সুদ সমাজ অর্থনীতি

প্রধম সংস্করণ

ভুমিকা

অধ্যাপক মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন রচিত “সুদ সমাজ অর্থনীতি” বইটির পাণ্ডুলিপি পড়লাম। আমার মতে, আর্থ-সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে সুদের ওপর এত বিস্তারিত আলোচনা বিশেষ করে বাংলা ভাষায় এটিই প্রথম। সাতটি অধ্যায়ে বিভক্ত এই বইটিতে সুদের বৈশিষ্ট্য থেকে শুরু করে এর নৈতিক ও সামজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক এবং আন্তর্জাতিক ক্ষতিকর প্রভাবসমূহ যুক্তিসহ চমৎকরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। পুঁজি গঠন, বিনিয়োগ ও উৎপাদনের গতিকে শ্লথ করে দিয়ে এবং অর্থনৈতিক বৈষম্য ও শোষণের হাতিয়ার হয়ে এই সুদ সমাজের ভিতরে ও বাইরে কিভাবে অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা আনয়ন করে তার একটি অনবদ্য চিত্র ফুটে উঠেছে এই বইতে।

আসলে এর বিপরীত কোন ফলাফল আশা করাটাই ছিল অবাস্তব। কেননা ১৪ শত বছর পূর্বেই আল-কুরআনে (রিবা) সম্পূর্ণভাবে হারাম ঘোষণা করা হয়েছে। বইটির আলোচনা থেকে দুটো জিনিস স্পষ্ট হয়ে উঠেছেঃ (ক) উক্ত (নির্দেশ) শুধুমাত্র মুসলমানদের জন্যই প্রযোজ্য এটা মনে করা সংকীর্ণ মনের পরিচায়ক হবে এবং (খ) সুদের কু-প্রভাব থেকে সমাজ তথা দেশকে মুক্ত করার জন্য কেবলমাত্র অর্থনীতিবিদরাই দায়িত্ব বহন করবেন তাও হবে অযৌক্তিক। রিবামুক্ত অর্থনীতি শোষণহীন সমাজ ব্যবস্থা কায়েমের পূর্বশর্ত, এই সত্যটি আমরা ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই যত তাড়াতাড়ি খোলা মন নিয়ে উপলব্ধি করতে পারব ততই মঙ্গল।

তবে, সুদের আর্থ-সামাজিক কুফলসমূহ সকল সচেতন মহলের সামনে তুলে ধরা উল্লেখিত লক্ষ্য অর্জনের প্রাথমিক ধাপ মাত্র। এগিয়ে যেতে হবে আরও অনেক দূর। সুদের কার্যকরী বিকল্প (লাভ-লোকসানের ভিত্তিতে কারবার) পদ্ধতি দক্ষতা, নিষ্ঠা, দৃঢ়তা এবং সর্বোপরি আন্তরিকতার সাথে চালু করতে হবে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের যেখানে যেখানে এই পদ্ধতি কার্যকরীভাবে প্রয়োগ করা হচ্ছে সেখানকার গবেষণালব্ধ ফলাফল সকল সচেতন ব্যক্তির সামনে উপস্থাপন করতে হবে এবং এর ভিত্তিতে প্রায়োগিক গবেষণা চালাতে হবে।

বইটির বহুল প্রচারের মাধ্যমে এরূপ একটি পরিবেশ সৃষ্টি হোক এই কামনা করছি।

প্রফেসর মুহাম্মদ আবদুল হামিদ

ভাইস চ্যান্সেলর

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়া

মাঘ ২৬,১৩৯৮

শাবান, ০৪, ১৪১২

ফেব্রুয়ারী ০৯, ১৯৯২

প্রকাশকের কথা

বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও ইসলামিক ইকোনমিকস রিসার্চ ব্যুরোর প্রাক্তন চেয়ারম্যান অধ্যাপক মুহাম্মদ শরীফ হুসাইনের ‘সুদ সমাজ আর্থনীতি’ নামক বইটি আমাদের প্রকাশনা তালিকায় এক অনন্য সংযোজন। বইটি সুদের ওপর বাংলা ভাষায় রচিত ব্যাপক চিন্তা, গভীর অধ্যয়ন ও গবেষণার ফসল। ঈমান-আকিদা ও আর্থ-সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে সুদের অভিশাপ যে কত ভয়াবহ তা অত্যন্ত নিখুঁত ভাষায় বৈজ্ঞানিক যুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে তুলে ধরার চেষ্ট করা হয়েছে বইটিতে। আমরা আশা করি সম্মানিত পাঠকগণ এ বই থেকে সুদ সম্পর্কে ব্যাপকভাবে জানতে পারবেন। আমাদের এ প্রকাশনাটি ছাত্র, শিক্ষক, অর্থনীতিবিদ ও গবেষকদের উপকারে আসবে বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস।

অধ্যাপক শরীফ হুসাইনের এ মূল্যবান পুস্তকটি প্রকাশের জন্য ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশন অর্থ যোগান দেয়ায় এর প্রকাশনা সম্ভবপর হলো। আমরা ব্যুরোর পক্ষ থেকে তাই ব্যাংক ফাউন্ডেশনকে কৃতজ্ঞতা জানাই।

সম্মানিত পাঠকবৃন্দ এ বই পাঠে উপকৃত হলে আমাদের প্রচেষ্টা সার্থক হয়েছে বলে ধরে নেব। আল্লাহ পাক সকলের অবদান কবুল করুন। আমীন।

মীর কাসেম আলী

চেয়ারম্যান

ইসলামিক ইকোনমিক্স রিসার্চ বুরো

ঢাকা।

ঢাকা

মাঘ ২৬, ১৩৯৮

শাবান ০৪, ১৪১২

ফেব্রুয়ারী ০৯, ১৯৯২

লেখকের কথা

সর্বপ্রথম পরম করুণাময় আল্লাহ্ তায়ালার শুকরিয়া আদায় করছি যে, তিনি সুদের সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক ফলাফল সম্পর্কে সামান্য কিছু জানা এবং তা প্রকাশ করার তৌফিক দিয়েছেন।

বস্ত্ততঃ ইসলামের প্রভাবেই আরবের অসভ্য জাতি একদিন মানবতাকে অর্থনৈতিক মুক্তি ও উন্নয়নের পথ দেখিয়েছিল; গুরুর আসনে বসে তারা ইউরোপকে জ্ঞান-বিজ্ঞান শিক্ষা দানে সক্ষম হয়েছিল। ইসলাম-পরবর্তী আরবের অর্থনৈতিক অবস্থা এবং স্পেন-করডোভার স্বর্ণোজ্জ্বল ইতিহাসই এর জ্বলন্ত সাক্ষী। কিন্তু শত শত বছরের রাজনৈতিক পরাধীনতা, অর্থনৈতিক শোষণ এবং সাংস্কৃতিক আগ্রাসন মুসলিম জাতিকে তার আদের্শ থেকে কেবল দূরে সরিয়েছে তাই নয়, বরং এই মহান আদর্শের সৌন্দর্যকেও বিস্মৃত করে দিয়েছে এবং কোন কোন ক্ষেত্রে বিকৃত ধারণা সৃষ্টি করতেও সক্ষম হয়েছে। পশ্চাত্যের পুঁজিবাদী ব্যবস্থা এর স্বার্থেই ইসলামী বিধি-বিধানের সত্যতা, কার্যকারিতা ও এর কল্যাণধর্মিতা সম্পর্কে নানা সংশয় ও প্রশ্ন সৃষ্টি করেছে।

এমনি একটি বিষয় হচ্ছে সুদ। ইসলামী শরীয়তে হারাম ঘোষিত কাজের মধ্যে সুদ সম্পর্কিত নিষেধাজ্ঞা সবচেয়ে বেশী কঠোর। কিন্তু পাশ্চাত্যের পুঁজিবাদী অর্থনীতির প্রভাবে সুদ আজ সারা দুনিয়ায় অর্থনীতিকে ছেয়ে ফেলেছে। পুঁজিবাদের প্রবক্তাগণ তাদেরেই স্বার্থে হারাম হওয়ার ব্যাপারে নানা ধরনের বিভ্রান্তি ও প্রশ্ন সৃষ্টি করেছে এবং এখনও করে চলেছে। এসব প্রশ্ন ও মন্তব্যের ধরন হচ্ছে নিম্নরূপঃ

-ইসলাম যে ‍সুদ হারাম করেছে তা তৎকালে আরবে প্রচলিত সুদ; পরবর্তীকালের সুদ সেই নিষেধাজ্ঞার আওতাভুক্থ নয়;

-ইসলাম কেবল ভোগ্য ঋণের ওপর সুদের লেনদেনকে নিষিদ্ধ করেছে; উৎপাদনশীল ঋণের সুদকে ইসলাম হারাম করেনি;

-কুরআন মাজীদ শুধুমাত্র চক্রবৃদ্ধি হারের সুদকে হারাম করেছে, সরল সুদকে নয়;

-ইসলাম উচ্চ হারের (usury) সুদকে হারাম করেছে, নিম্ন হারের সুদকে (interst) হারাম করেনি;

-ইসলাম মহাজনী সুদকে হারাম করেছে, আধুনিককালের ব্যাংকে প্রচলিত সুদকে ‍নিষিদ্ধ করেনি এবং

-আধুনিককালে সুদ ছাড়া অর্থনীতি চলতে পারে না ইত্যাদি।

আলহামদু লিল্লাহ, বিগত কয়েক দশকে পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে বিদেশী গোলামীর জিঞ্জির থেকে মুক্ত হবার পর মুসলমানদের মধ্যে ইসলামী জাগরণ পরিলক্ষিত হচ্ছে। মুসলিম গবেষকগণ ইসলামের বিভিন্ন দিক নিয়ে ব্যাপক গবেযণা পরিচালনা করেছেন। সুদ, যাকাত তথা ইসলামী অর্থনীতির ওপরও ব্যাপক গবেষণা চলছে। এসব মনীষীদের গবেষণায় দেখা যায়, ইসলাম কোন বিশেষে ধরনের সুদকে হারাম করেনি বরং সকল প্রকার সুদকেই নিষিদ্ধ করেছে; সুদের হার উচ্চ হোক না নিম্ন হোক, চক্রবৃদ্ধি সুদ হোক বা সরল সুদ হোক, ইসলামের সব সুদই হারাম। গবেষকগণ প্রমাণ করে দেখিয়েছেন যে, তদানীন্তন আরবে কেবল ভোগ্য ঋণের সুদই চালু ছিল তা নয়, বরং বাণিজ্যিক ঋণ তথা উৎপাদনশীল ঋণের ওপরও সুদের প্রচলন ছিল। বিদায় হজ্জের ঐতিহাসিক ভাষণে নবী (সাঃ) সুদকে হারাম ঘোষণার সাথে সাথে তাঁর চাচা আব্বাস ইবনে আব্দুল মুত্তালিবের পাওনা যাবতীয় সুদ ছেড়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। আব্বাসের (রাঃ) নিকট থেকে বনু সাকিফ গোত্র যে ঋন নিয়েছিল তা ভোগের জন্য নয়, বরং ব্যবসার উদ্দেশ্যেই নিয়েছিল। রাসূল (সাঃ) সে সুদকেও নিষিদ্ধ করেছেন।

গবেষকগণ এটাও প্রমাণ করেছেন যে, মাহজনী সুদী কারবার আর আধুনিক ব্যাংকের সুদী কারবারের মধ্যে প্রকৃতিগতভাবে কোন পার্থক্য নেই; বরং বিক্ষিপ্ত ও বিচ্ছিন্ন মহাজনী সুদের তুলনায় আধুনিক ব্যাংকের সংগঠিত সুদ অনেক বেশি ক্ষতিকর ও ধ্বংসাত্মক।

সুদমুক্ত ব্যাংক ব্যবস্থা ও অর্থনীতি চলার জন্য ইসলাম যে পথ দেখিয়েছে, গবেষকগণ তারও বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেছেন।

ইসলামী চিন্তাবিদ. উলামায়ে কিরাম, ইসলামী অর্থনীতিবিদ ও গবেষকগণ সুদ হারাম হবার করণ সম্পর্কে ব্যাপক গবেষণা ও গভীর অধ্যয়ন করেছেন। এরা সুদকে মানবতার জন্য একটি জঘন্য অভিশাপরূপে চিহ্নিত করেছেন। সম্প্রতি পাশ্চাত্যের অর্থনীতিবিদগণও সুদের মারাত্মক ধ্বংসকারী ক্ষমতা প্রত্যক্ষ করে শিউরে উঠেছেন। এ সব অর্থনীতিবিদ গবেষকদের আলোচনায় সুদের যে মারাত্মক কুফলের উল্লেখ করা হয়েছে তারই একটি সংক্ষিপ্ত চিত্র তুলে ধরা চেষ্টা করা হয়েছে এ ক্ষদ্র পুস্তকে। আলোচনার ভাষা যথাসম্ভব সহজ করার চেষ্টা করা হয়েছে যাতে সাধারণ পাঠকগণও এ থেকে উপকৃত হতে পারেন।

বইটি লেখার কাজ প্রথম হাতে নিই ১৯৮৮ সালের শেষ দিকে। বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার থেকে প্রকাশিত ‘মাসিক পৃথিবী’ ধারাবাহিক কটি সংখ্যায় লেখাটি প্রকাশ করে। মাসিক পৃথিবীর অনেক পাঠক এবং সেন্টারের সম্মানিত ডাইরেক্টর অধ্যাপক এ. কে. এম. নাজির আহমদের পরামর্শে লেখাটি পুস্তকাকারে প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহণ করি। ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিঃ এর পরিচালকমণ্ডলীর সভাপতি এবং ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের সভাপতি কমডোর (অবঃ) আতাউর রহমান বইটির পণ্ডলিপি দেখেন এবং ফাউন্ডেশন তহবিল থেকে অর্থ সাহায্য দিয়ে ইসলামিক ইকোনকিস রিসার্চ ব্যুরোকে বইটি প্রকাশের অনুরোধ করেন। ব্যুরো এ দায়িত্ব গ্রহণ করে। মাসিক পৃথিবীতে প্রকাশিত অংশে প্রয়োজনীয় সংশোধন এবং আরও কিছু নতুন অংশ সংযোজন করে পুস্তকাকারে প্রকাশে বেশ বিলম্ব হয়ে গেল।

পুস্তকটি প্রণয়নকালে যাঁরা পরামর্শ দিয়ে সাহায্য করেছেন, তাঁদের মধ্যে জনাব শাহ আব্দুল হান্নান, ড. সালাহউদ্দিন আহমদ, জনাব তাজুল ইসলাম ও জনাব এস, এম. আলী আক্কাসের নাম বিশেষভাবে উল্লখযোগ্য।

আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষক, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক এম. এ. হামিদ প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে সাহায্য করেছেন এবং বইটির ভূমিকা লিখে এর মান বৃদ্ধি করেছেন।

জনাব হাসান রহমতী বইটির প্রুফ দেখার মত কঠিন কাজ আঞ্জাম দিয়েছেন। ব্যুরোর ডেপুটি ডাইরেক্টর জনাব ফেরদৌস কোরায়েশী বইটি ছাপার কাজে সহযোগিতা করেছেন এবং আল-ফালাহ প্রিন্টিং প্রেসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ এজন্য বেশ পরিশ্রম করেছেন।

মোটকথা, উল্লেখিত সকলের সহযোগিতা, পরামর্শ ও শ্রমের ফলেই পুস্তকটি সম্মানিত পাঠকবৃন্দের হাতে তুলে দেওয়া সম্ভব হলে। এদের এ ঋণ শোধ করার সাধ্য আমার নেই। মেহেরবান আল্লাহ তাঁদের জাযা দান করুন এটাই কামনা করি।

বইটি প্রধানত অর্থনীতির অত্যন্ত জটিল বিষয় নিয়ে লেখা বিধায় এতে ত্রুটি-বিচ্যুতি থেকে যাওয়া অস্বাভাবিক নয়। তাছাড়া যথার্থ পরামর্শ ও সহযোগিতা বইটিকে আরও সুন্দর ও সুষমামণ্ডিত করতে পারে বলে আমি বিশ্বাস করি। এ ব্যাপারে সুধী পাঠক, সম্মানিত উলামায়ে কিরাম, ইসলামী চিন্তাবিদ, অর্থনীতিবিদ, বিশেষজ্ঞ ও গবেষকগণ তাদের মূল্যবান পরামর্শ দিয়ে সাহয্য করলে চিরকৃতজ্ঞ থাকব।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের সকলের এ শ্রমকে কবুল করুন এবং সুদের অভিশাপ থেকে মানবতাকে মুক্ত করুন-আমীন।

মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন

ঢাকা

তারিখ

বৈশাখ ১৫, ১৩৯৯

এপ্রিল ২৮, ১৯৯২

শাওয়াল ২৩, ১৪১২

দ্বিতীয় সংস্করণ

ভূমিকা

অধ্যাপক মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন তার প্রণীত ‘সুদ সমাজ অর্থনীতি’ পুস্তকে ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ সম্পর্কে এ যাবত চলে আসা গতানুগতিক চিন্তাধারার ঊর্ধ্বে উঠে সুদের একক ও সমম্বিত সংজ্ঞা উদঘাটনের প্রয়াস পেয়েছেন। ক্রয়-বিক্রয় ও মুনাফা হালাল এবং সুদ হারাম হওয়ার কুরআন-সুন্নাহ সম্মত প্রকৃত কারণসহ ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে কিভাবে সুদ উদ্ভূত হয় তার বাস্তবসম্মত ব্যাখ্যা উপস্থাপন করেছেন। এছাড়া সুদের আর্থ-সামাজিক ধ্বংসকর পরিণতির এক ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরেছেন। জনাব শরীফের চুলচেরা বিশ্লেষণ, অকাট্য যুক্তি এবং কুরআন-সুন্নাহ ও বাস্তবতার সাথে সংগতিশীল ব্যাখ্যা বইটিকে ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ সংক্রান্ত বিপুল সাহিত্য ভাণ্ডারে এক চমৎকার সংযোজন করে তুলেছে সন্দেহ নেই; তাছাড়া ক্রয়-বিক্রয় ও সুদের ব্যাপারে বিভিন্ন ফিক্বহ, গবেষক ও ‍চিন্তাবিদদের মধ্যে বিদ্যমান বহু মতপার্থক্য বিভ্রান্তির অবসানে বইটি বিশেষ সহায়ক হবে বলে আশা করা যায়।

বস্তুতঃ আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ইনসাফ ও আদলের ভিত্তিতে একটি পূর্ণাঙ্গ অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক ব্যবস্থা পরিচালনা জন্য তার প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সাঃ)-এর মাধ্যমে যথার্থ দিক-নির্দেশনা প্রদান করেছেন। বহু শতাব্দী পর্যন্ত ইসলামী ও মুসলিম রাষ্ট্র ব্যবস্থায় তা অনুসৃত হয়েছে। কিন্তু কাল পরিক্রমায় নিছক মুনাফভিত্তিক পুঁজিবাদী ব্যবস্থার প্রসার ও আগ্রাসী তৎপরতা অর্থনীতির ক্ষেত্রে ন্যায়-অন্যায়, ইনসাফ-আদলের অনুভূতি এবং বৈধ-অবৈধের পার্থক্যকে বিলীন করে দিয়েছে। ফলে যেন-তেন প্রকারে অর্থ উপার্জনের স্পৃহা সামষ্টিক স্বার্থকে উপেক্ষা করে ব্যক্তিস্বার্থকে প্রাধান্য দিতে শুরু করে এবং পুঁজিবাদী শোষণ বঞ্চনার কাছে অর্থনৈতিক সুবিচার পরাভূত হয়। এই প্রক্রিয়ায় পুঁজিবাদের বাইবেল হিসেবে পরিচিত হারবার্ট স্পেন্সারের Social Darwinisn এবং অ্যাডাম স্মিথের The Wealth of Nation পুস্তকদ্বয় অর্থশাস্ত্রে পারস্পরিক স্বার্থের প্রতি শ্রদ্ধা এবং মানবিক মুল্যবোধকে ছৃঁড়ে ফেলে দিতে সহায়তা করে। পুঁজিবাদের আদলে অনুসৃত নিছক ব্যক্তিস্বার্থ ও মুনাফা কেন্দ্রিক অর্থব্যবস্থা বিশ্ব-অর্থনীতিতে একাধিকবার সর্বগ্রাসী মন্দার সৃষ্টি করে প্রমাণ করেছে যে, এই ব্যবস্থাটি মানবতা-বান্ধব নয়। এই অবস্থায় ইসলামের ইনসাফভিত্তিক আর্থিক ব্যবস্থা পুনঃস্থাপন সময়ের দাবী। সুদ সমাজ অর্থনীতি পুস্তকটি এই দাবী পূরণে যথেষ্ট সহায়ক হবে বলে আমার বিশ্বাস।

পুস্তকে শিল্প বাণিজ্য ও অর্থ খাতে পরিচালিত লেনদেনের ইসলামী পদ্ধতি, সুদের কারণ, সুদের প্রকৃতি ও বৈশিষ্ট্য এবং এর ধ্বংসকারিতা বিশদ ব্যাখ্যাসহ আলোচনা করা হয়েছে। বলা বাহুল্য, সুদীর্ঘ কয়েক শতাব্দী ধরে ইসলামী অর্থনীতি চালু না থাকায় আধুনিক শিক্ষিতদের মধ্যে যেমন এ সম্পর্কে বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণার সৃষ্টি হয়েছে তেমনি বেশিরভাগ আলেম উলামার মধ্যেও এর যথার্থ চর্চা না থাকায় মুসলিম উম্মাহ কোথাও পুঁজিবাদ, আবার কোথাও সমাজবাদের গোলামী করতে বাধ্য হয়েছে। অধ্যাপক শরীফ হুসাইন তার ক্ষুরধার লেখনীর মাধ্যমে জ্ঞানের যে দ্বার উন্মোচন করেছেন তা নতুন চেতনার উন্মোষ ঘটাবে এবং এই গোলামী থেকে মুক্ত হতে আমাদের উজ্জীবিত করবে ইনশাআল্লাহ্। পুস্তকটি গবেষক, চিন্তাবিদ, আলেম-উলামা, ব্যাংকার, অর্থনীতিবিদ, নীতিনির্ধারক, পরিকল্পনা বিশারদ এবং ছাত্র-ছাত্রীদের ব্যাপকভাবে উপকৃত করবে বলে আমি মনে করি। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন এ প্রচেষ্টাকে কবুল করুন। আমীন।

মানাজির আহসান

মহাপরিচালক

লেস্টার, ইউ.কে.

কার্তিক ১৭, ১৪১৯

নভেম্বর ০১, ২০১২

ইসলামিক ফাউন্ডেশন

জিলহজ্জ ১৫, ১৪৩৩

চেয়ারম্যানের কথা

‘সুদ সমাজ অর্থনীত’ বইটির দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশ করতে পেরে আমরা মহান আল্লাহর নিকট শুকরিয়া আদায় করছি। ইসলামিক ইকোনমিক্স রিসার্চ ব্যুরো ১৯৯২ সালে এর প্রথম সংস্করণ প্রকাশ করে; পাঠক সমাজে বইটি বেশ সমাদৃত হয়। বিষয়ের গুরুত্ব ও চাহিদা বিবেচনা করে বেশ কিছু পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও সংশোধনীসহ দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশ করা হচ্ছে।

অধ্যাপক মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন বইটিতে একদিকে কুরআন, সুন্নাহ ও সম্মানিত ফক্বীহদের মতামতের ভিত্তিতে সুদের প্রকৃত ও সমন্বিত সংজ্ঞা উদঘাটনের চেষ্টা করেছেন অন্যদিকে অর্থনৈতিক ও সামাজিক জীবনে সুদের ভয়াবহ অভিশাপ ও ধ্বংসকর পরিণতির চিত্র তুলে ধরেছেন্ বস্তুতঃ সুদের ওপর বাংলা ভাষায় রচিত এ পুস্তকটি গভীর চিন্তা, ব্যাপক অধ্যয়ন ও দীর্ঘ গবেষণার ফল।

লেখক, গবেঘক, অর্থনীতিবিদ, ব্যাংকার এবং শিক্ষক-ছাত্রসহ পাঠকবৃন্দ বইটি দ্বারা সবিশেষ উপকৃত হবেন বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস। আল্লাহ তায়ালা আমাদের এ প্রচেষ্টা কবুল করুন। আমীন।

শাহ্ আব্দুল হান্নান

চেয়ারম্যান

ইসলামিক ইকোনমিক্স রিসার্চ ব্যুরো

ঢাকা: কার্তিক ১৭, ১২১৯

নভেম্বর ০১, ২০১২

জিলহজ্জ ১১, ১৪৩৩

প্রকাশকের কথা

একবিংশ শতাব্দীতে এসে সুদ সম্পর্কে মানুষকে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে। শুধু মুসলিম মনীষীগণই নন, অনেক অমুসলিম অর্থনীতিবিদও সুদের কুফল ও ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে কেবল সচেতনিই নন, তাঁরা সুদ ভিত্তিক লেনদেন বাতিল করে এ বিষয়ে নতুন করে চিন্তাভাবনা শুরু করেছেন। বাংলাদেশের প্রখ্যাত ইসলামী অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন তাঁর লিখিত ‘সুদ সমাজ অর্থনীতি’ গ্রন্হে খ্যাতনামা ইসলামী চিন্তাবিদদের ব্যাখ্যা বিশ্লেষণের গভীর অধ্যয়ন, ব্যাপক চিন্তা ও গবেষণার ফসল হিসেবে এ বিষয়ে এক অনবদ্য সমাধানের দিক নির্দেশনা দিয়েছেন।

গ্রন্হটি ২৮ এপ্রিল ১৯৯২ সালে প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। দ্রুত এর সকল কটি নিঃশেষ হয়ে যায়। এটি আলেমে দ্বীন, ব্যাংকার, অর্থনীতিবিদ, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করে। এটি পুনঃপ্রকাশের দাবী আসতে থাকে। লেখক এ বিষয়ে কৈফিয়ত দিয়েছেন। বিলম্বে হলেও বর্ধিত কলেবরে তত্ত্ব ও তথ্য সমৃদ্ধ হয়ে প্রায় ৪০০ পৃষ্ঠার এ গন্হটির দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশিত হচ্ছে। আমাদের এ প্রকাশনাটি ছাত্র, শিক্ষক, অর্থনীতিবিদ, উদ্যোক্তা ও গবেষকদের উপকারে আসবে বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস। পরিবর্ধিত এ গ্রন্হ উপহার দেয়ার জন্য লেখককে আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুকরিয়া জানাই।

গ্রন্হটি প্রকাশিত হওয়াতে পরম করুনাময় আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের নিকট শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি। তিনি আমাদেরকে দুনিয়া ও আখেরাতে কল্যাণ দান করুন। আমীন॥

ড. মুহাম্মাদ নূরুল ইসলাম

প্রকাশনা সেক্রেটারী

জিলহজ্জ ১৫, ১৪৩৩

ইসলামিক ইকোনমিক্স রিসার্চ ব্যুরো

ঢাকা: কার্তিক ১৭, ১৪১৯

নভেম্বর ০১, ২০১২

মুখবন্ধ

বর্তমান বিশ্বে সুদ লেনদেন অত্যন্ত ব্যাপক ও বিস্তৃত। সকল দেশেই আইন করে সুদকে বৈধতা দেওয়া হয়েছে এবং আইন-আদালতের মাধ্যমে সুদ আদায় করে নেওয়ার জবরদস্তিমূলক ব্যবস্থাও পাকাপোক্ত করে নেওয়া হয়েছে। অপরদিকে, সুদের ভয়াবহ ধ্বংসকর প্রতিক্রিয়া সর্বত্র অর্থনীতিকে বিপর্যস্ত ও লণ্ডভণ্ড করে দিচ্ছে। “বস্তুতঃ আজকের দুনিয়ায় সুদের বিরূপ প্রতিক্রিয়া যত ব্যাপক ও প্রকট হয়ে উঠেছে, অতীতে কখনও তা হয়নি। পূর্বকালে সুদী ভোগ্য ঋণ লেনদের হতো ব্যক্তি পর্যায়ে, আর এর কুফল সীমিত থাকতো ঋণগ্রহীতা পর্যন্ত। কিন্তু আধুনিককালের সুদী ঋণব্যবস্থা যেমন ব্যাপক, এর কুফল, জুলুম ও বেইনসাফীও তেমনি বিস্তৃত। এ ঋণের কুফল ছড়িয়ে পড়ে গোটা অর্থনীতিতে, বিপর্যস্ত করে দেয় সমগ্র অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে”। [উসমানী, মুহাম্মদ তকি: সুদ নিষিদ্ধঃ পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায়; বাংলা অনুবাদ, অধ্যাপক মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন, ইসলামিক ইকোনমিক্স রিসার্চ ব্যুরো, ঢাকা, দ্বিতীয় মুদ্রণ,২০০৮, পৃঃ ৬৭-৬৮]

সুদের ধ্বংসকর পরিণতি সম্পর্কে আল্লাহ তা’য়ালা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় মানব জাতিকে বহু পূর্বেই সতর্ক করে দিয়েছেন। বলা হয়েছে, “আল্লাহ সুদকে ধ্বংস করেন, আর সাদাকাহকে ক্রমবৃদ্ধি দান করেন‌”। (২:২৭৬) আল্লাহর সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামও তাঁর বাণীতে সুদের পরিণতির কথা বলিষ্ঠভাবে তুলে ধরেছেন। তিনি বলেছেন, “আপাতদৃষ্টিতে মনে হয় সুদ সমৃদ্ধি আনে কিন্তু সুদের আসল পরিণতি হলো অভাব ও সংকোচন (scarcity and contraction) (মুসনাদে আহমদ হাদীস নং ৩৭৫৪)। অপর এক হাদীসে তিনি বলেছেনে, “যিনা ও সুদ যে কোন জাতিকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়”। (মুসনাদে আহমদ)

বস্ততঃ দুনিয়াজুড়ে ব্যাপকভাবে প্রচলিত হওয়ার পর থেকে কুরআন-সুন্নাহয় বর্ণিত সুদের এই ধ্বংসকর পরিণতি মানুষ বাস্তবে প্রত্যক্ষ করেছে। বিশ্বব্যাপী অর্থনীতিবিদগণও সুদের ধ্বংসকর পরিণতি মানুষ বাস্তবে প্রত্যক্ষ করেছে। বিশ্বব্যাপী অর্থনীতিবিদগণও সুদের এই ধ্বংসকর পরিণতি দেখে আঁতকে উঠেছেন; তাঁরা সমস্বরে চিৎকার করছেন সুদের এই ভয়াবহ পরিণতি থেকে মানব সভ্যতাকে বাঁচানোর জন্য।

লক্ষণীয় যে, সুদের একক ও সমন্বিত সংজ্ঞা পাওয়া কঠিন। তাফসীরকার, ফিক্বাহবিদ ও মুফাসসিরদের আলোচনায় দেখা যায় তাদের সকলেই আল-কুরআনে বর্ণিত রিবা ও আল-হাদীসে উল্লেখিত রিবাকে পৃথক পৃথক ভাবে সংজ্ঞায়িত করেছেন। তাছাড়া হাদীসে বর্ণিত রিবার আলোচনায় এমন জিনিসকে রিবার আওতাভুক্ত করা হয়েছে যার অস্তিত্ব আসলে কুরআন-সুন্নাহয় নেই। অপরদিকে, বহুল প্রচলিত যেসব সংজ্ঞা রিবার সংজ্ঞা হিসেবে চালু হয়ে আছে তার প্রায় সবগুলোই কেবল বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে উদ্ভূত রিবাযার একমাত্র কার সংক্রান্ত; নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে উদ্ভূত রিবা এর আওতায় আসেনি। তাদুপরি বিনিময়হীনতাই যে রিবা নিষিদ্ধ হওয়ার একমাত্র কারণ এ কথাটি যেন সর্বত্র অস্পষ্টই থেকে গেছে। অবশ্য একথা ঠিক যে, বিভিন্ন মাযহাবের বেশ কয়েকজন প্রখ্যাত ফক্বীহ রিবার প্রকৃত ও সমন্বিত সংজ্ঞাও দিয়েছেন। কিন্তু যথোপযুক্ত ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণের অভাবে সে সংজ্ঞাগুলো যথার্থ মূল্যায়ন পায়নি।

এমতাবস্থায় সুদের সঠিক ও সমন্বিত সংজ্ঞা কি তা উদঘাটন এবং এর যথার্থ ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ হওয়া দরকার। দ্বিতীয়ত ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ সংক্রান্ত হাদীস সমূহে ব্যবহৃত ‘মিসলান বিমিসলিন’- এর ভাষাগত স্বভাবিক অর্থ মানগত সমতাকে উপেক্ষা করে এর অর্থ করা হয়েছে পরিমাণগত সমতা; আর ‘ইয়াদান বিইয়াদিন’-এর অর্থ করা হয়েছে নগদ বিনিময়। ফলে একদিকে সমজাত অথচ ভিন্ন ভিন্ন মানের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ে বেইনসাফীর সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে; অন্যদিকে সম ও অসম জাতের বস্তুর বাকি ক্রয়-বিক্রয় বিতর্কিত হয়ে পড়েছে এবং রিবা সম্পর্কে সৃষ্টি হয়েছে নানা জটিলতা ও বিভ্রান্তি। সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে ত্রয়োদশ শতকে বৃটিশের তৈরী সুদ সংক্রান্ত আইন এবং এ প্রেক্ষিতে অভিধানে উল্লেখিত ইন্টারেস্ট ও ইউসারীর পৃথক পৃথক অর্থের আলোকে ব্যাংকের সুদকে বৈধ বলার অপপ্রয়াস চালানো হচ্ছে। এক-দুই জন আলেমকেও এতে সায় দিতে দেখা যাচ্ছে। তাছাড়া ক্রয়-বিক্রয়, সুদ, মুনাফাও ভাড়ার পার্থক্য সম্পর্কে বিভ্রান্তিতো আছেই। শুধু যে সাধারণ এ বিভ্রান্তির শিকার তা নয় বরং গবেষক ও অর্থনীতিবিদদের মধ্যেএ এ ধারণাসমূহ জটিল তত্ত্বে আবদ্ধ হয়ে আছে। সুতরাং ক্রয়-বিক্রয়, ভাড়া, মুনাফা হালাল এবং সুদ হারাম হওয়ার কারণও সুস্পষ্ট হওয়া দরকার, তেমনি ক্রয়-বিক্রয়, ভাড়া, মুনাফা হালাল এবং সুদ হারাম হওয়ার কারণও সুস্পষ্ট হওয়া দরকার।

সর্বোপরি সুদ দুনিয়াব্যাপী ছড়িয়ে পড়া, সুদের নানাবিধ ধ্বংসকর পরিণতি প্রত্যক্ষ করা এবং সুদের বিরুদ্ধে ব্যাপক জনমত গড়ে উঠার পরও সুদ ছাড়া অর্থনীতি চলবে না- এই ভুল ধারণা প্রভাবশালী হয়ে আছে। এ অবস্থায় সুদের বিরূপ প্রতিক্রয়া সংক্রান্ত গবেষণালব্ধ ফলাফলগুলোর সম্যক উপলব্ধি জরুরী।

উপরোক্ত বাস্তবতা সামনে রেখে এ লেখার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে :

১. আল-কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে সুদের সমন্বিত সংজ্ঞা উদঘাটন এবং এর যথার্থ ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ উপস্থাপন করা;

২. ক্রয়-বিক্রয়, ভাড়া, মুনাফা ও সুদের মধ্যে বিদ্যমান পার্থক্যের আলোকে ক্রয়-বিক্রয় হালাল ও সুদ হারাম হওয়ার যথার্থ কারণ তুলে ধরা;

৩. বাস্তবতা ও যুক্তির আলোকে সুদের ধ্বংসকর পরিণতির ওপর আলোকপাত করা।

উপরোক্ত লক্ষের প্রেক্ষিতে পুস্তকটিকে প্রধান দু’টি খণ্ডে সুদ ও ক্রয়-বিক্রয় এবং দ্বিতীয় খণ্ডে সুদের কুফল ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

অতঃপর প্রথম খণ্ডকে ছয়টি অধ্যায়ে আল-কুরআনের সুদ শিরোনামে আল-কুরআনের চারটি সূরার মোট পনেরটি আয়াত সম্পর্কে আলোচনা করে দেখানো হয়েছে যে, আল্লাহ তায়ালা সুদকে মূলতঃ বিনিময় না দিয়ে পরের সম্পদ খাওয়া, ভক্ষণ, গ্রাস বা আত্মসাৎ করার একটি বড় হাতিয়ার ও জুলুম হিসেবে তুলে ধরেছেন এবং প্রধানত এ কারণেই সুদকে নিষিদ্ধ করেছন। দ্বিতীয় অধ্যায়ে সুন্নাহর দৃষ্টিতে সুদ শিরোনামে প্রথমে ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান সম্পর্কিত হাদীস এবং পরে সুদ উদ্ভূত হওয়ার কারণ সম্বলিত হাদীসগুলো সাজিয়ে পেশ করা হয়েছে। অপরাপর ধর্ম ও দার্শনিকদের দৃষ্টিতে সুদ শিরোনামে তৃতীয় অধ্যায়ে দেখানো হয়েছে যে, বিশ্বের উল্লেখযোগ্য সকল ধর্মেই সুদ নিষিদ্ধ, বড় বড় সকল দার্শনিকই সুদের নিন্দা করেছেন। চতুর্থ অধ্যায়ে ক্রয়-বিক্রয় ও মুনাফার সংজ্ঞা; ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান এবং ক্রয়-বিক্রয় ও মুনাফার গুরুত্ব এবং তা হালাল হওয়ার কারণ তুলে ধরা হয়েছে। পঞ্চম অধ্যায়ে জাহিলী যুগে প্রচলিত রিবা সম্পর্কে ধারণা দেওয়ার সাথে সাথে রিবার অর্থ, রিবার সমন্বিত সংজ্ঞা, শ্রেণীবিন্যাস ও বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। ষষ্ঠ অধ্যায়ে বিভিন্ন প্রকার ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ উদ্ভূত হয় তা দেখানো হয়েছে।পরিশেষে এক নজরে ক্রয়-বিক্রয়, ভাড়া, মুনাফা ও সুদের তুলনার দ্বারা গ্রন্হের প্রথম খণ্ড শেষ করা হয়েছে।

বইটির দ্বিতীয় খণ্ডকে পাঁচটি অধ্যায়ে বিভক্ত করে ভূমিকায় সুদী কারবারের স্বরূপ, প্রথম অধ্যায়ে সুদের নৈতিক ও সামাজিক সুফল, দ্বিতীয় অধ্যায়ে অর্থনৈতিক কুফল, তৃতীয় অধ্যায়ে রাজনৈতিক কুফল, চতুর্থ অধ্যায়ে আন্তর্জাতিক কুফল তুলে ধরা হয়েছে; আর পঞ্চম অধ্যায় উপসংহারে সুদের ধ্বংসের কিছু চিত্র পেশ করে বইটির সমাপ্তি টানা হয়েছে। পরিশিষ্টে সুদের সৃষ্ট ব্যাংকিং সংকট এবং অর্থনৈতিক সংকট ও মন্দার দু’টি তালিকা সংযোজন করা হয়েছে।

গ্রন্হটি লেখার ক্ষেত্রে প্রধানত বিশ্লেষণ পদ্ধতি অনুসৃত হয়েছে এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক সূত্র থেকে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়েছে।

১৯৯২ সালে বইটির প্রথম প্রকাশের পর স্বল্প সময়ের মধ্যেই সবগুলো কপি নিঃশেষ হয়ে যায়। পাঠক সমাজের পক্ষ থেকে উপর্যুপরি দাবী সত্ত্বেও বইটির দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশে অস্বাভাবিক বিলম্ব হলো। এ ব্যাপারে কৈফিয়ত দেওয়া জরুরী। অতঃপর সহৃদয় পাঠকসমাজ বিষয়টি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন বলে আশা করি।

বস্তুতঃ দীর্ঘকাল ধরে ইসলামিক ইকোনমিক্স রিসার্চ ব্যুরোর কাজের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত থাকা, ইসলামী ব্যাংকিং-এর সাথে সংশ্লিষ্টতা, ইসলামী ব্যাংকের জন্য জেনারেল ব্যাংকিং ম্যানুয়াল ও বিভিন্ন ব্যাংকের ম্যানুয়াল তৈরীতে ভূমিকা পালন এবং বিশেষ করে সুধী সমাোবশ ও বিভিন্ন ব্যাংকের ট্রেনিং প্রোগ্রামে সুদ, বিনিয়োগ-মুনাফা বিষয়ে বক্তৃতা করতে গিয়ে এসব বিষয়ে বহু প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি প্রশ্ন হচ্ছে, রিবা আসলে কোন্ বৃদ্ধিকে বলা হয়; আল-কুরআনের রিবা আর হাদীসের রিবা কি সত্যিই ভিন্ন ভিন্ন, আল-রিবার দ্বারা সকল রিবাকে বুঝানো হয়েছে নাকি বিশেষ কোন রিবাকে বুঝানো জন্য তা ব্যবহৃত হয়েছে, বহুল প্রচলিত সংজ্ঞাগুলো সুদের যথার্থ ও পূর্ণাঙ্গ সংজ্ঞা কিনা, সুদ নিষিদ্ধ করার হেকমত (দর্শন) ও ইল্লাত (তাৎক্ষণিক কারণ) আসলে কি, এক মাযহাবের মতে যা সুদ অন্য মাযহাবের মতে তা সুদ নয়- একটি সুস্পষ্ট হারামের ব্যাপারে এরূপ হলো কেন, মানগত তারতম্য সত্ত্বেও সমজাতীয় দু’টি পণ্যের কেবল পরিমাণ সমান সমান করে বিনিময় করা হলে যে বেইনসাফী হয় তা কি সত্যিই বিবেচনার অযোগ্য, মুদ্রা (সরফ) ও পণ্যের বাকি ক্রয়-বিক্রয় কি সত্যিই নিষিদ্ধ, বাকির মেয়াদ কি আসলেই রিবা নাসা’ হাদীসে বর্ণিত মিসলান বিমিসলিন, ইয়াদান বিইয়াদিন, হা’য়া ওয়া হা’য়া, দাইনান, নাসীয়াহ পরিভাষাগুলোর প্রকৃত তাৎপর্য কি, রিববী ম্যাটেরিয়াল বলে কোন পণ্য আসলে আছে কি? আল্লাহ তা’য়ালা কুরআন মাজীদে ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে রিবার তুলনা করেছেন আর আমরা ব্যবসা ও মুনাফার সাথে সুদের তুলনা করি, এটা সঠিক কিনা, রিবা অর্থ বৃদ্ধি, মুনাফাও বৃদ্ধি—তাহলে রিবা হারাম, মুনাফা হালাল কেন, সর্বোপরি ক্রয়-বিক্রয় থেকে সুদ কিভাবে উদ্ভূত হয় ইত্যাদি। কুরআন-সুন্নাহর ভিত্তিতে এ সকল প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে এবং অনুসন্ধানে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বইটি বিশেষ করে, এর সুদ ও ক্রয়-বিক্রয় খণ্ডটি সম্পুর্ণ নতুন করে লিখতে হলো। আর বিলম্বের প্রধান কারণ এখানেই।

বইটি রচনায় যাঁরা সাহায্য-সহযোগিতা করেছেন তাদেঁর মধ্যে প্রথমেই যাঁর নাম উল্লেখ করতে হয় তিনি হচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড.আইয়ুবুর রহমান ভুঞা। অধ্যাপনা ও গবেষণা ক্ষেত্রে দীর্ঘ অভিজ্ঞতার আলোকে তিনি পরামর্শ দিয়েছেন, সংশোধন করেছেন, ধাপে ধাপে কাজ এগিয়ে নিতে সহযোগিতা করেছেন এবং উৎসাহ যুগিয়েছেন। আর দ্বিতীয় যার নাম আসে তিনি হচ্ছেন ইসলামিক ইকোনমিক্স রিসার্চ ব্যুরো’র সাবেক গবেষণা কর্মকর্তা, বর্তমানে ব্যুরোর গবেষণা সেক্রেটারী জনাব জুনায়েদ মাশরুর খান। তিনি তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে না দিলে গতানুগতিক ধারার ব্যতিক্রম এই পুস্তক লেখা সম্ভব হতো না; আল্লাহ তাঁদের জাযা দান করুন। তাঁর এবং অধ্যাপক ভুঞার ঋণ পরিশোধের ভার আল্লাহর ওপর ন্যস্ত না করে উপায় নেই। ব্যুরোর ত্রৈমাসিক জার্নাল থটস অন ইকোনমিক্স-এর সম্পাদক জনাব মো.নূরুল আমিন পাণ্ডলিপিটি আদ্যোপান্ত পড়েছেন, সংশোধন করেছেন এবং বেশ কিছু অংশ জার্নালে প্রকাশ করে কৃতজ্ঞতা পাশে আবদ্ধ করেছেন। ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের শরীয়াহ্ কাউন্সিল- এর সদস্য মওলানা আব্দুস শহীদ নাসিম হাদীসগুলোর অনুবাদ ও সংযোজিত মন্তব্য দেখে দিয়ে একে ত্রুটিমুক্ত করতে সাহায্য করেছেন। সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের শরীয়াহ্ বোর্ডের সদস্য মাওলানা আব্দুল হাকিম মাদানী বইতে উল্লেখিত হাদীস সমূহের নম্বর সংগ্রহ করে এবং প্রয়োজনীয় সংশোধনী দিয়ে এর নির্ভরযোগ্যতা বাড়িয়ে দিয়েছেন। ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর শরীয়াহ্ কাউন্সিলের সাবেক সদস্য সচিব প্রিন্সিপাল মওলানা মুহাম্মদ ছেরাজুল ইসলা, বর্তমান সদসল অধ্যাপক মওলানা ড. হাসান মঈন উদ্দীন, একই ব্যাংকের সাবেক এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট জনাব আব্দুর রকিব, শরীয়াহ কাউন্সিলির মুরাকিব মাওলানা শাসমুল হুদা, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের শরীয়াহ্ বোর্ডের সদস্য সচিব মাওলানা আ. ন. ম. রশিদ আহমদ লিখিত মন্তব্য ও পরামর্শ দিয়ে উৎসাহিত করেছেন। দেশের প্রথিতযশা আলেম মুফতী সাঈদ আহমদ. অধ্যক্ষ মাওলানা সাইয়েদ কামালউদ্দীন জাফরী, মাওলানা আ. ন. ম. রফিকুর রহমান আল মাদানী, ড. মো. মানজুরে ইলাহী এবং অর্থনীতিবিদ ড. এস. এম. আলী আক্কাস, অধ্যাপক মুহাম্মদ মুজাহিদুল ইসলাম, অথ্যাপক ড. কবির হাসান, জনাব এম. শফিউল্লাহ, জনাব আব্দুল আউয়াল সরকার, প্রখ্যাত ইসলামী ব্যাংকার জনাব এম. আযীযুল হক, জনাব মুহাম্মদ নূরুল ইসলাম, জনাব নুরুল ইসলাম খলিফা, জনাব এ. টি. এম. সালেহ, ড. মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম প্রমুখ মুল্যবান মন্তব্য, পরামর্শ ও সংশোধনী দিয়ে বইটির মান বৃদ্ধি করেছেন। তাঁদের সকলের প্রতি রইলো আন্তরিক কৃতজ্ঞতা। বইট প্রকাশের জন্য অনুমোদন করার লক্ষ্যে ব্যুরো কর্তৃক গঠিত কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে ড. এস. এম. আলী আক্কাস তাঁর সীমাহীন ব্যস্ততার মধ্যেও প্রচুর সময় দিয়ে বইটির পাণ্ডলিপি দেখেছেন এবং কমিটিতে আলোচনা করে ব্যুরো কর্তৃক বইটির প্রকাশের ব্যবস্থা করেছেন। কমিটির সম্মানিত সদস্যবৃন্দ ও চেয়ারম্যানকে জানাই আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। সর্বোপরি ব্যুরোর সম্মানিত চেয়ারম্যান জনাব শাহ্ আব্দুল হান্নান পূর্ণাঙ্গ বইটি পড়ে পরামর্শ দিয়েছেন এবং ব্যুরো পক্ষ থেকে বইটি প্রকাশের ব্যবস্থা করেছেন। তাঁর পুরস্কার মহান আল্লাহর কাছে সংরক্ষিত থাকবে আশা করি।

গ্রন্হটি টাইপ করা এবং বহুবার সংশোধন, পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও পরিমার্জন করতে ব্যুরোর কম্পিউটার অপারেটর জনাব মো. সালাউদ্দিনকে প্রচুর শ্রম ব্যয় ও কষ্ট স্বীকার করতে হয়েছে। তার সাথে ব্যুরোর হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা জনাব মো. জাকির হোসেন ও ম্যাসেঞ্জার জনাব মোহম্মদ হোসেন বাবুলকেও বেশ খাটতে হয়েছে। দৈনিক সংগ্রামের প্রুফ বিভাগের জনাব হাসান রহমতী বইটর প্রুফ দেখেছেন এবং মেসার্স আল-ফালাহ প্রিন্টিং প্রেস বইট ছাপার দায়িত্ব পালন করেছেন। আল্লাহ এদের সকলের শ্রম কবুল করুন। দি ইসলামিক ফউন্ডেশন, ইউ. কে.- এর মহাপরিচালক ড. মানাজির আহসান দ্বিতীয় সংস্করণের ভূমিকা লিখে দিয়ে বইটিকে আন্তর্জাতিক মর্যাদায় উন্নীত করেছেন এ জন্য তাঁকে জানচ্ছি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।

পরিশেষে যিনি এই গন্হটি রচনার তৌফিক দিয়েছেন সেই মহাশক্তিধর ও রহমানুর রাহীম আল্লাহর শুকরিয়া জ্ঘাপন করছি। আল্লাহ তাঁর অপার মেহেরবানী দ্বারা আমাদের সকলের এ ক্ষুদ্র প্রয়াসকে কবুল করুন এবং পরকালে নাজাতের ওসীলা বানিয়ে দিন। আমীন॥

মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন

ঢাকা

তারিখ :

কার্তিক ১৭, ১৪১৯

নভেম্বর ০১, ২০১২

জিলহজ্জ ১৫, ১৪৩৩

 

প্রথম খণ্ড: সুদ ও ক্রয়-বিক্রয়

প্রথম অধ্যায়: আল-কুরআনের দৃষ্টিতে সুদ

সুদ নিষিদ্ধ করেছে আল-কুরআন। অবশ্য তার পূর্বে আল্লাহর পক্ষ থেকে নাযিলকৃত সকল গ্রন্হেই সুদ নিষিদ্ধ করা হয়েছিল বলে জানা যায়। আর মহান আল্লাহর নাযিলকৃত সকলগ্রন্হই (দ্বীনই) হচ্ছে মূলত ইসলাম। অর্থাৎ ইসলামই হচ্ছে দুনিয়ার মানুষের জন্য আদি এবং একমাত্র জীবন বিধান; আর এই ইসলামেই সুদ নিষিদ্ধ। সুদ কি? কেন সুদকে হারাম করা হলো- এসব বিষয় যথাযথভাবে উপলব্ধি করতে হলে প্রথমেই এ বিষয়ে আল-কুরআনে কি বলে তা জানা দরকার।

আল-কুরআনে সুদকে বলা হয়েছে রিবা। আল-কুরআনের চারটি সূরার মোট ১৫ টি আয়াতকে রিবা সংক্রান্ত আয়াত বলা হয়। নাযিলের ক্রমিক ধারা অনুসারে সূরার নাম ও আয়াত নম্বরগুলো হচ্ছে:

১. সূরাতুর রূম, ৩৯;

২. সূরাতুন্নিসা, ১৬০-১৬১;

৩. সূরাতু আলে ইমরান, ১৩০-১৩৪ এবং

৪. সূরাতুল বাকারাহ, ২৭৫-২৮১;

এসব আয়াতে ‘রিবা’ শব্দটির উল্লেখ আছে মোট আট বার। সূরাতুর রূমের ৩৯ নম্বর আয়াতে ১ বার, সূরাতুন্নিসার ১৬০ আয়াতে ১ বার, সূরাতু আলে ইমরানের ১৩০ আয়াতে ১ বার এবং সূরাতুল বাকারাহর ২৭৫ আয়াতে ৩ বার, ২৭৬ আয়াতে ১ বার ও ২৭৮ আয়াতে ১ বার।

বস্তূত: আল-কুরআনের দৃষ্টিতে সুদ হচ্ছে পরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করা এবং একটি বড় জুলুম; আর আল-কুরআনের লক্ষ্য হচ্ছে মানবসমাজ, তথা ইসলামী রাষ্ট্র থেকে এ জুলুমের অবসান ও নির্মূল করে ক্রয়-বিক্রয়ে পূর্ণ ইনসাফ কায়েম করা। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখেই আল্লাহ তা’য়ালা চারটি ধারাবাহিক পর্যায়ে উক্ত আয়াত গুলো নাযিল করেছেন। প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায় হচ্ছে শিক্ষা। এই পর্যায়ে আল্লাহ তাঁর বাণী নাযিল করে সুদের বাস্তব ও প্রকৃত চেহারা ও ফলাফল সম্পর্কে শিক্ষা দিয়েছেন। তৃতীয় পর্যায়ে আল্লাহ মুমিনদের সুদ খেতে নিষেধ করে পরিবেশ তৈরী করেছেন। ঈমানদারগণ যাতে সুদ বর্জন করে চলতে পারে সেজন্য তাঁদের অভ্যাস গড়ে তুলেছেন। আর চতুর্থ বা সর্বশেষ পর্যায়ে আইন নাযিল করে সুদকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ ঘোষণা করেছেন। ফলে ইসলমী রাষ্ট্রের সীমানার মধ্যে সুদী লেনদের আইনত নিষিদ্ধ হয়ে যায় এবং প্রক্রিত পক্ষে সুদ সম্পূর্ণরূপে উচ্ছেদ হয়। নাযিলের ধারাবাহিকতা অনুসারে উক্ত আয়াতগুলো সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা নিম্নে পেশ করা হলোঃ

সূরাতুর রুম

সূরাতুর রূমের ৩৯ আয়াতে আল্লাহ বলেছেনঃ

[وَمَا آتَيْتُم مِّن رِّبًا لِّيَرْبُوَ فِي أَمْوَالِ النَّاسِ فَلَا يَرْبُو عِندَ اللَّهِ ۖ وَمَا آتَيْتُم مِّن زَكَاةٍ تُرِيدُونَ وَجْهَ اللَّهِ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الْمُضْعِفُونَ]

“মানুষের সম্পদের সাথে যুক্ত হয়ে বৃদ্ধি পায় এজন্য তোমরা যে সুদ দাও, আল্লাহর কাছে তা (সুদ) বাড়ে না; আর আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য তোমরা যে যাকাত দাও, তারাই (সেই যাকাত দানকারীরই) তাদের সম্পদ বৃদ্ধি করতে থাকে”।

পটভূমি

আল-কৃরআনের সুদ সংক্রান্ত আয়াতগুলোর মধ্যে এটিই সর্বপ্রথম, নববী ৫ম সাল তথা ৬১৫ খৃঃ নাযিল করা হয়। এ সময়ে সারা মক্কায় মাত্র মুষ্টিমেয় কয়েকশত লোক ঈমান এনেছেন। পরবর্তীকালে মদীনায় ইসলামী রাষ্ট্র কায়েম হলে সেখানে সুদকে আইনত নিষিদ্ধ এবং যাকাতকে ফরয করা হবে, এই লক্ষ্য সামনে রেখে মহামাহিম আল্লাহ এই প্রাথমিক পর্যায়েই ঈমানদারদেরক সুদ ও যাকাতের তাৎপর্য শিক্ষা দিয়েছেন। এই আয়াতে আল্লাহ তা’য়ালা সুদী অর্থনীতি ও সমাজব্যবস্থা এবং যাকাতভিত্তিক অর্থনীতি ও সমাজব্যবস্থার মধ্যে বিদ্যমান পার্থক্যের একটা শাশ্বত চিত্র তুলে ধরেছেন।

মূল বক্তব্য

আয়াতে আল্লাহ তা’য়ালা প্রথমে সুদদাতাদের লক্ষ্য করে সুদ সম্পর্কে দু’টি কথা বলেছেনঃ ১) সুদদাতারা সুদ হিসেবে যা দেয় তা অপর লোকদের (সুদগ্রহীতাদের) সম্পদের সাথে যুক্ত হয়ে তাদের সম্পদ বুদ্ধি করে, তাদের ধনী বানায় এবং ২) কিন্তু তা (সেই সুদ) আল্লাহর কাছে বাড়ে না। আয়াতের শেষাংশে আল্লাহ তা’য়ালা যাকাতদাতাদের সম্বোধন করেছেন এবং যাকাত সম্পর্কেও দুটো কথা বলেছেনঃ ১) যাকাত দিলে আল্লাহ সন্তুষ্ট হন’ আর ২) যাকাতদাতারাই তাদের সম্পদ বৃদ্ধি করতে থাকে। প্রথমে সুদ সংক্রান্ত দুটি এবং পরে যাকাত সংক্রান্ত দুটি কথার ব্যাখ্যা নিচে পেশ করা হলাঃ

সুদ

১. সুদ সম্পদ হস্তান্তর করে

সুদ লেনদেন প্রক্রিয়া বিশ্লেষণে দেখা যায়, সুদের মাধ্যমে সুদদাতদের সম্পদ সুদগ্রতীতাদের কাছে চলে যায় এবং তারা আরও ধনী হয়। সুদ সংক্রান্ত প্রথম কথায় আল্লাহ এই কথাই বুঝিয়েছেন। বর্তমানে সুদী বিশ্বে সুদভিত্তিক ঋণ গ্রহণের সাথে প্রধানত দুই শ্রেণীর মানুষ প্রত্যক্ষভাবে জড়িত। এরা হচ্ছেঃ ১) অভাবের তাড়নায় সুদী ঋণ গ্রহণে বাধ্য জনগোষ্ঠী এবং ২) ব্যবসায়িক প্রয়োজনে সুদী ঋণগ্রহীতা। এছাড়া সরকারও দেশী-বিদেশী ঋণদাতার কাছ থেকে সুদী ঋণ নিয়ে থাকে।

এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, অভাবের তাড়নায় যারা সুদী ঋণ গ্রহণ করে তারা সে ঋণের সম্পদ তাৎক্ষণিকভাবে অভাব পূরণার্থে ব্যয় করে ফেলে। এ ঋণ উৎপাদন কাজে খাটানো হয় না। সুতরাং এ ঋণের দ্বারা আয় বা সম্পদ বর্ধিত হওয়ার প্রশ্নই আসে না। অতঃপর ঋণগ্রহীতাগণ এ ঋণের সুদ পরিশোধ করে তাদের পূর্বার্জিত বা উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পদ থেকে—ভিটে-মাটি-স্ত্রী-সন্তান বিক্রি করে। ফলে তাদের সম্পদ প্রদত্ত সুদের সমপরিমাণে হ্রাস পায় এবং সেই সম্পদ গিয়ে ঋণদাতা পুজিঁপতিদের সম্পদ সমপরিমাণে বৃদ্ধি করে তাদের ধনী বানায়; এই লেনদেন মোট জাতীয় সম্পদে কোন বৃদ্ধি ঘটায় না।

দ্বিতীয়ত, উদ্যেক্তাগণ তাদের নিজ নিজ ব্যবসা, শিল্প বা কৃষিতে বিনিয়োগের জন্য সুদ প্রদানের শর্তে যে ঋণ গ্রহণ করে সেসব ঋনের সুদ তারা নিজেরা দেয় না; বরং ধার্যকৃত সুদকে উৎপাদন ব্যয় হিসেবে পণ্য-সামগ্রীর দামের সাথে যোগ করে দেয়। বিষয়টা এভাবে প্রকাশ করা যায়ঃ Cost of Production = Rent+Wages + Interest + Profit = Price’.অতঃপর বিনিয়োগকারীগণ দ্রব্যমূল্যের আকারে এ সুদ চূড়ান্ত ক্রেতা-ভোক্তা জনগণের কাছ থেকে আদায় করে ঋণদাতা ব্যাংক বা মহাজনের হাতে তুলে দেয়। ফলে ভোক্তাগণ প্রতিদিন তাদের ক্রীত প্রতিটি পণ্য-সামগ্রীর দামের সাথে সুদ দিতে বাধ্য হয়। এভাবে ক্রেতাদের প্রদত্ত সুদ ঋণগ্রহীতা উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে ঋণদাতা পুজিঁপতিদের কাছে হস্তান্তরিত হয়, পুজিঁপতিদের সম্পদের অংক বৃদ্ধি পায়; আর ভোক্তাদের সম্পদ সমপরিমাণে হ্রাস পায়; মোট সম্পদ বৃদ্ধি পায় না।

তৃতীয়ত, সরকার তার বাজেট ঘাটতিপূরণ, দুর্যোগ মুকাবিলা ও উন্নয়নমূলক কাজের জন্য দেশী-বিদেশী ঋণদাতা পুজিঁপতিদের নিকট থেকে সুদের ভিত্তিতে যে ঋণ গ্রহণ করে তার সুদও সরকার বর্ধিত কর আকারে জনগনের কাছ থেকে আদায় করে এবং দেশী-বিদেশী পুজিঁপতিদের ধার্যকৃত সুদ পরিশোধ করে। ফলে করদাতাদের সম্পদ সুদ আকারে সরকারের মাধ্যমে দেশ-বিদেশী পুজিঁপতিদের কাছে চলে যায়। এতে পুজিঁপতিদের সম্পদ যে পরিমাণে বাড়ে করদাতাদের সম্পদ সমপরিমাণে হ্রাস পায়; মোট সম্পদ বাড়ে না। সাইয়েদ কুতুব শহীদ আয়াতের ব্যাখ্যায় এ কথাটিই নিম্নরূপে লিখেছেনঃ

“সুদের ভিত্তিতে সূলধন নিয়ে যারা কলকারখানা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলে, তারা সুদ নিজেদের মূলধন বা মুনাফা অংশ থেকে দেয় না, তারা সেটা পণ্যের মূল্যের ওপর চাপিয়ে দেয়। ফলে এই সুদ কার্যত ব্যবহারকারী বা ভোক্তাদেরই দিতে বাধ্য করে। অন্যদিকে, সরকার যখন উন্নয়ন ও কল্যাণমূলক কাজে সুদের ভিত্তিতে ঋণ দেয় কিংবা গ্রহণ করে, তখনও সুদ দেওয়ার কাজটি শেষ পর্যন্ত জনগণের ওপরেই বর্তায় এবং পরিণামে তাদেরকেই সর্বস্বান্ত হতে হয়”। [সাইয়েদ কুতুব শহীদ: তাফসীর ফী যিলালিল কোরআন, বাংলা অনুবাদ, ২য় খণ্ড, আল-কোরআর একাডেমী, লন্ডন, ৪র্থ সংস্করণ, ২০০১, পৃ. ৭০-৭২]

তাফসীরে আল-মারাগীতে বলা হয়েছে যে, “সুদখোরের মাল বাহ্যত বৃদ্ধি পেলেও তা বৃদ্ধি পায় অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে নিয়ে নেওয়ার কারণে। কতকগুলো লোকের সম্পদ একজনের কাছে কেন্দ্রীভূত হয়, তাতে গোটা সমাজের সম্পদ অপরিবর্তিতই থেকে যায়”।[তাফসীরে আল-মারাগী, ৩য় খণ্ড,পৃ. ৭০-৭২]

আধুনিক অর্থনীতিবিদগণও বিষয়টি বিস্তারিত বিশ্লেষণ করেছেন। এ ব্যাপারে জেমস রবার্টসনের বক্তব্য হচ্ছে, “The pervasive role of interest in the economic system results in the systematic transfer of money from those who have less to tho~e who have more .... .it applies universally. It is partly because those who have more money to lend get more interest than those who have less; it is ·partly because the cost of interest repayments now forms a substantial element in the cost of all goods and services and the necessary goods and services looms much larger in the finances of the rich”[ames Robertson: Transforming Economic Life: A Millennia/ Challenge, Green Books, Devon, 1998, p. 51-54] ”অর্থনৈতিক পদ্ধতিকে সুদের ব্যাপক ও বিস্তৃত ভূমিকার ফলে যাদের সম্পদ কম তাদের কাছ থেকে যাদের সম্পদ বেশি তাদের কাছে অর্থ নিয়মিতভাবে হস্তান্তরিত হয়। এই প্রক্রিয়া সর্বত্র সক্রিয় (universal)। এই হস্তান্তর অংশত এই কারণে হয় যে, যাদের ঋণ দেওয়ার মত বেশি অর্থ আছে তারা যাদের অর্থ কম তাদের ছেয়ে অধিক সুদ পায়; আর অংশত এ কারণেও হয় যে, বর্তমানে সুদ পরিশোধ বাবদ ব্যয়কে সকল পণ্য-সামগ্রি ও সেবার উৎপাদন খরচের অন্যতম উপাদান হিসেবে ধরা হয়; আর বিত্তশালীদের অর্থায়ন দ্বারাই প্রয়োজনীয় যাবতীয় পণ্য-সামগ্রী ও সেবার ব্যাপক উৎপাদন হয়ে থাকে”।

রবার্টসন অন্যএ লিখেছেন, “The transfer of revenue from poor people to rich people, from poor places to rich places, and from poor countries to rich countries by money and finance system is systematic .... One cause of the transfer of wealth from poor to rich is the way interest payments and receipts work through the economy.’’[James Robertson: Future Wealth: A New Economics for the 21.11 Century, Castle Publications, London, 1990, p. 130-131] অর্থাৎ “অর্থ ও আর্থিক পদ্ধতির মাধ্যমে গরীব লোকদের ধনী লোকদের কাছে, দরিদ্র এলাকা থেকে বিত্তশালী এলাকায়, এবং গরীব দেশ হতে ধনী দেশে নিয়মিত ও ধারাবাহিকভাবে আয়/সম্পদ হস্তান্তরিত হয়ে থাকে.....। বিত্তহীনদের থেকে বিত্তশালীদের নিকট এইরূপে সম্পদ হস্তান্তরের অন্যতম কারণ হচ্ছে সুদের লেনদেন যা গোটা অর্থনীতিতে পরিব্যাপ্ত”।

একটি বাস্তব উদাহরণ দিলে বিষয়টি অধিকতর স্পষ্ট হবে। বাংলাদেশে বিগত কয়েক বছরের তথ্যে যে চিত্র পাওয়া যায় তা হচ্ছেঃ এদেশে প্রচলিত ব্যাংকগুলোর বছরে সুদ বাবদ আয় হয় ১৫-২০ হাজার কোটি টাকা। এই সুদ দেয় ভোক্তা-ক্রেতা জনগণ। আর তা পুজিঁপতিদের সম্পদ বৃদ্ধি করে। শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বের সব দেশেই সুদের মাধ্যমে ভোক্তাদেরকে এভাবে শোষণ করে পুজিঁপতিরা তাদের সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলছে।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সুদী ঋণব্যবস্থায় ধনী দেশগুলো এই একই পদ্ধতিকে গরীর, বিশেষ করে, তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোর কাছ থেকে সুদ আকারে সম্পদ শোষণ করে নিচ্ছে। অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থার (OECD) মতে, ১৯৮২ হতে ১৯৯০ সময়কালের মধ্যে উন্নয়নশীল দেশসমুহের প্রতি মোট সম্পদ প্রবাহের পরিমাণ ছিল ৯২৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এই সম্পদের বেশির ভাগই ছিল ঋণ। স্বাভাবিকভাবেই এ ঋণের ওপর সুদ পাওনা হয়েছে। ১৯৮২-১৯৯০- এর একই সময়ে উন্নয়নশীল দেশসমূহ কেবল ঋণ পরিশোধ বাবদ (আসল ও সুদ) ঋণদাতা দেশগুলোকে ফেরত দিয়েছে ১,৩৪২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিত্তশালী দেশগুলোর অনুকূলে উদ্বৃত্তের পরিমাণ ৪১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এই অস্বাভাবিক (Extra ordinary) অধিক পরিমাণ অর্থ ফেরত প্রদান সত্ত্বেও উন্নয়নশীল দেশগুলোর মোট ঋণের পরিমাণ কি বিন্দু মাত্রও হ্রাস পেয়েছে! দুর্ভাগ্য যে তা হয়নি। বরং ঋণগ্রহীতা দেশগুলো ১৯৮২ সালের তুলনায় শতকরা পূর্ণ ৬১ ভাগ অধিক ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে ১৯৯০ দশকের যাত্রা শুরু করেছে।“ [সূসান জর্জ: দি ডেবট বুমেরাং, হাউ দি থার্ড ওয়াল্ড ডেবট হারমস আস অল; প্লুটো প্রেস; লন্ডন, ১৯৯২]

উক্ত আলোচনায় প্রতীয়মান হয় যে, আয়াতরে এই অংশের প্রকৃত তাৎপর্য হচ্ছে, সুদ এর দাতা বহু লোক, বিশেষ করে ভোক্তা জনগনের কাছ থেকে সম্পদ হস্তান্তর করে কতিপয় পুঁজিপতির সম্পদ বর্ধিত করে তাদের ধনী বানায়। এই বৃদ্ধি আসলে বৃদ্ধি নয়, সম্পদরে হস্তান্তর মাত্র। সুদগ্রীতাদের সম্পদের বৃদ্ধি = সুদদাতাদের সম্পদের হ্রাস অথবা প্রদ্ত্ত সুদ = প্রাপ্ত সুদ। সুদহচ্ছে সম্পদ হস্তান্তরের একটি অতি বড় হাতিয়ার।

২. সুদ আল্লাহর কাছে বাড়ে না

কিছু কিছু লোক প্রশ্ন করেন, সুদের ভিত্তিতে ঋণ এনে বিনিয়োগ করার পর তাতে লাভ হয়; এই লাভ থেকে ঋণদাতার ধার্যকৃত সুদ পরিশোধ করা হয় এবং বিনিয়োগকারী ও এর অংশ পায়। এখানে সম্পদতো বাড়ছেই। সুতরাং ‘সুদ সম্পদ বাড়ায় না’—এ কথার প্রকৃত তাৎপর্য কি? কেউ কেউ আবার বলেন, সুদভিত্তিক অর্থনীতিতেও তো জাতীয় উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাহলে সুদ সম্পদ বৃদ্ধি করে না এ কথা কি যথার্থ?

