ইসলামী সংগঠন

সম্পুর্ণ সূচীপত্র

ইসলামী সংগঠনে কর্মী পরিচালনা

কর্মী পরিচালনার ক্ষেত্রে পরিচালককে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হয় প্রধানত: তাকে বর্ণিত কাজগুলো করতে হয়:

(১) আদর্শের আলোকে মন মানসিকতা গঠন

স্রষ্টা, বিশ্বজাহান, পৃথিবীতে মানুষের কর্তব্য, অপরাপর মানুষের সাথে তার সম্পর্ক এবং জীবনের পরিণতি সম্পর্কে ইসলাম যেই দৃষ্টিকোণ পেশ করে তা কর্মীর চিন্তাধারায় সঠিকভাবে রোপণ করতে হবে। ব্যক্তিগত আলাপ-আলোচনা, দারসুল কুরআন, দারসুল হাদীস, পাঠ চক্র, ইসলামী বই পুস্তক পড়ানো ইত্যাদির মাধ্যমে ইসলামী জীবন দর্শন ও বিধান সম্পর্কে কর্মীকে ওয়াকিফহাল করে তুলতে হবে।

(২) ইসলামী আন্দোলন ও সংগঠন সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা দান

ইসলামী আন্দোলনের একটি নিজস্ব মিজাজ, কর্মসূচী, কর্মনীতি ও পদ্ধতি আছে। এর ক্রমবিকাশের একটা নিজস্ব ধারা আছে। তেমনিভাবে ইসলামী সংগঠনও অনেকগুলো অনন্য বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। ইসলামী আন্দোলন ইসলামী সংগঠনের এসব বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে কর্মীকে অবশ্যই উত্তমভাবে ওয়াকিফহাল করে তুলতে হবে।

(৩) ইসলামের বুনিয়াদী নির্দেশগুলকে নিজের জীবনে বাস্তবায়িত করার জন্য উদ্বুদ্ধকরণ

ফরয, ওয়াজিব ও সুন্নাতে মুআক্কাদা সমূহের অনুশীলন, হালাল জীবিকা উপার্জন এবং জীবনের সর্বক্ষেত্রে হারাম বর্জন করার এক দুরন্ত মানসিকতা কর্মীর মাঝে সৃষ্টি করতে হবে। এগুলোর গুরুত্ব বুঝাবার সঙ্গে সঙ্গে এগুলো লংঘনের ভয়াভহ পরিণতি সম্পর্কেও কর্মীকেও ওয়াকিফহাল করে তুলতে হবে। তদুপরি অনৈসলামী পরিবেশের প্রভাব উপেক্ষা করে ইসলামের অনুশাসনগুলো অনুসরণ করার জন্য যেই প্রবল ইচ্ছাশক্তির প্রয়োজন তা জাগ্রত করে দেয়ার চেষ্টা করতে হবে।

(৪) মর্ম উপলব্ধি করে নিয়মিত আল কুরআন ও আল হাদীস অধ্যয়নে উদ্বুদ্ধকরণ

আল কুরআন ও আল হাদীস মহা জ্ঞান ভান্ডার। আল কুরআনের সর্বত্র আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের পরিচয়, তার মহাজ্ঞন ও মহাশক্তির বর্ণনা পরিবেশিত হয়েছে। যতোই পড়া যায় ততোই এগুলোর উপলব্ধি মনের গভীরে শিকড় গাড়তে থাকে। যেই ব্যক্তি আল্লাহর মহাশক্তি সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা লাভ করতে পারে তার মাঝে এমন নির্ভীকতা সৃষ্টি হয় যার তুলনা আর কোথাও মেলে না। তদুপরি যেই জীবন বিধান প্রতিষ্ঠার জন্য আমাদেরকে উত্থিত করা হয়েছে তার মূলনীতিগুলো আল কুরআনেই রয়েছে। আল কুরআন পড়েই সেগুলো আমাদের জানতে হবে। আর সেগুলোর প্রয়োগ পদ্ধতি সম্পর্কে অবগতি লাভ করার জন্য প্রয়োজন ব্যাপকভাবে আল হাদীস অধ্যয়ন।

