহাসে বাস্তবিকই অপূর্ব, অচীন্ত্যপূর্ব ঘটনা। কুরাইশ বংশের বদমাশ যুবক দল যখন নিহত হচ্ছিল, তখন আবু সুফিয়ান এসে বলেছিলঃ “হে রাসূলুল্লাহ! কুরাইশ বংশের কচি সন্তান সব নিহত হচ্ছে, ফলে কুরাইশ বংশের নাম-নিশানা পর্যন্ত মুছে যাবে।” রাহমাতুল্লিল আলামীন (সা.) মক্কাবাসীদের নিরাপত্তা দান করলেন। এতে আনসারগণ মনে করলেন যে, হযরত (সা.) এর মনে হয়তো তাঁর জাতির প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়েছে। তাঁরা বললেনঃ “হযরত (সা.) মানুষ বৈ আর কিছুতো নন, শেষ পর্যন্ত নিজ বংশের আভিজাত্য সুরতি না করে পারলেন না।” নবী করীম (সা.) একথার সংবাদ পেয়ে আনসারদের সমবেত করলেন এবং বললেনঃ “বংশ বা স্বগোত্রের প্রেম আমাকে কিছুমাত্র আকৃষ্ট বা বিচলিত করতে পারেনি; আমি আল্লাহর বান্দাহ এবং তাঁর রাসূল। আল্লাহর জন্যেই হিজরত করে তোমাদের নিকট গিয়েছি। এখন আমার জীবন ও মৃত্যু তোমাদের সাথে জড়িত।” এখানে নবী করীম (সা.) যা কিছু বলেছিলেন জীবনের প্রতিটি কাজ দ্বারা তার সত্যতা প্রমাণ করেছিলেন। যে কারণে মক্কা থেকে তিনি হিজরত করেছিলেন, মক্কা বিজয়ের পর তার কোনো একটি কারণও অবশিষ্ট ছিল না; কিন্তু তবুও তিনি মক্কায় বসবাস করেননি। এটা থǠƕে প্রমাণিত হচ্ছে যে, রাসূলে কারীম (সা.) কোনো স্বাদেশিক কিংবা প্রতিশোধমূলক ভাবধারার বশবর্তী হয়ে মক্কা আক্রমণ করেননি; করেছিলেন কেবলমাত্র সত্যের মহান বাণীর প্রচার ও প্রতিষ্ঠার জন্যে।

পরবর্তীকালে যখন হাওয়াযিন ও সাক্বীফ গোত্রের ধন-সম্পদ ঞস্তগত হয়েছিল, তখনও অনুরূপ ভুল ধারণার পুনরাবৃত্তি হয়েছিল। নবী করীম (সা.) গণীমাতের মাল থেকে কুরাইশ বংশের নওমুসলিমদেরকে বেশী অংশ দান করেছিলেন। কোনো কোনো যুবক আনসার এটাকে জাতীয় পপাতিত্ব বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছিল। তারা একটু ক্রুদ্ধ এবং উত্তেজিত হয়ে বলেছিল যে, আল্লাহ রাসূলে করীম (সা.)-কে মাফ করুন, তিনি কুরাইশদের দিয়েছেন আর আমাদেরকে বঞ্চিত করেছেন। যদিও এখন পর্যন্ত আমাদের তরবারী থেকে তাদের রক্ত টপ টপ করে ঝরছে। এটা শুনে নবী করীম (সা.) আবার তাদেরকে সমবেত করে বললেনঃ এরা নতুন নতুন ইসলাম গ্রহণ করেছে বলেই এদেরকে বেশী দান করেছি। তাদের মন রক্ষা করাই একমাত্র উদ্দেশ্য। এরা পার্থিব সম্পদ নিবে, আর তোমরা আল্লাহর রাসূলকে পাবে। এ ‘বন্টন’ কি তোমরা পছন্দ করো না?