সম্ভবত এসব প্রশ্নের প্রেক্ষিতেই কোন কোন তাফসীরকার বলেছেন, “আল্লাহর কাছে সুদ বৃদ্ধি পায় না” – এর তাৎপর্য হচ্ছে, এর জন্য পরকালীন জীবনে কোন প্রতিদান পাওয়া যাবে না”।[উসমানী, মুহাম্মদ তকি: পূর্বোক্ত, পৃ. ১৫] কেউ কেউ আবার বলেছেন, এর তাৎপর্য হচ্ছে সুদী কারবারে আল্লাহর আনুকূল্য ও বরকত থাকে না।[সিদ্দিকী, এম, এন: Riba Bank Interest and The Rationale of its Prohibition; Islamic Development Bank (IDB), Islamic Research and Training Institute, Jeddah, KSA, 2004, p.37 এবং উসমানী, উপরোক্ত, পৃ: ১৫]

তবে আল্লামা মওদুদী, সাইয়েদ কুতুব শহীদ ও ড. নেজাতুল্লাহ সিদ্দিকীসহ বেশ সংখ্যক গবেষক মনে করেন যে, কেবল পরকাল নয়, বরং এ পার্থিব জীবনেও আল্লাহর উক্ত বাণীর বাস্তবতা পরিলক্ষিত হয়।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা : সুদ ও আধুনিক ব্যাংক্যি, আধুনিক প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৯০, পৃ. ১৪-১৫: সিদ্দিকী : এম, এস, উপেরাক্ত, পৃ. ৪৪; সাইয়েদ কুতুব শহীদ : পূর্বোক্ত, পৃ. ৪৬৯-৪৭২]

আসলে আল্লাহই হচ্ছেন যাবতীয় সম্পদের মূল উৎস। এই উৎসে সম্পদের বৃদ্ধি না হলে বাস্তবে সম্পদ বৃদ্ধি পাওয়া সম্ভব নয়। তাই “ আল্লাহর কাছে সম্পদ বুদ্ধি পায় না” এর প্রকৃত তাৎপর্য হচ্ছে উৎসে সম্পদ বাড়ে না, মূলে বাড়ে না, আসলে বাড়ে না তথা মোট সম্পদ বৃদ্ধি পায় না। এই দিক থেকে আল্লাহর এ কথার অর্থ অত্যন্ত স্পষ্ট ও বাস্তব।

অর্থনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে বিচার করলে দেখা যায় যে. পৃথিবীতে সম্পদ বৃদ্ধির একমাত্র পথ হচ্ছে উৎপাদন; আর উৎপাদন করতে হলে প্রয়োজন বিনিয়োগ। এক কথায়, সম্পদ বৃদ্ধি পায় বিনিয়োগের দ্বারা। কিন্দু সুদের ভিত্তিতে ঋণ গ্রহণের মাধ্যমে বিনিয়োগ করা হলে সেখানে কেবল গৃহীত ঋণের আসলটাই বিনিয়োগ করা হয়; এর ওপর ধার্যকৃত সুদ বিনিয়োগ করা হয় না—বিনিয়োগ করা যায় না। উদাহরণস্বরূপ ধরা যাক, একজন বিনিয়োগকারী ১৫% সুদ প্রদানের শর্তে ১.০০ লক্ষ টাকা ঋণ নিয়ে শিল্পে বিনিয়োগ করলো। এক্ষেত্রে সে কেবল ১.০০ লক্ষ টাকাই বিনিয়োগ করতে পারবে। ১৫% ধার্যকৃত সুদ ১৫,০০০/- টাকা বিনিয়োগ করতে পারবে না। সুতরাং সম্পদ যদি বৃদ্ধি পায় তাহলে সে বৃদ্ধি হয় আসল ঋণ ১.০০ লাখ টাকা বিনিয়োগের ফলে; সুদের কারণে নয়। বস্তুতঃ সুদের সাথে সম্পদ বৃদ্ধির সম্পর্ক শুধু এতটুকু যে, সুদ ধার্য করতে রাজী হওয়ার কারণে বিনিয়োগের জন্য ঋণ পাওয়া যায়। সুদের বিনিময়ে ঋণ পাওয়া যায় এজন্য সুদই সম্পদ বাড়ায় একথা বলা যায় না; কারন সুদ ছাড়াও পুঁজি সংগ্রহের আরও উপায় আছে। এছাড়া ঋণগ্রহীতার বিনিয়োগে যদি লোকসান হয় তাহলে তার পূর্বের সম্পদ থেকে পুঁজির লোকসানজনিত ঘাটতি পূরণ করে আসল ঋণসহ ধার্যকৃত সুদ পরিশোধ করতে হয়। এ অবস্থায় তার মোট সম্পদ অবশ্যই হ্রাস পায়। সুতরাং সুদের দ্বারা মোট সম্পদ কখনও বাড়ে না বরং সুদ ঋণগ্রহীতার সম্পদ কমিয়ে দেয়। সুদ সম্পদ বাড়ায় না, অর্থনীতিতে এর আরও অনেক কারণ ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

অর্থনীতিতে বলা হয়েছে সম্পদ বৃদ্ধির সাথে বিনিয়োগের সম্পর্ক ইতিবাচক (Positive) অর্থাৎ বিনিয়োগ বাড়লে সম্পদ বাড়ে; আর বিনিয়োগ কমলে সম্পদ কমে। কিন্তু সুদের হারের সাথে বিনিয়োগের সম্পর্ক পরস্পর বিপরীতমুখী। সুদের হার বাড়লে বিনিয়োগের পরিমাণ হ্রাস পায়; আর সুদের হার কমলে বিনিয়োগের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।

সর্বজনবিদিত এ বিধি অনুসারে এ সত্যই প্রতিভাব যে, সুদের হার শূন্যে থাকলে পরিমাণ বিনিয়োগ, উৎপাদন ও কর্মসংস্থান হয়, সুদের হার শূন্য থেকে বেশি হলে বিনিয়োগ, উৎপাদন ও কর্মসংস্থান সেই সর্বোচ্চ স্তর থেকে নেমে যায় এবং সুদের হার শূন্য অপেক্ষা বেশি থাকা অবস্থায় আর কখনও তা সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌছতে পারে না, অবশ্য যদি অন্যান্য অবস্থা অপরিবর্তিত থাকে। সেজন্য লর্ড কীনসের মতো অর্থনীতিবিদ সুদের হারকে শূন্যে রাখার ওপর জোর দিয়েছেন এবং এ লক্ষ্যে সরকারকে তার Coercive power প্রয়োগ করার পরামর্শ দিয়েছেন।[জে. এম. কীনস: জেনারেল থিওরী অব এমপ্লয়মেন্ট, ইন্টারেস্ট এন্ড মানি,পৃ.৩৫১]

লর্ড কীনস পুঁজির প্রান্তিক দক্ষতার সাথে সুদের হারের সমতা বিধির সাহায্যে দেখিয়েছেন যে, সুদের হার বিনিয়োগ ও উৎপাদনকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছতে দেয় না; বরং পুঁজির প্রান্তিক দক্ষতা যেকানে সুদের হারের সমান হয়, বিনিয়োগ ও উৎপাদন সেখানেই থেমে যায়। অথচ সুদের হার শূন্য হলে পুঁজির প্রান্তিক দক্ষতা শূন্য হওয়া পর্যন্ত বিনিয়োগ হতো। [জে. এম. কীনস: উপরোক্ত, পৃ. ৩৫১[]

পূর্বেই বলা হয়েছে যে, সুদ দ্রব্যমূল্যের আকারে জনগণের সম্পদ শুষে নিয়ে পুঁজিপতিদের হাতে তুলে দেয়। এর ফলে জনগণের ক্রয়ক্ষমতা হ্রাস পায় এবং পণ্য-সামগ্রীর চাহিদা কমে যায়; ফলে বিনিয়োগ ও উৎপাদন হ্রাস করতে হয়; এমনকি এক পর্যায়ে মন্দা-মহামন্দা সৃষ্টি হয়ে অর্থনীতিকে স্থবির করে দেয়। বিনিয়োগ ও উৎপাদন প্রায় একবারেই বন্ধ হয়ে যায়। বেকারত্বের ব্যাপক ভারের ফলে অর্থনীতি ন্যুজ্বু হয়ে পড়ে। এছাড়া সুদ ঝুকিবহুল বিনিয়োগকে নিরুৎসাহিত করে, বিনিয়োগকে ফটকা খাতে ঠেলে দেয় এবং বাজারে অস্থিরতা সৃষ্টির মাধ্যমে বিনিয়োগ ও উৎপাদনকে বাধাগ্রস্ত করে। মানুষ ঝুঁকি গ্রহণপূর্বক পরিশ্রমের মাধ্যমে বিনিয়োগ করা অপেক্ষা নির্ধারিত সুদে অর্থ লগ্নি করার দিকে বেশি ঝুকেঁ পড়ে। যা বিনিয়োগ ও উৎপাদনকে ব্যাপকভাবে হ্রাস করে দেয়। (সুদের কুফল পর্যায়ে এসব বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।)

আল্লামা মওদূদী আলোচ্য আয়াতের ব্যাখ্যায় তাই বলেছেন, “একটু গভীরভাবে চিন্তা করলে দেখা যাবে যে, এ দুনিয়াতেও অর্থনৈতিক দিক দিয়ে এ মতাদর্শটি একটি শক্তিশালী ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত। ধন সঞ্চয় করে সুদী ব্যবসায় বিনিয়োগ করার অবশ্যম্ভাবী ফলস্বরূপ চতুর্দিক থেকে ধন আহরিত হয়ে মুষ্টিমেয় কয়েকজনের হাতে চলে আসবে। সাধারণ মানুষের ক্রয়-ক্ষমতা প্রতিদিন কমতে থাকবে। কৃষি, শিল্প ও ব্যবসার সর্বত্র মন্দাভাব দেখা দেবে। জাতীয় অর্থনৈতিক জীবন ধ্বংসের শেষ সীমায় পৌঁছে যাবে। অবশেষে এমন অবস্থার সৃষ্টি হবে যার ফলে পুজিঁপতিরাও নিজেদের সঞ্চিত ধন-সম্পদ অর্থ উৎপাদনের কাজে লাগানোর সুযোগ পাবে না”।[মওদূদী, আবুল আ’লা: পূর্বোক্ত, পৃ.১৪-১৫] মওদূদী তাঁর এ বক্তব্যের সমর্থনে একটি হাদীস উদ্ধৃত করেছেন। উক্ত হাদীসে বলা হয়েছে, “সুদের পরিমাণ যত বেশিই হোক না কেন অবশেষে তা কম হতে বাধ্য”।[উপরোক্ত, পৃ. ১৫ পাদটিকা-১](আহমদ)

আলোচনায় প্রতীয়মান হচ্ছে যে, সুদ সম্পদ হস্তান্তর করে, মোট সম্পদ বাড়ায় না। সম্পদ বৃদ্ধি হয় বিনিয়োগের দ্বারা, আর সুদ বিনিয়োগ করা যায় না, সুতরাং সম্পদ বৃদ্ধিতে সুদের কোন ভূমিকা নেই; বরং যে বিনিয়োগের মাধ্যমে সম্পদ উৎপাদন ও বৃদ্ধি করা হয় সুদ সে বিনিয়োগকেও সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌজতে দেয় না; নানাভাবে বিনিয়োগকে বাধাগ্রস্ত করে ও নিম্ন তর স্তরে ঠেকিয়ে রাখে।

‘আল্লাহর কাছে সুদ বাড়ে না’, আল্লাহ প্রদত্ত সুদের এই প্রাকৃতিক (natural) বিধি সত্য ও যথার্থ এতে কোন সন্দেহ নেই। সুদী অথনৈতিক ব্যবস্থায় তা যথাবিহিত কার্যকর রয়েছে; অর্থনীতিবিদগণও সে বিধি খুজেঁ পেয়েছেন-‍ আবিষ্কার করেছেন। সুতারাং এ কথা বিনা দ্বিধায় বলা যায় যে, সুদ সম্পদ বৃদ্ধিকে ঠেকিয়ে রাখে, বাড়তে দেয় না। তবে এ কথার অর্থ এটা নয় যে, অর্থনীতিতে বর্তমানে মোট যে পরিমাণ সম্পদ আছে তা আর কখনও বাড়বে না, বরং সুদ একে কমিয়ে দিবে। আসল কথা হচ্ছে, সুদী অর্থনীতিতে উদ্যোক্তাগণ প্রধানত সুদের ভিত্তিতে পুঁজি ধার নিয়ে বিনিয়োগ করে, অনেকেই নিজস্ব অর্থ বিনিয়োগ করে, আর অনেকেই আবার করযে হাসানাহ, অংশদারিত্ব ইত্যাদি পন্হায় পুঁজি সংগ্রহ করে কারবারে বিনিয়োগকরে। এসব বিনিয়োগিত অর্থের দ্বারা জমি ক্রয় বা ভাড়া নেয়া হয়, যন্ত্রপাতি কেনা হয়, শ্রম নিয়োগ করা হয়, কাঁচামাল ইত্যাদি সংগ্রহ করা হয়; ফলে পণ্য-সামগ্রী উৎপাদিত হয়। এতে মোট জাতীয় উৎপাদন বৃদ্ধি পাওয়া বা সম্পদ পূর্বের তুলনায় বেড়ে যাওয়া স্বাভাবিক। তবে তা হয় পুঁজি বিনিয়োগের ফলে; সুদের কারণে নয়। তাছাড়া, অর্থনীতির বিধির সাহায্যে দেখানো হয়েছে যে, সুদমুক্ত অর্থনীতিতে বিনিয়োগ ও উৎপাদন সবোর্চ্চ সীমায় পৌছা সম্ভব যা সুদী অর্থনীতিতে কখনও সম্ভব নয়।

যাকাত

১. যাকাত দিলে আল্লাহ সন্তুষ্ট হন

বস্তুতঃ যাকাত হচ্ছে সুদের বিপরীত। সুদ সাধারণ মানুষের সম্পদ শোষণ করে এনে কতিপয় পুঁজিপতির হাতে কুক্ষিগত করে দেয়, তাদের আরও ধনী বানায়; আর সাধারণ মানুষ ক্রয়-ক্ষমতা হারিয়ে নিজেদের অভাব পূরণে অক্ষম হয়ে পড়ে। অপরদিকে, যাকাতে বিত্তশালী,ধনী, পুজিঁপতিদের কাছ থেকে সম্পদ তুলে নিয়ে যাদের সম্পদ নাই তাদের মধ্যে বন্টন করা হয়। ফলে গরীব লোকদের হাতে ক্রয়-ক্ষমতা আসে, তারা নিজেদের অভাব পূরণে সামর্থবান হয়ে উঠে, তারা উপকৃত হয়। আল্লাহর নিঃস্ব অভাবী বান্দাগণ উপকৃত হওয়ায় আল্লাহ খুশী হন, সন্তুষ্ট হন। আল্লাহর সম্তূষ্টি অর্জন করার জন্যই যাকাত দেওয়া হয়; একমাত্র এই নিয়তেই যাকাত দেওয়া বিধেয়।

২. যাকাত দাতারাই তাদের সম্পদ বৃদ্ধি করতে থাকে

আপাতদৃষ্টিতে দেখা যায় যে, যাকাত যারা দেয় তাদের সম্পদ প্রদত্ত যাকাতের সমপরিমাণে হ্রাস পায়। কিন্তু মহামহিম আল্লাহ এখানে এর বিপরীত কথা বলেছেন। আল্লাহ সুনির্দিষ্টভাবে বলেছেন তারাই, মানে সেই যাকাত দানকারীরাই; অতঃপর সম্পদ বৃদ্ধি করে বলেননি, ‘বৃদ্ধি করতে থাকে’ (conrinuous) বলেছেন। যাকাতদাতারা কিভাবে নিজেদের সম্পদ বৃদ্ধি করতে থাকে সে বিষয়টি বুঝা দরকার। যাকাত লেনদেন ও তার বাস্তব ফলাফল বিশ্লেষণ করলে বিষয়টি বুঝতে অসুবিধা হয় না।

উপরে বলা হয়েছে, যাকাতের সম্পদ পাওয়ার ফলে যাকাত গ্রহীতা দারিদ্র জনসাধারণের হাতে ক্রয়-ক্ষমতা সৃষ্টি হয়। তারা এ সম্পদ দ্বারা নিজেদের অভাব পূরণার্থে প্রয়োজনীয় পণ্য-সামগ্রী ক্রয় করে। ফলে বাজারে পণ্য-সামগ্রীর কার্যকর চাহিদা (effective demand) বেড়ে যায়। পণ্য-সামগ্রীর দাম বৃদ্ধি পায় এবং অধিক মুনাফার সম্ভাবনা দেখা দেয়। বিনিয়োগকারীরা উৎসাহিত হয়; অধিক মুনাফা পাবার আশায় তারা দ্রুত পণ্য-সামগ্রী উৎপাদনের জন্য বিনিয়োগ করতে এগিয়ে আসে। আর বিনিয়োগ কেবল তারাই করে যারা যাকাত দেওয়ার যোগ্য- সাহিবে নিসাব। কারণ, বিনিয়োগ করার মত পুঁজি কেবল সাহিবে নিসাব কিছু লোকের কাছেই থাকে; যাকাত প্রদানে অযোগ্য লোকদের কাছে পুঁজি থাকে না। সুতরাং যাকাতদাতাদের মধ্যে যাদের হাতে পুজিঁ আছে তারাই বিনিয়োগ করে; পণ্য-সামগ্রী উৎপাদন ও বিক্রি করে তারাই লাভ পায়। আর এসব প্রথম পণ্য-সামগ্রী যাকাত বাবদ প্রাপ্ত অর্থ দ্বারা তারাই ক্রয় করে যারা যাকাতের সম্পদ পেয়েছে। সুতরাং যাকাতদাতাগণ যাকাত হিসেবে যে অর্থ প্রদান করে পণ্য-সামগ্রীর দাম আকারে তা আবার যাকাতদাতা বিনিয়োগ ও উৎপাদনকারীদের কাছেই ফিরে আসে। তাদের সম্পদ বৃদ্ধি পায়। ব্যাপারটা এখানেই শেষ হয় না; বরং প্রথমবার বিনিয়োগ ও উৎপাদন করতে বাড়তি শ্রমিক নিয়োগ করতে হয়। ফলে বেকার লোক যাদের আয়-রোজগার, ক্রয়-ক্ষমতা নেই, তাদের কর্মসংস্থান হয়; শ্রমের মজুরী পাওয়ায় তাদের হাতে ক্রয়-ক্ষমতা সৃষ্টি হয়। সুতরাং এসব শ্রমিক তাদের অভাব পূরণার্থে প্রাপ্ত মজুরী ব্যয় করে পণ্য-সামগ্রী ক্রয় করে। ফলে পন্যের কার্যকর চাহিদা আবার বৃদ্ধি পায়। যাকাতদাতা বিনিয়োগকারীদেরকে আবার তাদের বিনিয়োগ বৃদ্ধি করতে হয়। এভাবে পুনরায় তারা উৎপাদিত পণ্য-সামগ্রী বিক্রয় করে মুনাফা অর্জন করে। ঘটনা এখানেই শেষ হয় না। বরং দ্বিতীয়বার বিনিয়োগ বৃদ্ধি করতে আবার শ্রমিক নিয়োগ করতে হয়। আবার কিছু বেকার লোক কাজ পায়, মজুরী পায়। নতুন করে তাদেরও ক্রয়-ক্ষমতা সৃষ্টি হয়। এই ক্রয়-ক্ষমতা ব্যয় করে তারা আবার পণ্য-সামগ্রী ক্রয় করে। যাকাতদাতা বিনিয়োগকারীগণ আবারও বিনিয়োগ-উৎপাদন বৃদ্ধি করে। তৃতীয়বার বিনিয়োগে আবার শ্রমিক লাগে। এইভাবে ধাপে ধাপে চলতে থাকে। মোট কথা, যাকাত ক্রয়-ক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পণ্য-সামগ্রীর চাহিদা বৃদ্ধি করে এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধিকে অপরিহার্য করে তোলে। অতঃপর যেহেতু বিনিয়োগ কেবল যাকাতদাতারাই করে সেহেতু আল্লাহ বলেছেন, ‘সেই যাকাত দানকারীরাই’। আর তারা একবার বৃদ্ধি করে থেমে যায় না, ধাপে ধাপে বৃদ্ধি করতে থাকে। এজন্য বলেছেন, ‘বৃদ্ধি করতে থাকে’। আল্লাহর শব্দ প্রয়োগ যে কত বাস্তব তা অবশ্যই অনুধাবন করার বিষয়।

আল্লামা মওদুদী সংক্ষেপে অথচ অতি সুন্দরভাবে এর ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি বলেছেন, “অর্থ-সম্পদ ব্যয় করলে এবং যাকাত ও সাদাকাহ দান করলে পরিণামে জাতির সকল বক্তির হাতে এ সম্পদ ছড়িয়ে পড়ে। প্রত্যেক ব্যক্তি যথেষ্ট ক্রয়-ক্ষমতার অধিকারী হয়। শিল্পোৎপাদন বেড়ে যায়, সবুজ ক্ষেতগুলো শস্যে ভরে উঠে, ব্যবসা-বাণিজ্যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়... সবার অবস্থা সচ্ছল হয় এবং সব পরিবারই হয় সমৃদ্ধিশালী।“[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা: পূর্বোক্ত, পৃ. ১৫]

উক্ত বিশ্লেষণের ভিত্তিতে এ কথা বলা যায় যে, আল্লাহ এই আয়াতের দ্বারা সুদ ও যাকাতের প্রকৃত অর্থনৈতিক তাৎপর্য তুলে ধরেছেন। একদিকে আল্লাহ সুদের ভিত্তিমূলে আঘাত কারেছেন এবং তা ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়েছেন; অপরদিকে, যাকাতের সুফলের কথা জানিয়ে যাকাতদাতাদের উদ্বুদ্ধ করেছে।

সূরাতুন্নিসা

সূরাতুন্নিসার ১৬০-৬১ আয়াতে আল্লাহ বলেছেনঃ

فَبِظُلْمٍ مِّنَ الَّذِينَ هَادُوا حَرَّمْنَا عَلَيْهِمْ طَيِّبَاتٍ أُحِلَّتْ لَهُمْ وَبِصَدِّهِمْ عَن سَبِيلِ اللَّهِ كَثِيرًا [٤:١٦٠]وَأَخْذِهِمُ الرِّبَا وَقَدْ نُهُوا عَنْهُ وَأَكْلِهِمْ أَمْوَالَ النَّاسِ بِالْبَاطِلِ ۚ وَأَعْتَدْنَا لِلْكَافِرِينَ مِنْهُمْ عَذَابًا أَلِيمًا [٤:١٦١

“ইহুদী নীতি অবলম্বনকারীদের জুলুমের কারণে আমরা তাদের জন্য এমন অনেক পবিত্র জিনিস হারাম করে দিয়েছি যা পূর্বে তাদের জন্য হালাল ছিল। আর এ কারণেও যে, তারা নিজেরা আল্লাহর পথ হতে বিরত রাখতো; আর এ কারণেও যে, সুদ গ্রহণ করতো যদিও তা থেকে তাদের নিষেধ করা হয়েছিল; আর তারা মানুষের সম্পদ অন্যায়ভাবে ভক্ষণ করতো। তাদের মধ্যে যারা কাফির তাদের জন্য আমরা পীড়াদায়ক আযাব তৈরী করে রেখেছি”।

পটভূমি এ মূল বক্তব্য

রাসূলূল্লাহ (সাঃ) মদীনায় হিজরত করার পর ৩য় হিজরী সালের শেষার্ধ থেকে ৪র্থ সালের শেষ অথবা ৫ম সালের ১ম ভাগের মধ্যেই সূরাতুন্নিসা নাযিল হয়েছে। মদীনায় সেকালে বেশ সংখ্যক ইহুদী গোত্র বাস করত। আর সেখানে ইহুদীরাই সুদী কারবার করত। এই প্রেক্ষাপটে এই আয়াত নাযিল হয়।

সূরাতুন্নিসার এই আয়াতে আল্লাহ ইহুদীদের প্রতি অঙ্গুলি নির্দেশ করে বলছেন যে, ইহুদীদের জন্য সুদ নিষিদ্ধ করা হয়েছিল; কিন্তু ইহুদীরা সে নিষেধাজ্ঞা লংঘন করে সুদ গ্রহণ করেছ আর পরের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়েছে। সুদ গ্রহণ ও অন্যায় ভক্ষণসহ অন্যান্য জুলুমমূলক কাজ করায় ইহুদীরা দুনিয়ায় আল্লাহর গযরে নিপতিত হয়েছে এবং পরকালে কঠিন পীড়াদায়ক আযাবে নিক্ষিপ্ত হবে। দুনিয়া-আখেরাতে ইহুদীদের এই ভয়াবহ পরিণতির ঐতিহাসিক তথ্য তুলে ধরে আল্লাহ মানব জাতিকে সজাগ, সচেতন ও সতর্ক করেছেন, যাতে মানুষ এ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করে এবং ইহুদীদের আচরণ অনুসরণ না করে। বস্তুতঃ এ বিষয়ে প্রথম নাযিলকৃত আয়াতে সুদের বাস্তর চেহারা উন্মোচন করার পর দ্বিতীয় পর্যায়ে নাযিলকৃত এই আয়াতে আল্লাহ তা’য়ালা সুদের বাস্তব পরিণতির ঐতিহাসিক তথ্য-চিত্র তুলে ধরেছেন।

আলোচ্য আয়াতদ্বয়ে আল্লাহ তা’য়ালা সুদকে সুস্পষ্টভাবে অন্যায় ভক্ষণের মধ্যে শামিল করেছেন এবং একে অতি বড় জুলুম বলে অভিহিত করেছেন।

১. সুদ একটি অন্যায় ভক্ষণ ও জুলুম

জুলুম শব্দ দ্বারা সাধারনত অবিচার ও বেইনসাফীকে বুঝায়। শব্দটি ইনসাফ বা সুবিচার শব্দের বিপরীত। সুবিচার হচ্ছে ‘আদল’ বা ন্যায়বিচার। আদল বা ন্যায়বিচার অর্থ হচ্ছে, ভারসাম্য ও সুষমতা এবং ন্যায্য অংশ নিশ্চিত করা। এর বিপরীত কাজ করার নাম হচ্ছে জুলুম। আল্লামা মওদূদী লিখেছেন, জুলুম শব্দের আসল অর্থ হচ্ছে, কারও অধিকার হরণ করা।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা: তাফহীমূল কুরআন, সূরা লোকমান, টীকা-২১] সে হিসেবে প্রত্যেক ব্যক্তিকে তার অধিকার যথাযথভাবে ও সততার সাথে প্রদান করা হচ্ছে সুবিচার। আর এর বিপরীত, কোন ব্যক্তির প্রাপ্য বা তার কোন অধিকার ক্ষুণ্ন করা বা তা থেকে তাকে বঞ্চিত করা হলে তাই হয় অবিচার বা জুলুম। আকরাম খান বলেছেন, "Zulm refers to all forms of inequity, injustice and exploitation” [Khan, Mohammad Akram: An Introduction to Islamic Economics, The International Institute of Islamic Thought and Institute of Policy Studies,Islamabd, 1994, p. 133.] অন্যায় ভক্ষণ একটি জুলুম; কারণ এতে অপরের সম্পদ নেওয়া হয়, অথচ যার সম্পদ নেওয়া হয় তাকে কোন বিনিময় বা দাম দেওয়া হয় না। চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, ঘুষ, জুয়া এগুলো সবই অন্যায় ভক্ষণ ও জুলুম।

আল্লাহ তা’য়ালা সুদগ্রহণ ও অন্যায় ভক্ষণকে একই আয়াতে এনে সুদকে অন্যায় ভক্ষণের মধ্যে শামিল করেছেন।[চাপরা, এম, ওমর, The Nature ofRiba, Journal oflslamic Banking and Finance. Vol. 6, No.3, July-September, Summer Issue, 1989, p. 7.] কারণ, সুদ গ্রহণ করে গ্রহীতা তার বিনিময় দেয় না। ড. সিদ্দিকী লিখেছেন, “....riba amounting to unlawful appropriation of other people's property is indicated in the verse."[সিদ্দিকী, এম, এনঃ পূর্বোল্লেখিত, পৃ, ৪৩] আল-মারাগী বলেছেন, “সুদ বিনিময় ছাড়াই পরের ধন কেড়ে নেয়, এর চেয়ে বড় জুলুম আর কি হতে পারে”।[তাফসীরে আল-মারাগী, ৩য় খণ্ড, পৃ. ৮৪-৮৭] তিনি বিনিময় ছাড়া মূলধনের অতিরিক্ত গ্রহণ করাকেই সুদ নিষিদ্ধ হওয়ার কারণ বলে উল্লেখ করেছেন।[উপরোক্ত, উদ্ধৃত, আব্দুর রহীম: আল-কুরআরে অর্থনীতি, ১ম খণ্ড, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ, ১৯৯০, পৃ. ২৪২] এ বিষয়ে আল্লামা ইবনুল কায়্যিম বলেছেন, “জাহেলিয়্যাতের যুগে নাসিয়া সুদর ব্যাপকভাবে প্রচলিত ছিল। তাতে ঋণ ফেরত দেওয়ার মেয়াদ বাড়িয়ে দেওয়া হতো এবং সেই হিসেবে ঋণের পরিমাণও বৃদ্ধি করে দেওয়া হতো। একশত টাকা কয়েক শত গুণ বেড়ে হাজার টাকায় পরিণত হতো। ফলে এ সুদে ক্ষতির মাত্র অত্যন্ত তীব্র ও সাংঘাতিক রূপ পরিগ্রহ করতো। ঋণগ্রহীতার স্পাবর-অস্থাবর সব সম্পত্তিই গ্রাস হয়ে যেত এবং সে সুদ বাবদ বিপুল সম্পদ দিয়ে দিতে বাধ্য হতো তার দ্বারা কোনরূপ ফায়দা না দিয়েই। ফলে ভাইয়ের সম্পদ বাতিল ভক্ষণে পরিণত হতো; আর তার ভাই সে কারণে কঠিন বিপদে পড়ে যেত। এই প্রেক্ষিতে সুদ হারাম করা হয়েছে, যা জনগণের জন্য মারাত্মক জুলুম”।[উদ্ধৃত, আব্দুর রহীম: পূর্বোক্ত, পৃ. ২৫৪-২৫৫]

২. ইহুদী জাতির সুদখোরী

বর্তমান বিশ্বে ব্যাপকভাবে প্রচলিত সুদী ব্যাংক ব্যাবস্থার গোড়াপত্তন ইহুদী স্বর্ণকারদের (Goldsmiths) হাতে হয়েছিল বলে ঐতিহাসিকভাবে মনে করা হয়। সুদূর অতীতে এক সময়ে কেউ সোনা সঞ্চয় করলে নিরাপদ হেফাজতের জন্য তা ইহুদী গোল্ডস্মিথদের কাছে গচ্ছিত রাখত এবং এ মর্মে একটি রসিদ লিখে নিত। কালক্রমে এই রসিদগুলোই বিনিময়ের মাধ্যম হয়ে উঠে। ফলে দরকার না হওয়ায় সোনা জমাকারীগণ তাদের গচ্ছিত স্বর্ণ তুলে নিতে আসতো না। সোনা সারা বছর গোল্ডস্মিথদের সিন্দুকই পড়ে থাকতো। এই সুযোগে গোল্ডস্মিথগণ গচ্ছিত সোনা ধার দিয়ে তার ওপর সুদ আদায় করতে লাগল। অতঃপর গোল্ডস্মিথগণ যখন বুঝতে পারল যে, ঋণগ্রহীতাই আসছে, তখন তারা আর এক ধাপ এগিয়ে গেল। এবার তারা একই সোনার বিপরীতে বহুসংখ্যক জাল জমার রসিদ তৈরী করে সেই (জাল) রসিদগুলো ধার দিয়ে তার ওপর সুদ গ্রহণ করতে লাগলো। গোল্ডস্মিথেরা এভাবেই সম্পূর্ণ ভূয়া মুদ্রার আকারে শতকরা ৯০ ভাগ জাল মুদ্র তৈরী করে তার মালিক সেজে প্রভূত পরিমাণে সুদ অর্জন করত।

নিঃসন্দেহে এটি একটি অতি বড় প্রতারণা ও জালিয়াতি ব্যবসা। কিন্তু দেশের রাজা, মন্ত্রী, আমীর-উমার সবাই পুজিঁপতিদের ঋণের জালে আটকা পড়েছিল। এমনকি, যুদ্ধ এবং অন্যান্য সংকট মুকাবিলা করার জন্য বিভিন্ন দেশের সরকারও তাদের কাছ থেকে বড় বড় ঋণ নিয়েছিল। ফলে সুদখোরদের এই জালিয়াতি ব্যবসার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নৈতিক বল ও শক্তি-সাহস কারও ছিল না। এভাবেই এই বিরাট প্রতারণা ও জালিয়াতি কারবার ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে; শুধু তাই নয়, বরং সরকারসমূহের দুর্বলতার সুযোগে পুজিঁপতিগণ নানা কৌশলে একে আইনত বৈধ করে নিয়েছে এবং এতদসংক্রান্ত সকল আইন যাতে তাদের স্বার্থের পক্ষে থাকে তারও পাকাপোক্ত ব্যবস্থা তারা করে নিয়েছে। আধুনিককালে প্রচলিত ব্যাংক ব্যবস্থায় ব্যাংকের জাদুকরী ক্ষমতা বলে খ্যাত Multiple creation- এর মাধ্যমে ব্যাংকগুলো যা করছে তা গোল্ডস্মিথদের এ্ জালিয়াতি পদ্ধতি বৈ কিছু নয়।

ইহুদীরা যে সুদ গ্রহণ করতো, তা আরবে প্রচলিত সুদের অনুরূপ ছিল। আল-তাবারি এর ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছেন, “তারা (ইহুদীরা) যে সুদ গ্রহণ করতো তা আসল পরিমাণের ওপর পরিশোধের মেয়াদ বাড়ানোর বিনিময়ে অতিরিক্ত হিসেবে ধার্য করা হতো।[আল-তাবারি; জামে আল-বয়ান, ভলি-৬, পৃ. ১৭] এ ক্থার তাৎপর্য হচ্ছে সে কালে “ঋণ ও ক্রয়-বিক্রয় থেকে সৃষ্ট দায়ের ওপর রিবা ধার্য করা হতো”।[বাদাবী, যাকি আল দ্বীন : Theory of Prohibited Riba, ইংরেজী অনুবাদ, ইমরান আহসান খান নিয়াজী, [email protected], ২০০৪, পৃ; ৭৮]

বনি ইসরাঈলদের মধ্যে প্রচলিত সুদের বর্ণনা দিয়ে বাদাবী বলেছেন, “বনি ইসরাঈলদের সুদ মুদ্রার ওপর ধার্য করা হতো। আর সেকালে রৌপ্য ও খাদ্য-দ্রব্যই বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হতো।[বাদাবী, যাকি আল-দ্বীনঃ উপরোক্ত, পৃ. ৭৯-৮০] তিনি বলেছেন, বনি ইসরাঈলদের মধ্যে প্রচলিত সুদ ও জাহেলী যুগে আরবে প্রচলিত সুদ ছিল এক ও অভিন্ন এবং আজও ইহুদীদের মধ্যে সেই সুদই চালু রয়েছে। বর্তমানে তাদের মাধ্যে প্রচলিত সুদ হচ্ছে , ঋণের ওপরে সময়ের ভিত্তিতে ধার্যকৃত অতিরিক্ত, যদিও সুদের হারে পরিবর্তন হয়েছে”।[বাদাবী, যাকি আল-দ্বীনঃ উপরোক্ত, পৃ. ৭৯-৮০]

বস্তুতঃ ইহুদীরা সুদী কারবারে এতটাই অভ্যস্ত ও মত্ত হয়ে পড়েছিল যে, তারা আল্লাহর পক্ষ থেকে নাযিলকৃত সুদের নিষেধাজ্ঞাকে নিজেদের পক্ষে পরিবর্তন করে নেওয়ার দুঃসাহস দেখাতেও কুন্ঠিত হয়নি। সুদের মনস্তাত্ত্বিক বিশ্লেষণে দেখা যায় যে, অর্থ সঞ্চয়ের আকাঙ্খা থেকে শুরু করে সুদী কারবারের বিভিন্ন পর্যায়ে যাবতীয় কর্মকাণ্ড স্বার্তন্ধতা, কার্পণ্য, সংকীর্ণমনতা, মানসিক কাঠিন্য ও অর্থপূজার পাদর্শিতার প্রভাবাধীনে পরিচালিত হয়। ফলে সুদ মানুষের মধ্যে অর্থলিপ্সা, লোভ, স্বার্থপরতা ও সহানুভূতিহীন মানসিকতার জন্ম দেয়।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা: প্রগুক্ত, পৃ. ৮২] ঝুকিঁমুক্ত, নির্ধারিত ও নিশ্চিত আয় পাবার লোভ মানুষের বিবেচনা, আচার-আচরণ, এমনকি বিবেককে পর্যন্ত আচ্ছন্ন করে ফেলে এবং মানুষের ন্যায়-অন্যায়বোধকে বিকৃত করে দেয়। স্বার্থের কারণে মানুষ যে কোন ন্যায়কে অন্যায় এবং অন্যায়কে ন্যায় ঘোষণা করতে বিন্দুমাত্র কুন্ঠিত হয় না। ইহুদী জাতির এই অবস্থাই হয়েছিল।

৩. ইহুদী জাতির শাস্তি

সুদের নিষেধাজ্ঞা লংঘন করে সুদ গ্রহণ ও পরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস ইত্যাদি জুলুম করার কারণে আল্লাহ এ দুনিয়াতে ইহুদীদের জন্য কতিপয় পবিত্র ও হালাল খাদ্য হারাম করে দিয়েছেন। এ নিষেধাজ্ঞা কিয়ামত পর্যন্ত বহাল থাকবে এবং শেষ দিন পর্যন্ত তারা এ শাস্তি ভোগ করবে।

কুরআন মজীদের অন্য আয়াত থেকে জানা যায় ইহুদীদের জন্য যেসব হালাল জিনিস হারাম করা হয়েছিল সেগুলো ছিল খুর বিশিষ্ট সকল জন্তুর গোশত এবং গাভী ও ছাগলের চর্বি (৬:১৪৬)। আল-কুরআন এ কথাও জানিয়ে দিয়েছে যে, তাওরাত নাযিল হওয়ার পূর্বে ইসরাঈল (ইয়াকুব আঃ ) নিজে এসব জিনিস ব্যবহার করতেন না(৩:৯৩)। এ থেকে বুঝা যায় যে, আল্লাহ তাঁর নবীর কাছে আয়াত নাযিল করে ইহুদীদের জন্য এসব খাদ্য হারাম করেছেন- ব্যাপার আসলে তা নয়; বরং নবী ব্যবহার না করায় পরবর্তী বংশধরেরা তা বর্জন করেছে। কালক্রমে তাদের আলেম ও ফকীহগণ এসবকে হারাম মনে করতে শুরু করে এবং শেষ পর্যন্ত আল্লাহর পক্ষ থেকে তাদের ওপর চাপিয়ে দেওয়া জুলুমবাজ, কৃত্রিম ও জাল আইন প্রণেতারা এসব ভাল ও পাক্ জিনিস হারাম করে আইন প্রণয়ন করে আল্লাহর বিধান বলে জারি করে দিয়েছে এবং পরবর্তীতে তাওরাতে সংযোজন করে নিয়েছে। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় যে, বর্তমান ইহুদী শরীয়াত লিপিবদ্ধ করার কাজ দ্বিতীয় খৃস্টাব্দের শেষের দিকে ............. ইয়াহুদার হাতে সম্পন্ন হয়েছে।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লাঃ তাফহীমূল কুরআন, ৩য় খণ্ড, ১ম সংস্করণ, আধুনিক প্রকাশনী, ১৯৯৪, পৃ. ১৭৬-১৭৭]

উপরোক্ত শাস্তি ছাড়াও সূরা আলে ইমরানে আল্লাহ দুনিয়াতে ইহুদীদের ওপর নিপতিত গযবের বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছেন। এতে বলা হয়েছেঃ

“এরা যেখানে গিয়েছে সেখানেই এদের ওপর অপমানের মার পড়েছে, আল্লাহর দায়িত্বে কিংবা মানুষের দায়িত্বে কোথাও কিছু আশ্রয় পেয়ে থাকলে ভিন্ন কথা। আল্লাহর গযব তাদেরকে একেবারে ঘিরে রেখেছে; তাদের ওপর অভাব, দারিদ্র্য ও পরাধীনতা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর এসব কিছু এজন্য হয়েছে যে, তারা আল্লাহর আয়াতকে অমান্য করেছে এবং পয়গাম্বরদের অন্যায়ভাবে হত্যা করেছে। বস্তুতঃ এটা তাদের নাফরমানি ও অত্যাধিক বাড়াবাড়ির ফল”। (৩:১১২)

আল্লাহর আদেশ অমান্য, আল্লাহর নাফরমানি ও বাড়াবাড়ি করার কারণেই ইহুদীরা উক্ত গযবে নিপতিত হয়েছে আয়াতে স্পষ্ট করেই সে কথা বলা হয়েছে। আর সুদের নিষেধাজ্ঞা লংঘন, সুদ গ্রহণ ও পরের সম্পদ অন্যায়ভাবে খাওয়াও আল্লাহর আদেশ অমান্য, আল্লাহর নাফরমানি ও বাড়ারাড়ি করার মধ্যে শামিল। ইহুদীরা সুদের নিষেধাজ্ঞা অগ্রাহ্য করে সুদ খেয়েছে শুধু তাই নয়, তারা সুদের আয়াত পরিবর্তন করার ধৃষ্টতাও প্রদর্শন করেছে।

বস্তুতঃ দুনিয়ায় যারা সুদ খায় তারা সামাজে সুদখোর-শোষক বলে ঘৃণিত ও নিন্দিত হয়। দুনিয়ার সর্বত্র সুদখোর মাহাজনদের দিকে তাকালে এর সত্যতা পাওয়া যায়। ইহুদীরা জাতি হিসেবে সুদখোর; আল্লাহর নফরমানির ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ি করা তাদের বৈশিষ্ট্য। তাদের শাস্তি অনেক বেশি ও ব্যাপক। মার্চেন্ট অব ভেনিসের শাইলক হচ্ছে ইহুদীদের প্রতিভূ-শোষক-ঘৃণ্য। “পৃথিবীর অন্যানা জাতি দুনিয়ায় যে সব উত্তম জীবিকা উপভোগ করে, সুদীর্ঘকাল ইহুদীদের সেসব থেকে বঞ্চিত রাখা হয়েছে। [২৭] দুই হাজার বছর পর্যন্ত পৃথিবীর কোথাও তারা সম্মানজনক আশ্রয় পায়নি। দুনিয়ায় তাদেরকে বিচ্ছিন্ন বিক্ষিপ্ত করে দেওয়া হয়েছে। অগাধ ধন-দৌলত থাকা সত্ত্বেও দুনিয়ার কোথাও তাদের এক বিন্দু শ্রদ্ধার চোখে দেখা হয়নি। দুনিয়ার বুকে এ জাতিকে না-মৃত্যু না-জীবন-এরা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকে। এদের ইতিহাস যেন চিরদিন দুনিয়াকে এ শিক্ষা দেয় যে, আল্লাহর কিতাব নিজের হাতে থাকা সত্ত্বেও আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহমূলক আচরণ অবলম্বন করার দুঃসাহসের পনিণতি কি হয়। এরপর পরকালের আযাবতো আরও অধিক ভয়ঙ্কর হবে”।[২৮] বস্তুতঃ সুদ দুনিয়ায় ঘৃণা অপমান, জিল্লাতি আর পরকালীন আযাবের বাহক। ইহুদী জাতি তার সাক্ষী।

সুরাতু আলে-ইমরান

সূরাতু আলে ইমরানের ১৩০-১৩৪ আয়াতে আল্লাহ বলেছেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا تَأْكُلُوا الرِّبَا أَضْعَافًا مُّضَاعَفَةً ۖ وَاتَّقُوا اللَّهَ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ [٣:١٣٠]وَاتَّقُوا النَّارَ الَّتِي أُعِدَّتْ لِلْكَافِرِينَ [٣:١٣١]وَأَطِيعُوا اللَّهَ وَالرَّسُولَ لَعَلَّكُمْ تُرْحَمُونَ [٣:١٣٢]۞ وَسَارِعُوا إِلَىٰ مَغْفِرَةٍ مِّن رَّبِّكُمْ وَجَنَّةٍ عَرْضُهَا السَّمَاوَاتُ وَالْأَرْضُ أُعِدَّتْ لِلْمُتَّقِينَ [٣:١٣٣]الَّذِينَ يُنفِقُونَ فِي السَّرَّاءِ وَالضَّرَّاءِ وَالْكَاظِمِينَ الْغَيْظَ وَالْعَافِينَ عَنِ النَّاسِ ۗ وَاللَّهُ يُحِبُّ الْمُحْسِنِينَ [٣:١٣٤]

“হে ঈমানদারগণ, দ্বিগুণ-চতুর্গুণ-বহুগুণ বর্ধিত সুদ খেয়ো না; আল্লাহকে ভয় কর। আশা করা যায় তোমরা সফল হবে। আর সেই আগুনকে ভয় কর যা কাফেরদের জন্য প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের আনুগত্য কর, সম্ভবত তোমাদের প্রতি রহম করা হবে। তোমার রবের ক্ষমা ও জান্নাতের দিকে দ্রুত এগিয়ে যাও, যা আকাশ এ পৃথিবীর ন্যায় বিস্তৃত এবং যা সেই মুত্তাকীদের জন্য তৈরী করা হয়েছে যারা সচ্ছল-অসচ্ছল সর্বাবস্থাতেই নিজেদের ধন-মাণ খরচ করে, যারা ক্রোধ হজম করে এবং মানুষের অপরাধ ক্ষমা করে দেয়। আল্লাহ মুহসিন লোকদের ভালবাসেন”।

পটভূমি

বিশিষ্ট তাফসীরকারদের মতে, আল-কুরআনের সুদের আয়াতগুলোর মধ্যে উল্লেখিত আয়াত কয়টি তৃতীয় পর্যায়ে উহুদ যুদ্ধের পরে নাযিল করা হয়েছে। উহুদ যুদ্ধে মুসলিম বাহিনী প্রথমে বিজয়ী হয়েছিল; কিন্তু শেষে মুসলিমগণ পর্যুদস্ত হয়ে পড়েন। সুরা আলে ইমরানে আল্লাহ নিজে উহুদ যুদ্ধের পর্যালোচনা করেছেন। আল্লাহ বলেছেন, এই যুদ্ধে মুসলিম বাহিনীর বিপর্যয়ের প্রধান কারণ হচ্ছে- সম্পদের লোভ এই লোভ তাদের মধ্যে মতবিরোধ সৃষ্টি করেছে, এই লোভই তাদেরকে নেতা তথা নবীর (সাঃ) আদেশ লংঘনে ঠেলে দিয়েছে; এই লোভই মহাবিপর্যয় বয়ে এনেছে (৩:১৫২)। আল্লামা মওদূদী এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন, “প্রকৃত সাফল্য ও বিজয় লাভের সময়ে মুসলিম সৈনিকগণ দুনিয়ার ধন-সম্পত্তির লোভে পড়ে গিয়েছিলেন এবং শক্র সৈন্যদেরকে খতম করে নিজেদের বিজয়কে পূর্ণ করার পরিবর্তে গনীমতের মাল সংগ্রহে লেগে গিয়েছিলেন। যে তীরন্দাজ বাহিনীকে পশ্চাৎ দিকের প্রতিরক্ষার জন্য নবী করীম (সাঃ) মোতায়েন করেছিলেন তারা যখন দেখলেন যে, শক্রসৈন্য পলায়ন করছে, আর মুসলিম সৈনিকগণ শক্রদের ফেলে যাওয়া ধন-মাল সংগ্রহ করছেন, তখন তারা এই দুশ্চিন্তায় পড়ে গেলেন যে, গনীমতের মাল সবই বুঝি সেই সংগ্রহকারীরাই নিয়ে যাবেন; আর তারা নিজেরা গনীমত থেকে বঞ্চিত থেকে যাবেন। এই চিন্তা করে নবীর (সাঃ) আদেশ স্মরণ করিয়ে দেওয়া সত্ত্বেও তাদের অধিকাংশ লোক নির্ধারিত স্থান ত্যাগ করে চলে গেলেন।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা: পূর্বোক্ত, পৃ. ৬৬,৭৮,৮০] আর এই গিরিপথ দিয়ে মুসলমানদের ওপর বিপর্যয় নেমে এলো। শক্রবাহিনী গিরিপথ দিয়ে ঢুকে পেছন দিক থেকে মুসলিম বাহিনীর ওপর ঝাপিয়েঁ পড়লো; আর সামনে যারা পালিয়ে যাচ্ছিল তারাও ফিরে দাঁড়ালো। এই সাঁড়াশী আক্রমণের মুকাবিলায় গনীমতের মাল সংগ্রহে ব্যস্ত অপ্রস্তুত মুসলিম বাহিনী বিপর্যস্ত হয়ে পড়লো। তাদের অর্জিত বিজয় পরাজয়ে রূপান্তরিত হলো।[সিদ্দিকী, নাঈম, মানবতার বন্ধু মুহাম্মদ রাসূলূল্লাহ (সাঃ), বাংলা অনুবাদ, আকরাম ফারুক, সম্পাদনা, আব্দুস শহীদ নাসিম, শতাব্দী প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৯৮, পৃ. ৩৫১-৩৫৪]

আল্লাহ তা’য়ালা মুহাম্মদুর রাসূলুল্লাহর (সাঃ) নেতৃত্বে সংগঠিত ঈমানদারদের এই দলটিকে বিশ্বনেতৃত্বের আসনে সমাসীন করবেন এবং বিশ্বমানবতার কল্যাণে তাদের নিয়োজিত করবেন। কিন্তু মনের কোণে সম্পদের মোহ ও লোভ, উদ্দেশ্যের প্রতি একাগ্রতার অভাব, অনৈক্য ও নেতার আদেশ পালনে নিষ্ঠার অভাব বিদ্যমান থাকলে কোন দল বা গোষ্ঠীর পক্ষে মানুষের কল্যাণার্থে মহৎ ও বৃহৎ কিছু করা সম্ভব নয়। তাই আল্লাহ তা’য়ালা উহুদের পরীক্ষার মাধ্যমে মুসলিমদের মধ্যে যাদের অন্তরে এইসব রোগ ছিল তাদের সে রোগ বের করে আনার ব্যবস্থা করেছেন। অতঃপর আল্লাহ নিজে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন। প্রত্যেক ঈমানদার ব্যক্তি মর্মে মর্মে উপলব্ধি করেছেন, তাদের বিপর্যয়ের কারণ কি, কোন কোন দুর্বলতার কারণে তাদের এই বিপর্যয় হলো; তারা মর্মাহত ও অনুতপ্ত হয়েছেন। এই মনস্তাত্ত্বিক ও বাস্তব অবস্থায় ঈমানদার এ বাহিনীকে সম্পদের মোহমুক্ত, নির্লোভ, পরকালমূখী ও একমাত্র আল্লাহনির্ভর, সুসংহত, ঐক্যবদ্ধ শক্তি হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সুদরূপী অতি লোভনীয় জিনিস থেকে দূরে থাকার নির্দেশ দিয়ে আয়াত কয়টি নাযিল করা হয়।

মূল বক্তব্য

এই আয়াতগুলোর শুরুতেই মহান প্রভূ আল্লাহ ঈমানদারদের সম্বোধন করেছেন এবং সুদ খেতে মানা করেছেন; কারণ সুদ দ্বিগুণ-চতুর্গুণ-বহুগুণ বৃদ্ধি পায় যা অতি বড় শোষণ, অবিচার ও জুলুম। অতঃপর ঈমানদারগণ যাতে সফল হতে পারেন আল্লাহর ক্ষমা ও রহমত পেয়ে ইহ-পরকালীন জীবনে কল্যাণ লাভ করতে পারেন সে লক্ষ্যে আল্লাহ কতিপয় হেদায়াত দিয়েছেন। হেদায়াতগুলো হচ্ছেঃ

১. আল্লাহকে ভয় করা তথা তাকওয়া অবলম্বন করা;

২. জাহান্নাম তথা আল্লাহর শাস্তিকে ভয় করা;

৩. আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের আনুগত্য করা;

৪. আল্লাহর ক্ষমা ও বেহেশত পাওয়ার লক্ষ্যে কাজ করা;

৫. নিজের সম্পদ আল্লাহর পথে ব্যয় করা এবং

৬. ক্রোধ হজম ও অপরকে ক্ষমা করা।

দেখা যাচ্ছে, সুদ বর্জনে মুমিনদের অথস্ত করা এবং পরিবেশ গড়ে তোলাই এর মুখ্য উদ্দেশ্য। নিচে কয়েকটি বিষয়ে ব্যাখ্যা পেশ করা হলো :

১. আদয়াফাম মুদয়াফাহ

আলোচ্য আয়াত কয়টি প্রথমেই আল্লাহ সুদ খেয়ো না বলেছেন এবং ‘আদয়াফাম মুদযাফাহ’ বিশেষণ দ্বারা সুদকে বিশেষায়িত (qualify) করেছেন। কোন কোন তাফসিরকার ও অনুবাদক এর অর্থ করেছেন চক্রবৃদ্ধি সুদ।[আব্দুর রহীমঃ পূর্বোক্ত, পৃ. ৫৬। সাইয়েদ কুতুব শহীদ: পূর্বোক্ত, পৃ. ১৯৫ , শাফী মুফতী মুহাম্মদ, পূর্বোক্ত, পৃ. ১৯৯] এতে কিছু কিছু লোক বিভ্রান্তি সৃষ্টি করার অপচেষ্টা করে থাকে। তারা বলে আল-কোরআনতো কেবল চক্রবৃদ্ধি ও উচ্চ হারের সুদ নিষিদ্ধ করেছে , সরল ও নিম্ন হারের সুদ হারাম করেনি। তারা এপর্যন্ত বলে যে,ব্যাংক ঋণে সুদের হার যদি সরল ও নিম্ন হয়, তাহলে তা নিষিদ্ধ সুদের আওতায় পড়বে না।

প্রকৃতপক্ষে আল্লাহ এখানে সুদের কোন বিশেষ ধরন নয় বরং সুদের প্রকৃতি, বৈশিষ্ট্য তথা স্বভাবধর্ম (Nature) কে বুঝিয়েছেন। সুদের স্বভাব হচ্ছে, সময়ের গতির সাথে ধাপে ধাপে গুণে গুণে বৃদ্ধি পাওয়া। ইমাম শাওকানী লিখেছেন, শব্দ দুটি বুঝিয়ে দেয় যে, সুদের মাত্রা বারবার বৃদ্ধি করা হতো।[উদ্বৃত, আব্দুর রহীম: তফসীরে মাআরেফুল কুরআন, বাংলা অনুবাদ ও সম্পাদনা, মাওলানা মুহিউদ্দিন খান, পৃ. ৩৫৪-৩৫৫] একইভাবে সাইয়েদ কুতুব শহীদ লেখেছেন, “সুদী কারবার একদিক দিয়ে পুনরাবৃত্তিসম্পন্ন ব্যবস্থা, আর অপরদিক দিয়ে তা যৌগিকও; তা সময়ের অগ্রগতির সাথে বারবার আবর্তিত হওয়ার দরুন বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়। বস্তুতঃ এটা সুদী ব্যবস্থার স্বভাবধর্ম”।[সাইয়েদ কুতুব শহীদ: পূর্বোক্ত. ২৩৪-২৩৫] ইংরেজীতে রচিত তাফসীর ও তরজমা গ্রন্হসমূহে ‘আদয়াফাম মুদায়াফাহ’ –এর অর্থ করা হয়েছে, Double, Redouble, Multiple. এর দ্বারা সুদ বৃদ্ধি পাওয়া তথা দ্বিগুণ, চর্তুগুণ, বহুগুণ হওয়ার কথা বুঝানো হয়েছে। ড. হাসানুজ্জামান বলেছেন যে, সুদের হার যত কমই হোক, সময়ের সাথে তা দ্বিগুণ, তিনগুণ, চারগুণ- এই গতিতে বাড়তে থাকে। সুদ যদি সরলও হয় তা হলেও এভাবেই বৃদ্ধি পায়। তিনি অতি নিম্ন হার ও সরল সুদের হিসাব কষে দেখিয়েছেন যে, বার্ষিক সরল সুদের হার যদি মাত্র ২.০০ টাকা হয় তাহলে ১০০.০০ টাকার ১ বছরে সুদ হবে ২.০০ টাকা, দুই বছরে ৪.০০ টাকা, তিন বছরে ৬.০০ এবং চার বছরে সুদ হবে ৮.০০ টাকা; অর্থাৎ প্রথম বছর একগুণ, দ্বিতীয় বছরে এর দ্বিগুণ, তৃতীয় বছরে তিনগুণ, ৪র্থ বছরে চারগুণ। প্রতিবছর একগুণ করে বৃদ্ধি পেতে থাকবে সুদ এভাবে এই গতিতে বাড়তে গতি আরও বেশি হবে সন্দেহ নেই।[হাসানুজ্জামান, এন, এম: Conceptual Foundations of Riba in Quran, Hadith on Fiqh, জার্নাল অব ইসলামিক ব্যাংকিং এন্ড ফাইন্যান্স, জানু-মার্চ, ১৯৯৪, পৃ. ১১-১২] সুতরাং ‘আদয়াফাম-মুদায়াফাহ’-এর অনুবাদ চক্রবৃদ্ধি সুদ করে বিভ্রান্তি সৃষ্টির সুযোগ করে দেওয়ার পরিবর্তে এর অনুবাদ গুণে গুণে বৃদ্ধি পাওয়া করাই ভাল। এটাই হচ্ছে সুদের স্বভাব, প্রকৃতি, বৈশিষ্ট্য ও পরিচিতি।

২. তাকওয়া

বস্তুতঃ তাকওয়া হচ্ছে আল্লাহভীতি। আল্লাহ সর্বশক্তিমান (Omnipotent), আল্লাহ সর্বত্র বিরাজমান (Omnipresent) এবং আল্লাহ সর্বজ্ঞ এই ধারণা মনে বদ্ধমূল করে নেওয়া, সর্বদা আল্লাহর প্রতি শ্রদ্ধা, ভক্তি, ভালবাসা ও ভয় জাগরূক রাখা এবং দুনিয়ার কেউ না দেখলেও আল্লাহ দেখেন, দুনিয়ার কেউ না জানলেও আল্লাহ জানেন, দুনিয়ার কোন পুলিশ ধরতে না পারলেও আল্লাহর কাছে ধরা পড়তে হবে, দুনিয়ার আদালত থেকে বাঁচলেও আল্লাহর আদালত থেকে নিস্তার নেই- এই অনুভূতিই হচ্ছে তাকওয়া। তাকওয়া মানুষকে স্বতস্ফূর্তভাবে আল্লাহর আদেশ-নিষেধ পালনে উদ্বুদ্ধ ও পরিচালিত করে। কোন লোভ-লালসা, ভয়-ভীতি ও দুর্বলতাই তাকে আল্লাহর হুকুম পালন থেকে বিরত রাখতে পারে না। অসৎ কাজ থেকে বিরত থাকা এবং সৎ কাজে আত্মনিয়োগ করার মূল প্রেরণা ও চালিকাশক্তি হচ্ছে তাকওয়া। মানব জীবনে সফল, বিশেষ করে, সুদ খাওয়ার ন্যায় লোভনীয় কাজ বর্জনে সফল হওয়ার (ফালাহ লাভ করার ) জন্য আল্লাহ এখানে তাকওয়ার বলে বলীয়ান হওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

৩. জাহান্নামের ভয় ও বেহেশতের আশা

আল্লাহ তা’য়ালা জাহান্নামের আগুন তথা আল্লাহর শাস্তি থেকে বাঁচা এবং আল্লাহর ক্ষমা ও জান্নাতের দিকে দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। কারণ, জাহান্নাম সৃষ্টি করা হয়েছে কাফেরদের জন্য; আর জান্নাত তৈরী করা হয়েছে মুত্তাকীদের জন্য যারা আল্লাহ ও রাসূলের আনুগত্য করে। অতঃপর আল্লাহ সচ্ছল-অসচ্ছল সর্বাবস্তাতেই নিজেদের সম্পদ ব্যয়, ক্রোধ সংবরণ এবং মানুষকে ক্ষমা করা ইত্যাদি গুণাবলী অর্জনের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।

৪. আল্লাহর পথে ব্যয়

বস্তুতঃ সুদ ও আল্লাহর পথে ব্যয় পরস্পর বিপরীতমুখী। সুদ হচ্ছে বিনিময় না দিয়ে জনসাধারণের সম্পদ শোষণ করে কতিপয় পুজিঁপতির সম্পদ ফাপিয়েঁ তোলা;

স্বার্থপরতা, লোভ-লালসা, কৃপণতা ও কাঠিন্য হচ্ছে সুদের উৎস। অপরের অভাব ও প্রয়োজনকে পুজিঁ করে নিজ সম্পদ বুদ্ধির মানবতাবিরোধী ও পৈশাচিক মানসিকতা তথা পারস্পরিক সহমর্মিতা, সহানুভূতি, সম্প্রীতি ও উদারতা ইত্যাকার মানবিক গুণের প্রচণ্ড অভাবই হচ্ছে সুদের চালিকাশক্তি। সুদ লোভ-লালসা, কার্পণ্য ও স্বার্থপরতাকে লালন ও বিস্তৃত করে; আর মানবিক ঐক্য ও সংহতি বিনষ্ট করার মাধ্যমে পারস্পরিক স্বার্থ-দ্বন্দ্ব. ঘৃণা-বিদ্বেষ ও প্রতিহিংসার জন্ম দেয়।

অপরদিকে, আল্লাহর পথে ব্যয়, তথা যাকাত, সাদাকাহ, দান-খয়রাত হচ্ছে, যাদের াছে তাদের কাছ থেকে যাদের নেই তাদের কাছে সম্পদ পৌঁছানোর এক মহৎ প্রক্রিয়া। বস্তুতঃ আল্লাহর সংরক্সিত আমানত আল্লাহকে ফেরত দেওয়ার গভীর অনুভূতি, আর সহ-যাত্রী মানবকুলের প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসা এবং পরস্পরিক সাহায্য- সহযোগিতার মানবতাবাদী উদার মানসিকতা হচ্ছে আল্লাহর পথে ব্যয়ের চালিকাশক্তি। আল্লাহর পথে ব্যয় মানবাতাবোধ, সহৃদয়তা, সম্প্রীতি, মানবপ্রেম, উদারতা ইত্যাকার মহৎ গুণকে লালন, সম্প্রসারণ ও বিস্তৃত করে দেয়; সামাজিক বন্ধন হয় সুদৃঢ়, ঐক্য ও সংহতি হয় মজবুত। ক্রোধ, স্বার্থ-দ্বন্দ্ব, ঘৃণ-বিদ্বেষ এ প্রতিহিংসা হয় বিরল। সমাজের ব্যক্তিরা হয়ে উঠে মুহসিন। আর এই মুহসিনদেরই আল্লাহ ভালবাসেন বলে ঘোষণা দেওয় হয়েছে।

সুরাতুল বাকারাহ

সুরাতুল আল-বাকারাহর ২৭৫-২৮১ আয়াতে আল্লাহ বলেছেনঃ

الَّذِينَ يَأْكُلُونَ الرِّبَا لَا يَقُومُونَ إِلَّا كَمَا يَقُومُ الَّذِي يَتَخَبَّطُهُ الشَّيْطَانُ مِنَ الْمَسِّ ۚ ذَٰلِكَ بِأَنَّهُمْ قَالُوا إِنَّمَا الْبَيْعُ مِثْلُ الرِّبَا ۗ وَأَحَلَّ اللَّهُ الْبَيْعَ وَحَرَّمَ الرِّبَا ۚ فَمَن جَاءَهُ مَوْعِظَةٌ مِّن رَّبِّهِ فَانتَهَىٰ فَلَهُ مَا سَلَفَ وَأَمْرُهُ إِلَى اللَّهِ ۖ وَمَنْ عَادَ فَأُولَٰئِكَ أَصْحَابُ النَّارِ ۖ هُمْ فِيهَا خَالِدُونَ [٢:٢٧٥]يَمْحَقُ اللَّهُ الرِّبَا وَيُرْبِي الصَّدَقَاتِ ۗ وَاللَّهُ لَا يُحِبُّ كُلَّ كَفَّارٍ أَثِيمٍ [٢:٢٧٦]إِنَّ الَّذِينَ آمَنُوا وَعَمِلُوا الصَّالِحَاتِ وَأَقَامُوا الصَّلَاةَ وَآتَوُا الزَّكَاةَ لَهُمْ أَجْرُهُمْ عِندَ رَبِّهِمْ وَلَا خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلَا هُمْ يَحْزَنُونَ [٢:٢٧٧]يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا اتَّقُوا اللَّهَ وَذَرُوا مَا بَقِيَ مِنَ الرِّبَا إِن كُنتُم مُّؤْمِنِينَ [٢:٢٧٨]فَإِن لَّمْ تَفْعَلُوا فَأْذَنُوا بِحَرْبٍ مِّنَ اللَّهِ وَرَسُولِهِ ۖ وَإِن تُبْتُمْ فَلَكُمْ رُءُوسُ أَمْوَالِكُمْ لَا تَظْلِمُونَ وَلَا تُظْلَمُونَ [٢:٢٧٩]وَإِن كَانَ ذُو عُسْرَةٍ فَنَظِرَةٌ إِلَىٰ مَيْسَرَةٍ ۚ وَأَن تَصَدَّقُوا خَيْرٌ لَّكُمْ ۖ إِن كُنتُمْ تَعْلَمُونَ [٢:٢٨٠]وَاتَّقُوا يَوْمًا تُرْجَعُونَ فِيهِ إِلَى اللَّهِ ۖ ثُمَّ تُوَفَّىٰ كُلُّ نَفْسٍ مَّا كَسَبَتْ وَهُمْ لَا يُظْلَمُونَ [٢:٢٨١]

“যারা সুদ খায়, তাদের অবস্থা হচ্ছে সেই ব্যক্তির মত যাকে শয়তান তার স্পর্শ দ্বারা পাগল ও সুস্থজ্ঞানশূন্য করে দিয়েছে। তাদের এই অবস্থা হওয়ার কারণ এই যে, তারা বলে ক্রয়-বিক্রয়তো সুদের মতই। অথচ আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয়কে হালাল করেছেন, আর সুদকে করেছেন হারাম। যে ব্যক্তির নিকট তার রবের কাছ থেকে এই নির্দেশ পৌছেঁছে, আর সে তা (সুদ খাওয়া) ছেড়ে দিয়েছে, সে পূর্বে যা খেয়েছে তা তো খেয়েই ফেলেছে, সে ব্যাপারটি আল্লাহর ওপরই সোপর্দ। কিন্তু যারা (সুদ খাওয়া) পুনারাবৃত্তি করবে তারা নিঃসন্দেহে জাহান্নামী হবে এবং সেখানে চিরদিন থাকবে। (২৭৫)

আল্লাহ সুদকে ধ্বংস করেন আর সাদাকাহকে ক্রমবৃদ্ধি দান করেন; আল্লাহ কোন অকৃতজ্ঞ পাপীকে মোটেই পছন্দ করেন না। (২৭৬) যারা ঈমান আনবে ও নেক কাজ করবে, সালাত কায়েম করবে, যাকাত প্রদান করবে তাদের প্রতিফল তাদের রবের নিকট রয়েছে; আর তাদের কোন ভয় ও চিন্তা নেই। (২৭৭) হে ঈমানদারগণ ! আল্লাহকে ভয় কর, আর তোমাদের যে সুদ পাওনা আছে তা ছেড়ে দাও যদি তোমরা ঈমানদার হয়ে থাক। (২৭৮)

অতঃপর তোমরা যদি তা না কর তাহলে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের পক্ষ থেকে যুদ্ধের ঘোষণা শুনে রাখ। আর তোমরা যদি তাওবা কর (ফিরে আস), তাহলে তোমাদের আসল তোমাদের (আসল ফেরত পাবে)। তোমরা জুলুম করবে না, আর তোমাদের প্রতি ও জুলুম করা হবে না। (২৭৯)

আর ঋণগ্রহীতা যদি অভাবগ্রস্ত হয়ে পড়ে, তবে সচ্ছল না হওয়া পর্যন্ত তাদের সময় দাও। আর যদি সাদাকাহ করে দাও তবে তা তোমাদের জন্য অধিকতর কল্যাণকর, যদি তোমরা বুঝতে পার। (২৮০) আর সেই দিনকে ভয় কর, যেদিন তোমরা আল্লাহর দিকে ফিরে আসবে; অতঃপর সেখানে প্রত্যেককে তার উপার্জনের ফলাফল পুরোমাত্রায় দিয়ে দেওয়া হবে এবং কারও প্রতি বিন্দুমাত্র জুলুম করা হবে না”। (২৮১)

পটভূমি

আল্লাহর পক্ষ থেকে নাযিলকৃত সুদ সংক্রান্ত আয়াতসমূহের মধ্যে উল্লেখিত আয়াত কয়টি চতুর্থ বা শেষ পর্যায়ে মক্কা বিজয়ের পর নাযিল করা হয়েছে। ড, উমর চাপরা বলেছেন, “রাসূল (সাঃ)-এর মিশন পূর্ণ হওয়ার কাছাকাছি পর্যায়ে এই আয়াত কয়টি নাযিল হয়েছে।[চাপরা, ড. এম, উমর: পূর্বোক্ত , পৃ. ৭-৮] ইতোপূর্বে তিন পর্যায়ে সুদের আয়াত নাযিল করে এ বিষয়ে শিক্ষাদান, সতর্কীকরণ ও পরিবেশ তৈরীতে ১৬/১৭ বছর চলে গেছে। ইতোমধ্যে মদীনায় প্রতিষ্ঠিত ইসলামী রাষ্ট্রের বুনিয়াদ মজবুত হয়েছে। মক্কা বিজয়ের মাধ্যমে এ রাষ্ট্রের স্থায়ী বিজয় সাধিত হয়েছে। ইসলাম মদীনা-মক্কার বাইরে বিস্তার লাভ করতে শুরু করেছে। রাষ্ট্রীয় আইন জারী করে তা বাস্তবায়ন করার পরিবেশ ও ক্ষমতা অর্জিত হয়েছে। মুমিন নারী-পুরুষ ইতোমধ্যে সুদ বর্জন করে চলায় অভ্যস্ত হয়ে উঠেছেন। আশা করা যাচ্ছিল যে, সুদ নিষিদ্ধ করে আইন জারী করা হলে তাঁরা তার পূর্ণ প্রয়োগ ও বাস্তবায়নে সফল হবেন। এমনি সময়ে মহাবিজ্ঞ আল্লাহ সুদকে আইনত নিষিদ্ধ করে উক্ত আয়াতগুলো নাযিল করলেন।

মূল বক্তব্য

সুদকে আইনত নিষিদ্ধ ঘোষণা এবং এতদসংক্রান্ত বিধি-বিধানই হচ্ছে আলোচ্য আয়াত কয়টির মূল বিষয়। ক্রয়-বিক্রয় ও সুদের মধ্যে বিদ্যমান প্রকৃতিগত পার্থক্যের দিকে আঙ্গুলি নির্দেশ করে আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয় হালাল ও সুদ হারাম বলে জানিয়ে দিয়েছেন। পাশাপাশি আল্লাহ এখানে সুদখোরদের তিরস্কার করেছেন। তাদের অযৌক্তিক কথার প্রতিবাদ করেছেন, তাদেরকে বুদ্ধিভ্রষ্ট-পাগল আখ্যায়িত করেছেন। এই আইন নাযিলের পরেও যারা সুদ লেনদেন অব্যহত রাখবে তাদেরকে জাহান্নামের চিরন্তন আযাবের ভীতি প্রদর্শন করেছেন। তাদের বিরুদ্ধে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের পক্ষ থেকে যুদ্ধের ঘোষণা দিয়েছেন। অপরদিকে, উল্লেখিত বিধি-বিধান মেনে চলার জন্য মুমিনদের উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করেছেন; ঈমান আনা, নেক আমল করা, নামায কায়েম করা ও যাকাত প্রদানের প্রতিফল ও পুরস্কার দেওয়ার নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে এবং এই শ্রেণীর লোকদের কোন ভয় ও চিন্তার কারণ নেই বলে তাদের আশ্বস্ত করা হয়েছে। আল্লাহ দ্বার্থহীন ভাষায় আবারও জানিয়ে দিয়েছেন, সুদের পরিণাম ধ্বংস আর সাদাকাহর সুফল হচ্ছে ক্রমবৃদ্ধি। পরিশেষে, শেষ বিচার দিনে সকল মানুষের আল্লাহর সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম ন্যায়বিচার অনুসারে প্রত্যেকের প্রতিফল প্রাপ্তির অবশ্যম্ভাবিতার প্রতি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।

১. বিধি-বিধান

এ আয়াতগুলোতেই আল্লাহ সুদ আইনত নিষিদ্ধ বলে জানিয়ে দিয়েছেন এবং এ সম্পর্কিত মৌলিক আইন-বিধান নাযিল করেছেন। মুফতি শাফী বলেছেন, “এখানে রিবা অর্থাৎ সুদের অবৈধতা এবং তার বিধি-বিধান বর্ণিত হয়েছে”।[শাফী, মুফতী মুহাম্মাদ; পুর্বোক্ত, পৃ. ১৪৮-১৪৯] এখানে বর্ণিত সুদের বিধি-বিধানগুলো হচ্ছেঃ

১. ক্রয়-বিক্রয় বৈধ: সুদ নিষিদ্ধ;

২. এই আইন জারী হওয়ার সাথে সাথে সুদ থেকে বিরত থাকতে হবে এবং সুদ লেনদের শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে গণ্য হবে;

৩. এই নিষেধাজ্ঞা নাযিলের পূর্বে খাওয়া সুদের ব্যাপারে ফায়সালার বিষয়টি আল্লাহর ওপর ন্যস্ত করতে হবে। দুনিয়ায় এ বিষয়ে অভিযোগ, দাবী-দাওয়া বা মামলা-মোকাদ্দমা করা যাবে না;

৪. সুদের চলমান চুক্তিসমূহ বাতিল এবং এসব চুক্তির বলে পাওনা সুদের সাকুল্য দাবী অবৈধ বিবেচিত হবে;

৫. এই আইন জারী ও প্রয়োগ করার দায়িত্ব আল্লাহ ও রাসূলের (সাঃ) পক্ষের শক্তি সরকারের ওপর ন্যস্ত থাকবে। আল্লাহ প্রদত্ত এই এখতিয়ার ও ক্ষমতা বলে সরকার প্রয়োজনে সুদের আইন লংঘনকারীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ পর্যন্ত ঘোষণা করতে পারবে;

৬. ঋণদাতাগণ তাদের প্রদত্ত মূল্যের কাউন্টার ভ্যালু ফেরত পাওয়ার অধিকারী হবে; তবে শর্ত হচ্ছে তাদের সুদ থেকে তাওবা করতে বা ফিরে আসতে হবে;

৭. প্রতিমূল্যের বেশি নিলে ঋণদাতা জুলুমকারী (সুদ গ্রহণকারী) হিসেবে শাস্তি পাবে;

৮. ঋণগ্রহীতা যদি আসলের প্রতিমূল্যের চেয়ে কম দেয় বা আসল মোটেই না দেয়, তাহলে সেও জুলুম করার অপরাধে (সুদগ্রহীতা) অপরাধী হিসেবে শাস্তি পাবে

৯. ঋণগ্রহীতা যদি অসচ্ছল হয়ে পড়ে এবং যথাসময়ে গৃহীত ঋণের কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধ করতে অক্ষম হয়, তাহলে সামর্থ ফিরে আসা পর্যন্ত তাকে সময় দিতে হবে; আদালত এ মর্মে ঋণদাতাকে নির্দেশ দিতে পারবে।

১০. আর আদালতের কাছে যথার্থ বিবেচিত হলে আদালত ঋণদাতাকে তার পাওনা মাফ করে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিতে পারবে।

২. সুদখোর বুদ্ধিভ্রষ্ট পাগল

মহাজ্ঞানী আল্লাহ এখানে সুদখোরদের বুদ্ধিভ্রষ্ট-পাগল আখ্যায়িত করেছেন। কোন কোন স্কলার মনে করেন, “এই আয়াতে সুদখোরদের যে ছবি আঁকা হয়েছে, তা পরকালীন জীবনে শেষ বিচারের দিন ঘটবে, পার্থিব জীবনের সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই”।[সিদ্দিকী, Riba, Bank Interest and the Rationale of its Prohibition, IslamicResearch and Training Institute, Islamic Development Bank, Jeddah, KSA, 2004, পৃ· 88] কিন্তু দুনিয়াতেও সুদখোরদের মধ্যে এরূপ পাগলামি লক্ষ্য করা যায়। বস্তুতঃ শয়তান সুদখোরদেরকে সম্পদের মোহে এমন আচ্ছন্ন করে দেয় যে, তারা ক্রয়-বিক্রয় ও সুদের পার্থক্যটুকুও বুঝতে পারে না, বুঝতে চায় না। এটাই হচ্ছে সুদুখোরদের ব্যক্তিত্বের ওপর সুদের বিরূপ প্রতিক্রিয়া। বস্তুতঃ সুদ সুদখোরদের ব্যক্তিত্বকে হ্রাস (diminishes) ও (demeans) করে দেয়। [সিদ্দিকী, উপরোক্ত, পৃ. ৩৬] তারা পাগল হয়ে অর্থ-সম্পদের পেছনে ছুটে বেড়ায় আর ভারসাম্যহীন কথা ও কাজের মহড়া দেয়। তারা ক্রয়-বিক্রয়, মুনাফা ও সুদকে একাকার ও সমান মনে করে; আর বলে ‘ক্রয়-বিক্রয়তো সুদের মতই’। এটি তাদের একটি “যুক্তিহীন কথা (Flimsy argument), একটি ফাঁদ (a trap), একটি খাটিঁ প্রতারনা (pure hoodwinking) ও একটি পুরাতন চালবাজি (old trick)”।[সিদ্দিকী, উপরোক্ত, পৃ. ৪৪ ও ৪৭] মক্কার কাফের নেতারা তাদের জনসাধারণকে বিভ্রান্ত করার জন্যই এই চালবাজির আশ্রয় নিয়েছিল। আজকের দিনেও সুদখোরদের মধ্যে এমনি পাগলপারা অবস্থা পরিলক্ষিত হয়। তারা চায় লাভ, সুদের মাধ্যমে নিশ্চিত লাভ। তাদের স্বার্থেই তারা বলে, সুদ হচ্ছে অর্থনীতির চালিকাশক্তি, সুদ ছাড়া অর্থনীতি অচল, সুদই উন্নয়নের চাবিকাঠি ইত্যাদি।

কিন্তু তাদের সুদখোরীর কারণে অর্থনীতির ওপর কিরূপ ধ্বংসকর প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হলো, কত লোকের ধ্বংস ও দুরাবস্থার বিনিময়ে তাদের সুদী আয় অর্জিত হলো, মানবিক প্রেম-প্রীতি, ভ্রাতৃত্ব ও সহানুভূতির মূলে কি আঘাত পড়লো, সামষ্টিক কল্যাণের ওপর কি ধরনের বিরূপ প্রভাব পড়লো ইত্যাদি বিষয় তাদের বুদ্ধিতে ধরে না, এজন্য কোন মাথা ব্যথাও তাদের নেই। এই অবস্থায়ই তারা বাচেঁ, এই অবস্থায়ই তারা মরে এবং এই অবস্থাতেই তারা কবর থেকে উত্থিত হবে। সুতরাং “আল্লাহর এ বাণী ইহকাল-পরকাল উভয় জীবনের জন্যই বাস্তব ও সত্য”।[সিদ্দিকী, উপরোক্ত, পৃ. ৪৪]

৩. ক্রয়-বিক্রয় হালাল, সুদ হারাম

এটি হচ্ছে আল্লাহর একটি প্রাকৃতিক (natural), স্বাভাবিক, শাশ্বত ও চিরন্তন বিধান। হালাল মানে বৈধ আর হারাম হচ্ছে অবৈধ। মানুষের জন্য অকল্যাণকর সব কিছুকে হারাম করেছেন।

এখানে আল্লাহ আল-বাই শব্দ ব্যবহার করে সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয়কে বুঝিয়েছেন। ক্রয়-বিক্রয়ের মূল ক্থা হচ্ছে সমান মূল্য ও পারস্পরিক বিনিময়ের মাধ্যমে সকলের কৱসখল অভাব পুরণ করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। সুতরাং বিনিময় বা ক্রয়-বিক্রয় মানব জাতির জন্য কেবল জরুরী নয়, মানব সমাজের অস্তিত্বের জন্য অপরিহার্য। বস্তুতঃ ক্রয়-বিক্রয় মানুষের জন্য উপকারী, অপরিহার্য, ইনসাফপূর্ণ এবং হালাল। অতঃপর আল্লাহ আল-রিবা শব্দ ব্যবহার করে সকল প্রকার রিবায়েছেন। রিবা অর্থ হচ্ছে ‘বৃদ্ধি’, বিনিময় ছাড়া বৃদ্ধি, এক পক্ষের দেয়া মূল্যের ওপরে বৃদ্ধি অপরপক্ষের দেয়া মূল্যের উপর বৃদ্ধি ছাড়াই। এমতাবস্থায়, এক পক্ষ সেই অতিরিক্ত দেয় যার কোন বিনিময় সে পায় না; আর অপরপক্ষ সেই অতিরিক্ত নেয় যার ভ্যালু সে দেয় না। এটা হয় বিনিময় না দিয়ে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস বা ভক্ষণ করা। সুতরাং পরিমানে কম-বেশি যাই হোক পরের সম্পদ অন্যায় ভক্ষণে মানব সমাজের জন্য কোন উপকার ও কল্যাণ থাকতে পারে না; বরং তা অবশ্যই ক্ষতিকর, অকল্যাণকর এবং ধ্বংসের বাহন। সুতরাং হারাম।

মূলকথা দাঁড়াচ্ছে যে, ক্রয়-বিক্রয় চিরদিনই মানুষের জন্য অপরিহার্য ও কল্যাণকর এবং হালাল; অপরদিকে সুদ সর্বদাই মানব জাতির জন্য অকল্যাণকর, ক্ষতিকর ও হারাম।

“আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয়কে হালাল করেছেন আর সুদকে করেছেন হারাম”- এই বাক্য দ্বারা আল্লাহ উক্ত প্রাকৃতিক (Natural), শাশ্বত ও চিরন্তন সত্যেরই ঘোষণা দিয়েছেন। পরবর্তীতে ক্রয়-বিক্রয়, মুনাফা, ভাড়া ও সুদের বিস্তারিত তুলনা করা হবে।

৪. সুদ একটি জুলুম

২৭৯ আয়াতে আল্লাহ সুদ লেনদেনকে জুলুম এবং শস্তিযোগ্য অপরাধ ঘোষণা করেছেন। আল্লাহ দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন যে, ঋণদাতার পাওনা হচ্ছে তার প্রদত্ত আসল মূল্যের কউন্টার ভ্যালু; এটাই তার অধিকার। অপরদিকে, ঋণগ্রহীতার দেনা হচ্ছে তার গৃহীত আসলের কাউন্টার ভ্যালুর চেয়ে অতিরিক্ত, কম হোক বেশি হোক নেয়] তাহলে সেই বেশিটা হবে বিনিময়হীন রিবা, অনধিকার চর্চা ও জুলুম। আর গ্রহীতা যদি তার দেনার চেয়ে কম মূল্য দেয় অথবা দেনা আদৌ পরিশোধ না করে, তাহলে সেটাও হবে বিনিময়হীন, অতিরিক্ত, অনধিকার চর্চা, রিবা এবং জুলুম। তোমরা জুলুম করবে না; তোমাদের ওপরও জুলুম করা হবে না- এই আয়াত দ্বারা আল্লাহ তা’য়ালা ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়কেই জুলুম থেকে বিরিত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। তবে পরবর্তী আয়াতে আল্লাহ অভাবগ্রস্ত ঋণগ্রহীতার কাছে পাওনা সাদাকাহ করে দেওয়ার জন্য ঋণদাতাকে উপদেশ দিয়েছেন।

৫. সুদের পরিণাম ধ্বংস

পূর্বে সূরা আর-রূমের অন্তর্ভূক্ত সুদ ও যাকাত সংক্রান্ত আয়াতের আলোচনায় সুদ কিভাবে ধ্বংস ডেকে আনে এবং যাকাত কিভাবে সমৃদ্ধি বয়ে আনে সে বিষয়ে সম্যক আলোকপাত করা হয়েছে। পরবর্তীতে সমাজ ও অর্থনীতির ওপর সুদের বিরূপ প্রতিক্রিয়া ও ধ্বংসকর প্রভাব সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

সুদ হারাম করার কারণ

আল্লাহ তা’য়ালা সুদকে হারাম করেছেন কেন? এ প্রসঙ্গে স্বয়ং আল্লাহ তাঁর পবিত্র কালামে যে কয়টি কারণ উল্লেখ করেছেন সেগুলো হচ্ছে: ১) সুদ একটি অন্যায় ভক্ষণ ও জুলুম; ২) সুদ শোষণ ও বৈষম্য সৃষ্টি করে; ৩) সুদ সম্পদ বৃদ্ধির পথে প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়ায়; ৪) সুদ স্বার্থপরতা, ঘৃণা ও হিংসা-বিদ্বেষ সৃষ্টি করে; ৫) সুদ অর্থনীতি ও সমাজকে ধ্বংস করে এবং ৬) সুদ গযব ও শাস্তির বাহন।

বস্তুতঃ পরের সম্পদ বিনা মূল্যে ভক্ষণ এবং তজ্জনিত জুলুমই হচ্ছে সুদ নিষিদ্ধ করার প্রধান ও মূল কারণ। অন্যান্য কারণগুলো অন্যায় ভক্ষণ ও জুলুম থেকেই উদ্ভূত, জুলুমেরই পরিণতি।

১. সুদ একটি অন্যায় ভক্ষণ ও জুলুমঃ উপরের আলোচনায় স্পষ্ট হয়েছে যে, ক্রয়-বিক্রয় পৃথিবীতে মানব সমাজের অস্তিত্বের জন্য অপরিহার্য এবং সমাজের উন্নতি ও সমৃদ্ধির জন্য অত্যাবশ্যক। আর এজন্য ক্রয়-বিক্রয়কে সকল প্রকার জুলুম, অবিচার ও বেইনাসাফী থেকে মুক্ত রাখা জরুরী। আলোচনায় এটাও দেখানো হয়েছে যে, সুদ হচ্ছে একটি অন্যায় ভক্ষণ জুলুম। সূরাতুর রূমের সুদ সংক্রান্ত আয়াতে আল্লাহ বলেছেন, সুদ বিনিময় ছাড়াই দাতাদের সম্পদ গ্রহীতাদের কাছে হস্তান্তর করে দেয়। সূরাতুন্নিসায় বলেছেন, সুদ হচ্ছে অন্যায় ভক্ষণ, পরের সম্পদ গ্রাস করা। সূরা আলে ইমরানে সুদ খেতে মানা করেছেন। আর সব শেষে সূরাতুল বাকারায় স্পষ্ট ভাষায় সুদকে জুলুম আখ্যায়িত করেছেন। আল্লাহ ঋণদাতাকে নির্দেশ দিয়েছেন ঋণগ্রহীতার ওপর জুলুম না করতে ,আর ঋণগ্রহীতাকে নির্দেশ দিয়েছেন ঋণদাতার ওপর জুলুম না করতে।

বস্তূতঃ সুদ হচ্ছে বিনিময়হীন অন্যায় ভক্ষণ এবং তা আবার সময়ের সাথে গুণে গুণে বৃদ্ধি পায় সেজন্য সুদ কেবল জূলুম নয়, অতি জুলুম। ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে, ছোট হোক বড় হোক, সুদরূপী অন্যায় ভক্ষণ ও জুলুম থাকা উচিত নয়। এই জুলুমের অবসানকল্পেই আল্লাহ সুদ হারাম করেছেন।

২. সুদ শোষণ ও বৈষম্য সৃষ্টি করেঃ সূরা রূমের সুদ সংক্রান্ত আয়াতের তাৎপর্য আলোচনায় দেখানো হয়েছে, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সুদ এর দাতাদের সম্পদ শোষণ করে গ্রহীতাদের কাছে হস্তান্তর করে দেয়, তাদের ধনী থেকে আরও ধনী বানায়। অপরদিকে সুদদাতারা দরিদ্র থেকে আরও দরিদ্র হয়ে পড়ে। সুদ এভাবেই জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ব্যাপক শোষণ ও অর্থনৈতিক বৈষম্যকে প্রকট করে তোলে। ফলে অর্থনৈতিক ভারসাম্য বিনষ্ট হয় এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠির জীবন দুর্বিষহ হয়ে ওঠে। মানুষ মানুষের শোষণ ও বৈষম্যের শিকার হোক আল্লাহ তা’য়ালা তা চান না; এজন্যই আল্লাহ সুদকে হারাম করেছেন।

৩. সুদ সম্পদ বৃদ্ধির পথে প্রতিবন্ধক হয়ে দাঁড়ায়ঃ সূরাতুর রূমে আল্লাহ দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলেছেন, “সুদ আল্লাহর কাছে বাড়ে না”। আল্লাহর এ বাণীর সুস্পষ্ট তাৎপর্য হচ্ছে. সুদ সম্পদ বৃদ্ধির পথে একটি বড় বাধা। অর্থনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে এর ব্যাখ্যা পূর্বে পেশ করা হয়েছে। সেখানে দেখানো হয়েছে যে, সম্পদ বৃদ্ধি পায় বিনিয়োগ ও উৎপাদনের মাধ্যমে। আর সুদ বিনিয়োগ করা হয় না- বিনিয়োগ করা যায় না।

সুতরাং সম্পদ বৃদ্ধির সাথে সুদের কোন সম্পর্ক নেই। বরং সুদের বিনিয়োগের সম্পর্ক বিপরীতমুখী হওয়ার কারণে সুদের হার বিনিয়োগ ও উৎপাদনকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাতে দেয় না। এছাড়া পুজিঁর প্রান্তিক দক্ষতা যেখানে সুদের হারের সমান হয় বিনিয়োগ উৎপাদন সেখানেই থেমে যায়। ক্রেতা সাধারণের ক্রয়-ক্ষমতা শোষণ করে নিয়ে পণ্য-সামগ্রীর কার্যকর চাহিদা হ্রাস কারার মাধ্যমে সুদ বিনিয়োগ-উৎপাদনকে কমিয়ে বেকার সমস্যাকে প্রকট করে তোলে এবং এক সময়ে মন্দা ও মহামন্দা সৃষ্টি করে অর্থনীতিকে স্হবির করে দেয়। আর ও নানা পদ্ধতিতে সুদকে হারাম করেছেন যাতে মানুষ তাদের বিনিয়োগ ও উৎপাদনকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারে।

৪. সুদ স্বার্থপরতা, হিংসা ও ঘৃণা-বিদ্বেষ সৃষ্টি করেঃ কুরআন মজীদে সুদ সংক্রান্ত আয়াতগুলোর সাথে সাথে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যাকাত-সাদাকাহ্, দান-খায়রাত ও আল্লাহর পথে ব্যয় করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সুদের আয়াতগুলোর আগে অথবা পরে একইভাবে দান-খায়রাত ও আল্লাহর পথে ব্যয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

পূর্বেই বলা হয়েছে যে, সুদ ও আল্লাহর পথে ব্যয় পরস্পর বিপরীতমুখী। লোভ-লালসা, কার্পণ্য, স্বার্থ-দ্বন্দ্ব, ঘৃণা-বিদ্বেষ হচ্ছে সুদভিত্তিক সমাজের বৈশিষ্ট্য। পারস্পরিক সহমর্মিতা, সহানুভূতি, সম্প্রীতি ও উদারতা ইত্যাকার মানবিক গুণাবলী সেখানে হয় বিরল। আল্লাহ সুদকে হারাম করে একদিকে মানব সমাজকে এ অবস্থা থেকে রক্ষা করার ব্যবস্থা করেছেনে। অন্যদিকে, যাকাত-সাদাকাহ, দান-খয়রাত ও আল্লাহর পথে নিজ সম্পদ ব্যয় করার নির্দেশ দিয়ে মানবতাবোধ, পারস্পরিক সহমর্মিতা, সহানুভূতি ও উদারতা ইত্যাদি মহৎ গুণকে লালন ও সম্প্রসারণ করার ব্যবস্থা করেছেন যাতে সামোজিক বন্ধন হয় সুদৃঢ় এবং মানবিক ঐক্য হয় মজবুত- মানুষ হয়ে উঠে মুহসিন।