আল কুরআনকে তার ভাষাতেই মানুষের সামনে পেশ করতে হবে এবং সঙ্গে সঙ্গে মানুষের মাতৃভাষায় তার ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করতে হবে। ইসলামী আন্দোলনের একজন কর্মী আল কুরআন পড়েই যাতে তার অর্থ বুঝতে পারে এতটুকু ভাষাজ্ঞান লাভ করার জন্য চেষ্টিত হতে হবে। নিরক্ষর কর্মী দের জন্য একথা প্রযোজ্য নয়। কিন্তু শিক্ষিত যেই কোন কর্মী এই যোগ্যতা অর্জনের জন্য দৃঢ় সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে অগ্রসর হওয়া দরকার। পরিচালক এই ব্যাপারে কর্মীকে বিশেষভাবে উদ্বুদ্ধ করবেন।

(৫) জামাতের সাথে সালাত আদায় করতে উদ্বুদ্ধ করণ

জামাতের সাথে সালাত আদায় করা সুন্নাতে মুআক্কাদা। একাকী সালাত আদায়কারীর চেয়ে জামায়াতে সালাত আদায়কারীর মর্যাদা ২৭ গুন বেশি। সমষ্টিগতভাবে আল্লাহর নিকট মাথা নত করতে একটা আনন্দও আছে। প্রতিবেশীদের খোঁজ খবর নেবার এবং তাদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়ের চমৎকার সুযোগও মিলে মাসজিদে জামায়াতে শরীক হয়ে সালাত আদায়ের মাধ্যমে। তদুপরি সুশৃঙ্খল জীবন-যাপনে অভ্যস্ত করে তোলার ক্ষেত্রে জামায়াতে সালাত আদায় করা অতি উত্তম এক পন্থা। এগুলো ফায়দা হাসিলের জন্য কর্মীকে উৎসাহিত করা খুবই জরুরী।

(৬) আত্ম-সমালোচনায় উদ্বুদ্ধকরণ

সাধারণভাবে মানুষের ভুল হয়। তদুপরি শয়তান তো মানুষকে ধোঁকা দেয়ার জন্য তার পেছনে লেগেই আছে। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন নবীদেরকে শয়তান থেকে মাহফুয রেখেছেন। তাই তাঁরা ছিলেন নিষ্পাপ। কিন্তু আমাদের মতো সাধারণ মানুষের প্রতিদিন অনেক ভুল ভ্রান্তি হয়ে যেতে পারে। পূর্ণভাবে সচেতন না থাকলেই ভুল-চুক হয়ে যায়।

সেই জন্য প্রত্যেক কর্মী দিনের সব কাজ কর্ম শেষ করার পর ঘুমিয়ে পড়ার আগে নিবিষ্ট মনে নিজর সারা দিনের কাজ কর্ম, কথাবার্তা ও আচরণ পর্যালোচনা করে দেখা দরকার। পর্যালোচনায় যদি কোন ভুল ভ্রান্তি কথা মনে পড়ে তার জন্যে আল্লাহর নিকট মাগফিরাত চাইতে হবে এবং এই ভুলের যেন পুনরাবৃত্তি ঘটতে না পারে তার জন্য দৃঢ় সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এভাবে আত্ম-সমালোচনা করতে থাকলে একজন কর্মীর জীবন থেকে ধীরে ধীরে অনেক ভুল ভ্রান্তি দূর হয়ে যাবে। জীবনকে সুন্দর করার এই উত্তম প্রক্রিয়ায় যাতে কর্মী অভ্যস্ত হয়ে ওঠে তার উৎসাহ যোগাবেন পরিচালক।

(৭) দাওয়াতী কাজে উদ্বুদ্ধকরণ

“আদদাওয়াতু ইল্লাল্লাহ”-র গুরুত্ব সঠিকভাবে কর্মীকে বুঝিয়ে দিতে হবে। এই কাজ বাদ দিয়ে অন্যান্য যাবতীয় নেককাজ করলেও নবীরই রিসালাতের দায়িত্ব পালন হয় না বলে আল্লাহ ঘোষণা করেছেন।