বনী মুস্তালিক যুদ্ধে একজন গিফার বংশের ও একজন আওফ বংশের লোকদের মধ্যে বিতর্ক হয়েছিল। গিফার বংশের লোকটি আওফ বংশের লোকটিকে চপেটাঘাত করে। আওফ বংশ আনসারদেরকে গিফারীদের বিরুদ্ধে সাহায্য করার জন্যে এগিয়ে আসতে আহ্বান জানাল। অপরদিকে গিফার বংশ মুহাজিরদের নিকট মুকাবিলার জন্য সাহায্য দাবী করেন। উভয় পরে শাণিত তরবারী কোষমুক্ত হবার উপক্রম হয়। নবী করীম (সা.) এ সংবাদ পেয়ে উভয় পক্ষকে ডেকে পাঠান এবং বলেনঃ “তোমাদের মুখে আজ এ কি জাহেলিয়াতের শব্দ ধ্বণিত হলো?” তারা বললোঃ “একজন মুহাজির একজন আনসার ব্যক্তিকে মেরেছে?” নবী করীম (সা.) বললেনঃ “তোমরা এ অন্ধকার বর্বর যুগের কথাবার্তা পরিত্যাগ করো, এটা বড়ই ঘৃণিত ব্যাপার।”

এ যুদ্ধে মদীনার প্রসিদ্ধ জাতীয়তাবাদী নেতা আব্দুল্লাহ বিন উবাইও যোগ দিয়েছিল। সে এ ঘটনা শুনতে পেয়ে বললোঃ “এরা আমাদের দেশে এসেই ‘ফুলে ফলে বিকশিত’ হয়েছে, আর এখন আমাদেরই মাথায় চড়ছে। একটি কুকুরকে পুষ্টিকর খাদ্য খাইয়ে পরিপুষ্ট ও শক্তিশালী করার পর সে যদি প্রতিপালককেই দংশন করে, তবে সেই অবস্থাকে আমাদের বর্তমান অবস্থার সাথে তুলনা করা যেতে পারে। আল্লাহর শপথ! মদীনার প্রত্যাবর্তন করার পর আমাদের মধ্যে সম্মানিত ও শক্তিশালী দল দুর্বল ও লাঞ্চিত দলকে শহর থেকে বহিষ্কার করে দিবে।”

অতঃপর আনসারদের লক্ষ্য করে সে বললোঃ “তোমাদেরই বা কি হলো? তোমরাই ঐ লোকদেরকে নিজেদের দেশে স্থান দিয়েছ, ধন-সম্পত্তি ভাগ করে দিয়েছ। আল্লাহর শপথ! তোমরাই যদি এদের পরিত্যাগ কর, তবে এরা বায়ু সেবন করেই জীবন ধারণ করতে বাধ্য হবে।” নবী করীম (সা.) যখন এসব কথা শুনতে পেলেন, তখন তিনি আব্দুল্লাহ বিন উবাইর ছেলে হযরত আব্দুল্লাহকে ডেকে বলেন যে, “তোমার পিতা একথা বলছে।” হযরত আব্দুল্লাহ পিতাকে অত্যন্ত বেশী ভালবাসতেন এবং খাজরায বংশের কোন পুত্রই পিতাকে এতোখানি ভালবাসে না বলে তিনি গৌরববোধ করতেন। কিন্তু একথা শুনে তিনি বললেনঃ “ইয়া রাসূলুল্লাহ! আপনি আদেশ করলে এখনি তার মস্তক কেটে আনবো।” কিন্তু নবী করীম (সা.) নেতিবাচক উত্তর দিলেন। যুদ্ধ থেকে মদীনায় প্রত্যাবর্তন করার পর হযরত আব্দুল্লাহ পিতার পিতার উপর তরবারী উত্তোলন করে বললেনঃ “হযরতের অনুমতি না হলে তুমি মদীনায় প্রবেশ করতে পারবে না। তুমি নাকি বলেছ যে, আমাদের মধ্যে সম্মানিত দল লাঞ্ছিত লোকদের মদীনা থেকে বহিষ্কার করে দিবে? তবে তুমি জেনে রাখ, যাবতীয় সম্মান কেবল আল্লাহ এবং তাঁর রাসূলের জন্যেই সংরক্ষিত।” ইবনে উবাই একথা শুনে চিৎকার করে উঠলো এবং বললো, “খাজরাযগণ শোন, আমার পুত্রই এখন আমাকে ঘরে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না।” লোকজন এসে হযরত আব্দুল্লাহকে অনেক বুঝালেন। কিন্তু তিনি বললেনঃ “হযরতের অনুমতি না হওয়া পর্যন্ত আমি তাকে কিছুতেই মদীনায় প্রবেশ করতে দিব না।” শেষ পর্যন্ত হযরতের নিকট থেকে যখন অনুমতি আসলো, তখন তা শুনে হযরত আব্দুল্লাহ তরবারী কোষবদ্ধ করলেন এবং বললেনঃ “নবী করীম (সা.)-এর যখন অনুমতি হয়েছে, তখন আমার কোনো আপত্তি নেই।”