৫. সুদ অর্থনীতি ও সমাজকে ধ্বংস করেঃ সূরাতুল বাকারাহর ২৭৬ আয়াতে আল্লাহ স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, “আল্লাহ সুদকে ধ্বংস করেন”। আল্লাহর নবী (সাঃ) বলিষ্ঠ কন্ঠে জানিয়ে দিয়েছেন, সুদের আসল পরিণতি হচ্ছে অভাব ও সংকোচন।[মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং ৩৭৫৪] সুদের এই পরিণতি এখন আর ব্যাখ্যা করে বুঝানোর প্রয়োজন হয় না; মানুষ নিজের চোখে সুদের এই ধ্বংসকর ফলাফল প্রত্যক্ষ করেছে এবং করছে। সুদের এই পরিণতি থেকে মানব জাতিকে রক্ষা করার লক্ষ্যেই আল্লাহ সুদকে হারাম করেছেন।

৬. সুদ গযব ও আযাবের বাহনঃ সুদ দুনিয়ায় আল্লাহর গযব নিয়ে আসে। আল্লাহ ইহুদী জাতির উদাহরণ দিয়ে দুনিয়ার মানুষকে এ সত্য বুঝিয়ে দিয়েছেন। আর দুনিয়ায় সুদ লেনদেনের কারণে পরকালের কঠিন আযাবে পড়তে হবে এ কথাও আল্লাহ মানব জাতিকে জানিয়ে দিয়েছেন, “স্থল ও জলভাগে বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছে মানুষের নিজেদের কৃতকর্মের দরুন, যাতে (আল্লাহ) তাদেরকে তাদের কর্মফল কিছূটা আস্বাদন করাতে পারেন। আশা করা যায়, এর ফলে হয়তো তারা ফিরে আসবে”। (৩০:৪১) এখানে নিজেদের কৃতকর্ম বলতে সাধারণভাবে আল্লাহর নাফরমানি ও হুকুম অমান্য করাকে বুঝানো হয়েছে। সুদের নিষেধাজ্ঞা লংঘনও এর মধ্যে শামিল।

 

দ্বিতীয় অধ্যায়: সুন্নাহর দৃষ্টিতে ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ

ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ সংক্রান্ত হাদীসের শ্রেণী প্রকরণ

সুন্নাহ হচ্ছে আল-কুরআনের ব্যাখ্যা ও বাস্তব রূপ। আল্লাহ তা’য়ালা কুরাআন মজীদে “ক্রয়-বিক্রয়কে হালাল আর সুদকে হারাম করেছেন”। কিন্তু ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ সংক্রান্ত বিস্তারিত বিধি-বিধান ও ব্যাখ্যা আল-কুরআনে নেই। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) হাদীসে ক্রয়-বিক্রয় ও সুদের বিস্তারিত বিধি-বিধান নির্দেশ করেছেন এবং ক্রয়-বিক্রয় থেকে সুদ কিভাবে উদ্ভুত হয় তা দেখিয়ে দিয়েছেন।

আল-কুরআনে সূরাতূল বাকারাহর ২৮২ আয়াতে আল্লাহ তা’য়ালা দুই প্রকার ক্রয়-বিক্রয়ের উল্লখ করেছেন। এক প্রকার হচ্ছে, ‘দাইন-দেনা বা বাকি ক্রয়-বিক্রয়; দ্বিতীয় প্রকার হচ্ছে, ‘তিজারাতন হাজিরাতান’ বা নগদ-উপস্থিত ক্রয়-বক্রয়। আর আল্লাহর রাসূলের (সাঃ) হাদীসে দেখা যায় যে, সেখানে প্রধানত দুই ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ের বিধি-বিধান বর্ণিত হয়েছে। ধরন দু’টি হচ্ছেঃ ১. সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয় এবং ২. অসম জাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়। উল্লেখ্য যে, কোন কোন ক্ষেত্রে একই হাদীসে উভয় ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান বর্ণরা করা হয়েছে। আবার কোন কোন হাদীসে কেবল এক ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান আনা হয়েছে। কিছু হাদীসে নগদ-বাকির উল্লেখ না করেই ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান দেওয়া হয়েছে। কতিপয় হাদীসে আবার পৃথক পৃথক ভাবে নগদ ও বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের কথা বলা হয়েছে। অতঃপর বেশ কিছু হাদীসে ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান লংঘন করলে তাতে কিভাবে সুদ উদ্ভূত হয় তা দেখানো হয়েছে। কতিপয় হাদীসে সুদের বৈশিষ্ট্য তুলে ধরা হয়েছে। আর কিছু হাদীসে গুনাহ, ইহ-পরকালীন পরিণতি ইত্যাদি বিষয়ে মানবজাতিকে সাবধান ও সতর্ক করা হয়েছে। এই দৃষ্টিভঙ্গি সামনে রেখে ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ সংক্রান্ত হাদীসগুলোকে নিম্নরূপে বিভক্ত করে পেশ করা যেতে পারে যদিও এই বিভক্তি চূড়ান্ত বলা যাবে না।*

*এখানে হাদীসগুলোর কেবল বাংলা তরজমা পেশ করা হলোঃ ক্রয়-বিক্রয় ও রিবা সংক্রান্ত হাদীসসমূহে ব্যবহৃত কয়েকটি পরিভাষার অর্থ নিয়ে অনুবাদকদের মধ্যে মত পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। এর মধ্যে প্রথম হচ্ছেঃ ‘মিসলান বিমিসলিন’। কখনও এর অর্থ করা হয়েছে পণ্যের জাতগত মিল, কখনও বস্তূর পরিমানগত সমতা, কখনও আবার বৈশিষ্ট্যে এক রকম। এই আলোচনায় মিসলান বিমিসলিনকে বৈশিষ্ট্য বা মানে সমান সমান আর্থে গ্রহণ করা হয়েছে।

দ্বিতীয় শব্দটি হচ্ছে, ‘সাওয়ায়িন’ : কোথাও কোথাও এর অর্থ লিখা হয়েছে বৈশিষ্ট্যে সমান সমান করা, তবে অধিকাংশ অনুবাদক এর অর্থ করেছেন, “পরিমাণে সমান সমান”। এখানে এই শেষোক্ত অর্থটি নেওয়া হয়েছে।

১. ক্রয়-বিক্রয় সংকক্রান্ত হাদীস

ক) এক সাথে সম ও অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

খ) সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত

১. সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই);

২. সমজাতের ভিন্ন ভিন্ন মানের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় (নগদ-বাকি উল্লখ নেই):

৩. সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়।

গ) অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত

১. অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই);

২. অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়;

২. সুদ সংক্রান্ত হাদীস

ক) এক সাথে সম ও অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ সংক্রান্ত (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

খ) সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ সংক্রান্ত

১. সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

২. সমজাতের ভিন্ন ভিন্ন মানের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ (নগদ বাকি উল্লখ নেই)

৩. সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ

[তৃতীয় পরিভাষাটি হচ্ছে, ‘ইয়াদান বিইয়াদিন’ ও ‘হা’আ ওয়া হা’আ’। প্রায় সকলেই এর অর্থ করেছন, নগদ হস্তান্তর। কেউ কেউ এর অর্থ করেছেন উপস্থিত নির্ধারিত বস্তুর সাথে উপস্থিত নির্ধারিত বস্তুর বিনিময়। কেউ আবার এর অর্থ করেছেন, নির্ধারণ ও নিশ্চিত করা। এখানে এর অর্থ করা হয়েছে পারস্পরিক হস্তান্তার বা পারস্পরিক বিনিময়।

হাদীসে ব্যবহৃত আর একটি পারিভাষা হচ্ছে, ‘নাসীয়াহ’। অনুবাদকগণ সাধারণভাবে এর অর্থ করেছেন ঋণ, বাকি বা সময়। কিন্তু পরিভাষা হিসেবে ইয়াদান বিইয়াদিনের বিপরীত অর্থ বুঝানোর জন্যই নাসীয়াহ্ শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে। সুতরাং ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ পাস্পরিক বিনিময়হীন বা বিনিময় না দিয়ে নেওয়া।

হাদীসে ব্যবহৃত আর একটি পরিভাষা হচ্ছে ‘দায়নান’। এর সাধারণ অর্থ ধারে, বাকিতে। কুরআন মজীদে ‘দাইনিন’ শব্দের পরে আছে “ইলা আজালিম মুসাম্মা” (২:২৮২)। অর্থাৎ দাইন নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য হয়। মেয়াদ নির্ধারণ ব্যতীত বিক্রয় বৈধ নয়। হাদীসে দায়নান এর পরে মেয়াদ সম্পর্কে কিছু নাই। সুতরাং এর দ্বারা সম্ভবত মেয়াদ নির্ধানণ ছাড়া বাকি বিক্রয় নিষিদ্ধ হওয়ার কথা বুঝানো হয়েছে।। সেজন্য শব্দটি তরজমায় লিখা হয়েছে (মেয়াদ নির্ধারণ ছাড়া) বাকিতে বিক্রয় করো না। ক্রয়-বিক্রয় অধ্যায়ে এসব বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।]

গ) অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ সংক্রান্ত

১. অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

২. অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ

৩. সাধারণ নির্দেশনা সংক্রান্ত হাদীস (সকল ক্রয়-বিক্রয় এ সুদের ক্ষেতে প্রযোজ্য)

৪. সুদের নিষেধাজ্ঞা সংক্রান্ত হাদীস

৫. সুদের ফলাফল ও পরিণতি সংক্রান্ত হাদীস।

১. ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত হাদীস

ক) এক সাথে সম ও অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত (নগদ বাকি উল্লেখ নেই)

১. উবাদা ইবনে সামিত (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “সোনা বিনিময়ে সোনা, রৌপ্যের বিনিময়ে রৌপ্য, গমের বিনিময়ে গম, যবের বিনিময়ে যব, খেজুরের বিনিময়ে খেজুর, লবণের বিনিময়ে লবণ, মানে এক রকম (মিসলান বিমিসলিন like for like), পরিমাণে সমান সমান (সাওয়ান বিসাওয়ায়িন equal for equal), হস্তান্তর পারস্পরিক (ইয়াদান বিইয়াদিন from hand to hand)। অতঃপর যদি জাত ভিন্ন ভিন্ন হয়, তাহলে তোমরা তোমাদের ইচ্ছামত (দামে) বেচতে পার, তবে হস্তান্তর পারস্পরিক (ইয়াদান বিইয়াদিন) হতে হবে”। [মুসলিম ১৫৮৭ (৮১); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৪, নং ৩৯১৭।]

২. আব্দুর রহমান ইবনে আবূ বাকরাহ (রাঃ) থেকে তাঁর পিতার সূত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, “পরিমাণে সমান সমান (সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন) না হলে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) রূপার বিনিময়ে রূপা এবং স্বর্ণের বিনিমেয়ে স্বর্ণ বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন। কিন্তু তিনি স্বর্ণের বিনিময়ে রূপা এবং রূপার বিনিময়ে স্বর্ণ আমরা যেভাবে চাই সেভাবেই ক্রয়-বক্রয় করার অনুমতি দিয়েছেন”। রাবী বলেন, এক ব্যক্তি তাকেঁ (মূল্য পরিশোধের ধরন সম্পর্কে) জিজ্ঞাসা করল। তিনি বললেন, “তা পারস্পরিক হস্তান্তার (ইয়াদান বিইয়াদিন) হতে হবে। আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) থেকে এরূপই শুনেছি”।[মুসলিম, ১৫৯০ (৮৮); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৮, নং. ৩৯২৭ ও সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড পৃ: ৩৫০, ২০২৫।]

হাদীস দু’টিতে সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ে প্রথমে বস্তু দু’টির মূল্য সমান সমান করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে, উভয় বস্তুর-

১. মান এক রকম হতে হবে (Quality must be similar); একেই সংক্ষেপে বলা হয়েছে মিসলান বিমিসলিন (like for like বা এটা যেমন সেটা তেমন।) এবং

২. পরিমাণ সমান হতে হবে (Quality must be equal); সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন (equal for equal)

অতঃপর সেই সমান সমান দু’টি মূল্যের বিনিময় পদ্ধতি সম্পর্কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে,

৩. বিনিময় পারস্পরিক হতে হবে (Exchange must be reciprocal); ইয়াদান বিইয়াদিন (from hand to hand)

এখানে ক্রয়-বিক্রয় নগদ না বাকি তা বলা হয়নি। অর্থাৎ উপরোক্ত ৩টি বিধান নগদ-বাকি উভয় ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। বাস্তবে দেখা যায়, ১০০ টাকার ১টি নোট নগদ ভাঙ্গাতে দিলে গ্রহীতাকে ১০০ টাকাই ফেরত দিতে হয়; আর কেউ ১০০/- টাকা নিয়ে যদি ১ বছর পর ফেরত দেয়,তাহলে ১০০/- টাকাই ফেরত দেওয়া বিধেয়। অনুরূপভাবে ১ কেজি গম বা ১ কেজি লবণ বাকি নগদ উভয় ক্ষেত্রেই মান ও পরিমাণ সমান করেই বিনিময় করতে হয়। যদি বলা হয় বিনিময় কেবল নগদ নগদ করতে হবে; কিংবা কেবল নগদের ক্ষেত্রে বস্তু দু’টির মান ও পরিমাণ সমান সমান করতে হবে, তাহেল বাকির ক্ষেত্রে কি মান ও পরিমাণ সমান সমান না করলে চলবে? অথবা বাকি ক্রয়-বিক্রয় কি নিষিদ্ধ? এসব প্রশ্নের যুক্তিসংগত কোন উত্তর দেওয়া সম্ভব নয়।

হাদীসের শেষাংশে ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য বলা হয়েছে, “তোমরা ইচ্ছামত বেচতে পার”। এ প্রসঙ্গে আল-কুরআনে বলা হয়েছে, “তোমরা পারস্পরিক স্বেচ্ছা সম্মতিতে ব্যবসা কর” (৪:২২)। আর অন্য এক হাদীসে (হাদীস নং ২৪) বলা হয়েছে, “নিশ্চয়ই ক্রয়-বিক্রয় করবে সেই দামই বৈধ গণ্য হবে; পারস্পরিক সম্মতিতে নির্ধারিত যে কোন দামই বৈধ। সুতরাং এখানে বিধান হচ্ছে, ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তুর ক্ষেত্রে পারস্পরিক স্বেচ্ছা সম্মতিতে দাম নির্ধারণ করতে হবে। অতঃপর বস্তু দু’টির বিনিময় অব্শ্যই পারস্পরিক হতে হবে, যা নগদ হতে পারে; আবার আল্লাহর নির্দেশ মোতাবেক (২:২৮) নির্ধারিত মেয়াদের জন্য বাকিতেও হতে পারে।

ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ অধ্যায়ে এ প্রসঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে।

খ) সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত

i. সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

৩. আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ এবং রৌপ্য ওজনে সমান সমান, বৈশিষ্ট্যে এক ও পরিমাণে সমান সমান হওয়া ব্যতীত (ইল্লা ওয়াযনান বিওয়াযনিন, মিসলান বিমিসলিন, সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন) বেচা-কেনা করো না”। [মুসলিম, ১৫৮৪ (৭৭) ও সহীহ মুসলিম, খণ্ড, পৃ. ৩৪০, নং ৩৯১১।]

৪. আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ, মানে সমান (like for like) না হলে বিক্রি করো না এবং একদিকে অপরদিক অপেক্ষা বেশি করো না। আর রৌপ্যের বিনিময়ে রৌপ্য মানে সমান সমান (like for like) না হলে বিক্রি করো না এবং একদিকে অপরদিক অপেক্ষা বেশি করো না এবং যা নেই তার সাথে যা আছে তা বিক্রি করো না। [মুসলিম, ১৫৮৪ (৭৫); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ. ৩৩৮, নং ৩৯০৮]।[বুখারী, কিতাবুল বূয়ো, তিরমিযী, নাসাঈ, মসিনাদে আহমদ, উদ্ধৃত, চাপরা, এম, উমর, Towards a Just Monetary System. The Islamic Foundation, U.K 1985, পৃ. ২৩৮।]

৫. নাফে থেকে বর্ণিত,............আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) নিজের দুই আঙ্গুল দিয়ে নিজের দুই চোখ ও দুই কানের দিকে ইঙ্গিত করে বললেন, আমার দুই চক্ষু দেখেছে এবং দুই কান শুনেছে যে, রাসূলল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “মানে সমান সমান (মিসলান বিমিসলিন) না হলে তোমরা স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ এবং রৌপ্যের বিনিময়ে রৌপ্য বেচা-কেনা করো না। আর একদিক অপরদিক অপেক্ষা বেশি হলেও বেচা-কেনা করো না। এগুলোর মধ্যে যা নেই তার বিনিময়ে যা আছে তা বিক্রি করো না যদি বিনিময় পারস্পরিক না হয়”। [মুসলিম, ১৫৮৪ (৭৬) ও সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ. ৩৩৯, নং ৩৯০৯।]

৬. আবূ হুরায়রাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, দীনারের বিনিময়ে দীনার কোন দিকে বেশি করো না”।[মুসলিম, ১৫৮৮ (৮৪); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ. ৩৪৬, নং ৩৯২৩।]

৭. উসমান ইবনে আফফান (রাঃ) থেকে বর্ণিত, “ রাসুলূল্লাহ (সাঃ) বলেন, তোমনা এক দীনারেরর বিনিময়ে দুই দীনার এবং এক দিরহামের বিনিময়ে দুই দিরহাম বিক্রি করো না”। [মুসলিম, ১৫৫৮ (৭৮) এ সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪০. নং ৩৯১২।]

৮. “ফাদালা ইবনে উবনে উবাইদ আনসারী (রাঃ) বলেন, “খাইবারে অবস্থানকালে রাসূলুল্লাহর (সাঃ) কাছে মুক্তা ও স্বর্ণ খচিত একটি হার আনা হলো। এটা গনীমতের মাল ছিল এবং তা বিক্রির জন্য রাখা হলো”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) পুনরায় তাদেঁর বললেন, “স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ সমান সমান ওজনে (ওয়াযনান বিওয়াযনিন) বিক্রি করতে হবে”।[মুসলিম, ১৫৯১ (৮৯) ও সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৯, নং ৩৯২৯।]

৯. ফায়দা ইবনে উবাইদা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, “খাইবার বিজয়ের দিন আমি বারো দীনারে একটি হার খরিদ করলাম। এটা সোনার তৈরী ছিল এবং তাতে মুক্তা বসানো ছিল। আমি এর সোনা ও মুক্তা পৃথক করলাম এবং বারো দীনারের অধিক (সোনা) পেলাম। আমি এটা নবী (সাঃ) কাছে উল্লেখ করলাম”। তিনি বললেন, “পৃথক না করা পর্যন্ত তা বিক্রি করা যাবে না”।[মুসলিম, ১৫৯১ (৯০); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৯, নং ৩৯৩০।]

১০. হানাশ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমরা ফাদালাহ ইবনে উবাইদের সঙ্গে এক যুদ্ধাভিযানে ছিলাম। আমার ও আমাদের সঙ্গীর ভাগে সোনা, রূপা ও মুক্তার সমন্বয়ে তৈরী একটি হার পড়ল। আমি তা বিক্রি করতে মনস্থ করলাম। আমি ফাদলা ইবনে উবাইদ (রাঃ) কে জিজ্ঞাসা করলাম। তিনি বললেন, তা থেকে সোনা পৃথক করে এক পাল্লায় রাখ এবং তোমরা সোনা অপর পাল্লায় রাখ। অতঃপর তুমি মানে সমান সমান ব্যতীত (ইল্লা মিসলান বিনিসলিন) গ্রহণ করো না। কেননা আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি, “যে ব্যক্তি আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেন (স্বর্ণ কিংবা রৌপ্য) মানে সমান সমান করা ব্যতীত ((ইল্লা মিসলান বিনিসলিন) গ্রহণ করো না”। [মুসলিম, ১৫৯১ (৯২) ও সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫০-১, নং ৩৯৩৩।]

১১. ফাদালা ইবনে উবাইদ রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “খাইবারের দিন আমরা রাসূলুল্লাহর (সাঃ) সাথে ছিলাম। আমরা ইহুদীদের সাথে এক উকিয়া স্বর্ণ (চল্লিশ দিরহামের সমান) তিন দীনারের বিনিময়ে কেনা-বেচা করতাম”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “তোমরা সমান সমান ওজন ছাড়া (ইল্লা ওয়াযানান বিওয়াযনিন) স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ বিক্রি করো না”। [মুসলিম, ১৫৯১ (৯১) ও সহীহি মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫০, নং ৩৯৩২।]

১২. আবু যুবাইর বলেন, “আমি যাবির ইবনে আব্দুল্লাহকে বলতে শুনেছি, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) স্তূপীকৃত খেজুর, যার পরিমাণ জানা নেই, নির্দিষ্ট পরিমাণ খেজুরের বিনিময়ে বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন”। [মুসলিম, ১৫৩০ (৪২) ও সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ২৫৫, নং ৩৭০৮।]

উপরোক্ত ৩-১২ নম্বর হাদীসে তথা সোনার বদলে সোনা, রূপার বিনিময়ে রূপা, দীনারের বিনিময়ে দীনার এবং দিরহামের বিনিময়ে ইত্যাদি সমজাতের দু’টি বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে উভয় বস্তুর মান এক রকম, পরিমান সমান সমান এবং বিনিময় পারস্পরিক না হলে ক্রয়-বিক্রয় করতে নিষেধ করা হয়েছে। ৫ নং হাদীস থেকে বুঝা যায় যে, অনুপস্থিত বস্তুর বিনিময়ে উপস্থিত বস্তু বিক্রি করা যাবে না যদি এদের পারস্পরিক বিনিময় করা না হয় অর্থাৎ বিনিময় পারস্পরিক হলে তা বৈধ হবে।

ii. সমজাতের ভিন্ন ভিন্ন মানের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

১৩. মুহাম্মদ ইসহাক ইয়াযীদ ইবনে আব্দুল্লাহ ইবনে কাসিত হতে বর্ণিত। তিনি উবাদা ইবনে সামিত হতে বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আমাদের নিষেধ করেছেন স্বর্ণচূর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ এবং রৌপ্যচূর্ণের বিনিময়ে রৌপ্য ক্রয়-বিক্রয় করতে। তিনি আমাদের রূপার বিনিময়ে স্বর্ণচূর্ণ এবং সোনার বিনিময়ে রৌপ্যচূর্ণ ক্রয় করতে বলেছেন”।(হাদীস)[উদ্ধৃত, বাদাবী, যাকি আল-দ্বীন; Theory of Prohidited Riba, ইংরেজী অনুবাদ; ইমরান অহসান খান, ডিসেম্বর, ২০০০, [email protected], পৃ. ৯৬।]

১৪. আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহর (সাঃ) জীবদ্দশায় বিভিন্ন প্রকার খেজুর মিশিয়ে আমাদের খেতে দেওয়া হতো। আমরা এক সা’ উন্নত মানের খেজুরের বিনিময়ে আমাদের নিম্ন মানের খেজুর দুই সা’ বিক্রি করতাম। রাসূলুল্লাহর (সাঃ) নিকট এ সংবাদ পৌঁছলে তিনি ঘোষণা করলেন, এক সা’ খেজুরের বিনিময়ে দুই সা’ খেজুর, এক সা’ গমের বিনিময়ে দুই সা’ গম এবং দুই দিরহামের বিনিময়ে এক দিরহাম আদান-প্রদান করা যাবে না”।[মুসলিম, ১৫৯৫ (৯৮); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৪, নং ৩৯৩৯ ও সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৩১১, নং ১৯৩৫।]

১৫. আমার [বিলাল (রাঃ)] কাছে রাসূলুল্লাহর (সাঃ) জমাকৃত এক মুদ্দ খেজুর ছিল। আমি দেখলাম, উন্নত মানের এক সা’ খেজুর নিম্ন মানের দুই সা’ খেজুরের বিনিময়ে বিক্রয় করা হচ্ছে। আমি তা (উন্নত মানের) ক্রয় করলাম এবং রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-কে দিলাম। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, “বিলাল, তুমি এ খেজুর কোথায় পেলে? আমি বললাম, আমি দুই সা’র বিনিময়ে এক সা’ ক্রয় করেছি”। তিনি বললেন, “এ খেজুর ফেরত দাও এবং আমাদের খেজুর ফেরত নিয়ে আস”।(হাদীস)[সুহাইল, পৃ. ৫৫, সুনান আল-দারিমি সূত্রে।]

১৬. আবূ হুরায়রা ও আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) বর্ণনা করেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বনী আদী আল-আনসারী গোত্রের এক ব্যক্তিকে রাজস্ব আদায়ের জন্য খাইবার এলাকায় পাঠালেন। সে সেখান থেকে উন্নত মানের খেজুর নিয়ে ফিরে আসল”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাকে জিজ্ঞেস করলেন, “খাইবারের সব খেজুরই কি এরূপ?” সে বললো, “না, হে আল্লাহর রাসূল! আমরা বিভিন্ন প্রকারের দুই সা’ নিম্ন মানের খেজুরের বিনিময়ে এক সা’ উন্নত মানের খেজুর ক্রয় করেছি”। তখন রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “তা করো না, বরং মানে সমান সমান (মিসলান বিমিসলিন) হতে হবে। অথবা তোমার খারাপ খেজুর বিক্রি করে তার মূল্য দিয়ে উত্তম খেজুর খরিদ করবে। এভাবেই পরিমাপ (পূর্ণ হবে)।[মুসলিম, ১৫৯৩ (৯৪) এ সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫২, নং ৩৯৩৫।]

১৭. আবূ সাঈদ খুদরী ও আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক ব্যক্তিকে খাইবার এলাকায় (রাজস্ব বিভাগে) কর্মচারী নিযুক্ত করেন। সে ওখান থেকে উত্তম খেজুর নিয়ে ফিরে আসে”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাকে জিজ্ঞেস করলেন, “খাইবারের সব খেজুরই কি এরূপ (উত্তম)?” সে বলল, হে আল্লাহর রাসূল! আল্লাহর শপথ! (খাইবারের সব খেজুরই) এরূপ নয়। বরং আমরা দুই সা’ (খারাপ) খেজুরের বিনিময়ে এরকমের এক সা’ এবং তিন সা’র বিনিময়ে দুই সা’ নিয়েছি। “রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “এরকম কাজ আর করবে না। বরং খারাপ খেজুর নগদ মূল্যে (দিরহামের বিনিময়ে) বিক্রি করে দাও। অতঃপর প্রাপ্ত দিরহাম দিয়ে উত্তম খেজুর খরিদ কর”। [মুসলিম, ১৫৯২ (৯৫) ও সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ. ৩৫৩, নং ৩৯৩৬।]

১৮. ইবনে আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আবু বকর সিদ্দীক (রাঃ) এর আমলে একটি উট জবেহ করা হলো এবং এর গোশত দশ ভাগে ভাগ করা হলো”। এক ব্যক্তি বললো, “আমার বকরীর বিনিময়ে একটি অংশ আমাকে দিন”। আবু বকর বললেন, “এটা সঠিক নয়”।[ইবনুল কায়্যিম, ই’লাম আল মুয়াক্কিয়িন, ভলি-১, পৃ. ৩০৬; উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোল্লেখিত, পৃ. ১৬০।]

১৯. সাঈদ ইবনে মুসায়্যিব থেকে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) পশুর গোশতের বিনিময়ে পশু বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন”।[মালিক, আল-মুয়াত্তা, ভলি-৩, পৃ. ৯২১, উদ্ধৃত, বাদাবী, উপরোক্ত, পৃ. ১৬০।](হাদীস)

২০. নাফে (রাঃ) থেকে বর্ণিত। আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর (রাঃ) তাকেঁ অবহিত করেছেন, “নবী (সাঃ) মুযাবানা পদ্ধতির লেনদের নিষিদ্ধ করেছেন”। মুযাবানা হচ্ছে এই যে, অনুমানে পরিমাণ নির্ধারণ করে শুকনো খেজুরের বিনিময়ে তাজা খেজুর (যা এখনও কাটা হয়নি) বিক্রি করা, শুকনো আঙ্গুর বা কিশমিশের বিনিময়ে তাজা আঙ্গুর (গাছে অবস্থিত) ক্রয়-বিক্রয় করা এবং গমের বিনিময়ে ক্ষেতের ফসল (গম) বিক্র করা। [মুসলিম, ২৫৪২ (৭৩) ও সহীহ মুসীলম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ২৭২, নং ৩৭৫০।]

২১. জাবির (রাঃ) হতে বর্ণিত আছে, “রাসূলল্লাহ (সাঃ) নিষেধ করেছেন মুহাকালা, মুযাবানা, মুখাবান ও মুআওয়ামা হতে”।[মুসলিম, ১৫৩৬ (৮৫)।]

(মুহাকালা ও মুযাবানা উভয়টি একই শ্রেণীর ক্রয়-বিক্রয়। সাধারণ শস্যের ক্ষেত্রে বলা হয় মুহাকালা; খেজুর ও আঙ্গুরের বেলায় এক বলা হয় মুযাবানা। মুখাবারা হচ্ছে জমি বর্গা [উল্লেখ্য যে, বর্গা চাষ সকল ইমামের মতে জায়েয। (মিশকাত)] দেওয়া আর মুআওয়ামা হচ্ছে নির্দিষ্ট বৃক্ষ বা বাগানের ফল দুই দিন বছরের জন্য অগ্রিম বিক্রি করা।)

উপরোক্ত ১৩-২১ নং হাদীসে বলা হয়েছে, সমজাতীয় দু’টি বস্তুর মান অবশ্যই সমান সমান হতে হবে (১৬ নং হাদীস) অন্যথায় খারাপটি তৃতীয় কোন বস্ত বা অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করে (হাদীস নং ১৬-১৭) প্রাপ্ত মূল্য দিয়ে উত্তম বস্তু ক্রয় করতে হবে যাতে বেচা ও কেনা উভয় ক্ষেত্রেই ভিন্ন জাতের বস্তুর মধ্যে ক্রয়-বিক্রয় হয়। এরূপ ক্ষেতে উভয় বস্তুর মান ও পরিমাণ সমান সমান করার শর্ত নেই বরং পারস্পরিক সম্মতিতে যে কোন দামে ক্রয়-বিক্রয় করা বৈধ। আর এভাবেই সমজাতের খারাপ ও উত্তম মানসম্পন্ন বস্তু দু’টির যথার্থ প্রাপ্য পরিমাণ পাওয়া সম্ভব হবে (১৬ নং হাদীস)। উক্ত হাদীসসমুহে স্পষ্ট করেই বলা হয়েছে যে, একই জাতের খারাপ ও ভালো মানের দু’টি বস্তুর মানগত তারতম্যকে বিবেচনায় নিয়ে অনুমানের ভিত্তিতে এদের পরিমাণে কম-বেশি করে সরাসরি বিনিময় করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ, অবৈধ; এরূপ বাকি নগদ সকল ক্রয়-বিক্রয়ই অবৈধ। সমজাতের উভয় বস্তুর পরিমাণ অনুমানে নির্ধারণ করে বিক্রয় করা যে নিষিদ্ধ তা ১৬ ও ১৭ নং হাদীসে অত্যন্ত স্পষ্ট। ১৩ নম্বর হাদীসে স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ এবং স্বর্ণচূর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণচূর্ণ বলার দ্বারা উভয় ক্ষেত্রেই মান এক রকম হতে হবে তা বলা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে উবাদা ইবনে সামিতের (রাঃ) একটি উক্তি ইমাম সারাখসী উল্লেখ করেছেন তা হচ্ছে, “Gold metal and dust are the same.” এই উক্তির আলোকে সারাখসী লিখেছেন, “ওজনে সমান হলে স্বর্ণচুর্ণ উভয়টিই সমান হয়ে যায়”। এ মন্তব্য উল্লেখিত হাদীসের বক্তব্যের সাথে সাংঘর্ষিক। অথচ হাদীসটি উবাদা ইবনে সামিত থেকেই বর্ণিত।

iii) সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়

২২. আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) একটি উট ধার করলেন; অতঃপর একটি অধিক বয়সের উট ধারদাতাকে ফেরত দিলেন এবং বললেন’ “তোমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তি উত্তম যে উত্তম রূপে তার ঋণ পরিশোধ করে”। [মুসলিম, ১৬০১ (১২১)।]

২৩. আবূ হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) দুই বছর বয়সের একটি উট ধার করে সমবয়সের একটি উট ফেরত দিলেন এবং তার অতিরিক্ত আর একটি উট দিয়ে দিলেন”। (তিনি) বললেন, “তোমাদের মধ্যে সেই উত্তম যে ভালভাবে তার ঋণ পরিশোধ করে”।(হাদীস)[সুহাইল, পৃ. ১০৬, জামি আল তিরমিযী, কিতাবুল বুয়ো, ভলি-৬।]

রাসূলুল্লাহ (সাঃ) উট ধার নিয়ে তার চেয়ে অধিক বয়সের উট অথবা কোন কোন সময়ে অতিরিক্ত আর একটি উট ফেরত দিয়েছেন। এরূপ করার কারণও তিনি বলে দিয়েছেন।

গ) অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত

i) অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

২৪. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “নিশ্চয়ই ক্রয়-বিক্রয় পারস্পরিক স্বেচ্ছা সম্মতির ওপর ভিত্তিশীল”।[ফাতাহুল বারি, ভলি-৪, পৃ. ২৩০।](হাদীস)

২৫. আব্দুল্লাহ বিন উমর থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “ক্রয়-বিক্রয় ও ঋণ, এক বিক্রয়ে দুই শর্ত, ঝুঁকি ছাড়া মুনাফা এবং যা নেই তা বিক্রি করা বৈধ নয়”।(হাদীস)[ইবনে কুদামা, আল-মুগনি, ভলি-৪, পৃ. ১৭৬; নূর, ই, এম: Riba versus Prfit Sharing: Theoretical Foundations and Policy Implications: A Dissertation Submitted to International Institute of Islamic University, Islamabad, Pakistan for the award of the Degree of Doctor of Philosophy in Economics, 1999 AD. পৃ. ২৪৪ আবূ দাউদ ও তিরমীযি।]

২৬. আমর ইবনে শোয়াইব থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক বিক্রয়ে দুই লেনদেন নিষিদ্ধি করেছেন”।(হাদীস)[শাওকানি, নাইলুল আওতার, ভলি-৫, পৃ, ১৯০; উদ্ধৃত, নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ. ২৪৪।]

২৭. আবূ হুরায়রা থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলূল্লাহ (সাঃ) এক লেনদেনে দুই বিক্রয় করতে নিষেধ করেছেন”।(হাদীস)[সান-আনি, সুবুস সালাম, ভলি-৩, পৃ. ১৬, নাইলুল আওতার, ভলি-৫, পৃ. ৬, আহমদ; উদ্ধৃত, নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ. ২৪৪]

২৮. আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ থেকে বর্ণিত যে, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক ক্রয়-বিক্রয়ে (deal) দুই দাম নিষিদ্ধ করেছেন”। (হাদীস)[নাইলূল আওতার, ভলি-৫, পৃ. ১৬২।]

২৯. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) “সাফকাতাইনি ফিস সাফকতি” (ক্রয়-বিক্রয়ে (deal) দুই দাম নিষিদ্ধ করেছেন”)।(হাদীস)[উদ্ধৃত, নূর,ই, এম উপরোক্ত, পৃ. ২৪৪।]

৩০. হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) নিষেধ করেছেন বাজারের বাইরে গিয়ে পণ্যবাহী কাফেলার সাথে মিলিত হয়ে পণ্যদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় করতে, শহরের অধিবাসীকে গ্রাম্য লোকদের কোন জিনিস বিক্রি করে দিতে, কোন নারীকে তার বোনের (অন্য নারীর) তালাক দাবী করতে, নকল ক্রেতা সেজে আসল ক্রেতাকে ধোঁকা দিতে, পশুর পালনে দুধ জমা করে রেখে (ক্রেতাকে) পালন ফুলিয়ে দেখাতে এবং কোন ব্যক্তিকে অপর ব্যক্তির দাম-দস্তুর করার ওপর দাম-দস্তুর করতে”।[মুসলিম, ১৫১৫ (১২)।]

৩১. জাবির (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ গ্রাম্য লোকের পণ্যদ্রব্য শহরের লোকেরা বিক্রয় করে দেয়ার চাপ দিবে না। লোকদেরকে স্বাভাবিক অবস্থার ওপর ছেড়ে দাও। কেননা আল্লাহ এক দলের মাধ্যমে অপর দলের বিযিকের ব্যবস্থা করেন”। (সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ২৪৬, নং ৩৬৮৪।)

৩২. ইবনে উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) নাজাশ করতে (খরিদ করার উদ্দেশ্য বতীত অযথা দরদাম করে মূল্য বৃদ্ধি) নিষেধ করেছেন”।[মসলিম, ১৫১৬ (১৩)।]

৩৩. আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ “তোমরা পরস্পর ‘নাজাশ’ করো না”। (জামে আত-তিরমযী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৪১৭, নং ১২৪১।)

৩৪. সুয়াইদ ইবনে কায়েস (রাঃ) হাজার নামক স্থান থেকে কিছু কাপড় আমদানি করলাম। নবী (সাঃ) আমাদের কাছে এলেন। তিনি আমাদের কাছ থেকে একটি পাজামা ক্রয়ের জন্য দরদন্তর করলেন। আমাদের নিকটেই একজন কয়াল উপস্থিত ছিল। সে কয়ালকে বলেনঃ ওজন কর এবং (দাম) কিছুটা বেশি দাও”। (জামে আত-তিরমিযী, পৃ. ৪১৮, নং ১২৪৩।)

৩৫. আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) থেকে বর্ণিত। “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) (উটের পিঠে বিছানোর) একটি চট (বা মোটা কাপড়) এবং একটি কাঠের পাত্র বিক্রয়ের ইচ্ছা করেন, এবং তিনি বলেন, কে এই চট ও পাত্রটি ক্রয় করবে?” “এক ব্যক্তি বলল, “আমি এ দু’টি এক দিরহামের ক্রয় করতে ইচ্ছুক”। নবী (সাঃ) বলেনঃ “কে এক দিরহামের বেশি দিবে, কে এক দিরহামের বেশি দিবে?” “এক ব্যক্তি তাকে দুই দিরহাম দিয়ে তাঁর কাছ থেকে জিনিস দু’টি ক্রয় করল”। (জামে আত-তিরমিযী, পৃ: ৩৬৯, নং ১২৫৬)

৩৬. আব্দুল্লাহ ইবনে উমর বর্ণনা করেছেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কেউ খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করলে তা গ্রহণ করার পুর্বে বিক্রি করা উচিত নয়”।[মুসলিম, ১৫২৬ (৩২); সহীহ আল-বুখারী, ২য়, খণ্ড, পৃ; ৩৩৫, নং ১৯৮৫, পৃ: ৩৩৩, নং ১৯৭৫।]

৩৭. আব্দুল্লাহ ইবনে উমর বর্ণনা করেছেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কেউ খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করলে তা গ্রহণ করার পূর্বে বিক্রি করা উচিত নয়”।[মুসলিম, ১৫২৬ (৩২); সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৩৩৫ নং ১৯৮৫, পৃ: ৩৩৩, নং ১৯৭৫।]

৩৮. ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কেউ খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করলে দখল নেওয়ার পূর্বে তা বিক্রি করা উচত নয়”। ইবনে আব্বাস বলেন, “অন্যান্য সকল জিনিসের ক্ষেত্রে এ কথা প্রযোজ্য”।[মুসলিম, ১৫২৫ (২৯-৩০)।]

৩৯. ইবনে উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, “যে কেউ খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করবে, সে যেন তা পুরোপুরি অধিকারে আনার আগে পুনারায় বিক্রি না করে”। ইবনে উমর (রাঃ) বলেন, “আমরা (অগ্রগামী হয়ে) পণ্যবাহী কাফেলার নিকট থেকে অনুমানের ভিত্তিতে খাদ্যশস্য খরিদ করতাম। তা ক্রয়ের স্থান থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার পূর্বে বিক্রি করতে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আমাদের নিষেধ করেছেন”। [মুসলিম, ১৫২৬-১৫২৭ (৩৪)।]

৪০. ইবনে আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, “ক্রয়কৃত খাদ্যদ্রব্য পুরোপুরি নিজের অধিকারে আসার আগেই বক্রি করতে নিষেধ করেছে”। (তাঊস বলেন), “আমি ইবনে আব্বাস (রাঃ) কে জিজ্ঞাস করলাম, এরূপ হবে কেন (পুরো অধিকারে আনার আগে বেচা যাবে না কেন)?” উত্তরে তিনি বলেন, “তা না হলে তো পণ্যের অনুপস্থিতিতে গিরহামের বিনিময়ে দিরহাম বিক্র করা হবে”। (সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল বুয়ু, পৃ: ৩৩৫, নং ১৯৮৪।)

৪১. ইবনে উমার থেকে বর্ণিত। “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) ব্যবহারোপযোগী না হওয়া পর্যন্ত ফলের বেচা-কেনা নিষিদ্ধ করেছেন। তিনি ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়কেই নিষেধ করেছেন”।[মুসলিম, ১৫৩৪ (৪৯)।

৪২. জাবির (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) পাকার পূর্বে ফল বিক্রি করতে আমাদের নিষেধ করেছেন”।[মুসলিম, ১৫৩৬ (৫৩)।]

৪৩. আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, আল্লাহ (দুনিয়াতে) এমন কোন নবীকে পাঠাননি, যিনি ছাগল-ভেড়া চরাননি। তখন তাঁর সাহাবীগণ বলেন, আপনিও কি (চরিয়েছেন)? তিনি জবাব দিলেন, হাঁ, আমিও কয়েক কীরাতের বিনিময়ে মক্কাবসীদের ছাগল-ভেড়া চরাতাম”। (সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল ইজারাহ, পৃ: ৩৮৫, নং ২১২০।)

৪৪. আবূ মাসউদ আনসারী (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আমাদেরকে দান করার আদেশ করলে আমাদের কেউ কেউ বাজারে চলে যেত এবং বোঝা বহন করে এক মুদ্দ (প্রায় এক সের) মজুরী লাভ করত (এবং তা থেকে দান করত)। আর (আজ) তাদের কেউ কেউ লাখপতি”। বর্ণনাকারী (শকীক) বলেন, “আমার ধারণা, এর দ্বারা তিনি (আবু মসঊদ) নিজের দিকেই ইঙ্গিত করেছেন”।(সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল ইজারাহ, পৃ: ৩৯৩, নং ২১১২।)

৪৫. ইবনে উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) উৎপাদিত ফল কিংবা ফসলের অর্ধেক ভাগের শর্তে খাইবারের জমি (ইহুদীদেরকে) বন্দোবস্ত দিয়েছিলেন”। (সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল হারসে ওয়াল মুযারেআহ, পৃ. ৪২৫, নং ২১৬১।)

৪৬. আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আনসার সাহবীগণ রাসূলুল্লাহ (সাঃ)- ক বললেন, “আমাদের এবং আমাদের ভাইদের (মুহাজির) মধ্যে খেজুরের বাগান ভাগ করে দিন”। তিনি বললেন, “না”। তখন তাঁরা (মুহাজিরদের) বললেন, “আপনারা আমাদের বাগানে মেহনত করুন, আপনাদের ফলের ভাগ দেব”। তাঁরা (মুহাজিররা) বললেন, “আমরা শুনলাম এবং মেরে নিলাম”। (সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল হারসে ওয়াল মুযারেআহ, পৃ” ৪২৩, নং, ২১৫৭।)

৪৭. রাফে ইবনে খাদীজ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমার চাচারা আমার কাছে বর্ণনা করেছেন। “রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর যমানায় লোকেরা নালার পাশে উৎপন্ন ফসলের শর্তে কিংবা এমন কিছু শর্তে ভাগে জমি কেরায়া দিত যা জমির মালিক নিজের জন্য নির্দিষ্ট করে নিত। (যেমন ক্ষেতের কোন বিশেষ অংশ সে নিজের জন্য নির্দিষ্ট করে নিত কিংবা উৎপাদিত ফসলের একটা বিশেষ অংশ সে পাবে- এ শর্তে জমি দিত)। কিন্তু নবী (সাঃ) এরূপ করতে নিষেধ করলেন”। (অধস্তন রাবী বলেন) আমি রাফে’কে জিজ্ঞেস করলাম, “দীনার ও দিরহামের বিনিময়ে জমি কেরায়া দেয়াটা কেমন?” রাফে (রাঃ) বলেন, “তাতে কোন দোষ নেই”। রাইস বলেন, “যে বিষয়ে নিষেধ করা হয়েছে হালাল ও হারাম সম্পর্কে বিজ্ঞ ব্যক্তি সে বিষয়ে চিন্তা করলে তিনিও তা জায়েয মনে করবেন না। কেননা তাতে (ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার) আশংকা রয়েছে”। (সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল হারসে ওয়াল মুযারেআহ, পৃ: ৪৩৩, নং ২১৭৬।)

৪৮. আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “সাওয়ারীর পশু বন্ধক রাখলে তার পিঠে আরোহণ করা যাবে। দুগ্ধবতী পশু রাখলে তার দুধ পান করা যাবে। যে ব্যক্তি আরোহণ করবে এবং দুধ পান করবে পশুর ব্যয়ভারও তাকে বহন করতে হবে”। (জামে আত-তিরমিযী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৩৮৯-৩৯০, নং ১১৯১।)

ii) অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়

৪৯. আবুল মিনহাল (রাঃ) বলেন, আমি বারাআ ইবনে আযিব (রাঃ) এবং যায়েদ ইবনে আরকাম (রাঃ)- কে মুদ্রা বিনিময়ের ব্যবসা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তাঁরা বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর সময় আমরা দু’জন ছিলাম বণিক। আমরা সোনা ও রূপার মুদ্রা বিনিময় অর্থাৎ ক্রয়-বিক্রয় সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেনঃ “যদি বিনিময় পারস্পরিক হয় তাহেল কোন দোষ নেই, কিন্তু যদি বিনিময় পারস্পরিক না হয় তাহলে তা জায়েয নয়”।(সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল বুয়ু, পৃ: ৩০৪, নং ১৯১৭।)

৫০. হাবীব থেকে বর্ণিত। তিনি আবূল মিনহালকে বলতে শুনেছেন, :আমি বারাআ ইবনে আযিবকে ‘সফর’ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বললেন, “তুমি যায়েদ ইবনে আরকামেকে জিজ্ঞেস কর। তিনিই এ ব্যাপারে অধিক জ্ঞাত”। অতএব আমি যায়েদকে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বললেন, “তুমি বারাআর কাছে জিজ্ঞেস কর। সে আমার চেয়ে অধিক জ্ঞাত”। অবশেষে তারা উভয়েই বললেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) স্বর্ণের বিনিময়ে রৌপ্য দায়নান বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন”।[মুসলিম, ১৫৮৯ (৮৭);সহীহ মসিলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৮, নং ৩৯২৬। ]

৫১. জাফর ইবনে আবি ওয়াহশিয়াহ ইউসুফ ইবনে মাহিল হতে, তিনি হাকিম হিযাম হতে বর্ণনা করেছেন যে, “আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-কে জিজ্ঞেস করলাম, হে আল্লাহর রাসূল! আমার কাছে এসে এক ব্যক্তি আমাকে এমন একটি জিনিস তার কাছে বিক্রি করতে বলল যা আমার কাছে নেই। আমি উক্ত জিনিস (যা সে কিনতে চেয়েছিল) তার কাছে বিক্রি করলাম। অতঃপর বাজার থেকে তার জন্য জিনিসটি ক্রয় করলাম (তাকে হস্তান্তন করলাম)। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “যা তোমার কাছে নেই তা বিক্রি করো না”।(হাদীস)[আবু দাঊদ: সুনানে আবু দাঊদ, ইংরেজী অনুবাদ, আহমদ হাসান, আশরাফ প্রেস, লাহোর, ১৯৮৪, উদ্ধৃত, কামালি, মুহাম্মদ হাশিম: Islamic Commercial Law: An Analysis of Futures and Options, Ilmiah Publishers, Kualampur, 2002, p. 112.]

৫২. ইবনে উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি বাকি নামক বাজারে উটের ব্যবসা করতাম। আমি কখনও স্বর্ণ মূদ্রার বিনিময়ে তা বিক্রয় করতাম এবং মূল্য গ্রহণকালে স্বর্ণমুদ্রা গ্রহণ করতাম। আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-র কাছে এসে তাকেঁ হাফসার (রাঃ) ঘর থেকে বেরিয়ে আসতে দেখলাম। আমি ব্যাপারটি তাকেঁ জিজ্ঞেস করলে তিনি বললেনঃ “এরূপ মূল্য গ্রহণ করায় কোন দোষ নেই”।(জামে আত-তিরমিযী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৩৮৩, নং ১১৭৯।)

৫৩. ইবনে আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) যখন মদীনায় এলেন,তিনি দেখলেন লোকেরা ফল এক বা দুই বছরের জন্য (বর্ণনাকারীর সন্দেহ যে, এক বা দুই বছর বলা হয়েছিল না দুই বা তিন বছর বলা হয়েছিল) ফলে অগ্রিম কেনা-বেচা করেছে”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “কেউ যদি খেজুরের ফল অগ্রিম অর্থ প্রদান করে (পরবর্তীতে খেজুরের সরবরাহ নেওয়ার শর্তে), তাহলে খেজুরের নির্দিষ্ট পরিমাণ, এর নির্দিষ্ট ওজন ও নির্ধারিত সময়ের জন্য অর্থ প্রদান করা উচিত”।[মুসলিম, ১৬৪০ (১২৭)।]

৫৪. আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি মারওয়ানকে বললেন,”আপনি কি সুদের কারবার হালাল করে দিয়েছেন?” মারওয়ান বললেন. “আমি তো তা করিনি”। আবু হুরায়ারা (রাঃ) বললেন, “আপনি তো হুন্ডির ব্যবসা হালাল করে দিয়েছেন অথচ রাসূলুল্লাহ (সাঃ) খাদ্যদ্রব্যের ওপর নিজের অধিকার পুরোপুরি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পুর্বেই তা বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন”। রাবী বলেন, “মারওয়ান লোকদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দিল এবং তাদেরকে এ ধরনের লেনদেন করতে নিষেধ করল”। সুলাইমান ইবনে ইয়াসার বলেন, “অতঃপর আমি দেখলাম, শান্ত্রীরা লোকদের হাত থেকে হুন্ডির কাগজগুলো কেড়ে নিয়ে নিচ্ছে”।[মুসলিম, ১৫২৮ (২)।]

৫৫. আয়েশা (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সঃ) তাঁর লৌহ বর্মটি এক ইহুদীর কাছে বন্ধক রেখে ধারে খাদ্য-শস্য ক্রয় করেছিলেন’।[মুসলিম, ১৬০৩ (১৬৪)।]

৫৬. আ’মাশ (রাঃ) বর্ণনা করেছেন, “আমরা বন্ধক রেখে বাকিতে ক্রয়ের কথা ইবারাহীমের কাছে উল্লেখ করলে তিনি বলেন, এরূপ করতে কোন দোষ নেই। অতঃপর তিনি আমাকে আসওয়াদের মাধ্যমে আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত একটি হাদীস শুনালেন যে, নবী (সাঃ) একটা নির্দিষ্ট মেয়াদের বাকিতে এক ইহুদীর নিকট থেকে কিছু খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করেছিলেন এবং স্বীয় লৌহ বর্মটি তার কাছে বন্ধক রেখেছিলেন”। (সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল বুয়ূ, পৃ: ৩৫৮, নং ২০৪৫।]

৫৭. ইবনে আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) যখন ইন্তিকাল করেন তখন তাঁর লৌহ বর্ম বিশ সা’ খাদ্যশস্যের বিনিময়ে বন্ধক দেয়া ছিল। তা তিনি নিজ পরিবারের জন্য নিয়েছিলেন”। (জামে আত-তিরমিযী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৩৬৬, নং ১১৫৫।)

৫৮. “কোন ইবনে আব্দুল্লাহ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) জাবির (রাঃ) এর নিকট থেকে বাকিতে কূপ ক্রয় করেন এবং মদীনায় ফেরার পর তার মূল্য পরিশোধ করেন”।(বুখারী, হাদীস নং ২২৫৫।)

৫৯. জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিন বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আমার নিকট দেনা ছিলেন। তিনি তাঁর দেনা পরিশোধ করার সময় আমাকে কিছু অতিরিক্ত দিলেন”।(সুনান আবূ দাউদ)

৬০. জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমি রাসূলূল্লাহ (সাঃ)-এর নিকট গেলাম; সে সময়ে তিনি মসজিদে গিয়েছিলেন) নবী (সাঃ) আমাকে দু’রাকআত সালাত আদায় করার নির্দেশ দিলেন। শেষে তিনি তাঁর কাছে আমার যা পাওনা ছিল তা পরিশোধ করলেন এবং আরও অতিরিক্ত পরিমাণ দিলেন”।(সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, পৃ; ৪৫২, নং ২২১৯।)

৬১. জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “কোনো এক যুদ্ধে আমি নবী (সাঃ) এর সঙ্গে ছিলাম”। তিনি (সাঃ) বললেনঃ “তুমি কি তোমার উটটি আমার নিকট বেচা সমীচীন মনে কর?” আমি বললাম, “হাঁ”। “অতঃপর তাঁর নিকট আমি সেটি বিক্রি করলাম। তিনি মদীনায় পৌঁছলেন, আমি উট নিয়ে তাঁর কাছে গেলাম। তিনি আমাকে তার দাম দিয়ে দিলেন”। (সহীহ আল-বূখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল ইসতিকরাদ, পৃ: ৪৪৯,নং ২২১০।)

৬২. জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমি একটি উটে চড়ে সফর করছিলাম। কিন্তু উটটি ক্লান্ত হয়ে পড়ে। আমি একে পরিত্যাগ করতে মনস্থ করলাম। এমন সময় রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আমার নিকট আসলেন। তিনি আমার জন্য দোয়া করলেন এবং উটটিকে আঘাত করলেন; ফলে উটটি এত দ্রুত চলতে লাগলো যে অনুরূপ আর কখনো চলেনি”। তিনি(রাসূলুল্লাহ (সাঃ)) বললেন, “এটাকে এক উকিয়ায় আমার কাছে বিক্রি কর”। আমি বললাম, “না”। তিনি আবার বললেন, “এটাকে এক উকিয়ায় আমার নিকট বিক্রি কর”। “আমি তাঁর নিকট এটা বিক্রি করলাম এবং তাতে সওয়ার হয়ে আমার বাড়ি পর্যন্ত যাওয়ার শর্ত রাখলাম। বাড়ি পৌছেঁ আমি উটটি নিয়ে তাঁর কাছে আসলাম। তিনি আমাকে উটের দাম চুকিয়ে দিলেন। আমি ফিরে যেতে লাগলাম। তিনি একজন লোক পাঠিয়ে আমাকে পুনরায় ডাকলেন”। (আমি ফিরে এলে) তিনি বললেন, “মনে করেছিলে আমি তোমার উট নিয়ে তোমাকে কম মূল্য নিতে বলব; তোমার উট এবং দিরহাম নিয়ে নাও। এগুলো তোমারই”। (সহীহ মুসলিম, ৫ম, খণ্ড, পৃ: ৩৬২-৩৬৩, নং ৩৯৫২।)

৬৩. আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “বারীরা এস বললো, আমি আমার মনিবের সাথে প্রতিবছর এক উকিয়াহ করে নয় উকিয়া প্রদানের (মাধ্যমে মুক্ত হওয়ার জন্য) চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। অতএব আমাকে সহযোগিতা করুন”। (বুখারী)

৬৪.   “অজ্ঞাত মেয়াদের জন্য বাকিতে বেচা-কনা বৈধ নয়”।[ইবনে হাযম, আল-মুহাল্ল, বৈরুত, খ-৯, পৃ: ৬২৭।]

৬৫. আবু হুরায়ারা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কেউ যদি না দেখে কোন জিনিস ক্রয় করে তাহলে জিনিসটি দেখার পর চুক্তি বাতিল করার অধিকার তার থাকবে”।[উদ্ধৃত, কামালি,মোহাম্মদ হাশিম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১০৫।](হাদীস)

৬৬. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, “তিনটি জিনিসের মধ্যে বরকত রয়েছে, (তার একটি হচ্ছে) বাকিতে বেচা-কেনা”।(সুনানে ইবনে মাজাহ)

২৪-৬৬ পর্যন্ত হাদীসসমূহে ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তুর ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান বর্ণিত হয়েছে। কোন কোন অবস্থায় ক্রয়-বিক্রয় বৈধ হয় না অথবা ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে কি কি করা নিষিদ্ধ তার বিস্তারিত উল্লেখও এখানে করা হয়েছে। দেখা যাচ্ছে, নগদ-বাকি, অগ্রিম, নিলাম,শ্রম বিক্রি, মুদ্রা ক্রয়-বিক্রয়, কীরাতের বিনিময়ে জমি ইজারা দেওয়া, বাগানের ফলের ভিত্তিতে শ্রম নিয়োগ করা, জমি বর্গা দেওয়া ইত্যাদি সকল ক্রয়-বিক্রয়ই বৈধ।

এসব হাদীসি থেকে বুঝা যায় যে, ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তুর সকল ক্রয়-বিক্রয়ের মৌলিক বিধান হচ্ছে, বস্তু ব্যবহার উপযোগী হতে হবে তথা এদের উপযোগ থাকতে হবে, পারস্পরিক স্বেচ্ছা-সম্মতিতে মূল্য নির্ধারণ করতে হবে; নিজ নিজ বস্তুর ওপর ক্রেতা-বিক্রেতার মালিকানা ও দখল/অধিকার থাকতে হবে; ধোকা-প্রতারণা,জালিয়াতি, অস্পষ্টতা ও অজ্ঞতা থাকা চলবে না। এ ছাড়া এক বিক্রয়ে দুই শর্ত, এক বিক্রয়ে দুই লেনদেন, এক লেনদেনে দুই বিক্রয়, এক বিক্রয়ে দুই দাম, ঝুকিঁ ছাড়া মুনাফা গ্রহণ, ঋণ ও ক্রয়-বিক্রয়কে একত্রিক করা, অযথা দরদাম করে মূল্য বৃদ্ধি করা, কারো দামের ওপর দাম করা ইত্যাদিক সম্পুর্ণ নিষিদ্ধ।

বাকি ক্রয়-বিক্রয় বৈধ হওয়ার ব্যাপারেও হাদীসে কোন অস্পষ্টতা নেই। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) স্বয়ং বাকিতে খাদ্যদ্রব্য ও কূপ ক্রয় করেছেন; এসব ক্ষেত্রে দাম বাকি ছিল, বস্তু নগদ হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদিত হওয়ার পর দাম ও বস্তু উভয়ই বাকি রাখা হয়েছে তার প্রমাণও হাদীসে রয়েছে। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) জাবিরকে (রাঃ) তাঁর উটটি রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর কাছে বিক্রয় করার প্রস্তাব করলেন; জাবির (রাঃ) প্রস্তাবে রাজী হয়ে রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর নিকট তাঁর উট বিক্রয় করলেন এবং মদীনায় পৌছেঁ উট হস্তান্তর করার শর্ত রাখলেন। অতঃপর মদীনায় পৌছেঁ পরদিন সকালে জাবির (রাঃ) উট হস্তান্তন করলেন আর নবী (সাঃ) দাম পরিশোধ করলেন। সুতরাং উভয় পক্ষের মূল্য হস্তান্তর নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য স্থগিত রাখাও বৈধ। এমনকি পূর্বাহ্ন না দেখে ক্রয় করাও বৈধ। তবে এক্ষেত্রে দেখার পর চুক্তি বাতিল করার অধিকার থাকবে। বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে বরকত আছে বলেও হাদীসে বলা হয়েছে।

২. সুদ সংক্রান্ত হাদীস

ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত উপরোক্ত হাদীসগুলো থেকে স্পষ্ট হয়ে যে, সমজাতের পণ্য-সামগ্রী, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান হচ্ছে ৩টি। সেগুলো হচ্ছেঃ

১) মানগত সমতা বা Qualitative equality (মিসলান বিমিসলিন)

২) পরিমাণগত সমতা বা (সাওয়া Qualititative equality য়ান বিসাওয়ায়িন)

৩) পারস্পরিক বিনিময় বা (ইয়াদান বিইয়াদিন)

আর অসম জাতের পণ্য-সামগ্রী, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান হচ্ছে দু’টি। সেগুলো হচ্ছেঃ

১) পারস্পরিক সম্মতিতে মূল্য নির্ধারণ বা Mutual consent (কাইফা শি’তুম)

২) পারস্পরিক বিনিময় বা Reciprocal exchange (ইয়াদান বিইয়াদিন)

কোন ক্রয়-বিক্রয়ে উল্লেখিত কোন বিধান বা বিধানসমূহ লংঘন করলে সে ক্রয়-বিক্রয়ে অবশ্যই সুদ উদ্ভূত হবে। বিভিন্ন ক্রয়-বিক্রয়ে কিভাবে সুদ উদ্ভূত হয় রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তার বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছেন। নিচে কিছু হাদীস উল্লেখ করা হলোঃ

ক) এক সাথে ও অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ সংক্রান্ত (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

৬৭. আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “খেজুরের বিনিময়ে খেজুর, গমের বিনিময়ে গম, বার্লির বিনিময়ে বার্লি এবং লবণের বিনিময়ে লবণ মানে সমান সমান (মিসলান বিমিসলিন) এবং লেনদেন পারস্পরিক (ইয়াদান বিইয়াদিন) হতে হবে। যে ব্যক্তি বেশি প্রদান করল কিংবা গ্রহণ করল সে সুদী কারবারে লিপ্ত হলো। কিন্তু জিনিসের শ্রেণির মধ্যে (আলওয়ানুহু) পার্থক্য থাকলে স্বতন্ত্র কথা”।[মুসলিম, ১৫৮৮ (৮৩); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৬ নং ৩৯২০।]

৬৮. উবাদা ইবনুস সামিত (রাঃ) থেকে বর্ণিত। “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেনঃ সোনার বিনিময়ে সোনা মানে সমান সমান হতে হবে; রূপার বিনিময়ে রূপা মানে সমান সমান হতে হবে; খেজুরের বিনিময়ে খেজুর মানে সমান সমান হতে হবে; গমের বিনিময়ে গম মানে সমান সমান হতে হবে; লবণের বিনিময়ে লবণ মানে সমান সমান হতে হবে এবং বার্লির (যবের) বিনিময়ে বার্লি মানে সমান সমান হতে হবে। এ সবের লেনদেন যে ব্যক্তি বেশি দেবে অথবা গ্রহণ করবে সে সুদ অনুষ্ঠানকারী সাব্যস্ত হবে। রূপার বিনিময়ে সোনা তোমাদের ইচ্ছামত পরিমাণ নির্ধারণ করে বিক্রয় করতে পার তবে বিনময় পারস্পরিক হতে হবে। খেজুরের বিনিময়ে গম তোমাদের ইচ্ছামত পরিমাণ নির্ধারণ করে বিক্রয় করতে পার তবে বিনিময় পারস্পরিক হতে হবে। খেজুরের বিনিময় পারস্পরিক হতে হবে”। উল্লেখিত হাদীসের অপর এক বর্ণনায় আছেঃ “গমের বিনিময়ে বার্লি তোমাদের ইচ্ছামত পরিমাণ নির্ধারণ করে (পরিমাণে কম-বেশি করে) বিক্রয় করতে পার তবে বিনিময় পরস্পবিক হতে হবে”।(জামে আত-তিরমিডী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৩৮০-৩৮১, নং ১১৭৭।)

উক্ত হাদীস দু’টিতে প্রথমে সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে বস্তু দু’টির মান সমান সমান এবং বিনিময় পারস্পরিক হতে হবে বলে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে; অতঃপর কোন এক দিকে বস্তুর পরিমাণ বেশি (যিয়াদা) হলে সেই ‘যিয়াদ’কে (অতিরিক্ত) রিবা বলা হয়েছে। নগদ বাকি উভয় ক্ষেত্রেই একথা প্রযোজ্য। অতঃপর উভয় হাদীসের শেষাংশে ক্রয়-বিক্রয়ের বস্তু দু’টির জাত ভিন্ন ভিন্ন হলে এদের পরিমাণ ইচ্ছে মত নির্ধারণ করে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে বলে বলা হয়েছে।

খ) সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ সংক্রান্ত

i. সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ সংক্রান্ত (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

৬৯. আবূ কিলাবা থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন,......... “আমি তাকে (আবুল আশআস) বললাম, আমাদের ভাইদের কাছে উবাদা ইবনে সামিত উঠে দাঁড়ালেন এবং বললেন, “আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-কে নিষেধ করতে শুনেছি, “স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ, রৌপ্যের বিনিময়ে রৌপ্য, গমের বিনিময়ে গম, যবের বিনিময়ে যব, খেজুরের বিনিময়ে খেজুর এবং লবণের বিনিময়ে লবণ বেচা-কেনা করতে। তবে পরিমাণে সমান সমান একই বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন (সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন, আইনান বিআইনিন) হলে কোন দোষ নেই। অতঃপর যে বেশি দিল কিংবা নিল সে সুদে (সুদ খাওয়ার অপরাধে) লিপ্ত হল”।[মুসলিম, ১৫৮৭ (৮০); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪২, নং ৩৯১৫।]

৭০. আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ, রৌপ্যের বিনিময়ে রৌপ্য, গমের বিনিময়ে গম, যবের বিনিময়ে যব, খেজুরের বিনিময়ে খেজুর এবং লবণের বিনিময়ে লবণ মানে সমান সমান (মিসলান বিমিসলিন) এবং আদান-প্রদান পারস্পরিক (ইয়াদান বিইয়াদিন) হতে হবে। অতঃপর যে ব্যক্তি বেশি দিল কিংবা গ্রহণ করল সে সুদী কারবারে লিপ্ত হলো। গ্রহণকারী ও প্রদানকারী উভয়েই সমান অপরাধী”।[মুসলিম, ১৫৮৪ (৮২); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৫, নং ৩৯৮১।]

৭১. আবূ সাঈদ খদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, সোনার বিনিময়ে সোনা মানে সামান সমান(মিসলান বিমিসলিন), বিনিময় পরস্পরিক (ইয়াদান বিইয়াদিন) এবং যা বেশি (ফদল) তা রিবা, রূপার বিনিময়ে রূপা মানে সমান সমান, বিনিময় পারস্পরিক এবং যা বেশি তা রিবা, গমের বিনিময়ে গম সমান সমান, বিনিময় পারস্পরিক এবং যা বেশি (ফদল) তা রিবা, লবণের বিনিময়ে লবণ সমান সমান, বিনিময় পারস্পরিক এবং যা বেশি (ফদল) তা রিবা, খেজুরের বিনিময়ে খেজুর সমান সমান, বিনিময় পারস্পরিক এবং যা বেশি (ফদল) তা রিবা”।,[হাদীস, উদ্ধুত করেছেন, ইমাম সারাখ্সী, আল-মাবসুত, ইংরেজী অনুবাদ, ইমরান আহসান নিয়াজী [email protected], Dec. 9, 2000.]

৭২.   আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ ওজনে ও মানে সমান সমান (ওয়াযনান বিওয়াযনিন, মিসলান বিমিসলিন) এবং রৌপ্যের বিনিময়ে রৌপ্য ওজনে ও মানে সমান সমান (ওয়াযনান বিওয়াযনিন, মিসলান বিমিসলিন) হলে বিনিময়ে কোন দোষ নেই। তবে যে ব্যক্তি বেশি দিল কিংবা বেশি নিল সেই সুদের কারবার করল”।[মুসলিম, ১৫৮৮ (৮৪); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৬, নং ৩৯২২।]

৭৩. আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ)বলেছেন, “খেজুরের পরিবর্তে খেজুর....যবের পরিবর্তে যব...... ইয়াদান বিইয়াদিন, মিসলান বিমিসলিন, এবং যাতে কোন কম-বেশি থাকবে না। যেই বেশি বা কম করবে নিশ্চয়ই সে সুদ লেনদেনে লিপ্ত হলো। ওজন অথবা পরিমাপযোগ্য বস্তু (এর বেলায় এটা প্রযোজ্য)”। (হাদীস)[আল-বায়হাকি: আল-সুনান আল-কুবরা, ভলি-৫, পৃ: ২৮২; আল-মুস্তাদরাক, ভলি-৩, পৃ: ৪২; উদ্ধৃত, নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১০৫।]

৭৪. ইবনে উমর (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “দুই দীনারের বিনিময়ে এক দীনার, দুই দিরহামের বিনিময়ে এক দিরহাম, দুই সা’র বিনিময়ে এক সা’ বিক্রি করো না; কারণ এতে তোমরা রিমায় (রিবায়) জড়িত হয়ে পড়বে”। এক ব্যক্তি দাড়িয়ে বলল, “ আল্লাহর রাসূল! কেউ যদি একাধিক ঘোড়ার বিনিময়ে একটি ঘোড়া বিক্রি করে, সে ব্যাপারে আপনার মত কি?” উত্তরে তিনি বললেন, “এতে কোন ক্ষতি নেই, যদি তা পারস্পরিক বিনিময় (ইয়াদান বিইয়াদিন) হয়”। (মুসনাদে আহমদ)[উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৬০।]

সমজাতের দু’টি বস্তু (মুদ্রা বা পণ্য) ক্রয়-বিক্রয়ে ক্ষেত্রে উভয় বস্তুর মুল্য সমান সমান করার শর্ত ভঙ্গ করে পরিমাণে কম-বেশি করা হলে সেই বাড়তিকে (ফদল) বলা হয়েছে রিবা। বলা হয়েছে “ফদল (বাড়তি) হচ্ছে রিবা”। ইমাম সারখসী বলেছেন, এই “বাড়তি পরিমাণের তুলনা দ্বারা নিরূপিত বাড়তি হতে পারে অথবা মুদ্রার পরিমাণগত তারতম্য এবং মূল্যের আনুপাতিক পার্থক্য দ্বারা নিরূপিত হতে পারে”। (সারাখসী, পূর্বোক্ত)

ii. সমজাতের ভিন্ন ভিন্ন মানের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ (নগদ-বাকি উল্লখ নেই)

৭৫. আবু সাঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। বিলাল (রাঃ) উন্নত মানের খেজুর নিয়ে আসলেন। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাঁকে জিজ্ঞেস করলেন: “এগুলো কোথা থেকে এনেছো?” বিলাল (রাঃ) বললেন, “আমাদের কাছে কিছু খারাপ খেজুর ছিল। নবীকে (সাঃ) খাওয়ানোর উদ্দেশ্যে এর এক সা’-এর বিনিময়ে আমাদের দুই সা’ (নিম্ন মানের) বিক্রি করেছি”। তখন রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, হায়! এতো একেবারে সুদ। এরূপ করো না; বরং যখন তুমি (উত্তম) খেজুর খরিদ করতে চাও, তখন তোমার (খারাপ) খেজুর ভিন্নভাবে বিক্রি করে দাও (ফাবে’হু বিবাইয়িন আখারা)। অতঃপর তার মূল্য দিয়ে এগুলো খরিদ কর”। [মুসলিম, ১৫৯৪ (৯৬); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৩-৫৪, নং ৩৯৩৭।]

৭৬.   আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর নিকট কিছু খেজুর উপস্থিত করা হলো। তিনি বললেন, “এ খেজুর তো আমাদের (মদীনার) খেজুরের বিনিময়ে আমাদের খেজুরের দুই সা’ বিক্রি করেছি”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “এটা তো সুদ। কাজেই এটা ফেরত দিয়ে দাও। অতঃপর আমাদের খেজুরগুলো বিক্রি করে (এর মূল্য দিয়ে) এগুলো খরিদ কর”।[মুসলিম, ১৫৯৪ (৯৭); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৪, নং ৩৯৩৮।]

৭৭.   আবু নাদরাহ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমি ইবনে আব্বাসকে (রাঃ) সরফ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম”। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, “তা কি পারস্পরিক (ইয়াদান বিইয়াদিন) বিনিময়? আমি বললাম, “হ্যাঁ”। তিনি বললেন, “এতে কোন দোষ নেই”। আমি আবু সাঈদ খুদরীকে (রাঃ) এ সম্পর্কে অবহিত করলাম এবং বললাম আমি ইবনে আব্বাসকে (রাঃ) সোনা-রূপার (সরফ) ক্রয়-বিক্রয় সম্বন্ধে জিজ্ঞেস করলাম। তিনি আমার কাছে জানতে চাইলেন তা পারস্পরিক বিনিময় (ইয়াদান বিইয়াদিন) কিনা? আমি বললাম, “হ্যাঁ”। তিনি বললেন, “তাতে কোন দোষ নেই”। আবূ নাদরাহ বলেন, “আমার কথা (আব্বাস (রাঃ) এর মত) শুনে আবূ সাঈদ (রাঃ) বললেন”, “আচ্ছা, আমরা অচিরেই তাকে লিখব তিনি যেন তোমাদের এই ফতোয়া না দেন”। অতঃপর আবূ সাঈদ (রাঃ) বলেন, “আল্লাহর শপথ! একদা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কোন গোলাম তাঁর নিকট কিছু খেজুর নিয়ে আসে। কিন্তু ৭৮. তিনি তা গ্রহণ করতে অসম্মতি জানান এবং বলেন, “মনে হচ্ছে এগুলো আমাদের এলাকার খেজুর নয়”। গোলামটি বললো, “এ বছর মদীনায় খেজুরের ফলন ভাল হয়নি এবং প্রাকৃতিক দোষ পড়েছে, তাই পুষ্ট হয়নি। আমি এগুলো অন্যের থেকে নিয়েছি এবং যে পরিমাণ গ্রহণ করেছি, বিনিময়ে আমাদের খেজুর থেকে তার চেয়ে কিছু অধিক দিয়েছি”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “তুমি অধিক প্রদান করে সুদী কারবারে লিপ্ত হয়েছ। আর কখনও এরূপ লেনদেনের কাছেও যাবে না। যখন তুমি নিজের খেজুর নিয়ে সন্দেহে পতিত হও (এর মান নির্ণয়ে) তখন তা নগদ মূল্যে বিক্রি করে দাও। অতঃপর এই অর্থ দিয়ে তোমার পছন্দসই খেজুর কিনে নাও”।[মুসলিম, ১৫৯৪ (৯৯); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৫-৫৬, নং ৩৯৪০।]

৭৮. আবূ নাদরাহ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমি ইবনে উমর ও ইবনে আব্বাস (রাঃ)-কে সরফ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম। তাঁরা উভয়েই এত কোন দোষ মনে করেন না”। একদা আমি আবূ সাঈদ খুদরী (রাঃ)-এর নিকট বসা ছিলাম। “আমি তাকেঁ সরফ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলাম”। তিনি বললেন, “যা অতিরিক্ত হবে তা সুদ”। আমি তাদেঁর দু’জনের অভিমতের প্রেক্ষিতে তাঁর এ কথা মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানালাম। জবাবে তিনি বললেন, “আমি কেবল সে কথাই তোমাকে বলব যা আমি রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর কাছে শুনেছি”। তা হলো এই: “এক খেজুর বাগানের মালিক উন্নত মানের এক সা’ খেজুর নিয়ে তাঁর নিকট আসলো অথচ রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর খেজুর ছিল ভিন্ন রঙ্গের”। নবী (সাঃ) তাকে জিজ্ঞেস করলেন, “তুমি এগুলো কোথায় পেয়েছ?” সে বললো, “আমি দু’ সা’ খেজুর নিয়ে (বাজারে) গিয়েছিলাম এবং তা দিয়ে এই এক সা’ খরিদ করেছি। বাজারে এগুলোর প্রচলিত দাম এই এবং ঐগুলোর (উন্নত মানের খেজুর) প্রচলিত দাম এই”। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “তোমার অমঙ্গল হোক! তুমি তো সুদী কারবার করেছ। তুমি যখন এরকম করতে চাও প্রথমে তোমার খেজুরগুলো নগদ মূল্যে (বিসিয়ালয়াতে) বিক্রি করে দাও। অতঃপর সে মূল্য দিয়ে তোমার পছন্দসই খেজুর খরিদ করে নাও”।

আবূ সাঈদ (রাঃ) বলেন, “খেজুরের বিনিময়ে (মানের ভিত্তিতে ওজনের তারতম্যে) খেজুর ক্রয়-বিক্রয় করা মধ্যে সুদের উপাদান থাকাটা খুবই স্বাভাবিক। অথবা সোনার বিনিময়ে সোনা (ওজনের তারতম্যে) লেনদেন করার মধ্যে সুদ থাকাটা খুবই স্বাভাবিক”।

আবূ নাদরা বলেন, “পরে আমি ইবনে উমরের কাছে আসলাম। তিনিও আমাকে ঐ রূপে কেনাবেচা করতে নিষেধ করলেন। তবে আমি ইবনে আব্বাসের (রাঃ)-এর নিকট যাইনি”। আবূ নাদরাহ বলেন, আবূ সাহাবা’ আমাকে বর্ণনা করেছেন যে, “তিনি এই মাসয়ালা সম্পর্কে ইবনে আব্বাসের (রা) কাছে জিজ্ঞেস করেছেন, তিনিও এ ধরনের ক্রয়-বিক্রয় অনুমোদন করেননি”।[[মুসলিম, ১৫৯৪ (১০০); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৬-৫৭, নং ৩৯৪১।]

৭৯. এক ব্যক্তি এক সা’ ভাল খেজুর দিয়ে দুই সা’ খারাপ খেজুর ক্রয় করলে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাকে বললেন, ‘তুমি সুদ নিয়েছ, কারণ, তুমি দ্বিগুণ করেছ”।(হাদীস)[উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ. ৫০]

৮০. ইবনে ইয়াসার থেকে তাঁর কতিপয় প্রতিবেশী এবং রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর সাহাবী সূত্রে বর্ণিত, তাদের একজন হলেন সাহল ইবনে আবূ হাসমা (রাঃ), “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) শুকনো খেজুরের বিনিময়ে তাজা খেজুর বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন এবং বলেছেন, এটা সুদভিত্তিক লেনদেন এবং এটাই হচ্ছে মুযাবানা”।[মুসলিম, ১৫৪০(৬৭)

৭৫-৮০ নম্বর হাদীসগুলোতে সমজাত কিন্তু মানে ভিন্ন ভিন্ন দু’টি বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে কিভাবে সুদ উদ্ভূত হয় তা বলা হয়েছে। দেখা যাচ্ছে, উভয় বস্তুর মধ্যে বিদ্যমান মানগত তারতম্য বিবেচনায় এনে অনুমানের ভিত্তিতে এদের পরিমাণে কম-বেশি করা হলে সেই বাড়তি অংশকে রিবা বলা হয়েছে। কারণ অনুমান তো অনুমানই, তা কখনও নিশ্চিত নয়। তাছাড়া, এটা হচ্ছে মৌলিক ও স্বাভাবিক/প্রকৃতিক বিধানের লংঘন, কেননা সমজাতের দু’টি বস্তুর মান ও পরিমান সমান করা হলেই কেবল এদের মূল্য সমান হতে পারে না। সেজন্য রাসূলুল্লাহ (সাঃ) মানের পার্থক্যসহ দু’টি বস্তুর পরিমাণ সমান সমান করে বিনিময় করার নির্দেশ দেন নাই বরং তিনি স্পষ্ট করে বলেছেন, ‘মানে সমান সমান হতে হবে’; অন্যথায় খারাপ পণ্যটিকে তৃতীয় কোন পণ্য বা অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করে প্রাপ্ত মূল্য দ্বারা পছন্দমত উন্নত মানের পণ্য ক্রয় করার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি এটাও বলেছেন যে, এভাবেই পরিমাণ (পূর্ণ হবে)”।

iii. সমজাতের বস্তু, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ

৮১.   আবূ বুরাদা ইবনে আবি মূসা (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমি মদীনায় এলাম এবং আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম এর সাথে সাক্ষাত করলাম। তিনি বললেন, “তুমি এমন এক দেশে বাস কর, যেখানে সুদের লেনদেন ব্যাপক। সুতরাং কেউ যদি তোমার নিকট ঋণী থাকে এবং তোমাকে এক বোঝা খড়, কিছু বাল্যি বা এক আঁটিঁ শুষ্ক তৃণ উপহার দেয়, তাহলে তুমি তা গ্রহণ করবে না, কারণ তা রিবা”।(বুখারী)

৮২. ‌আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “তোমাদের কেউ যদি কাউকে ঋণ দাও অতঃপর ঋণগ্রহীতা যদি তাকে খাবার সাধে, ঋণদাতার তা গ্রহণ করা উচিত নয়; ঋণদাতাকে তার পশু-বাহনে ভ্রমণ করার প্রস্তাব করে তাহলে তাতে উঠা ঋণদাতার উচিত নয় যদি তারা পূর্ব থেকে অনুরূপ আনুকূল্য পরস্পর বিনিময়ে অভ্যস্ত না হয়”।(সুনান আল-বয়হাকি)

৮৩. আনাস ইবনে মালিক থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “তোমাদের কেউ যদি অন্যকে ধার দেয়, তাহলে কোন উপহার-উপঢৌকন গ্রহন করা তার উচিত নয়”।(বায়হাকি সুত্রে মিশকাত; মুনতাকা, ইবনে তাইমিয়া।)