আল্লাহর দীন প্রতিষ্ঠার আন্দোলন প্রত্যেক মুমিনের জন্য ফারয। আর দীন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের অন্যতম প্রধান কাজই হচ্ছে দীনের দাওয়াত সঠিকভাবে মানুষের নিকট পেশ করা। দাওয়াতী কাজের গুরুত্ব এবং দাওয়াত প্রদানকারীর নিকট মর্যাদা সম্পর্কে কর্মীকে পূর্ণভাবে সচেতন করে তুলবেন পরিচালক।

(৮) দাওয়াতি কাজে সহযোগীতা দান

দাওয়াত প্রদানকারীর বেশ ভুষা, কথাবার্তা বলার ভঙ্গি, আচরণ, ভাষার মান, যুক্তি প্রদর্শন পদ্ধতি ইত্যাদি কেমন হবে সেই সম্পর্কে কর্মীকে প্রয়োজনীয় হিদায়াত দেওয়া প্রয়োজন। কোন কোন সময় দাওয়াতী কাজের জন্য উপযুক্ত সেই সম্পর্কেও কর্মীকে ধারণা দেয়া প্রয়োজন। অনুপযুক্ত সময়ে কোন ব্যক্তির নিকটে গিয়ে তাকে বিরক্ত করে লাভবান হওয়া যাবে না।

আবার বছরের বিভিন্ন সময়ে কিছু মওসুমী ইসলামী তৎপরতা চলে। সেই সময়ে লোকেরা ইসলামের দিকে অনেকটা মনোযোগী হয়। সেই মওসুমে দাওয়াতী তৎপরতায় বিশষভাবে আত্মনিয়োগ করার জন্য কর্মীকে উদ্বুদ্ধ করা পরিচালকের কর্তব্য।

(৯) দাওযাতী কাজের রিপোর্ট গ্রহণ

কর্মীর টার্গেটকৃত ব্যক্তিরা কারা তা পরিচালকের জন্য থাকা দরকার। তাদের সাথে কতটুকু যোগাযোগ রাখা হচ্ছে, কি বিষয়ে আলাপ-আলোচনা হচ্ছে এবং কি কি বই তাদেরকে দেয়া হচ্ছে সেই সম্পর্কে পরিচালক অবহিত থাকলে পরিচালক কর্মীকে সঠিকভাবে পরামর্শ দিতে পারেন। দাওয়াতী কাজ করতে গিয়ে কর্মীকে যেসব জটিল প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয় সেগুলোর জওয়াবও তাকে সরবরাহ করা দরকার। প্রশ্নের জবাব দিতে না পারলে কর্মী দাওয়াতী কাজের উদ্যম হারিয়ে ফেলে। এসব কারণে কর্মীকে দাওয়াতী কাজে উপরোল্লেখিত পন্থায় সহযোগিতা দান করবেন পরিচালক। সময় সুযোগ মতো তিনি কর্মীর সাথী হয়েও তাকে সহযোগিতা দান করতে পারেন। এসব কথা তখনই প্রযোজ্য- যখন কর্মীর দাওয়াতী কাজের রিপোর্ট নিয়মিত গ্রহণ করা হয়।

(১০) ইনফাক ফী সাবীল্লিলাহ-র জন্য উদ্বুদ্ধকরণ

আল্লাহর পথে অর্থদান যে পথের পাশে হাত পেতে বসে থাকা ভিক্ষুককে দু, এক টাকা দান করার ব্যাপার নয়, এই বিষয়ে কর্মীকে সচেতন করে তুলতে হবে। আল্লাহর দীন প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম করতে হলে নানা খাতে অনেক অর্থ ব্যয় করতে হয়। ইবলীসী শক্তি যেই গতিতে অগ্রসর হচ্ছে তার মুকাবিলা করতে ইসলাম আন্দোলনের গতি তীব্রতর করতে হবে। গতির তিব্রতা বাড়ানোর জন্য অত্যাধুনিক উপায়-উপকরণ ব্যবহার প্রয়োজন। আর এসব উপায়-উপকরণ প্রচুর ব্যয় সাপেক্ষ। এই অর্থের চাহিদা কর্মীদেরকে পূরণ করতে হবে।

একজন কর্মী নিজে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অর্থ দান না করে অন্যদেরকে বেশি বেশি দান করার কথা বলতে পারে না। সেটা আল্লাহর নিকট অত্যন্ত অপছন্দনীয়। এদিকে কর্মীর দৃষ্টিআকর্ষণ করা দরকার। তদুপরি শুভাকাঙ্খীদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পরামর্শও পরিচালক কর্মীদেরকে দেবেন।