বনু কায়নুকা উপর যখন আক্রমণ করা হয়, তখন হযরত উবাদা বিন সামেতকে সংশ্লিষ্ট বিষয়ের মীমাংসা করার জন্যে ‘শালিস’ নিযুক্ত করা হলো। তিনি গোটা গোত্রকে মদীনা থেকে নির্বাসিত করার ফয়সালা করলেন। এরা হযরত উবাদার গোত্র খাজরাযের সাথে চুক্তিবদ্ধ ছিল। তথাপি তিনি এর বিন্দুমাত্র পরোয়া করলেন না। বনু কুরাইযার ব্যাপারেও অনুরূপভাবে আওস নেতা হযরত সা’দ বিন মায়াজকে ‘বিচারক’ মনোনীত করা হয়েছিল। তিনি ফয়সালা করলেন যে, বনু কুরাইযার সকল পুরুষকে হত্যা করা হবে, নারী ও শিশুদের বন্দী করে রাখতে হবে এবং তাদের ধন-সম্পত্তি ‘গণীমত’ হিসাবে গণ্য হবে। এ ব্যাপারে তিনি আওস ও বনু কুরাইযার মধ্যে যুগান্তকালের সন্ধি-চুক্তির প্রতি বিন্দুমাত্র খেয়াল করলেন না। অথচ এটা সর্বজনবিদিত যে, আরব দেশে পারস্পারিক চুক্তির অত্যন্ত গুরুত্ব ছিল। উপরন্তু শত শত বছর ধরে এরা আনসারদের সাথে একত্রে ও একই দেশে বসবাস করছিল। কিন্তু তা সবই ব্যর্থ হলো।

ইসলামী জাতি গঠনের মৌলিক প্রাণসত্ত্বা

এসব ঐতিহাসিক প্রমাণ ও তথ্য থেকে এ সত্যই পরিস্ফুট হচ্ছে যে, ইসলামী জাতীয়তার ভিত্তি স্থাপনের ব্যাপারে বংশ, গোত্র, ভাষা ও বর্ণের কিছুমাত্র গুরুত্ব নেই। যে নির্মাতা এ ‘প্রাসাদ’ নির্মান করেছেন, তাঁর পরিকল্পনা সম্পূর্ণ অভিনব-অতুলনীয়। তিনি সমগ্র মনুষ্য জগতের ‘কাঁচামাল’ সূক্ষ্মভাবে যাচাই করে দেখেছেন। বেছে বছে উত্তম ও উৎকৃষ্ট মাল-মসলা যা পাওয়া গেছে, তা সংগ্রহ করেছেন। ঈমান ও সৎকাজ পোখ্ত ও নিখুঁত ছিল বলে এসব বিভিন্ন উপাদানকে একত্রে সমন্বিত করেছেন এবং এক বিশ্বব্যাপক ও নিখিল সৃষ্টিলোকব্যাপী এ জাতীয়তার প্রাসাদ নির্মাণ করেছেন। এ বিরাট ও মহান প্রাসাদের স্থিতি ও স্থায়িত্ব শুধু একটি কাজের উপর একান্তভাবে নির্ভর করে। তা এই যে, তার মূল আকৃতি ও স্থানের দিক দিয়ে বিভিন্ন ‘অংশ’ নিজেদের স্বতন্ত্র মৌলিকতার কথা ভুলে একটি মাত্র বর্ণে ‘মূলকেই’ গ্রহণ করবে ও স্মরণে রাখবে; নিজেদের বিভিন্ন বর্ণ ভুলে একটি মাত্র বর্ণে ভূষিত হবে। স্থান ও ভূমি নির্বিশেষে সকলে একই ‘মুক্তিকেন্দ্র’ থেকে নির্গত হবে এবং একই ‘সত্য মঞ্জিলে’ উপস্থিত হবে। সীসা ঢেলে তৈরি করা এ প্রাচীরই জাতীয় ঐক্যের মূলকথা। এ ঐক্য যদি চূর্ণ হয়, জাতির মৌলিক উপকরণসমূহে যদি নিজেদের মূল বংশের আলাদা আলাদা হওয়ার, নিজেদের জন্মভূমি ও বাসস্থানের বিভিন্ন হওয়ার এবং নিজেদের পার্থিব স্বার্থের পরস্পর বিরোধী হওয়ার অনুভূতি তীব্রভাবে জেগে উঠে, তাহলে এ ইমারতের প্রাচীরে ফাটল ধরে তার বুনিয়াদ চূর্ণ হওয়া এবং তার সমগ্র মৌলিক উপকরণ ছিন্ন ও বিক্ষিপ্ত হওয়া অপরিহার্য হয়ে পড়ে। একই রাষ্ট্রের মধ্যে যেমন বহু রাষ্ট্র গড়া যায় না, ঠিক তেমনি একই জাতীয়তার মধ্যে একাধিক জাতীয়তা স্থান পেতে পারে না। ইসলামী জাতীয়তার মধ্যে বংশীয়, গোত্রীয়, স্বাদেশিক, ভাষা এবং বর্ণ ভিত্তিক জাতীয়তার সমাবেশ হওয়া সম্পূর্ণ অসম্ভব। এ উভয় জাতীয়তার মধ্যে একটি মাত্র জাতীয়তাই টিকতে পারে-বেশী নয়।