৮৪. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “ঋণ কোন সুবিধা বয়ে আনলে তা রিবা”।(হাদীস)[উদ্ধৃত নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত পৃ. ২৫২]

৮৫. ফাদালাহ ইবনে উবায়েদ বলেছেন, “ঋণ থেকে আহৃত (derived) সুবিধা হচ্ছে সুদের বিভিন্ন ধরনের একটি”।(সুনান আল-বায়হাকি)

ঋণের ক্ষেত্রে দাতা যে জাতের পণ্য বা মুদ্রা গ্রহীতাকে প্রদান করে নির্ধারিত মেয়াদ পূর্ণ হলে সেই একই জাতের পণ্য বা মুদ্রা ফেরত নেয়। অর্থাৎ ঋণে লেনদেনের বস্তু দু’টি হয় একই জাতের। সুতরাং এক্ষেত্রে সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ের বিধানই প্রযোজ্য। অর্থাৎ যে মানের যত পরিমাণ বস্তু দেওয়া হয়েছে সেই একই মানের সমপরিমাণ বস্তু ফেরত নেয়ার পর তার ওপর ঋণের শর্ত হিসেবে যদি অতি তুচ্ছ নগণ্য জিনিস উপহার উপঢৌকন বা কোন সুবিধা গ্রহণ করা হয়, তাহলে সেটাই হবে বিনিময় ছাড়া অতিরিক্ত বা রিবা। হাদীস কয়টিতে এই ব্যাপারেই সতর্ক করা হয়েছে।

গ) অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ

i. অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ (নগদ-বাকি উল্লেখ নেই)

৮৬. আনাস ইবনে মালিক থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কোন মুসতারসালকে (বাজার সম্পর্কে অনবহিত ব্যক্তি) ঠকানো হচ্ছে রিবা”। (সুনান আল-বায়হাকি সুত্রে সুয়ূতি কর্তৃক তাঁর জামি আল সগীর-এ উদ্ধৃত।)

৮৭. আব্দুল্লাহ ইবনে আবি আওফা হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “নাজিশ (নিলামে ডাক বাড়ানো জন্য যে দালাল হিসেবে কাজ করে) হচ্ছে অভিশপ্ত সুদখোর”।(হাদীস) (তাবারানির আল-কবীর থেকে ইবনে হাজার আল-আসকালানি তাঁর ফাতহুল বারি এবং সুয়ুতি তাঁর জামি আল-সগীরে উদ্ধৃত করেছেন।)

৮৮. “যে ইজাবে লিপ্ত হয় সে সুদ খায়”। (ইজাব হচ্ছে ফল পাকা শুরু হওয়ার পূর্বে ফল বিক্রি করা।) (উদ্ধৃত, বাদাবী, প্রগুক্ত, পৃ. ৩২।)

৮৯. আবূ উমামাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কেউ যদি তার কোন ভাইয়ের জন্য সুপারিশ করে, অতঃপর তার দেওয়া কোন উপহার/উপঢৌকন গ্রহণ করে, তাহলে সে সুদের বড় বড় দরজাসমূহের মধ্যে কোন একটি দরজা দিয়ে সুদের মধ্যে প্রবেশ করল”। (মুসনাদে আহমদ ও আবূ দাঊদ।)

অসম জাতের বস্তুর ক্ষেত্রে ক্রেতা-বিক্রেতার স্বেচ্ছা সম্মতিতে নির্ধারিত যে কোন পরিমাণে/দামে ক্রয়-বিক্রয় করা বৈধ। তবে এরূপ ক্ষেত্রে ধোকাবাজি, প্রতারণা, জালিয়াতির মাধ্যমে দাম বেশি নিলে তা বিনিময়হীন হয়ে যায় বিধায় এ বাড়তি আংশকে রিবা বলা হয়েছে।

ii. অসমজাতের বস্তু, মুদ্রা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ

৯০. আবূল মিনহাল থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমার এক অংশীদার হজ্জ মওসুমে অথবা হজ্জের দিনগুলোতে মূল্য পরিশোধের শর্তে কিছু রূপা ধারে বিক্রি করল। অতঃপর সে আমার নিকট আসল এবং আমাকে অবহিত করল”। আমি বললাম, “তোমার এই লেনদেন বাঞ্ছিত নয়”। সে বলল, “আমি তা বাজারে বিক্রি করলাম। কিন্তু কেউ আমার এ কাজে আপত্তি করেনি”। অতঃপর আমি বারাআ ইবনে আযিবের (রাঃ) কাছে এসে তাঁকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলাম। জবাবে তিনি বললেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) (হিজরত করে) মদীনায় আসলেন। তখন আমরা এ ধরনের বেচা-কেনা করতাম”। তিনি বলেন, “এ ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে যেটা পারস্পরিক বিনিময় হবে (ইয়াদান বিইয়াদিন) তার মধ্যে কোন দোষ নেই। কিন্তু যে (লেনদেন) বিনিময় ছাড়া হবে (নসীয়াতান) তা রিবা। “তবে তুমি (ব্যাপারটি) যায়েদ ইবনে আরকামের (রাঃ) নিকট গিয়ে জিজ্ঞেস করে নাও। কেননা, তিনি আমার চেয়ে বড় ব্যবসায়ী। অতএব, আমি তাঁর নিকট এসে তাঁকে জিজ্ঞেস করলাম। তিনিও অনুরূপ কথা বললেন”।[মুসলিম, ১৫৮৯ (৮৬); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৪৭, নং ৩৯২৫।]

৯১. মালিক ইবনে আওস ইবনে ইবনুল হাদাসান (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমি বলতে বলতে আসলাম, কে (আমার স্বর্ণের সাথে) দিরহাম বিনিময় করবে? তখন উমর ইবনুল খাত্তাব (রাঃ) উপস্থিত ছিলেন”। তালহা ইবনে উবায়েদ বললেন, তোমার স্বর্ণ আমাদের দেখাও এবং (পরে এক সময়ে) আমাদের কাছে আস। পরে যখন আমাদের খাদেম আসবে তখন তোমাকে তোমার দিরহাম দিয়ে দিব”। উমর ইবনূল খাত্তাব (রাঃ) বললেন, “কক্ষণো না! আল্লাহর শপথ। হয়তো তুমি এখনই তাকে (দিরহাম) রৌপ্য দিয়ে দাও অথবা তার স্বর্ণ তাকে ফেরত দাও। কেননা, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “স্বর্ণের বিনিময়ে রৌপ্য লেনদেন পারস্পরিক (হা’য়া ওয়া হা’য়া) না হলে সুদ হবে এবং খেজুরের বিনিময়ে খেজুর (হা’য়া ওয়া হা’য়া) না হলে তাও সুদে পরিণত হবে”।[মসুলিম, ১৫৮৬ (৭৯)]

৯২. মালেক ইবনে আওস (রাঃ) হতে বর্ণিত। “(এক সময়ে) তিনি একশ’ দীনার বিনিময়ের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করলে (তিনি বর্ণনা করেন) তালহা ইবনে উবায়দুল্লাহ আমাকে ডাকলেন। আমরা (দীনার বিনিময়ের বিষয়ে) কথাবার্তা শেষ করলাম। এমনকি বিনিময়ের বিষয়টি তিনি স্থির করে আমার হাত থেকে স্বর্ণ দীনারগুলো নিয়ে স্বীয় হাতের ওপর ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে দেখতে থাকলেন এবং বললেন, গাবা (নামক জায়গা) থেকে আমার কোষাধ্যক্ষ ফিরে না আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। উমর (রাঃ) এসব কথা শুনছিলেন। তিনি বললেন, আল্লাহর শপথ দিয়ে বলছি, যতক্ষণ তার (তালহা ইবনে উবায়দুল্লাহ) নিকট থেকে দীনার-এর বিনিময় গ্রহণ না করবে ততক্ষণ পর্যন্ত বিচ্ছিন্ন হয়ো না। কেননা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ লেনদেন পারস্পরিক না হলে সুদে পরিণত হবে, যবের বিনিময়ে যব লেনদেন পারস্পরিক না হলে সুদে পরিণত হবে, গমের বিনিময়ে গম লেনদেন পারস্পরিক না হলে তাও সুদে পরিণত হবে”। (সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল বুয়ূ, পৃ: ৩৫০, নং ২০২৪।)

৯০ নম্বর হাদীস থেকে বুঝায় যে, ধারে রূপা বিক্রয়ে যদি বিনিময় পারস্পরিক হয় তাহলে তাতে কোন দোষ নেই। কিন্তু পরবর্তী দু’টো হাদীসে ইয়াদান বিইয়াদিন-এর পরিবর্তে হা’আ ওয়া হা’আ পরিভাষা ব্যবহৃত হয়েছে। আর এর বরাত দিয়ে উমর ইবনে খাত্তাব (রাঃ) বলেছেন, “এখনই তাকে দিরহাম দিয়ে দাও অথবা তার স্বর্ণ ফেরত দাও”; “যতক্ষণ তার কাছ থেকে দীনারের বিনিময় গ্রহণ না করবে ততক্ষণ পর্যন্ত বিচ্ছিন্ন হয়ো না”। হা’আ ওয়া হা’আ- এর আক্ষরিক অর্থ হচ্ছে, “এখানে তুমি ও এখানে তুমি- “here you are and you are”। (উদ্ধৃত সারাখসী, পূর্বোক্ত) ইমাম সারাখসী এর অর্থ লিখেছেন, “This for this”- “এটার বদলে এটা”। (সারাখসী, পূর্বোক্ত।) পারস্পবিক বিনিময় বা reciprocal exchange অর্থেই পরিভাষাটি ব্যবহৃত হয়েছে। হাদীস দু’টির দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যায়, এত দীনারের সাথে দিরহাম বিনিময়ের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু এতে নির্ধারিত দাম-দস্তুর যেমন নেই তেমনি পরিশোধের সময়ও সুনির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। হযরত উমর (রাঃ) সম্ভবত এ কারণেই বলেছেন যে, এখনই দাও, ‘বিচ্ছিন্ন হয়ো না’। লক্ষণীয় যে, উমর (রাঃ) যে হাদীসের বরাত দিয়েছেন তাতে সোনার সাথে রূপা বিনিময়ের কথা বলার পরেই গমের বিনিময়ে গম, যবের বিনিময়ে যব ইত্যাদি সমজাতীয় বস্তু বিনিময়ের কথাও বলেছেন। আর একথা ঠিক যে, গম-যবের বাকি বিনিময় অবৈধ নয়; সুতরাং এর থেকে পৃথক করে কেবল সোনা রূপা ও মুদ্রার বাকি ক্রয়-বিক্রয় অবৈধ একথা কিভাবে বলা যেতে পারে? বিশেষ করেম আল-কুরআন যেখানে দাইন ক্রয়-বিক্রয় থেকে সোনা-রূপা ও মুদ্রার বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে পৃথক করার অবকাশ রাখেনি সেখানে তো এরূপ বলার প্রশ্নই আসে না।

৩. সাধারণ নির্দেশনা সংক্রান্ত হাদীস (সকল ক্রয়-বিক্রয় ও সুদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য)

i. ইয়াদিন বিইয়াদিন

৯৩. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “বিনিময় পরস্পরিক হলে তাতে রিবা হয় না”।(মুসলিম, ১৫৯৬ (১০৩)) [মুসলিম নাসাঈ; উদ্ধৃত, চাপরা, পূর্বোক্ত, পৃ. ২৩৭।]

৯৪. ইবনে আব্বাস (রাঃ) থেকে উসামা ইবনে যায়েদ (রাঃ) সূত্রে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, “(মুদ্র ও দ্রব্য-সামগ্রীর) পারস্পরিক (ইয়াদান বিইয়াদিন) হলে তাতে সুদ হবে না”।[মুসলিম, ১৫৯৬ (১০৩)]{ইয়াদান বিইয়াদিনের বিপরীত অর্থ বুঝানোর জন্য নাসীয়াহ্ শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ নগদ বিনিময হলে নাসীয়াহ অর্থ বাকি বিনিময় হতে পারে। কিন্তু ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ যদি পারস্পরিক বিনিময় হয়, তাহলে নাসীয়াহ অর্থ হবে পারস্পবিক বিনিময় না করা বা বিনিময় না দিয়ে নেওয়া। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এই অর্থেই পরিভাষা দু’টি ব্যবহার করেছেন বলে মনে হয়। তবে নাসাঈীয়াহর সাধারণ অর্থ ঋণ, বাকি ক্রয়-বিক্রয়; ইবনে আব্বাস (রাঃ) এই অর্থেই ফতোয়া দিয়েছিলেন যে, সুদ কেবল ঋণের সাথে সম্পৃক্ত, নগদ লেনদেনের ক্ষেত্রে সুদ হয় না। পরবর্তীতে তিনি তাঁর এই মত প্রত্যাহার করেনে বলে জাবির (রা) জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “ইবনে আব্বাস (রা) সুদ ও মুতআ বিয়ে সম্পর্কিত তাঁর মত থেকে প্রত্যাবর্তন করেন”। অনুরূপভাবে ইমাম হাকেমও বলেছেন যে, “ইবনে আব্বাস (রাঃ) পরবর্তীকালে সেই ফতোয়া থেকে তওবা ও ইস্তেগফার করেন এবং রিবা আল-ফদলকে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে থাকেন। (সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৮, টিকা)। অবশ্য এ সম্পর্কে ভিন্নতর বর্ণনাও আছে। তবে এ কথা ঠিক যে, তাঁর অনুসারী সবাই তাদেঁর এ মত প্রত্যাহার করেছিলেন। ইয়াদান বিইয়াদিন বিষয়ে আলোচনায় এ বিস্তারিত ব্যাখ্যা করা হয়েছে।}

ii. নাসীয়াহ

৯৫. আবূ সালেহ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, “আমি আবূ সাঈদকে (রাঃ) বলতে শুনেছি। দীনারের বিনিময়ে দীনার এবং দিরহামের বিনিময়ে দিরহাম, মানে সমান সমান (মিসলান বিমিসলিন) বিক্রি করা যেতে পারে। কিন্তু যে কেউ বেশি নিল বা দিল সে সুদের কারবার করল”। আবূ সালেহ বলেন, “তখন আমি তাকে বললাম, ইবনে আব্বাস তো এর বিপরীত বলেন”। জবাবে আবূ সাঈদ (রাঃ) বলেন, “আমি ইবনে আব্বাসের সাথে সাক্ষাত করলাম এবং তাকে বললাম, “আপনি যে কথাটি বলছেন তা কি রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কাছে শুনেছেন, না মহান পরাক্রমশালী আল্লাহর কিতাবে পেয়েছেন?” উত্তরে তিনি বললেন, “এর কোনটিই নয়। আমি তা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর কাছেও শুনিনি এবং আল্লাহর কিতাবেও পাইনি। বরং উসামা ইবনে যায়েদ (রাঃ) বর্ণনা করেছেন যে, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, কেবলমাত্র বিনিময় না থাকলেই (নাসীয়াতে) সুদ হয়”। [মুসলিম, ১৫৯৬ (১০১); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৭, নং ৩৯৪২।]

৯৬. আতা ইবনে আবূ রাবাহ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আবূ সাঈদ খূদরী (রাঃ) ইবনে আব্বাসের (রাঃ) সাথে সাক্ষাত করেন। তিনি তাকেঁ জিজ্ঞেস করলেন, (মুদ্রা এবং দ্রব্য-সামগ্রীর) লেনদেন সম্পর্কে কি বলেছেন? আপনি কি তা রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর কাছে শুনেছেন, না কি কিছু আল্লাহর কিতাবে পেয়েছেন?” উত্তরে ইবনে আব্বাস (রাঃ) বললেন, “এর কোনটি আমি বলি না। আপনার তো রাসূলুল্লাহ (সঃ) কে অধিক বেশি জানেন। আর আল্লাহর কিতাব তাও আমি অধিক বেশি জানি না। আমাকে বরং উসামা ইবনে যায়েদ (রাঃ) জানিয়েছেন যে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “জেনে রাখ! কেবলমাত্র বিনিময়হীনতার (নাসীয়াহ) সাথে সুদী লেনদেন সম্পৃক্ত”।[মুসলিম, ১৫৯৬ (১০৪); সহীহ মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ৩৫৯-৬০, নং ৩৯৪৫।]

৯৭. উবায়দুল্লাহ ইবনে ইয়াযীদ থেকে বর্ণিত। তিনি ইবনে আব্বাসকে (রাঃ) বলতে শুনেছেন, “উসামা ইবনে যায়েদ (রাঃ) আমাকে অবিহিত করেছেন যে, নবী (সাঃ) বলেছেন, “কেবলমাত্র বিনিময়হীনতার (নাসীয়াহ) সাথে সুদী লেনদেন সম্পৃক্ত”।[মুসলিম, ১৫৯৬ (১০২)।]

৯৮. উসামা ইবনে যায়েদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “বিনিময়হীন না হলে রিবা হয় না”। (বুখারী, কিতাবুল বুয়ূ, মুসলিম ও মুসনাদে আহমদ।)

৯৯.   রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “নিশ্চয়ই রিবা হচ্ছে বিনিময়হীন”।[মুসলিম, ১৫৯৬ (১০১)।]

iii. এক লেনদেন (deal) দুই দাম

১০০.  ইবনে মাসূদ বলেন, “এক লেনদেনে দুই দাম সুদ জন্ম দেয়”।[২১]

১০১.  আবূ হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “যে এক লেনদেনে দুই বিক্রয় করে তার উচিত কেবল মূলটা (Principal) গ্রহণ করা, অন্যথায় সে সুদ খায়”।[২২]

iv. বিশেষ

১০২.  সাঈদ ইবনে যায়েদ থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কোন মুসলমানের মান-সম্মান হানিকর অন্যায় কিছু বলা হচ্ছে সর্বাধিক প্রচলিত ধরনের একটি”।(সুনানে আবূ দাঊদ)

৪. সুদের নিষেধাজ্ঞা সংক্রান্ত হাদীস

১০৩.  জাবিন ইবনে আব্দূল্লাহ নবীর (সাঃ) বিদায় হজ্জের বিবরণ দিতে গিয়ে বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) লোকদের সম্বোধণ করে বললেন, “জাহিলিয়্যাত যুগের সকল সুদ বাতিল করা হয়েছে। সর্ব প্রথম আমি আমাদের রিবা বাতিল করছি, তা হচ্ছে আব্বাস ইবনে আব্দুল মুত্তালিবের (নবী করীমের সাঃ চাচা) পওনা সুদ। তা সম্পর্ণ বাতিল করা হলো”।[মুসলিম: কিতাবুল হজ্জ, মুসনাদে আহমদ, উদ্ধৃত, চাপরা, এম, উমর, পূর্বোক্ত, পৃ. ২৩৬।]

৫. সুদের ফলাফল ও পরিণতি সংক্রান্ত হাদীস

১০৪. আবূ হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, মানুষের জন্য অবশ্যই এমন একটি সময় আসবে যখন প্রত্যেকেই সুদ গ্রহণ করবে। আর কেউ যদি সুদ গ্রহণ না করে তাহলে সুদের ধুলা হলেও তার কাছে পৌছবে”।(আবু দাঊদ, ইবনে মাজাহ)

১০৫. আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) সুদ গ্রহণকারী ও সুদ প্রদানকারী উভয়কেই অভিসম্পাত করেছেন”। বলেন, “আমি বললাম এর লেখক ও সাক্ষীদ্বয়?” আব্দুল্লাহ (রাঃ) বললেন, “আমরা শুধু এতটুকু বলব যা শুনেছি”।[মুসলিম, ১৫৯৮ (১০৫)]

১০৬. জাবির (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) সুদ গ্রহণকারী, সুদ প্রদানকারী, এর হিসাব (বা চুক্তিপত্র) লেখক এবং এর সাক্ষীদ্বয় সবাইকে অভিসম্পাত করেছেন। এরা সবাই সমান অপরাধী”।[মুসলিম, ১৫৯৮ (১০৬)]

১০৭. ইবনে মাসূদ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “সুদের পরিমাণ যদি খুব বেশিও হয়, তাহলেও শেষ পর্যন্ত তা অতি নগণ্য ও তুচ্ছ হতে বাধ্য”।(ইবনে মাজাহ, মুসনাদে আহমদ।)

১০৮. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “আপাতদৃষ্টিতে মনে হয় সুদ (ভিত্তিক অর্থনীতি) সমৃদ্ধি আনে, কিন্তু সুদের চুড়ান্ত পরিণতি হচ্ছে অভাব এবং সংকোচন”।(মুসনাদে আহমদ)

১০৯. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “যিনা ও সুদ জাতিকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়”।(মুসনাদে আহমদ)

১১০. আব্দুল্লাহ ইবনে হানযালা (রাঃ) হতে বর্ণিত। “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন, জেনে-শুনে সুদের একটি দিরহাম গ্রহণ করা ছত্রিশ বার যিনা করার চেয়েও জঘন্য”।[মিশকাত আল-মাসাবিহ, কিতাব আল-বুয়ু, বাবুর-রিবা, মুসনাদে আহমদ ও দারা কুতনি সূত্রে; উদ্ধৃত, চাপরা, এম উমর, উপরোক্ত, পৃ. ২৩৭।] বায়হাকি নিচে উল্লেখিত অংশসহ হাদীসটি শু’য়াব আল-ঈমানে উদ্ধৃত করেছেন, “অন্যায় ভক্ষণের দ্বারা যার শরীরে গোশত তৈরী হয়েছে তার জন্য দোযখই উপযুক্ত স্থান”।

১১১. আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “মিরাজের রাতে আমি এমন কিছু লোকের দেখা পেলাম যাদের পেট ঘরের মত এবং পেটগুলো সাপে ভর্তি যা বাইরে থেকে দেখা যাচ্ছিল। আমি জিব্রাঈলকে (আঃ) জিজ্ঞেস করলাম, এরা কারা?” উত্তরে তিনি বললেন, “এরা হচ্ছে সেই সব লোক যারা সুদ গ্রহণ করত”।(ইবনে মাজাহ)

১১২. সামুরা ইবনে জুনদুব (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ আজ রাতে আমি স্বপ্নে দু’জন লোককে দেখলাম, তারা আমার নিকট এসে আমাকে নিয়ে একটি পবিত্র ভূমিতে গেল। আমরা চলতে চলতে একটা রক্ত-নদীন তীরে পৌছেঁ গেলাম। নদীর মধ্যখানে একজন লোক দাড়িয়েঁ ছিল, আর নদীর তীরে একটি লোক দাড়িয়েঁ ছিল যার সামনে ছিল কিছু পাথর। এরপর নদীর মাঝে দাঁড়ানো ব্যক্তি তীরের দিকে অগ্রসর হলে তীরে দাঁড়ানো লোকটি তার মুখমণ্ডল লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করল এবং সে আগে যেখানে ছিল সেখানে ফিরে যেতে বাধ্য হলো। এভাবে যখনই যে উঠে আসার চেষ্টা করছে তখনই তীরের লোকটি তার মুখ লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়ে মারছে, যার ফলে সে (পূর্বস্থানে) ফিরে যাচ্ছে এবং পূর্ববৎ অবস্থান গ্রহণ করছে। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, আমি জিজ্ঞেস করলাম, এ লোকটি কে (কি কারণে তার এ শাস্তি হচ্ছে বা তার এ অবস্থা কেন)? তারা (আমার সাথের লোক দু’জন) বলল, নদীর মধ্যে দাঁড়ানো যে লোকটিকে দেখলেন, সে এক সুদখোর”।(সহীহ আল-বুখারী, ২য় খণ্ড, কিতাবুল বুয়ূ, পৃ: ৩১৩-১৪, নং ১৯৪০)

১১৩. রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “চার শেণীর লোককে আল্লাহ যুক্তি সঙ্গত কারণেই বেহেশতে প্রবেশ করতে দিবেন না। এমনকি বেহেশতের সুগন্ধও তারা পাবে না। যারা অভ্যাসবশত মদ পান করে, যারা সুদ খায়, যারা ইয়াতীমের সম্পদ অধিকার ছাড়া অন্যায়ভাবে ভোগ করে এবং যারা পিতা-মাতার প্রতি কর্তব্য অবহেলা করে”। (মসতাদরাক, আল-হাকিম)

১১৪. আবূ হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “রিবার সত্তরটি স্তর রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে কম মন্দটি হচ্ছে, নিজ মায়ের সাথে যিনা করার সমান”।(ইবনে মাজাহ)

১১৫. ইবনে মাসূদ সূত্রে হাকিম থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “সুদের তিয়াত্তরটি ধরন রয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে কম মন্দটি হচ্ছে, নিজ মায়ের সাথে যিনা করার সমান; মুসলিমদের মধ্যে যে সুদী কারবার করে সে পাগল”।(হাদীস)

১১৬. ইবনে আব্বাস (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, “আল-কুরআনের সর্বশেষ নাযিলকৃত আয়াত হচ্ছে, রিবা সংক্রান্ত আয়াত”।[বুখারী, ভলি-৬, কিতাব-৬, নং ৬৭।]

১১৭. উমর ইবনে খাত্তাব (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেন, “সুদ সংক্রান্ত আয়াত নাযিল হয়েছে সর্বশেষে; আর রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এ বিষয়ে আমাদের কাছে পুরোপুরি ব্যাখ্যা কারার পূর্বেই আল্লাহ তাঁকে নিয়ে গেছেন। সুতারাং তোমরা সুদ পরিত্যাগ কর আর যা সন্দেহজনক তাও পরিহার কর”।(ইবনে মাজাহ)

১১৮. উমর ইবনে খাত্তাব (রাঃ) বলেছেন, “আল্লাহর রাসূলুল্লাহ (সাঃ) যদি তিনটি বিষয়ে স্পষ্ট ব্যাখ্যা পেশ করতেন, তাহলে তা আমার কাছে পৃথিবী এবং তার মধ্যস্থিত যাবতীয় বস্তূ অপেক্ষা অধিক প্রিয় হতো। বিষয় তিনটি হচ্ছে, কালালা, রিবা ও খিলাফা”।(সুনানে ইবনে মাজাহ)

 

তৃতীয় অধ্যায়: অপরাপর ধর্ম ও দার্শনিকদের দৃষ্টিতে সুদ

অপরাপর ধর্মের দৃষ্টিতে সুদ

আল্লাহর সর্বশেষ নবী ও রাসূল মুহাম্মদ (সাঃ)-এর ওপর মহাগ্রন্হ আল-কুরআনে সুদ নিষিদ্ধ। ফলে সাধারণভাবে মনে করা হয় যে, কেবল ইসলামেই সুদ নিষিদ্ধ। কিন্তু এ কথা আদৌ সঠিক নয়; বরং প্রাচীন কাল থেকে দুনিয়ায় আসমানী ধর্ম হিসেবে প্রচারিত সকল ধর্মের নিষিদ্ধ ছিল। এ প্রসঙ্গে পাকিস্তান সুপ্রীম কোর্টের শরীয়াহ্ আপীলেট বেঞ্চের অন্যতম সদস্য বিচারপতি ওয়াজিউদ্দিন আহমদ বেঞ্চ কর্তৃক সুদের বিরুদ্ধে প্রদ্ত্ত রায়ে সংযোজিত তাঁর মন্তব্যে বলেছেন, “notion is practically as old as civilization itself, "Quranic prohibition against riba, in the background of pre-existing restrictions applicable to Ahle-Kitab (people of the scripture i.e. Jews and Christians), for "there is no change in religion" (Al-Quran), which, evolutionary processes and man-made deviations apart, has remained the same since Adam, was gradual, first as pointers and then as the strictest of the commandments”[SLR, Feb. 2000, Lahore, Vol. 1, No. 2, p, 7-8] “মানব সভ্যতা যতটা পুরাতন সুদের ধারণাটিও ততটাই প্রাচীন। সুদের ওপর আল-কুরআনের নিষেধাজ্ঞা কার্যতঃ আহলি কিতাবদের (ইহুদী ও খৃস্টান) ওপর এই বিষয়ে পূর্ব থেকে আরোপিত ও প্রযোজ্য বিধি- নিষেধের ধারাবাহিকতা মাত্র। আল-কুরআনের দৃষ্টিতে বিবর্তন প্রক্রিয়া ও মানুষের সৃষ্ট বিচ্যুতি ছাড়া ধর্মে কোনও পরিবর্তনন হয় না। হযরত আদম (আঃ) থেকে ধর্ম একই রয়েছে এবং সুদ সংক্রান্ত এর বিধি-বিধানসমূহ প্রথমত ছিল দিক-নির্দেশনামূলক, পরে ধারা পরিক্রমায় তা কঠোর অনুশাসনে পরিণত হয়”।

বস্তুতঃ আদম (আঃ) ছিলেন পৃথিবীতে বসবাসকারী প্রথম মানুষ; আর তিনি ছিলেন আল্লাহর নবীও। অতঃপর যুগে যুগে দেশে দেশে আল্লাহ অসংখ্য নবী-রাসূল পাঠিয়েছেন। তাঁরা সকলেই সেই একই আল্লাহর দ্বীন প্রচার ও প্রতিষ্ঠায় সংগ্রাম করেছেন। সুতরাং আদি থেকে শুরু করে সকল যুগে সকল নবী-রাসূলের প্রচারিত দ্বীনে সুদ নিষিদ্ধ ছিল এটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু সকল নবী-রাসূলের কাছে নাযিলকৃত আল্লাহর গ্রন্হ সংরক্ষিত নেই। আজকের দিনে যে কয়টি গ্রন্হকে আসমানী গ্রন্হ বলে মনে করা হয় তার মধ্যে একমাত্র আল-কুরআনই অক্ষত ও অবিকৃত অবস্থায় মওজুদ আছে। এছাড়া অন্যান্য সব কয়টি গ্রন্হেই আল্লাহর বাণীর সাথে মানুষের কথার সংমিশ্রণ ঘটানো হয়েছে। তার পরেও এসব গ্রন্হ থেকে যতটুকু জানা যায় তাতে ইহুদী ধর্মগ্রন্হ, খৃস্টান ধর্মগ্রন্হ ও হিন্দু ধর্মগ্রন্হে সুদ নিষিদ্ধ ছিল বলে নিশ্চিতভাবে বলা যায়। বিচারপতি ওয়াজিউদ্দীন আহমদ বলেছেন, "While evidence of such transactions is found reflected, and perhaps not approved except with reservations, in the Code of Hammurabi (1712-1750 BC) of the Babylonian era, the practice was either controlled or consistently disapproved in the religious precepts and teachings of Hinduism (Code of Manu), Judaism and Christianity”[উপরোক্ত।]

“বেবিলনীয় যুগে (খৃস্টপূর্ব ১৭৫০-১৭১২) হাম্মুরাবি সংহিতায় সুদ লেনদেন সংক্রান্ত দৃষ্টান্তের অভিব্যক্তি পরিলক্ষিত হয়, সম্ভবতঃ এর অনুকূলে, কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া, ধর্মীয় অনুমোদন ছিল না। তবে হিন্দু ধর্ম (মনুসংহিতা) এবং ইহুদী ও খৃস্ট ধর্মে সুদকে হয় নিয়ন্ত্রণ করা হতো, না হয় রীতি মাফিক তা নিষিদ্ধ ছিল”। নিচে এ সংক্রান্ত তথ্য পেশ করা হলোঃ

ইহুদী ধর্মে সুদ নিষিদ্ধ

বনি ইসরাঈলদের মধ্যে আল্লাহ বহু সংখ্যক নবী প্রেরণ করেছিলেন। এই নবীদের (আঃ) কাছে আল্লাহ বেশ কয়টি গ্রন্হও নাযিল করেছেন। মূসা (আঃ)- এর ওপর নাযিল করেছিলেন তাওরাত এবং দাঊদ (আঃ)- এর ওপর নাযিল করেছিলেন যাবূর। তাদের কাছে নাযিলকৃত গ্রন্হে সুদ নিষিদ্ধ ছিল। এছাড়া, ইহুদীদের মৌলিক আইন গ্রন্হ ‘তালমূদ’ এবং ‘মিশনাহ’-তে ইহুদীদের সুদী লেনদেন করতে নিষেধ করা হয়েছে; এমনকি, ইহুদীদের মধ্যে পরস্পর সুদ লেনদেনের ক্ষেত্রে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করা, গ্যারান্টি প্রদান করা অথবা সাক্ষী হতেও নিষেধ করা হয়েছে।[Hassan, Mahbob ul: An Explanation of Rationale behind the Prohibition of Riba in the Dotrines of three major Religions with special reference to Islam, [email protected] o. 75]

মূসার (আঃ) কাছে নাযিলকৃত তাওরাতের ৫টি পুস্তকের মধ্যে ৩ টিতেই সুদ নিষিদ্ধকরণ সংক্রান্ত আয়াত পাওয়া যায়; সেগুলো হচ্ছেঃ

১. লেভিটিকাস (Leviticus): ২৫: ৩৫-৩৭ (তাওরাত)

"If your brother meets with difficult times, you shall give him shelter and lodging, though he be a stranger or a sojourner, that he may live ith you. Do not exact from him any interest (riba) over and above that which you have spent on him. You have the anger of God to fear. See to it that your brother has freedom to live with you. It is not permissible for you to receive interest (riba) on what you spend, or what you write off."[উদ্ধৃত, ইমরান, এন, হোসেইন, The Prohibition of Riba in the Quran and Sunnah, p. 64।]

“তোমার ভাই যদি দুঃসময়ে নিপতিত হয়, তাহলে তুমি তাকে বাসস্থান ও আশ্রয় দেবে, সে যদি বিজাতীয় হয় তবুও। তাকে তোমার সাথে বাস করতে দাও। আর তার জন্য যা কিছু ব্যয় করবে তার ওপর সুদ গ্রহণ করবে না। প্রভুকে ভয় কর। তোমার ভাই-এর অধিকার আছে তোমার সাথে বাস করার। তুমি যা খরচ কর বা মাফ করে দাও, তার ওপরে সুদ গ্রহণ করা বৈধ নয়”। (লেভিটিকাস-এ ব্যবহৃত শব্দ হচ্ছে টারবিট অথবা মারবিট: এর অর্থ হচ্ছে ঋণদাতা কর্তৃক ঋণের ওপর আদায়কৃত সুদ।)

২. Exodus-২২: ২৪(তাওরাত)

“তোমরা যদি আমার কোন লোককে অর্থ ধার দাও যারা গরীব, তবে তোমরা তার উত্তমর্ণ মহাজন হবে না এবং তার কাছ থেকে সুদ আদায় করবে না”।[উদ্ধৃত, মুঃ শরীফ হুসাইন ও এস, এম, হাবিবুর রহমান, ইসলামী ব্যাংক কি ও কেন, বাংলা অনুদিত, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিঃ, পৃ: ৮৬।]

৩. Deuteronomy- ২৩: ১৯-২০ (তাওরাত)

“তোমরা তোমাদের স্বজাতীয় ভাইকে সুদের ধার দিবে না – অর্থের ওপর সুদ, খাদ্য- সামগ্রীর ওপর সুদ এবং সুদ এবং যে কোন জিনিস যা ধার দেওয়া হয়, তার ওপরে সুদ”।[উপরোক্ত, পৃ: ৮৬।]

৪. Psalms: IS: I, 2, 5

“প্রভূ! আপনার তাঁবুতে স্থান পাবে কে? আপনার পবিত্র পর্বত গিরিতে কে বাস করবে? যে ন্যায় পথে চলে, পুণ্যের কাজ করে এবং সর্বান্তকরণে সত্য কথা বলে; যে তার অর্থ সুদের খাটায় না অথবা নিরীহ লোকদের কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণ করে না”।[উদ্ধৃত, তকি উসমানী, পূর্বোক্ত পৃ. ২৩।]

৫. Proverbs: 28: 8

“যে সুদ এবং অন্যায় উপার্জনের দ্বারা তার সম্পদ-সম্পত্তি বৃদ্ধি করে, সে তা নিজের জন্য পুঞ্জীভূত করে যা দরিদ্রদের দুর্দশা বাড়ায়”।[উদ্ধৃত, তকি উসমানী, পূর্বোক্ত পৃ. ২৩।]

৬. Nehemiah: 5: 7

“অতঃপর আমি বিবেকের সাথে বুঝাপড়া করেছি এবং সম্ভ্রান্তদের ভৎসনা করেছি এবং তাদের নীতি-ব্যবস্থাকেও; তাদের বলেছি, তোমরা জবরদস্তি সুদ আদায় কর তার সব ভাই থেকে এবং আমি তাদের বিরুদ্ধে এক মহা-সম্মেলনের ব্যবস্থা রেখেছি”।[উদ্ধৃত, তকি উসমানী, উপরোক্ত, পৃ: ২৪।]

বনি ইসরাঈলের নিকট প্রেরিত আল্লাহর এক নবী ছিলেন যুলকিফল, যাকে এযিকেল বলা হয়। তার কাছে আল্লাহ যে বিধান নাযিল করেন তাতেও সুদ নিষিদ্ধ ছিল। কেউ কেউ মনে করেন যুলকিফল একজন আর এযিকেল আর একজন নবী ছিলেন।

৭. a) Ezekiel: 18: 8

“যে সুদে ধার দেয় না এবং সুদ গ্রহণও করে না, সে খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকে, যে বিবদমান পক্ষের মধ্যে ন্যায়পরায়ণাতার সাথে মীমাংসা করে দেয়, যে আমার নির্দেশিত পথে চলে এবং আমার বিধি-নিষেধ পরিপালনে যত্নবান হয়, সেই হচ্ছে পুণ্যবান, নিশ্চয়ই সে পরিত্রাণ লাভ করবে, বললেন সদা প্রভূ”।[উদ্ধৃত, তকি উসমানী, উপরোক্ত, পৃ: ২৪।]

b) Ezekiel: 22: 12

“এখানে তারা রক্তপাত করার জন্য উপঢৌকন গ্রহণ করেছে, তারা সুদ খেয়েছে এবং বুদ্ধি আদায় করেছে, তারা লোভাতুর ও স্বার্থপর হয়ে জোরপূর্বক প্রতিবেশীদের পম্পদ কেড়ে নিয়েছে এবং তারা আমাকে ভূলে গেছে, বললেন সদা প্রভূ”।[উদ্ধৃত, তকি উসমানী, উপরোক্ত, পৃ: ২৪।]

খৃস্টান ধর্মে সুদ নিষিদ্ধ

ঈসা (আঃ) ছিলেন আল্লাহর নবী। খৃস্টানগণ তাকে যীশুখৃস্ট বলে থাকে। তাঁর কাছে নাযিলকৃত গ্রন্হ he Gospel of Jesus- তে সুদ নিষিদ্ধ ছিল।

a) Gospel of St. Luke: 6: 35

“না, তোমাদের শক্রদের অবশ্যই ভালবাসবে এবং তাদের সাহায্য করবে; এবং তাদের ধার দিবে তবে কোন বিনিময় নেবে না; আর তোমরা ‘অতি বড়’ পুরস্কার লাভ করবে। আর তোমাদের অবস্থান হবে ‘অতি উচ্চে’। কেননা তিনি বড়ই দয়াশীল, এমনকি, অকৃতজ্ঞ ও পাপীদের প্রতিও”। [উদ্ধৃত, ইমরান, এন, হোসেইন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৬৯।]

আবার বলা হয়েছে, “ধার দাও, তার বিনিময়ে কিছু আশা না করে” (Lend, hopping for nothing again)।[উদ্ধৃত, আফজালুর রহমান, ইকোনমিক ডকট্রিনস অব ইসলাম, ৩য় খণ্ড, পৃ: ২১।]

b) Gospel of St. Mathew: 21: 12-13

“যীশু আল্লাহর ঘরে (মাসজিদুল আকসা) প্রবেশ করলেন এবং সেখানে যা কিছু বেচাকেনা হচ্ছিল তা সব বাইরে ছুড়ে ফেলে দিলেন এবং অর্থ বিনিময়কারীদের টেবিলগুলো উল্টিয়ে ফেললেন (যারা মানুষের সম্পদ শোষণ (ripping off) করে নিচ্ছিল) এবং বললেন, “এটা লিখিত আছে যে, আমার ঘরে ইবাদত করা হবে, কিন্তু তোমরা এক চোরদের আড্ডাখানা বানিয়ে নিয়েছ”।

“উল্লেখ্য যে, তৎকালে দুই রকমের মুদ্রা প্রচলিত ছিল। এক ধরনের মুদ্রা ছিল ধর্মনিরপেক্ষ রোমান মু্দ্রা; এবং ওপর রোমান সম্রাট মূর্তি খোদাই করা ছিল; এজন্য মসজিদের ভেতরে বসে এ মুদ্রা লেনদেন বৈধ ছিল না। আর দ্বিতীয়ি প্রকার মুদ্রা ছিল যার ওপর কোন ছবি ছিল না। অর্থ বিনিময়কারীরা এই উভয় মুদ্রা পরস্পর বিনিময় করত এবং মানুষকে প্রতারণা করে (রেশিও কম-বেশি করে) লাভবান হতো। প্রকৃতপক্ষে এটা ছিল সুদ। এজন্য যীশু এর বিরুদ্ধে কথা বলেছেন”।[ইমরান, এন, হোসাইন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭০-৭১]

হিন্দু ধর্মে সুদ নিষিদ্ধ

a) হিন্দুধর্মে ‘মনু’-এর (২য় শতাব্দী, AD) বিধিমালায় সুদ লেনদেন অবৈধ বা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।[বিচারপতি ওয়াজিউদ্দীন, SLR, February, 2000, Lahore, Vol. 01, No. 02, পৃ: ৮।]

b) বেদঃ (2000-1400 BC) বেদে কুষীন্দিনব (সুদখোর) শব্দটি বেশ কয়েকবার উল্লেখ আছে। এর দ্বারা ঋণদাতা কর্তৃক সুদ গ্রহণকে বুঝানো হয়েছে।

c) সূত্রঃ (900-100 BC)) এত বারবার এবং বিস্তৃতভাবে সুদের প্রসঙ্গ উল্লেখ করা হয়েছে।

d) ভাসিশখাঃ তদানীন্তন কালের একজন প্র্রখ্যাত হিন্দু আইন প্রণেতা একটি বিশেষ আইন প্রণয়ন করেন; এত ব্রাক্ষ্মণ ও ক্ষত্রীয়দের জন্য সুদ খাওয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।

প্রাচীন হিন্দু সমাজে একটি প্রবাদ চালু ছিল যে, “নগচ্ছেৎ শুন্ডিকায়লং”; অর্থাৎ সুদখোরের বাড়ীতে যেয়ো না।

বৌদ্ধ ধর্মে সুদ নিষিদ্ধ

‘জাতাকাস’- এ (600-400 BC) (বুদ্ধধর্মে) সুদকে ঘুণা করা হয়েছে এবং সুদখোরদের ‘ভণ্ড তপস্বী’ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। বলা হয়েছে, "hypocritical ascetics are accused of practicing it."

হাম্মারাবি মতবাদে সুদ নিষিদ্ধ

প্রাচীন বেবিলনে হাম্মুরাবি মতবাদেও সুদ নিষিদ্ধ ছিল।

উপরের আলোচনায় প্রতীয়মান হচ্ছে যে, কেবল ইসলামই সুদ নিষিদ্ধ করেনি, বরং পৃথিবীর প্রধান প্রধান ধর্মেই সুদ নিষিদ্ধ কয়েছে।

দার্শনিকদের দৃষ্টিতে সুদ

প্রাচীন গ্রীক দার্শনিক প্ল্যাটো-এ্যারিস্টোটল থেকে শুরু করে আধুনিক দার্শনিকদেন অনেকেই সুদকে ক্ষতিকর মনে করেছেন, একে ঘৃণা করেছেন এবং এর নিন্দা করেছেন। নিচে কতিপয় দার্শনিকের মত পেশ করা হলোঃ

প্ল্যাটোঃ প্রাচীন গ্রীক দার্শনিক প্ল্যাটো তাঁর ‘লজ’ নামক পুস্তকে সুদের নিন্দা করেছেন। তিনি সুদকে মানবতাবিরোধী, অন্যায় ও জুলুম এবং কৃত্রিম ব্যবসা বলে তীব্রভাবে সুদের বিরোধিতা করেছেন।[প্ল্যাটো: ‘লজ’, বুক-৫।]

এ্যারিস্টোটলঃ  প্ল্যাটোর ন্যায় এ্যারিস্টোটলও কঠোর ভাষায় সুদের নিন্দা ও বিরোধিতা করেছেন। তিনি অর্থকে বন্ধ্যা মুরগীর সাথে তুলনা করেছেন যা ডিম দিতে পারে না। তিনি বিশ্বাস করতেন, "A piece of money cannot beget another piece"। তার মতে, অর্থের একমাত্র স্বাভাবিক কাজ হচ্ছে বিনিময়ের মাধ্যমে হিসেবে মানুষের তার মতে, অর্থের একমাত্র স্বাভাবিক হচ্ছে বিনিময়ের মাধ্যমে হিসেবে মানুষের পারস্পরিক অভাব পূরণে সাহায্য করা। তাঁর বিবেচনায় অর্থ ধার দিয়ে তার ওপর সুদ আদায়ের মাধ্যমে সম্পদ পুঞ্জীভূত করার জন্য অর্থেন ব্যবহার করা উচিত নয়। তিনি সুদকে কৃত্রিম ও জালিয়াতি ব্যবসা”। তিনি তাঁর পলিটিক্স শীর্ষক গ্রন্হে লিখেছেন, "The most hated sort (of wealth), and with the greatest reason, is usury, which makes gain out of money itself, and from the natural objects of it. For money was intendeded to be used in exchange, and not increase at interest of all modes of getting wealth, this is the most unnatural.”[ Aristotle: Politics, 1258.] “সঙ্গত কারণেই সবচেয়ে ঘৃণিত হচ্ছে সুদ যার দ্বারা অর্থ নিজ থেকে অর্থ উপার্জন করে এবং অর্থের স্বাভাবিক ও প্রকৃতিগত উদ্দেশ্য থেকেও। কারণ কারণ অর্থের উদ্দেশ্য হচ্ছে বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে কাজ করা, সুদের মাধ্যমে বৃদ্ধি পাওয়া নয়; সম্পদ অর্জনের পন্হা-পদ্ধতিসমূহের মধ্যে এই পদ্ধতিটি সবচেয়ে অস্বাভাবিক”।

থমাস একুইনাসঃ সুদের বিরুদ্ধে থমাস একুইনাসের যুক্তি বিশেষ প্রণিধানযোগ্য। তিনি বলেছেন, অর্থ থেকে অর্থের ব্যবহার পৃথক করা যায় না। তাই অর্থ ব্যবহার করা মানে অর্থকে নিঃশেষ বা খরচ করে ফেলা। এক্ষত্রে একবার অর্থের দাম নেওয়ার পর পুনরায় অর্থের মূল্য নেওয়া হলে, একই পণ্যকে দু’বার বিক্রয় করার অপরাধ হবে, অথবা দ্বিতীয়বার এমন জিনিসের দাম নেওয়া হবে, যা প্রকৃপক্ষে বিক্রেতার দখলে নেই। তাঁর মতে, নিঃসন্দেহে এটি একটি বড় অবিচার ও জুলুম।

সুদকে যারা সময়ের মূল্য বলে দাবী করেন তাদের যুক্তি খণ্ডন করে তিনি বলেছেন, “সময় হচ্ছে একটি সাধারণ (common) সম্পদ; সময়ের ওপর ঋণদাতার যেমন অধিকার আছে, ঋণগ্রহীতারও ঠিক তেমনি অধিকার রয়েছে; অন্যান্য সকল মানুষেরই সময়ের ওপর একই সমান অধিকার আছে। এমতাবস্থায় ঋণদাতা কর্তৃক ঋণগ্রহীতার নিকট সময়ের মূল্য দাবী করা একটা ভণ্ডামি ও অসাধু ব্যবসা”।[বোম বাওয়ার্ক: দি পজিটিভ থিওরী অব ইন্টারেস্ট, পৃ: ৩৪।]

মিসাব্যুঃ ইটালীয় লেখক মিসাব্যু সুদকে অযৌক্তিক বলেছেন; তিনি বলেছেন, “একদিকে অর্থ হচ্ছে একটি প্রতীক মাত্র- এর নিজস্ব কোন ব্যবহার নেই; অপরদিকে বাড়ী-ঘর ও আসবাবপত্রের ন্যায় অর্থের কোন ক্ষয়-ক্ষতিও নেই”।[Ibid, p. 34.]

অন্যান্য দার্শনিকঃ ক্যাটোস, কাইসীরো, সেনেকা এবং পোটাস প্রমুখ দার্শনিকগণও অর্থকে বন্ধ্যা আখ্যায়িত করেছেন এবং অর্থের ওপর সুদ ধার্য করাকে অযৌক্তিক বলে অভিমত দিয়েছেন।

এছাড়া রোমের আইন প্রনেতাগণ, হিন্দু দার্শনিকবৃন্দ, ইহুদী ও খৃস্টান যাজকগণও সুদকে ঘৃণা করতেন। খৃস্টান ধর্মের শুরু থেকে সংস্কার আন্দোলনের অভ্যুদয় এবং রোমে পোপ নিয়ন্ত্রিত চার্চ হতে অন্যান্য চার্চে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার পূর্ব পর্যন্ত সুদ নিষদ্ধ ছিল।

 

চতুর্থ অধ্যায়: ক্রয়-বিক্রয় ও মুনাফা

আল্লাহ তা’য়ালা সূরা আল-বাকারাহর ২৭৫ আয়াতে বলেছেন, “আল্লাহ বাইকে হালাল করে আল্লাহ তা’য়ালা সূরা আল-বাকারাহর ২৭৫ আয়াতে বলেছেন, “আল্লাহ বাইকে হালাল করেছেন, আর রিবাকে করেছেন হারাম”। পূর্বেই বলা হয়েছে যে, এই আয়াত দ্বারা আল্লাহ এক শাশ্বত ও চিরন্তন প্রাকৃতিক সত্যের ঘোষণা দিয়েছেন। বাই হচ্ছে মানব জাতির জন্য অত্যাবশ্যকীয় ও কল্যাণকর; তাই হালাল। আর রিবা হচ্ছে মানুষের জন্য অপ্রয়োজনীয় ও ক্ষতিকর এজন্যই রিবা হারাম। বাই ও রিবার পার্থক্য আলোচনা করলে বিষয়টি স্পষ্ট হবে আশা করা যায়। আল্লাহ তা’য়ালা প্রথমে বাই আর পরে রিবার কথা বলেছেন। একই ধারাবাহিকতায় আলোচনা করলে বিষয় দু’টি বুঝা সহজ হবে।

বাই বা ক্রয়-বিক্রয়

বাই অর্থঃ উক্ত আয়াতাংশে আল্লাহ আরবী বাই (********) শব্দ ব্যবহার করেছেন। ‘বাই’- এর বাংলা প্রতিশব্দ হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়। মিলটন কাওয়ান বাই অর্থ লিখেছেন, "to sell, to buy and sale, to make a contract of purchase and sale; to offer for sale; to agree on the terms of sale; conclude a bargain”[ Cowan, John Milton (ed): A Dictionary of Modern Written Arabic, Third Printing, Macdonald & Evans Ltd., London, 1994, p. 86] বিক্রয় করা ক্রয়-বিক্রয় করা, ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি, বিক্রয়ের জন্য পেশ করা, বিক্রয়ের শর্তে সম্মত হওয়া, ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদন করা”।

"It is the word with two opposite meanings, i.e, purchase and sale; sale and purchase, respectively."[Al Munjed on Words and Information, Catholic Church Group, Dar ElMashreque Publishers, Beirut, Lebanon, 1986, p., 57.]বাই এমন একটি শব্দ যার দু’টি বিপরীতমূখী অর্থ রয়েছে, অর্থাৎ যথাক্রমে ক্রয় এবং বিক্রয়, বিক্রয় এবং ক্রয়”।

'Bai: To purchase; To sell (of goods)."[Arbi Bangia Ovidhan, Bangia Academy, 1984, Second Edition, Vol. 1, p. 745] “বাই (পণ্যদ্রব্য) ক্রয় করা; বিক্রয় করা”।

সুতরাং ‘বাই’ অর্থ হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়। ক্রয়-বিক্রয়ের মাধ্যমেই করা হয় ব্যবসা, আর ব্যবসা থেকে আসে লাভ বা মুনাফা। এজন্য কোন কোন অনুবাদক বাই-এর অর্থ করেছেন ব্যবসা; কেউ কেউ আবার এর তরজমা করেছেন মুনাফা। প্রকৃতপক্ষে ক্রয়-বিক্রয় যত ব্যাপক ব্যবসা ও মুনাফা তত ব্যাপক নয়। সুতরাং বাইকে অর্থে গ্রহণ করাই উত্তম।

বাই-এর সংজ্ঞাঃ ক্রয়-বিক্রয় সম্পর্কে আল-কুরআনে বলা হয়েছে, “নিশ্চয়ই আল্লাহ বেহেশতের বিনিময়ে মুমিনদের জান ও মাল কিনে নিয়েছেন”।[আল-কুরআনঃ ৯:১১১।] এখানে আল্লাহ শিরা (ক্রয়) শব্দ ব্যবহার করেছেন। আল্লাহ বেহেশত দিবেন, আর জান-মাল নিয়েছেন। এ কথা স্পষ্ট ইঙ্গিত করে যে, ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে কিছু দিয়ে তার বিনিময়ে কিছু নেওয়া। ফকীহগণ বিভিন্ন ভাষায় ক্রয়-বিক্রয়ের সংজ্ঞা দিয়েছেন। তার কয়েকটি সংজ্ঞা নিম্নে উল্লেখ করা হলোঃ

a) "Bai is conveying the title through offer and acceptance when both of them are in the past form.”[Al-Fiqh 'ala al-Madhahib al-Arba 'ah, Abdal-Rahman ai-Jaziri, Beirut, Lebanon, Vol-2, p. 147.] অর্থাৎ “বাই হচ্ছে প্রস্তাব (ঈজাব) ও সম্মতি (কবুল) এর মাধ্যমে মালিকানা স্বত্ব হস্তান্তর/বিনিময় করা; ঈজাব ও কবুল উভয়টি অতীত কালের শব্দ দ্বারা প্রকাশ করা হলে ক্রয়-বিক্রয় সম্পন্ন হয়েছে বলে গণ্য হয়”।

b) Bai is "to aquire the very ownership by payment of recompense/indemnity of the same" অর্থাৎ বাই হচ্ছে, “কোন কিছুর সমতুল্য বিনিময়/ক্ষতিপূরণ প্রদান পূর্বক এর মালিকানা গ্রহণ কার”।

c) "The terminology baai expresses the concept of exchange of goods against the other in the process of mutual consent or transfer of ownership against equivalent (value).”[ Shaokani, Muhammad, Nailul Awtar, Idaratul Quran al Ummul Islamiat, Karachi, Pakistan, vol. 5, p. 150.] অর্থাৎ “বাই শব্দটি পারস্পরিক সম্মতি ভিত্তিতে এক পণ্যের সাথে অপর পণ্যের বিনিময়কে বুঝায় অথবা বাই হচ্ছে সমমূল্যের বিনিময়ে কোন পণ্যের মালিকানা হস্তান্তর কারা”।

Bai is the reciprocal exchange of counter values. “ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে সমান সমান মূল্যের পারস্পরিক বিনিময়”।

বাইয়ের উল্লেখযোগ্য বিষয়ঃ উপরের সংজ্ঞাগুলো বিশ্লেষণ করলে উল্লেখযোগ্য যে বিষয়গুলো পাওয়া যায় তা হচ্ছেঃ

ক). মালিকানাঃ ক্রেতা-বিক্রেতার নিজ নিজ পণ্য, অর্থ বা সেবার ওপর তাদের মালিকানা থাকা ক্রয়-বিক্রয়ের অপরিহার্য শর্ত। মালিকানা নেই এমন কোন বস্তু ক্রয়-বিক্রয় বৈধ নয়। তবে চুক্তির শর্তানুসারে ভবিষ্যতে মাল উৎপাদন, তৈরী বা ক্রয় করে মালিকানা অর্জন করার পর অপর পক্ষকে সরবরাহ করাও বৈধ; এরূপ ক্ষেত্রে চুক্তিতে মালের স্পেসিফিকেশন নির্ধারণ করে নিতে হবে।

খ). মূল্য নির্ধারণঃ আসলে ক্রয়-বিক্রয়ে বিনিময়ের বস্তুর একটি অপরটি প্রতিমূল (counter-value)। চুক্তি করার পূর্বেই উভয় মূল্য নির্ধারণ করা বিধেয়। মূল্য নির্ধারণ ব্যতীত ক্রয়-বিক্রয় বৈধ হয় না।

গ). উভয় মূল্য সমান সমান হওয়া (equality of value) ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে মূল্যের সাথে প্রতিমূল্যের বিনিময়, exchange of counter-values. কাউন্টার ভ্যালু বলতে সমান সমান মূল্য বুঝায়। অর্থাৎ উভয় পক্ষের মূল্য সমান না হলে ক্রয়-বিক্রয় বৈধ হয় না।

ঘ). ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে পারস্পরিক ক্ষতিপূরণপূর্বক বিনিময় করাঃ ক্রয়-বিক্রয়ে পরস্পরের ক্ষতিপূরণ করে পণ্য-সামগ্রী, সেবা বা অর্থ বিনিময় করা হয়। ক্রেতা বিক্রেতার কাছ থেকে কোন জিনিস নিলে বিক্রেতার যে ক্ষতি হয়, ক্রেতা সমমূল্যের কোন জিনিস বা অর্থ দ্বারা বিক্রেতার উক্ত ক্ষতি পূরণ করে দেয়। অনুরূপভাবে বিক্রেতাকে মূল্য প্রদান করায় ক্রেতার যে ক্ষতি হয় বিক্রেতা সমমূল্যের জিনিস দিয়ে ক্রেতার সে ক্ষতি পূরণ করে দেয়। ফলে ক্রয়-বিক্রয়ের পূর্বে উভয়ের অর্থনৈতিক অবস্থা যে পর্যায়ে ছিল, ক্রয়-বিক্রয়ের পরেও ঠিক সেই একই অবস্খানে থাকে; ক্রয়-বিক্রয় বা বিনিময়ের ফলে কারও অর্থনৈতিক অবস্থার পরিবর্তন হয় না।

ঙ). পারস্পরিক সম্মতিঃ পারস্পরিক সম্মতি ক্রয়-বিক্রয়ের একটি অপরিহার্য শর্ত। আল্লাহ তা’য়ালার নির্দেশ হচ্ছে, “তোমনা পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে ব্যবসা কর”। (৪:২৯) আর রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “নিশ্চয়ই ক্রয়-বিক্রয় পারস্পরিক সম্মতির ওপর ভিত্তিশীল”।[ফাতহুল বারি, ভলি-৪, পৃ: ২৩০।]

চ). ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ইনসাফপূর্ণঃ ক্রয়-বিক্রয়ে ক্রেতা বা বিক্রেতার কেউ ঠকে না, আর কেউ জিতেও না। এতে পূর্ণ ইনসাফ ও সুবিচার বহাল থাকে, কারও প্রতি কোন প্রকার জুলুম বা বে-ইনসাফী হয় না।এতে পূণ ইনসাফ ও সবিচার বহাল থাকে, কারও প্রতি কোন প্রকার জুলুম বা বে-ইনসাফী হয় না। ক্রয়-বিক্রয় বা বিনিময়ের মাধ্যমে দুনিয়ার মানুষ কেউ কারও ক্ষতি না করেই পরস্পর উপকৃত হয়ে থাকে।

ক্রয়-বিক্রয়ের মৌলিক শর্ত

উপরোক্ত আলোচনায় স্পষ্ট হয়েছে যে, ক্রয়-বিক্রয়ের মৌলিক শর্ত হচ্ছে ২টিঃ

ক). মূল্যের সমতা (equality of Value), এবং খ). পারস্পরিক বিনিময় (reciprocity of exchange)। ক্রয়-বিক্রয়ে যাতে পূর্ণ ইনসাফ বহাল থাকে এবং কোন পক্ষের প্রতি কিছু মাত্র বেইনসাফী বা জুলুম না হয় সেজন্য এ দু’টি মৌলিক শর্ত অবশ্যই পূরণ করতে হবে। অন্যথায় ক্রয়-বিক্রয় বৈধ হবে না।

ক). মূল্যের সমতাঃ ক্রয়-বিক্রয়ে দু’টি পক্ষ_ বিক্রেতা ও ক্রেতা। বিক্রেতার কাছে কোন পণ্য, সেবা (service) অথবা মুদ্রা থাকতে পারে। অনুরূপথভাবে ক্রেতার নিকটও থাকতে পারে কোন পণ্য, সেবা বা মুদ্রা। উভয় পক্ষের পণ্য, সেবা বা মুদ্রা এই জাতের হতে পারে অথবা সেগুলো ভিন্ন ভিন্ন জাতের হতে পারে। পণ্য, সেবা বা মুদ্রা যাই থাকুক এবং ওগুলো সমজাতের হোক বা অসমজাতের হোক, পরস্পর ক্রয়-বিক্রয় করতে হলে প্রথমেই উভয় পক্ষের পণ্য, সেবা বা মুদ্রার মূল্য সমান সমান করে নিতে হবে। একটি হতে হবে অপরটির কাউন্টার ভ্যালু। ইনসাফ বা সুবিচারের এটাই দাবী। কাউন্টার ভ্যালু বলতে মূল্যের সমতাকেই বুঝায়।

ড. উমর চাপরা বলেন, "Justice can be rendered only if the two scales of the balance carry the same value of goods."[চাপরা, ড. এম, উমর: পূর্বোক্ত, পৃ: ১০।] সুবিচার কেবল তখনই সম্ভব হয় যখন দাঁড়িয়ে উভয় পাল্লায় একই সমান (মূল্যের) মাল-সম্পদ তোলা হয়”। তিনি বলেছেন, "The price and counter value should be just in all transactions ...”[উপরোক্ত।] “সকল লেনদেন দাম এবং এর প্রতিমূল্য ন্যায়সঙ্গত হতে হবে”।

খ) পারস্পারিক বিনিময় (reciprocal exchange)ঃ ক্রয়-বিক্রয়ে দেওয়া ও নেওয়া উভয়টাই হয় পারস্পরিক (reciprocal)। বিক্রেতা জিনিস দেয়, অর্থ দেয়, অর্থ নেয়; আর ক্রেতা অর্থ দেয়, জিনিস নেয়। আধুনিক পরিভাষায় একেই বলা হয় eciprocal exchange; কেউ কেউ আরও স্পষ্ট করে বলেছেন, ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ‘'commutative contract [Nyazee, Imran Ihsan Khan, The Rules and Definition of Riba, [email protected], Dec. 2000, p. 5.] অথবা 'synallagmatic contract'।]

ড. নাজাতুল্লাহ সিদ্দিকী equivalence ও reciprocity কে ক্রয়-বিক্রয়ে সুবিচারের যমজ মানদণ্ড (Twin norms of justice) আখ্যায়িত করেছেন। তিনি বলেছেন, (justice) relies on the notions of equality and reciprocity."[সিদ্দিকী, এম, এন: পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৩।] “(মূল্যের) সমতা এবং পারস্পরিক বিনিময়ের ওপরই সুবিচার (justice) নির্ভর করে”।

উপরের আলোচনায় স্পষ্ট হয়েছে যে, ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ইনসাফপূর্ণ; আর ক্রয়-বিক্রয়ে এ দুটি মৌলিক শর্ত অবশ্যই প্রযোজ্য। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) ক্রয়-বিক্রেয়ে দুটি সমান সমান বা কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণ এবং তা পরস্পর বিনিময় করার বিধান নির্দেশ করেছেন।

ক্রয়-বিক্রয়ের বিধান

ক্রয়-বিক্রয়ে প্রথমে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণ করতে হয়; অতঃপর কাউন্টার ভ্যালু দু’টি লেনদেন বা বিনিময় করতে হয়।

ইতোপূর্বে সুন্নাহর দৃষ্টিতে সুদ অধ্যায়ে দেখানো হয়েছে যে, কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের জন্য রাসূলুল্লাহ (সাঃ) সমজাতের পণ্য, অর্থ ও সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে ২টি এবং অসমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ে একই বিধান নির্দেশ করেছেন; আর বিনিময়ের জন্য উভয় প্রকার ক্রয়-বিক্রয়ে একই বিধান দিয়েছেন।

সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের বিধান ২টি হচ্ছেঃ

১. মিসলান বিমিসলিন (like for like) বা উভয় বস্তুর মানগত সমতা (qualitative equality) বিধান করা;

২. সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন (equal for equal) বা উভয় বস্তুর পরিমাণ সমান (quantitative equality) করা এবং বিনিময়ের বিধানটি হচ্ছেঃ

৩. ইয়াদান বিইয়াদিন (from hand to hand) বা পারস্পরিক বিনিময় (reciprocal exchange)করা।

আর ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের বিধানটি হচ্ছেঃ

১. পারস্পরিক সম্মতি বা “ফাবিয়ূ” কাইফা শি’তুম”- যে কোন দাম বা পারস্পরিক সম্মতিতে (mutual consent) নির্ধারিত যে কোন দামে বিক্রি করা বৈধ এবং এক্ষেত্রে বিনিময়ের বিধানটি হচ্ছেঃ

২. ইয়াদান বিইয়াদিন(from hand to hand) বা পারস্পরিক বিনিময় করা।

নিচে ব্যাখ্যা পেশ করা হলোঃ

সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়

কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের বিধান

১. মিসলান বিমিসলিন (like for like মানগত সমতা বা qualitative equality): ফক্বীহগণ সাধাণরভাবে মিসলান বিমিসলিন বা মানগত সমতাকে একটি স্বতন্ত্র ও পৃথক বিধান হিসেবে গণ্য করেননি। কখনও তাঁরা মিসল (মান) ও জিনিস (জাত)- কে এক মনে করেছেন; আবার কখনও মিসল ও মুসাওয়াতকে (পরিমাণগত সমতা) একই অর্থে গ্রহণ করেছেন।

কতিপয় হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) মানগত তারতম্যের কারণে সমজাতের দু’টি বস্তু পরিমাণে কম-বেশি করে বিনিময় করা হলে একদিকের বাড়তি পরিমাণকে রিবা বলেছেন। তিনি এভাবে বিনিময় করতে নিষেধ করেছেন এবং নিম্ন মানের বস্তুটি অর্থ বা ভিন্নতর কোন পণ্যের বিনিময়ে বিক্রি করে প্রাপ্ত মূল্য দ্বারা একই জাতের উন্নত মানের বস্তু ক্রয় করার নির্দেশ দিয়েছেন। (সুন্নাহর দৃষ্টিতে ক্রয়-বিক্রয় ও সুদ শিরোনামে হাদীস নং ১৩-১৭ এবং ৭৫-৭৮।)

এসব হাদীস থেকে এটা ধরে নেওয়া হয়েছে যে, সমজাতের দুটি বস্তুর মধ্যে গুণ ও মানগত পার্থক্য থাকলে তা বিবেচনায় এনে এদের পরিমাণে কম-বেশি করা যাবে না; বরং সর্বাবস্থাতেই পরিমাণ ((volume), ওজন (weight) বা গণনার ভিত্তিতে উভয় বস্তুর পরিমাণ সমান সমান করে বিনিময় করতে হবে। হানাফী মাযহাবের প্রখ্যাত ফক্বীহ ইমাম সারাখসী লিখেছেন, “মিসলান বিমিসিলিন অর্থ হচ্ছে পরিমাণগত সমতা বিধান করা, গুণগত নয়, যদিও সমতা শব্দ দ্বারা উভয় প্রকার সমতাকেই বুঝায়”।[সারাখসী: Al.Mabsut: ইংরেজী অনুবাদ, ইমরান, আহসান খান নিয়াজী, [email protected], 2000, p. 15] "gold dust and gold metal are the same”—উবাদা ইবনে সামিতের এই উক্তি তুলে ধরে তিনি বলেছেন, “এই কথা সুস্পষ্টভাবে বলে দিচ্ছে যে, সমতা অর্থ হচ্ছে পারিমাণের সমতা, মানের সমতা নয়। কারণ স্বর্ণচূর্ণের মান আর স্বর্ণপিণ্ডের মান সমান নয়। অথচ ওপনে (পরিমাণে) সমান হলেই উভয়টি সমান (equal) হয়ে যায়”।[উপরোক্ত, পৃ: ৫।]

আল-মিসরি পরিষ্কার ভাষায় লিখেছেন, “দুটি খেজেুর যদি মানের দিক দিয়ে ভিন্ন ভিন্ন হয় তবু উপযুক্ত মানদণ্ডের (standard) ভিত্তিতে এদের পরিমাণ সমান সমান হতে হবে। এভাবে উন্নত মানের (superior) পণ্যের অধিকারী নিম্নমানের (inferior) পণ্যের মালিকের প্রতি উদার (মুহসিন, generous) হবে। অন্যথায় তারা তৃতীয় কোন পণ্যের মাধ্যমে তাদের পণ্য বিনিময় করবে”।[রফিক ইউনিস আল-মিসরি, রিবা আল কুরুদ ওয়া আদিল্লাতু তাহরিমিহি, ১৯৮৭, পৃ: ৮, উদ্ধৃত, নুর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১০১]

ইমাম শাফিঈ, আল্লাম মওদূদী ও বিচারপতি তকি উসমানিসহ অনেকেই অনুরূপ অভিমত ব্যক্ত করেছেন। এমনকি, পাকিস্তানের ইসলামিক ইডিওলোজি কাউন্সিলের রিপোর্ট এবং ১৯৮৭ সালে Indexation- এর ওপর অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সেমিনার থেকেও এই একিই অভিমত ব্যক্ত করা হয়েছে।

কিন্তু বাস্তবতার সাথে এ ব্যাখ্যার সঙ্গতি নেই। বাস্তবে দেখা যায়, একই জাতের পণ্য হওয়া সত্ত্বেও গুণগত তারতম্যের দরুন দুটি বস্তুর উপযোগে ব্যাপক পার্থক্য সূচিত হয় এবং এদের দামে সৃষ্টি হয় বিরাট ব্যবধান। অথচ কেবল একই জাতি বা প্রজাতিভুক্ত হওয়ার করণে এদের পরিমান সমান সমান বিনিময় করতে হবে, সাধারণ বুদ্ধিও এতে সায় দেয় না। তাই আধুনিক গবেষকদের অনেকেই এ ব্যাপারে প্রশ্ন তুলেছেন।

এস, এ. তাহের এ প্রসঙ্গে বলেছেন, উক্ত হাদীসে সোনার পরিবর্তে সোনা বলার পর ‘মিসলান বিমিসলিন’ বলা হয়েছে। সোনার বদলে সোনা কথার দ্বারা পণ্যের জাতিগত মিলের কথাই তো বলা হয়েছে। সুতরাং মিসলান বিমিসলিন-এর অনুবাদ জাতিগত সমতা হতে পারে না।[১৫] এলমি মাহমুদ নুরও একই কথা বলেছেন। তিনি বলেন, “জাতিগত মিল অপেক্ষা অধিক ও ভিন্নতর অর্থ বুঝানোর জন্যই মিসকিন বিমিসলিন শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে”।[১৬] অপরদিকে মিসলান বিমিসলিনকে পরিমানগত সমতার সাথে একই অর্থে গ্রহণ করাও সঙ্গত নয়। কারণ ভাষাগত দিক থেকে আল-মিসল জিনিসের গুণ-মানকে বুঝায়; কিন্তু তাসাভী (সাওয়ায়ান থেকে উদ্ভূত) কেবল পরিমাণগত সমতা বুঝায়। আর এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই যে, মান ও পারিমণ এক ও অভিন্ন বিষয় নয়। অর্থাৎ দুটি জিনিস সদৃশ, একথা দ্বারা এটা বুঝায় না যে, জিনিস দু’টি পরিমাণে সমান সমান।

এলমি নূর এ ব্যাপারে ব্যাপক অনুসন্ধান চালিয়েছেন। আল-মুহিদুল মুহিদ ও An Advanced Learners Arabic Dictionary- এর উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেছেন যে, সেখানে ‘মিসল’ অর্থ লিখা হয়েছে সাদৃশ্য, সদৃশ, অনুরূপ, ঐক্য (correspondence) ও সমতা (equivalence)। মিসল থেকে উদ্ভূত আল-মুমাসাল (similarity) ও সাওয়ায়ান থেকে উদ্ভূত আল-মুসাওয়াত (equivalence) শব্দদ্বয়ের আভিধানিক অর্থের তুলনা করে তিনি বলেছেন যে মিসল শব্দ পণ্যের গুণগত দিক প্রদর্শন করে; কিন্তু তাসাভী শব্দ জিনিসের পরিমাণগত দিক নির্দেশ করে। আল-মুজরা-এর উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেছেন যে, দুটি পণ্যের অভিন্নতা বুঝানো ব্যতীতি অন্য কোন অর্থে আল-মুমাসালা ব্যবহৃত হয় না; কিন্তু আল-মুসাওয়াত অভিন্ন জিনিস এবং জাত বা সৃষ্টিগতভাবে ভিন্ন ভিন্ন জিনিস ও উভয় ক্ষেত্রেই ব্যবহৃত হয়; কারণ ‘তাসাভী’ কেবল পরিমাণগত সমতা বুঝায়, যার অর্থ পরিমাণে বেশিও নয়, কমও নয়। তিনি বলেন, ইবনে মনসুরও লিসান আল-মুসাওয়াত সদৃশ ও বিসদৃশ উভয় পণ্যের ক্ষেত্রেই ব্যবহৃত হয়, কারণ ‘আল-তাসাভী’ হচ্ছে কেবল গনণা বা পরিসংখ্যানগত সমতা যার দ্বারা বুঝা যায় যে, মিসল শব্দটি গুণকে বুঝায়, যেমন, উপযুক্ততা (fitness),যথার্থতা (suitability) এ অবস্থান (status) অথবা অবস্থা।

আল-কুরআনে ব্যবহৃত মিসল শব্দের অর্থ তুলে ধরে জনাব নূর লিখেছেন, আল্লাহ তাঁর নিজের ব্যাপারে বলেছেন, “তাঁর মত (কামিসলিহি) কিছুই নাই” (৪২:১১)। আল্লাহ অন্যত্র বলেছেন; :তোমরা যেমন ঈমান এনেছ তারাও যদি ঠিক সেইরূপ (বিমিসলি) ঈমান আনে, তবে তারা সঠিক পথ পেল”। (২:১৩৭) এসব আয়াতে মিসল শব্দ দ্বারা গুণগত সমতাকেই বুঝানো হয়েছে।

জনাব নূর লিখেছেন, রিবা ফদলের ক্ষেত্রে সমজাতর বস্তুর গুণগত সমতা বিধান করার বিষয়কে বিবেচনার বাইরে রাখলেও সম্মানিত ফক্বীহগণ সাধারণভাবে মিসল সম্পর্কে ব্যাপক আলোচনা করেছেন। তাঁরা দেখিয়েছেন যে, দু’টি জিনিস সদৃশ (মিসলিয়্যাত) হতে হলে দু’টি শর্ত পূরণ করতে হবেঃ প্রথমত, জিনস বা (genus) বা জাতিগতভাবে এদেরকে সমশ্রেণী বা দলভুক্ত হতে হবে; দ্বিতীয়ত, এদের মূল্য তথা বাজার দাম হতে হবে সর্বতোভাবে (absolutley) সমান।

জনাব নূর বলেছেন, প্রথম শর্তটি হাদীস থেকেই স্পষ্ট হয়ে গেছে। হাদীসে সোনার পরিবর্তে সোনা, রূপার পরিবর্তে রূপা ইত্যাদি বলে জেনস বা জাতগত মিসল এমন জিনিসকে বুঝায় যার অংশসমূহের দাম পরস্পর সমান। জনাব নূর বলেছেন, ইমাম তাইমিয়া, ইবনুল কায়্যিম, ইমাম গাজালী ও আবূ ইউসুফ প্রমুখ বিশেষজ্ঞদের মত হচ্ছে যে, “দামের পার্থক্য পণ্যের সাদৃশ্য দূরীভূত করে দেয়”। ইবনে তাইমিয়া অত্যন্ত জোর দিয়ে বলেছেন যে, দু’টি পণ্য কেবল তখনি সদৃশ হবে যখন তাদের দাম সমান হয়; কিন্তু এদের বিনিময় মূল্যে পার্থক্য থাকলে এরা সমতুল্য (মিসল) হয় না”। আলী আল খফিফ এ প্রসঙ্গে বলেছেন যে, দু’টি বস্তু পূর্ণ সদৃশ (absolutely alike) হতে হলে এদের অপরিহার্য বৈশিষ্ট্যসমূহ (যা শ্রেণী বা জাত নিরূপণ করে) সর্বতোভাবে এক রূপ হতে হবে এবং এদের বাজার মূল্য হতে হবে সমান সমান করার লক্ষেই আল্লাহর রাসূল (সাঃ) মিসলান বিমিসলিন-এর বিধান নির্দেশ করেছেন।

জনাব নূর লিখেছেন যে, ফক্বীহগণ সমজাতের দুটি বস্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে পণ্যের গুণ ও মানগত পার্থক্য বিবেচনায় আনতে নিষেধ করেছেন; কিন্তু ঋণ লেনদেনের ক্ষেত্রে এসে তাঁরা ‘মিসলিয়্যাত’ তথা পণ্যের গুণ ও মানগত সমতাকে ঋণের অত্যাবশ্যকীয় শর্ত হিসেবে উল্লেখ করেছেন এবং সদৃশ পণ্য ব্যতীত ঋণ প্রদান করা বৈধ নয় রায় দিয়েছেন।[নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১০৭-১১৮।] কারণ ঋণ হচ্ছে, কোন ফাঞ্জিবল পণ্য সমজাতের পণ্যের বিনিময়ে বাকিতে বিক্রি করা।

তাহলে আসল কথা এই দাঁড়ালো যে, এক জাতের পণ্য বাকিতে বিনিময় করা হলে পণ্যের মান সমান সমান হতে হবে; কিন্তু এই বিনিময়ই যদি উপস্থিত নগদ নগদ করা হয়, তাহলে উভয় পণ্যের মানগত পার্থক্য আমলে নেয়া যাবে না। এরূপ অভিমত পরস্পরবিরোধী, অযৌক্তিক ও বাস্তবতা পরিপন্হী। সুতরাং ঋণের ক্ষেত্রে যেমন নগদ ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রেও তেমনি মিসলিয়্যাতকে একটি স্বতন্ত্র ও অপরিহার্য শর্ত গণ্য করা জরুরী।

আল্লাহর রাসূল (সাঃ) জাতগত মিল তথা সোনার পরিবর্তে সোনা, রূপার বদলে রূপা বলার পর ‘মিসলান বিমিসলিন’ শর্তের উল্লেখ করে এ কথাই বুঝিয়েছেন যে, বিনিময়ের পণ্য, অর্থ বা সেবা একজাতের হলে এদের গুণ ও মানগত সমতাও থাকতে হবে যাতে এদর দাম বা বিনিময় মূল্য সমান সমান করা যায় অপর এক হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) ‘আইনান বিআইনিন’ পরিভাষা ব্যবহার করেছেন। এক অর্থ হচ্ছে, “এটা যেমন সেটা তেমন”। এ থেকে প্রমাণিত হয় যে, ‘মিসলান বিমিসলিন’ দ্বারা মানগত সমতার কথাই বলা হয়েছে।

এতদসংশ্লিষ্ট হাদীসগুলো একটু গভীরভাবে দেখলেই বুঝা যায় যে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কোথাও এ কথা বলেননি যে, “এক জাতের পণ্যের গুণ-মানগত পার্থক্যকে উপেক্ষা করতে হবে”।[নূর, ই, এম: উপরোক্ত, পৃ: ১০৩।] বরং রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর বাণীর আসল বার্তা (message) হচ্ছে, একজাতের দুটি পণ্যের গুণগত তারতম্যকে অবশ্যই বিবেচনা করতে হবে এবং মানগত তারতম্যের কারণে উভয় পণ্যের দামে যে ব্যবধান সৃষ্টি হয় তার সমন্বয় অবশ্যই করতে হবে”।[উপরোক্ত।] তবে তা সরাসরি বিনিময়ের দ্বারা সম্ভব নয় বিধায় তিনি এ ধরনের বস্তুর সরাসরি বিনিময় নিষিদ্ধ করেছেন এবং ভিন্নতর পন্হা অনুসরণ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর বাণীতে এ কথা স্পষ্ট যে, একজাতের পণ্য, অর্থ বা সেবার পরস্পর বিনিময় রেশিও হচ্ছে ১:১। অর্থাৎ উভয়ের পরিমাণ সমান সমান করা- এক্ষেত্রে এটাই বিধান। কিন্তু গুণ-মনগত পার্থক্য থাকা সত্ত্বেও উভয় পণ্যের পরিমাণ সমান সমান করলে এদের পারস্পরিক মূল্য সমান হয় না। এ জন্যই তিনি এদের পরিমাণ সমান সমান করে সরাসরি বিনিময় করার নির্দেশ দেন নাই।

অপরদিকে মানের পার্থক্যের দরুন ভাল’র কত পরিমাণের বিনিময়ে মন্দের কত পরিমাণ দিলে বা কোন রেশিওতে বিনিময় করলে এদের প্রকৃত দাম পরস্পর সমান সমান হবে, সরাসরি বিনিময়ে তা নির্ধারণ করাও সম্ভব নয় ভালর বিভিন্ন স্তর এ শ্রেণী আছে; অনুরূপভাবে মন্দেরও পরিমাণ কত হলে তাদের পারস্পরিক মূল্য সমান হবে তা নিরূপণ করার কোন মানদণ্ড এক্ষেত্রে নেই। ফলে উভয় পণ্যের বিনিময়ের হার নির্ধারণ করতে হবে অনুমানের ভিত্তিতে এবং এতে রিবা থেকে যাওয়া স্বাভাবিক। উপরে উল্লেখিত আবূ নাদনা বর্ণিত হাদীসের (ক্রমিক-৭৮) শেষে সহীহ মুসলিমে আবূ সাঈদ (রাঃ) নিজে এই কথাটাই স্পষ্ট করে দিয়েছেন।