(১১) সুশৃঙ্খল জীবন যাপনে উদ্বুদ্ধকরণ

কর্মজীবনের ভারসাম্যহীনতা উচ্ছঙ্খলতার নামান্তর একজন জীবন্ত মানুষ হিসাবে কর্মীকে প্রতিদিন অনেক রকমের কাজের দিকে মনোযোগ দিতে হয়। হালাল জীবিকা উপার্জনের সংগ্রামে তাকে সময় দিতে হয়। পরিবারের বহুমুখী কাজ তার আঞ্জাম দিতে হয়। স্ত্রী, পুত্র, কন্যা, আব্বা, আম্মা ও অন্যান্য আপনজনের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রেও তাকে ভূমিকা পালন করতে হয়। এসব কিছু সামলাবার সাথে সাথে তাকে তার সময়ের একটি বিরাট অংশ আল্লাহর দীন প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নিয়োজিত করতে হয়। জীবনে যাদের শৃঙ্খলা নেই এবং সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করার অভ্যাস নেই তারা ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে এবং জীবনে অনেক ক্ষেত্রেই নানা সমস্যার জালে জড়িয়ে পড়ে। আল্লাহর দীন প্রতিষ্ঠার সংগ্রামকে প্রাধান্য দিয়ে সুশৃঙ্খলভাবে যাবতীয় কাজ আঞ্জাম দেয়ার মানসিকতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে পরিচালককে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে হবে।

(১২) সময়-সচেতনতা সৃষ্টি

মানুষের আয়ু বলতে বুঝায় একটি নিদিষ্ট মুহূর্ত থেকে আর একটি নিদিষ্ট মুহূর্ত পর্যন্ত নির্ধারিত সময়। এই সময় শেষ হয়ে গেলে বলে কয়ে দেন দরবার করে এই পৃথিবীর অঙ্গনে আরো কিছুদিন বেঁচে থাকার কোন সুযোগ নেই। সময় সীমিত, অথচ কাজ অনেক। সময়-সচেতন হলে অনেক কাজই আমরা সম্পন্ন করে ফেলতে পারি। জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে কর্মময় করে তোলার দৃঢ় সিদ্ধান্ত নিলেই এই সীমিত সময়ে অনেক কাজ করা যায়। অলসতা ত্যাগ করে সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করার অভ্যাস সৃষ্টি প্রয়োজন। সময়ানুবর্তীতাই সময় বাঁচাবার একমাত্র উপায়। একটি কাজ যথাসময়ে সম্পন্ন করলেই আরেকটি কাজ সঠিক সময়ে করার সুযোগ পাওয়া যায়। তা না হলে কাজই এলোমেলো হয়ে যায় এবং কতগুলো কাজে একেবারে হাতই দেয়া যায় না। তাই পরিচালকের কর্মীর মাঝে সময়-সচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্রচেষ্টা চালানো দরকার।

(১৩) পরিচ্ছন্ন মনের অধিকারী হওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধকরণ

মনের পরিচ্ছন্নতা অর্জনের জন্য কর্মীর মন থেকে হিংসা বিদ্বেষ, পরশ্রীকাতরতা, সন্দেহপ্রবনতা, পরনিন্দা প্রবণতা, দোষ অন্বেষণ প্রবণতা, অপছন্দনিয় কিছু দেখলেই খুঁত খুঁত করার প্রবণতা, তিলকে তাল করার প্রবণতা এবং কোন কথা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির নিকট অথবা যথার্থ ফোরামে না বলে এখানে ওখানে বলে বেড়ানোর প্রবণতা মন থেকে উপড়ে ফেরতে হবে। কর্মীকে খেয়াল রাখতে হবে যে নবী-রসূল ছাড়া কেউ ভুলের ঊর্ধ্বে নন। ভুল ভ্রান্তি মানুষের নিত্য সংগী। তার আরো মনে রাখতে হবে যে অবচেতনভাবে সে নিজেও কোন না কোন ভুলচুক অবশ্যই করছে। করো কোন ভুল ভ্রান্তি স্বাভাবিকভাবে চোখে পড়লে তা এখানে ওখানে চর্চা না করে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে দেখিয়ে দিলেই ব্যক্তির প্রতি ইহসান করা হয়। কিন্তু সেই ব্যক্তির অজ্ঞাতে বিভিন্ন ব্যক্তির নিকট তার ভুল-ভ্রান্তি চর্চা করা তার প্রতি বড়ো রকমের যুলম।