অতএব যে ব্যক্তি প্রকৃত মুসলমান, মুসলমান হয়ে থাকা ও বাস করাই যার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত, তাকে দুনিয়ার অন্যান্য সকল প্রকার জাতীয়তার অনুভূতিকে বাতিল মনে করতে হবে, মাটি এবং রক্তের সকল প্রকার সম্পর্ক-সম্বন্ধকে ছিন্ন ও অস্বীকার করতে হবে। কিন্তু তবুও যদি কেউ ঐসব সম্পর্ক অবিকৃত ও পূর্বের ন্যায় স্থায়ী করে রাখতে চায়, তবে তার হৃদয়, মন ও মস্তিষ্কে ইসলাম যে, প্রবেশ লাভ করেনি; তাতে কোনোই সন্দেহ থাকতে পারে না। বস্তুত এমন ব্যক্তির মন ও মগজের উপর চরম জাহেলিয়াত আচ্ছন্ন হয়ে আছে। কাজেই আজ না হলেও কাল সে অবশ্যই ইসলাম ত্যাগ করবে এবং ইসলামও তাকে ত্যাগ করবে, তাতে কোনোই সন্দেহ নেই।

শেষ নবীর উপদেশ

মুসলমানদের মধ্যে এ প্রাচীন জাহেলী হিংসা-দ্বেষ ও আভিজাত্যবোধ যাতে পুনরায় মাথাচাড়া দিয়ে না উঠে এবং তার কারণে ইসলামের জাতীয় প্রাসাদের ভিত্তি চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে না যায়, এটাই ছিল নবী করীম (সা.)-এর শেষ কালের সর্বাপেক্ষা বড় আশংকা। এজন্যই তিনি বারবার বলতেনঃ

لاَ تُرجِعُوا بَعدى كُفَّارًا يَضْرِبُ بعضكم رشقاب بعضٍ – (بخارى؛ كتاب الفتن)

“আমার পরে তোমরা যেন পুনরায় কুফুরীতে লিপ্ত না হও এবং তার পরিণামে তোমরা যেন পরস্পরকে হত্যা করতে উদ্যত না হও।”

নবী করীম (সা.) জীবনের শেষ হজ্জ্বে-বিদায় হজ্জ্ব উপলক্ষ্যে আরাফাতের ময়দানে বিরাট মুসলিম জনসম্মেলনে বক্তৃতা করে বলেনঃ

“জেনে রাখ! জাহেলী যুগের সমস্ত বস্তুই আমার এ দু’পায়ের নীচে। আরবকে অনারবের উপর এবং অনারবকে আরবের উপর কোনোই শ্রেষ্ঠত্ব দেয়া হয়নি। তোমরা সকলেই আদমের সন্তান এবং আদম মাটি থেকে সৃষ্টি। মুসলমান মুসলমানের ভাই-মুসলমান পরস্পর ভাই ভাই। জাহেলী যুগের সকল প্রকার মতবাদ বাতিল করে দেয়া হয়েছে। এখন তোমাদের রক্ত, তোমাদের উজ্জত এবং তোমাদের ধন-সম্পদ পরস্পরের পক্ষে ঠিক তদ্রুপ হারাম, যেমন আজিকার এ হজ্জ্বের দিন তোমাদের এ মাস ও এ শহরে হারাম-সম্মানিত।”

অতপর ‘মিনা’ নামক স্থানে উপস্থিত হয়ে এটা অপেক্ষাও অত্যন্ত জোরালো ভাষায় পুনরায় এ বক্তৃতা প্রদান করেছিলেন। তখন তিনি এটাও বলেছেনঃ