বস্তুতঃ জাহেনী যুগে আরব দেশে স্বর্ণ মুদ্রা হিসেবে দীনার এবং রৌপ্য মুদ্রা হিসেবে দিরহাম প্রচলিত ছিল। ইবনুল কায়্যিম লিখেছেন, “(আরবরা) দুই দিরহামের বিনিময়ে এক দিরহাম বিক্রয় করত। দিরহামের গুণগত পার্থক্য, এদর মুদ্রাংকন বৈশিষ্ট্য অথবা ওজনের তারতম্য ইত্যাদি কারণেই তারা এরূপ কম-বেশি করে বিনিময় করত। আর এটিই হচ্ছে প্রকৃত রিবা”।[উপরোক্ত, পৃ: ১০৯।] ড. নাজতুল্লাহ সিদ্দিকী লিখেছেন, “তৎকালে (আরব এলাকায়) প্রচলিত স্বর্ণ ও রূপার তৈরী মুদ্রার মধ্যে গুণগত মানে ছিল বেশ পার্থক্য; এছাড়া একই নামে প্রচলিত মুদ্রার ওজনেও ছিল কম-বেশি। ফলে যে কোন লোক অতি সহজেই অন্যকে প্রতারিত করে গুণগত মানের তারতম্যের অজুহাতে সোনার সাথে সোনা (পিণ্ড বা মুদ্রা) এবং রূপার সাথে রূপা (পিণ্ড বা মুদ্রা) কম পরিমাণের সাথে বেশি পরিমাণ বিনিময় করে নিতে পারত”।[সিদ্দিকী, এম, এন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৯।] এ প্রসঙ্গে সাইয়ের মওদূদী লিখেছেন, “সে যুগে দিরহামের সাথে দিরহাম এবং দীনারের সাথে দীনারের বিনিময় করার প্রয়োজন কোন কোন সময় দেখা দিত। এ জাতীয় প্রয়োজনের সময় ইয়াহুদী মহাজন ও অন্যান্য অবৈধ মুনাফা অর্জনকারীর দু’হাতে অবৈধভাবে মুনাফা লুটতো, অনেকটা আজকের যুগে বৈদেশিক মুদ্রা বিনিময়ের সময় বাট্রা গ্রহণ অথবা নিজ দেশে টাকার রোজগারী চাওয়া বা দশ টাকা পাঁচ টাকার নোট ভাঙ্গানোর সময় কিছু পয়সা উসূল করার মতো”।[মওদূদী, সাইয়েদ আবূল আ’লা: প্রাগুক্ত, পৃ: ১০২।]

প্রসঙ্গে ড. চাপরা বলেছেন, “একজাতের নিম্ন ও উন্নত মানের পণ্যের পারস্পরিক বিনিময় চালু থাকলে সমাজের অপেক্ষাকৃত স্বল্প বুদ্ধির লোকেরা চালাক লোকদের প্রতারণা ও ঠকবাজির শিকার হতে পারে। এরূপ বিনিময়ে নিঃসন্দেহে মানুষকে ধোকা দেওয়া ও এভাবে তাদের ক্ষতিগ্রস্ত করার আশংকা রয়েছে”।[চাপরা, এম উমর, প্রাগুক্ত, পু: ২১।] এলমি মাহমুদ নূরএ এই একই কথা বলেছেন নিম্ন ভাষায়ঃ

“It is hardly to find some one accepting inequality if the two items the same in quality, but there is every possibility that an undue quantitaive discrepancy may be acquired by either party through quality difference knwingly or unlnowingly and with the satisfaction of the both parties,”[নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১১৪।] “সমজাতের দু’টি পণ্যের মান এক রকম হওয়া সত্ত্বও এদের পরিমাণ অসমান করে গ্রহণ করতে রাজি হবে এমন কোন লোক খুজেঁ পাওয়া কঠিন; কিন্তু পণ্য দু’টির মানে তারতম্য থাকলে ক্রেতা-বিক্রেতার যে কোন এক পক্ষ এর সুযোগ গ্রহণ করবে এবং জেনে-বুঝে বা অজ্ঞাতসারে এমনকি, উভয় পক্ষের সম্মতিতেই পণ্য দু’টির পরিমাণ কম-বেশি করার মাধ্যমে অপরপক্ষকে ঠকিয়ে বেশি পরিমাণ নিয়ে যাবে এরূপ আশংকা খুবই প্রবল”। ই, এম, নূর আবার লিখেছেন,

"In other words, the price of an article in respect of itself is equivalent to itself only nothing else. In case the counterparts have different characteristics, presumably due to the existence of visible quality disparity, neither consideration will directly indicate the exact price of the other... hence the notion of price whether absolute or relative terms, is irrelevant to these counterparts in exchange of reciprocal identity."[ নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ১৬৭।] “অন্যকথায়, সমজাতের জিনিসের অংকে কোন জিনিসের দাম কেবল মানগত অসমতার দরুন অপরপক্ষের জিনিসটি যদি ভ্ন্নিতর বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হয়, তাহলে এর কোন পরিমাণই সরাসরিভাবে অপর জিনিসটির প্রকৃত দাম নির্দেশ করবে না।....... সুতরাং সমজাতের ভিন্ন ভিন্ন মানের দু’টি বস্তু সরাসরি ক্রয়-বিক্রয়ে দামের ধারণা, নিরংকুশ (absolute) অর্থে হোক আর আপেক্ষিক অর্থে (relative), সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিক”।

মূল্য তত্ত্বের মৌলিক নীতিমালা ব্যাখ্যা করে তিনি আবার লিখেছেন- “"Objects express their exchange values reciprocally against each other. However, in the case of a particular object against itself, the situation is totally different ... the objects are silent to express their own exchange values. For the price of an article in respect to itself would be equivalent to itself only, no more no less. For instance in case the counterparts are of the same kind with different characteristics no either consideration will directly indicate the exact price of the other. Therefore, the theory of value necessitates that another item be introduced in assessing the exchange price of the object and accurately measuring the economic relations of the considerations. "[নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ২০৮।ক]

‘দুটি বস্তু পরস্পর একটি অপরটির অংকে তাদের বিনিময় মূল্য ব্যক্ত করে থাকে। কিন্তু বিনিময়ের বস্তু দু’টি যদি একই জাতের হয় তাহলে পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্নতর রূপ নেয়,... বস্তু দু’টি নিজ নিজ মূল্যে প্রকাশে সম্পুর্ণ নীরব হয়ে যায়। কারণ একই জাতের বস্তুর বিনিময়ে কোন বস্তুর বিনিময় মূল্য কেবল সেই বস্তুটির সমান হয়, তার চেয়ে বেশিও হয়না কমও হয় না। আর অপর বস্তুটি যদি একই জাতের কিন্তু ভিন্নতর মানের হয় তাহলে এর কোন পরিমাণই সরাসরিভাবে বস্তুটির সঠিক বিনিময় মূল্য নির্দেশ করবে না। সুতরাং মূল্য তত্ত্বের অপরিহার্য যথাযথ পরিমাণ করতে হলে তৃতীয় আর একটি বস্তু দ্বারা করতে হবে”।

এসব কারণে নবী করীম (সাঃ) নিম্ন মানের কোন পণ্যের বেশি পরিমাণের সাথে একই জাতের উন্নত মানের পণ্যের কম পরমাণের বিনিময় করতে নিষেধ করেছেন। একই সাথে এরূপ বিনিময়ে কিভাবে উভয় পণ্যের মূল্য সমান সমান করতে হবে তার পন্হাও তিনি নির্দেশ করেছেন। অর্থ বা ভিন্ন কোন পণ্যের বিনিময়ে খারাজ খেজুর কিনে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “এভাবেই পরিমাপ (মীযান) পূর্ণ হবে”।[পূর্বোল্লেখিত হাদীস নং ১৫।খ] এ বাক্য দ্বারা আল্লাহর রাসূল (সাঃ) যথার্থ পরিমাণ খেজুর লেনদেন হওয়ার কথাই বুঝিয়েছেন।

বস্তুতঃ এরূপ ক্ষেত্রে আল্লাহর রাসূল (সাঃ) তৃতীয় কোন পণ্য বা অর্থকে বিনিময়ের পণ্য, অর্থ বা সেবার মান ও দাম পরিমাপ করার মানদণ্ড বানানোর নির্দেশ দিয়েছেন। আর এভাবে এক্ষেত্রে যাবতীয় অন্যয্য (unfair) বিনিময়ের আশংকা দূর করে দিয়েছেন।

এলমি নূর এ প্রসঙ্গে বলেছেন, "If the two goods are homogeneous, they have observable quality difference, the only way to assess this difference is through their market prices. The prevailing price in the market in its normal condition can be the measuring rod of the qualitative discrepancy between any two commodities of similar kind"[নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ২০৩।] “সমজাতের দু’টি পণ্যের মধ্যে মানগত তারতম্য নিরূপন করার একমাত্র উপায় হচ্ছে এদের বাজার দাম; স্বাভাবিক অবস্থায় বাজারে বর্তমান দামই সমজাতীয় দু’টি পণ্যের মানগত পার্থক্য পরিমাপ করার মানদণ্ড হতে পারে”।

এখানে প্রশ্ন জাগতে পারে যে, তৃতীয় কোন পণ্যের বিনিময়ে বিক্রয় এবং বাঞ্চিত পণ্য ক্রয় করার জন্য বাজারে যাওয়া-আসা ইত্যাদি বাড়তি ঝামেলা এবং অতিরিক্ত আর্থিক ব্যয় সাপেক্ষ ব্যপার। এ প্রসঙ্গে নূর লিখেছেন যে, এ ধরনের বাড়তি কাজ ও শ্রমের কোন প্রয়োজন হবে না। কারণ শরীয়তের অন্যতম উদ্দেশ্য মানুষের ওপর থেকে বোঝা লাঘব করা, বোঝা বৃদ্ধি করা নয়। ইসলাম মানুষের জন্য কাজকে সহজ করেছে, কঠিন করেনি। তাছাড়া অর্থনৈতিক দিক থেকে বাজারে যাওয়া-আসার ব্যয় বহন করারও কোন দরকার হবে না যদি পণ্যের বাজার দর জানা থাকে। তাঁর মতে বাজারে প্রচলিত দর জানা থাকলে তার ভিত্তিতে পণ্যের বিনিময় হার নির্ধারণ করা যেতে পারে।[উপরোক্ত, পৃ: ১৪৪।]

কিন্তু ওপরে উল্লেখিত আবূ নাদরা (রাঃ) বর্ণিত হাদীসে (ক্রমিক নং ৭৮) খেজুরের মান অনুসারে বাজার দামের উল্লেখ করে এই বাজার দরের ভিত্তিতেই মন্দ ও ভাল খেজুরের বিনিময় রেশিও নির্ধারণ করা হয়েছিল। এতদসত্ত্বেও রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বললেন, “তোমার অমঙ্গল হোক, তুমি তো সুদী কারবার করেছ”। সুতরাং বাজার দর জানা থাকলে সে অনুসারে খারাপ-ভালোর বিনিময় হার বিনিময় হার নির্ধারণ করা যাবে কিনা সে বিষয়ে আরও চিন্তা-ভাবনা ও গবেষণা হওয়া দরকার।

প্রতীয়মান হচ্ছে যে, মিসলান বিমিসলিন/আইনান বিআইনিন-এর প্রকৃত তাৎপর্য হচ্ছে গুণ ও মানগত সমতা বিধান করা এবং সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে একে অবশ্যই একটি স্বতন্ত্র বিধান হিসেবে গন্য করতে হবে।

২. সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন (পরিমণগত সমতা): সমজাতের পণ্য, অর্থ ও সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের দ্বিতীয় শর্ত হচ্ছে সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন; এর অর্থ হচ্ছে পরিমানগত সমতা। ক্রেতা বিক্রেতা উভয়ের পণ্যের জাত ও মান এক রকম (identical or homogeneous) হওয়ার পর এদের পারস্পরিক মূল্য সমান হওয়া সম্ভব কেবল এদের পরিমাণের দ্বারা। এজন্য রাসূলুল্লাহ (সাঃ) উভয় পণ্যের মান এক রকম করার নির্দেশ দেওয়ার সাথে সাথে এদের পরিমাণ সমান সমান করার নির্দেশ দিয়েছেন এবং পরিমাণে কম-বেশি করলে রিবা হবে বলে সতর্ক করেছেন।

বাস্তবতা হচ্ছে যে, সমজাত ও সমমানের পণ্য, অর্থ বা সেবার উপযোগ সমান; এর চাহিদা ও যোগানও সমান। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, ১০০ টাকার উপযোগ ১০০ টাকার সমান; ১০০ টাকা থেকে ১০০ টাকার বেশি উপযোগ পাওয়া যায় না, তেমনি ১০০ টাকার উপযোগ ৯৯ টাকার সমানও হয় না। সুতরাং টাকায় ১০০ টাকার মূল্য ১০০ টাকাই, কমও নয়, বেশিও নয়। এই দাম সময়ের গতির সাথে হ্রাস-বৃদ্ধিও হয় না। অর্থাৎ টাকায় ১০০ টাকার দাম আজ ১০০ টাকা; আগামী কালও এর দাম ১০০ টাকা, এমনকি ১ বছর বা ৫ বছর পরও টাকায় ১০০ টাকার দাম ১০০ টাকাই। অনুরূপভাবে লেংড়া জাতের ১ কেজি আমের উপযোগ ১ কেজি সমমানের আমের সমান। সুতরাং আমে ১ কেজি লেংড়া আমের দাম একই মানের ১ কেজি আম। এই দাম আজকে যেমন ১ কেজি, কালও ১ কেজি এবং ভবিষ্যতের যে কোন সময়ে এর দাম ১ কেজি আম। এ প্রসঙ্গে ইবনে রুশদ লিখেছেন, “As for (fungible) goods measured by volume or weight, they are relatively homogeneous, and thus have similar benefits (utilities). Justice in this case is achieved by equating volume or weight since the benefits (utilities) are very similar."[ইবনে রুশদ, বিদায়াতুল মুজাতাহিদ ওয়া নিহায়আতুল মুকতাসিদ, বৈরুত, দার আল-মারিফাত, ভলি-৩, পৃঃ ১৮৩-১৭৪।] “আর পরিমাণ (volume) ও ওজন দ্বানা পরিমাপযোগ্য ফারজিবল পণ্যের বেলায় বলা যায় যে, তুলনামূলকভাবে এসব পণ্য-সামগ্রী প্রায় সদৃশ হয় এবং এগুলোর উপকারিতাও (উপযোগ) হয় সমান সামান।........এসব ক্ষেত্রে সুবিচার অর্জিত হয় এদের পরিমাণ ও ওজন সমান সমান করার মাধ্যমে, কারণ এদের উপকারিতা (উপযোগ) সমান সমান”।

মোট কথা, সমজাতের পণ্য, অর্থ বা সেবার দাম এদের মান এ পরিমাণগত সমতার দ্বারাই নির্ধারিত হয়। এটাই বিধান। এই বিধান প্রাকৃতিক (natural), চিরন্তন ও শাশ্বত। এক্ষেতে ক্রেতা-বিক্রেতা পারস্পরিক স্বেচ্ছা সম্মতির মাধ্যমে পণ্য, অর্থ বা সেবার পরিমাণে কম-বেশি করলে তাদের পারস্পরিক মূল্য আর কোনভাবেই সমান হওয়া সম্ভব নয়। তাই দাম নির্ধারণে পারস্পরিক সম্মতি তথা দর কষাকষি করে দাম নির্ধারণের বিধান এক্ষত্রে প্রযোজ্য নয়। এখানে ক্রেতা বা বিক্রেতা কারোই সে অধিকার নেই। ড. নাজাতুল্লাহ সিদ্দিকী এই কথাই বলেছেন, "it (perception) cannot be acceptable between the same things, i.e., in exchange of money for money. It has to be measurable equality as there is no room for perception."[সিদ্দিকী, এম, এন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৪।]

“সমজাতীয় বস্তু বিনিময়ের বেলায় এটা (প্রত্যক্ষণ) গ্রহণযোগ্য নয়, যেমন কোন মুদ্রার বিনিময়ে একই জাতের মুদ্রা। এক্ষেত্রে পরিমাপযোগ্য সমতা থাকতে হবে, কারণ প্রত্যক্ষণের সুযোগ এক্ষেত্রে নেই”। তিনি তাই বলেছেন, “সমজাতের পণ্য বিনিময়ের ক্ষেত্রে ইসলাম পণ্যের পরিমাণ সমান সমান করার শর্ত আরোজ করেছে”।[উপরোক্ত, পৃ: ৩৩।]

জনাব নূর একটি রেখাচিত্রের মাধ্যমে বিষয়টি অধিকতর স্পষ্ট করে তুলেছেন। তার ব্যাখ্যাটি সংক্ষেপে পেশ করা হলোঃ [নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৬৬-১৭০।]

sud_somaj

চিত্রে দেখা যাচ্ছে যে, ক ও খ দুই ব্যক্তির কাছে একই জাত ও মানের একটি মাএ পণ্য আছে যার নাম হচ্ছে Y। OM রেখাতে Y এর পরিমাণ দেখানো হয়েছে। ON রেখাতেও Y এর পরিমাণ দেখানো হয়েছে। আর MN রেখায় একই পণ্য Y- এর সাথে Y বিনিময়ের বিভিন্ন অনুপাত দেখানো হয়েছে। ক যদি OM পরিমাণ Y নেয় তাহলে খ এর জন্য আর Y থাকে না, সে কিছুই পায় না। অপরদিকে খ যদি ON পর্যন্ত Y নেয় তাহলে ক কিছুই পায় না। ৪৫° OC রেখা MN রেখাকে C বিন্দুতে সমান দুই ভাগে ভাগ করেছে। C বিন্দুতে ক পায় OYac পর্যন্ত Y এবং খ পায় OYbc পর্যন্ত Y; এখানে উভয়ে Y এর সমান সমান অংশ পায়। বিনিময়ের অনুপাত দাঁড়াচ্ছে ১:১। অতঃপর ক-এর অংশ বৃদ্ধি করলে খ-এর অংশ অবশ্যই কমে যাবে; আর খ-এর অংশ বৃদ্ধি করলে ক কম পাবে। অর্থাৎ C বিন্দু থেকে বিনিময়ের হার পরিবর্তন করা হলে উভয় পক্ষের মূল্য আর কোন ভাবেই সমান হবে না; বরং সেক্ষেত্র এক জনের ক্ষতির বিমিয়ে অপর জন লাভবান হবে। ফলে কোন না কোন পক্ষ অবশ্যই অবিচার ও জুলুমের শিকার হবে। তাই এক্ষেত্রে সুবিচারের প্রাকৃতিক (natural) বিধান হচ্ছে, পরিমাণ সমান সমান হওয়া। দুনিয়ার সর্বত্রই এ বিধান প্রচলিত ছিল, আছে এবং থাকবে। ইসলাম এই বিধানের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছে।

ড. উমর চাপরা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর সেই বিখ্যাত হাদীসটির উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছেন যে, উক্ত হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) ছয়টি গুরুত্বপূর্ণ পণ্যের নাম উল্লেখ করে অত্যন্ত জোর দিয়ে বলেছেন যে, “পাল্লার একদিকে যদি এর একটি পণ্য থাকে, পাল্লার অপরদিকেও একই জাতের সমপরিমাণ পণ্য থাকতে হবে। (like for like and equal for equal মানে এক রকম এবং পরিমাণে সমান সমান)”।[চাপরা এম, উমর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১০।]

বিচারপতি তকি উসমানী তাঁর ঐতিহাসিক রায়ে বিষয়টি সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন। তিনি বলেছেন, “অর্থের (মুদ্রার) সাথে একই জাতের অর্থের (মুদ্রার) বিনিময় করতে হলে উভয়ের মূল্য সমান হতে হবে। পাকিস্তানী ১০০০/- রূপীজ এক একটি নোটর সাথে একই দেশের অন্য নোটের বিনিময় করতে হলে অন্য নোটগুলোর মূল্য অবশ্যই ১০০০/- রূপীজের সমান হতে হবে। এখানে রূপীজের অংকে প্রথম ১০০০/- রূপীজের নোটটির দাম যেমন বুদ্ধি করা যাবে না, তেমনি এর দাম হ্রাস করাও যাবে না।

................একই জাতের মুদ্রা বিনিময়ের ক্ষেত্রে উভয় পক্ষের মূল্য সমান হওয়ার এই বিধি নগদ তাৎক্ষণিক বিনিময় ক্ষেত্রে (spot exchange) যেমন প্রযোজ্য, তেমনি বাকি বিনিময় বা ঋণের ক্ষেত্রেও তা সমভাবে প্রযোজ্য।[উসমানী, মুহাম্মদ তকি, বিচারপতি মাওলানা: The Historic Judgement on Jnterest, Idaratul Maarif, করাচী, পাকিস্তান, ২০০০, পৃ: ১৪০।]

প্রতীয়মান হচ্ছে যে, সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়, নগদ হোক বা বাকি, উভয় বস্তুর মান এক রকম করার পর এদের পরিমাণ অবশ্যই সমান সমান করতে হবে।

বিনিময়ের বিধান

১. ইয়াদান বিইয়াদিন (হাত থেকে হাতে/ Reciprocal Exchange)ঃ উবাদা ইবনে সামিত বর্ণিত উক্ত হাদীসে সমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ের তৃতীয় বিধান হচ্ছে ইয়াদান বিইয়াদিন (হাতের বিনিময়ে হাত)। অবশ্য ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়েও দ্বিতীয় শর্ত হিসেবে এই একই বিধান- ইয়াদান বিইয়াদিনের কথা বলা হয়েছে। ইয়াদান বিইয়াদিনের তাৎপর্য বুঝানোর লক্ষ্যে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) অন্যান্য হাদীসে আরও কতিপয় পরিভাষা ব্যবহার করেছেন বলে বলা হয়। যেমন, “উপস্থিত পণ্যের সাথে উপস্থিত পণ্য”, “এখানে তুমি, এখানে তুমি”, “যা উপস্থিত আছে তাকে যা উপস্থিত নেই তার সাথে বিনিময় করো না,” “যা তোমার কাছে নেই তা বিক্রি করো না,” “যা হাতে হাতে (ইয়াদান বিইয়াদিন) তাতে কোন দোষ নেই, কিন্তু যা নাসীয়াতে” “নাসীয়াহ ব্যতীত রিবা হয় না” ইত্যাদি।

হাদীসের এসব বক্তব্যকে আক্ষরিক অর্থে গ্রহণ করে অধিকাংশ ফিক্বাহবিদ ও গবেষক ইয়াদান বিইয়াদিনের অর্থ করেছেন তাৎক্ষণিক নগদ পারস্পরিক বিনিময়, উপস্থিত পারস্পরিক হস্তান্তর ও দখল।

লক্ষণীয় যে, ইয়াদান বিইয়াদিনের অর্থ করতে গিয়ে অধিকাংশ ফক্বীহ পারস্পরিক হস্তান্তরের সাথে নগদের শর্ত জুড়ে দিয়েছেন। ফলে ক্রয়-বিক্রয় ও রিবার সংজ্ঞা ও ব্যাখ্যার ক্ষেত্রে ব্যাপক মতপার্থক্য সৃষ্টি হয়েছে। একদিকে বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যাপক বিস্তৃত ক্ষেত্রটি বিতর্কিত হয়ে পড়েছে, অন্যদিকে রিবা আল-নাসা, রিবা আল-ইয়াদা বা প্রচ্ছন্ন রিবা নামে অভিনব ধারণার সৃষ্টি হয়েছে।

ইয়াদান বিইয়াদিনের উক্তরূপ অর্থের প্রেক্ষিতে অধিকাংশ ফেক্বাবিদ বলেছেন, সমজাতের হোক বা অসম জাতের হোক, দুটি পণ্য বা অর্থ বাকি ক্রয়-বিক্রয় করা নিষিদ্ধ। এই বিধান লংঘন করে বাকিতে বিক্রি করা হলে বাকির মেয়াদ/সময় হবে রিবা নাসা যা হারাম। কোন কোন ফেক্বাহয় বলা হয়েছে, কোন পক্ষ তার ক্রীত মালের দখল নিতে বিলম্ব করলে বিলম্বিত সময়/মেয়াদ হবে রিবা আল-ইয়াদ। তবে সকল ফক্বীহ এ ব্যাপারে একমত যে, ঋণ ও দেনার ক্ষেত্রে ও বিধান প্রযোজ্য নয়। ঋণ হচ্ছে সাদাকাহ, তাই ঋণ বৈধ। আর তাদেঁর মতে, বাই-মোয়াজ্জল (বাকি ক্রয়-বিক্রয়), বাই-সালাম (অগ্রিম বিক্রয়), বাই-ইসতিসানা (আদেশ ক্রয়) ও ইজারাহকে বিশেষ বিবেচনায় অনুমোদন করা হয়েছে। ফক্বীহদের মতে মেয়াদ/সময় হচ্ছে ঋণ দেনার অপরিহার্য শর্ত। সুতরাং এই মেয়াদ রিবা নয়; বরং এই মেয়াদ বৈধ। কোন কোন গবেষক আবার সকল ঋণকে বৈধ বলতে রাজী নন। তাদেঁর মতে, সাধারণ ঋণ/কর্দ নিষিদ্ধ এবং কেবল কর্দে হাসানাহ বৈধ। সাধারণ ঋণের ক্ষেত্রে আসলের ওপর ধার্যকৃত বৃদ্ধিকে তাঁরা রিবা ফদল আখ্যায়িত করেছেন আর ঋণ পরিশোধের মেয়াদকে বলেছেন রিবা নাসা বা রিবা নাসীয়াহ। এতে একটি অপরটির counter value [নিয়াজী, ইমরান আহসান খান, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪২ ও ৪৬।]; রিবা ফদল হচ্ছে নাসার potential benefit-এর মূল্য।[উপরোক্ত, পৃ: ১০ ও ১২।] কোন কোন মাযহাবে সকল পণ্য ও মুদ্রার বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে নিষিদ্ধ না বলে শুধু হাদীসে উল্লেখিত ছয়টি পণ্যসহ ওজন, পরিমাপ এ গণনার মাধমে ক্রয়-বিক্রয় করা হয় এমর পণ্য ও অর্থকে রিবা বহনকারী পণ্য (Ribawi Materials) আখ্যায়িত করা হয়েছে এবং কেবল এই সব পণ্য ও অর্থের বাকি ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ বলে রায় দেওয়া হয়েছে। কোন কোন ফক্বীহ আবার ছয়টি পণ্যের মধ্য থেকে সোনাকে বাদ দিয়েছেন এবং সোনা দ্বারা ঋণ লেনদেন করা বৈধ বলে মত দিয়েছেন। বিশিষ্ট কয়েকজন ফক্বীহ আবার মুদ্রার বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে অবৈধ বলেছেন। রিবা নাসা হারাম হওয়া সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, রিবা নাসা হচ্ছে প্রচ্ছন্ন (concealed, hidden)রিবা; আর ঋণ বা দেনার ওপর বর্ধিত অংশ হচ্ছে প্রকাশ্য (overt, menifest) রিবা। প্রকৃত নিষিদ্ধ রিবা হচ্ছে প্রকাশ্য রিবা; আর প্রকাশ্য রিবার দ্বার রুদ্ধ হবার জন্যই প্রচ্ছন্ন রিবাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

ইয়াদান বিইয়াদিন-এর অর্থ সম্পর্কে ইমাম সারাখসী অবশ্য ভিন্ন মত ব্যক্ত করেছেন। তাঁর মতে, ইয়াদান বিইয়াদিন-এর অর্থ হচ্ছে “এখন নির্ধারিত পণ্যের সাথে এখন নির্ধারিত পণ্য (present determined commodity (ayn) with present determined commodity (ayn). তিনি বলেছেন, এর অর্থ যদি দখল বা হস্তান্তর হতো তাহলে বলতে হতো, ‘মিন ইয়াদিন ইলা ইয়াদিন’ (এক হাত থেকে অন্য হাতে)। সুতারাং ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ হচ্ছে, “তাঈন এর বিনিময়ে তাঈন” (ascertained commodity for ascertained comniodity.)[সারাখসী, পূর্বোক্ত, পৃ: ৫-৬]

সম্প্রতি এরমি মাহমুদ নূর বলেছেন, “ইয়াদানা বিইয়াদিনের প্রকৃত তাৎপর্য হচ্ছে নির্ধারণ করা (ascertainment), বিনিময়ের পণ্য দু’টি চিহ্নিত করা (identification) এবং এদের গুণ-মান নিশ্চিত করা। ক্রয়-বিক্রয়ে উভয় পক্ষের মাল উপস্থিত থাকলে ক্রেতা-বিক্রেতা যার যার বাঞ্ছিত মাল দেখে, পরখ করে, এদের গুণ-মান নিশ্চিত করে, দাম-দস্তুর ঠিক এবং ওজন, পরিমাপ বা গণনা করে পরস্পর হস্তান্তর করতে পারে। কিন্তু কোন এক পক্ষ বা উভয় পক্ষের মাল যদি চুক্তিকালে অনুপস্থিত থাকেন তাহলে মালের নমুনা (sample) বা বিবরণের (specification) মাধ্যমে উক্ত কাজ সমাধা করতে হয়। সুতরাং ইয়াদান বিইয়াদিনের যথার্থ তাৎপর্য হচ্ছে নির্ধারণ করা যা পরিদর্শন (inspection) বা বর্ণনার (specification) মাধ্যমে করা হয়। অতঃপর পারস্পরিক হস্তান্তার তাৎক্ষণিক হতে পারে বা ভবিষ্যতের কোন নির্ধানিত সময়েও হতে পারে। জনাব নূরের মতে, ইয়াদান বিইয়াদিন শর্ত লংঘন করলে রিবা নয় বরং গারারের (অস্পষ্টতা) সৃষ্টি হয়।[নূর, ই এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৩৩-১৩৪।]

ফিক্বহবিদ ও গবেষকদের মধ্যে উক্তরূপ মতপার্থক্য স্বত:ই বলে দিচ্ছে, ক্রয়-বিক্রয় ও রিবা সম্পর্কিত উক্ত বক্তব্য বাস্তবতা পরিপন্হি, পরস্পরবিরোধী এ কুরআন-সুন্নাহর সাথে অসংগতিপূর্ণ।

প্রথমত, ঋণ হচ্ছে সমজাতের ফাঞ্জিবল পণ্য বা মুদ্রার বাকি ক্রয়-বিক্রয়। সুতরাং ঋণ বৈধ, আর সমজাতের পণ্য বাকি ক্রয়-বিক্রয় অবৈধ, এরূপ মন্তব্য পারস্পর বিরোধী ও বিভ্রান্তিকর। এতে একই ক্রয়-বিক্রয়কে একবার ঋণ আখ্যায়িত করে তাকে বৈধ বলা হয়েছে; আবার সমজাতের পণ্যের বাকি ক্রয়-বিক্রয় বলে একেই হারাম বলা হয়েছে। অনুরূপভাবে অসমজাতের পণ্য ও অর্থের বাকি ক্রয়-বিক্রয় থেকে সৃষ্টি হয় দেনা। সুতরাং দেনা বৈধ আর অসম জাতের বস্তু বাকি ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ; এ বক্তব্য স্ববিরোধী। তাছাড়া, বাই-মোয়াজ্জল, বাই-সালাম, বাই-ইসতিসনা ও ইজারাহকে অনুমোদন করার পর আর কোন ধরনের বাকি ক্রয়-বিক্রয় আছে যাকে নিষিদ্ধ বালা হয়েছে!

দ্বিতীয়ত, সাধারণ কর্দ থেকে কর্দে হাসানাহকে পৃথক করার চেষ্টা করা হয়েছে কেবল এই যুক্তিতে যে, সাধারণ কর্দে মেয়াদ নির্ধারিত থাকে কিন্তু কর্দে হাসানায় মেয়াদ নির্ধারণ করা বৈধ নয়। কিন্তু বিশিষ্ট ফিক্বহবিদগণ বলেছেন, কর্দ হচ্ছে এক প্রকার দাইন বা দেনা। আর আল-কুরআন সকল প্রকার দাইনের মেয়াদ নির্ধারণকে শর্ত করে দিয়েছে (২:২৮২)। তাছাড়া কর্দে হাসানাহ হচ্ছে এক ধরনের বাকি ক্রয়-বিক্রয়। আর সকল প্রকার বাকি ক্রয়-বিক্রয়েই বাকি পরিশোধের মেয়াদ নির্ধারণ করা অপরিহার্য। সুতরাং কর্দ অবৈধ, আর কর্দে হাসানাহ বৈধ এরূপ বলার কোন যুক্তি নেই।

তৃতীয়ত, রিবা ফদলকে ঋণের মেয়াদের potential benefit-এর মূল্য তথা রিবা ফদল ও রিবা নাসাকে পরস্পরের কাউন্টার ভ্যালু বলা হলে অর্থের সময়ের মূল্য (time value of money) প্রত্যাখ্যান করার পক্ষে আর কোন যুক্তি অবশিষ্ট থাকে না। তাছাড়া, কাউন্টার ভ্যালু না থাকাই হচ্ছে সুদ হারাম হওয়ার মূল ও একমাত্র কারণ। সময়ের/মেয়াদের potential benefit আছে এবং তা রিবার কাউন্টার ভ্যালু- এরূপ কথা রিবা হারাম হওয়ার মূল কারণকেই তিরোহিত করে দেয়।

চতুর্থত, হাদীসে ছয়টি পণ্যের উল্লেখ থাকলেও বাস্তবে দেখা যায়, সকল পণ্য, মুদ্রা ও সেবা ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রেই সুদ হয় যদি ক্রয়-বিক্রয় চুক্তির সাথে রিবা চুক্তি করা হয়। সুতরাং রিবাবী (ribawi materials) পণ্য বলে নির্দিষ্ট কোন পণ্য নেই।

পঞ্চমত, রিবা, নাসা/রিবা আল-ইয়াদ হচ্ছে প্রচ্ছন্ন রিবা এবং তা হারাম, এটি একটি অভিনব ধারণা; আল-কুরআনে এমন কোন কথা নেই। কেউ কেউ বলেছেন, এটা সুন্নাহর দ্বারা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু হাদীসে যা বলা হয়েছে তা হচ্ছে, ‘যা নাসীয়াহ তা রিবা’, ‘রিবা হয় কেবল নাসীয়াতে’ ইত্যাদি। হাদীসের এসব বর্ণনায় একথা বুঝায় না যে, সময় বা মেয়াদেই রিবা। বস্তুতঃ সারা দুনিয়ায় কোথাও কখনও সময় বা মেয়াদকে রিবা মনে করা হয় না। সুতরাং মেয়াদ নিষিদ্ধ নয়। তবে অজ্ঞাত মেয়াদের জন্য বাকি বিক্রি নিষিদ্ধ।

ষষ্ঠত, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) মিসলান বিমিসলিন বলে সমজাতের পণ্য, অর্থ ও সেবা ক্রয়-বিক্রয়কালে উভয় মালের গুণগত মান সমান সমান করার বিধান দিয়েছেন। আর সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন বলে উভয় মালের পরিমাণ সমান সমান করার নির্দেশ দিয়েছেন। আর অসম জাতের পণ্য, মুদ্রার সেবার ক্ষেত্রে পারস্পরিক সম্মতির মাধ্যমে দাম নির্ধারণ করতে বলেছেন। এতেই মান পরিমাণ ও দাম নির্ধারণ হয়ে যায়; এরপর ইয়াদান বিইয়াদিন দ্বারা আবার তিনি নির্ধারণ করার নির্দেশ দিয়েছেন, এটা স্বাভাবিক নয়। তাছাড়া হাদীসে সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছে ইয়াদান বিইয়াদিন হলে তাতে কোন দোষ নেই; কিন্তু যা নাসীয়াহ তা রিবা। সুতরাং ইয়াদান বিইয়াদিন সুদ নয় গারারের সাথে সম্পৃক্ত, এ কথা সঠিক নয়।

সর্বোপরি, এ কথা নিঃসন্দেহে বলা যায় যে, ইসলাম কখনও ঋণ লেনদেন ও বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে নিষিদ্ধ করেনি। বরং আল-কুরআনে কর্দে হাসানাহ প্রদানকে উৎসাহিত করা হয়েছে; বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে লিখে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) কর্দকে সাদাকাহ আখ্যায়িত করেছেন; কর্দ প্রদানকে অতি বড় সওয়াবের কাজ ঘোষণা করেছেন। বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে বরকত রয়েছে বলে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন। আল্লাহর রাসূল (সাঃ) নিজে ঋণ লেনদেন করেছেন; আর নিজের বর্ম বন্ধক রেখে এক ইহুদীর কাছ থেকে বকিতে খাদ্যদ্রব্য কিনেছিলেন যা দেনা হয়ে মৃতুকালেও তাঁর ওপর চেপে ছিল। সাহাবায়ে কেরামও ঋণ লেনদেন এবং বাকি ক্রয়-বিক্রয় করেছেন। বস্তুতঃ সারা দুনিয়ায় সর্বকালে ঋণ ও বাকি লেনদেন চালু ছিল, আছে এবং আশা করা যায় থাকবে। এ ব্যাপারে উম্মতের ইজমা (ঐকমত্য) সুপ্রতিষ্ঠিত।[নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১১৬। কর্দ ও বাকি ক্রয়-বিক্রয়ক অবৈধ হতে পারে না।

ফিক্বাহশাস্ত্রে সুদ তথা ইয়াদান বিইয়াদিন প্রসঙ্গে এসে বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে নিষিদ্ধ বলা হলেও অন্যত্র প্রায় সকল মাযহাবেই বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে অনুমোদন করা হয়েছে। ইমাম আবূ হানীফা ও মালিকী ফক্বীহদের একটা অংশ স্পেসিফিকেশন ছাড়া হলেও বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে বৈধ বলেছেন। মালিকী মাযহাবের অধিকাংশ ফক্বীহ অবশ্য মালের স্পেসিফিকেশন করা হলে বাকি ক্রয়-বিক্রয় বৈধ বলে রায় দিয়েছেন। ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল ও ইমাম ইবনে হাযম এর সাথে ঐকমত্য প্রকাশ করেছেন।[উপরোক্ত, পৃ: ১৩৫।]

আল-কাসানি বলেছেন, নিষিদ্ধ জিনিস হচ্ছে মূল্যের ওপর বাড়তি যা আল-ফদল হিসেবে পরিচিত। ঋণের ক্ষেত্রে ঋণদাতা ঋণ প্রদানকালেই চুক্তির মাধ্যমে আসলের ওপর অতিরিক্ত (ফদল) ধার্য করার অধিকার সৃষ্টি করে। কিন্তু স্বাভাবিক ক্রয়-বিক্রয়ে কোন পক্ষের বস্তু হস্তান্তর স্থগিত (deferred) করা হলে এতে অতিরিক্ত (ফদল) থাকে না; সুতরাং সুনির্দিষ্ট (specification/standard) মান ও পরিমাণের কোন পণ্য বাকিতে বিক্রয় করলে এত কোন রিবা হয় [আল-কাসানি: বাদাই লি সানাই ফী আল-তরতীব আল শরঈ, ভলি- ৭ পৃধ ৩৯, উদ্ধৃত নূর, ই, এম পূর্বোক্ত, পৃ: ১৩৪।] এ ব্যাপারে বিশিষ্ট ফক্বীহগণ একমত যে, সমস্যা ক্রয়-বিক্রয়ে নয়; বরং সমাস্যার প্রকৃতকারণ হচ্ছে আসল পরিমাণের ওপর অতিরিক্তের (ফদল) উপস্থিতি। একারণে বিন আব্দুল আযীয মুত্রিক বলেছেন, সুনির্দিষ্ট মানের (standardized) কোন পণ্য একই জাতের পণ্যের বিনিময়ে বাকিতে বিক্রয় করা হলে এতে সুদ হয় না। আল-কুরআন সকল প্রকান ক্রয়-বিক্রয়কে অনুমোদন করেছে। আল-কুরআনের এই সাধারণ বিধান থেকেই উক্ত বিধান বের করা হয়েছে।[ওমর বিন আব্দুল আযীয মুত্রিক: Al-Riba wal Mu’amalat Al-Masrafiyya, 1st ed., H. 1414, p. 34, উদ্ধৃত, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৩৫।] ইবনুল কায়্যিম এ পর্যন্ত বলেছেন যে, “আইনের ব্যতিক্রম হিসেবে নয়, বরং নীতিগত বিধান হিসেবেই বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে অনুমোদন করা হয়েছে”।[Ibn Qayyim: I’lam, 1,359, উদ্ধৃত: কামালি, মোহাম্মদ হাশিম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১০৮।] সুতরাং ইয়াদান বিইয়দিন দ্বারা অবশ্যই এ কথা বুঝায় না যে, ক্রয়-বিক্রয়ের দুটি বস্তু তাৎক্ষণিক নগদ বিনিময় করতে হবে, অন্যথায় তা রিবার পর্যবসিত হবে।[ই, এম, নূর: উপরোক্ত, পৃ: ১৩৪।]

প্রতীয়মান হয়েছে যে, ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ নির্ধারণ করা নয়; এর অর্থ নগদ বিনিময়ও হতে পারে না। তাহলে ইয়াদান বিইয়াদিনের অর্থ করেছেন পারস্পরিক হস্তান্তর বা বিনিময়; তবে এর সাথে তাঁরা তাৎক্ষণিক নগদের শর্ত আরোপ করেছেন। আলোচনায় দেখানো হয়েছে, সকল সমস্যা, জটিলতা ও মতপার্থক্যের কারণ হচ্ছে নগদের এই শর্ত। এই শর্ত তুলে দিয়ে ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ যদি কেবল পারস্পরিক বিনিময় বা পারস্পরিক হস্তান্তন করা হয় তাহলে আর কোন সমস্যা থাকে না। সুতরাং ইয়াদান বিইয়াদিন; হা’য়া ওয়া হা’য়া এর প্রকৃত তাৎপর্য হচ্ছে পারস্পরিক বিনিময় বা reciprocal exchange যা বাকি নগদ উভয় ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। ইয়াদান বিইয়াদিন-এর বিপরীত অর্থ বুঝানোর জন্য হাদীসে নাসীয়াহ পরিভাষা ব্যবহার করা হয়েছে। এখানে এ বিষয়ে আলোচনা করা দরকার।

২. নাসীয়াহর তাৎপর্যঃ রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “রিবা হয় কেবল নাসীয়াতে”, “নাসীয়াহ ব্যতীত রিবা হয় না”, “যা নাসীয়াতান তা রিবা”, “যা ইয়াদান বিইয়াদিন তাতে কোন দোষ নেই, কিন্তু যা নাসীয়াতান তা রিবা”।

নাসীয়াহ শব্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে ধারে (credit), বিলম্বে মূল্য প্রদান (delay of payment); আর নাসীয়াতান অর্থ হচ্ছে ধারে (on credit)।[Cowan, J. M. পূর্বোল্লেখিত।] এই অর্থের আলোকে হাদীসের উপরোক্ত বর্ণনা থেকে ধরে নেওয়া হয়েছে যে, নাসীয়াই রিবা, অথবা রিবা কেবল ঋণ ও ধারে ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে সম্পৃক্ত। কিন্তু হাদীসে নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে একদিকের অতিরিক্ত অংশকেও রিবা বলা হয়েছে। অর্থাৎ একদিকে বলা হয়েছে রিবা হয় কেবল বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে; অপরদিকে বলা হয়েছে, নগদ ক্রয়-বিক্রয়েও রিবা হয়। এরূপ পরস্পর বিপরীতমুখী কথার সমন্বয় করতে গিয়ে কেউ কেউ বলেছেন যে, উক্ত হাদীস কয়টিতে নাসীয়াহ বা নাসীয়াতান শব্দ দ্বারা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) একথা বুঝিয়েছেন যে, নাসীয়াহ হচ্ছে রিবার গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। যেমন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) অন্যত্র বলেছেন, “হজ্জ হচ্ছে আরাফাত”। নসীয়াহ সংক্রান্ত উপরোক্ত হাদীসগুলোকে ঠিক এই অর্থেই বুঝতে হবে।[নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ৩৫।] আরবরা সাধারণত বলে যে, “যায়েদ ছাড়া শহরে আর কোন স্কলার নেই _ এর দ্বারা যায়েদের প্রতিভার গুরুত্ব বুঝানোর হয়েছে। তেমনি নাসিয়াহ্ ছাড়া অন্য কিছুতে রিবা নেই কথার দ্বারা রিবা নাসিয়াহ্ যে গুরুতর অপরাধ এবং এর সাজা যে ভংকর কঠোর হবে তাই বুঝানো হয়েছে। কেউ কউ আবার বলেছেন যে , রিবা নাসীয়াহ্ হচ্ছে স্বাভাবিক রিবা , এটাই হচ্ছে পারফেক্ট (parfect) রিবা। উক্ত কথার দ্বারা রিবার পূর্ণাঙ্গ রূপ বুঝানো হয়েছে।

এখানে উল্লেখ যে, সাহাবীদের (রাঃ) যুগে প্রখ্যাত ফক্বীহ-সাহাবী ইবনে আব্বাসসহ কয়েকজন সাহাবী (রাঃ) কেবল ঋণ ও দেনার ওপর ধার্যকৃত আতিরিক্তকেই রিবা বলতেন ; সমজাতের পন্য ও অর্থ নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে পরিমাণে কম-বেশী করলে সেই বৃদ্ধিকে তাঁরা রিবা মনে করতেন না এবং এ ধরনের ক্রয়-বিক্রয়কে তাঁরা বৈধ বলতেন। অন্যান্য সকল সাহাবী (রাঃ) অবশ্য তাঁদের এ মতকে অপছন্দ করতেন। কেউ কেউ এ বিষয়ে সরাসরি ইবনে আব্বাসকে (রাঃ) প্রশ্ন করেছেন। (হাদিসে তাঁর উল্লেখ আছে ) তবে বিভিন্ন বর্ণনা থেকে জানা যায়, ভিন্নমত পোষণকারী সাহাবীদের ( রাঃ) সকলেই তাঁদের মত প্রত্যাহার করায়, এটাই প্রমাণিত হয় যে, তাদেঁর ভিন্নতর মত সঠিক ছিল না।

তাছাড়া স্বয়ং রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রেও ইয়াদান বিইয়াদিন ও নাসীয়াহ্ এ দু’টি পরিভাষাই ব্যবহার করেছেন। আবুল মিনহাল থেকে বর্ণিত ৯০ ক্রমিকে উল্লেখিত হাদীসে দেখা যায়, হজ্জের মওসুমে দাম পরিশোধ করার শর্তে বাকিতে রূপা বিক্রয় সম্পর্কে বারাআ ইবনে আযিবের মতামত জানতে চাওয়া হয়েছিণ। উত্তরে বারাআ ইবনে আযিব (রাঃ) রাসূলুল্লাহ (সাঃ)- এর বক্তব্য পেশ করেছেন যাতে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “এ ধরণের ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে যেটা ইয়াদান বিইয়াদিন তার মধ্যে কোন দোষ নেই; কিন্তু ক্রয়-বিক্রয়কে বুঝানো হয়ে থাকে, তাহলে ইয়াদান বিইয়াদিনকে আবার নগদের অর্থে ব্যবহার করা স্বাভাবিক নয়’ তেমনি বাকিতে বিক্রয় বুঝানোর জন্য নাসীয়াহ্ পরিভাষা ব্যবহার করাও অস্বাভাবিক।

হাদীস থেকে এটা স্পট যে, ইয়াদান বিইয়াদিনের বিপরীত অর্থ বুঝানোর জন্যই নাসীয়াহ শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। সেদিক থেকে ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ নগদ বিনিময় করা হলে নাসীয়াহ অর্থ অবশ্যই বাকিতে বিনিময় করা হতে হবে। কিন্তু ইয়াদান বিইয়াদিন অর্থ যদি পারস্পরিক বিনিময় (যা নগদ বাকি উভয় ক্ষেত্রে প্রযোজ্য) করা হয়, তাহলে এর বিপরীতে নাসীয়াহ অর্থ দাঁড়ায় বিনিময়হীন (যা নগদ বাকি উভয় ক্ষেত্রেই হতে পারে)। অর্থাৎ ইয়াদান বিইয়াদিন হচ্ছে বিনিময় দিয়ে নেওয়া; আর নাসীয়াহ হচ্ছে বিনিময় না দিয়ে নেওয়া। রিবার ব্যাখ্যা থেকেও এটা স্পষ্ট হয়েছে, বিনিময় বা counter value না থাকাই হচ্ছে সুদ হওয়ার মূল ও একমাত্র কারণ।

ক্রয়-বিক্রয়ে কোন পণ্য, অর্থ বা সেবার সেই অংশই রিবা যার বিনিময় দেওয়া হয় না। ঋণ ও দেনার ওপরে বর্ধিত অংশ সুদ, কারণ অপরপক্ষ সেই অংশের বিনিময় দেয় না’ তেমনি নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে এক পক্ষের বর্ধিত অংশ সুদ, কারণ তা বিনিময়হীন। অপরদিকে, বাকি মূল্যের ওপর বাড়তি অংশ বা নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে এক পক্ষের নেয়া অতিরিক্ত অংশের দাম দেওয়া হলে সেই বাড়তি/অতিরিক্ত অংশ আর রিবা থাকে না।

নাসীয়াহ শব্দটি ‘নাসা’ থেকে উদ্ভূত হয়েছে। অভিধানে ‘নাসা’ –এর অর্থ লিখা হয়েছে, to put off, postopne, delay, defer, procrastinate. [Cowan, J.M. পূর্বোক্ত।] দেখা যাচ্ছে, নাসাআ- এর প্রথম অর্থ হচ্ছে to put off. আর Put off মানে হচ্ছে, বাতিল করা ( to cancel); বিরত রাখা (put somebody off something); বাতি নিভিয়ে দেওয়া (to switch something off); বিলম্বিত করা (to delay); স্থগিত করা (postpone)। সুতরাং ‘নাসাআ’ অর্থ বতিলও হতে পারে, স্থগিত করাও হতে পারে, বিলিম্বিত করাও হতে পারে। তবে কোন কাজ স্থগিত বা বিলম্বিত করতে হলে বিলম্বের মেয়াদ অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে; অন্যথায় তা বাতিল বুঝাবে। সেই জন্যই কুরআন মজীদে ঋণ/বাকি লেনদেনের সাথে নির্ধারিত সময়ের জন্য (ইলা আজালিম্মুছাম্মাহ) বলা হয়েছে। হাদীসে অজ্ঞাত মেয়াদের জন্য বাকি ক্রয়-বিক্রয় বৈধ নয় বলে জনিয়ে দেওয়া হয়েছে। সুতরাং বাকি ক্রয়-বিক্রয় বা ঋণ সর্বদাই নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য হতে হবে। অনির্ধারিত সময়ের জন্য বাকি দেওয়া আর মূল্য না নিয়ে দেওয়ার মধ্যে তেমন কোন তফাৎ নেই।রাসূলুল্লাহ (সাঃ) নাসীয়াহ শব্দ দ্বারা বিনিময় না নিয়ে দেওয়ার প্রতি ইঙ্গিত করেছেন- এটাই এর যথার্থ তাৎপর্য। সুতরাং পূর্ণাঙ্গ বাক্যটির অর্থ হচ্ছে, যা বিনিময় দিয়ে নেওয়া হয় তাতে কোন দোষ নেই; কিন্তু যা বিনিময়হীন তা রিবা; বিনিময়হীনতাই রিবা, বিনিময়হীন না হলে রিবা হয় না ইত্যাদি।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে স্পষ্ট হয় যে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এক জাতের পণ্য, অর্থ বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে তিনটি বিধান দিয়েছেন। তা হচ্ছে, মিসলান বিমিসলিন, সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন ও ইয়াদান বিইয়াদিন। আলোচনায় এটাও প্রতীয়মান হচ্ছে যে, মিসলান বিমিসলিন দ্বারা উভয় পক্ষের পণ্য, অর্থ বা সেবার গুণ ও মানগত সমতা বিধান করতে বলা হয়েছে; সাওয়া বিসাওয়ায়িন দ্বারা এদের পরিমাণ সমান সমান করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে; এই শর্ত দু’টি পালন করলে সমজাতের পণ্যের মূল্য সমান হয়। অতঃপর ইয়াদান বিইয়াদিন দ্বারা উভয় পণ্য, অর্থ বা সেবা পারস্পরিক ও বাস্তব হস্তান্তরের বিধান দেওয়া হয়েছে। এই তিনটি বিধান নগদ ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে যেমন প্রযোজ্য তেমনি বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের বেলাতেও তা সমভাবে প্রযোজ্য।

অসমজাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়

কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের বিধান

ক্রয়-বিক্রয়ের বস্তু যদি ভিন্ন ভিন্ন জাতের (different kinds/heterogeneous) হয় যেমন, সোনার বদলে রূপা, খেজুরের পরিবর্তে লবণ, টাকার বিনিময়ে গম, মার্কিন ডলারের বিনিময়ে সৌদী রিয়েল, কাজের বিনিময়ে টাকা ইত্যাদি, সে ক্ষেত্রে রাসূলুল্লাহ (সাঃ), “তোমরা ইচ্ছা মতো (দামে) বিক্রয় করতে পার, তবে হাত হতে হাতে (ইয়াদান বিইয়াদিন)”। সম্মানিত ফক্বীহগণ এখানে একটি মাত্র শর্ত আছে বলে বলেছেন, আর সেটি হচ্ছে হাত হতে হাতে (ইয়াদিন বিইয়াদিন) যার অর্থ তাঁরা করেছেন, তাৎক্ষণিক নগদ বিনিময়। কিন্তু এখানে শর্ত একটি নয়, দু’টিঃ একটি হচ্ছে যে কোন দাম অর্থাৎ পারস্পরিক সম্মতিতে দাম নির্ধারণ করা; আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে ইয়াদান বিইয়াদিন বা পারস্পরিক বিনিময়।

১. পারস্পরিক সম্মতি (Mutual Consent): “তোমরা যে কোন (দামে) বিক্রি করতে পার”- সম্মানিত ফক্বীহগণ হাদীসের এই অংশকে ক্রয়-বিক্রয়ের শর্ত হিসেবে গণ্য করেননি। প্রকৃতপক্ষে বিক্রেতা যে কোন দামে তার পণ্য বিক্রি করতে পারে না, সে যে কোন দাম হাঁকতে পারে মাত্র, এ অধিকার তার আছে। অতঃপর ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়েই যে দামে সম্মত হয় সেই দামে বেচাকেনা হয়ে থাকে। বস্তুতঃ রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এখানে এই নীতিই তুলে ধরেছেন যে, ক্রেতা-বিক্রেতা পারস্পরিক সম্মতিতে যে দাম নির্ধারণ করবে সেটাই বৈধ দাম, সেই দামের বেচাকেনা করা বৈধ। ‘ফাবিয়ূ কাইফা শি’তুম’ – তোমরা যেভাবে খুশী বিক্রি করতে পার - হাদীসের এই বাক্যাংশ আল- কুরআরে বর্ণিত বিধানের ব্যাখ্যা। আল-কুরআনের নির্দেশ হচ্ছে, “হে ঈমানদারগণ, তোমরা একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে ভক্ষণ করো না; বরং পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে ব্যবসা কর”। (৪: ২৯) এই আয়াতে দুটি নির্দেশ হচ্ছেঃ এক, পারস্পরিক সম্মতি ব্যতীত কারও সম্পদ নেওয়া হচ্ছে বাতিল পন্হায় পরের সম্পদ ভক্ষণ করা; এটা অবৈধ বা নিষিদ্ধ; দুই, পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে সম্পদ লেনদেন করা বৈধ- এট করার জন্য আদেশ দেওয়া হয়েছে যা পূরণ করা না হলে ক্রয়-বিক্রয় বৈধ হয় না। হাদীসে অত্যন্ত বলিষ্ঠ ভাষায় বলা হয়েছে, “অবশ্যই ক্রয়-বিক্রয় পারস্পরিক সম্মতির ওপর ভিত্তিশীল”।[ফাতহুল বারি, ভলি-৮, পৃঃ ২৩০, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, প্রগুক্ত, পৃঃ ২০০।] অন্যত্র বলা হয়েছে, “Someone’s property will not be lawfully acquired by another unless it was given to him willingly.” [ইবদ।] অর্থাৎ “কারও সম্মত নেওয়া আইনত বৈধ হবে না যতক্ষণ না তা স্বেচ্ছা সম্মতিতে প্রদান করা হয়”। অর্থনৈতিক দৃষ্টিতেও পারস্পরিক সম্মতিতে ক্রয়-বিক্রয়ের একটি অপরিহার্য বিষয় বলে মনে করা হয়।

অর্থনীতিতে বলা হয়েছে ভিন্ন ভিন্ন জাতের (dissimilar, differnt or heterogeneous) বস্তু ক্রয়-বিক্রয় কালে ক্রেতা এই চিন্তা করে যে, সে যে পণ্য, অর্থ বা সেবা কিনতে যাচ্ছে তা থেকে সে যে পরিমাণ উপযোগ , বেনিফিট বা তৃপ্তি পাবে তার মূল্য, আর এজন্য বিক্রেতা যে দামে (অর্থ, পণ্য বা সেবা) দাবী করছে তার মূল্য সমান হচ্ছে না, তাহলে সে বিক্রেতার প্রস্তাবিত দামে বস্তুটি ক্রয় করতে অসম্মতি জানায় এবং দাম কমানোর জন্য বিকল্প প্রস্তাব করে। অনুরূপভাবে বিক্রেতাও চিন্তা করে, সে যে পণ্য, অর্থ বা সেবাটি বিক্রি করছে তার মূল্য আর ক্রেতা যে দাম প্রস্তাব করেছে তার মূল্য সমান কিনা। যদি তার মনে হয় যে, তার পণ্য অর্থ বা সেবার মূল্য এবং ক্রেতা কর্তৃক প্রস্তাবিত মূল্য সমান নয়, তাহলে সে পণ্য, অর্থ বা সেবাটি প্রস্তাবিত দামে বিক্রি করতে অসম্মতি জানায় এবং দাম আরও বাড়ানোর জন্য বিকল্প প্রস্তাব দেয়। আধুনিক ভাষায় ক্রেতা ও বক্রেতার মধ্যে এরূপ প্রস্তাব ও পাল্টা প্রস্তাবকে বলা হয় দরকষাকষি (bargaining)। শরয়ী ভাষায় এক বলা হয়েছে, ঈজাব ও কবুল। বস্তুতঃ ক্রয়-বিক্রয়ের বস্তু দু’টির চাহিদা ও যোগানের ভিত্তিতেই ক্রেতা-বিক্রেতা দরকাষাকষি করে। ইবনে আল আরবী এ সম্পর্কে বলেছেন, "If the need of the seller for the price or money is relatively stronger he would add more of his commodity or services for a given price. If on the other hand the relative need of the buyer for the commodity is stronger, he would add more of his price for a given commodity or service”[ Isrriail, Abdul Halim: Deferred ·Transaction in the Quran, in Introduction to Islamic Finance, Sh. Ghazali Sh. Ahud et (eds), 1992, উদ্ধৃত, নূর, ই, এম,পূর্বোক্ত, পৃ; ৭৫।]

“বিক্রেতা যদি তার পণ্য বা সেবার তুলনায় এর দাম তথা অর্থের প্রয়োজন অধিক বলে মনে করে তাহলে নির্দিষ্ট দামে সে বেশি পণ্য বা সেবা প্রদানে প্রস্তুত হয়ে যায়; অপরদিকে ক্রেতা যদি তার অর্থের তুলনায় বাঞ্ছিত পণ্যটি প্রয়োজনীয়তা বেশি বলে অনুভব করে, তাহলে সেই পণ্য বা সেবাটি পাওয়ার জন্য সে বেশি দাম দিতে রাজী হয়ে যায়”।

এইভাবে দরকষাকষির মাধ্যমে এক পর্যায়ে ক্রেতা যখন মনে করে যে, পণ্য, অর্থ বা সেবাটি এই দামে কিনলে তার প্রদত্ত দামের ক্ষতিপূরণ হবে, তখন সে সেই দামে কিনতে রাজী হয়ে যায়। অনুরূপভাবে বিক্রেতাও যখন মনে করে যে, প্রস্তাবিত দাম দ্বারা তার পণ্য বা সেবা হারানোর ক্ষতি পূরণ হচ্ছে, তখন সে সেই দামে তার পণ্য, অর্থ বা সেবা বিক্রি করতে রাজী হয়ে যায়। বিক্রেতা বলে দিলাম, আর ক্রেতা বলে নিলাম; অতীতকালের শব্দ দ্বারা তাদের মধ্যে ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পদিত হয়। অর্থনীতিতে এই অবস্থাকে বলা হয়েছে ভারসাম্য অবস্থা equilibrium point। আর এই দামকে বলা হয়েছে equilibrium price বা ভারসম্য দাম।

"The great philosophers, i.e. Hegel, Simmel etc. also recognized that the commodity exchange is such that the exchangeability of goods ultimately rests on the complementary acts of will by which the commodity owners choose to trade what each other owns. Of course to be exchangeable the goods must have conventional qualities of being objects existingto satisfy specific market needs."[ Richard D. Windfield, 'The Just Economy', Routledge, New York, 1988, p. 109: Quoted by Nur, E. M. পূর্বোক্ত, পৃ: ১৪৭।] "What then gives the traded commodities both the common quality of exchangeability and Specific exchange values are (is) nothng but the mutual acts by which the owners render them equivalently exchangeable." [নূর, ই, এম, এন, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৪৭-১৪৮।] “হেগেল, সিমেল প্রমুখ বড় বড় দার্শনিকও স্বীকার করেছেন যে, পণ্য-সামগ্রীর ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে এমন একটি কাজ যেখানে পণ্য-সামগ্রীর বিনিময়যোগ্যতা পরস্পর সম্পূরক ইচ্ছার ওপর নির্ভরশীল। এই ইচ্ছার দ্বারা চালিত হয়েই পণ্য-সামগ্রীর মালিকগণ তাদের নিজ নিজ পণ্য পরস্পর বিনিময়ের সিদ্ধান্ত নেয়। তবে এক্ষেত্রে বিনিময়ের পণ্যটির মধ্যে অবশ্যই বাজারের সুনির্দিষ্ট প্রয়োজন পূরণ করার মত গুণ-বৈশিষ্ট্য থাকতে হবে”। “সুতরাং ক্রয়-বিক্রয়ের পণ্য সামগ্রীর মধ্যে সাধারণ দু’টি বৈশিষ্ট্য, বিনিময়যোগ্যতা ও সুনির্দিষ্ট বিনিময় মূল্য আর কিছু নয়, বরং স্বেচ্ছা সম্মতির দ্বারাই সৃষ্টি হয়। এই স্বেচ্ছা সম্মতির মাধ্যমে পণ্য-মালিকগণ তাদের নিজ নিজ পণ্য-সামগ্রীকে বিনিমেয় বানিয়ে দেয়”।

সুতরাং আল-কুরআন, সুন্নাহ, অর্থনীতিবিদ ও দার্শনিকদের মতে, ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্য, অর্থ বা সেবা ক্রয়-বিক্রয়ে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণ করার বিধান হচ্ছে, পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে দাম নির্ধারণ করা। ড. নাজাতুল্লাহ সিদ্দিকিী এই কথাই বলেছেন নিম্ন ভাষায়ঃ "Perception in equality is acceptable in place of objective equality in exchange of dissimilar things, as money and commodity." [সিদ্দিকী, এম, এন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৪] “সমজাতের দু’টি বস্তু বিনিময়ের ক্ষেত্রে এদের বস্তুগত সমতা বিধান করা জরুরী। কিন্তু অসম জাতের পণ্য-সামগ্রীর ক্ষেত্রে, যেমন অর্থের বিনিময়ে পণ্য, বস্তুগত সমতার স্থলে প্রত্যক্ষণগত সমতা গ্রহণযোগ্য”।

২. পারস্পরিক সম্মতি বৈধ হওয়ার শর্তঃ ক্রেতা-বিক্রেতার পারস্পরিক সম্মতিতে দাম নির্ধারণ করার জন্য শরীয়াতে আরও কয়েকটি শর্ত দেওয়া হয়েছে যা পরিপালন না করলে পারস্পরিক সম্মতিতে নির্ধারিত দাম বৈধ হয় না। শর্তগুলো হচ্ছেঃ

১) ক্রেতা-বিক্রিতা উভয়কেই প্রাপ্তবয়স্ক, সুস্থমস্তিষ্ক ও বুদ্ধিমান হতে হবে (Age of puberty, sound mind and intelligence) যাতে তারা চুক্তির ফলাফল ও পরিণতি উপলদ্ধি করতে পারে;

২) ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়কেই পূর্ণ স্বাধীন হতে হবে যাতে তারা স্বেচ্ছায় প্রস্তাব গ্রহণ বা প্রত্যাখ্যান করতে পারে; অর্থাৎ এমন কোন চাপ, বাধ্যবাধকতা, জবরদস্তি থাকবে না যাতে ক্রেতা-বিক্রেতার কেউই বা উভয়েই প্রস্তাব গ্রহণ বা প্রত্যাখ্যান করতে বাধ্য হয়;

৩) কোন প্রকার মিথ্যা, ধোকা-প্রতারণা, জালিয়াতি বা চালাকি না থাকা এবং

৪) কোন প্রকার গারার বা অস্পষ্টতা, দ্ব্যর্থবোধতা ও অজ্ঞতা না থাকা।

এছাড়া বাজারে চাহিদা ও যোগান যাতে স্বাভাবিক ও স্থিতিশীল থাকে, সকল প্রকার বিকৃতি ও কলুষতামুক্ত হয় এবং মানুষ কেবল স্বাভাবিক চাহিদা-যোগানের দ্বারা নির্ধারিত দামে ক্রয়-বিক্রয় করতে পারে সেজন্য ইসলাম আরও কতিপয় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। সেগুলো হচ্ছে: ১. সুদ নিষিদ্ধ করা; ২. জুয়া নিষিদ্ধ করা; ৩. সকল প্রকার মুততার বা জরুরী প্রয়োজনের সুযোগ চড়া দাম হাঁকা ইত্যাদি।[সিদ্দিকী, এম, এন, পূর্বোল্লেখিত, পৃ: ৩২।]

বিনিময়ের বিধান

ইয়াদান বিইয়াদিন (হাত থেকে হাতে/eciprocal exchange): ইয়াদান বিইয়াদিন শর্তের বিষয়ে ইতোপূর্বে আলোচনা করা হয়েছে। সেখানে বিশেষজ্ঞদের আলোচনার ভিত্তিতে দেখানো হয়েছে যে, ইয়াদান বিইয়াদিন দ্বারা কেবল তাৎক্ষণিক নগদ হস্তান্তর বুঝায় না; বরং এর দ্বারা উভয় পণ্যের পারস্পরিক হস্তান্তর নিশ্চিত করা এবং বাস্তব হস্তান্তর করা বুঝায়। বড় কথা হচ্ছে, বাস্তব হস্তান্তর ছাড়া অন্য সবগুলো কাজ করতে হয় ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদনের পর যা সঙ্গে সঙ্গে তাৎক্ষণিকও করা যেতে পারে অথবা শর্ত অনুসারে পরবতী কোন সময়েও করা যেতে পারে। ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদনকালে যদি কোন একটি বা উভয় পণ্য অনুপস্থিত থাকে, তাহলে নমুনা বা স্পেসিফিকেশনের মাধ্যমে পণ্যের নাম, পরিচিতি, গুণ-মান, পরিমাণ, দাম হস্তান্তরের নিশ্চয়তা, (security, guarantee ইত্যাদি), হস্তান্তরের স্থান, সময় ইত্যাদি নিশ্চিত করে নিতে হবে। অতঃপর যথাসময়ে পণ্যের বাস্তব হস্তান্তর সম্পন্ন করতে হবে।

বাই-এর আওতা ও পরিধি

হানাফী স্কুলের প্রখ্যাত ফক্বীহ ইমাম আল-সারাখসী বাইকে ব্যাপক অর্থবোধক শব্দ বলে উল্লেখ করেছেন এবং এর সংজ্ঞা দিয়ে তিনি লিখেছেন, "Permitted sale (bay halal) is the exchange of wealth having a value with wealth also having a value" [সারাখসী, পূর্বোল্লেখিত।] “অনুমোদিত বা হালাল ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে, মূল্য আছে এমন সম্পদের সাথে মূল্য আছে এমন সম্পদ বিনিময় করা”। এই অর্থে ফিক্বহবিদগণ ইজারাহকেও বাই বলেছেন। কারণ ইজারহয় বেনিফিট বিক্রয় করা হয়। এমনকি, তাঁরা সকল প্রকার ঋণ ও দেনার লেনদেনকেও ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে শামিল বলে গণ্য করেছেন।

সম্প্রতি ইমরান আহসান খান লিখেছেন, "Any transaction between two people that is an exchange of two counter-values is bay." "This meaning is not restricted to customary sale, but includes all that is included in this definition, and among these is debt whatever is its source, sale or loan."[নিয়াজী, ইমরান আহসান খান, পূর্বোল্লেখিত, পৃ: ৫] “দুই ব্যক্তির মধ্যে যে কোন বিনিময় তথা দু’টি প্রতিমূল্যের পারস্পরিক বিনিময়ই হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়”। “ক্রয়-বিক্রয়ের এই অর্থ কেবল প্রথাগত ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়; বরং উক্ত সংজ্ঞার আওতায় পড়ে এমন সকল লেনদেনই ক্রয়-বিক্রয়ের শামিল; এমনকি, দায়ও, দায়ের উৎস যাই হোক, তা ক্রয়-বিক্রয় থেকে সৃষ্টি হোক অথবা ঋণ থেকে উদ্ধূত হোক”।

“আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয়কে হালাল করেছেন, আর রিবাকে করেছেন হারাম” –এই আয়াতের উদ্ধৃতি দিয়ে হাশিম কামালি লিখেছেন যে, আয়াতে ব্যবহৃত ‘বাই’ শব্দটি হচ্ছে এক বচনে বিশেষ্য পদ, আর এর পূর্বে যুক্ত করা হয়েছে আল (আলিফ লাম); ফলে এখানে বাই-এর অর্থ হয়েছে সাধারণ বা আম। এর দ্বারা সকল প্রকার বাইকে বুঝানো হয়েছে। সুতরাং সকল বাই-ই বৈধ। ইউসুফ আল-কারদাভীর উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেছেন, আল-কুরআনের সাধারণ বিধানের মধ্যে সকল প্রকার বাই যেমন, এক পণ্যের বিনিময়ে আর এক পণ্য বিক্রয় (বার্টার), এক মুদ্রার বদলে অন্য মুদ্রা বিক্রয় (আল-সরফ), অর্থের বিনিময়ে পণ্য-সামগ্রী বিক্রয় (নগদ বিক্রয়), অগ্রিম বিক্রয় (সালাম), খরচ দামে বিক্রয় (আল-তাওয়ালিয়া)হ, লাভে বিক্রয় (মুরাবাহা), লোকসানে বিক্রয় (আল-ওয়াদিয়াহ), মোক্তাদামে বিক্রয় (মুসাওয়ামাহ) এবং নিলামে বিক্রয় (আল-মুযাইয়াদাহ) সবই শামিল রয়েছে। এসবই বৈধ, এমনকি ফিউচারস ও অপশন্স ক্রয়-বিক্রয় যদি সুদ ও গারারমুক্ত হয়, তাহলে তাও বৈধ। তাছাড়া, সুন্নাহ দ্বারা সুনির্দিষ্টভাবে নিষিদ্ধ করা হয় নাই এমন সকল বাই-ই বৈধ।[কামালি, মোহাম্মদ হাশিম, পূর্বোল্লেখিত, পৃ: ১৪৩।]

মুনাফা বা লাভ

উপরের আলোচনা থেকে জানা গেল যে, বাই বা ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ক্রেতা কর্তৃক বিক্রেতার এবং বিক্রেতা কর্তৃক ক্রেতার ক্ষতিপূরণ করা যাতে কারও অর্থনৈতিক অবস্থার পরিবর্তন না হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, তাহলে মুনাফা বা লাভ কি এবং তা কিভাবে হয়?

মুনাফা অর্থ ও সংজ্ঞাঃ আল-কুরআনে লাভকে বলা হয়েছে ‘রিবহুন’ (২:১৬) কোন কোন স্থানে আবার লাভকে বলা হয়েছে ‘নাফা’। (৮৭:৯) শব্দ দুটির অর্থ হচ্ছে প্রবৃদ্ধি, উদ্বৃত্ত, অবশিষ্টাংশ, বাড়তি অংশ ইত্যাদি। পারিভাষিক অর্থে লাভ হচ্ছে পূজিঁর বর্ধিতাংশ; আর এর বিপরীতে লোকসান হচ্ছে পুজিঁর ক্ষয়-প্রাপ্ত অংশ। ক্লাসিক্যাল অর্থনীতিবিদ রিকার্ডোর মতে লাভ হচ্ছে, "the return to capital and its organization in production."[David Ricardo: Works and Correspondence, Vol. 4, p. 4.] “মুনাফা হচ্ছে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় নিয়োজিত পুঁজি ও সংগঠনের আয় (return)”। Exploitation তত্ত্ব অনুসারে লাভ হচ্ছে, "residue after deducting the rental interest.[ Marks, K.: Theories of Surplus Value, Vol. 1, p. 48-49.] “মোট আয় থেকে চুক্তিবদ্ধ দায় মিটানোর পর যা থাকে সেই অবশিষ্টাংশ হচ্ছে লাভ”। Sraffa-এর মতে লাভ হচ্ছে, "Surplus value".[. Sraffa: Production of Commodities by Means of Commodities, Cambridge University Press, 1960, p. 3-5.] “মুনাফা হচ্ছে উদ্বৃত্ত মূল্য”। ফিক্বাহবিদদের মতে লাভ হচ্ছে পুজির প্রবৃদ্ধি বা বৃদ্ধি যা ব্যবসার মাধ্যমে হয়ে থাকে। ইবনে আরাবী বলেছেন, “লাভ হচ্ছে কোন সেবা বা পণ্যের বিক্রয় মূল্য ও ক্রয় মূল্যের ব্যবধান”।নূর,ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭১।] সুতরাং লাভ হচ্ছে, "increase of value of assets actually realized in exchange. It is an incremental value accrued to the original capital or additional value of the initial capital."[ইবিদ, পৃ: ৭১।] “ক্রয়-বিক্রয়ের মাধ্যমে বাস্তবেও প্রাপ্ত সম্পদের বর্ধিত মূল্য। এটা হচ্ছে মূল পুজিঁ থেকে উদ্ভূত বর্ধিত মূল্য অথবা প্রারম্ভিক পুজিঁর অতিরিক্ত মূল্য”।

মুনাফার উৎস উৎপাদনঃ অর্থনীতিতে মুনাফার অনেক কারণ বর্ণনা করা হয়েছে। কেই বলেছেন, মুনাফা হচ্ছে উদ্যেগ ও ঝুকিঁ গ্রহণের পারিতোষিক। কেউ বলেছেন লাভ হচ্ছে বিনিয়োগ ও পরিশ্রম করার পুরস্কার। আসলে মুনাফা আসে উৎপাদন থেকে। মানুষ উৎপাদন করে, উৎপাদিত সম্পদ বিক্রি করে লাভ পায়। উৎপাদন হচ্ছে সম্পদ বৃদ্ধি ও মুনাফা অর্জনের একমাত্র পথ।

উৎপাদন কাকে বলেঃ উৎপাদন করা মানে হচ্ছে সৃষ্টি করা। But man cannot create anything and man cannot destroy anything. What man can create? Man can create utility only. “কিন্তু মানুষ কিছু সৃষ্টি করতে পারে না, কিছু ধ্বংস করার ক্ষমতাও মানুষের নেই। মানুষ যা পারে তা হচ্ছে, মানুষ কেবল উপযোগ সৃষ্টি করতে পারে”। সুতরাং "Producing means putting utility into" (fraser) and thereby adding value. “উৎপাদন মানে উপযোগ সৃষ্টি-সংযোজন করা” (ফ্রেশার) এবং মাধ্যমে মূল্য সংযোজন করা। আর এই সৃষ্ট উপযোগ থেকে প্রাপ্ত মূল্যই হচ্ছে মুনাফা। উপযোগ বিভিন্ন পন্হায় সৃষ্টি করা যায়।

উপযোগ সৃষ্টি বা উৎপাদনের পন্হাঃ উপযোগ সৃষ্টি বা উৎপাদন তিনভাবে করা যায়ঃ

. আকৃতি ও রূপ পরিবর্তন করেঃ বস্তুর আকার-আকৃতি পরিবর্তন করে উপযোগ সৃষ্টি বা সংযোজন করা যায়। মানুষ গাছ সৃষ্টি করতে পারে না; কিন্তু বিনিয়োগ করে গাছ কিনে কাঠ বানিয়ে টেবিল তৈরী করতে পারে। মনে করা যাক, গাছ খরিদ বাবদ ২,০০০/- এবং অন্যান্য খরচ বাবদ ১,০০০/- মোট ৩,০০০/- টাকা খরচ হলো। এটাই হলো মোট বিনিয়োগ। যদি উক্ত টেবিল ৫,০০০/- টাকায় বিক্রি হয়, তাহলে অতিরিক্ত ২,০০০/- টাকা পাওয়া গেল গাছের উপযোগের চেয়ে টেবিলের উপযোগ বেশি হওয়ার কারণে। এটাই হচ্ছে মুনাফা যা উৎপাদন বা সংযোজিত/বর্ধিত উপযোগের দাম।

. সময় বা কাল পরিবর্তন করেঃ সময় পরিবর্তনের মাধ্যমে উপযোগ সৃষ্টি/বৃদ্ধিকরা যায়। যেমন, মওসুমের সময় প্রতি কেজি গোল আলুর দাম হয় ৫.০০ টাকা। এ সময়ে বিনিয়োগকারী যদি অর্থ বিনিয়োগ করে আলু ক্রয় ও কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষণ করে এবং অমওসুমে এই আলু বাজারজাত করে, তাহলে দেখা যায় গ্রাহকরা প্রতি কেজি ৪০.০০ টাকা দরে আলু ক্রয় করছে। অর্থাৎ সময়ের ব্যবধানে গোল আলুর উপযোগ বেড়ে গেছে। এটাই হচ্ছে উৎপাদন। ধরা যাক, আলু ক্রয় সংরক্ষণ ও অন্যান্য যাবতীয় ব্যয় বাবদ বিনিয়োগকারীর কেজি প্রতি ৩৫.০০ টাকা খরচ হয়েছে। ফলে সে প্রতি কেজিতে ৫.০০ টাকা বেশি পাচ্ছে সংযোজিত উপযোগের দাম হিসেবে। এটাই তার লাভ- সৃষ্ট উপযোগ তথা উৎপাদনের মূল্য।

. স্থান পরিবর্তন করেঃ স্থান পরিবর্তনের মাধ্যমেও উপযোগ সৃষ্টি বা বৃদ্ধি করা যায়। যেমন, মালয়েশিয়াতে খুব উন্নত মানের সিমেন্ট পাওয়া যায়। কোন ব্যবসায়ী বিনিয়োগ করে উক্ত সিমেন্ট আমদানি করলে এদেশের সিমেন্ট ব্যবহারকারীদের কাছে এর উপযোগ সৃষ্টি হয়। ধরা যাক, তারা প্রতি বস্তা সিমেন্ট ৫৫০/- টাকায় বিক্রি করলো; অপরদিকে বিনিয়োগকারীর প্রতি বস্তায় খরচ হয়েছে ৫০০/-। দেখা যাচ্ছে যে, প্রতি বস্তায় ৫০/- টাকা বেশি। এটাই বিনিয়োগকারীর মুনাফা; বিনিয়োগের মাধ্যমে সৃষ্ট/বর্ধিত উপযোগের দাম। দেখা যাচ্ছে পদ্ধতি যেটাই হোক উৎপাদন করতে হলে দরকার বিয়োগ।

বিনিয়োগ কাকে বলে

বিনিয়োগ হচ্ছে, উৎপাদন করার উদ্দেশ্যে কোন পণ্য-সামগ্রী, অর্থ বা সেবা ক্রয় করা; অতঃপর উৎপাদিত সম্পদ বিক্রি করে লাভ করা। অন্য কথায়, বিনিয়োগ মানে হচ্ছে অর্থ বা পুজিকেঁ ভিন্নতর অর্থ, পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করা। অর্থ বা পুজিঁ যতক্ষণ তার নিজস্ব রূরে থাকে ততক্ষণ এতে কোন হ্রাস-বৃদ্ধি হয় না- তা সম্ভব নয়। কিন্তু এর দ্বারা ভিন্নতর কিছু ক্রয় করলে ক্রীত পণ্য, অর্থ বা সেবার উপযোগ বৃদ্ধি পেতে পারে। আর উপযোগ বৃদ্ধি বা উৎপাদন করার উদ্দেশ্যে কিছু ক্রয় করাই হচ্ছে বিনিয়োগ। কৃষক, শ্রমিক, শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীগণ বিনিয়োগ ও বর্ধিত উৎপাদনের মাধ্যমে মুনাফা অর্জন করে থাকে। কৃষক তার অর্থ (পুজিঁ) ব্যয় করে বীজ, সার, লাঙ্গল, শ্রম ক্রয় করে, জমি কর্ষণ করে এবং বীজ বজন করে। এতে তার অর্থ এসব পণ্য ও সেবায় রূপান্তরিত হয়ে যায়; অতঃপর তা আবার রূপান্তরিত হয়ে হয় ফসল। মনে করা যাক, কৃষক বিনিয়োগ বাবদ মোট ৫,০০০/- টাকা ব্যয় করেছে; আর এ থেকে ধান পেয়েছে মোট ১৫ মন। অর্থাৎ ৫,০০০/- টাকা ১৫ মন ধানে রূপান্তরিত হয়েছে। এখানে বিনিয়োগকৃত অর্থ ও উৎপাদিত ধানের জাত ভিন্ন ভিন্ন হওয়ার কারণে এর কোনটি বেশি, কোনটি কম তথা এত লাভ হয়েছে না লোকসান, তা নিরূপন করা সম্ভব নয়। সেজন্য উৎপাদিত ধান বিক্রি কর মূল পুজিঁ অর্থাৎ টাকায় ফিরিয়ে আনা হলে উভয় টাকার পরিমাণের পার্থক্য দ্বারাই জানা যাবে লাভ হয়েছে না লোকসান, নাকি আসল আসল আছে।

এমনিভাবে শিল্পপতি প্রথমে ব্যবসায়ী, সেবা কারবারী, মুদ্রা ব্যবসায়ী তথা সকল বিনিয়োগকারীকেই তাদের পুজিঁকে ভিন্নতর অর্থ, পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করতে এবং সর্বশেষ পর্যায়ে আবার একে প্রথম বিনিয়োজিত পুজিঁর আকারে ফিরিয়ে আনতে হয়। এভাবেই লাভ ক্ষতি বের হয়। এই গোটা প্রক্রিয়াকে ইংরেজীতে নিম্নরূপে প্রকাশ করা হয়েছেঃ

'Investment means transformation of money/capital into another kind of money or goods and again transformation of that money/goods into original money. The difference between the quantity/amount of the last money received and the 1st money spent is the profit/loss.'