প্রকৃতপক্ষে মাছি যেমন ময়লার ওপর বসে ভন্ ভন্ করে মনের পরিতৃপ্তি প্রকাশ করে, একজন অপরিচ্ছন্ন মনের অধিকারী ব্যক্তিও অন্যের দোষ ত্রুটি চর্চা করে সেই রকম তৃপ্তি পায়।

কর্মীর মনের এই অপরিচ্ছন্নতা দুর করার জন্য আল কুরআন এবং আল হাদীসের শিক্ষার সাথে তাকে পরিচিত করে তোলা পরিচালকেরই দায়িত্ব।

(১৪) কাজের পরিকল্পনা সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা দান

পরিকল্পনার লক্ষ্য, পরিকল্পনার বৈশিষ্ট্য এবং পরিকল্পনা বাস্তবায়নে করণীয় সম্পর্কে কর্মীকে সুস্পষ্ট ধারনা দেয়া প্রয়োজন। পরিকল্পনার তাৎপর্য উপলব্ধি করতে না পারলে গৃহীত পরিকল্পনার প্রতি কর্মীর সঠিক দৃষ্টি ভঙ্গি গড়ে ওঠে না এবং তা বাস্তবায়নের জন্য সঠিক ভূমিকাও সে পালন করতে পারে না। তাই কর্মীর নিকট পরিকল্পনা সুস্পষ্টভাবে ব্যক্ত হওয়া দরকার।

(১৫) সুনির্দিষ্ট দায়িত্ব অর্পণ

সংগঠনের কাজের বিভিন্ন বিভাগ থাকে। কর্মীর নৈতিক, মানসিক এবং দৈহিক যোগ্যতা অনুযায়ী কর্মবণ্টন করতে হয়। কর্মবণ্টন করে দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যক্তিকে তার করণীয় সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা দিতে হয়। সঠিকভাবে নিজের কর্তব্য চিহ্নিত করতে পারলে কর্মী সহজভাবে ও নি:সংশয় হয়ে কাজ করতে পারে। যেই কর্মীর ওপর কোন বিভাগের কাজ অর্পণ করা হয় না সে ক্ষেত্রে মূল কাজ অর্থাৎ দাওয়াতী কাজই যে তার কর্তব্য তাও তার নিকট সুস্পষ্ট থাকা প্রয়োজন। তা না হলে ভুল ধারণাবশত: সে নিজেকে বেকার কর্মী ভাবতে পারে। কোন বিভাগের দায়িত্ব যাকে দেয়া হয় তাকে কিন্তু দাওয়াতী কাজ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয় না, বরং দাওয়াতী কাজের ওপরে অতিরিক্ত কাজ চাপানো হয়। পুরা বিষয়টি সকল কর্মীর নিকট পরিষ্কার করে তোলা পরিচালকেরই কাজ।

(১৬) দায়িত্ব পালনে উদ্বুদ্ধকরণ

শুধু কর্মবণ্টন করে দেয়াই যথেষ্ট নয়। কাজের গুরুত্বটাও কর্মীর নিকট বিশ্লেষণ করা দরকার আর কাজ সুচারুরূপে সম্পন্ন হওয়ার ওপর যে গৃহীত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অনেকটুকু নির্ভরশীল এটা তাকে বুঝতে হবে। তদুপরি বর্তমান পরিকল্পনার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নই যে পরবর্তী পরিকল্পনার পটভূমি রচনা করবে এই সম্পর্কেও কর্মীকে সচেতন করে তুলতে হবে আবার বর্তমানেই যে পরবর্তী পরিকল্পনাকে এক ধাপ নীচে সীমাবদ্ধ করে দেবে সেই ধারণাও তার থাকতে হবে।