“শোন! আমার পরে তোমরা পুণরায় পথভ্রষ্ঠ হয়ে পরস্পরে হত্যা কাজে লিপ্ত হবে না। অতি শীঘ্রই তোমরা তোমাদের রবের সাথে মিলিত হবে। তখন তোমাদের নিকট থেকে তোমাদের যাবতীয় কাজ কর্মের হিসাব নেয়া হবে।”

“শুনে রাখ! কোনো নাকবোঁচা নিগ্রোকেও যদি তোমাদের ‘রাষ্ট্রকর্তা’ নিযুক্ত করা হয় এবং সে যদি তোমাদেরকে আল্লাহর বিধান অনুসারে পরিচালিত করে, তবে তোমরা অবশ্যই তার কথা শুনবে এবং মেনে চলবে।”

একথা বলে তিনি সমবেত জনসমুদ্রকে জিজ্ঞেস করলেনঃ “আমি কি তোমাদের নিকট এ বাণী পৌছতে দিয়েছি? জনসমুদ্র বলে উঠলো, হ্যাঁ, হে আল্লাহর রাসূল।” তখন নবী করীম (সা.) বললেনঃ “হে আল্লাহ! তুমি সাক্ষি থেকো।” সমবেত লোকদেরও তিনি বলেলেনঃ উপস্থিত লোকেরা আমার এ বাণী যেন অনুপস্থিত লোকদের কাছে পৌছে দেয়।”

হজ্জ থেকে প্রত্যাবর্তন করে ওহুদ যুদ্ধে যারা শহীদ হয়েছিলেন, তাদের স্থানে উপস্থিত হলেন এবং বললেনঃ “আমার পরে তোমরা শিরকে লিপ্ত হবে, সে আশংকা আমার নেই। কিন্তু তোমরা দুনিয়ার লালসায় লিপ্ত হও নাকি, তাই ভাবনার বিষয়। পরস্পর লড়াই করতে শুরু করো না। তা করলে, তোমরা ধ্বংস হয়ে যাবে, যেমন প্রাচীন জাতিসমূহ ধ্বংস হয়ে গেছে।”

ইসলামের জন্যে সবচেয়ে বড় বিপদ

বিশ্বশ্রেষ্ঠ মহামানব যে বিপদের আশংকা প্রকাশ করেছিলেন, বস্তুতই তা অত্যন্ত ক্ষতিকর এবং মারাত্মক প্রমাণিত হয়েছে। ইসলামের সোনালী যুগ থেকে আজ পর্যন্ত ইসলাম এবং মুসলমানদের উপর যেসব সর্বগ্রাসী বিপদ আবর্তিত হয়েছে, তা সবই এর কারণে সম্ভব হয়েছে। নবী করীম (সা.)-এর ইন্তেকালের কয়েক বছর পরই হাশেমী বংশের রাষ্ট্রীয় কর্তৃত্বের বিরুদ্ধে উমাইয়া গোত্রের হিংসা ও আভিজাত্যবোধের উন্মাত্তনা ফেতনা মাথাচাড়া দিয়ে উঠলো এবং তারা ইসলামের প্রকৃত রাজনীতি ও রাষ্ট্রব্যবস্থাকে চিরতরে চূর্ণবিচূর্ণ করে দিল। অতপর তাই আবার আরবী, আযমী ও তুর্কী জাতি-বিদ্বেষ রূপে আত্মপ্রকাশ করলো এবং ইসলামের রাষ্ট্রীয় ঐক্যকে ধ্বংস করলো। এরপর বিভিন্ন দেশে যেসব ‘মুসলিম রাষ্ট্র’ স্থাপিত হয়েছিল, সে সবের ধ্বংসপ্রাপ্তির মূলেও এ ফেতনার তীব্র প্রভাব বিদ্যমান ছিলো। কিন্তু এ ফেতনা সে দুটিকেও ধ্বংস করেছে। ভারতবর্ষে মোগল ও ভারতীয়দের মধ্যে বিরোধ ও বৈষম্য, মোগল রাষ্ট্রের বুনিয়াদ চূর্ণ করেছে এবং তুর্কী রাষ্ট্র তুর্ক, আরব ও কুর্দিদের পারস্পারিক পার্থক্য ও বিরোধের কারণে ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়েছে।