“বিনিয়োগ মানে হচ্ছে কোন মুদ্রা/পুজিকেঁ ভিন্নতর কোন মুদ্রা/পণ্যে রূপান্তর করা এবং পরবর্তীতে সেই মুদ্রা বা পণ্যকে মূল মূদ্রা/পুজিতেঁ ফিরিয়ে আনা। এভাবে সর্বশেষে প্রাপ্ত মুদ্রা/পুজিঁ এবং সর্বপ্রথম বিনিয়োজিত মুদ্রা/পুজিঁর পরিমাণের পার্থক্যই হচ্ছে মুনাফা/লোকসান”। সুতরাং “The aspect that matters is the conversion of, for example $1000.00, into an asset, in which that $1000.00 asset may be worth more or less in the future, a condition that will lead to a profit or loss.” [আহমদ, আবূ উমর ও হাসান, এম, কবীর: The Time Value of Money Concept in Islamic Finance, in the American Journal of Islamic Social Science, 23:1, p. 85.] “আসল বিষয় হচ্ছে, রূপান্তর, এটি এমন একটি শর্ত যা লাভ অথবা লোকসান বয়ে আনে। উদাহরণস্বরূপ, ১০০০/- মার্কিন ডলারকে ভিন্ন কোন সম্পদে রূপান্তর করা হলে ভবিষ্যতে এই সম্পদের মূল্য মার্কিন ডলারের অংকে বেশি হতে পারে বা কম হতে পারে”। "Islamic injunctions have clearly shown that the transformation process of objects and trading of goods one for another is itself the objective matter and it is considered as a necessary condition for seeking profit."[নূর, ই, এম, পূর্বোল্লেখিত, পৃ: ১৫৯।] “ইসলামী বিধানে সুস্পষ্টভাবে দেখানো হয়েছে যে, বস্তুসমূহের রূপন্তর প্রক্রিয়া এবং এক পণ্য বা সেবাকে ভিন্নজাতের মুনাফা অর্জনের জন্য অত্যাবশ্যকীয় শর্ত হিসেবে বিবেচিত”।

উদ্যোক্তা বিনিয়োগকারীগণ তাদের বিনিয়োগ ব্যয়ের সাথে উক্ত সংযোজিত মূল্য যোগ করে দাম ধার্য করে পণ্যটি বাজারজাত করে এই মূল্যটা পেতে চায়। ড. সিদ্দিকীর ভাষায়, "Trade facilitates exchanges, exchange creates value. Traders try to capture part of value so created."[সিদ্দিকী, এম, এন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৫।] “ব্যবসা বিনিময়ের সুযোগ করে দেয়, আর বিনিময় মূল্য সৃষ্টি/সংযোজন করে। ব্যবসায়ী এভাবে সৃষ্ট/সংযোজিত মূল্যের অংশ পাওয়ার জন্য চেষ্টা করে”।

সুতরাং উৎপাদন বা উপযোগ সৃষ্টি করা কেবল বিনিয়েগের মাধ্যমেই সম্ভব। আর বিনিয়োগের মাধ্যমে সৃষ্ট/সংযোজিত উপযোগই হচ্ছে মুনাফার উৎস। বস্তুতঃ বর্ধিত উপযোগের মূল্য বা counter value হচ্ছে মুনাফা। সুতরাং মুনাফার কাউন্টার ভ্যালু হচ্ছে বিনিয়োগের মাধ্যমে সৃষ্ট/সংযোজিত/বর্ধিত উপযোগ। মুনাফা দামের অংশ এবং দামের ভেতরেই থাকে।

বিনিয়োগের বৈশিষ্ট্যঃ উপরের আলোচনায় পরিষ্কার হয়েছে যে, রূপান্তর এবং পুনঃরূপান্তর হচ্ছে বিনিয়োগের অপরিহার্য প্রক্রিয়া। এতে পুজিঁ বৃদ্ধি পেয়ে ফিরে আসতে পারে আবার তা হ্রাস পাওয়াও অসম্ভব নয়; এমনকি, সম্পূর্ণ পুজিঁ খোয়া যাবার আশংকাও রয়েছে। সুতরাং লোকসানের ঝুকিঁ গ্রহণ ব্যতীত বিনিয়োগ সম্ভব নয়। এক কথায় লাভ-লোকসান উভয়টাই বিনিয়োগের স্বাভাবিক পরিণতি”। এজন্যেই হাদীসে বলা হয়েছে, “আল-খারাজু বিযযামান”- মুনাফা ঝুকিঁর সাথে সম্পৃক্ত। সুতরাং বিনিয়োগ কখনও ঝুকিঁমুক্ত হয় না এবং বিনিয়োগ ফেরতের কোন গ্যারান্টি নেই। কেউ যদি ফেরতের গ্যারান্টি দেয়, তাহলে তা বিনিয়োগ নয়, ঋণে পরিণত হবে। আর তার ওপর মুনাফা সুদ হবে।

লোকসান হয় কেনঃ মুনাফা হচ্ছে বিনিয়োগের মাধ্যমে সৃষ্ট বা সংযোজিত উপযোগের দাম। এ অবস্থায় মুনাফা তো নিশ্চিত হওয়ারই কথা। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, কখনও কখনও বিনিয়োগকারী তার সৃষ্ট বা সংযোজিত উপযোগের মূল্য পায় না; বরং লোকসানের মাধ্যমে তার মূল পুজিঁও খোয়া যায়। প্রশ্ন হচ্ছে, মূল্য সংযোজন করা সত্ত্বেও লোকসান হয় কেন? এই প্রশ্নের সহজ উত্তর হচ্ছে, দুনিয়ায় কোন পণ্যেরই দাম নির্ধারণ করা নেই; বস্তুতঃ কোন পণ্যের দাম মানে সেই পণ্যের উপযোগের দাম। আর স্থান,কাল ও পাত্র ভেদে একই পণ্যের উপযোগ ভিন্ন ভিন্ন হয়। Utility differs from person to person, time to time and place to place. বিনিয়োগকারী পণ্য উৎপাদন করে তার খরচ মূল্যের সাথে সংযোজিত উপযোগের মূল্য যোগ করে বাজারজাত করে। এতে স্থান, কাল ও পাত্র সবই ভিন্নতর হয়; এতে উপযোগের হ্রাস-বৃদ্ধি হওয়া অস্বাভাবিক নয়। ক্রেতাদের কাছে উপযোগ বেড়ে গেলে আশাতীত লাভ যেমন হতে পারে, তেমনি আবার উপযোগ হ্রাস পেলে লোকসানও হতে পারে। লাভ ও লোকসানের আসল কারণ এখানেই। তবে কখনও কখনও উৎপাদন ব্যয় নিয়ন্ত্রণে বিনিয়োগকারীর বর্থ্যতার দরুনও লোকসান হতে পারে।

মুনাফার বৈশিষ্ট্য

. মুনাফা সংযোজিত মূল্যের বিনিময়ঃ উপরের আলোচনায় স্পষ্ট হয়েছে যে, বিনিয়োগের মাধ্যমে সৃষ্ট/সংযোজিত উপযোগের মূল্যই হচ্ছে মুনাফা যা মোট মূল্যের মধ্যেই থাকে।

. মুনাফা হচ্ছে বিক্রয় মূল্য ও ক্রয় মূল্যের পার্থক্যঃ "The margin between the price they paid and the price they charge, the difference between the sale price and the purchase price is called profit. The same is described as the difference between total revenue (TR) and total cost (TC), in order to cover things made/prepared by the seller as in the handicraft and manufacture. A peasant selling agricultural products grown on his own land can also be covered by the same, and so on."[ইবিদ, পৃ: ৪৫।] “তাদের প্রদত্ত দাম ও ধার্যকৃত দামের ব্যবধান তথা বিক্রয় মূল্য এবং ক্রয় মূল্যের পার্থক্যকে বলা হয় মুনাফা। (অর্থনীতিতে) এক মোট আয়ের (TR) সাথে মোট ব্যয়ের (TC) ব্যবধান হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। কোন পণ্য বিক্রি করে বিক্রেতার মোট যে আয় (TR) হয়, আর পণ্যটি তৈরী/প্রস্তুত করতে সে যা ব্যয় করে (TC), যেমন কৃষক যে তার নিজ জমিতে উৎপাদিত ফসল বিক্রি করে তার বেলায় এবং অন্যান্য সকল ক্ষেত্রে এই একইভাবে মুনাফা অর্জিত হয়”।

পাশ্চাত্য অর্থনীতির মতে ভূমি, শ্রম, মূলধন ও সংগঠন উৎপাদনের এই চারটি উপাদানের সমন্বয়ে উৎপাদন করার পর উৎপাদিত পণ্য বা সেবা বিক্রয় করে প্রাপ্ত মোট আয় Total Revenue (TR) হতে ভূমিকে দেওয়া হয় পূর্ব নির্ধারিত ভাড়া, শ্রমকে দেওয় হয় পূর্ব নির্ধারিত মজুরী আর ধারকৃত মূলধনের জন্য দেওয়া হয় পূর্ব নির্ধারিত ভাড়া, শ্রমকে দেওয়া হয় পূর্ব নির্ধারিত মজুরী আর ধারকৃত মূলধনের জন্য দেওয়া হয় পূর্ব নির্ধারিত সুদ; চুক্তিবদ্ধ এসব দেনাকে বলা হয় Total Cost (TC). এই TC পরিশোধ করার পর যা অবশিষ্ট থাকে তাকে বলা হয় মুনাফা যা সংগঠন পেয়ে থাকে। সুতরাং মুনাফা হচ্ছে অবশিষ্টাংশ বা TR-TC=Profit. কিন্তু ইসলাম সুদ নিষিদ্ধ। ইসলামী অর্থনীতিতে তাই পুজিঁর জন্য সুদ দিতে হয় না; বরং ভূমি ও শ্রমের পাওনা পরিশোধ করার পর যা অবশিষ্ট থাকে পুজিঁর মালিক ও উদ্যোক্তা চুক্তি অনুসারে তা ভাগ করে নেয়। সুতরাং ইসলামী অর্থনীতিতেও মুনাফা হচ্ছে অবশিষ্টাংশ তবে ভিন্নতর অর্থে।

. মুনাফা ঝুঁকিপূর্নঃ এ কথা মেনে নেয়া ছাড়া উপায় নেই যে, সকল প্রচেষ্টা সত্ত্বেও কোন কারণে বাজারে চাহিদা হ্রাস পাওয়ার অথবা যোগান বেশি হওয়ার কারলে পণ্যের বাজার পড়ে গেলে বিনিয়োগকারী তার নির্ধারিত দামের চেয়ে কম দামে পণ্য বিক্রি করতে বাধ্য হয় এবং তাকে লোকসান দিতে হয়। অপরদিকে, কোন কারণে যদি পণ্যটির দাম বৃদ্ধি পায় এবং তাকে লোকসান দিতে হয়। অপরদিকে, কোন করণে যদি পণ্যটির দাম বৃদ্ধি পায় এবং বাজার দর উঠে যায় তাহলে বিনিয়োগকারী তার আশার চেয়েও বেশি লাভ পেয়ে যায়। ড. সিদ্দিকী বলেছেন, "Sometimes the difference between the sale price and the purchase price i.e., that between revenue and cost is negative. In that case it is called loss. Trade is subject to profits as well as losses. No language has different words for loss making trade and profit making trade. It is the nature of this activity to be subject to occasional losses.”[সিদ্দিকী, এম, এন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৫।] “কখনও কখনও বিক্রয়মূল্য ও ক্রয়মূল্যের পার্থক্য তথা মোট আয় ও মোট ব্যয়ের পার্থক্য ঋণাত্মক হয়; এক বলা হয় লোকসান। ব্যবসা লাভ-লোকসান সাপেক্ষ। কোন ভাষাতেই লোকসানী কারবার ও মুনাফাজনক কারবারের জন্য আলাদা আলাদা কোন শব্দ/পরিভাষা নেই। এটাই হচ্ছে ব্যবসার প্রকৃতি, স্বভাবধর্ম ও বৈশিষ্ট্য যে, কখনও ক্খনও এতে লোকসানও হতে পারে”।

. মুনাফা বাজারের দানঃ লাভ-লোকসানের বিষয়টি আসলে বাজারের ওপরই নির্ভরশীল। এজন্যই ব্যবসায়ে ঝুঁকি বহনের প্রশ্ন আসে। অন্যথায় বিনিয়োগ করা, বিনিয়োগে মেধা ও শ্রম খাটানো, উপযোগ সৃষ্টি করা ও মূল্য সংযোজনের বিনিময় হিসেবে মুনাফা তো নিশ্চিত হবারই কথা। সুতরাং চূড়ান্তভাবে লাভ ও লোকসান হচ্ছে বাজারের দান বা Gift of market or Result of market। আল-কুরআনের পরিভাষায় একেই বলা হয়েছে আল্লাহর অনুগ্রহ বা ফদল।

. মুনাফা পূর্বনির্ধারিত হয় নাঃ "Profit is residual, a surplus determined post facto and could very well be negative."[ইবিদ, পৃ: ৬৩।] মুনাফা হচ্ছে উদ্বৃত্তাংশ, এমন একটি উদ্বৃত্ত যা কেবল ঘটনা শেষেই নিরূপণ করা সম্ভব এবং তা ঋণাত্মক হওয়াও স্বভাবিক”। মুনাফ কখনও ইতিবাচক, কখনও নেতিবাচক হতে পারে। সুতরাং লাভ কখনও পূর্বনির্ধারিত (Predetermined) হয় না। অর্থাৎ পূর্বাহ্নেই চুক্তির মাধ্যমে মুনাফার পরিমাণ বা হার নির্ধারণ করা যায় না।

. মুনাফা প্রতিমূল্যের অন্তর্ভূক্তঃ আলোচনায় দেখা গেল যে, মুনাফা বা লাভ হচ্ছে বিনিয়োগকারী কর্তৃক সংযোজিত উপযোগ, মূল্য এবং ঝুঁকির দাম যা বাজার উপাদানের ওপর নির্ভরশীল। বাজার ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে দর কষাকষির দ্বারা পণ্য-সামগ্রীর যে দাম নির্ধারিত হয়, মুনাফা বা লোকসান তার অন্তর্ভূক্ত, দাম বহির্ভূত বা অতিরিক্ত কিছু নয়।

. মুনাফা বিনিময়হীন নয়ঃ মুনাফা মুল্যের (counter-value) একটা অংশ বা উপাদান যার বিনিময় হচ্ছে সংযোজিত উপযোগ। আল্লামা মাওদুদী, এ ব্যাপারে বলেছেন, “ব্যবসায় ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে সমান সমান মূল্যের বিনিময় হয়। ক্রেতা বক্রেতার কাছ থেকে পণ্য ক্রয় করে মুনাফা অর্জন করে। অন্যদিকে বিক্রেতা যে বুদ্ধি, শ্রম ও মেধা ব্যয় করে ক্রেতার জন্য পণ্যটি জোগাড় বা উৎপাদন করে সে তারই মূল্য গ্রহণ করে”।[মওদূদী, সাইয়েদ আবূল আ’লা: তাফহীমুল কুরআন, বাংলা অনুবাদ, মুহাম্মদ, আব্দুর রহীম, ১ম জেলদ, আধুনিক প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৮৫, সূরা আল-বাকারাহ্, টীকা-৩১৮ক।] এ প্রসঙ্গে ড. নাজাতুল্লাহ সিদ্দিকী বলেছেন, “মুনাফা সুদের ন্যায় কোন অতিরিক্ত (excess) নয়। ক্রয়-বিক্রয়ে উভয় পক্ষেই তাদের নিজ নিজ স্বাধীন পর্যবেক্ষণ, বুঝ ও উপলব্ধি অনুসারে সুনির্দিষ্ট উপকার (advantage) পেয়ে লাভবান হয়। "In other words, there is always a counter valueto profit in trade whereas there is no counter value to interest."[৬৯] “অন্য কথায়, কারবারে অর্জিত মুনাফার প্রতিমূল্য সর্বদাই আছে, কিন্তু সুদের কোন প্রতিমূল্য নেই”।

উপরের আলোচনার সার কথা হলো, ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে দুটি কাউন্টার ভ্যালুর বিনিময়; যার মধ্যে লাভ-লোকসানও অবশ্যই অন্তর্ভূক্ত থাকে। লাভ উৎপাদন খরচ বা ক্রয়-মূল্যের সাথে সংযোজিত মূল্য এবং counter-value- এর অংশ। কিন্তু কোন অবস্থাতে তা কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে ধার্যকৃত অতিরিক্ত (excess) ও কাউন্টার ভ্যালুহীন (without counter-value) নয়।

মুনাফার সীমা

পাশ্চাত্য অর্থনীতিতে সর্বোচ্চ মুনাফা অর্জনকে (Profit maximization) অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের ভিত্তি গণ্য করা হয়। এই অর্থনীতিতে বলা হয়েছে যে, কোন ফার্মের প্রান্তিক আয় (MR) যোখানে এর প্রান্তিক ব্যয়ের (MC) সমান হয় সেখানে ফার্মের মুনাফা সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছে। এইা মুনাফা অর্জনই হচ্ছে উদ্যোক্তার লক্ষ্য।

কিন্তু এ বিষয়ে ইসলামী অর্থনীতিবিদদের মধ্যে বিতর্ক আছে। কেউ কেউ বলেছেন পুীজিঁবাদী অর্থনীতি হচ্ছে মূল্যবোধ নিরপেক্ষ (secular/positive)। এ অর্থনীতিতে মানুষকে মনে করা হয় ‘পূর্ণ’ স্বাধীন ‌‌র‌্যাশনাল ইকোনমিক ম্যান’। সেখানে মনোপলি, কার্টেল ইত্যাদি সৃষ্টির মাধ্যমে ভোক্তাদের শোষ করে অস্বাভাবিক মুনাফা লুটে নেওয়া হয়। কিন্তু ইসলামী অর্থনীতি ইসলামী মূল্যবোধের ওপর ভিত্তিশীল। এখানে মানুষ হচ্ছে ‘ইসলামিক র‌্যাশনাল ম্যান’। তাঁদের মতে মুনাফা সর্বোচ্চকরণ- পুজিঁবাদী এই দর্শনের স্থান ইসলামী অর্থনীতিতে নেই। সুতরাং ইসলামী অর্থনীতিতে মুনাফার সীমা নির্ধারিত থাকা উচিত। তাদের মতে, “এই সীমা মোট পুজিঁর ১০% বা ৩৩% এর অধিক হওয়া উচিত নয়। কিন্তু ইসলামী শরীয়াতে এই মতের পক্ষে কোন দলিল-প্রমাণ পাওয়া যায় না”।[নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ৭৬]

ইসলামী অর্থনীতিতে মুনাফার সীমা সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে ড, মান্নান বলেছেন যে, ইসলাম মুনাফার অনুমোদন দিয়েছে সীমাবদ্ধ অর্থে। সুতরাং ইসলামে মুনাফা হবে স্বাভাবিক (normal) মুনাফা যেখানে কোন নতুন ফার্মের জন্য কারবারে প্রবেশের প্রবণতা থাকেবে না; আবার পুরাতন কোন ফার্মও কারবার থেকে বেরিয়ে যাবে না।[Mannan, M. A. : Introduction of Islamic Economics, p. 168, উদ্ধৃত, নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ৭৮।] ড. নাজাতুল্লাহ সিদ্দিকী এক্ষেত্রে সন্তোষজনক (Satisfactory profiits) মুনাফার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন।তাঁর মতে, ইসলামী অর্থনীতিতে ইসলামের কোন বিধি-বিধান লংঘন না করে সর্বোচ্চ যে মুনাফা অর্জন করা সম্ভব সেটাই হবে মুনাফার উর্দ্ধতন সীমা। অপরদিকে উৎপাদনকারীর জন্য ভালভাবে জীবন যাপন এবং অতীত লোকসান পূরণের জন্য যথেষ্ট মুনাফাই হচ্ছে লাভের নিম্নসীমা। তাঁর মতে এই উর্ধ্বতন ও নিম্নতম সীমার মধ্যবতী যে কোন পরিমাণ মুনাফাই হচ্ছে ‘সন্তোষজনক মুনাফা’।[সিদ্দিকী, এম, এন, উদ্ধৃত, ইবিদ।] কিন্তু বেশ কিছু সংখ্যক অর্থনীতিবিদ মুনাফার এসব ধারণাকে আত্মকেন্দ্রিক (subjective) ও অস্পষ্ট বলে সমালোচনা করেছেন।

মুনাফার সীমা সম্পর্কে ড. আরীফের অভিমত হচ্ছে, MR=MC নয়, বরং কোন ফার্মের AR (বা গড় আয়) যেখানে AC- এর (বা গড় ব্যয়ের) সমান হবে ইসলামী অর্থনীতিতে সেটাই হবে ভারসাম্য বিন্দু এবং এই পর্যায়ে যে পরিমাণ মুনাফা পাওয়া যাবে একজন মুসলিম উদ্যোক্তার মুনাফা সেই পরিমাণেৱই হওয়া উচিত।[M. Ariff (ed), Monetary and Fiscal Economics of Islam, ICRIE, 1982, p. 8, উদ্ধৃত, ইবিদ, পৃ: ৭১।] এলমি নূরের মতে, সামাজিক বিচারে এসবই হচ্ছে সদিচ্ছা (good wishes); কিন্তু এর মৌলিক যুক্তি ও অর্থনৈতিক ব্যাখ্যা প্রশ্নাতীত নয়।তাঁর মতে, মুনাফা অর্জনের প্রচেষ্টাকে ভ্রাতৃত্বসুলভ, মানবিক বিবেচনা বা এহসান ও বদান্যতার সাথে গুলিয়ে ফেলা ঠিক নয়। কারণ ইহসান হচ্ছে ব্যবসায়িক কার্যাবলী ও প্রচেষ্টা থেকে আলাদা। আর ব্যবসায়িক কাজের উদ্দেশ্য হচ্ছে শরীয়তের সীমার মধ্যে থেকে অধিকতর মুনাফা অর্জন করা।[নূর, ই, এম, ইবিদ, পৃ: ৭৯।]

জেড, হাসানের উদ্ধৃতি দিয়ে জনাব নূর লিখেছেন যে, আপাতদৃষ্টিতে সর্বোচ্চ মুনাফা লাভের উদ্দেশ্যকে অর্থ-লিপ্সা এবং ইসলামী নৈতিক বিধানের সাথে সাংঘর্ষিক বলে মনে হয়; কিন্তু তার পরেও ইসলামী অর্থনীতিতে এ তত্ত্বের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তিনি দেখিয়েছেন, মুনাফা সর্বোচ্চকরণ ধারণার একটি সার্বজনীন বৈশিষ্ট্য আছে; সেজন্য মানুষের অর্থনৈতিক আচরণ বিশ্লেষণ এবং এ সম্পর্কে ভবিষ্যৎ ধারণা (presictive) করার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ মুনাফা তত্ত্বই যথার্থ তত্ত্ব বলে গণ্য হতে পারে। পরিবর্তনশীল (dynamic) অনিশ্চিত পরিস্থিতির মুকাবিলায় এই ধারণাই কোন ফার্মকে সৃজনশীল এ সম্প্রসারিত হতে প্রেরণা যোগায়।[ইবিদ, পৃ: ৭৯।]

বস্তুতঃ ইসলাম মুনাফার কোন সীমা নির্ধারণ করে দেয়নি। এমনকি, হাদীসে দেখা যায় যে, বিশেষ অবস্থায় প্রেক্ষিতে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) পণ্য-সামগ্রীর দাম বেঁধে দিতেও রাজী হননি; বরং তিনি দ্বার্থহীন ভাষায় বলেছেন যে, “দাম তো আল্লাহ নির্ধারণ করেন, সংকীর্ণতা ও প্রশস্ততা দানকারী একমাত্র তিনিই এবং তিনিই রিযিকদাতা”।[মিশকাত শরীফ, হাদীস নং ২৭৬৮, এমদাদিয়া লাইব্রেরী, ঢাকা, ২য় সংষ্করণ এবং তিরমিযী, আবূ দাঊদ, দারেমী।] এ ছাড়া উবাদা ইবনে সামিত বর্ণিত হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) “তোমরা যে কোন দামে বিক্রি করতে পার” বলে ক্রেতা-বিক্রেতা কর্তৃক নির্ধারিত যে কোন দামকেই বৈধ করে দিয়েছেন। এই বাণী দ্বারা তিনি বাজারে চাহিদা ও যোগানের দ্বারা নির্ধারিত দামের প্রতিই ইঙ্গিত করেছেন। আর এই পদ্ধতিতে নির্ধারিত দামে যখন যে পরিমাণ মুনাফা আসে সেই মুনাফাই হচ্ছে স্বাভাবিক ও অনুমোদিত মুনাফা। অন্য আর এক হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এ বিষয়ে আরও স্পষ্ট ইঙ্গিত দিয়েছেন। সেখানে বলা হয়েছে, “জাবির (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ কোন শহরবাসী যেন কোন পল্লীবাসীর পক্ষে কেনাবেচা না করে। লোকদের স্বাভাবিক অবস্থায় ছেড়ে দাও। আল্লাহ তা’য়ালা তাদের একের দ্বারা অপরের রিযিকের ব্যবস্থা করেন”।[মুসলিম, ৫ম খণ্ড, পৃ: ২৪৬, হাদীস নং ৩৬৮৪।]

এই হাদীস থেকে জানা যায় যে, কুরবানীর বকরী কিনতে গিয়ে এক সাহাবী (হাকিম বিন হিযাম রাঃ) শতকরা ১০০ ভাগ মুনাফা করেন; এর পরেও রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাঁর ব্যবসায় বরকত দেওয়ার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেছেন।[জামে আত-তিরমিযী, ২য় খণ্ড, পৃ: ৩৯২, হাদীস নং ১১৯৫, আবূ দাউদ; উদ্ধৃত, নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ৭৬।]

প্রকৃতপক্ষে ইসলাম সম্পদের ব্যক্তি মালিকানাকে অনুমোদন করেছে, ইসলামী মূল্যবোধের আওতায় উদ্যম-উদ্যোগের স্বাধীনতা দিয়েছে, মুনাফাকে আল্লাহর নেয়ামত বা অনুগ্রহ ঘোষণা করেছে, দামের (price) মাধ্যমে সম্পদ বরাদ্দ বন্টন ও বিনিময়ের ব্যবস্থা করেছে, বাজারে চাহিদা-যোগানকে স্বাভাবিক রাখার জন্য যথোপযুক্ত বিধি-বিধান দিয়েছে এবং সুদসহ সকল প্রকার জুলুমমূলক লেনদেন নিষিদ্ধ করে দিয়েছে। ইসলামের ইত্যাকার সীমার মধ্যে থেকে সর্বোচ্চ মুনাফা অর্জন করা হলে তা অবৈধ হওয়ার কোন কারণ নেই। তাছাড়া মুনাফাই হচ্ছে অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি, উৎপাদন, উন্নতি ও সুমৃদ্ধির আসল চাবিকাঠি। সুতরাং মুনাফার সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া ইসলামের কাম্য নয়। সর্বোপরি প্রত্যেক কারবার তথা বিনিয়োগে সর্বোচ্চ লাভের সম্ভাবনা যেমন আছে, তেমনি লোকসানের মাধ্যমে সাকল্য পুজিঁ খোয়া যাওয়ার আশংকাও রয়েছে। আর একথা সত্য যে, লোকসানের কোন সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া সম্ভব নয়। সুতরাং এর বিপরীতে লাভের কোন সীমা না থাকাটাই অধিক যুক্তিযুক্ত।

এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে যে, ন্যায় ও সুবিচার কায়েম করাই ইসলামের উদ্দেশ্য। সুতরাং কোন ব্যক্তি যাতে তার ন্যায্যা পাওনা থেকে বঞ্চিত না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে; সে জন্য ব্যবসা-বাণিজ্যের মূল ভিত্তি হতে হবে পারস্পরিক সহযোগিতা, পারস্পরিক কল্যাণ, সামষ্টিক স্বার্থ এবং ন্যায়সঙ্গত লেনদেন ও ক্রয়-বিক্রয়।

ক্রয়-বিক্রয়ের শ্রেণীবিন্যাস

স্কলারগণ বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি সামনে নিয়ে বিভিন্নভাবে ক্রয়-বিক্রয়ের শ্রেণী-বিন্যাস করেছেন। তবে স্বয়ং আল্লাহ এবং তাঁর রাসূল (সাঃ) ক্রয়-বিক্রয়ের শ্রেণী-বিন্যাস করার যে ইঙ্গিত দিয়েছেন আমাদের আলোচনার জন্য সেটিই সবচেয়ে প্রাসঙ্গিক এবং রিবা বুঝার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সূরাতুল বাকারাহর ২৮২ আয়াতে আল্লাহ তায়ালা যাবতীয় ক্রয়-বিক্রয়কে দুই ভাগে বিভক্ত করেছেনঃ সমজাতের পণ্য, অর্থ ও সেবা ক্রয়-বিক্রয় যেমন, সোনার বদলে সোনা ইত্যাদি এবং ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্য, অর্থ ও সেবা ক্রয়-বিক্রয় যেমন, সোনার বিনিময়ে রূপা, গমের বিনিময়ে খেজুর ইত্যাদি।

সুতরাং আল-কুরআর ও হাদীসের মর্ম অনুসারে সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয়কে নিম্নোল্লেখিত চার প্রকার শ্রেণীবদ্ধ করা যায়ঃ

). সমজাতের পণ্য, সেবা ও অর্থ নগদ ক্রয়-বিক্রয় (Spot transaction of goods, services or currencies of same kind or same species under same genus); যেমন, সোনার বদলে সোনা, টাকার বদলে টাকা, খেজুরের বদলে খেজুর ইত্যাদি।

). সমজাতের পণ্য, সেবা ও অর্থ বাকি ক্রয়-বিক্রয় (Deferred sale of goods, services or currencies of same kind or same species under same genus) যেমন, আজ সোনা দিয়ে এক মাস পর নেওয়া, আজ টাকা দিয়ে এক মাস পর টাকা নেওয়া, আজ খেজুর দিয়ে এক মাস পর খেজুর নেওয়া ইত্যাদি। এ ধরনের ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে আসলে ঋণ বা ধার; কারণ, ঋণ হচ্ছে কোন ফাঞ্জিবল পণ্য একই জাতের পণ্যের বিনিময়ে বাকিতে বিক্রয় করা।

). অসম জাতের পণ্য, সেবা ও অর্থ নগদ ক্রয়-বিক্রয় (Spot sale of dissimilar, different or heterogeneous kinds of goods, services or currencies); যেমন, সোনার বদলে রূপা, টাকার বদলে ডলার অথবা খেজুরের বদলে গম ইত্যাদি।

). অসম জাতের পণ্য, সেবা ও অর্থ বাকি ক্রয়-বিক্রয় (Deferred sale of dissimilar, differnt or hetergeneous kinds of goods, services or currencies); যেমন, আজ সোনা দিয়ে এক মাস পর রূপা নেওয়া, আজ টাকা দিয়ে এক মাস পর টেবিল নেওয়া, আজ টাকা দিয়ে এক মাস পর ডলার নেওয়া ইত্যাদি। এ ধরনের বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে যে কাউন্টার ভ্যালু প্রদান স্থগিত রাখা হয় তাকেই বলা হয় দাইন বা দেনা।

ক্রয়-বিক্রয় ও মুনাফার গুরুত্ব

) ক্রয়-বিক্রয় মানব সমাজের অস্তিত্বের জন্য অপরিহার্যঃ ক্রয়-বিক্রয় ও মুনাফা মানব সমাজের অস্তিত্বের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও অত্যাবশ্যকীয়। দুনিয়ায় মানুষের অভাব অসীম ও বহুমুখী। কিন্তু পৃথিবীতে কোন ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা জাতিই তার সকল অভাব পূরণ করার জন্য প্রয়োজনীয় যাবতীয় পণ্য-সামগ্রী ও সেবা একা নিজেই উৎপাদন করতে পারে না। এজন্য যে বহুমুখী যোগ্যতা-প্রতিভা, উপায়-উপকরণ ও পরিবেশ দরকার তাও এককভাবে কোন ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও জাতির আয়ত্তে নেই। এখানে প্রত্যেকে কেবল সেই পণ্য-সামগ্রী বা সেবা উৎপাদন করে যা উৎপাদন করায় তার সর্বাধিক যোগ্যতা-প্রতিভা রয়েছে, যার প্রতি তার ঝোঁক-প্রবণতা বেশি, যার উপায়-উপকরণ তার জন্য সহজলভ্য এবং পরিবেশ সবচেয়ে বেশি অনুকূল। এক কথায়, প্রত্যেক ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও জাতি কেবল সেই সব পণ্য-সামগ্রী ও সেবা উৎপাদন করে যা সে সর্বাধিক দক্ষতার সাথে এবং তুলনামূলকভাবে সবচেয়ে কম খরচে উৎপাদন করতে সক্ষম। অতঃপর সে তার উৎপাদিত পণ্য-সামগ্রীর উদ্বৃত্তাংশের বিনিময়ে অন্য ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা জাতির কাছ থেকে অপরাপর পণ্য-সামগ্রী ও সেবা ক্রয় করে তার যাবতীয় অভাব পূরণ করে থাকে। এভাবে সর্বনিম্ন খরচে সর্বাধিক উৎপাদন সম্ভব হয়। আর পারস্পরিক বিনিময় ও ক্রয়-বিক্রয় হয়ে ওঠে অত্যাবশ্যকীয়। প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ এ্যাডাম স্মিথ ও ডেভিড রিকার্ডোই হচ্ছেন পাশ্চাত্যের সর্বপ্রথম অর্থনীতিবিদ যারা বাণিজ্যের মাধ্যমে সকল পক্ষের উপকৃত হওয়ার কথা স্বীকার করে নিয়েছেন এবং তুলনামূলক সুবিধা তত্ত্বের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করেছেন। বস্তুতঃ দ্রব্য-সামগ্রী ও সেবার পরস্পর বিনিময় ও ক্রয়-বিক্রয়ের অনুপস্থিতিতে ব্যক্তির অস্তিত্বও কল্পনা করা যায় না। সুতরাং ক্রয়-বিক্রয় কেবল গুরুত্বপূর্ণ নয়, মানব জাতির অস্তিত্বের জন্য অপরিহার্য।

) ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে অর্থনীতির ভিত্তিঃ ক্রয়বিক্রয় হচ্ছে মানব সমাজের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রীয় বিষয়। ক্রয়-বিক্রয়ের মাধ্যমেই উৎপাদন ও ভোগের মধ্য সমন্বয় সাধিত হয় এবং বাণিজ্যিক কার্যক্রম সুশৃঙ্খলভাবে পরিচালনা করা সম্ভব হয়। ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে বাজার অর্থনীতির ভিত্তি ও মৌলিক বৈশিষ্ট্য।

) মুনাফা অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের চালিকাশক্তিঃ মুনাফা হচ্ছে যাবতীয় অর্থনৈতিক তৎপরতার চালিকাশক্তি; কেবল জীবিকা অর্জন নয়, বরং উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির বাহনও হচ্ছে মুনাফা। কৃষক হাড়ভাঙ্গা খাটুনি খেটে জমি চাষ ও বীজ বপন করে। আশা যে, বিনিময়ে সে অধিক ফসল পাবে। শ্রমিক মাথার ঘাম পায়ে ফেলে তার শ্রম বিনিয়োগ করে; বিনিময়ে মজুরী পায়, যার দ্বারা সে জীবিকা নির্বাহ করে। শিল্পপতি তার মেধা ও অর্থ খাটিয়ে ছোট-বড় কারখানা গড়ে তোলে; উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করে লাভ করাই তার একমাত্র উদ্দেশ্য। ব্যবসায়ী পণ্য-সামগ্রী ক্রয় করে ভোক্তার কাছে পৌঁছে দেয়তো লাভ পাবার উদ্দেশ্যেই। অপরপক্ষে লক্ষ্য করা যায় যে, মুনাফার সম্ভাবনা নেই এমন কাজে হাত দিতে কেউ উৎসাহবোধ করে না; সেসব কাজে বিনিয়োগ করতে কেউ এগিয়ে আসে না।

) মুনাফা উন্নাতি ও সমৃদ্ধির চাবিকাঠিঃ বাজার অর্থনীতিতে মুনাফার ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মুনাফাই হচ্ছে জীবিকা অর্জনের বৈধ ও সম্মানজনক পথ। মুনাফাই অর্থনৈতিক কাজে উৎসাহ যোগায় ও উদ্বুদ্ধ করে। দক্ষতা বৃদ্ধি ও নতুন নতুন আবিষ্কার-উদ্ভাবনের মূল প্রেরণাই হচ্ছে মুনাফা। মুনাফা ছাড়া অর্থনৈতিক কাজকর্ম স্থবির ও অচল হয়ে পড়তে বাধ্য।

) মুনাফা কল্যাণকর ও অত্যাবশ্যকীয়ঃ জীবিকা অর্জন ও সম্পদ আহরণের পথ হিসেবে ইসলাম ব্যবসা-বাণিজ্য ও মুনাফার ওপর অত্যন্ত গুরুত্ব আরোপ করেছে এবং সবচেয়ে মহৎ কাজ বলে ঘোষণা করেছে। ইসলামের দৃষ্টিতে ব্যবসা-বাণিজ্য হচ্ছে একটি সামাজিক দায়িত্ব (Social obligation)।

) ব্যবসা-বাণিজ্য ফরজে কিফায়াঃ ইসলামী আইনবেত্তাগণ ব্যবসা-বাণিজ্যকে ফরজে কিফায়া [নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ৬৯] ঘোষণা করেছেন। এ দায়িত্ব পালন করা মুসলমানদের ওপর সামগ্রিকভাবে অবশ্যপালনীয়। সমাজের সকল ব্যক্তি অথবা সকলের পক্ষ থেকে কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠীকে এ দায়িত্ব অবশ্যই আঞ্জাম দিতে হবে; অন্যথায় সমাজের সকলকেই এ দায়িত্ব অবহেলা করার দায়ে দায়ী হতে হবে।

) মুনাফা আল্লাহর অনুগ্রহঃ মহাগ্রন্হ আল-কুরআনে আল্লাহ সুবাহানাহু ওয়া তা’য়ালা মুনাফাকে আল্লাহর অনুগ্রহ আখ্যায়িত করেছেন এবং মানব জাতির উপকারার্থে নদী, সাগর ও মহাসাগরে জাহাজ, নৌকার মাধ্যমে মালামাল পরিবহনের ওপর বারবার গুরুত্ব আরোপ করেছেন এবং একে জীবিকা অর্জনের অন্যতম উপায় বলে ঘোষণা করেছেন।

) জীবিকা অর্জন করা ফরজঃ আল-কুরআনের বহু সংখ্যক আয়াতে আল্লাহ তা’য়ালা মানুষকে আল্লাহর অনুগ্রহ রূপে মুনাফা অর্জনে উৎসাহ প্রদান করেছেন। আল-কুরআন বারবার মানুষকে স্মরণ করিয়েছে যে, আল্লাহ তাদেরকে জাহাজ তৈরীর উপকরণ দান করেছেন এবং নদী, সাগর ও মহাসাগরকে তাদের জন্য নদী-সমুদ্রকে নিয়ন্ত্রিত করে রেখেছেন, যেন তোমরা তা হতে নতুন তাজা গোশত আহরণ করে খেতে পার এবং এমন সব সৌন্দর্য-শোভার জিনিস বের করে নিতে পার যা তোমরা পরিধান কর। তোমরা দেখছ যে, নৌকা-জাহাজ নদী-সমুদ্রের বুক বিদীর্ণ করে চলাচল করে। এসব কিছু এজন্য যে, তোমরা তোমাদের আল্লাহর অনুগ্রহ সন্ধান করে নিবে এবং তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ হবে”। (১৬:১৪) আবার সূরা বনি ইসরঈলে আল্লাহ বলেছেন, “তোমাদের রব তো তিনিই যিনি নদী-সমুদ্রে তোমাদের নৌকা-জাহাজ চালাচ্ছেন যেন তোমরা তার অনুগ্রহ করতে পার। আসল কথা হচ্ছে, তিনি তোমাদের প্রতি অত্যন্ত দয়ালু”।(১৭:৬৬)

এছাড়া মানুষ যাতে তাদের জীবনোপকরণ সংগ্রহ করতে পারে সেজন্য আল্লাহ তা’য়ালা পৃথিবীর যমীনকে মানুষের অধীন করে দেওয়ার কথাও বলেছেন। সূরা আল-মূলক-এ বলা হয়েছে, “সেই আল্লাহই তো তোমাদের জন্য ভূগোলককে অধীন বানিয়ে রেখেছেন, যাতে তোমরা এর বক্ষের ওপর চলাচল কর এবং তা থেকে আল্লাহর দেয়া রিযক খাও”। (৬৭:১৫) বস্তুতঃ ইসলাম প্রত্যেক উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে তার নিজের এবং অধীনস্থদের জন্য জীবিকা অর্জন করা ফরজ করে দিয়েছে।

) পার্থিব জীবন ও আধ্যাত্মিক জীবন পৃথক নয়ঃ সর্বোপরি ইসলাম মানবজীবনের আধ্যাত্মিক আর বস্তুগত দিককে আলাদা আলাদা অংশে বিভক্ত করে দেয়নি; বরং আধ্যাত্মিক পিপাসার পাশাপাশি বস্তুতগত প্রয়োজনকে সমান গুরুত্ব প্রদান করেছে। আল-কুরআর দিনের বেলার সময়কে মুনাফা অর্জনের কাজে ব্যবহার করার জন্য তাকিদ করেছে। একদিকে সময়মত নামায, বিশেষ করে, জুময়ার নামায আদায় এবং জুময়ার নামাযের আযান হলেই বেচাকেনা বন্ধ করে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে; অন্যদিকে নামায সম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথে জীবিকা অন্বেষণের কাজে লেগে যাওয়ার জন্য আদেশ করেছে। বলা হয়েছে, “ওহে যারা ঈমান এনেছ, জুময়ার দিন যখন নামাযের জন্য ডাক দেওয়া হবে, তখন আল্লাহর স্মরণের দিকে দৌঁড়াও এবং কনাবেচা ছেড়ে দাও। এটা তোমাদের জন্য অধিক উত্তম, যদি তোমরা জান। পরে যখন নামায সম্পূর্ণ হবে তখন পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ সন্ধান কর”।(আল-কুরআন: ৬২:৯-১০)

১০) হাদীসের দৃষ্টিতে ব্যবসা-বাণিজ্যঃ রাসূলুল্লাহ (সাঃ) হাদীসেও ক্রয়-বিক্রয়, ব্যবসা-বাণিজ্য ও মুনাফার ওপর যথেষ্ট গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। রাসূল (সাঃ) বলেছেন, “কোন ব্যবসায়ী দল যদি সত্য কথা বলে এবং উপদেশ দেয়, তাহলে তাদের ব্যবসায় বরকত হয়’ কিন্তু যদি তারা ঠকায় এবং মিথ্যা বলে তাহলে তাদের ব্যবসা বরকত বঞ্চিত হয়”।[বুখারী ও মুসলিম, উদ্ধৃত, নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৬।] নবী (সাঃ) আরও বলেছেন, সত্যবাদী, আমানতদার,বিশ্বাসী ব্যবসায়ী ব্যক্তি (কেয়ামতের দিন) নবী, সিদ্দিক ও শহীদদের দলে থাকবেন”।[তিরমিযী, পৃ: ৩৬৭, হাদীস নং ১১৪৭, দারেমী, দারা কুতনী, উদ্ধৃত, মিশকাত শরীফ, ২৬৭৪।] সুতরাং ইসলামে গুরুত্বের দিক থেকে ব্যবসা আর জিহাদকে আলাদা করে দেখার কোন অবকাশ নেই।

 

পঞ্চম অধ্যায়: রিবা বা সুদ

সুদের অর্থ, সংজ্ঞা, শ্রেণীবিন্যাস ও বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা পেতে হলে প্রথমে তদানীন্তন জাহেলী আরবে যে রিবা প্রচলিত ছিল, যে রিবা উচ্ছেদ করার জন্য আল-কুরআনের আয়াত নাযিল করা হয়েছে, আল্লাহর রাসূল (সাঃ) যে রিবা উচ্ছেদ করেছেন, সেই রিবার ধরন-প্রকৃতি জানা দরকার।

জাহিলী যুগে রিবা

সম্মানিত মুফাসসিরীনে কিরাম,ফক্বীহবৃন্দ, গবেষক, স্কলার ও অর্থনীতিবিদগণ ইসলামপূর্ব যুগে বিশেষ করে, আরব দেশে প্রচলিত সুদী লেনদেনের চিত্র তুলে এনেছেন। এতে দেখা যায়, সে যুগে ঋণ, দেনা, এমনকি নগদ ক্রয়-বিক্রয়েও রিবা লেনদেন হতো। নিচে তার কতিপয় তথ্য পেশ করা হলো:

বাকি ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে রিবা

ঋণ বা কর্দের ওপর রিবা

জাহিলী যুগে ঋণের ওপর যে রিবা লেনদেন করা হতো সে ব্যাপারে ফখরউদ্দীন আল-রাযি লিখেছেন, “জাহিলী যুগে আরবরা অর্থ ধার দিতো এবং এর ওপর মাসে মাসে নির্ধারিত পরিমাণ রিবা আদায় করতো, কিন্তু আসল পরিমাণটা পাওনা থেকেই যেতো। অতঃপর মেয়াদ শেষ হলে ঋণদাতা তার আসল ফেরত চাইতো। ঋণগ্রহীতা আসল ফেরত দিতে না পারলে ঋণদাতা পাওনার পরিমাণ বৃদ্ধির বিনিময়ে সময় বাড়িয়ে দিতো। এটাই ছিল জাহিলী যুগের রিবা যা তারা লেনদেন করতো”।আল-রাযি: আল তাফসীর আল কবীর, ভলি-৭ম তেহরান, পৃ: ৯১: উদ্ধৃত উসমানী, মুহাম্মদ তকি, পূর্বোক্ত, পৃ: ২৫।]

আবু বকর আল জাসসাস লিখেছেন, “আরবরা যে রিবার সাথে পরিচিত ছিল এবং যে রিবা লেনদেনে তারা অভ্যস্ত ছিল তা হচ্ছে, তারা নির্ধারিত মেয়াদের জন্য দিরহাম ও দীনার ঋণ দিতো এবং পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে প্রদত্ত ঋণের ওপর অতিরিক্ত ধার্য করতো”। তিনি আবার বলেছেন, “এটা সুপরিজ্ঞাত যে, জাহিলী রিবা ঋণের ওপর ধার্যকৃত অতিরিক্ত, আর এই অতিরিক্ত ধার্য করা হতো প্রদত্ত মেয়াদের বিনিময়ে”।[আল-জাসসাস, আহকামূল কুরআন, ভলি-১, লাহোর, ১৯৮০, পৃ: ৪৬৫।]

ইবনে জরীর আল-তাবারি যায়েদের সূত্রে বর্ণনা করেছেন, “জাহিলী যুগে কোন ব্যক্তি যদি কারও কাছ থেকে উট ধার করত, তাহলে মেয়াদ শেষে ঋণগ্রহীতার নিকট গিয়ে বলতো, ‘তুমি আমার পাওনা পরিশোধ করবে, না এর পরিমাণ বৃদ্ধি করবে’? যদি ঋণগ্রহীতার কাছে কিছু থাকত সে তা নিয়ে নিতো, অন্যথায় ঋণদাতা তার পাওনা বাড়িয়ে এর পরবর্তী বয়সের উটে উন্নীত করে দিত; প্রদত্ত উটটি বিনতে মাখাদ’ হলে দ্বিতীয় বছর সে বিনতে লাবুন দাবী করত, তার পরবর্তী বছর দাবী করত হিক্কাহ. এর পরে জাযাআহ,[[বিনতে মাখদ হচ্ছে, যে উষ্ট্রী শাবকের (মাদী) বয়স এক বছর পূর্ণ হয়ে দ্বিতীয় বর্ষ শুরু হয়েছে; বিনতে লাবুন- যে উষ্ট্রী শাবকের বয়স দুই বছর পূর্ণ হয়ে তৃতীয় বর্ষ শুরু হয়েছে; হিক্কাহ- যে উষ্ট্রী শাবকের বয়স তিন বছর পূর্ণ হয়ে চতুর্থ বছর শুরু হয়েছে এবং গর্ভ ধারণক্ষম হয়েছে; জাযাআহ- যে উষ্ট্রী শাবকের বয়স চার বছর পূর্ণ হয়ে পঞ্চম বর্ষ শুরু হয়েছে। (সুনানে আবূ দাঊদ, ২য় খণ্ড, বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার, ঢাকা-২০০৭, পৃ: ৪৪৬।)]], এর পরের বছর পরিশোধ না করলে সে চার বছর বয়সের উট দাবী করত এবং এভাবে উটের বয়স বাড়াতে থাকত। দেনা যদি ‘আইন’ (দীনার বা দিরহাম) হতো পাওনাদার দেনাদারের কাছে গিয়ে বলতো, তুমি পাওনা পরিশোধ কর অথবা পরবর্তী এক বছর মেয়াদের জন্য তা দ্বিগুণ কর। এভাবে পরিশোধ করা না হলে প্রতি বছরই পূর্ববর্তী বছরেরর পাওনার পরিমাণকে দ্বিগুণ করা হতো। পাওনা যদি ১০০ হতো, দ্বিতীয় বছর তা দুশো করা হতো। পরের বছর এই পরিমাণ পরিশোধ না করলে দ্বিতীয় বছর একে চারশোতে উন্নীত করা হতো; এভাবে দাতা হয়তার পাওনা আদায় করে নিতো অথবা প্রতি বছর এর পরিমাণ দ্বিগুণ করে ধার্য করে দিত”।[ইবনে জারীর আল-তাবারি: জামি আল বয়ান, ভলি-৪, পৃ: ৫৯; উদ্ধৃত: বাদাবী, যাকি আল-দ্বীন: Theory of Prohibited Riba; ইংরেজী অনুবাদ: ইমরান আহসান খান নিয়াজী, [email protected], ডিসেম্বর ৪, পৃ: ৩৮-৩৯।]

আল-মুয়াফাক্বাতে উল্লেখ করা হয়েছে, “জাহিলী রিবা এমন ছিল যার মাধ্যমে মেয়াদ শেষে ঋণ পরিশোধ করা না হলে মূল দেনাকে বৃদ্ধি করে বড় আকারের নতুন দেনা সৃষ্টি করা হতো”।[আল-শাতিবী, আবূ ইসহাক, আল-মূয়াফাক্বাত, ভলি-৪, পৃ: ৪০; পৃ: উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ: ৩৯।]

এ প্রসঙ্গে ইমাম শওকানী লিখেছেন, “সেকালে লোকেরা চক্রবৃদ্ধি হারে সুদী কারবার করত; তারা একটা নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য সুদের ভিত্তিতে মূলধন লগ্নি করত। সেই মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে মূলধনকে বাড়িয়ে ধরা হতো সেই মেয়াদ পর্যন্ত প্রাপ্য সুদকে মূলধনের সাথে যোগ করে। অতঃপর এই বাড়তি মূলধনের ওপর সুদের হিসাব করা হতো। এভাবে যতবারই মেয়াদ বৃদ্ধি করা হতো ততবারই মূলধন ও সুদের হিসাব বাড়িয়ে ধরা হতো”।

আতা’র সূত্রে আল-তাবারি আরও একটি বর্ণনা লিখেছেন যে, “জাহিলিয়্যাতের যুগে বনি মুগীরা গোত্র বনি সাকিফ গোত্রের কাছ থেকে ধার নিতো। মেয়াদ শেষে বনি সাকিফ গোত্র বনি মুগীরাকে বলতো, ‘তোমরা যদি আমাদের পাওনা পরিশোধ বিলম্বিত কর,তাহলে আমারা তোমাদের দেনার পরিমাণ বাড়িয়ে দেবো”।[আল-তাবারি: পূর্বোক্ত, পৃ: ৫; দার আল-মানসুর, ভলি-২, পৃ: ৭১; উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ: ৩৯-৪০।]

দেনার ওপর রিবা

তাবারি কাতাদাহর সূত্রে বর্ণনা করেছেন যে, “নির্ধারিত সময়ে দাম পরিশোধ করার শর্তে কোন ব্যক্তি অপর কারও কাছে বাকিতে পণ্য-সামগ্রী বিক্রয় করত’ মেয়াদ শেষে ক্রেতা বকেয়া দাম পরিশোধ করতো ব্যর্থ হলে সে তার দেনার পরিমাণ বাড়িয়ে দিতো আর অপর পক্ষ মেয়াদ বৃদ্ধি করে দিতো”।[আল-তাবারি: পূর্বোক্ত, ভলি-৩, পৃ: ৬৭; উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ:৪১।] আল-যাহহাকের সূত্রে তিনি আরও লিখেছেন, “জাহিলী যুগে তাদের ক্রয়-বিক্রয় থেকে রিবা উদ্ভূত হতো”।[উপরোক্ত।]

সুয়ূতি তাঁর আল-দূররু আল মানসুরে মুজাহিদের সূত্রে বর্ণনা করেছন, “তারা (জাহিলী যুগের আরবারা) বাকিতে ক্রয়-বিক্রয় করতো। দেনা পরিশোধের মেয়াদ শেষে এক পক্ষ তাদের দেনার পরিমাণ বাড়িয়ে দিত আর অপর পক্ষ পরিশোধের মেয়াদ বৃদ্ধি করে দিত”।[আল-সুয়ূতি: পূর্বোক্ত, ভলি-২, পৃ: ৭১; উদ্ধৃত, বাদাবী, উপরোক্ত, পৃ:৪০।]

সাঈদ ইবনে যুবায়ের থেকে ইবনে আবি হাতিম বর্ণনা করেছেন, “কোন ব্যক্তির দেনা পরিশোধের সময় হলে দেনাদার পাওনাদারকে বলতো, “আমার জন্য দেনা পরিশোধের সময় বাড়িয়ে দাও, আমি তোমার পাওনার পরিমাণ বৃদ্ধি করে দেবো”। তাদেরকে যখন বলা হতো যে, এটা তো রিবা; উত্তরে তারা বলতো, “বাকি বিক্রয়ের সময়ে দাম বাড়িয়ে ধরা হোক বা মেয়াদ শেষে দেনার পরিমাণ বাড়ানো হোক উভয় বৃদ্ধি তো একই”।[আল-সুয়ূতি: পূর্বোক্ত, ভলি-১, পৃ: ৩৬৫; উদ্ধৃত, বাদাবী, উপরোক্ত, পৃ:৪০-৪১।]

মুজাহিদের সূত্রে তাবারি আরও বলেছেন যে, “জাহিলী যুগে কোন ব্যক্তির যদি অন্য কোন ব্যক্তির কাছে কোন দেনা থাকতো, তাহলে মেয়াদান্তে দেনাদার পাওনাদারকে বলতো, তুমি আমার কাছে এই পাবে। আমাকে পরিশোধের সময় বাড়িয়ে দাও, আমি আমার দেনার পরিমাণ এত এত বাড়িয়ে দেবো”।[আল-তাবারি; পূর্বোক্ত, ভলি-৩, পৃ: ৬৭; উদ্ধৃত, ইবিদ, পৃ:৩৯।]

সুয়ূতি লিখেছেন, “ইবনে আবি হাতিম থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, ইবনে যুবায়ের বলেছেন, এক ব্যক্তি অন্য ব্যক্তির কাছে কোন সম্পদ পাওনা থাকলে, মেয়াদান্তে পাওনাদার দেনাদারকে তার পাওনা পরিশোধ করতে বলতো। দেনাদার বলতো, আমাকে সময় বাড়িয়ে দাও, আমি আমার দেনার পরিমাণ বৃদ্ধি করে দেবো। তারা উভয়ে এতে সম্মত হয়ে যেতো। এটাই ছিল দ্বিগুণ, বহুগুণ রিবা”।[জালাল আল-দ্বীন আল-সুয়ূতি: আল-দুররে আল মনসুর, ভলি-২, পৃ: ৭১ উদ্ধৃত, বাদাবী, উপরোক্ত, পৃ:৩৯।]

এভাবে বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে প্রথমে পণ্যের দাম বাড়িয়ে নির্ধারণ করা হতো যা আসল দামের সাথে একীভূত হয়ে যেত। অতঃপর দেনাদার দেনা পরিশোধে ব্যর্থ হলে প্রতিবার মেয়াদ বৃদ্ধি করার বিনিময়ে দেনার পরিমাণ বাড়িয়ে দেওয়া হতো যাকে নির্ধারিত কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে বিনিময়হীন বৃদ্ধি বা রিবা বলা হতো। এজন্য আল-শাফিঈ, আল-বায়হাকি ও আল-জারকানির ন্যায় ফক্বীহও হাদীসবেত্তাগণ বলেছেন যে, জাহিলী যুগের রিবা হতো ক্রয়-বিক্রয় বাই থেকে।

নগদ ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে রিবা

ইতিহাস ও হাদীস থেকে জানা যায় যে, তদানীন্তন আরবে আরও কতিপয় রিবার লেনদেন প্রচলিত ছিল। আরবরা সচরাচর সেসব লেনদেন করত; কিন্তু সেটা যে রিবা তা তারা জানতো না এবং একে রিবা বলতো না। রাসূলূ্ল্লাহ (সঃ) সেসব লেনদেনকে রিবা বলে ঘোষণা করেছেন এবং সেরূপ লেনদেন না করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। এরূপ লেনদেনের কয়েকটি উদাহরণ হচ্ছেঃ

) সমজাতীয় মুদ্রা নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবাঃ জাহিলী যুগে আরব দেশে মুদ্রা হিসেবে প্রচলিত ছিল দীনার ও দিরহাম। দীনার হলো স্বর্ণমুদ্রা আর দিরহাম রৌপ্য মুদ্রা। আরবরা দীনারের পরিবর্তে দীনার এবং দিরহামের পরিবর্তে দিরহাম পরিমাণে কম-বেশি করে নগদ ক্রয়-বিক্রয় করত। তারা এরূপ করত মুদ্রার গুণ ও মানগত পার্থক্যের কারণে। এরূপ কেনাবেচার কথা হাদীসেও উল্লেখ আছে। ফাদালা ইবনে উবাইদ (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ তিনি বলেন, “খাইবারের দিন আমরা রাসূলুল্লাহর (সাঃ) সাথে ছিলাম। আমারা ইহুদীদের সাথে এক উকিয়া স্বর্ণ দুই অথবা তিন দীনারের বিনিময়ে কেনাবেচা করতাম। রাসূলুল্লাহ (সঃ) বললেন, তোমরা সমান সমান ওজন ছাড়া স্বর্ণের বিনিময়ে স্বর্ণ বিক্রি করো না”। (মুসলিম) (চল্লিশ দিরহামের সমান ওজনকে এক উকিয়া বলা হয়।)

) সমজাতের পণ্য নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবাঃ জাহিলী যুগে আরব দেশের লোকেরা কোন একজাতের নিম্নমানের পণ্যের সাথে একই জাতের উন্নত মানের পণ্য পরিমাণে কম-বেশি করে বিনিময় করত। এ প্রসঙ্গে বিশেষ করে, নিম্নমানের খেজুরের সাথে উন্নত মানের খেজুর বিনিময়ের উল্লেখ বেশ কয়েকটি হাদীসে পাওয়া যায়।

এ প্রসঙ্গে সুন্নাহর দৃষ্টিতে সুদ অধ্যায়ে সুদ সংক্রান্ত হাদীসের ক্রমিক নং ৭৫ থেকে ৮০ নম্বরে উদ্ধৃত হাদীসগুলো দ্রষ্টব্য।

) অসমজাতের পণ্য নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবাঃ হাদীস থেকে জানা যায় যে. জাহিলী যুগে আরবরা নিলামে মাল বেচাকেনা করত। এ ব্যাপারে কখনও কখনও বিক্রেতার পক্ষ থেকে নিয়োগকৃত দালাল মিথ্যা ডাক দিয়ে নিলামের পণ্যের দাম বাড়িয়ে ডাক দিতে বাধ্য হতো। এভাবে দাম আদায় করে নিত। রাসূলুল্লাহ (সঃ) এভাবে বর্ধিত দামকে রিবা আখ্যায়িত করেছেন এবং মিথ্যা ডাকদাতাকে ‘অভিশপ্ত রিবা গ্রহীতা’ বলে নিন্দা করেছেন।(হাদীস নম্বর ৮৭ দ্রষ্টব্য)

এ ছাড়া সুপারিশের বিনিময়ে উপহার গ্রহণ, প্রতারণা করে দাম বেশি নেওয়া এবং অনবহিত লোককে ঠকানো হলে তাকেও রিবা বলা হয়েছে।হাদীস থেকে একথাও পাওয়া যায় যে, রিবার ৭০/৭৩ টি ধরন রয়েছে। (হাদীস নম্বর ১১৪-১১৫ এবং ৮৬-৯৮ দ্রষ্টব্য।)

উল্লেখিত তথ্যাবলী থেকে একথা স্পষ্ট হয় যে, ইসলাম পূর্ব যুগে আরবরা অর্থ (দিরহাম-দীনার), সোনা-রূপা, অন্যান্য পণ্য-সামগ্রী এমনকি উট দ্বারা ঋণ লেনদেন করত এবং ঋণের ওপর রিবা ধার্য করত। দ্বিতীয়ত, তারা ভিন্ন ভিন্ন জাতের অর্থ ও পণ্য-সামগ্রী বাকিতে ক্রয়-বিক্রয় করত। ক্রেতা নির্ধারিত সময়ে উক্ত দেনা পরিশোধ করতে না পারলে বিক্রেতা পরিশোধের মেয়াদ বৃদ্ধির বিনিময়ে তার পাওনার পরিমাণ বাড়িয়ে দিত। তৃতীয়ত, একই জাতের অর্থ বা পণ্য পরিমাণে কম-বেশি করে নগদ বেচাকেনা করা হলে সেই বৃদ্ধিকেও রিবা বলা হয়েছে। চতুর্থত, প্রতারণামূলক বর্ধিত দাম ও সুপারিশের পারিতোষিককেও আল্লাহর রাসূল (সাঃ) রিবা ঘোষণা করেছেন। হাদীস থেকে এটাও প্রতীয়মান হয় যে, রিবার আরও বহু ধরন চালু ছিল।

উক্ত তথ্যাবলী থেকে একথাও প্রমাণিত হয় যে, ঋণ ও দেনার ওপর রিবা ধার্য ও লেনদেন করার পদ্ধতি ও রূপও ছিল বিভিন্ন।

প্রথমত, ঋণদাতা ঋণ প্রদানের সময়ই তার পাওনার ওপর অতিরিক্ত দাবী করত এবং ঋণগ্রহীতা অতিরিক্ত দিতে রাজী হলে ঋণদাতা উক্ত বর্ধিত পরিমাণসহ ঋণ ফেরতের শর্তে ঋণ প্রদান করত। অতঃপর নির্ধারিত সময়ে অতিরিক্তসহ দেনা পরিশোধে ব্যর্থ হলে ঋণদাতা তার মোট পাওনার (কাউন্টার ভ্যালু=অতিরিক্ত) ওপর আবার অতিরিক্ত ধার্য করে সময় বাড়িয়ে দিত।

দ্বিতীয়ত, ঋণদাতা মাসিক ভিত্তিতে অতিরিক্ত ধার্য করত এবং মাসে মাসে তা আদায় করত। আর ঋণ পরিশোধের মেয়াদ শেষ হওয়া পর্যন্ত আসল পাওনার পরিমাণ অপরিবর্তিত থাকত। অতঃপর মেয়াদান্তে ঋণগ্রহীতা ঋণ পরিশোধ করতে না পারলে আবারও মাসে মাসে অতিরিক্ত পরিশোধের শর্তে ঋণদাতা ঋণ পরিশোধের মেয়াদ বাড়িয়ে দিত।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে প্রতীয়মান হচ্ছে যে, “সকল প্রকার সুদী লেনদেনের সাধারণ যে বৈশিষ্ট্য ছিল তা হচ্ছে, দেনার আসলের ওপর একটি অতিরিক্ত পরিমাণ (ফদল) ধার্য করা। দেনা কখনও বাকি ক্রয়-বিক্রয় থেকে সৃষ্টি হতো, কখনও বা ঋণ বা কর্জ থেকে দেনা সৃষ্টি হতো। সব ক্ষেত্রেই বর্ধিত অতিরিক্ত অংশকে বলা হতো রিবা। কারণ, রিবা শব্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি (ফদল)”।[উসমানী, মোহাম্মদ তকি: পূর্বোক্ত, পৃ: ২৮।] এমনকি, সমজাতের ও অসম জাতের নির্ধারিত দামের ওপর বর্ধিত অংশকেও বলা হয়েছে রিবা।

এতে আরও লক্ষণীয় যে, এই বৃদ্ধি ধার্য করা হতো ঋণগ্রহীতা বা দেনাদারের দেনার ওপর যার বিনিময়ে পাওনাদার দেনাদারকে কিছুই দিতো না; অর্থাৎ রিবা হচ্ছে বিনিময়হীন।

আর বিনিময় ছাড়া এই অতিরিক্ত (ফদল) দেনাদার পরিশোধ করতে বাধ্য হতো শুধুমাত্র তার সম্মতির কারণে। ঋণদাতা বা বাকি বিক্রেতা অীতরিক্ত দাবী করতো, ঋণগ্রহীতা বা বাকি ক্রেতা সম্মত হতো। এভাবে তাদের মধ্যে অতিরিক্ত ধার্য ও লেনদেনের চুক্তি হয়ে যেতো। এই চুক্তি হচ্ছে রিবার উৎস। রিবার ওপর ঋণদাতার অধিকার সৃষ্টি হতো চুক্তি বলে; আর ঋণগ্রহীতা রিবা পরিশোধ করতে বাধ্য থাকতো এই চুক্তির কারণেই (তার সম্মতির কারণ)।

সুতরাং ‘রিবার মৌলিক যে বৈশিষ্ট্য পাওয়া গেল তা হচ্ছেঃ

তদানীন্তন রিবার বৈশিষ্ট্য

ক) নির্ধারিত মূল্যের ওপর (বাকি বা নগদ) বৃদ্ধি ধার্য করা;

খ) অপরপক্ষ এই বৃদ্ধির বিনিময় বা প্রতিমূল্য না দেওয়া; এবং

গ) ক্রেতা-বিক্রেতা উভয় পক্ষ এতে সম্মত হওয়া (চুক্তি করা)।

রিবার অর্থ, সংজ্ঞা, শ্রেণীবিন্যাস ও বৈশিষ্ট্য

রিবার অভিধানিক অর্থ

নির্ভরযোগ্য অভিধানসহ আল-কুরআনের তাফসীরকার, হাদীস বিশারদ, ফিক্বাহবিদ, স্কলার ও অর্থনীতিবিদ সকলেই একমত যে, রিবা শব্দের অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি, বাড়তি, অতিরিক্ত, উদ্ধৃত্ত (surpls), বেশি, সম্প্রসারণ, প্রবৃদ্ধি, উচু হওয়া, ফুলে উঠা, লাভ (gain), বহুগুণ হওয়া, ছাড়িয়ে যাওয়া, পাওনার চেয়ে বেশি নেওয়া, একদিকে বৃদ্ধি অন্যদিকে বৃদ্ধি ছাড়াই ইত্যাদি।

বিখ্যাত আরবী অভিধান লিসান আল-আরব রিবার শাব্দিক অর্থ লিখেছে, “বৃদ্ধি, অতিরিক্ত, সম্প্রসারণ ও প্রবৃদ্ধি”। [ইবনে, মনযুর, লিসান আল-আরব, ১৯৬৮।] আল যাবিদি তাঁর তাজ আল-আরুস এবং ইমাম রাগিব আল ইস্পাহানি তাঁর মুফারাদাত আল-কুররতানও রিবার এই একই অর্থ লিখেছেন। এছাড়া প্রাচীন তাফসীরকারদের সকলেই রিবার অনুরূপ অর্থ করেছেন।[চাপরা, এম, উমর, Prohibition of Interest: Does it Make Sense? Islamic Dawah Movement (IDM) Publications, Southern Africa, 2001, p. 2, Foot note-3.]