(১৭) কাজের তদারক করণ

নিদিষ্ট সময়ে অন্তর কর্মীর কাজের দেখাশুনা করা দরকার। কাজ সম্পাদনকালে কোন ভুলচুক হয়ে থাকলে তাদারকের সময় তা ধরা পড়ে এবং সেই মর্মে কর্মীকে পরামর্শ দেয়া সম্ভব হয়। এতে করে ভুলের মাত্রা বাড়তে পারে না। কাজের বরকতও বিনষ্ট হয় না। তদারকের এই দায়িত্ব পরিচালককেই পালন করতে হবে।

(১৮) কাজের রিপোর্ট গ্রহণ

নিদিষ্ট মেয়াদের জন্যই করতে দেয়া হয় না। মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে কাজ সম্পাদনের রিপোর্ট আদায় করতে হয়। কোন কর্মীর ওপর কোন কাজ অর্পণ করে নিদিষ্ট সময়ে পরিচালক যদি কাজের রিপোর্ট আদায় না করেন তাহলে বুঝতে হবে যে পরিচালকের নিকটই সেই কাজ গুরুত্ব পায়নি। ছোট হোক বড় হোক প্রদত্ত সকল কাজের রিপোর্ট পরিচালক অবশ্যই আদায় করবেন।

(১৯) রিপোর্ট পর্যালোচনা

কাজের রিপোর্ট আদায় করে তা ফাইলবন্দি করে রাখাতে ফয়দা নেই। কাজের যেই টার্গেট ছিলো তার সাথে কৃত কাজ তুলনা করে দেখতে হবে। এই তুলনার পর যেই ফল দাঁড়ায় তা সকলকে অবহিত করতে হবে। এভাবেই কর্মীদেরকে কাজের জন্য কমতি সম্পর্কে ওয়াকিফহাল করা এবং আরো বেশি কাজ করার জন্য তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা যেতে পারে।

(২০) সমাজ কর্মীরূপে ভূমিকা পালনে উদ্বুদ্ধকরণ

রুগ্ন মানুষের সেবা, দুর্ঘটনা কবলিত মানুষের আশু চিকিৎসার ব্যবস্থা, মৃত ব্যক্তির আত্মীয়-সজনের খোঁজ খবর নেয়া, মৃত ব্যক্তির জানাযা ও দাফন কাজে অগ্রণী ভূমিকা পালন, মাসজিদের তত্বাবধান, রাস্তাঘাট মেরামত, পুল নির্মাণ, মক্তব ইত্যাদি পরিচালনায় অংশগ্রহণ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলতে ইসলামী পরিবেশ সৃষ্টির প্রায়াস, সমাজ বিরোধী কার্যকলাপ সম্পর্কে পত্র-পত্রিকায় চিঠি প্রেরণ, অনৈতিক কার্যকলাপ বন্ধের জন্য জনমত গঠন, ঝগড়া বিবাদ মীমাংসা, বিধবা ও ইয়াতীমের তত্বাবধান, বিয়ে শাদীর ব্যবস্থা, উদ্যোগী ব্যক্তিদেরকে স্বাবলম্বনে সহযোগীতা দান প্রভৃতি কাজের মাধ্যমে কর্মীকে সমাজকর্মীরূপে আত্মগঠনে উদ্বুদ্ধ করা পরিচালকের অন্যতম কর্তব্য।

(২১) ব্যাপক পরিচিতি অর্জনে উদ্বুদ্ধকরণ

কর্মীগণ এলাকার বিভিন্ন শ্রেণীর লোকদের নিকট পরিচিত হওয়া দরকার। কর্মীকে দেখেই আসলে লোকেরা আন্দোলন ও সংগঠন সম্পর্কে তাদের মতামত গড়ে তোলে। কর্মীর বৈশিষ্ট্য দেখেই তারা সংগঠনের বৈশিষ্ট্য বুঝতে চেষ্টা করে।

কর্মী অত্যন্ত সাধারণ ব্যক্তি হলেও তার মাঝে যদি আদর্শের সঠিক প্রতিফলন ঘটে তাহলে তার ব্যক্তিত্ব অন্যদের ওপর প্রভাব রাখতে সক্ষম হয়। ব্যক্তি চরিত্র দ্বারা প্রবাবিত না হয়ে সহজে মানুষ কোন সংগঠনে আসে না। তাই ব্যক্তি চরিত্রকেই মানুষের সামনে উপস্থাপন করতে হবে। এই জন্য প্রয়োজন কর্মীর সব মহলে যাতায়াত এবং পরিচিতি অর্জন। এ সম্পর্কে পরিচালক কর্মীকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেবেন।