ইসলামের পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস পড়ে দেখুন, যেখানেই কোনো শক্তিশালী রাষ্ট্র পরিলক্ষিত হবে, তারই বুনিয়াদে জাতি-বর্ণ-দেশ নির্বিশেষে অসংখ্য বংশের বিভিন্ন বংশের এবং বিভিন্ন জাতির রক্ত ধারায় ত্রিবেনী সংগম ঘটেছে-দেখতে পাবেন, তারা রাষ্ট্রনেতা, সেনাধ্ক্ষ্য, লেখক-চিন্তাবিদ এবং যোদ্ধা সকলেই বিভিন্ন জাতি সমুদ্ভুত হবে। ইরাকবাসীকে আফ্রিকায়, সিরিয়ানকে ইরানে, আফগানকে ভারতে (ভারতীয়কে পাকিস্থানে) অত্যন্ত সাহসিকতা, বিশ্বস্থতা, সততা ও নির্ভীকতা সহকারে মুসলিম রাষ্ট্রের কল্যাণকর কাজে নিযুক্ত দেখতে পাবেন। আর তাদের এ খেদমত বৈদেশিক বা পররাষ্ট্রের খেদমত নয়, একান্তভাবে নিজের দেশ হিসাবেই তাঁরা এটা করছেন। মুসলিম রাষ্ট্রসমূহ নিজেদের বীর কর্মধ্ক্ষ্য সংগ্রহ করার ব্যাপারে বিশেষ কোনো দেশ, বিশেষ কোনো গোত্র কিংবা জাতির উপর সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করেনি। যেখানেই প্রতিভাসম্পন্ন মস্তিষ্ক এবং বলিষ্ঠ, দক্ষ্য ও নিপুণ হস্ত হয়ে গেছে, সেখান থেকেই তাদেরকে একত্র করা হয়েছে। তাঁরা প্রত্যেক দারুল ইসলামকেই নিজের দেশ এবং আপন ঘর মনে করেছেন। কিন্তু অহমিকা, স্বার্থপরতা ও জাতি-বিদ্বেষের সর্বগ্রাসী ফেতনা যখন উঠলো, তখন তারা পরস্পরের বিরুদ্ধে হিংসা ও বিদ্বেষের বহ্নি প্রজ্জ্বলিত করতে শুরু করলো। দলাদলি, আত্মকলহ এবং কুটিল ষড়যন্ত্রের সয়লাব বইতে লাগলো। যে শক্তি একদা দুশমনদের বিরুদ্ধে নিয়োজিত ছিল, তাই এখন পরস্পরের বিরুদ্ধে শাণিত হাতিয়ার হয়ে দেখা দিলো। মুসলমানদের মধ্যে সর্বাত্মক গৃহযুদ্ধ শুরু হয়ে গেল এবং বড় বড় মুসলিম শক্তিসমূহ ভূ-পৃষ্ঠ থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল।