Advanced-Learner Dictionary-তে (1989:564) রিবা শব্দের অর্থ লিখা হয়েছে, · "excess, addition and surplus" “মাত্রাতিরিক্ত, অতিরিক্ত সংযোজন, উদ্বৃত্ত”। আর ক্রিয়াপদে এর অর্থ করা হয়েছে, "to increase, to exceed, to exact more than was due, to practise usury.” [উদ্ধৃত, সিদ্দিকী, শহী, হাসান, Riba, Usury and Interest- Historical and Quranic Concept, Journal of Islamic Banking and Finance, Oct.-Dec., 1993, p. 44.] “বৃদ্ধি করা; মাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়া, পাওনার চেয়ে বেশি আদায় করা, সুদ খাওয়া”।

Lane's Lexicon রিবার অর্থ লিখেছে, "to increase, to augment, swelling, forbidden, addition, to take more than what is given, the practising or taking of usury or the like, an excess, or an addition, an addition over and above the principal sum (that is lent or expended).”[Lane's Lexicon 1874; উদ্ধৃত, ইবিদ।] “বৃদ্ধি করা, বাড়ানো, স্ফীত করা, নিষিদ্ধ-বিআইনী, অতিরিক্ত, সংযোজন, যা প্রদান করা হয়েছে তার চেয়ে অধিক গ্রহন করা, সুদ খাওয়া বা সুদ গ্রহণ করা অথবা অনুরূপ, অতিরিক্ত, বাড়তি সংযোজন, মূল পরিমাণের (যা ধার দেওয়া হয়েছিল বা ব্যয় করা হয়েছিল) ওপর অতিরিক্ত সংযোজন”।

আল্লামা মওদূদী বলেছেন যে, “রিবা শব্দের মূলে আছে আরবী ভাষার (রা’-বা-ওয়াও’) এই তিনটি হরফ। কুরআন মজীদে এই মূল থেকে নির্গত শব্দাবলী যত জায়গায় ব্যবহৃত হয়েছে সেই সকল স্থানেই এ থেকে বৃদ্ধি, উচ্চতা, বিকাশ ইত্যাদি অর্থ পাওয়া যায়”।[মওদূদী, সুদ ও আধুনিক ব্যাংকিং, বাংলা অনুবাদ, আব্দুল মান্নান তালিব ও আব্বাস আলী খান, আধুনিক প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৭৯, পৃ: ৮৪।] এ প্রসঙ্গে পাকিস্তান সুপ্রীম কোর্টের শরীয়াহ আপীলেট বেঞ্চের ঐতিহাসিক রায়ে বলা হয়েছে, "In the Quran, the word signifies 'to rise', 'at a height', 'to increase', 'to prosper', 'to swell', 'tonurture', 'to raise’, 'to grow', and 'augmentation' or 'increase in power'." “আল-কুরআনে শব্দটি ওপরে উঠা, উচ্চতা, বৃদ্ধি করা, উন্নতি করা, স্ফীত হওয়া, পুষ্ট করে তোলা, উঁচু করা, বড় হওয়া এবং বাড়ানো বা শক্তি বেশি হওয়া ইত্যাদি অর্থ বুঝানো হয়েছে”। আবার বলা হয়েছে, "Federal Shariat Court records that the term riba, in its various linguistic forms, occurs. at about twenty places in the Quran."[ Sharia Law Report, February, 2000, Lahore, Vol. 01, No. 02, Pakistan, p. 10] “ফেডারেল শরীয়ত আদালত লিখেছে যে, ভাষাগত বিভিন্ন রূপে রিবা শব্দটি কুরআন মজীদে বিশটির মত স্থানে ব্যবহৃত হয়েছে”। নিম্নে এর কয়েকটি উদাহরণ পেশ করা হলোঃ

১. “যখন আমারা তার ওপর পানি বর্ষন করলাম তখন তা সতেজ হলো ও ফুলে উঠলো (রাবাত)”।(সূরা আল-হজ্জ-২২:৫)

২. “আল্লাহ সুদকে নিশ্চিহ্ন করে দেন এবং সাদাকহকে ক্রমবৃদ্ধি (ইউরবি) দান করেন”।(সূরা আল-বাকারাহ- ২:২৭৬)

৩. “আবার যখন প্লাবন আসলো তখন উপরিভাগে (রাবিয়ান) ফেনাও জেগে উঠলো”।(সূরা আল-রায়াদ-১৩:১৭)

৪. “যেন এক জাতি অপর জাতি অপেক্ষা অগ্রসর (আরবা) হয়ে যায়”।(সূরা আল-নাহল- ১৬:৯২)

৫. “তিনি তাদেরকে কঠোর-কঠিনভাবে (রাবিয়াতান) পাকড়াও করলেন”।(সূরা আল- হাক্কাহ্- ৬৯:১০)

৬. “এবং তাদেরকে (মরিয়ম ও ঈসা) একটি উচ্চ স্থানে (রাবওয়াতেন) আশ্রয় দিলাম”।(সূরা আল-মুমিনুন-২৩:৫০)

৭. “লোকদের অর্থের সাথে শামিল হয়ে বৃদ্ধি (ইউরবি) পাবে এজন্য তোমরা যে সুদ দাও, তা আল্লাহর কাছে বাড়ে (ইয়ারবু) না”।(সূরা আল-রূম-৩০:৩৯)

উদ্ধৃত আয়াতসমূহে ব্যবহৃত শব্দাবলী থেকে তিন ধরনের বৃদ্ধির ইঙ্গিত পাওয়া যায়ঃ ১) নিজ পরিমাণে বৃদ্ধি, ২) তুলনামূলক বৃদ্ধি এবং ৩) মানগত বৃদ্ধি। সামি হামুদ বলেছেন, “এই বৃদ্ধি খাটিঁ ভাষাগত অর্থে কোন বস্তুর নিজ পরিমাণ বেড়ে যাওয়া হতে পারে, অথবা দুটি বস্তুর মধ্যে তুলনামূলকভাবে একটির পরিমাণ অপেক্ষা অপরটির পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া হতে পারে, অথবা গুণ-মানের তুলনায় একটি বস্তু অপর একটি বস্তু হতে উন্নততর হওয়াও অর্থ হতে পারে”।[Sami Hamaud (1985), Islamic Banking, Arabian Information, London, p. 67, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পুর্বোক্ত, পৃ: ২১।]

ইমাম আল-ওয়াহিদী ওপরে ১ নম্বরে উল্লেখিত আয়াত ব্যাখ্যা করে দেখিয়েছেন যে, এখানে মাটি ‘ফুলে-উঠলো’কে ‘রাবাত’ বলা হয়েছে। এ রাবাত থেকে মাটির নিজস্ব আকৃতি সম্প্রসারিত ও বৃদ্ধি পাওয়া অর্থ পাওয়া যায়। অনুরূপভাবে ২ নম্বরে উল্লেখিত আয়াতে ‘ইউরবি’ শব্দ দ্বারা যাকাতের নিজস্ব পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া বুঝানো হয়েছে। অজর জাতি সংখ্যায় বেশি এবং মানে উন্নততর হওয়া বুঝা যায়। এখানে পরিমাণগত ও মানগত উভয় বৃদ্ধিকেই বুঝানো হয়েছে।[M. AI-Sharaf AI-Nawawi, al-Talzzib At-Asthma Walluglzat; Section-2, Vol. 1, p. 118, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পুর্বোক্ত, পৃ:২১।] এ প্রসঙ্গে আল-তাবারি বলেছেন, আরবীতে সাধারণত বলা হয় যে, অমুক ব্যক্তি অমুকের চেয়ে ভাল (আরবা); এই বাক্যে ‘আরবা’ শব্দ দ্বারা মানগত অগ্রসমতার কথাও বুঝানো হয়।[উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ:৩৪।] তৃতীয়ত, ৫ নম্বরে উল্লেখিত আয়াতে ব্যবহৃত ‘রাবিয়াতান’ শব্দ দ্বারা আল্লাহ তা’য়ালা অন্যান্য অপরাধীদের শাস্তির তুলনায় ফেরাউনের শাস্তি যে অধিক কঠিন ও কঠোর ছিল তাই বুঝিয়েছেন।[M. AI-Sharaf AI-Nawawi, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ:২১।] এ প্রসঙ্গে আল-তাবারি বলেছেন যে, পাহাড়কে ‘রাবিয়া’ বলা হয়; কারণ পাহাড় ভূমির চেয়ে উচ্চতায় বড়।[আল-তাবারি: আল-হাক্ব, আয়াত ১০, ভলি-১২, পৃ: ৩৪, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর পূর্বোক্ত, পৃ:২২।]

রাসূলুল্লাহর (সাঃ) হাদীসেও রিবা শব্দের এইরূপ বিভিন্ন দিক থেকে বৃদ্ধি অর্থ পাওয়া যায়। উদাহরণস্বরূপ, এক হাদীসে কতিপয় সাহাবী বর্ণনা করেছেন যে, “একবার রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাদেঁর খাওয়ার দাওয়াত দিলেন। তাঁরা যখন খাচ্ছিলেন তখন দেখলেন, খাদ্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাঁদের মধ্য একজন সাহাবী উল্লেখ করেছেন যে, পাত্র থেকে যে পরিমাণ খাবার তুলে নেওয়া হচ্ছিল, নিচ থেকে খাবার বৃদ্ধি পেয়ে তত পরিমাণ আবার পূরণ হচ্ছিল”।[আল-বুখারী, মুয়াক্বিত, পৃ: ৭৯; উদ্ধৃত, ই, এম, নূর; পূর্বোক্ত, পৃ: ২১।] উক্ত সাহাবী এখানে ‘রাবা’ শব্দ ব্যবহার করেছেন এবং এর দ্বারা খাদ্যের নিজস্ব পরিমাণ বেড়ে যাওয়াকে বুঝিয়েছেন। অপর এক হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “আল-ফেরদৌস হচ্ছে আল-রাবওয়াহ”।[উদ্ধৃত, ই, এম, নূর; পূর্বোক্ত, পৃ: ২১।] এখানে রাবওয়াহ শব্দ দ্বারা জান্নাতের অন্যান্য স্থানের তুলনায় ফেরদৌসের উত্তম ও সর্বোচ্চ হওয়া বুঝানো হয়েছে।

দেখা যাচ্ছে, রিবা শব্দের অর্থের মধ্যে উপরোক্ত তিন ধরনের বৃদ্ধিই সন্নিহিত আছে। অর্থাৎ রিবা অর্থ বৃদ্ধি; এই বৃদ্ধি পরিমাণগত হতে পারে, মানগত হতে পারে; বস্তুর নিজ পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া হতে পারে, আবার অপর বস্তুর তুলনায় পরিমাণ ও গুণগতভাবে বৃদ্ধি পাওয়াও এর অর্থ হতে পারে।

অপরাপর ভাষায় রিবার প্রতিশব্দ

বিভিন্ন ধর্মগ্রন্হে ব্যবহৃত প্রতিশব্দ থেকেও রিবার এই একই অর্থ পাওয়া যায়। শ্রদ্ধেয় মুফাসসিরদের অনেকেই বলেছেন যে, ইহুদীদের ওপর যে রিবা নিষিদ্ধ ছিল তা তদানন্তীন আরবে প্রচলিত রিবার অনুরূপ ছিল। আল-তাবারি ইহুদীদের জন্য নিষিদ্ধ রিবার ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছেন, “তারা (ইহুদীরা) যে রিবা গ্রহণ করতো তা ঋণের আসল পরিমানের ওপর অতিরিক্ত হিসেবে ধার্য করা হতো”।[আল-তাবারি, জামি আল-বয়ান, ভলি-৬, পৃ:১৭; উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৮।].... ঋণ ও ক্রয়-বিক্রয় থেকে সৃষ্ট দায়ের ওপর ধার্য করা হতো”।[বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৯-৮০।]

বাদাবী এ প্রসঙ্গে বনি ইসরাঈলদের মধ্যে প্রচলিত রিবা (তাওরাতে নিষিদ্ধ রিবা) এবং জাহিলী যুগে প্রচলিত (আল-কুরআনে নিষিদ্ধি) রিবার তুলনা করে দেখিয়েছেন যে, উভয় রিবা ছিল এক ও অভিন্ন। তিনি বলেছেনঃ

“আল-কুরআন সেই রিবাকেই নিষিদ্ধ করেছে যা ইহুদীদের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। আর আজও ইহুদীদের মধ্যে সেই রিবাই চালু রয়েছে; কারণ প্রাচীনকালে রিবার প্রকৃতি ও বৈশিষ্ট্য যা ছিল এখনও তাই আছে-এতে কোন পরিবর্তন হয়নি। এভাবে ইহুদীদের মধ্যে বর্তমান যে রিবা চালূ আছে তা হচ্ছে, ঋণের ওপরে সময়ের ভিত্তিতে ধার্যকৃত অতিরিক্ত, যদিও রিবার হারে পরিবর্তন হয়েছে। সুতরাং আল-কুরআন যে রিবাকে নিষিদ্ধ করেছে তা অতি প্রাচীনকাল থেকেই পরিচিত ছিল”। গবেষকগণ পৃথিবীর উল্লেখযোগ্য ধর্মগ্রন্হসমূহে ব্যবহৃত বিভিন্ন শব্দ/পরিভাষায় অর্থের সাথে রিবার অর্থের মিল থাকার কথাও তুলে ধরেছেন।

এক্সোডাস ও ডিটারোনমিতে বাইবেলীয় হিব্রু ভাষায় সুদকে বলা হয়েছে ‘নেশখ’; আর লেভিটিকাসে ‘টারবিট’ বা ‘মারবিট’ শব্দের সাথেই ‘নেশেখ’ শব্দ বসানো হয়েছে।[বাদাবী, উপরোক্ত, মাহবুব উল হাসান, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৫।] “নেশখ অর্থ হচ্ছে gain যা অর্থ, পণ্য-সামগ্রী বা যে কোন প্রকার সম্পদ-সম্পত্তি ঋণ দিয়ে তার ওপর অর্জন করা হয়”। [Siddiqui, Dr. Shahid Hasan, Riba, Usury and Interest - Historical & Quranic Concept, Journal of Islamic Banking & Finance, Vol. 10, No. 04, OctoberDecember 1993, p. 44.] এনসাইক্লোপেডিয়া জুডাইকায় নেশেখের অর্থ করা হয়েছে ‘bite’ আর শব্দটি সুদ খাওয়া অর্থে ব্যবহার করা হতো।[Cohn. H. Harvey, USURY: Encyclopedia Judaica, Jerusalem: Keter Publishing House, p. 17. উদ্ধৃত করেছেন, Mehboob ul Hassa, পূর্বোক্ত, পৃ: ৭৫।]

রিবার ইংরেজী প্রতিশব্দ হচ্ছে Interest ও Usury. Interest মধ্য যুগীয় ল্যাটিন শব্দ Interesse থেকে নির্গত হয়েছে। আর ল্যাটিন শব্দ usura থেকে এসেছে Usury।[ Qureshi. A. Iqbal, Islam and the Theory of Interest, Lahore: Ashraf Publication, 1991, p. 2.Intersse অর্থ হচ্ছে আসলের ওপর বৃদ্ধি। Usura মানে হচ্ছে প্রদত্ত ঋণ থেকে অর্জিত উপভোগ (enjoyment); ক্যানন ল’তে এর মান হচ্ছে অর্থ ধার দিয়ে তার বিনিময়ে আসল পাওনার ওপর অতিরিক্ত গ্রহণ করা।[Cohn, H. Harvey, পূর্বোক্ত।] Encyclopaedia of Religions and Ethics- এ বলা হয়েছে Usury ও lnterest শব্দ দুটি এক ও অভিন্ন অর্থে ব্যবহার করা হতো”।[উদ্ধৃত করেছেন, সিদ্দিকী, শহীদ হাসান, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৪।]

এতে আরও বলা হয়েছে যে, অতীতে কখনও ইউসারীকে আধুনিক কালের ন্যায় উচ্চ হারের ইন্টারেস্ট অর্থে ব্যবহার করা হতো না। The New Encyclopaedia Britannica-য় যুক্তরাজ্যে প্রচলিত পূর্বতন আইন অনুসারে ইউসারীর অর্থ হচ্ছে অর্থ ব্যবহারের ক্ষতিপূরণ, ক্ষতিপূরণের পরিমাণ কম-বেশি যাই হোক”। Encyclopaedia Americana-International Edition ( 1970)- এ বরা হয়েছে, “ইন্টারেস্ট হচ্ছে অর্থ ব্যবহারের মূল্য (Charge)। মধ্য যুগের শেষ নাগাদ ঋণের ওপর আরোপিত যে কোন পরিমাণ অতিরিক্তকেই সাধারণত ইউসারী গণ্য করা হতো”। Encyclopaedia Americana-য় বলা হয়েছে “পূর্বে(previously) ইউসারী বলা হতো ইন্টারেস্টকে যা ঋণদাতাকে তার ক্ষতিপূরণ করা বাবত দেয়া হতো। অপরদিকে, অর্থ (বা কোন ফাঞ্জিবল পণ্য) ব্যবহারের বিনিময় হিসেবে প্রদত্ত মূল্যকে বলা হতো ইউসারী”। এভাবেই মূলতঃ (Originally) ইউসারী শব্দ দ্বারা ইন্টারেস্টের ভিত্তিতে ঋণ লেনদেন করাকেই বুঝাতো এবং সংস্কার আন্দোলনের পূর্ব পর্যন্ত অর্থ ব্যবহারের বিনিময়ে গৃহীত কম-বেশি যে কোন পরিমাণ ইন্টারেস্টকে ইউসারী বলা হতো। সুতরাং একথা স্পষ্ট যে, মূল অর্থের দিক থেকে ঋণের ওপর ধার্যকৃত ইন্টারেস্টই হচ্ছে ইউসারী, ইউসারী ছাড়া অন্য কিছু নয়। সেকালে সকল ইন্টারেস্টকে ইউসারিায়াস বলে গণ্য করা হতো। কিন্তু পরবর্তীকালে ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্প্রসারণ ঘটলে ঋণের চাহিদা বৃদ্ধি পায় এবং ইউসারীর সংজ্ঞায় পরিবর্তন আনা অপরিহার্য মনে করা হয়। ফলে ১৩শ শতকে যুক্তরাজ্যে সুদকে বৈধ করে আইন প্রণয়ন করা হয় এবং আইন দ্বারা বৈধকৃত এই সীমা পর্যন্ত ইউসারী হারকে ইন্টারেস্ট নাম দেওয়া হয়। সূত্র ধরেই The Concise Oxford Dictionary- তে উচ্চ হারের ইন্টারেস্টকে ইউসারী বলা হয়েছে। তাদেঁর প্রদত্ত ইউসারী সংজ্ঞা হচ্ছে, "the practice of lending money at exorbitant interest, especially at higher interest than is legal." “অতি উচ্চ সুদের হারে অর্থ ধার দেওয়া, বিশেষ করে বৈধ হারের চেয়ে উচ্চতর সুদের হারে”। The New Encyclopaedia Britannica-য় ইন্টারেস্টের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, ইন্টারেস্ট হচ্ছে “ঋণ অথবা অর্থ ব্যবহারের বিনিময়ে প্রদত্ত দাম”। আর ইউসারীর সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, “মধ্য যুগের ন্যায় আর্থিক ঋণের ওপর অতি উচ্চ হারে ইন্টারেস্ট ধার্য করা হচ্ছে ইউসারী। মূলতঃ অতীতে সকল হারের ইন্টারেস্টকেই ইউসারিয়াস গণ্য করা হতো, কিন্তু ১৩শ শতকে ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণের সাথে সাথে ইউসারীকে নতুনভাবে সংজ্ঞায়িত করা জরুরী হয়ে উঠে”।

সুতরাং ইন্টারেস্ট ও ইউসারীর মধ্যে মৌলিকভাবে কোন পার্থক্য কখনো ছিল না এবং নেই। ব্রিটিশ আইনে এতদুভয়ের মধ্যে যে পার্থক্য সৃষ্টি করা হয়েছে সেটাও কেবল হারের পার্থক্য, চরিত্র ও বৈশিষ্ট্যগত কোন পার্থক্য নয়।

সুদ শব্দটি এই একই অর্থে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। আল্লামা মওদূদী লিখেছেন, “কুরআন মজীদে সুদের প্রতিশব্দ হিসেবে রিবা শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে”।[মওদূদী, প্রাগুক্ত, পৃ: ৮৪।] সুদ অর্থ হচ্ছে ঋণ দিয়ে আসলের ওপর অতিরিক্তকে বুঝায়।[বাদাবী, যাকি আল-দ্বীন, পূর্বোক্ত, পৃ: ৩৪।]

সুতরাং ব্যুৎপত্তি ও শব্দার্থের দিক থেকে রিবা, নেশেখ, টারবিট, মারবিট, ইন্টারেস্ট, ইউসারী ও সুদ সব কটি শব্দ সমার্থবোধক। "Riba, Usury and Interest, therefore, have one and the same meaning and have a common factor of pre-determined positiveness.”[সিদ্দিকী, শহীদ হাসান, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৭।] “সুতরাং রিবা, ইউসারী ও ইন্টারেস্ট এসব কয়টি শব্দর অর্থ এক ও অভিন্ন। আর এদের সবকয়টিরই একটি সাধারণ উপাদান রয়েছে; তা হচ্ছে, পূর্বনির্ধারিত ধনাত্মক বৃদ্ধি”। পাকিস্তান সুপ্রীম কোর্টের রায়ে বলা হয়েছে, "Biaj, neshec, sood, Interest, Usury or riba, whatever name be ascribed to an 'increase', 'addition', 'excess', or 'gain', accruing on the principal amount loaned, the notion is practically as old as civilization itself. Essence of the transaction has be.en and remains a fixed or pre-determined and thus predictable, return for the use of money lent or advanced in a purely time related arrangement" [শরীয়ত ল’ রিপোর্টস, লাহোর ফেব্রূয়ারী, ২০০০, পৃ: ৭।]

“বিয়াজ, নেশেখ, সুদ, ইন্টারেস্ট, ইউসারী বা রিবা যে নামই দেওয়া হোক, ঋণের আসলের ওপর বৃদ্ধি, সংযোজন, অতিরিক্ত বা লাভের ধারণা আদিকাল থেকে চলে আসছে। বস্তুতঃ মানব সভ্যতা যত পুরাতন এই ধারণাটিও ততই প্রাচীন। এরূপ লেনদেনের অপরিহার্য উপাদান আগে যা ছিল আজও তাই আছে। সেটা হলোঃ ঋণ বা অগ্রিম হিসেবে প্রদত্ত অর্থ ব্যবহারের বিনিময়ে নিখাদ সময়ের ভিত্তিতে পূর্বাহ্ণে স্থিরীকৃত বা নির্ধারিত এবং সেহেতু সুপরিজ্ঞেয় আয়”।

রিবার পারিভাষিক অর্থ

রিবার শব্দার্থ তথা আভিধানিক অর্থের ব্যাপারে বিশেষজ্ঞদের মধে পূর্ণ ঐকমত্য রয়েছে; কিন্তু রিবার পারিভাষিক বা টেকনিক্যাল অর্থ নিয়ে তাপসীরকার, হাদীসবিশারদ, ফিক্বাহবিদ, বিশেষজ্ঞ স্কলার ও অর্থনীতিবিদদের মধ্যে ব্যাপক মতপার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। বিভিন্ন মাযহাবে রিবাকে ভিন্ন ভিন্ন রূপে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। আর এর ফলে আল-কুরআনে বর্ণিত রিবা এবং হাদীসে বর্ণিত রিবা ভিন্ন ভিন্ন রূপ পরিগ্রহ করেছে। কোন কোন ক্ষেত্রে রিবার আভিধানিক অর্থ এবং এর পারিভাষিক অর্থের মধ্যে পার্থক্য সৃষ্টি হয়েছে; এমনকি, এক সংজ্ঞার সাথে অপর সংজ্ঞার এমন অসংগতি সৃষ্টি হয়েছে যে, যে কোন লোকের পক্ষে দুই পরস্পর বিরোধী ধারণার সম্মুখীন হয়ে হতবুদ্ধি হওয়া ছাড়া কোন উপায় থাকে না। কেউ কেউ আবার এমনভাবে রিবাকে সংজ্ঞায়িত করেছেন যে, রিবা নাসীয়াহ সংজ্ঞার আওতায় এলেও রিবা ফদল সম্পূর্ণরূপে উপেক্ষিত হয়েছে; তারা আবার ইন্টারেস্ট ও ইউসারীরর যে অর্থ, হুবহু সেই একই অর্থে রিবাকে সংজ্ঞায়িত করেছেন। কোন কোন সংজ্ঞায় আবার রিবার আওতা-পরিধি এত ব্যাপকতা পেয়েছে যে, যা রিবা নয় তাও এর আওতায় এসে গেছে। যা হোক, এতসব বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা এ লেখার সম্ভব নয়। এখানে কেবল বিশিষ্ট ফক্বীহদের সংজ্ঞা এবং তার ব্যাখ্যা উপস্থাপন করা হবে।

রিবার সমন্বিত সংজ্ঞা

ফিক্বাহ ও বিশেষজ্ঞগণ রিবার যেসব সংজ্ঞা দিয়েছেন তন্মধ্যে ইমাম সারাখসী এবং তাঁর সাথে অপর কতিপয় ফক্বীহর প্রদত্ত সংজ্ঞাকেই সর্বব্যাপী, উত্তম ও গ্রহণযোগ্য সংজ্ঞা বলা যায়। তাঁরা রিবার অর্থ করেছেন অতিরিক্ত, বৃদ্ধি excess (ফদল), বিনিময়হীন বৃদ্ধি, excess without counter value, একদিকে বৃদ্ধি অপরদিকে বৃদ্ধি ছাড়াই ইত্যাদি। তাদেঁর মতে, “ক্রয়-বিক্রয়ে প্রতিমূল্য (counter value) নাই এমন প্রতিটি বৃদ্ধিই হচ্ছে রিবা”।[সারাখসী, আল-মাবসুত, ভলি-১২, পৃ: উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৬৩-‌‌১৬৪] হানাফী মাযহাবের ফক্বীহ ইমাম সারাখসী সুস্পষ্ট ভাষায় বলেছেন, "riba in Shariah is the stipulated excess in one of the two counter values without counter value in transaction of exchange (bay)"[সারাখসী, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৬৪।] অর্থাৎ “শরীয়তে রিবা হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়ে দুটি প্রতিমূল্যের কোন একটির ওপর ধার্যকৃত অতিরিক্ত (ফদল) যার কোন বিনিময় নেই”। আল নিহায়া ফী শরহি হিদায়া-তে বলা হয়েছে, "Riba is a specific increase entitled to either party without counter value"[আল-নিহায়া ফী শরহি হিদায়া, ভলি-২, পৃ:৫২৪; উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ৩১।] অর্থাৎ “রিবা হচ্ছে সুনির্দিষ্ট বৃদ্ধি যা কোন এক পক্ষ অপর পক্ষকে কাউন্টার ভ্যালু না দিয়েই গ্রহণ করে।

মালিকী মাযহাবের প্রখ্যাত ফক্বীহ ইবনে আরবী বলেছেন, "every increase which is without an 'iwad' or an equal counter value is riba" অর্থাৎ “বদলা বা সমান প্রতিমূল্য দেওয়া হয় না এমন প্রত্যেক বৃদ্ধিই রিবা”। তিনি আরও লিখেছেন, "riba literally means an increase and in the Qtir' anic verse riba is meant every kind of increase 'Ziadah' in an exchange which is without an equivalent counter value or return 'iwad."[ইবনে আরবী, আহকামূল কুরআন, ভলি-১, প্রথম সংস্করণ, ১৯৫২, পৃ: ২৪১, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৬৪।] অর্থাৎ “রিবার শাব্দিক অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি, আর কুরআনের আয়াতে রিবা দ্বারা ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে সকল প্রকার বৃদ্ধি ‘যিয়াদা’-কে বুঝানো হয়েছে যার সমমূল্যের কোন কাউন্টার ভ্যালূ বা বিনিময় ‘ইওয়ায’ নাই”।

এ ব্যাপারে সানআনী লিখেছেন, "riba literally means any 'fadal' or excess which by stipulation does not bring any 'iwad' or any equivalent return to the other party in a contract of 'muawada' barter or exchange of commodities.and services."[সানআনী, সুবুস সালাম, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৬৪।] অর্থাৎ “ভাষাগত অর্থে রিবা হচ্ছে ফদল বা অতিরিক্ত যা মুয়াবাদ বার্টার বা পণ্য-সামগ্রী ও সেবা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তির শর্ত অনুসারে অপরপক্ষের জন্য কোন বদলা (ইওয়ায) বা সমমূল্যের প্রতিদান বয়ে আনে না”।

সম্প্রতি এস. এ. চৌধুরীও রিবাকে একটি সাধারণ পরিভাষা হিসেবে উল্লেখ করেছেন এবং সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয়ে মূল্যের ওপরে অতিরিক্তকে রিবা বলেছেন। তাঁরা ভাষায়, "riba is a generic Quranic terminology for all kinds of excess above the value of a thing."[ M. A. Chowdhury, Riba, Financial Interest, Foundation for Islamic Economics, পৃ: ১০৩, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৫।] “রিবা হচ্ছে সামগ্রিক অর্থজ্ঞাপক একটি কুরআনী পরিভাষা জিনিসের মূল্যের ওপর আরোটিত সকল প্রকার অতিরিক্তকে বুঝায়”। ই, এম, নূরের মতে, এই সংজ্ঞানুসারে মূল্যের ওপর যে কোন বৃদ্ধি বা প্রবৃদ্ধিই হচ্ছে রিবার আওতাভূক্ত।[ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৫।]

উপরোক্ত সংজ্ঞাগুলো বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, রিবা উদ্ভুত হওয়ার ক্ষেত্র হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়। দুটি একজাতের অর্থ, পণ্য বা সেবা বাকিতে ক্রয়-বিক্রয় করলে স্থগিতকৃত কাউন্টার ভ্যালু হয় ঋণ, ঋণের ওপর সময়ের ভিত্তিতে ধার্যকৃত বিনিময়হীন (মাগনা) অতিরিক্তকে বলা হয়েছে রিবা। অনুরূপভাবে ভিন্ন ভিন্ন জাতের অর্থ, পণ্য বা সেবা বাকিতে ক্রয়-বিক্রয় করা হলে স্থগিতকৃত কাউন্টার ভ্যালু হয় দেনা/পাওনা। এই দেনা/পাওনার ওপর সময়ের ভিত্তিতে ধার্যকৃত অতিরিক্তেকেও বলা হয় রিবা। অপরদিকে একজাতের বস্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে নির্ধারিত কোন কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বিনিময়হীন বাড়তি নেওয়া হলে তাকে বলা হয়েছে রিবা। অনুরূপভাবে ভিন্ন ভিন্ন জাতের ক্রয়-বিক্রয়ে কোন কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বিনিময় না দিয়ে বাড়তি নেওয়া হলে সেই বাড়তিকেও বলা হয়েছে রিবা। বস্তুতঃ রিবা হচ্ছে বাকি, নগদ উভয় ক্রয়-বিক্রয়ে এক পক্ষের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বিনিময়হীন (মাগনা) বৃদ্ধি (ফদল যিয়াদা)। পার্থক্য হচ্ছে বাকির ক্ষেত্রে রিবা ধার্য করা হয়ে সময়ের কারণে, সময়ের ক্ষতিপূরণ বা মূল্য হিসেবে। আর নগদের ক্ষেত্রে রিবা ধার্য হয় সময় ছাড়া অন্যবিধ কারণে। উক্ত সংজ্ঞায় সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয়ে উদ্ভূত সকল সুদই অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। ক্রয়-বিক্রয় চুক্তিতে পৃথক শর্তের ফলে যে রিবা উদ্ভুত হয়, সে কথাও সংজ্ঞায় এসেছে। এক কথায়, রিবার সকল বৈশিষ্ট্যই উক্ত সংজ্ঞায় রয়েছে।

রিবার শ্রেণীবিন্যাস

ফিক্বাহ শাস্ত্রে রিবাকে প্রধানত রিবা নাসীয়াহ ও রিবা ফদল এই দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে এবং প্রত্যেক প্রকার রিবার সংজ্ঞা পৃথক পৃথকভাবে দেওয়া হয়েছে। এরূপ বিভক্তি কুরআন ও সুন্নাহয় পাওয়া যায় না। আল-কুরআনে তো শুধু ‘রিবা’ ও ‘আল-রিবা’ আছে। আর হাদীসে বলা হয়েছে রিবা হচ্ছে ‘ফদল’ অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি; আবার বলা হয়েছে, ‘নাসীয়াহ ব্যতীত রিবা হয় না’, ‘যা নাসীয়াহ তাই রিবা’। বুঝা যাচ্ছে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) রিবা শব্দের অর্থ করেছেন ফদল। আর রিবা হওয়ার কারণ বলেছেন নাসীয়াহ যার অর্থ হচ্ছে বিনিময়হীন। এ থেকে রিবার দু’টি বৈশিষ্ট্য পাওয়া যাচ্ছে। একটি হচ্ছে ফদল বা বৃদ্ধি, অপরটি হচ্ছে নাসীয়াহ বা বিনিময়হীন। মূল কথা দাঁড়াচ্ছে যে, ফদল যখন বিনিময়হীন হয় তখনই তা রিবার পর্যবসিত হয়। ফদলের যদি বিনিময় দেওয়া হয় তাহলে তা রিবা হয় না। “নাসীয়াহ ব্যতীত রিবা হয় না” কথার তাৎপর্য এটাই। সুতরাং রিবা নাসীয়াহ হারাম করা হয়েছে আল-কুরআনে, আর রিবা ফদল নিষিদ্ধ করা হয়েছে হাদীসে, একথা যথার্থ নয়; বরং হাদীসে রিবার ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে বিনিময়হীন বৃদ্ধি হিসেবে। উল্লেখ্য যে, ইতোপূর্বে বলা হয়েছে যে, নাসীয়াহর অর্থ হচ্ছে বিনিময়হীন; এটাই হচ্ছে সকল প্রকার রিবার মূল বৈশিষ্ট্য। আর ফদল অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি বা অতিরিক্ত। এই দৃষ্টিতে সকল প্রকার রিবাই হচ্ছে ফদল ও বিনিময়হীন; এক কথায়, রিবা হচ্ছে বিনিময়হীন ফদল বা বৃদ্ধি। সুতরাং কিছু রিবাকে রিবা নাসীয়াহ আর কিছু রিবাকে রিবা ফদল হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করা ঠিক নয়। তবে নাসীয়াহ শব্দের আর একটি অর্থ হচ্ছে, অবকাশ বা মেয়াদ, সেই হিসেবে ফিক্বাহশাস্ত্রের উক্ত বিভক্তিকে গ্রহণ করা যেতে পারে। এই অর্থেই এখানে প্রথমে রিবা নাসীয়াহ ও দ্বিতীয় পর্যায়ে রিবা ফদলের অর্থ ও সংজ্ঞা উপস্থাপন করা হচ্ছে।

রিবা নাসীয়াহঃ অর্থ

আরবী ‘নাসায়া’ শব্দ থেকে নাসীয়াহ শব্দটি উদ্ভুত হয়েছে।[চাপরা, এম, উমর, Towards A Just Monetary Syst~m. Islamic Foundation, U.K., পৃ: ৫৭।] J. M. Cowan, A Dictionary of Modern Written Arabic- এ নাসায়া অর্থ লিখেছেনঃ

নাসা - to put off, postpone, delay, defer, procrastinate (নিভিয়ে দেওয়া-বতিল করা; স্থগিত করা, বিলম্বিত করা, মুলতবি করা, গড়িমসি করা।)

নাসাআ - to allow time to pay, grant credit (পরিশোধের জন্য সময় দেওয়া; ঋণ মঞ্জুর/প্রদান করা।)

নাসাআ- long life, longevity (দীর্ঘ জীবন, দীর্ঘায়ূ।)

আল-মুনজাদ- এ লিখা হয়েছে; নাসাআ কাউকে ঋণে অবকাশ দেওয়া। আধুনিক আরবী-বাংলা অভিধানে ‘নাসীয়াহর’ অর্থ লিখা হয়েছে, পরিশোধে বিলম্ব, পরিশেধের জন্য প্রদত্ত সময়. বাকি, ধার।[ড. মুহাম্মদ ফজলুর রহমান, আধুনিক আরবী বাংলা অভিধান, পৃ: ৮৮৪।]

ড. চাপরা লিখেছেন, নাসায়া শব্দের অর্থ হচ্ছে সময়, মেয়াদ বা অবকাশ। ঋণ বা দেনা পরিশোধ করার জন্য ধার্যকৃত/প্রদত্ত মেয়াদকে বলা হয়ে নাসায়া।[চাপরা, এম, উমর: উপরোক্ত, পৃ:৫৭।] ইংরেজীতে একে বলা হয় waiting আর বাংলায় বলা হয় প্রতীক্ষা। ঋণ ও বাকি প্রদান করে তার কাউন্টার ভ্যালু ফেরত পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হয় এজন্য দেনা ও ঋণকে বলা হয় waiting বা প্রতীক্ষা। কর্দুর রিবা বা সুদী ঋণে ঋণদাতা ও ঋণগ্রহীতা এই মর্মে চুক্তিবদ্ধ হয় যে, ঋণ বা দেনা পরিশোধের জন্য নির্ধারিত মেয়াদ এবং পরিশোধে ব্যর্থ হলে পরবর্তীতে বর্ধিত মেয়াদের ওপর এত হারে সুদ ধার্য করা হবে। এভাবে সময় বা মেয়াদের বিনিময় হিসেবে এ রিবা ধার্য করা হয় বলে একে বলা হয় রিবা নাসীয়াহ বা মেয়াদী সুদ। ইংরেজীতে একে বলা হয় reward for waiting or time value of money (প্রতীক্ষার প্রতিদান বা অর্থের সময়ের মূল্য।)। বলা হয়েছে, "Riba in deferred transaction is nothing but a .. charge for the period of indebtedness ... This charge is also called a time value of money."[Muhammad Anwar: lslamicity of Banking and Modes of Islamic Banking, p. 2. The Article was received by the IERB for publication in its journal, Thoughts on Economics.] “বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে রিবা ঋণগ্রস্ত থাকা কাল/মেয়াদের দাম ছাড়া আর কিছুই না। .......... এই দামকে অর্থের সময়ের মূল্যও বলা হয়”। হাদীসে বলা হয়েছে, রিবা হয় নাসীয়াতে” "(riba is in nasiah)' অথবা বলা হয়েছে, “নাসীয়াহ ব্যতীত রিবা হয় না”। "(There is no riba except in nasiah)"; অন্য হাদীসে বলা হয়েছে, “যা ইয়াদান বিইয়াদিন তাতে কোন দোষ নেই, কিন্তু যা নাসীয়াহ তা রিবা”।[বুখারী, মুসলিম, মুসনাদে আহমদ।] সুতরাং ঋণ বা দেনার ওপর মেয়াদ বা সময়ের ভিত্তিতে ধার্যকৃত রিবা হচ্ছে রিবা নাসীয়াহ।

জাহিলী যুগে এই ধরনের রিবা ব্যাপকভাবে প্রচলিত ছিল এবং সকলেই একে রিবা বলে জানত। সেই জন্য কেউ কেউ একে বলেছেন রিবা আল-জাহিলিয়্যাত। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তাঁর বিদায় হজ্জের ঐতিহাসিক ভাষণেও একে রিবা আল-জাহিলিয়্যাত আখ্যায়িত করেছেন, রিবা আল-কর্দ, কেউ কেউ আবার বয়েছেন রিবা আল-দাউন। আল-কুরআনে সূরাতুল বাকারায় সুদ চূড়ান্তভাবে নিষিদ্ধ করে যে বিধি-বিধান দেওয়া হয়েছে তাতে তদানীন্তনকালে ব্যাপকভাবে প্রচলিত রিবা নাসীয়াহর প্রতিই ইঙ্গিত করা হয়েছে যে, আল-কুরআন কেবল নাসীয়াকে নিষিদ্ধ করেছে। এজন্য অনেকেই একে রিবা আল-কুরআন আখ্যায়িত করেছেন। সুতরাং রিবা আল-জাহিলিয়্যাত, রিবা আল-কর্দ, রিবা আল-দাইন, রিবা আল-কুরআন দ্বারা আসলে রিবা নাসীয়াকেই বুঝায়।

রিবা নাসীয়াঃ সংজ্ঞা

তাফসীরকার, ফিক্বাহবিদ, অর্থনীতিবিদ, বিশেষজ্ঞ ও স্কলারগণ রিবা সম্পর্কে ব্যাপক আলোচনা করেছেন। তারা সকলেই নিজ নিজ ভাষায় রিবা নাসীয়ার সংজ্ঞা দিয়েছেন। এখানে কতিপয় সংজ্ঞা পেশ করা হলো। এ কথা পূর্বেই বলা হয়েছে যে, অধিকাংশ স্কলারের সংজ্ঞায় কেবল রিবা নাসীয়াকেই রিবা বলা হয়েছে, রিবা ফদল এসব সংজ্ঞার আওতায় আসেনি। এজন্য এসব সংজ্ঞাকেও রিবা নাসীয়াহ শিরোনামের অধীনে পেশ করা হলো।

আল-কুরআনে বর্ণিত সুদ সংক্রান্ত বিধি-নিষেধের আলোকে আল-জাসসাস তাঁর প্রখ্যাত তাফসীর আহকামুল কুরআনে নিম্ন ভাষায় রিবার সংজ্ঞা দিয়েছেনঃ

“জাহিলিয়্যাত যুগের রিবা হচ্ছে, ঋণের আসলের ওপর ঋণগ্রহীতা কর্তৃক দেয় সেই অতিরিক্ত যার বিনিময়ে ঋণদাতা নির্ধারিত সময়ের জন্য ঋণ প্রদান করত”।[আল-জাসাস, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৬৯। উদ্ধৃত করেছেন, উসমানী, মুহাম্মত তকী, সুদ নিষিদ্ধঃ পাকিস্তান সুপ্রীম কোর্টের ঐতিহাসেক রায়, বাংলা তরজমা, মুহাম্মদ শরীফ হুসাইন, পৃ: ২৮।]

প্রখ্যাত তাফসীরবিদ আল-কুরতুবী লিখেছেন, “মুসলিমগণ এ ব্যাপারে একমত যে, ঋণের আসলের ওপর বৃদ্ধিই হচ্ছে রিবা, সে বৃদ্ধি যদি হয় এক মুঠো খড়, যেমন ইবনে মাসুদ বলেছেন, কিংবা যদি শস্যের একটি কণাও হয়, তাহলেও তা রিবাই”।[তাফসীর আল কুরতারী, ১৯৬৭, ৩য় খণ্ড, পৃ: ২৪১।]

আল্লামা রাগেব লিখেছেন, “ঋণদাতা ঋণগ্রহীতার নিকট থেকে ঋণের শর্ত হিসেবে বা পরিশোধের মেয়াদ বৃদ্ধির বিনিময়ে মূল পরিমানের অতিরিক্ত যাই গ্রহণ করে তাই রিবা”।[তাফসীর আয়াতুল আহকাম, ১ম খণ্ড, পৃ: ৩৮৩।]

আল্লামা আব্দুর রহমান আল-জাযিরি বলেছেন, “রিবার শাব্দিক অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি; তবে ফিক্বাহর পরিভাষায় সমজাতীয় পণ্য বিনিময়কালে পণ্যের পরিমাণে কম-বেশি করা হলে এবং অতিরিক্ত অংশের বিনিময় বা মূল্য দেওয়া না হলে সেই বাড়তি অংশকে বলা হয় রিবা”। তিনি বলেছেন, উক্ত বৃদ্ধি যদি অন্য পক্ষের পণ্য প্রদান স্থগিত (deferred) বা বিলম্বিত (waiting) করার কারণে হয় তাহলে একে বলা হয় রিবা আল-নাসীয়াহ। উদাহরণ স্বরূপ, গ্রীষ্মকালে, ১.৫০ ইরদাব (পরিামাণ) গম প্রদানের শর্তে যদি শীতকালে ১ ইরদাব গম বাকিতে বিক্রয় করা হয়, তাহলে এই .৫০ ইরদাব অতিরিক্ত গম হবে রিবা আল-নাসীয়াহ; কারণ ১ ইরদাব গমের মূল্যের সাথে অতিরিক্ত .৫০ ইরদাব যুক্ত করা হয়েছে অথচ বিক্রিত ১ ইরদাব গমের সাথে এর কোন বিনিময় মূল্য দেওয়া হয় নাই; বরং এই অতিরিক্ত নেয়া হয়েছে কেবল বিলম্বে দাম পরিশোধ বা সময়ের কারণে”।[আব্দুর রহমান আল-জাযিরিঃ আল-ফিক্বহ আলা আল-মাযিহাব আল-আরাবায়াহ, উদ্ধৃত করেছেন, চাপরা, এম, উমর, Towards A Just Monetary System, The Islamic Foundation, U.K., p. 241.]

আল্লামা মোহাম্মদ আসাদ বলেছেন, “ভাষাগত দিক থেকে রিবা শব্দ দ্বারা কোন জিনিসের মূল আয়তন বা পরিমাণের ওপরে অতিরিক্ত (addition) বা বৃদ্ধিকে (increase) বুঝায়। আর আল-কুরানের পরিভাষা হিসেবে কোন ব্যক্তি কর্তৃক অন্য কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠীকে ঋণ হিসেবে প্রদত্ত অর্থ বা পণ্য-সামগ্রীর ওপর সুদ (Interest) হিসেবে ধার্যকৃত অবৈধ অতিরিক্তই হচ্ছে রিবা”।[আসাদ, মোহাম্মদ, The Message of the Quran।]

আল্লামা মওদূদী রিবার ব্যাখ্যায় লিখেছেন, “আরবী ভাষায় এর অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি। পারিভাষিক অর্থে আরবরা এমন এক বর্ধিত অংশের অর্থকে রিবা বলতো যা ঋণদাতা ঋণগ্রহীতিার কাছ থেকে একটি স্থিরীকৃত হার অনুযায়ী ঋণ বাবদ প্রদত্ত মূল অর্থের বাইরে আদায় করত। আমাদের ভাষায় আমরা একেই বলি সুদ। কুরআন নাযিলের সময় আরবে নিম্নোক্ত তিন ধরনের সুদী লেনদেনের প্রচলন ছিলঃ

১. এক ব্যক্তি অন্য এক ব্যক্তির নিকট কোন জিনিস বিক্রি করতো এবং দাম পরিশোধের জন্য সময়সীমা নির্ধারণ করে দিতো। সেই সময়সীমা শেষ হওয়ার পর যদি দাম পরিশোধ না হতো, তাহলে তাকে আবার অতিরিক্ত সময় দিতো এবং প্রাপ্য দামের পরিমাণ বাড়িয়ে দিতো।

২. একজন অন্যজনকে ঋণ দিতো। ঋণদাতা ও ঋণগ্রহীতার মধ্যে চুক্তি হতো যে, অমুক সময়ের মধ্যে আসল থেকে এত পরিমাণ অর্থ বেশি ফেরত দিতে হবে; এবং

৩. ঋণদাতা ও ঋণগ্রহীতার মধ্যে একটি বিশেষ সময়সীমার জন্য একটি বিশেষ হার স্থিরীকৃত হয়ে যেতো। সেই সময়সীমার মধ্যে বর্ধিত অর্থসহ আসল অর্থ পরিশোধ না হলে পূর্বের চেয়ে বর্ধিত হারে পরিশোধেল শর্তে অতিরিক্ত সময় দেওয়া হতো।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আলা; তাফহীমুল কুরআন; সুরাতুল বাকারাহ, টীকা-৩১৫।]

অন্যত্র তিনি লিখেছেন যে, সুদের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ৩ টি:

“১. ঋণের আসল পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া;

২. সময়ের অনুপাতে আসল বৃদ্ধির সীমা, পরিমাণ বা হার নির্ধারিত হওয়া এবং

৩. উপরের দুটিকে শর্ত হিসেবে গ্রহণ করা”।

তিনি বলেছেন, “ঋণ সংক্রান্ত যে কোন লেনদেনের ক্ষেত্রে এ তিনটি বৈশিষ্ট্য পওয়া গেলে তা নিঃসন্দেহে সুদী লেনদেনে পরিণত হবে। এতে ঋণের উদ্দেশ্য এবং ঋণগ্রহীতা ধনী বা দরিদ্র যাই হোক তাতে কারবারের আসল চরিত্রে কোন পার্থক্য হবে না”।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা, সুদ ও আধুনিক ব্যাংকিং; বাংলা অনুবাদ, আব্বাস আলী খান ও আব্দুল মান্নান তালিব, আধুনিক প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৭৯, পৃ: ৮৮।]

ড. নাজাতুল্লাহ সিদ্দিকী আল-বাদাবীর উদ্ধৃতি দিয়ে লিখেছেন, “এটা সর্বসম্মত যে, রিবা অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি বা প্রবৃদ্ধি।..... তবে অধিকাংশের মত হচ্ছে যে, রিবা হচ্ছে ঋণ প্রদান-গ্রহণ কালে কৃত চুক্তি অনুসারে আসলের ওপর ধার্যকৃত সুদ (Interst) ; এ ছাড়া দেনাদার যদি ঋণ বা দেনার চুক্তিতে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ঋণ/দেনা পরিশোধে ব্যর্থ হয়, তাহলে প্রতি বর্ধিত মেয়াদের জন্য ঋণ/দেনার আসলের ওপর আরোপিত সকল অতিরিক্তই রিবার মধ্যে শামিল”।[সিদ্দিকী, এম, এন; পূর্বোক্ত, পৃ: ৩৭-৩৮।]

এ প্রসঙ্গে সাইয়েদ কুতুব শহীদ লিখেছেন, “যে রিবা সুদ জাহেলী যুগে পরিচিত ছিল এবং যা উচ্ছেদ করার জন্য আল-কুরআনের আয়াতগুলো নাযিল হয়েছে তা ছিল প্রধানত ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে প্রদত্ত অর্থ বা দ্রব্য ফেরত নেয়ার সময়ে বেশি নেয়া।লেনদেনের সময় একই জিনিস বেশি নেয়া বা বেশি দেওয়া, আসল পণ্যের ওপর অধিক গ্রহণ করা। আর অবকাশ বলতে সেই সময়কে বুঝায় যার জন্য অতিরিক্তটা নেওয়া হয়। আর এই ফায়দা লেনদেনের শর্ত হিসেবে বিবেচিত হলে তখন তা সুদ হয়ে যায়। অর্থাৎ কোন মালের পরিবর্তে সমশ্রেণীর মাল কিছু বেশি নেয়া হতো তো এই সময়ের কারণেই”।[সাইয়েদ, কুতুব শহীদ : তাফসীর ফী যিলালিল কুরআন : বাংলা অনুবাদ, আল-কুরআন একাডেমী, লন্ডন, ৪র্থ খণ্ড, ২০০১, পৃ: ৪৬৯-৪৭২।]

ড. উমর চাপরা লিখেচেন, “রিবার শাব্দিক অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি, অতিরিক্ত, সম্প্রসারণ বা প্রবৃদ্ধি। আর শরয়ী পরিভাষায়, রিবা সেই অতিরিক্তকে (premium) বুঝায় যা ঋণের আসলসহ পরিশোধ করতে বাধ্য হয়”।[চাপরা ড. উমর : The Nature of Riba, Journal of Islamic Banking and Finance, Vol. 6, No.3, July-Sept., 1989; p. 7.]

আধুনিক বিশ্বের প্রখ্যাত উলামায়ে কিরাম, বিশেষজ্ঞ ও স্কলারদের বিভিন্ন সম্মেলন ও বৈঠক হতেও সর্বসম্মতিক্রমে রিবার অনুরূপ সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ড. চাপরা লিখেছেন, প্রাথমিক যুগ থেকেই মুসলিম বিশেষজ্ঞগণ রিাবাকে সর্বসম্মতভাবে এই অর্থেই বুঝে আসছেন। আধুনিক কালে ইসলামী আইনবেত্তাদের বেশ কয়টি আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্টিত হয়েছে। এসব সম্মেলনের মধ্যে মুতামার আল-ফিক্বহ আল-ইসলামীর একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় প্যারিসে ১৯৫১ সালে; আর একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৬৫ সালে কায়রোতে। ইসলামী সম্মেলন সংস্থা (OIC) ও রাবেতা ফিক্বহ কমিটির সম্মেলনসহ সম্প্রতি অনুষ্ঠিত সকল সম্মেলন থেকে সর্বসম্মতবভাবে রিবা সম্পর্কে উক্তরূপ রায় দেওয়া হয়েছে। সুতরাং রিবাকে ভিন্নতর অর্থে ব্যাখ্যা করার কোন সুযোগ নেই”।[ চাপরা, ড. উমর : Prohibition of Interest : Does it Make Sense? Islamic Da'wa Movement, IDM Publications, South Africa, 2001, pp. 2-3.]

পাকিস্তান সুপ্রীম কোর্টের শরীয়াহ আপিলেট বেঞ্চ-এর রায়ে বলা হয়েছেঃ বিচারপতি খলিলুর রহমান খান, বিাচারপতি ওয়াজীহুদ্দীন আহমদ ও বিচারপতি মাওলানা মুহাম্মদ তকী উসমানী কর্তৃক লিখিত পৃথক পৃথক তিনটি রায়ে বিস্তারিতভাবে লিপিবদ্ধ কারণসমূহের প্রেক্ষিতে এ মর্মে ঘোষণা করা যাচ্ছে যে, ভোগ বা উৎপাদন যে উদ্দেশ্যেই হোক, নির্বিশেষে সকল ঋণ বা দেনার চুক্তিতে আসলের ওপর ধার্যকৃত কম হোক বেশি হোক, যে কোন অতিরিক্তই হচ্ছে আল-কুরআনে হারাম ঘোষিত রিবা”।[উসমানী, মুহাম্মদ তকী, পূর্বোক্ত, পৃ: ১২৭।]

ড. জিয়াউল হক লিখেছেন, মুসলিম আইনবেত্তাগণ একে রিবা নাসীয়াহ বলে উল্লেখ করছেন। এটা হচ্ছে স্থগিত বৃদ্ধি (deferred increase) বা সময়ের ভিত্তিতে অতিরিক্ত (excess in time), ঋণগ্রহীতা যার কোন ক্ষতিপূরণ (recompense)বা সমমূল্য (equivalence) (/wad, Badal) পায় না; সুতরাং “সুদ হচ্ছে অনুপার্জিত আয়, যাতে ঋণগ্রহীতাকে কোন বিনিময় (return) বা কাউন্টার ভ্যালু দেওয়া হয় না। মুসলিম আইনবেত্তাদের এটাই অভিমত”।[হক, ড. জিয়াউল : Riba and Interest, Journal of Islamic Economics, Banking and Finance, Vol. 6, No.4, October-December, 1989, Autumn Issue, p. 8, 9.]

বিশেষজ্ঞদের উল্লেখিত সংজ্ঞাসমূহের ভিত্তিতে বলা যায় যে, ঋণ ও দেনার ওপর চুক্তি অনুসারে ধার্যকৃত যে কোন অতিরিক্ত, যার কোন বিনিময় দেওয়া হয় না, যা সময়ের সাথে গুণে গুণে বৃদ্ধি পায় এবং কারবারের সাথে যার কোন সম্পর্ক নাই তাই হচ্ছে রিবা নাসীয়াহ। এক কথায়, সময়ের কারণে ঋণের কাউন্টার ভ্যালু/দেনার ওপর বৃদ্ধিই (ফদল/যিয়াদা) হচ্ছে রিবা নাসীয়াহ।

অন্য কথায় ঋণকে যখন অতিরিক্তের কারণ বানানো হয়, তথা অতিরিক্তকে ঋণের বিনিময়, ঋণের দাম বা price of credit বানানো হয় অথবা অতিরিক্ত দেওয়ার শর্তে যখন ঋণ দেওয়া হয় তখন সেই অতিরিক্ত হয় রিবা নাসীয়াহ বা মেয়াদী সুদ। এই বৃদ্ধি বা অতিরিক্ত যে আকারেই হোক, একই জাতের অর্থ বা পণ্যের অতিরিক্ত কোন পরিমাণ হোক বা অন্য কোন অর্থ বা পণ্যের কোন পরিমাণ হোক, এমনকি, যদি কোন সেবা, বেনিফিট (benefit) উপহার, উপঢৌকন বা দানও হয়, তাহলেও তা সুদ বলে গণ্য হবে। সুতরাং ঋণের শর্তে ধার দেয় যে, ঋণগ্রহীতা ১ বছর পর ১০০/- টাকা পরিশোধ করবে এবং তার সাথে আরও ১০/- টাকা বেশি দেবে অথবা ১০০/- টাকার সাথে ১ কেজি পেঁপে দেবে বা তার গাড়ীতে করে ঋণদাতাকে তার বাসায় পৌঁছে দেবে, তাহলে অতিরিক্ত এই ১০ টাকা বা ১ কেজি পেঁপে বা গাড়ীর সেবা হবে রিবা নাসীয়াহ বা মেয়াদী সুদ।

ঋণের অতিরিক্ত যাই হোক, তা হবে বিনিময়হীন বা মাগনা, আর মাগনা বলেই এই ১০/- টাকা বা ১ কেজি পেঁপে বা গাড়ীর সেবা হবে রিবা বা সুদ। ঋণগ্রহীতা যদি এক বছর নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে আসলের কাউন্টার ভ্যালু ও এর সাথে মাগনা বা অতিরিক্ত হিসেবে ১০% সুদ পরিশোধ করতে না পারে তাহলে অতিরিক্ত সময়ের জন্য চুক্তি অনুসারে বার্ষিক ১০/- টাকা হিসেবে প্রতিদনি সুদের অংক বৃদ্ধি পেতে থাকবে এবং যতদিন ঋণগ্রহীতা তার মূল ঋণ পরিশোধ করতে না পারবে ততদিনই বৃদ্ধির গতি অব্যাহত থাকবে। এমনকি তা দ্বিগুণও হয়ে যেতে পারে। আর এই সকল বর্ধিত অংশই হবে মাগনা ও একতরফা (unilateral)। অনুরূপভাবে কোন ঋণদাতা যদি ঋণগ্রহীতাকে ১ কিলো লবণ এই শর্তে ধার দেয় যে, ঋণগ্রহীতা এক মাস পর ১.৫০ কিলো লবণ ফেরত দেবে, তাহলে এই .৫০ কিঃ লবণ হবে মূল লবণের কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে অতিরিক্ত ও মাগনা, সুতরাং রিবা।

আনাস ইবনে মালিক (রাঃ) বর্ণিত একটি হাদীস থেকেও এর ইঙ্গিত পাওয়া যায়। উক্ত হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “তোমাদের কেউ যদি অন্য কাউকে ঋণ দেয়, অতঃপর ঋণগ্রহীতা যদি ঋণদাতার সামনে খাবার ডিশ পেশ করে, তাহলে ঋণদাতার উচিত সেটা গ্রহণ না করা; আর ঋণগ্রহীতা যদি ঋণদাতাকে তার বাহন পশুর ওপর আরোহণ করার প্রস্তাব করে, তাহলে ঋণদাতার উচিত তা গ্রহণ না করা, যদি না তারা পূর্ব থেকেই পরস্পর অনুরূপ আনুকূল্যও সুবিধা বিনিময়ে অভ্যস্ত হয়”। (সুনান আল-বায়হাকি)

হাদীস থেকে এটা স্পষ্ট হয়েছে, যদি এমন হয় যে, ঋণগ্রহীতা ঋণ গ্রহণ করার পূর্বে জীবনে কখনও ঋণদাতাকে খাওয়ায় নাই, অথবা কখনও তার ঘোড়ায় উঠে ভ্রমণ করার সুযোগ দেয় নাই; কিন্তু তার নিকট থেকে ঋণ নেওয়ার পর সে তাকে খাবার সেধেছে এবং তার বাহনে ভ্রমন করার প্রস্তাব করেছে, এতে স্বাভাবিকভাবেই আশংকা হয় যে, ঋণ দেওয়ার কারণেই সে এখন ঋণদাতাকে এই সব সুযোগ-সুবিধা দিতে আগ্রহী। আর যদি তাই হয়, তাহলে ঋণ হবে এই সুবিধাগুলোর কারণ। আশংকা যে, এ অবস্থায় সুবিধাগুলো রিবা হয়ে যাবে। কিন্তু ঋণগ্রহীতা ও ঋণদাতার মধ্যে যদি পূর্ব থেকেই পরস্পরকে খাওয়ানো বা একজন আর একজনের বাহনে উঠার ব্যাপারে অভ্যস্ত হয়ে থাকে, তাহলে ঋণ গ্রহণের পরে খওয়া বা বাহনে উঠার প্রস্তাব করলে তা ঋণের কারণে নয় বরং পারস্পরিক সম্পর্ক ও অভ্যাসের কারণে করা হয়েছে বলে গণ্য হবে এবং সুদ পরিণত হওয়ার আশংকা থাকবে না। এজন্য রাসূলুল্লাহ (সাঃ) পূর্ব থেকে অভ্যস্ত না হলে উল্লেখিত অফার (offer) গ্রহণ করতে নিষেধ করেছেন। এতে প্রতীয়মান হয় যে, অতিরিক্ত যদি ঋণের কারণে বা ঋণের শর্ত হিসেবে হয়, তাহলে তা হয় রিবা।

অন্য একটি হাদীসে আনাস ইবনে মালিক থেকে বর্ণিত আছে, নবী (সাঃ) বলেছেন, “কোন ব্যক্তি যদি কাউকে ঋণ দেয়, তাহলে (ঋণগ্রহীতার পক্ষ থেকে দেয়া) কোন উপহার (gift) গ্রহণ করা তার উচিত নয়”।(মিশকাত, বোখারীর সূত্রে উদ্ধৃত।)

আবূ বুয়াদ ইবনে আবূ মূসা থেকে অন্য একটি হাদীসে বর্ণিত আছে, তিনি বলেছেন, “আমি মদীনায় এসে আব্দুল্লাহ ইবনে সালামের সাথে সাক্ষাৎ করলাম। তিনি (আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম) বলেছেন, “আপনি এমন এক দেশে বাস করেন যেখানে অবাধে এবং ব্যাপকভাবে (rampant) রিবা লেনদেন চালু আছে। সুতরাং আপনার কাছে ঋণী কোন ব্যক্তি যদি আপনাকে এক বোঝা খড় অথবা সামান্য কিছু যব, অথবা এক আটিঁ শুষ্ক তৃণ উপহার দেয়, তাহলে আপনি তা গ্রহণ করবেন না, কারণ এটা রিবা”।(মিশকাত, বোখারীর সূত্রে উদ্ধৃত।)

উল্লেখিত হাদীস থেকে প্রতীয়মান হয় যে, ঋণের শর্তে অতি তুচ্ছ ও নগণ্য জিনিসও যদি আসলের অতিরিক্ত হিসেবে দেওয়া হয়, তাহলে তা অবশ্যই রিবা; রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর বিশিষ্ট সাহাবী হযরত ফাদালাহ ইবনে উবাইদা সম্ভবত এজন্যই বলেছেন যে, “The benfit derived from any loan is one of the different aspercrs of riba” “ঋণ থেকে আহৃত (derived) সুবিধা হচ্ছে সুদের বিভিন্ন ধরনের একটি”। -সুনান আল বায়হাকি)।

লক্ষণীয় যে, কোন কোন বিশেষজ্ঞের সংজ্ঞায় সমজাতের অর্থ বা পণ্য বিনিময়কালে পরিমাণে কম-বেশি করা হলে রিবা উদ্ভুত হওয়ার কথা বলা হয়েছে। এ কথা ঠিক যে, সমজাতের অর্থ বা পণ্যের বাকি ক্রয়-বিক্রয় থেকে ঋণের সৃষ্টি হয় এবং এই ঋণের ওপর ধার্যকৃত অতিরিক্তও রিবা হয়। আর দেনার সৃষ্টি হয় ভিন্ন ভিন্ন জাতের মুদ্রা বা পণ্যের বাকি ক্রয়-বিক্রয় থেকে। উদাহরণস্বরূপ, ধরা যাক ক একজন চাল বিক্রেতা আর খ হচ্ছে চালের ক্রেতা। খ ক- এর কাছ থেকে ৪০ কেজি চাল এক মাসের জন্য বাকিতে কিনতে চাইলো। ক বাকিতে চাল বিক্রি করতে রাজী হলো। উভয়ে দরকষাকষি করে স্থির করলো প্রতি কেজি চালের দাম হবে ৩০/- টাকা অর্থাৎ ৪০ কেজি চালের মোট দাম দাঁড়ালো ১,২০০/- টাকা। এই ১,২০০/- টাকা হলো ৪০ কেজি চালের কাউন্টার ভ্যালু, ক-এর পাওনা এবং খ-এর দেনা। এই বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের সময়ে অথবা পরবর্তীতে ক ও খ সম্মত হয়ে এটাও স্থির করলো যে, খ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তার দেনা পরিশোধে ব্যর্থ হলে পরবর্তী বর্ধিত সময়ের মধ্যে উক্ত দেনার ওপর বার্ষিক ১০% হিসেবে সুদ ধার্য করা হবে এবং খ তা পরিশোধে বাধ্য থাকবে। অতঃপর খ যদি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তার দেনা সম্পূর্ণ পরিশোধ করে দেয়, তাহলে লেনদেন শেষ হয়ে যাবে এবং খ-কে কোন সুদ দিতে হবে না। কিন্তু যদি তার দেনা সম্পূর্ণ বা এর কোন অংশ পরিশোধে ব্যর্থ হয়, তাহলে নির্ধারিত এক মাস পর হতে তার অপরিশোধিত দেনার ওপর প্রতিদিন সুদের অংক যোগ হতে থাকবে যত দিন সে সম্পূর্ণ মূল দেনা ও সুদ পরিশোধে ব্যর্থ হয়, তাহলে নির্ধারিত এক মাস পর হতে তার অপরিশোধিত দেনার ওপর প্রতিদিন সুদের অংক যোগ হতে থাকবে যত দিন সে সম্পূর্ণ মূল দেনা ও সুদ পরিশোধ না করবে। সুতরাং একজাতের অর্থ বা পণ্যের বাকি ক্রয়-বিক্রয় তথা ঋণের ক্ষেত্রে রিবা উদ্ভূত হয় একথা যেমন যথার্থ তেমনি ভিন্ন ভিন্ন জাতের অর্থ, পণ্য বা সেবার বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে সৃষ্ট দেনার ওপর অতিরিক্ত ধার্য করা হলে তাও রিবা হয়, একথাও সত্য।

রিবা ফদলঃ অর্থ

আরবী ফদল শব্দের অর্থ হচ্ছে অতিরিক্ত, বাড়তি, বেশি ইত্যাদি। হাদীস থেকে জানা যায় যে, এক দীনারের বদলে দুই দীনার, এক দিরহামের পরিবর্তে দুই দিরহাম, এক সা’ খেজুরের বিনিময়ে দুই সা’ খেজুর, হাতে হাতে নগদ ক্রয়-বিক্রয় করা হলে দীনার, দিরহাম বা খেজুরের অতিরিক্ত পরিমাণ হয় রিবা (মুসলিম)। এছাড়া নিলামে প্রতারণামূলক ডাকের মাধ্যমে দাম বাড়ানো হলে, পারিতোষিকের বিনিময়ে কারও জন্য সুপারিশ করা হলে অথবা প্রতারণা করে দাম বেশি নেওয়া হলে দামের সেই সব বর্ধিত অংশ ও পারিতোষিককেও আল্লাহর রাসূল (সাঃ) রিবা ঘোষণা করেছেন। ফিক্বাহ শাস্ত্রে এই ধরণের যাবতীয় রিবাকে বলা হয়েছে রিবা ফদল।সুতরাং রিবা নাসীয়ার ন্যায় ঋণ ও দেনার ক্ষেত্রে নয়, বরং হাতে হাতে নগদ বিনিময় ও ক্রয়-বিক্রয়ে রিবা ফদলের উদ্ভব ঘটে। অর্থাৎ রিবা নাসীয়াহ ও রিবা ফদলের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে, রিবা নাসীয়াহ হয় ঋণ ও দেনার ক্ষেত্রে তথা বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে; অপরদিকে রিবা ফদল হয় নগদ বিনিময় ও ক্রয়-বিক্রয়ে। আরও স্পষ্ট করে বলা যায় যে, রিবা নাসীয়ায় নেওয়া ও দেওয়ার মাঝে থাকে সময়ের ব্যবধান তথা রিবা নাসীয়াহ হচ্ছে সময়ের বিনিময়; কিন্তু রিবা ফদলে নেওয়া ও দেওয়ার মাঝে সময়ের ব্যবধান থাকে অনুপস্থিত। নগদ বিনিময় বা ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে এই রিবা হয়, এজন্য কেউ কেউ একে রিবা আল-বূয়ূ বা ক্রয়-বিক্রয়ের রিবা আখ্যায়িত করেছেন। কেউ কেউ আবার একে রিবা আল-নকদ বা নদগ রিবা বলে উল্লেখ করেছেন। এই ধরনের রিবায় সময় নাই, শুধু বৃদ্ধি আছে। এজন্য কেউ কেউ একে বলেছেন রিবা আল-ফদল। এই বিরার উল্লেখ হাদীসে করা হয়েছে; এই জন্য কেউ কেউ একে বলেছেন রিবা আল-সুন্নাহ। সুতরাং রিবা আল-বুয়ূ, রিবা আল-নকদ, রিবা আল-সুন্নাহ ও রিবা আল-ফদল একই ধরনের রিবা অর্থাৎ রিবা আল-ফদলেরই বিভিন্ন নাম মাত্র।

রিবা ফদলঃ সংজ্ঞা

উলামায়ে কিরাম ও বিশেষজ্ঞগণ রিবা ফদলকে নিম্নরূপে সংজ্ঞায়িত করেছেন। উল্লেখ্য যে, রিবা ফদলের সংজ্ঞায় সকলেই সমজাতের পণ্য বা অর্থের নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবা ফদল উদ্ভূত হওয়ার কথা বুঝিয়েছেন। ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্য বা অর্থ নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবার বিষয়টি কারও কাছেই গুরুত্ব পায়নি। উদাহরণ স্বরূপ, ইবনে হাজার আস-কালানী লিখেছেন, “পণ্য বা অর্থের বিনিময়ে অতিরিক্ত পণ্য বা অর্থই হচ্ছে রিবা। যেমন, এক দীনারের বিনিময়ে দুই দীনার”।[উদ্ধৃত, আফজালুর রহমান, ইকোনমিক ডকট্রিনস অব ইসলাম।] এখানে বিনিময় বলতে তিনি কেবল নগদ হাতে হাতে বিনিময়কে বুঝিয়েছেন।

একইভাবে সাইয়েদ কুতুব শহীদ তার ফী যিলালিল কুরআনে লিখেছেন, “হযরত বিলাল (রাঃ) এর ঘটনায় তা পরিষ্কাকর হয়ে গেছে। তিনি খারাপ দুই সা’ খেজুরের বিনিময়ে এক সা’ভাল খেজুর নিয়েছেন। যেহেতু একই খেজুর থেকে অন্য খেজুরের জন্ম হলো, সেজন্যেই রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এটাকে রিবা বলে ঘোষণা করেছেন”।[সাইয়েদ কুতুব শহীদ, পূর্বোক্ত, পৃ: ৪৭‌১।]

সাইয়েদ মওদূদীও রিবা ফদলের অনুরূপ সংজ্ঞা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “একই জাতিভুক্ত দুটি জিনিসের হাতে হাতে লেনদেনের ক্ষেত্রে যে বৃদ্ধি হয় তাকে বলা হয় রিবা আল-ফদল”।[মওদূদী, সুদ ও আধুনিক ব্যাংকিং, আধুনিক প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৭১,পৃ: ৯৬।]

আল্লামা আব্দুর রহমান আল-জাযিরি বলেছেন, “লেনদেনের মধ্যে সময়ের ব্যবধান না থাকা সত্ত্বেও যদি (একই জাতের পণ্য) কম পরিমাণের বিনিময়ে বেশি পরিমাণ নেওয়া হয় এবং অতিরিক্ত অংশের মূল্যের ক্ষতিপূরণ করা না হয়, তাহলে সেই বাড়তি অংশ হয় রিবা আল-ফদল”।[আল্লামা আব্দুর রহমান আল-জাযিরি, আল-ফিক্বহ আলা আল মাযাহিব আল-আরবায়াহ, উদ্ধৃত, চাপরা, প্রাগুক্ত, পৃ: ২৪১।]

পাকিস্তান সুপ্রীম কোর্টের শরীয়াহ আপীলেট বেঞ্চের রায়ে বলা হয়েছে যে, “নবী করীম (সাঃ) কতিপয় লেনদেনকে রিবা আখ্যায়িত করেছেন যা নিম্নে উল্লেখ করা হলোঃ

১. অর্থের বিনিময়ে অর্থ লেনদেনে উভয় পক্ষের অর্থ যদি একই জাতের ও শ্রেণীভুক্ত হয় এবং উভয় পক্ষ যদি সমান সমান পরিমাণের অর্থ লেনদেন না করে, তাহলে বিনিময় তাৎক্ষণিক হাতে হাতে নগদ হোক (spot transaciton) অথবা বাকির ভিত্তিতে হোক, সে লেনদেন হবে রিবা।

২. বার্টার বা পণ্যের সাথে পণ্য বিনিময়ে সংশ্লিষ্ট পণ্যগুলো যদি ওজন বা পারিমাপযোগ্য হয় এবং একই জাত ও শ্রেণীভুক্ত হয় এবং যদি উভয় পক্ষের পণ্যের পরিমাণ অসমান হয় অথবা এক পক্ষ যদি তার পণ্য প্রদান ভবিষ্যতের জন্য স্থগিত বা বাকি রাখে, তাহলে এরূপ লেনদেন রিবা লেনদেনে পর্যবসিত হবে।

৩. বার্টার বা পণ্যের সাথে পণ্য বিনিময়ে পণ্য যদি ভিন্ন ভিন্ন জাত ও শ্রণীভুক্ত হয় এবং সেগুলো যদি ওজন ও পরিমানযোগ্য হয় আর কোন এক পক্ষ যদি তার পণ্য প্রদানস্থগিত বা বাকি রাখে, তাহলে তা রিবা লেনদেনেন অন্তর্ভুক্ত হবে”।[উসমানী, মুহাম্মদ,তকী, পূর্বোক্ত, পৃ: ১২৭-১২৮।]

হানাফী ফক্বীহদের মতে, “একই জাতের (similarily) বস্তুগত সম্পদ ক্রয়-বিক্রয় চুক্তিতে, আইনত গ্রহনযোগ্য পরিমাপের ভিত্তিতে, কোন অতিরিক্ত পরিমাণ ধার্য করা হলে সেই অতিরিক্ত হচ্ছে রিবা ফদল”। “It is an excess of tangible prorerty stipulated in the exchange contract on the basis of legal criteria in the similarity of two items."[উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ৩৫।]

শাফেয়ী আইনবেত্তাদের মতে, It is an exchange with an increase in one of the trade items over the other.” অর্থাৎ “ক্রয়-বিক্রয়ে দুটি পণ্যের কোন একটির পরিমাণ অপরটির চেয়ে বেশি করে ক্রয়-বিক্রয় করাই হচ্ছে রিবা ফদল”।[উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ৩৬।]

হাম্বালী মাযহাবের ফক্বীহদের দৃষ্টিতে, "It is an increase in one of the exchange items identical in kind of measurable and weighable goods." অর্থাৎ “রিবা ফদল একই জাতের পরিমাপ ও ওজনযোগ্য পণ্যের ক্রয়-বিক্রয়ে কোন একটি পণ্যের পরিমাণ বেশি করা”।[ইবিদ, পৃ: ৩৬।]

উক্ত সংজ্ঞাগুলো বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, হানাফী মাযহাবের মতে রিবা হচ্ছে, বাস্তব অর্থে অতিরিক্ত (excess) বা বৃদ্ধি (increase)। যথা, এক দিরহামের বিনিময়ে দুই দিরহাম বিক্রি করা। এখানে এক পক্ষের অতিরিক্ত এক দিরহাম হচ্ছে রিবা। আর 'without a corresponding counter value' কথার তাৎপর্য হচ্ছে, উক্ত বাড়তি এক দিরহামের কোন কাউন্টার ভ্যালু নেই বা দেওয়া হয় নাই বা তা মাগনা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া, সংজ্ঞাতে বাকির মেয়াদকেও রিবা বলা হয়েছে। এ সম্পর্কে পূর্বেই বিশিষ্ট ফিক্বাহবিদদের মত উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে যে, নিষিদ্ধ হচ্ছে ফদল বা বৃদ্ধি যা বিনিময়হীন; সময় নিষিদ্ধ নয়, সময় বা মেয়াদ রিবা নয়। সর্বোপরি এইসব সংজ্ঞা অনুসারে রিবা ফদল উদ্ভূত হয় সমজাতের পণ্য-সামগ্রী নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে দালাল কর্তৃক মিথ্যা ডাকের মাধ্যমে দাম বাড়ানো হলে, প্রতারণার মাধ্যমে দাম বেশি নিলে, বাজার সম্পর্কে অনবহিত লোককে ঠকিয়ে দাম ও পারিতোষিকের বিনিময়ে কারও পক্ষে সুপারিশ করা হলে, এসব বর্ধিত দাম ও পারিতোষিককে রিবা বলা হয়েছে। এসব ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্যের নগদ ক্রয়-বিক্রয়। এসব রিবাকেও সংজ্ঞার আওতায় আনা উচিত।

সুতরাং নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে প্রতিমূল্যের ওপর আরোপিত অতিরিক্ত যার কোন বিনিময় দেওয়া হয় না তাই হচ্ছে রিবা ফদল। এই সংজ্ঞায় নগদ ক্রয়-বিক্রয় বলতে সমজাতের পণ্য, অর্থ ও সেবার নগদ ক্রয়-বিক্রয় এবং ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্য, অর্থ ও সেবার নগদ ক্রয়-বিক্রয় সবই শামিল রয়েছে।

আল-রিবা অর্থ

আল্লাহ তা’য়ালা আল-কুরআনে বলেছেন, “ওয়া আহাল্লাল্লাহুল বাইয়া ওয়া হররামার রিবা” অর্থাৎ আল্লাহ বাইকে হালাল করেছেন, আব রিবাকে করেছেন হারাম। এই আয়াতে আল্লাহ তা’য়ালা ‘বাই’ শব্দের পূর্বে ‘আল’ যোগ করে ‘আল-বাই’ বলেছেন; আর রিবা শব্দের পূর্বে ‘আল’ বসিয়ে বলেছেন ‘আল-রিবা’। সকল বিশেষজ্ঞ এ ব্যাপারে একমত যে, ‘বাই’ শব্দের পূর্বে সংযোজিত ‘আল’ দ্বারা সমগ্র বা জাতি বুঝানো হয়েছে। বাই-এর সংজ্ঞার আওতাভুক্ত সকল বাইকে বুঝানোই এর উদ্দেশ্য। সুতরাং আয়াতের এই অংশে আল্লাহ সকল প্রকার বাইকে (ক্রয়-বিক্রয়কে) হালাল ঘোষণা করেছেন। কিন্তু ‘রিবা’ শব্দের পূর্বে বসানো ‘আল’- এর অর্থ নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে মত পার্থক্য দেখা দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে বিশেষজ্ঞগণ প্রধানত তিন ধরনের অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

দাঊদ আল-যাহিরী, তকি আল-দ্বীন আস-সবকি, আত-তাহাভী, আব্দুল হামিদ আল-বায়যাবী, আত-তাবারী, শাহ ওয়ালি উল্লাহ দেহলভী ও ইবনুল কায়্যিম আল- জাওযিয়াহ প্রমৃখ তাফসীরকার, হাদীসবেত্তা ও ফিক্বাহবিদগণ বলেছেন, রিবা শব্দের পূর্বে রিবা লেনদেন করত, যে রিবার সাথে তারা পরিচিত ছিল, সেই বিশেষ পরিচিত (Previous Familiarity) রিবাকে বুঝানোর জন্যই ‘আল’ শব্দ বসানো হয়েছে। এই রিবাকে রিবা নাসীয়াহও বলা হয়। অর্থাৎ আয়াতের এই অংশে মহান আল্লাহ কেবল রিবা আল-জাহিলিয়্যাত বা রিবা নাসীয়াকেই হারাম ঘোষণা করেছেন। উক্ত বিশেষজ্ঞদের মতে, অন্যান্য সকল প্রকার রিবা নিষিদ্ধ করা হয়েছে হাদীস দ্বারা।

অপর এক দল বিশেষজ্ঞের অভিমত হচ্ছে যে, এখানে রিবার পূর্বে যুক্ত ‘আল’ শব্দটি সমষ্টি, সাধারণ (general/mujmal) ও জাত (genus) ইত্যাদি অর্থে ব্যবহার করা হয়েছে, পূর্ব পরিচিতি অর্থে নয়। আল-কিয়া আল-হারিসী, ইমাম শাফেয়ী প্রমুখ বিশিষ্ট আইনবেত্তগণ এই অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তাঁদের মতে, এখানে আল-রিবা বলতে সকল প্রকার রিবার ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য।

আল-জাসসাস, আল-ফখর আল-ইসলাম, আল-বাদাবী, ইবনে রুশদ আল-মালিকী হানাফী স্কুলের ফক্বীহগণ ভিন্নতর আর এক অবস্থান নিয়েছেন। তাঁদের মতে, আল-কুরআনে ব্যবহৃত রিবা শব্দটি হচ্ছে অস্পষ্ট (Ijmal/obscure/undetailed); আইন প্রণেতা কর্তৃক প্রদত্ত ব্যাখ্যা ব্যতীত এর প্রকৃত অর্থ বুঝা সম্ভব নয়।

তাঁরা বলেছেন, রিবার শাব্দিক অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি। কিন্তু শরীয়তে সকল প্রকার বৃদ্ধিকে রিবা বলা হয়নি; বরং এক বিশেষ ধরনের বৃদ্ধিকে হারাম ঘোষণা করা হয়েছে। আল-জাসসাস এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছেন যে, আরবরা নির্ধারিত সময়ের জন্য দিরহাম ও দীনার ধার দিতো এবং ঋণের আসলের ওপর সময়ের বিনিময় হিসেবে ‘অতিরিক্ত’ ধার্য করতো। শরীয়তে এই বৃদ্ধিকে রিবা বলা হয়েছে। অপরদিকে সোনার সাথে সোনা বা রূপার সাথে রূপা পরিমাণে কম-বেশি করে নগদ বিনিময় করা হলে এক পক্ষের বাড়তি অংশ যে রিবা হয়, আরবরা তা জানতো না। তাছাড়া, সোনার বদলে সোনা, রূপার বদলে রূপা বাকিতে বিক্রয় করা হলে বাকির মেয়াদ যে রিবা (রিবা আল নাসা) হয় সেটাও তাদের জানা ছিল না।কিন্তু আইনে বাড়তি অংশ ও বাকির মেয়াদ এ দুটোকেই রিবা বলা হয়েছে। বস্তুতঃ রিবা শব্দটি অন্যান্য অস্পষ্ট বিশেষ্য পদের শব্দের ন্যায় একটি অস্পষ্ট বিশেষ্য পদের শব্দ; একে যথার্থ অর্থ বুঝতে হলে শরীয়ত প্রণেতার পক্ষ থেকে ব্যাখ্যা ছাড়া বুঝা সম্ভব নয়। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আল্লাহর অভিপ্রায় অনুযায়ী সুস্পষ্ট নির্দেশনার মাধ্যমে এর বিস্তারিত ব্যাখ্যা পেশ করেছেন। সুতরাং হাদীসে যত প্রকার রিবার কথা বলা হয়েছে তার সবই আল-রিবার অন্তর্ভুক্ত।

আল-কুরতুবী এই একই অভিমত ব্যক্ত করেছেন ভিন্নতর যুক্তিতে। তাঁর মতে, “আয়াতে ব্যবহৃত আল শব্দটি পূর্ব পরিচিতি বুঝাচ্ছে, আর তা হচ্ছে, আরবরা যে রিবা লেনদেন করতো সেই রিবা; অতঃপর আল্লাহর রাসূল (সাঃ) যেসব রিবা নিষিদ্ধ করেছেন সেগুলোও এর অন্তর্ভুক্ত.........”।[তাফসীর আল-করতুবী, ভলি-৩, পৃ: ৩৫৭, উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বক্ত, পৃ: ১২৪।]

আল-শাতিবী বলেছেন যে, “এই আয়াতের মাধ্যমে আল্লাহ জাহিলিয়্যাতের রিবাকে নিষিদ্ধ করেছেন। অতঃপর রিবার একটি ধরন ব্যাখ্যা করে তিনি বলেছেন, কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বিনিময়হীন অতিরিক্ত থাকার কারণেই এই ক্রয়-বিক্রয়কে নিষিদ্ধ করা হয়েছে, আর সুন্নাহ একই অর্থে সকল প্রকার রিবাকে এর সাথে শামিল করেছে”।[আল-মুয়াফফাক্বাত, ভলি-৪, পৃ: ৪১; উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত,পৃ: ১২৭।]

বাদাবী দ্বিতীয় ও তৃতীয় অভিমতের মধ্যে তুলনা করে বলেছেন যে, এই দুই মতের প্রকাশভঙ্গিতে পর্থক্য থাকা সত্ত্বেও উভয় মতে একই কথা বলা হয়েছে, তা হচ্ছে সকল প্রকার রিবাই আল-রিবা শব্দের অন্তর্ভুক্ত। তবে তিনি নিজে প্রথম অর্থাৎ আল-কুরআন কেবল রিবা আল-জাহিলিয়্যাত বা রিবা আল-নাসীয়াকে নিষিদ্ধি করেছে, এই মতকে অধিকতর পছন্দনীয় বলে অভিমত দিয়েছেন।[বাদাবী, ইবিদ, পৃঃ ৫৫।]

বস্তুতঃ তাফসীরকার, হাদীসবেত্তা ও ফিক্বাহবিদদের ব্যাখ্যা অনুসারে আল-কুরআনে নিষিদ্ধ রিবা ও আল-হাদীসে নিষিদ্ধ রিবা ভিন্ন ভিন্ন রূপ পরিগ্রহ করার কারণেই আল-রিবার অর্থ ও আওতা-পরিধি নিয়ে উক্ত মতপার্থক্যের সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে, ফিক্বাহ শাস্ত্রে বাকির মেয়াদকে রিবা বলার কারণে এই রিবাকে আল-রিবার মধ্যে শামিল করা কঠিন হয়ে পড়েছে। তাছাড়া আল-কুরআন কেবল রিবা আল-ফদল ও রিবা আল-নাসাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে হাদীসের দ্বারা।

শাহ ওয়ালি উল্লাহ দেহলভী বলেছেন, রিবা হচ্ছে দুই প্রকারঃ এক প্রকার হচ্ছে প্রকৃত রিবা এবং অপরটি হচ্ছে রূপক রিবা (figurative/metaphorical); প্রকৃত রিবা হচ্ছে দেনার ওপর রিবা যা জাহিলী যুগে আরবরা ব্যাপকভাবে লেনদেন করতো; প্রকৃত রিবাকে নিষিদ্ধ করেছে আল-কুরআন; আর দ্বিতীয় প্রকারের রিবা হচ্ছে ‘রিবা আল-ফদল’। রিবা আল-ফদলকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে হাদীসে। রিবা-ফদল হচ্ছে আসল রিবার সম্প্রসারণ (extension); একে কেবল রূপক অর্থে রিবা (as a metaphor/figurative) বলা হয়েছে।[ Hujjat Allah Al-Balighah, Vol-2,p. 106-107, উদ্ধৃত, বাদাবী, পৃ: ৩৩, টীকা নম্বর :১২।]

এ ব্যাপারে দাঊদ আল-জাহিরী বলেছেন, “প্রকৃতপক্ষে রিবা হচ্ছে কোন বস্তুর নিজস্ব পরিমাণ বেড়ে যাওয়া (excess in the thing itself); তাই প্রতিমূল্যের ওপর বৃদ্ধি রিবা নয় বরং এরূপ বৃদ্ধিকে রূপক অর্থে রিবা বলা যায়।[উদ্ধৃত, বাদাবী, পৃ: ৩৩, টীকা নম্বর :১১।]

বস্তুতঃ ঋণের ওপর বৃদ্ধিকে একই বস্তুর নিজ পরিমাণের বৃদ্ধি গণ্য করে তাকে বলা হয়েছে প্রকৃত রিবা।কিন্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে একই জাতের অর্থ বা পণ্যের বেশি পরিমাণকে বলা হয়েছে কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বৃদ্ধি; একে বলা হয়েছে রূপক অর্থে রিবা। এটি একটি পরস্পরবিরোধী অবস্থা। কারণ, ঋণগ্রহীতা, ঋণ হিসেবে যে জাতের অর্থ বা পণ্য গ্রহণ করে তা খরচ করে নিঃশেষ করে ফেলে। অতঃপর অনুরূপ অর্থ বা পণ্য যোগাড় করে ফেরত দেয়। সুতরাং ঋণে একই বস্তু লেনদেন হয় একথা আদৌ ঠিক নয়; বরং একই জাতের ভিন্ন ভিন্ন বস্তু লেনদেন হয় যার একটি হয় অপরটির কাউন্টার ভ্যালু। আর ঋণের ক্ষেত্রে এই কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত ধার্য করা হলে তা হয় রিবা নাসীয়াহ। একইভাবে কোন বস্তু ভিন্ন জাতের অপর কোন বস্তুর বিনিময়ে বাকিতে বিক্রি করা হলে বাকি দাম হয় এক পক্ষের দেনা, অপর পক্ষের পাওনা কাউন্টার ভ্যালু। এই কাউন্টার ভ্যালুর অতিরিক্ত ধার্য করা হলে তাকেও বলা হয় রিবা নাসীয়াহ। সুতরাং প্রকৃত রিবা আসলে কাউন্টার ভ্যালুর ওপরেই ধার্য করা হয়। অনুরূপভাবে কোন অর্থ বা পণ্য একই জাতের অর্থ বা পণ্যের বিনিময়ে নগদ ক্রয়-বিক্রয় করা হলে তার একটি হয় অপরটির কাউন্টার ভ্যালু। আর কোন একটি কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত ধার্য করা হলে (পরিমাণে বেমি করা হলে) তা হয় রিবা ফদল। ঋণ ও বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের ন্যায় নগদ লেনদেনেও অতিরিক্ত আসলে কাউন্টার ভ্যালুও ওপরই ধার্য করা হয়, মূল বস্তুর ওপর নয়। একথা ঋণসহ সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রেই সত্য। সুতরাং ঋণে মূল বস্তু বৃদ্ধি পায়, আর অন্যান্য ক্রয়-বিক্রয়ে কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বৃদ্ধি ধার্য করা হয় এই পার্থক্য সঠিক নয়।

প্রকৃত কথা হচ্ছে ঋণও এক ধরনের ক্রয়-বিক্রয়; আর ঋণসহ যে কোন ক্রয়-বিক্রয়ে কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত ধার্য করা হলে কাউন্টার ভ্যালুর পরিমাণ বেড়ে যায়। এটাই হচ্ছে কাউন্টার ভ্যালুর নিজ পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া- excess in the thing itself. রিবা দ্বারা কাউন্টার ভ্যালুর পরিমাণ বৃদ্ধি পায়; মূল বস্তুর পরিমাণ নয়।

উল্লেখ্য যে, হাদীস বা সুন্নাহ হচ্ছে আল-কুরআনের ব্যাখ্যা। রাসূলের (সাঃ) দায়িত্ব হচ্ছে, আল্লাহ যা কিছু ‘ওহী’ করেন তার সবটুকু, কোন প্রকার বাড়তি-কমতি না করে, দুনিয়াবাসীর কাছে হুবহু পৌঁছে দেওয়া এবং নিজের কথা ও কাজের মাধ্যমে তার যথার্থ অর্থ ও ব্যাখ্যা মানুষকে বুঝিয়ে দেওয়া। আল্লাহ দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন, “আমারা তোমার ওপর এই যিকর নাযিল করেছি যাতে তুমি মানুষকে স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দিতে পার যা তাদের জন্য নাযিল করা হয়েছে”। ("And we have sent down unto thee Message (dhikr) that thou Mayest explain clearly to men what is sent for them.") (আল-কুরআন)। বস্তুতঃ আল-কুরআনে নেই এমন কোন রিবাকে আল্লাহর রাসূল (সাঃ) নিষিদ্ধ করেননি। সুতরাং কুরআনে ব্যবহৃত ‘রিবা শব্দের পূর্বে আল-বসিয়ে আল্লাহ তা’য়ালা রিবার সংজ্ঞার আওতার মধ্যে পড়ে এমন সব রিবাকেই বুঝিয়েছেন; আর এই রিবা নিষিদ্ধ করে মৌলিক বিধি-বিধান আল্লাহ নিজে নাযিল করেছেন। তারই ভিত্তিতে রাসূল (সাঃ) এর বিস্তারিত ব্যাখ্যা ও বিধি-বিধান তুলে ধরেছেন। তিনি ক্রয়-বিক্রয়ের বিধি-বিধান প্রদান করেছেন এবং এসব বিধি-বিধান লঙ্ঘন করা হলে বিভিন্ন ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ে কিভাবে রিবা উদ্ভূত হয় তারও ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

বস্তুতঃ ‘বাই’ যেমন এক ধরনের চুক্তি তেমনি রিবাও আর এক ধরনের চুক্তি। উবাদা ইবনে সামিত বর্ণিত হাদীসে উল্লেখিত শর্ত মুতাবেক চুক্তি করা হলে তা হয় বাই বা ক্রয়-বিক্রয়, চুক্তি, যা আল্লাহ হালাল করেছেন। আর এর কোন একটি, দুটি বা তিনটি শর্ত লঙ্ঘন করে চুক্তি করা হলে তা হয় রিবা চুক্তি, আল্লাহ যাকে হারাম করেছেন। হাদীসে বর্ণিত বাই সংক্রান্ত সকল বিধি-বিধান আল-কুরআনে নেই; তেমনি রিবার যাবতীয় আইন-বিধানও আল-কুরআনে নেই। আল-কুরআন ও আল-হাদীসের বক্তব্য মিলেই আল-বাই এবং আল-কুরআন ও আল-হাদীসের ব্যাখ্যা মিলিয়েই আল-রিবা। সুতরাং আল-রিবার মধ্যে কুরআনে বর্ণিত রিবা যেমন আছে, তেমনি হাদীসে বর্ণিত রিবাও এর অন্তর্ভুক্ত। 'Al-Riba is all inclusive.' অর্থাৎ “সকল রিবাই আল-রিবার অন্তর্ভুক্ত”।

আয়াতে ব্যবহৃত ‘বাই’ ও ‘রিবা’ দুটি শব্দই হচ্ছে এক বচনে (singular number), বিশেষ্য পদ (noun); আর উভয় শব্দের পূর্বে বসানো হয়েছে ‘আল’।[কামালি, এম, হাশিম: পূর্বোল্লেখিত, পৃ: ১৪২।] তাছাড়া পারস্পরিক তুলনামূলক অর্থে শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে। বিশেষজ্ঞগণ বলেছেন, "a singular noun with a confined meaning preceeded by the definite article denotes generalilty.”[উদ্ধৃত, বাদাবী, পূর্বোক্ত, পৃ: ৫৫, টীকা নম্বর: ৪৭।] “অর্থাৎ সীমাবদ্ধ অর্থ জ্ঞাপক এক বচনে ব্যবহৃত কোন বিশেষ্য পদের পূর্বে নির্দিষ্ট আর্টিকেল বসালে তা সমগ্র অর্থ নির্দেশ করে”। যেমন আল-হামদু-সকল প্রশংসা। পূর্বে ক্রয়-বিক্রয় আলোচনায় বলা হয়েছে যে, এখানে বাই অর্থ হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়; আর এর পূর্বে আল যোগ করায় এর অর্থ দাঁড়াচ্ছে সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয়; অর্থাৎ ক্রয়-বিক্রয়ের সংজ্ঞার আওতাভূক্ত যাবতীয় ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ‘আল-বাই’। অনুরূপভাবে তুলনামূলক অর্থে আল-রিবার অর্থও সকল প্রকার রিবা হওয়া বাঞ্ছনীয়; সুতরাং রিবার সংজ্ঞার আওতায় আসে এমন সকল রিবার সমষ্টিই হচ্ছে ‘আল-রিবা’। এখানে আল-রিবার অন্যবিধ অর্থ করা যুক্তিযুক্ত নয়।

সুদের বৈশিষ্ট্য

পূর্বে উল্লেখিত সুদের সংজ্ঞা বিশ্লেষণ করলে সুদের কতিপয় অপরিহার্য বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়। বৈশিষ্ট্যগুলো হচ্ছেঃ

১. সুদের ক্ষেত্র ক্রয়-বিক্রয়;

২. সুদ অবৈধ চুক্তির ফল;

৩. সুদ ক্রয়-বিক্রয়ে একদিকের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর আরোপিত অতিরিক্ত;

৪. সুদের কোন বিনিময় বা কাউন্টার ভ্যালু বা মূল্যের সমতা নেই (no equivalence);

৫. সুদে পারস্পরিক লেনদেন নেই (no reciprocity);

৬. সুদ গুণে গুণে বাড়ে;

৭. কারবার বা কারবারের ফলাফলের সাথে সুদের কোন সম্পর্ক নেই;

৮. সুদ পূর্বে নির্ধারিত ও নিশ্চিত;

৯. সুদে কোন বাণিজ্যিক ঝুঁকি নেই।

নিম্নে এ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলোঃ

. সুদের ক্ষেত্রে ক্রয়-বিক্রয়ঃ উপরের আলোচনায় স্পষ্ট হয়েছে যে, সুদের সংশ্লিষ্টতা হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে। ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে বিনিময় দিয়ে নেওয়া; কিন্তু সুদ হচ্ছে বিনিময় না দিয়ে নেওয়া। বিনিময় না দিয়ে পরের সম্পদ নেওয়ার বহু ধরন আছে। যেমন, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, রাহাজানি, জবর-দখল,ধোকাবাজি, প্রতারণা, জালিয়াতি, মজুদদারী, মুনাফাখোরী, চোরা-কারবারী, ঘুষ, দুর্নীতি, জুয়া, চোরাচালানী ইত্যাদি। এসবই হচ্ছে পরের সম্পদ অন্যায়ভাবে ভক্ষণ বা গ্রাস করা। কিন্তু এর কোনটাকেই রিবা বলা হয়নি। রিবা হচ্ছে কেবল সেই অন্যায় ভক্ষণ যা ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে একদিকের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর ধার্য করে বিনিময় না দিয়ে নেওয়া হয়।

. সুদ অবৈধ চুক্তির ফলঃ সুদী লেনদেনে প্রকৃত পক্ষে দুটি চুক্তি সম্পাদিত হয়ঃ একটি ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি আর দ্বিতীয়টি রিবা বা সুদ চুক্তি। ক্রেতা-বিক্রেতা যখন কোন নির্ধারিত পণ্য, অর্থ বা সেবা নির্ধারিত কাউন্টার ভ্যালুর বিনিময়ে পরস্পর লেনদেন করে তখন তা হয় ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি; কিন্তু ক্রেতা-বিক্রতা যদি ক্রয়-বিক্রয়ে নির্ধারিত কাউন্টার ভ্যালুদ্বয়ের কেবল একটির ওপর কোন অতিরিক্ত ধার্য ও লেনদেন করতে রাজী হয় তখন সেই চুক্তি হয় সুদ বা রিবা চুক্তি। এই চুক্তিতে এক পক্ষের দেয় কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত ধার্য ও লেনদেনের কথা বলা হয় কিন্তু অপর পক্ষের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অনুরূপ অতিরিক্ত ধার্য ও বিনিময় করার কথা বলা হয় না। ফলে রিবা চুক্তির বলে এক পক্ষের ওপর ধার্যকৃত অতিরিক্ত হয়ে পড়ে বিনিময়হীন বা মাগনা। আর এজন্যই তা হয় সদ বা রিবা। উদাহরণস্বরূপ, ঋণ লেনদেনের ক্ষেত্রে দাতা বা মহাজন ঋণ প্রার্থীর কাছে প্রস্তাবিত ঋণের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর কখনও দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক বা বার্ষিক সরল বা চক্র বৃদ্ধি হারে সুদ দাবী করে (সুদ প্রদানের ঈজাব বা প্রস্তাব করে); আর প্রার্থী উক্ত প্রস্তাবে রাজী (কবুল) হয়। এভাবে তাদের মধ্যে ঋণ তথা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তির সাথে রিবা চুক্তি সম্পাদিত হয়। অনুরূপভাবে ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্য, অর্থ বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়কালে বিক্রেতা স্থগিতকৃত বা বাকি কাউন্টার ভ্যালুর ওপর স্থগিত মেয়াদ ও অপারগতায় পরবর্তী বর্ধিত মেয়াদের জন্য যদি সুদ দাবী করে আর ক্রেতা যদি তাতে সম্মত হয়, তাহলে তাদের মধ্যে বাকি ক্রয়-বিক্রয় চুক্তির সাথে রিবা চুক্তিও সম্পাদিত হয়ে যায়। অতঃপর রিবা চুক্তির শর্তানুসারে ঋণগ্রহীতা ও বাকি ক্রেতা কর্তৃক দেয় নির্ধারিত কাউন্টার ভ্যালুর ওপর প্রতিদিন সুদ যোগ হতে থাকে। ঋণগ্রহীতা কোন কাউন্টার ভ্যালু না পাওয়া সত্ত্বেও একমাত্র চুক্তির কারণেই এই সুদ পরিশোধ করতে বাধ্য হয়।

এ প্রসঙ্গে খান ও মিরাখোর বলেছেন, "Interest is regarded as representing an unjustified creation of instantaneous property rights: unjustified, because interest is a property right claimed outside the legitimate framework or recognized property rights; instantaneous, because as soon as the contract for lending upon interest is concluded, a right to the borrower's property is created for the lender"[Khan Mohsin S, and Abbas Mirakhor, (Editors) 1987, Theoretical Studies in Islamic Banking and Finance, The Institute for Research and Islamic Studies, p, 4, quoted by Siddiqui, M, N,, Riba, Bank Interest and the Rationale of its Prohibition, Islamic Research and Training Institute, 2004, Islamic Development Bank, Jeddah, KSA, P, 43,]

অর্থাৎ “সুদ হচ্ছে সম্পদের ওপর সৃষ্ট অন্যায় ও তাৎক্ষণিক অধিকার; এ অধিকার অন্যায় (unjusified) এজন্য যে, ন্যায়সঙ্গত অধিকার প্রতিষ্ঠার যাবতীয় বৈধ ও স্বীকৃত পন্হা থেকে সম্পূর্ণ পৃথক ও স্বতন্ত্র এক পদ্ধতিতে সম্পদের ওপর এ অধিকার প্রতিষ্ঠিত করা হয়; আর এ অধিকার তাৎক্ষণিক সৃষ্ট এজন্য যে, সুদের ভিত্তিতে ঋণ প্রদান চুক্তি সম্পাদিত হওয়ার সাথে সাথেই ঋণগ্রহীতার সম্পদের ওপর ঋণদাতার এ অধিকার সৃষ্টি হয়”।এটা ঠিক জুয়ার চুক্তির মত। জুয়াতে সংশ্লিষ্ট পক্ষদ্বয় এই মর্মে চুক্তিবদ্ধ হয় যে, খেলায় যে পক্ষ হারাবে সে পক্ষ অপর পক্ষকে, ধরা যাক, ১০,০০০/- টাকা দিতে বাধ্য থাকবে। অতঃপর যে হারে সে অপর পক্ষকে ১০,০০০/- টাকা দিয়ে দেয়; এমনকি, অনেক সময় জমি-জমা, বাড়ী-ঘর, স্ত্রী-সন্তান বিক্রি করে হলেও জুয়ার অর্থ পরিশোধ করতে দেখা যায়। এভাবে কেবল চুক্তির কারণে একজনের সম্পদ বিনামূল্যে অপরের কাছে চলে যায়। সুদের বেলাতেও ঠিক তাই হয়। বস্তুতঃ সুদ ধার্য ও পাওনা হওয়ার একমাত্র কারণ হচ্ছে রিবা চুক্তি। এই চুক্তির বলেই অনধিকারকে অধিকার বলে চালানো হয়। সুতরাং সুদ হচ্ছে অবৈধ চুক্তির ফল।

এখানে প্রশ্ন করা যেতে পারে যে, আল্লাহ তো পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে ব্যবসা করার নির্দেশ দিয়েছেন। সুদি কারবার এক ধরনের ব্যবসা।দাতা-গ্রহীতার পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতেই সুদ-চুক্তি করা হয়। তাহলে এ চুক্তি অবৈধ কেন?