(২২) কর্মীকে সুবক্তারূপে গড়ন

এমন হতে পারে যে, এলাকার অধিকাংশ লোক অশিক্ষিত অথবা অল্প শিক্ষিত। সেই কারণে ইসলামী সাহিত্য পড়া অথবা পড়ে তার মর্ম উপলব্ধি করা তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। অথচ তাদেরকে আদর্শিক জ্ঞান দিতেই হবে। বক্তৃতা ভাষণের মাধ্যমেই এই কাজ করতে হবে। তাই কর্মীকে সুবক্তা হতে হবে। আকর্ষণীয়ভাবে নিজের বক্তব্য লোকদের সামনে পেশ করার যোগ্যতা কর্মীর থাকা চাই। শ্রোতাদের সমঝশক্তির সাথে সংগতিশীল হতে হবে তার ভাষার মান।

একজন ইসলামী কর্মীর সুবক্তা হওয়ার মানে এই নয় যে তার বাচনভঙ্গি ভালো। বাচন ভঙ্গির গুরুত্ব অবশ্যি আছে। তবে তার বক্তৃতায় আল কুরআন ও আল হাদীসের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাণীও উদ্ধৃত হওয়ার দরকার। পরিচালককে মনে রাখতে হবে যে তিনি যত বেশি সংখ্যক সুবক্তা তৈরি করতে পারবেন তাঁর সংগঠনের কাজ ততো বেশি গণ মানুষের স্থান করে নিতে সক্ষম হবে।

(২৩) স্ব-চালিত কর্মীরূপে আত্মগঠনে উদ্বুদ্ধকরণ

আল্লাহ প্রদত্ত জীবন বিধান, রাসূলের প্রদর্শিত কর্মপন্থা এবং খিলাফাতের দায়িত্ব পালনের জন্য মানুষের সৃষ্টির কথা অবহিত হওয়ার পর কোন ব্যক্তির পক্ষে এটা শোভনীয় নয় যে কারো কাছ থেকে নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত সে নড়াচড়া করবে না। বিশেষ কাজের জন্য বিশেষ নির্দেশ তো আসবেই। কিন্তু আল্লাহর দিকে লোকদের আহবান জানানোর কাজ তো আমরণ করে যাবার কাজ। ঈমান আনার লোকদের সঙ্গে সঙ্গেই তো এই কাজের দায়িত্ব প্রত্যেকের কাঁধে এসে পড়েছে। এর জন্য পরিচালকের নিকট থেকে নির্দেশ আসা বা না আসার প্রশ্নই অবান্তর। দাওয়াতী কাজ বা অন্য কোন অর্পিত কাজ সুন্দরভাবে সম্পন্ন হওয়ার জন্য কর্মীর স্বত:স্ফূর্ততা খুবই জরুরী। ঠেলে ঠেলে কাজ করানো খুবই বিরক্তির ব্যাপার।

(২৪) নতুন কর্মী গঠনের জন্য কর্মীকে উদ্বদ্ধকরণ

একজন কর্মীর তার সহকর্মীর সংখ্যা বাড়ানো লক্ষ্যে আপ্রাণ চেষ্টা করা দরকার। যাদের মধ্যে সে দাওয়াতী কাজ করেছে। , যারা অনুকূল সাড়া দিচ্ছে এবং আন্দোলনের কাজে আত্মনিয়োগ করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে তাদে কে আর্দশ, আন্দোলন ও সংগঠনের চাহিদা মুতাবিক গড়ে তোলার দায়িত্ব তাকেই পালন করতে হবে। প্রত্যেক কর্মী নতুন কর্মীবাহিনী গড়ে ওঠে এবং তাদের মিলিত প্রচেষ্টার ফলে গণ-ভিত্তি রচিত হয়। নতুন কর্মী সৃষ্টি মানবদেহের নতুন রক্ত কণিকা সৃষ্টির মতোই গুরুত্বপূর্ণ। আন্দোলনের অগ্রগতি ও ধারাবাহিকতা নতুন কর্মী গঠনের ওপরই নির্ভরশীল।