পাশ্চাত্যের অন্ধ অনুকরণ

বর্তমান পাশ্চাত্য জাতিসমূহের নিকট শিক্ষাগ্রহণ করে, তাদের অন্ধ অনুকরণ করে দুনিয়ার সকল দেশের মুসলমান বংশ বা গোত্রবাদ এবং স্বাদেশিকতার মহিমা গাইতে শুরু করেছে। আরব দেশ আজ আরব জাতীয়তার জন্য গৌরব করেছে, মিশরবাসী আজ বহু প্রাচীনকালের স্বৈরাচারী ফিরাউনকে জাতীয় নায়ক হিসাবে স্মরণ করছে। তুরস্কবাসী তুর্কীবাদের উত্তেজনায় ইতিহাস প্রসিদ্ধ চেংগিজ ও হালাকু খানের সাথে নিজেদের নিকটতম গভীর আত্মীয়তা অনুভব করছে। ইরানবাসীগণ আজ ইরানী আভিজাত্যবোধের তীব্রতায় দিশেহারা। তদের মতে আরব সাম্রাজ্যবাদের দৌলতেই হুসাইন ও আলী (রা.)-এর মতো লোক জাতীয় হিরো হতে পেরেছেন, অন্যথায় রুস্তম ও এসফানদিয়ারই প্রকৃতপক্ষে তাদের জাতীয় স্মরণীয় বক্তি। বিভাগপূর্ব ভারতেও বহু মুসলমান নিজেদেরকে ভারতীয় জাতীয়তার অন্তর্ভূক্ত বলে মনে করেছে, অনেক লোক আরবে যমযমের সাথে সকল সম্পর্ক ছিন্ন করে ‘গংলার জলের’ সাথে নিজেদের জাতীয় সম্পর্ক স্থাপন করেছে। ভীম এবং অর্জনুকে জাতীয় ‘হিরো’ মনে করেছে। কিন্তু এর কারণ কি? এ মারাত্মক অবস্থার একমাত্র কারণ হচ্ছে এসব অজ্ঞ-মূর্খগণ যেমন নিজেদের তাহযীব-তামাদ্দুনকে মোটেই অনুধাবন করতে পারেনি, ঠিক তেমনি পাশ্চাত্য তাহযীবকেও নয়। মূলনীতি এবং নিগূঢ় সত্য তাদের গোচরীভূত হয়নি। তারা অত্যন্ত স্থুলদর্শী বলে বাহ্যিক চাকচিক্যময় ও চিত্তহারী চিত্র দেখে মুগ্ধ হয়- তার জন্যে পাগল হয়ে উঠে। তারা মাত্রই বুজতে পারে না যে, পাশ্চাত্য জাতীয়তার জন্য যা সঞ্জীবনী সূধা, ইসলামী জাতীয়তার জন্য তাই মারাত্মক হলাহল। পাশ্চাত্য জাতীয়তার ভিত্তি বংশ, দেশ, ভাষা ও বর্ণের ঐক্যের উপর স্থাপিত। এ জন্য যে ব্যক্তি তার স্বজাতীভূক্ত ও একই বংশোদ্ভূত এবং একই ভাষাভাষী নয়-সে যদি তার সীমান্তের এক মাইল দূরেও অবস্থিত হয়, তবুও তার সাথে সকল প্রকার সম্পর্ক ছিন্ন করতে এবং কোনো প্রকার সম্পর্ক না রাখতে বাধ্য হয়। সে দেশে এক জাতির লোক অন্য জাতির প্রকৃত ও একনিষ্ঠ বন্ধু হতে পারে না, এক দেশের অধিবাসী অন্য দেশের প্রকৃত খাদেম হতে পারে না। এক জাতি অন্য জাতির কোনো ব্যক্তির প্রতি এতোটুকু আস্থা রাখতে পারে না যে, সে তার নিজ জাতির স্বার্থকে বাদ দিয়ে তার স্বার্থকে বড় করে দেখতে পারবে। কিন্তু ইসলামী জাতীয়তার ব্যাপারটি এটা থেকে সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র। ইসলামী জাতীয়তার ভিত্তি বংশ-গোত্র এবং স্বদেশের পরিবর্তে মতবাদ-বিশ্বাস ও কর্মাদেশের উপর স্থাপিত। দুনিয়ার সমগ্র মুসলমান সর্বপ্রকার জাতিগত বৈষম্যের উর্দ্ধে থেকে পরস্পর সুখ-দুঃখের অংশীদার এবং সহযোগী ও সহকর্মী হতে পারে। একজন ভারতীয় (বা বাংলাদেশী) মুসলমান মিশরের ততোখানি বন্ধু হতে পারে-অনুগত হতে পারে, যতোখানি পারে সিরিয়া রক্ষার ব্যাপারে। এজন্যই বলছিলাম যে, এক দেশের মুসলমান অন্য দেশের মুসলমানদের মধ্যে ভৌগলিক বা বংশীয়-গোত্রীয় কোনো পার্থক্য নেই। এ ব্যাপারে ইসলামের মূলনীতি এবং পাশ্চাত্য দেশের নিয়ম-নীতি পরস্পর বিরোধী। সে দেশের জন্যে যা শক্তির কারণ, ইসলামের পক্ষে তাতে ভাঙন ও বিপর্যয় ঘটে। পাক্ষান্তরে ইসলামের জন্য যা সঞ্জীবক, পাশ্চাত্য জাতীয়তার জন্য তাই হত্যাকারী বিষ। কবি ইকবাল এ তত্ত্বটি কি চমতকার ভাবে ব্যক্ত করেছেনঃ (এখানে কয়েকটি উর্দু লাইন আছে)।

কোনো কোনো লোক এটাই ধারণা করে যে, স্বাদেশিক কিংবা বংশীয় গোত্রীয় জাতীয়তার অনুভূতি জাগ্রত হওয়ার পরও ইসলামী জাতীয়তার সূত্র মুসলমানদেরকে গভীর ভাবে বাঁধতে পারে। এজন্য তারা নিজেদেরকে এ বলে ধোঁকা দেয় যে, এ উভয় ধরণের জাতীয়তা একই সাথে চলতে পারে না। একের দ্বারা অপরের বিন্দুমাত্রও ক্ষতি হবার সম্ভাবনা নেই। বরং আমরা উভয় প্রকার জাতীয়তা থেকেই অফুরন্ত সুফল লাভ করতে পারি। কিন্তু এটা যে একেবারেই চরম মূর্খতা এবং বুদ্ধিহীনতারই অনিবার্য ফল, তাতে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। একটি দেহে যেমন দুটি মন স্থান লাভ করতে পারে না, তেমনি একটি মনে দুটি জাতীয়তার পরস্পর বিরোধী ও সাংঘর্ষিক ভাবধারার সমন্বয় করাও কিছুতেই সম্ভব নয়। জাতীয়তার অনুভূতি ‘আপন’ ও ‘পরের’ মধ্যে অনিবার্যরূপে পার্থক্যের সীমারেখা অংকিত করে। ইসলামী জাতীয়তার অনিবার্য ও দুর্নিবার প্রভাবে একজন মুসলিম বাধ্য হয়েই মুসলমানকে আপন এবং অমুসলিমকে ‘পর’ বলে মনে করবে। অপরদিকে স্বাদেশিক বা বংশীয় জাতীয়তার অনুভূতির স্বাভাবিক পরিণতিতে আপনার দেশে, নিজের বাংশ বা গোত্রের প্রত্যেকটি মানুষকে আপন এবং অন্য দেশের বা অন্য বংশের লোককে পর বলে মনে করবেই। এ উভয় ভাবধারা-উভয় প্রকার অনুভূতিই একই স্থানে সমন্বিত হতে পারে বলে কোনো বুদ্ধিমান ব্যক্তিই কি প্রমাণ করতে পারে? আপনার দেশের অমুসলিমকে আপনও মনে করবেন-‘পর’ও মনে করবেন, বিদেশী মুসলমানকে দূরবর্তীও মনে করবেন, আবার নিকটবর্তীও-এটা কেমন করে সম্ভব হতে পারে?

هَل يَجتَمِعًا مَعًا ؟ ألَيْسَ مِنْكُم رَجُلٌ رَشِيْدٌ ؟

অতএব একথা পরিষ্কাররূপে বুঝে নিতে হবে যে, মুসলমানদের মধ্যে ভারতীয়, তুর্কী, আফগানী, আরবী, ইরানী, পাকিস্তানী ও বাংলাদেশী প্রভৃতি হওয়ার অনুভূতি জাগ্রত হওয়া ইসলামী জাতীয়তার চেতনা এবং ইসলামী ঐক্যবোধের পক্ষে অত্যন্ত মারাত্মক এবং ক্ষতিকারক। এটা কেবল বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারার ফলই নয়, বাস্তব ক্ষেত্রেও এটা বরাবর অনুষ্ঠিত হতে দেখা গেছে। মুসলমানদের মধ্যে যখন আঞ্চলিক বা বংশীয় জাতীয়তার হিংসা-বিদ্বেষ জাগ্রত হয়েছে, তখনি মুসলমান মুসলমানদের গলায় ছুরি চালিয়েছে, এবং لاَ تَرجعوا بعدى كَفَّارًا يَضْرِبُ بعضكم رِقاَبَ بَعْضٍ “আমার পরে তোমরা কাফেল হয়ে গিয়ে পরস্পরের গলা কাটতে শুরু করো না।”-নবী করীম (সা.)-এ আশংকাকে বাস্তব করেই ছেড়েছে! কাজেই ইসলামী জাতীয়তাকে বাদ দিয়ে অন্য কোনোরূপ জাতীয়তা-ভৌগলিক, গোত্রীয় বা ভাষাভিত্তিক জাতীয়তার প্রচার যদি করতেই হয়, তা ভাল করেই জেনে শুনেই করা আবশ্যক-জেনে নেয়া আবশ্যক যে, এ ধরণের জাতীয়তার মতবাদ শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) কর্তৃক প্রচারিত জাতীয়তার সম্পূর্ণ বিপরীত।

এ ব্যাপারে নিজেকে প্রবঞ্চিত করে বা অন্য লোকদের প্রতারণা ও গোলক ধাঁধায় দিক ভ্রান্ত করে কোনোই লাভ নেই।(রচনাকাল -তরজামানুল কুরআনঃ নভেম্বর-ডিসেম্বর, ১৯৩৩ ইং)।

 

About সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদূদী রহ.