(২৫) সংগঠনের বক্তব্য যথাশীঘ্র অবহিতকরণ

সংগঠনের অভ্যন্তরে, জাতীয় জীবনে বা আন্তর্জাতিক ময়দানে বড়ো রকমের কোন ঘটনা ঘটলেই কর্মীর মনে প্রশ্নের উদয় হয় এবং সেই সম্পর্কে সংগঠনের বিশ্লেষণ শুনার জন্য উদগ্রীব হয়ে ওঠে। এই সম্পর্কে কর্মীর মনে যেই ধারণঅ থাকে তা শিীতল হতে শুরু করে। সেই জন্য এই জাতীয় বিষয়ে সল্পতম সময়ের মধ্যে সংগঠনের বক্তব্য জেনে নিয়ে তা কর্মীকে জানিয়ে দেয়া পরিচালকের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

(২৬) নিষ্ক্রিয় কর্মীর সাথে যথাশীঘ্র যোগাযোগ স্থাপন

কোন করণে মনে খটকা সৃষ্টি হওয়া, কারো আচরণে রুষ্ট হওয়া, কোন প্রপাগাণ্ডায় প্রভাবিত হওয়া, পরিস্থিতির ভয়াবহতায় ভীত হওয়া, কোন অবাঞ্ছিত ঘটনায় ব্যথিত হওয়া, নিজের জীবনে কোন অপরাধ ঘটে যাওয়া, ব্যক্তিগত জীবনে কোন বড়ো রকমের সমস্যা সৃষ্টি হওয়া-এ ধরনের কোন কারণে একজন কর্মী নিষ্ক্রিয় হয়ে যেতে পারে। পরিচালক কোন কর্মীর এমন অবস্থার কথা শুনলেই শিগগির তার সাথে দেখা করে আসল কারণ চিহ্নিত করার চেষ্টা করবেন এবং এই অবস্থায় করণীয় বিষয়ে আল কুরআন এবং আল হাদিসের শিক্ষা সম্পর্কে তাকে ওয়াকিফহাল করে তুলবেন। বারবার সাহচর্য দান করে তাকে পূর্ব মানে ফিরিয়ে আনার জন্য প্রচেষ্টা চালাবেন। সংগঠনের একজন কর্মী নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার মানে হচ্ছে সংগঠন নামক দেহের একটা অংশ অবশ হয়ে যাওয়া। অন্যদিকে ব্যক্তির জন্য এটা দুর্ভাগ্যজনক। এই দুর্ভাগ্যের হাত থেকে কর্মীকে উদ্ধার করার জন্য দরদ ভরা মন নিয়ে চেষ্টা চালাবেন পরিচালক।

(২৭) পরামর্শ শ্রবণ

ইউনিট ভিত্তিক কাজের ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা জরুরী হলে কর্মীদের সাথে পরামর্শ করা প্রয়োজন। প্রত্যেক কর্মীর মাথাতেই কিছু চিন্তা থাকে। সবগুলো চিন্তা বিনিময় করে সংগঠনের ঐতিহ্যের আলোকে সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়ার চেষ্টা করতে হয়। সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে কর্মীর কাছে পরামর্শ চাইলে সে গভীরভাবে ভাবতে শুরু করে। এভাবে তার চিন্তাশক্তির বিকাশ ঘটে। আর সংগঠনের কোন বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে অংশগ্রহণ করতে পারলে সংগঠনের সাথে তার মনস্তাত্ত্বিক সম্পর্ক আরো গভীর হয়।

(২৮) অগ্রসর কর্মীকে সাংগঠনিক প্রশিক্ষণ দান

অগ্রসর কর্মীকে মিটিং পরিচালনা, পরামর্শ ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ, নথিপত্র সংরক্ষণ, হিসাব সংরক্ষণ ইত্যাদি সম্পর্কে ওয়াকিফহাল করে তুলতে হবে। সম্ভব হলে তার পরিচালনাধীন নতুন কর্মী ইউনিট গঠনের উদ্যোগ নিতে হবে।

About এ. কে. এম. নাজির আহমদ