একথা ঠিক যে, ব্যবসা-বানিজ্যে পারস্পরিক সম্মতি একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ শর্ত।কিন্তু মনে রাখতে হবে পারস্পরিক সম্মতির মাধ্যমে কোন হালালকে হারাম বা কোন হারামকে হালাল বানানো যায় না।উদাহারণস্বরূপ, যিনা ও জুয়া ইসলামে হারাম; কোন নারী-পুরুষ যদি পরস্পর সম্মত হয়ে যিনায় লিপ্ত হয় অথবা কতিপয় খেলোয়াড় একমত হয়ে যদি জুয়ার আড্ডা বসায়, তাহলে এই যিনা ও জুয়াকে হালাল হয়ে যায় না। এমনকি, দুনিয়ার সকল মানুষ একমত হয়েও যদি যিনা ও জুয়াকে হালাল বলে তাহলে এসব হারাম কখনও হালাল হয় না। অনুরূপভাবে ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় মানব জাতির জন্য কল্যাণকর ও হালাল। আর পারস্পরিক সম্মতি ছাড়া ক্রয়-বিক্রয় সম্ভব নয়। কিন্তু তাই বলে একজনের সম্পদ বিনিময় না দিয়ে কেবল চুক্তির বলে আর এক জনে নিয়ে গেলে তাকে ক্রয়-বিক্রয় বলা যায় না। বরং একে বড় জোর পরের সম্পদ মাগনা নেওয়া, বাতিল পন্হায় পরের সম্পদ ভক্ষণ করা বলা যেতে পারে। এই ব্যবস্থা মানব সমাজের জন্য কিছুতেই হিতকর হতে পারে না; তাই হালাল হতে পারে না। আল-কুরআনের যে আয়াতে আল্লাহ পারস্পরিক সম্মতিতে ব্যবসা করার কথা বলেছেন সেই আয়াতের প্রথমাংশে আল্লাহ এটাও বলেছেন যে, “তোমরা কেউ অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে ভক্ষণ করো না”। ব্যবসা করতে হলে ক্রয়-বিক্রয় জরুরী; আর ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে উভয় পক্ষের সম্পদের পারস্পরিক বিনিময়। সুদে পারস্পরিক বিনময় নেই; সুদ ক্রয়-বিক্রয়ই নয়; পারস্পরিক সম্মতির প্রশ্নই এখানে অবান্তর।

৩. সুদ ক্রয়-বিক্রয়ে একদিকের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর আরোপিত অতিরিক্তঃ রিবার সংজ্ঞা আলোচনা পর্যায়ে বিভিন্ন মাযহাবের নেতৃস্থানীয় ফক্বীহ, বিষেশ করে, ইমাম সারখসীর উদ্ধৃতি দিয়ে দ্বার্থহীন ভাষায় বলা হয়েছে যে. “রিবা হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়ে দুটি প্রতিমূল্যের কোন একটির ওপর ধার্যকৃত অতিরিক্ত যার কোন কাউন্টার ভ্যালু নেই”।অতঃপর বিভিন্ন প্রকার ও ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের বিধান উল্লেখ করে দেখানো হয়েছে যে,বিধান অনুসারে নির্ধারিত কোন একটি কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে, সময়ের কারনে হোক, অথবা ধোকা প্রতারণার মাধ্যমে হোক, কোন প্রকার অতিরিক্ত ধার্য করা হলে এবং অপরপক্ষ সেই অতিরিক্তের বিনিময় না দিলে,সেই অতিরিক্ত হয়ে যায় রিবা। এখানে আবার সেই আলোচনার পুনারাবৃত্তি না কেবল এতটুকু বলে রাখা যায় যে,রিবা হচ্ছে এক বিশেষ ধরনের অতিরিক্ত যা ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে কেবল এক পক্ষের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর আরোপ করে আদায় করা হয়, আর অপর পক্ষ এর কাউন্টার ভ্যালু দেয় না।

. সুদের কোন বিনিময় বা কাউন্টার ভ্যালু নেই (no equiavalace)ঃ উপরের আলোচনায় স্পষ্ট হয়েছে যে, সুদ চুক্তিতে কেবল এক পক্ষের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত ধার্য করা হয় অপর পক্ষের কাউন্টার ভ্যলুর ওপর সমমূল্যের বৃদ্ধি ছাড়াই।তাই সুদের কোন বিনিময় থাকে না। সুতরাং সুদ/রিবা হচ্ছে বিনিময়হীন বৃদ্ধি।এখানে উল্লেখ্য যে, অর্থনীতিবিদগন নানা ধরনের যুক্তি দিয়ে সুদ কেন দিতে হবে তার যৌক্তিকতা দেখানোর অপপ্রয়াস চালিয়েছন। এসব যুক্তি দ্বারা সাময়িকভাবে কিছু লোককে বিভ্রান্ত করা সম্ভব হয়ে থাকতে পারে ; কিন্তু এর দ্বারা সুদের যৌক্তিকতা তথা সুদের কাউন্টার ভ্যালু আছে , সে কথা প্রমাণ করা সম্ভব হয়নি। এসব যুক্তির অসারতা বুঝতে হলে দীর্ঘ আলোচনা দরকার। তাই পৃথকভাবে এ বিষয়ে আলোচনা করার ইচ্ছা রইলো ইনশাআল্লাহ।

. সুদে পারস্পরিক লেনদেন নেইঃ সুদ এক পক্ষ দেয় , অপর পক্ষ নেয়। যে নেয় সে এর বিনিময়ে কিছু দেয় না ; আর যে দেয় সে এর বিনিময়ে কিছু পায় না। সুদ হচ্ছে একতরফা দেওয়া ও একতরফা নেওয়া। এর বিপরীতে ক্রয়-বিক্রয়ে উভয় পক্ষ দেয় এবং উভয় পক্ষ নেয়। এখানে লেনদেন উভয়টাই পারস্পরিক ; কিন্তু সুদে পারস্পরিক লেনদেন হয় না।সকল প্রকার সুদেরই এটা অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

. সুদ গুণে গুণে বাড়েঃ সুদ , বিশেষ করে , রিবা নাসিয়ার স্বভাবজাত বৈশিষ্ট্য হচ্ছে সময়ের সাথে গুণে গুণে বৃদ্ধি পাওয়া। সূরা আলে ইমরানে আল্লাহ তায়ালা ‘আদয়াফাম মুদায়াফাহ’ শব্দ দ্বারা সুদের এই প্রবণতার কথা বর্ণনা করেছেন। সুদের হার খুব নিম্ন হোক বা খুব উচ্ছ হোক , সময়ের সাথে তা গুণে গুণে বৃদ্ধি পাবেই , এমনকি , সুদ যদি সরল হারের হয় তবুও। আর চক্রবৃদ্ধি হারের ক্ষেত্রে সুদের বৃদ্ধি আরও বেশি হবে তাতে সন্দেহ নেই।

. কারবার বা কারবারের ফলাফলের সাথে সুদের সম্পর্ক নেইঃ কৃষি, শিল্প, বাণিজ্য ইত্যাদি ক্ষেত্রে ঋণের ওপর ধার্যকৃত সুদ কৃষি, শিল্প ও বাণিজ্যে অর্জিত প্রকৃত ফলাফল তথা লাভ-লোকসানের ওপর ভিত্তিশীল নয়। বরং লাভ-ক্ষতি নির্বিশেষে সকল অবস্থাতেই সুদ অবশ্যই পরিশোধ করতে হয়। এছাড়া, সুদ কোন উৎপাদনশীল ও বাণিজ্যিক ঋণের ওপরই ধার্য করা হয় তা নয়; বরং চরম অভাবে নিপতিত লোকদেন ভোগ্য ঋণ, এমনকি, রাজনৈতিক কারণে গৃহীত ঋণের ওপরও সুদ ধার্য করা হয়।সর্বোপরি, শুধু ঋণ ও দেনা নয়, বরং সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয়েই সুদ নির্ধারণ করা যেতে পারে। সুতরাং ক্রয়-বিক্রয়ের ধরন, উদ্দেশ্য ও ফলাফল সুদের শর্ত নয়।

. সুদ পূর্বনির্ধারিত ও নিশ্চিতঃ সুদ হচ্ছে এক ধরনের চুক্তি; আর চুক্তিতে সুদ নির্ধারিত থাকাটাই স্বাভাবিক। এজন্যই বলা হয় সুদ পূর্বনির্ধারিত ও নিশ্চিত। আধুনিককালে প্রচলিত সুদের ভাসমান হার (fliating rate) সম্পর্কেও একথা প্রযোজ্য। কারণ, এরূপ ক্ষেত্রে চুক্তিতে একথাই বলা হয় যে, এ ঋণে fliating rate অনুসারে সুদ ধার্য করা হবে। এখানে fliating rate-ই সদের পূর্বনির্ধারিত; কারণ, এরূপ ক্ষেত্রে সুদ চুক্তি যখন করা হয় তখনই সুদ নির্ধারণ করা হয়। সুতরাং সুদ পূর্বনির্ধারিত ও নিশ্চিত।

. সুদে কোন বাণিজ্যিক ঝুকিঁ নেইঃ পূর্বে বলা হয়েছে যে, উৎপাদন ও লাভ করাই হচ্ছে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে; কিন্তু চাহিদা-যোগানের হ্রাস-বৃদ্ধির ফলে বিনিয়োগে কখনও আশাতীত লাভ যেমন হয়, তেমনি আবার লোকসান, এমনকি, অস্বাভাবিক লোকসানও হয়ে থাকে। বিনিয়োগের ক্ষেত্রে লোকসানের এই ঝুকিকেঁ বলা হয় বাণিজ্যিক ঝুকিঁ। কিন্তু সুদ হচ্ছে কাউন্টার ভ্যালুর ওপর আরোপিত বৃদ্ধি যা সর্বদাই ধনাত্মক (positive)। সুতরাং সুদে বাণিজ্যিক ঝুঁকি নেই।

 

ষষ্ট অধ্যায়: বিভিন্ন প্রকার ক্রয়-বিক্রয়ে উদ্ভুত রিবা

বস্তুতঃ ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে এমন এক চুক্তি (Contract) যেখানে সমমূল্যের পণ্য, মুদ্রা বা সেবা পারস্পরিক বিনিময় করা হয়। অপরদিকে, রিবা হচ্ছে এমন চুক্তি যা দ্বারা ক্রেতা-বিক্রেতা কোন এক পক্ষ অপর পক্ষের দেয় কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত ধার্য ও আদায় করে নেয়, কিন্তু সেই অতিরিক্তের দাম বা কাউন্টার ভ্যালু দেয় না। কোন লেনদেনে এই দু’টি চুক্তি একত্রিত হলেই তা সুদী লেনদেনে পর্যবসিত হয়। আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয়কে হালাল করেছেন। আর রিবাকে হারাম করেছেনে”- এ ঘোষণা দ্বারা আল্লাহ হালাল ক্রয়-বিক্রয় চুক্তির সাথে রিবা চুক্তি করতে নিষেধ করেছেন। রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর হাদীসে বিভিন্ন দিক থেকে এর ব্যাখ্যা করা হয়েছে। বলা হয়েছে, “ এক বিক্রয়ে দুই লেনদেন নিষিদ্ধ”; “ যে এক লেনদেনে দুই বিক্রয় করে তার উচিত কেবল মূলটা গ্রহণ করা, অন্যাথায় সে সুদ খায়”; “যে এক লেনদেনে দুই বিক্রয় করে তাকে অবশ্যই কম দামটি গ্রহণ করতে হবে, অথবা সুদ খেতে হবে”। ইবনে মাসুদ বলেছেন, “এক ক্রয়-বিক্রয়ে দুই দাম সুদ জন্ম দেয়”। অধিকাংশ মাযহাবেও এই একই কথা বলা হয়েছে যে, “এক লেনদেনে দুই বিক্রয় করা হলে তা রিবা হয়”।[নূর, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ২৪৪।] বিভিন্ন প্রকার হালাল ক্রয়-বিক্রয়ে কিভাবে সুদ উদ্ভুত হয় পরবর্তী আলোচনায় তা দেখানো হলো।

বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে রিবা

বাকি ক্রয়-বিক্রয় দুই রকমের হয়ঃ ১) সমজাতের বস্তু বাকি ক্রয়-বিক্রয় ও ২) অসমজাতের বস্তু বাকি ক্রয়-বিক্রয়। প্রথম ক্ষেত্রে বাকি থাকা কাউন্টার ভ্যালুকে বলা হয় ঋণ, কর্দ আর দ্বিতীয় ক্ষেত্রে বাকি থাকা কাউন্টার ভ্যালুকে বলা হয় দেনা বা দাইন। নিচে কর্দ ও দেনার পার্থক্য, কর্দ ও দেনা কাকে বলে একং কর্দ ও দেনার ওপর পৃথক চুক্তি দ্বারা কিভাবে সুদ ধার্য করা হয় তা দেখানো হলোঃ

কর্দ ও দাইনের পার্থক্যঃ কর্দ ও দাইন শব্দ দুটি আরবী। কর্দ অর্থ হচ্ছে ঋণ, , loan, debt, liability; দাইনেরও অর্থ হচ্ছে দেনা, loan, debt, liability. কিন্তু এতদুভয়ের মধ্যে কিছু পার্থক্য আছে। দাইন-এর পরিধি ও আওতা কর্দ অপেক্ষা (general): কর্দ (loan) হচ্ছে বিশেষ। অগ্রিম বিক্রয় (বাই সালাম), বাকি বিক্রয় (বাই-মোয়াজ্জাল) ইত্যাদি সবই দাইনের অন্তর্ভুক্ত। I Al-Raghib al-Ispahani, Ibn Athir and Wajhi al-Din al-Thanwi determined that dayn includes qard.[আল-জাসসাস, আহকাম আল কুরআন: উদ্ধৃত, বাদাবী, উপরোক্ত, পৃ: ৪৩।] “আল-রাগিব আল ইস্পাহানি, ইবনে আছির ওয়াজি আল-দ্বীন আল-থানবী এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন যে, কর্দ দাইনের অন্তর্ভুক্ত”। It is obvious... about qard that the word dayn applies to it. This is maintained by the majority of the jurists, and those who oppose it are few.[বাদাবী, উপরোক্ত, পৃ: ৪২।] “এ ব্যাপারে এটাই প্রতীয়মান হয় যে, কর্দের জন্য দাইন শব্দটি প্রযোজ্য। অধিকাংশ ফিক্বাহবিদের এটাই মত; যারা ভিন্নমত পোষণ করেন তাঁদের সংখ্যা খুবই নগণ্য”। কোন ব্যক্তি অপর ব্যক্তির সাথে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার কারণে বা কোন কাজে লিপ্ত হওয়ার দরুন অথবা অন্য কোন কারণে সেই ব্যক্তির ওপর যে আর্থিক বা অ-আর্থিক দায় বর্তায়, যা থেকে মুক্ত হওয়া তার জন্য বাধ্যতামূলক হয়, সেই সকল দায়কেই বলা হয় দাউন বা দেনা। ইবনে নাজিম বলেছেন, “কারো দায়িত্বে কোন হক (অধিকার) আদায় করা বাধ্যতামূলক হলে তাকে দাউন বলা হয়”।[ইবনে নাজিম: আল-মাউসুয়া আল-ফিক্বাহিয়্যাহ, কুয়েত।] সুতরাং আর্থিক, অ-আর্থিক সকল প্রকার দায়ই দাইনের অন্তর্ভুক্ত। এমনিক, আল্লাহর হক যেমন, অনাদায়ী ‘সালাত’ ‘যাকাত’ ও ‘রোযা’ হচ্ছে আল্লাহর নিকট মুমিনের দাইন। আল্লাহর হকজনিত এই দাইনকে বলা হয় ‘কাযা’। যেমন, কাযা রোযা, কাযা, নামায, কাযা হজ্জ ইত্যাদি। অপরদিকে কোন ব্যক্তি অপর কোন ব্যক্তির কাছ থেকে অর্থ বা পণ্য ধার নিলে ঋণদাতার নিকট ঋনগ্রহীতার যে দেনা হয় তাকে বলা হয় কর্দ। "During the period between its delivery and satisfaction, it is established as a liability against a person and falls under the definition of dayn".[ Al-Hamawi, উদ্ধৃত, বাদাবী, উপরোক্ত, পৃ: ৪৩।] “কর্দ গ্রহনের সময় হতে পরিশোধ করা পর্যন্ত তা গ্রহীতার ওপর দায় হিসেবে থাকে এবং দাইনের সংজ্ঞার আওতায় এসে যায়”। আবার কোন পণ্য-সামগ্রী বাকিতে বিক্রয় করা হলে ক্রেতার কাছে বিক্রেতার পণ্যের দাম পাওনা থাকে। এই পাওনা হচ্ছে ক্রেতার দাইন বা দায়, liability, debt or loan. সুতরাং সাধারণভাবে কোন পণ্য, অর্থ বা সেবা সমজাতের (similar or homogeneous) অর্থ, পণ্য বা সেবার বিনিময়ে বাকিতে বিক্রয় থেকে সৃষ্টি হয় কর্দ; আর কোন পণ্য বা সেবার বিনিময়ে বাকিতে বিক্রয় থেকে উদ্ভূত হয় দাইন। নিচে আলোচনা করা হলো।

কর্দ বা ঋণ

সমজাতের পণ্য, অর্থ বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের একমাত্র ধরন হচ্ছে ‘কর্দ’ বা ঋণ। অবশ্য সমজাতের পণ্য, অর্থ বা সেবা লেনদেনের আরও কতিপয় ধরন চালু আছে। যেমন, আমানত, ওয়াদীয়াহ, আরিয়্যাহ ইত্যাদি। তবে এসব লেনদেন যথার্থ অর্থে ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে পড়ে না এবং এসব ক্ষেত্রে সুদ সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কাও তেমন একটা নেই। যা হোক, ঋণ কি, ঋণে কিভাবে সুদের উদ্ভব ঘটে সে বিষয়ে নিম্নে আলোচনা করা হচ্ছে। পরবর্তীতে ওয়াদিয়াহ ও আরিয়্যাহ সম্পর্কে আলোকপাত করা হবে।

কর্দের অর্থ ও সংজ্ঞাঃ কর্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে কেটে আলাদা করা (to cut off)।[আব্দুল্লাহ আলভী হাজী হাসান; (১৯৯৪),Sales and Contracts in Early Islamic Law, Islamic Research Institute, IIUC, P. 117; উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১১৫।] সাধারণ অর্থে ভবিষ্যিতে অনুরূপ জিনিস ফেরত পাওয়ার শর্তে কোন কিছু অপরকে দেওয়া হচ্ছে কর্দ।[উমর বিন আব্দুল আজীজ মুত্রিকঃ Al-Riba Waf Muamalat Al-Masrafiyyah, 1st Edition, H. 1414, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১১৫।] ইংরেজীতে একে বলা হয় loan, credit, debt, liability; বাংলায় আমরা বলি ঋণ, ধার, হাওলাত ইত্যাদি। লেন-এর আরবী ইংরেজী অভিধানে কর্দের সংজ্ঞা নিম্ন ভাষায় দেওয়া হয়েছেঃ

"Loan in legal context is defined as a contract whereby one of the two parties transfers or passes the ownership of a definite amount of his property to the other party, so that the other party returns to the lender what is equivalent thereto in respect of quantity, kind and description.” [E. W. Lane, Arabic English Lexicon, Vol. 1, P. 25-151 উদ্ধৃত, ইবিদ, পৃ: ১১৬।] “ঋণের আইনী সংজ্ঞায় বলা হয়েছে যে, ঋণ হচ্ছে দুইটি পক্ষের মধ্যে সম্পাদিত এমন একটি চুক্তি যেখানে এক পক্ষ তার সম্পদের সুনির্দিষ্ট পরিমাণের মালিকানা অপর পক্ষের নিকট এই শর্তে হস্তান্তর বা প্রদান করে যে, অপরপক্ষ ঋণদাতাকে এমন বস্তু ফেরত দিবে যা জাতে, মানে ও পরিমাণে প্রদত্ত সম্পদের সম্পূর্ণ সমান”।

ইসলামী শরীয়াতের দৃষ্টিতে “it is a contract by which the lender transfers something to the borrower in return for the latter's liability to give back the same thing, or its equivalence, or price/value in the market." [Nabel Saleh, Unlawful Gain and Legitimate Profit, 1992, p, 87, উদ্ধৃত, ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১১৬।] “এটি (ঋণ) হচ্ছে এমন একটি চুক্তি যাতে ঋণদাতা কোন জিনিস এই শর্তে ঋণগ্রহীতার কাছে হস্তান্তর করে যে, এই দায়ের বিনিময়ে ঋণগ্রহীতা অনুরূপ জিনিস বা এর সমতুল্য অথাব বাজার অনুসারে এর দাম/মূল্য ঋণদাতাকে ফেরত দিবে”। "It is also defined as a contract by which the lender transfers the ownership of something in return for its real equivalent or consideration."[ই, এম, নূর, পূর্বোক্ত, পৃ: ১১৬।] “ঋণকে এভবেও সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে যে, “এটি একটি চুক্তি যা দ্বারা ঋণদাতা প্রকৃত সমতুল্য বস্তু বা এর মূল্য ফেরতের শর্তে কোন বস্তুর মালিকানা হস্তান্তর করে”। সম্মানিত ফক্বীহগণ বলেছেন যে, সাধারণভাবে কর্দ শব্দ দ্বারা অর্থ ও ফাঞ্জিবল পণ্যের ঋণকে বুঝায়; ঋণগ্রহীতা ব্যবহার করায় এ অর্থ বা পণ্য নিঃশেষ হয়ে যায়; ফলে তাকে যে পণ্য বা অর্থ ধার দেওয়া হয়েছেণ সেই একই পণ্য/অর্থ (same goods) সে ফেরত দিতে পারে না; বরং বিবরণ অনুযায়ী অনুরূপ পণ্য (goods of identical description) বা অর্থ ফেরত দেয়।[ফারুক, আবূ উমর এবং হাসান,এম, কবীর; The Time Value of Money Concept in Islamic Finance, The American Journal oflslamic Social Sciences, 23:1, পৃ: ৮৩।] “সুতরাং কর্দ বলতে পণ্যের মালিকানা হস্তান্তর করা এবং মেয়াদ শেষে অনুরূপ (similar) পণ্য ফেরত দেওয়া বুঝায়”।[ফারুক, আবূ উমর এবং হাসান, এম, কবীর : উপরোক্ত, p. 82.]

সুতরাং কর্দ হচ্ছে এক ধরনের বিনিময় বা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি (contract) যেখানে সমজাত ও মানের (identical, similar or homogeneous) অর্থ (মুদ্রা), ফাঞ্জিবল পণ্য বা সেবা বাকিতে ক্রয়-বিক্রয় করা হয়। 1 "both in common usage of the term or in jurists' technical interpretation, the loan transaction represents a credit sale of this particular exchange (transference of the same good)."[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা: তরজমায়ে কুরআন মজীদ, ফালাহ-ই-আম ট্রাষ্ট, ডাকা, বাংলাদেশ, প্রথম প্রকাশ, ১৯৮২, পৃ: ৬৮, টীকা: ১০২।] “সাধারণ্যে প্রচলিত অর্থ বা ফিক্বাহবিদদের প্রায়োগিক ব্যাখ্যা উভয় অর্থেই ঋণ হচ্ছে এই ধরনের (কোন বস্তু এই জাতের বস্তুর বিনিময়ে) বাকিতে ক্রয়-বিক্রয়”।

সোনার বিনিময়ে সোনা, রূপার বিনিময়ে রূপা, গমের বিনিময়ে গম, যবের বিনিময়ে যব, খেজুরের বিনিময়ে খেজুর, লবণের বিনিময়ে লবণ ইত্যাদি তথা যে কোন পণ্য, অর্থ বা সেবা একই জাতের পণ্য, অর্থ বা সোবার বিনিময়ে বাকিতে বিক্রয় করা হলে ক্রেতার কাছে এর কাউন্টার ভ্যালু বা বিনিময় মূল্য নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য বাকি বা পাওনা থাকে। এই বাকি বা পাওনা কাউন্টার ভ্যালুই হচ্ছে ক্রেতা বা গ্রহীতার কর্দ, ঋণ, দায়, debt, liability or deferred liability।

কর্দের শর্ত ও বৈশিষ্ট্য

উপরোক্ত সংজ্ঞা বিশ্লেষণ করলে ঋণের যেসব শর্ত ও বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায় তা হচ্ছেঃ

১. বিনিময়ের পণ্য ফানজিবল বা মালে ফানি হওয়া;

২. মালিকানাসহ পণ্যটি ঋণগ্রহীতার কাছে হস্তান্তর করা;

৩. অনুরূপ পণ্য সমপরিমাণে (counter value) পরিশোধ করার শর্ত থাকা ও পরিশোধ করা;

৪. কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধের মেয়াদ নির্ধারি থাকা;

৫. যাবতীয় ঝুঁকি গ্রহীতার ওপর থাকা;

৬. পাওনা কাউন্টার ভ্যালুর ওপর কোন বাড়তি বা উপহার-উপঢৌকনের শর্ত না থাকা।

নিচে এ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা পেশ করা হলোঃ

. বিনিময়ের পণ্য ফানজিবল বা মালে ফানি হওয়াঃ কর্দ বা ঋণের ক্ষেত্রে বিনিময়ের পণ্য দুটি সাধারণত ফানজিবল পণ্য হতে হয়। আরবী ‘মালে ফানিকে’ ইংরেজীতে ‘Fungible goods’ বলা হয়। Fungible goods এমন পণ্যকে বলা হয় যা নিঃশেষ না করে তা থেকে উপকারিতা (benefit) লাভ করা সম্ভব নয়। অন্য কথায়, যে পণ্য ব্যবহার করলে পণ্যের উপযোগ (utilty) বা usufruct এবং খোদ পণ্যটি একই দিকে চলে এবং উভয়টি একই সাথে নিঃশেষ হয়ে যায় সেই পণ্যই হচ্ছে ফানজিবল পণ্য। সহজ করে বলা যায়, যে পণ্য (একবার) ব্যবহার করলেই নিঃশেষ বা রূপান্তরিত হয়ে যায় সেই পণ্যই হচ্ছে ফানজিবল পণ্য। ফানজিনল পণ্যের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে তিনটি। যথাঃ

১. (একবার) ব্যবহার করলেই নিঃশেষ বা রূপান্তরিত হওয়া;

২. সেবা প্রবাহ বা flow of service না থাকা এবং

৩. পণ্য থেকে সেবা (service) পৃথকযোগ্য না হওয়া।

উদাহরণস্বরূপ চালের কথা বলা যায়, একবার ব্যবহার করলেই চাল আর চাল থাকে না; নিঃশেষ বা রূপান্তরিত হয়ে যায়। দ্বিতীয়ত, চালের সেবা আছে; কিন্তু সেবার প্রবাহ নেই; অর্থাৎ একই চাল একাধিকবার ভাত দিতে পারে না। তৃতীয়ত, চালের সেবাকে চাল থেকে পৃথক করা যায় না; অর্থাৎ চাল থেকে সেবা নেওয়া হলে চাল থাকে না; আর যতক্ষণ তা চাল থাক ততক্ষণ এ থেকে কোন সেবা নেওয়া যায় না। অর্থ বা মুদ্রা, যেমন, চাকা, দীনার, দিরহাম, ডলার ইত্যাদির ক্ষেত্রেও এই একই কথা প্রযোজ্য। এসব পণ্য, অর্থ বা সেবা কাউকে দিলে গ্রহীতার পক্ষে এ থেকে একবারের বেশি উপকার নেওয়া সম্ভব হয় না। একবার ব্যবহার করার সাথে সাথেই এসব পণ্য নিঃশেষ বা রূপান্তরিত হয়ে যায় এবং এর কাউন্টার ভ্যালু দায় হয়ে গ্রহীতার ঘাড়ে চেপে বসে। এই দায়কেই বলা হয় কর্দ বা ঋণ। গ্রহীতাকে পুনরায় সমপরিমাণের অনুরূপ পণ্য যোগাড় করে উক্ত ঋণ বা বাকি কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধ করতে হয়; অন্যথায় ঋণের দায় থেকে মূক্ত হওয়া যায় না। ফানজিবল পণ্য না হলে এরূপ দায় সৃষ্টি হয় না।

. মালিকানাসহ পণ্যটি গ্রহীতার কাছে হস্তান্তর করাঃ ঋণ বাবদ কোন অর্থ (মুদ্রা) বা পণ্য কাউকে দেওয়ার অর্থ হচ্ছে পণ্যটির মালিকানা গ্রহীতার কাছে হস্তান্তর করে দেওয়া যাতে মালিক হয়ে নিজ ইচ্ছামাফিক সে পণ্যটি ব্যবহার করতে বা কাজে লাগাতে পারে। অবশ্য মালিকানা হস্তান্তরের ব্যাপারে কেউ কেউ দ্বিমত করেছেন। কিন্তু ঋণ হচ্ছে একই জাতের পণ্যের বিনিময়ে বাকিতে কোন ফানজিবল পণ্য বিক্রয় করা। আর পরস্পর মালিকানা হস্তান্তর ব্যতীত বাকি ক্রয়-ক্রিয় হয় না। ঋণ লেনদেনে ঋণদাতা মালিকানাসহ তার পণ্য, অর্থ বা সেবা তাৎক্ষণিক গ্রহীতার কাছে হস্তান্তর করে দেয়। ফলে প্রদত্ত পণ্য, অর্থ বা সেবার ওপর থেকে তার মালিকানা নিঃশেষ হয়ে যায় এবং এর কাউন্টার ভ্যালুর ওপর তার মালিকানা প্রতিষ্ঠিত হয়, যা নির্ধারিত মেয়াদের জন্য বাকি বা পাওনা হিসেবে গ্রহীতার জিম্মায় থাকে। অপরদিকে ঋণগ্রহীতা মালিক হয় গৃহীত পণ্য, অর্থ বা সেবার, যার কাউন্টার ভ্যালু হয় তার ঋণ, দেনা, debt, credit, liability। সুতরাং ঋণ বাবদ প্রদত্ত পণ্য, অর্থ বা সেবার মালিকানা হস্তান্তর করাই বাঞ্ছনীয়। অন্যথায় তা ঋণ বা বাকি ক্রয়-বিক্রয় বলে গণ্য হয় না।

. অনুরূপ পণ্য সমপরিমাণে (counter value) পরিশোধ করার শর্ত থাকা পরিশোধ করাঃ ঋণ লেনদেনে সাধারণত ভবিষ্যতে আসল ফেরত দেওয়ার শর্তের কথা বলা বা লিখা হয়। এই আসল বলতে মূল প্রদত্ত অর্থ বা পণ্যের সমপরিমাণ বা কাউন্টার ভ্যালুকে বুঝায়। ঋণে প্রকৃত পক্ষে হুবহু আসল নয়, বরং আসলের দাম বা কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধ করা হয়। আর যেহেতু লেনদেনের দুটি বস্তুই একজাতের সেহেতু উভয়ের মান ও পরিমাণ সমান হলেই কেবল এদের পারস্পরিক মূল্য সমান হবে। হাদীসে আল্লাহর রাসূল (সাঃ) পণ্যের জাতগত মিল থাকলে অর্থাৎ সোনার পরিবর্তে সোনা, রূপার বদলে রূপা..... ইত্যাদি ক্ষেত্রে মিসলান বিমিসলিন (মানগত সমতা) ও সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িন (পরিমাণগত সমতা) এই দুটি বিধান দিয়েছেন। এই বিধান নগদ ও বাকি উভয় ক্রয়-বিক্রয়েই প্রযোজ্য। সম্মানিত ফক্বীহগণ বলেছেন, ঋণে সমমানের (মিসলিয়্যাত) বস্তু সমপরিমাণে ফেরত না দিলে ঋণ বৈধ হয় না। সুতরাং ঋণে একজাতের, সমমান ও সমপরিমানের বস্তু দ্বারাই আসলের দাম পরিশোধ করতে হবে। এ প্রসঙ্গে পূর্বে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

. কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধের মেয়াদ নির্ধারিত থাকাঃ ঋণ লেনদেনে আসলের কাউন্টার ভ্যালু প্রদান ভবিষ্যতের জন্য স্থগিত রাখা হয়; আর এজন্য তা ঋণে পরিণত হয়। ঋণগ্রহীতা ঋণের বস্তু তার প্রয়োজনে ব্যবহার করে নিঃশেষ করে ফেলে। অতঃপর এর কাউন্টার ভ্যালু যোগাড় করে পরিশোধ করতে হয়। সুতরাং কাউন্টার ভ্যালু সংগ্রহ করার জন্যই সময় বা মেয়াদ থাকা জরুরী। কোন কোন বিশেষজ্ঞ বলেছেন, ঋণ পরিশোধের মেয়াদ নির্ধারিত হওয়া জরুরী নয়। কিন্তু ঋণ হচ্ছে বাই-মোয়াজ্জালের মত বাকি বিক্রয়। পার্থক্য শুধু এতটুকু যে, বাই-মোয়াজ্জালের মত বাকি বিক্রয়। পার্থক্য শুধু এতটুকু যে, বাই-মোয়াজ্জলে লেনদেনের বস্তু দুটি ভিন্ন জাতের হয়; আর কর্দে বস্তু দুটি হয় একই জাতের। দাম ও তা পরিশোধের মেয়াদ নির্ধারণ ব্যতীত বাকি বিক্রয় বৈধ হয় না। ঋণের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। আল্লাহ তা’য়ালা কুরআন মজীদে বলেছেন, “হে ঈমানদারগণ, যদি কোন নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য তোমরা দাইনের লেনদেন কর, তাবে তা লিখে নিও (আল-বাকারাহ, ২৮২)”। “এর থেকে এ বিধান নির্গত হয় যে, দাইনের ব্যাপারে মেয়াদ (সময়-সীমা) নির্দিষ্ট থাকা আবশ্যক”।[আল-কাসানি; বাদাই, ভলি-৭, পৃ: ৩৯৫-৬।] আর ঋণও দাইনের অন্তর্ভূক্ত। হাদীসে বলা হয়েছে, “অজ্ঞাত মেয়াদের জন্য বাকিতে বেচা-কেনা বৈধ নয়”। সুতরাং ঋণের ক্ষেত্রে মেয়াদ নির্ধারিত থাকাই বাঞ্ছনীয়।

. যাবতীয় ঝুঁকি গ্রহীতার ওপর থাকাঃ যে কোন ধরনের ক্রয়-বিক্রয়ে ক্রীত মাল বুঝে নেওয়ার পর ক্রেতাই সে মালের মালিক হয় এবং এর যাবতীয় ঝুঁকি ও দায়িত্ব তাকেই বহন করতে হয়; ঋণের ক্ষেত্রে ঋণগ্রহীতা একজন ক্রেতা। সুতরাং ঋণ বাবদ গৃহীত পণ্য অর্থ বা সেবা বুঝে নেওয়ার পর ক্রেতা/গ্রহীতাই তার মালিক হয়, এটা হয় তারই সম্পদ এবং এর যাবতীয় ঝুঁকি তাকেই বহন করতে হয়। গৃহীত পণ্য বা অর্থ হারিয়ে যাওয়া, চোর-ডাকাতে নিয়ে যাওয়া, কোন দুর্যোগে বিনষ্ট বা ধ্বংস হওয়া অথবা লোকসানে খোয়া যাওয়া ইত্যাদি, গ্রহীতার নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতার আওতাভুক্ত বা আওতা বহির্ভূত, যে কোন কারণে অথবা তার নিজের অবহেলা ও ত্রুটির দরুন বিনষ্ট, ধ্বংস বা ক্ষতি হলে মালিক হিসেবে এর সকল দায়িত্ব ক্রেতা/গ্রহীতাকেই বহন করতে হয়, ঋণদাতা/বিক্রেতা এর কোন দায়িত্ব নেয় না, কারণ এ সম্পদ এখন তার নয়।

. পাওনা কাউন্টার ভ্যালুর ওপর কোন বাড়তি বা উপহার-উপঢৌকনের শর্ত না থাকাঃ পূর্বেই বলা হয়েছে, ঋণ লেনেদেনে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের পন্য, অর্থ বা সেবা একই জাত, একই মান ও পরিমাণে সমান সমান হওয়া বিধেয়। এই বিধান প্রাকৃতিক, চিরন্তন ও শাশ্বত। এই বিধানের ব্যতিক্রম করার এখতিয়ার-অধিকার মানুষকে দেওয়া হয় নাই। সুতরাং ঋণদাতা, আইন দ্বারা নির্ধারিত এই কাউন্টার ভ্যালু ভবিষ্যতে ফেরত পাবে এই শর্তেই ঋণ দেয়। এটাই তার নির্ধারিত পাওনা। এটাই তার অধিকার, হক; এর অতিরিক্ত কিছু তার পাওনা নয়, তাতর হক নয়। এমনকি, অতিরিক্ত যদি খড়-কুটার ন্যায় অতি তুচ্ছ ও নগন্য বস্তুও হয়, ঋণকে উপলক্ষ বানিয়ে কোন দান, উপহার-উপঢৌকন হয়, কোন সেবা-বেনিফিট হয়, তা নেওয়ারও অধিকার ঋণদাতার নেই। ইতোপূর্বে উল্লেখিত আনাস ইবনে মালিক বর্ণিত হাদীস থেকে এ প্রসঙ্গে সুস্পষ্ট নির্দেশনা পওয়া যায়। আনাস ইবনে মালিক থেকে অপর এক হাদীসে বর্ণিত আছে, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “কোন ব্যক্তি যদি কাউকে ঋণ দেয়, তাহলে কোন উপহার গ্রহণ করা তার উচিত নয়”। (মিশকাত, কিতাবুল বুয়ূ)। এ ব্যাপারে শ্রদ্ধেয় ইমামগন কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করে গেছেন। সুতরাং ঋণের বিপরীতে কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে কোন অতিরিক্ত নেওয়া তো বৈধ নয়ই, কোন উপহার-উপঢৌকন, তুচ্ছ নগণ্য দান, এমনকি, কোন সেবা, বেনিফিট নেওয়াও বৈধ নয়। সকল মাযহাবের ফক্বীহদের মধ্যে এ ব্যাপারে পূর্ন ঐকমত্য রয়েছে।

কর্দের বৈধতা

কুরআন, সুন্নাহ ও উম্মতের ইজমা (ঐকমত্য) অনুসারে র্কদ লেনদেন করা সম্পূর্ণ বৈধ। আল-কুরআনে বলা হয়েছে, “হে ঈমানদারগণ, তোমরা যদি নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য পরস্পর ‘দাইন’ লেনদেন কর, তবে তা লিখে নাও”। (২:২৮২) বিশেষজ্ঞদের মতে এখানে ‘দাইন’ শব্দ দ্বারা সকল প্রকার দায়কেই বুঝানো হয়েছে।[কামালি, মোহাম্মদ হাশিম; পূর্বোক্ত, পৃ: ১৪২।] আার ঋণ হচ্ছে এক প্রকার দায় বা দাইন।

কুরআন মজীদে কমপক্ষে ছয়টি স্থানে (২:২৪৫, ৫:১৩, ৫৭:১৮, ৬৪:১৭ এবং ৭৩:২০) করদে হাসনাহর কথা উল্লেখ করা হয়েছে; আর সব কয়টি আয়াতেই মানুষকে করদে হাসানাহ দেওয়া হলে তা আসলে মানুষকে নয়, বরং স্বয়ং আল্লাহকে কর্দ দেওয়া হয় বলে ঘোষনা করা হয়েছে। আল্লাহ তা’য়ালা এই কর্দকে বহুগুণে বর্ধিত কর দাতাকে ফেরত দেবেন এবং তার সাথে উত্তম প্রতিফল (আজরুন কারীম) দান করবেন বলে তিনি ওয়াদা করেছেন। বস্তুতঃ আল্লাহ কর্দের অনুমতি দিয়েছেন কেবল তাই নয়, বরং কর্দ প্রদানকে বিপুলভঅবে উৎসাহিত করেছেন।

রাসূলুল্লাহর (সাঃ) হাদীসেও করদে হাসানাকে সাদাকাহ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। রাসূল (সাঃ) বলেছেন, “প্রত্যেক কর্দই আসলে সাদাকাহ”। ইবনে মাসঊদ থেকে বর্ণিত, রাসূল (সাঃ) বলেছেন, No Muslim provides a Muslim a loan for two timed, if he does it is like charity of once”[উদ্ধৃত, ই, এম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১১৬।] “অর্থাৎ কোন মুসলমান অপর কোন মুসলমানকে এক ঋণ দু’বার দেয় না, যদি দেয় তাহলে তা হয় একবার দানের মত”। রাসূল (সাঃ) নিজেও কর্দ নিয়েছেন এবং পরশোধ করেছেন।

রাসূলুল্লাহ (সাঃ) জীবদ্দশায়, অতঃপর সাহাবয়ে কিরামের যুগ, তাবেয়ীন-তাবে তাবেয়ীদের আমল, মুজাতহেদীন এ আয়েম্মায়ে মুজতাহেদীনের কাল, এমনকি আজ অবধি মুসলিম সমাজে ঋণ লেনদেন হয়ে আসছে; কিন্তু কোন দনি কেউ এ ব্যাপারে কোন আপত্তি করেননি। আত্মীয়-স্বজন, পাড়-প্রতিবেশী, বন্ধু-বান্ধব ও নিকটজনদের মধ্যে ঋণের প্রচলন চিরদিনই ছিল এবং আছে। বলা যায় ঋণ লেনদেন একটি সাধারণ (common) ও সার্বজনীন (universal) বিষয়। সুতরাং কুরআন, সুন্নাহ ও ইজমার ভিত্তিতেই কর্দ বৈধ ও বিরাট সওয়াবের কাজ। “মুসলিম উম্মাহ এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ একমত”।[উপরোক্ত, পৃ: ১১৬।]

কর্দের ওপর রিবা

কর্দ হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। এ ক্ষেত্রে প্রদত্ত আসলের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর সরল বা চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ লেনদেনের চুক্তি করা হলে গোটা লেনদেনটি হয়ে যায় কর্দর রিবা বা সুদ ভিত্তিক ঋণ। সুদখোর মহাজন, প্রচলিত ব্যাংক ও কিভাবে ঋণ চুক্তির সাথে রিবা চুক্তি সংযোজন করে প্রচলিত ব্যাংকের সুদী ঋণদান ও সুদী ডিপোজিট গ্রহণ প্রক্রিয়া থেকেই তা স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

ধরা যাক, ক একজন ব্যবসায়ী; ব্যবসার প্রয়োজনে তার ৫.০০ লাখ টাকা দরকার; সে প্রচলিত ধারার একটি ব্যাংক খ-এর কাছে ৫.০০ লাখ টাকা দুই বছরের জন্য ঋণ চেয়ে একটি আবেদন করল (ঈজাব)। ব্যাংক খ তাকে জানালো যে, এ ধরনের ঋণের ওপর তারা ১৫% সরল সুদ নিয়ে থাকে (ঈজাব)। ক সুদ দিতে রাজী হলো (কবুল)। ব্যাংক ঋণ দিতে রাজী হলো (কবুল)। এভাবে ক ও খ- এর মধ্যে এই মর্মে কর্দুর রিবা সুদী ঋণ চুক্তি সম্পদিত হলো যে, খ ক-কে দুই বছর মেয়াদের বার্ষিক ১৫% সদের ভিত্তিতে ৫.০০ লাখ টাকা ঋণ প্রদান করছে; ক দুই বছরের মধ্যে ধার্যকৃত সুদসহ উক্ত আসল (আসলের কাউন্টার ভ্যালু যা সর্বতোভাবে আসলের সমান) পরিশোধ করতে বাধ্য থাকবে।

লক্ষণীয় যে, এ চুক্তিতে দু’টি ঈজাব ও দু’টি কবুলের মাধ্যমে দু’টি চুক্তির সমন্বয় ঘটানো হয়েছে। প্রথম চুক্তিটি হচ্ছে ৫.০০ লাখ টাকা ঋণ দানের প্রস্তাব ও ব্যাক কর্তৃক তা কবুল করার মাধ্যমে কৃত ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। এতে ৫.০০ লাখ টাকার কাউন্টার ভ্যালু হচ্ছে ৫.০০ লাখ টাকা যা মিসলান বিমিসলিন ও সাওয়ায়ান বিসাওয়ায়িনের শর্ত পূরণ করেছে; আর দুই বছরের মধ্যে কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধের চুক্তির দ্বারা ইয়াদান বিইয়দিন শর্তটিও পূর্ণ হয়েছে। “আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয়েকে হালাল করেছেন’- এর দ্বারা এইরূপ ক্রয়-বিক্রয় চুক্তিকে বুঝানো হয়েছে।

অতঃপর দুই বছরের জন্য বাকি ও গ্রহীতার জিম্মায় থাকা কাউন্টার ভ্যালু ৫.০০ লাখ টাকার ওপর বার্ষিক ১৫% সুদের কোন কাউন্টার ভ্যালু নেই। এক্ষেত্রে কাউন্টার ভ্যালুর জাত (জিনস), মান (মিসলান বিমিসলিন) সমান সমান করা এবং পারস্পরিক বিনিময় (ইয়াদান বিইয়াদিন) করা এর কোন শর্তই পূরণ হয়নি। সুতরাং এ চুক্তিটি হচ্ছে, বিনা মূল্যে পরের সম্পদ গ্রাস করার অবৈধ রিবা চুক্তি।“আর (আল্লাহ) রিবাকে হারাম করেছেন”- এ কথা দ্বারা এইরূপ চুক্তিকেই বুঝানো হয়েছে। এ থেকে স্পষ্ট বুঝা যায় যে, অন্যান্য অন্যায় ভক্ষণের সাথে রিবার পার্থক্য এটাই যে, রিবা খাওয়া হয় কাউন্টার ভ্যালুর ওপর ধার্য করে।

হাদীসের আলোকে দেখালে দেখা যায় যে, এখানে ৫.০০ লাখ টাকার দুটি কাউন্টার ভ্যালু/দাম ধার্য করা হয়েছেঃ একবার বলা হয়েছে ৫.০০ লাখ টাকার দাম ৫.০০ লাখ টাকা; আবার বলা হয়েছে ৫.০০ লাখ টাকার দাম ৬.৫০ লাখ টাকা। প্রথমটি মূল ও কম। এটি গ্রহণ করতে হবে; অন্যথায় ২য় দামটি নিলে সুদ খাওয়া হবে ১৫% বর্ধিতাংশ। অন্যদিক থেকে বিচার করলে দেখা যায় যে, এখানে ৫.০০ টাকাকে দু’বার বিক্রি করা হয়েছে। একবার ৫.০০ লাখ টাকার বিনিময়ে ৫.০০ লাখ টাকা; আবার ৫.০০ লাখ টাকাকে ১৫% বৃদ্ধির বিনিময়ে বিক্রি করা হয়েছে। একেই বলা হয়েছে Multipe sale of the samething. অথচ দ্বিতীয়বার এবং তৎপরবতীতে যা বিক্রি করা হচ্ছে তা আসলে বিক্রেতার কাছে নেই। থমাস একুইনস এই কথাই বলেছেন এবং একে ভণ্ডামি আখ্যায়িত করেছেন।

প্রচলিত ধারার ব্যাংকগুলো তাদের সঞ্চয়ী ও মেয়াদী হিসাবসমূহে যে ডিপোজিট গ্রহণ করে সেখানেও এই একইভাবে ক্রয়-বিক্রয় ও রিবা চুক্তির সম্মিলন ঘটানো হয়। আসলে ডিপোজিট হচ্ছে ঋণ। ব্যাংক বিভিন্ন হারে নির্ধারিত সুদের ভিত্তিতে বিভিন্ন মেয়াদের জন্য এসব ঋণ গ্রহণ করে; (অবশ্য সঞ্চয়ী ডিপোজিটে মেয়াদ নির্ধারিত থাকে না।) অতঃপর ঋণের মেয়াদ পূর্ণ হলে আসলের কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধ করে দেয়; আর সুদ চুক্তি অনুসারে ধার্যকৃত সুদ দেয় যার কাউন্টার ভ্যালু ব্যাংক পায় না।

ঋণ লেনদেনের বস্তু যদি কোন পণ্য বা সেবা হয়, তাহলে একইভাবে দু’টি চুক্তি করা হলে তার একটি হবে সুদ চুক্তি। উদাহরণস্বরূপ কেউ যদি ৪০ কেজি নাজির শাইল ধান অপর কাউকে ১ মাসের জন্য ধার দেয়, তাহলে দাতার পাওনা কাউন্টার ভ্যালু হয় ৪০ কেজি সমমানের নাজির শাইল ধান। অতঃপর এই কাউন্টার ভ্যালুর ওপর যদি ৫ কেজি নাজির শাইল ধান বেশি ধার্য করা হয়, তাহেল প্রথম চুক্তিটি হয় বৈধ ক্রয়-বিক্রয় বা ঋণ চুক্তি; আর দ্বিতীয়টি হয় অবৈধ রিবা চুক্তি।

অনুরূপভাবে কেউ যদি কোন গাড়ীর (Car) মালিকের সাথে এই মর্মে চুক্তিবদ্ধ হয় যে, গাড়ীর মালিক আজ তাকে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম পৌঁছে দেবে; আর এর বিনিময়ে ঠিক এক মাস (৩০ দিন) পরে সে উক্ত গাড়ীর মালিককে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম পৌছেঁ দেওয়ার সার্ভিসের পারস্পরিক বিনিময় হবে সেবা লেনদেন বা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি যা দেওয়ার সার্ভিসের পারস্পরিক বিনিময় হবে সেবা লেনদেন বা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি যা বৈধ। আর ১০০/- টাকা অতিরিক্ত লেনদেন চুক্তিটি হবে কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বিনিময় না দিয়ে নেওয়ার অবৈধ রিবা চুক্তি।

এই হচ্ছে, ঋণের ক্ষেত্রে মুদ্রা, পণ্য বা সেবা পরিমাণ বৃদ্ধির মাধ্যমে সুদ কিভাবে উদ্ভূত হয় তার উদাহরণ। কিন্ত শুধু পরিামণ নয়, মুদ্রা, পণ্য বা সেবার মানে তারতম্য করা হলে অথবা বিদ্যমান তারতম্যের দরুন উভয় মুদ্রা, পণ্য বা সেবার বিনিময় রেশিওতে হ্রাস-বৃদ্ধি করা হলেও উভয় মূল্যের মধ্যে পার্থক্য সৃষ্টি হবে এবং এক পক্ষের বাড়তি মূল্যটুকু হবে বিনিময়হীন অতিরিক্ত বা রিবা।

সকল মাযহাবের সম্মনিত ফক্বীহগণ একে রিবা এবং অবৈধ বলে রায় দিয়েছেন। উদাহরণস্বরূপ, হানাফী মাযহাবে বলা হয়েছে, “নীতিগতভাবে কর্দ চুক্তিতে ঋণদাতাকে কোন সুবিধা দেওয়ার শর্ত করা উচিত নয়, অন্যথায় তা রিবা হবে”।[আল-কাসানি; বাদাই, ভলি-৭, পৃ: ৩৯৫-৬, উদ্ধৃত, নূর,ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ১২০।] হাম্বালী মাযহাবে বলা হয়েছে, “কর্দ হচ্ছে দান এবং তা দানই থাকা উটিত। এতে গুণগত বা পরিমাণগত কোন বৃদ্ধির শর্ত করা হলে তা ঋণের উদ্দেশ্যকে ব্যাহত করবে”।[ইবনে কুদামাঃ আল-মুঘনি, ভলি-৪, পৃ: ৩৫৪-৭, উদ্ধৃত, নূর,ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ১২০।] মালেকী মাযহাবে বলা হয়েছে, “কর্দ চুক্তিতে যদি বলা হয় যে, যে রূপ পণ্য দেওয়া হলো, তার চেয়ে ভাল পণ্য ফেরত দিতে হবে, অথবা “ঋণদাতাকে কোন উপহার দিতে হবে তাহলে তা অবৈধ হবে”।।[উপরোক্ত।] শাফেয়ী মাযহাবের মতে, “ঋণদাতাকে পরিমাণের বেশি ও মানগত দিক থেকে উত্তম পণ্য ফেরত দেওয়া ইত্যাদি কোন সুবিধা প্রদান করা বৈধ নয়”।[আল-সিরাজী, আল-মুজাযাহাব, ভলি-১, পৃ: ৩০৬, উদ্ধৃত, নূর, ই, এম, উপরোক্ত, পৃ: ১২৫।]

সিকিউরিটি, বন্ড, ডিবেঞ্চার ক্রয়-বিক্রয়ে রিবাঃ সিকিউরিটি, বিল, ব্যাংকের স্বীকৃতিপত্র, ডিপোজিট সার্টিফিকেট, বাণিজ্যিক পত্র, বন্ড, মর্টগেজ ইত্যাদি হচ্ছে বিভিন্ন ঋণপত্র। সরকার,কেন্দ্রীয় ব্যাংক, বাণিজ্যিক ব্যাংক, কর্পোরেশন, মিউনিসিপ্যালিটি ও কোম্পানী এসব ঋণপত্র ইস্যু ও বিক্রয় করে। এগুলো আসলে ঋণের সার্টিফিকেপ বা দলীল। ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষ এই সার্টিফিকেট দিয়ে ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠা, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি ও জনসাধারণ, এক কথায়, ক্রেতাদের কাছ থেক সুদের ভিত্তিতে ঋণ গ্রহণ করে। পত্রগুলো বিভিন্ন পরিমাণ ও মেয়াদের হয়ে থাকে। আর সে অনুসারে এদের সুদের হাও কম-বেশি নির্ধারিত থাকে। ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষ কখনো কখনো এগুলো নিলামে বিক্রয় করে। ক্রেতাগণ সুদী আয় পাবার আশায় এগুলো ক্রয় করে, তথা এই সার্টিফিকেট গ্রহণ করে ইস্যুকারীকে ঋণ দেয়। নির্ধারিত মেয়াদ পূর্ণ হলে ক্রেতাগণ এগুলো ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষের কাছে দাখিল করে এবং সুদসহ আসলের কাউন্টার ভ্যালু ফেরত পায়। প্রাপ্ত সুদ হয় তাদের আয়/মুনাফা। এসব ঋণপত্র হস্তান্তুযোগ্য; ক্রেতার নগদ অর্থের প্রয়োজন হলে ক্রীত ঋণপত্র বাজারে বিক্রয় করে ঋণ বাবদ প্রদত্ত তার অর্থের কাউন্টার ভ্যালু ফেরত পেতে পারে। অবশ্য চাহিদা ও যোগানের দ্বারা দাম নির্ধারিত হয় বিধায় ক্রেতা কখনও কখনও লোকসানেও এগুলো বিক্রয় করতে বাধ্য হয়; আবার কোনও কোনও সময় লাভেও বিক্রয় করতে পারে। ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষ তাদের স্বল্প মেয়াদী আর্থিক প্রয়োজন পূরণার্থে, যেমন সরকারের বাজেট ঘাটতি পূরণের লক্ষ্যে ঋণপত্র ইস্যু করলে সেগুলোকে বলা হয় স্বল্প মেয়াদী ঋণপত্র। কিন্তু মেশিন, যা সাধারণত এক বছরের কম-বেশি সময় স্থায়ী হয়ে থাকে, ইত্যাদি ক্রয়ের প্রয়োজনে দীর্ঘ মেয়াদী পুঁজি সংগ্রহের লক্ষ্যে যখন এক বছর বা তার চেয়ে দীর্ঘ সময়ের জন্য ঋণপত্র বিক্রয় করা হয়. তখন একে বলা হয় অর্থ বাজার বা money market; আর দীর্ঘ মেয়াদী ঋণপত্রের বাজারকে বলা হয় মূলধন বাজার বা capital matket।

অন্যান্য ঋণের ন্যায় এসব ঋণপত্রের মাধ্যমে গৃহীত ঋণও হচ্ছে সমজাতীয় মুদ্রার বাকি ক্রয়-বিক্রয়। ইস্যুকারী কর্তৃপক্ষ এসব পত্রের মাধ্যমে তাদেরকে নির্ধারিত মেয়াদের জন্য ঋণ প্রদানের প্রস্তাব (ঈজাব) করে; আর ক্রেতা মেয়াদপূর্তিতে কাউন্টার ভ্যালু ফেরত পাওয়ার শর্তে ঋণ প্রদানে রাজী (কবুল) হয়। এটি পরস্পর কাউন্টার ভ্যালূর বিনিময় বা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। দ্বিতীয়ত, ঋণগ্রহীতা গৃহীত অর্থের কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে নির্ধারিত সুদ প্রদান করবে বলে ওয়াদা (ঈজাব) করে; আর ঋণদাতাগণ উক্ত সুদ গ্রহলে রাজী (কবুল) হয়ে ঋণ দেয়। এটি একতরফাভাবে সুদ প্রদান ও গ্রহণের চুক্তি। সুদ গ্রহীতা গৃহীত সুদের কোন কাউন্টার ভ্যালু দেয় না। সুতরাং এটি মাগনা প্রদান ও গ্রহণের চুক্তি। তাই অবৈধ।

বিল ক্রয়-বিক্রয় বাট্টাকরণে রিবাঃ বিল মানে হচ্ছে বিনিময় বিল বা Bill of Exchange। বিনিময় বিল প্রধানত দুই রকম হয়ে থকেঃ বিদেশী বিনিময় বিল বা Foreign Bills ও দেশী বিনিময় বিল বা Local Bills। দেশী মাল বিক্রেতা কর্তৃক বিদেশী ক্রেতার ওপর বিদেশী মুদ্রার অংকে কৃত বিলকে বলা হয় বিদেশী বিল। আর দেশী বিক্রেতা কর্তৃক দেশী ক্রেতার ওপর দেশীয় মুদ্রার অংকে বিল করলে তা হয় দেশী বিল। দেশী-বিদেশী উভয় প্রকার বিল আবার দুই ধরনের হয়; উপস্থাপন মাত্র পরিশোধযোগ্য বিল বা Demand Bills এবং মেয়াদী বিল। মেয়াদী বিলে পরিশোধের মেয়াদ নির্ধারিত থাকে। বণিজ্যিক ব্যাংকগুলো এই সকল বিলই ক্রয় করে থাকে। সাধারণতঃ ডিমান্ড বিলের ক্ষেত্রে তারা বিল ক্রয় বা Purchase of Bills পরিভাষা ব্যবহার করে; আর মেয়াদী বিল ক্রয়কে তারা বিল ক্রয় বাট্টাকরণ বা Discounting of Bills বলে থাকে। উভয় ক্ষেত্রেই বিল বিক্রেতাগণ ব্যাংকের নিকট থেকে ঋণ হিসেবে তাৎক্ষণিভাবে বিলের অর্থ পেয়ে যায়, তাদেরকে ব্যাংক কর্তৃক বিলের অর্থ সংগ্রহ করা পর্যন্ত প্রতীক্ষা করতে হয় না।

ডিমান্ড বিল ক্রয়ের ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলো তাদের মঞ্জুরকৃত মোট ঋণ থেকে সেবামূল্য ও কালেকশন ব্যয় কেটে রেখে বিলের অবশিষ্ট অর্থ তাৎক্ষণিকভাবে গ্রাহককে (তার হিসাবে) পরিশোধ করে দেয়। অতঃপর স্বল্পতম সময়ের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট Drawee- এর কাছ থেকে ও সব বিলের অর্থ সংগ্রহ করে নেয়। এরূপ ক্ষেত্রে ব্যাংক সাধারণত প্রদত্ত ঋণের ওপর কোন অতিরিক্ত বা সুদ নেয় না; ব্যাংক কর্তৃক ঋণ প্রদান এবং Drawee- র নিকট থেকে উক্ত বিলের মূল্য আদায় করে ঋণ সমন্বয় করার মাঝখানে সময়ের তেমন ব্যবধান না থাকান স্বল্প সময়ের বিনিময়ে সুদ ধার্য করা হয় না।

কিন্তু মেয়াদী বিলের ক্ষেত্রে মঞ্জুরকৃত ঋণ হতে ব্যাংক তাদের সেবামূল্য ও বিলের অর্থ সংগ্রহ খরচ ছাড়াও বিলের মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার দিন পর্যন্ত সময়ের জন্য সুদ নিয়ে থাকে। স্বাভাবিকভাবেই এক্ষেত্রে দুটি চুক্তি হয়ঃ একটি বিল ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি; আর অপরটি হচ্ছে রিবা বা সুদ চুক্তি। প্রথম চুক্তি দ্বারা ব্যাংক বিলের প্রাপককে সমমুল্যের অর্থ বিলে নির্ধারিত মেয়দেন জন্য ঋণ দেয়; শর্ত থাকে যে, বিলদাতা নির্ধারিত মেয়াদ পূর্ণ হলে সমমুল্যের যে অর্থ পরিশোধ করবে তার দ্বারাই এই ঋণের কাউন্টার ভ্যালু পরিশোধ বা সমন্বয় করা হবে। আর দ্বিতীয় চুক্তি দ্বারা ঋণদাতা ব্যাংক বিলের বিপরীতে প্রদ্ত্ত ঋণের ওপর বিলে নির্ধারিত সময়ের জন্য সুদ ধার্য করে, আর ঋণগ্রহীতা তা পরিশোধে রাজী হয় ও পরিশোধ করে। এই সুদ হচ্ছে রিবা নাসীয়াহ। এক ‘বিল বাট্টাকরণ’ বলার করাণ হচ্ছে ব্যাংক বিলের প্রাপক ঋণগ্রহীতাকে বিলের মূল্যের সমপরিামাণ অর্থ ঋণ হিসেবে মঞ্জুর করে; অতঃপর সুদ-চুক্তি অনুসারে নির্ধারিত মেয়াদের ওপর ধার্যকৃত সাকল্য সুদ কেটে রেখে মঞ্জুরকৃত মোট ঋণের অবশিষ্টাংশ বিলের প্রাপককে প্রদান করে। বিলের মোট মূল্য থেকে সুদ কেটে রাখাকেই বলা হয় বিল বাট্টকরণ। এখানে উল্লেখ্য যে, বৈদেশিক মুদ্রার বিল দেশীয় মুদ্রায় ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে ব্যাংক সাধারণত ঋণ মঞ্জুর করার দিন বিদ্যমান হার অনুসারে বৈদেশিক মুদ্রার দাম নির্ধারণ করে থাকে।

এখানে একটি কথা বলা জরুরী যাতে ব্যাংক ও বিল প্রাপক উভয়েই সুদের লেনদেন থেকে বাঁচতে পারে। বিদেশী মুদ্রার বিল যখন দেশীয় মুদ্রায় ক্রয়-বিক্রয় করা হয়, তখন ক্রয়-বিক্রয়ের বস্তু দুটি (মুদ্রা দুটি) আসলে ভিন্ন ভিন্ন জাতের হয়। এরূপ ক্ষেত্রে ক্রেতা ও বিক্রেতার পারস্পরিক সম্মতির মাধ্যমে মুদ্রা দুটির বিনময় হার নির্ধারণ করার সুযোগ রয়েছে। ক্রেতা-বিক্রেতা পারস্পরিক সম্মতিতে যে কোন দামে তা ক্রয়-বিক্রয় করতে পারে। সুতরাং ঋণ ও সুদের দিকে না গিয়ে ব্যাংক পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে বিদেশী মুদ্রার দাম নির্ধারণ করে বিক্রেতাকে পুরো মূল্য নগদ পরিশোধ করে দিতে পারে এবং পরবতীতে বিলের বিদেশী মুদ্রা সংগ্রহ করে তা উচ্চতর হারে বিক্রি করে মুনাফা অর্জন করতে পারে।

উল্লেখ্য যে, পারস্পরিক সম্মতিতে বিনিময় হার নির্ধারণ কেবল অসম জাতের মুদ্রার ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। কিন্তু উভয় মুদ্রা যদি সমজাতের হয়, অর্থাৎ দেশীয় মুদ্রার বিল যদি দেশীয় মুদ্রায় ক্রয়-বিক্রয় করা হয়, তাহলে বিলে লিখা মুদ্রার মোট পারিমাণ এবং এর মূল্য বা কাউন্টার ভ্যালু বাবদ প্রদত্ত মুদ্রার পরিমাণ অবশ্যই সমান সমান হতে হবে; এতে ব্যথায় ঘটানোর কোন এখতিয়ার ক্রেতা-বিক্রেতার নেই। এক্ষেত্রে মূল্য থেকে বাট্টা করে যদি মূল্য পরিমাণে কম দেওয়া হয়, তাহলে মোট বিলেরে পরিমান এর কাউন্টার ভ্যালুর পরিমাণের পার্থক্যটা হবে কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে বাড়তি ও বিনিময়হীন; সুতরাং রিবা। এখানেও সামন সমান মূল্যের বিনিময় হবে ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি; আর বাড়তি লেনদেন হবে রিবা চুক্তি।

দেশে-বিদেশে অনেক চাকুরীজীবী, বিশেষ করে, দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বহু শিক্ষক তাদের বেতনের বিল অগ্রিম কম পরিমাণ টাকায় বিক্রি করে নগদ টাকা সংগ্রহ করে থাকেন। এটা আসলে বিল বাট্টকরণ এবং সুদের মধ্যে শামিল।

আরিয়্যাহ রিবা

আরবী ‘আরিয়্যাহ’ শব্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে ধার, borrowing বা loan. কিন্তু আভিধানিক অর্থ অভিন্ন হলেও বাস্তবে কর্দ এবং আরিয়্যাহর মধ্যে বেশ পার্থক্য রয়েছে। ইতোপূর্বে বলা হয়েছে যে, সমজাতের ফানজিনবল (Fungible) পণ্য, মুদ্রা বা সেবা বাকি ক্রয়-বিক্রয় থেকে ঋণের সৃষ্টি হয়। কিন্তু মালে গাইরে ফানি বা Non-Fungible পণ্য ব্যবহার করার জন্য বিনা মুল্যে ধার দেওয়া হলে তাকে বলা হয় আরিয়্যাহ।

মালে গাইরে ফানি বা non-fungible goods হচ্ছে সেই সব বস্তু, ব্যবহার করা সত্ত্বেও যার অস্তিত্ব বর্তমান থাকে, নিঃশেষ বা রূপান্তরিত হয়ে যায় না। সহজ কথায়, যেসব পণ্য, asset, property- কে এর নিজ রূপে বহাল রেখে বরাবার ব্যবহার করা এবং উপকার নেওয়া যায় সেসব পণ্য, এসেট ও প্রপার্টিকে বলা হয় non-fungible goods। যেমন, গাড়ী, বাড়ী, শাড়ী ইত্যাদি। ফানজিবল পণ্যের ন্যায় নন-ফানজিবল পণ্যেরও বৈশিষ্ট্য হচ্ছে তিনটি, যা ফানজিবল পণ্যের বৈশিষ্ট্যের সম্পূর্ণ বিপরীত। নন-ফানজিবল পণ্যের বৈশিষ্ট্য ৩টি হচ্ছেঃ

১. ব্যবহার করার পরও অস্তিত্ব বহাল থাকে;

২. সেবা প্রবাহ বা flow of service আছে এবং

৩. বস্তু থেকে এর সেবা ((service) পৃথক (separate) করা যায়।

উদাহরণস্বরূপ, একটি গাড়ীর কথা ধরা যাক। একবার নয় বারবার ব্যবহার করার পরও গাড়ীটি যথাযথ (অবচয় ছাড়া) বিদ্যমান থাকে। যতদিন অস্তিত্ব থাকে ততনিদ গাড়ী থেকে সেবা গ্রহণ করে উপকৃত হওয়া যায়। সর্বোপরি গাড়ীটির অস্তিত্ব যথাযথ বহাল রেখেই এ থেকে সেবা নেওয়া যায়; এমনকি, গাড়ী বিক্রি না করেও আলাদাভাবে গাড়ীর সেবা বিক্রি করা যায়।

সুতরাং আরিয়্যাহ হচ্ছে, মূল্য বা বিনিময় ছাড়া কোন ‘মালে গাইরে ফানি’ বা নন-ফানজিবল বস্তু কাজ শেষে ফেরত দেওয়ার শর্তে কাউকে ব্যবহার করতে দেওয়া। যেমন, খ-এর কন্যার বিয়েতে মেহমান আপ্যায়নের জন্য ক তার ডাইনিং টেবিল ও চেয়ারগুলো অনুষ্ঠান শেষে ফেরত দেওয়ার শর্তে খ-কে ধার দিল। এরূপ ধারকে বলা হয় আরিয়্যাহ।

বস্তুতঃ “আরিয়্যাহ হলো এমন বস্তু ধার দেওয়া, যা নিঃশেষ না করেও তা থেকে উপকারিতা (benefit) নেওয়া সম্ভব”।[ফক্বীহ কুনুবী: আনিসুল ফুক্বাহা, পৃ: ৬২৫।] মিসর ইফতার শাইখ মুহাম্মদ ফাতের বলেছেন,”আরিয়্যাহ হচ্ছে বিনিময় ব্যতীত কোন বস্তুর উপকারিতার মালিকানা প্রদান করা, মূল বস্তুর নয়।............. আরিয়াহর মূল কথা হচ্ছেঃ মূল বস্তুটি থেকে উপকারিতা নেওয়ার পর বস্তুটি ফেরত দেওয়া”।

আরিয়্যাহর মাল আরিয়্যাহ গ্রহীতার আছে আমানত হিসেবে গণ্য হয়; মালের মালিকানা তার কাছে হস্তান্তর করা হয় না। গ্রহীতা যে কাজের জন্য মালটি গ্রহণ করে সে কাজে ব্যবহার করার পরও বস্তুটি তার কাছে বর্তমান থাকে এবং শর্ত অনুযায়ী সে মালিককে তা ফেরত দিয়ে দেয়। এছাড়া মালটি ব্যবহার করে এ থেকে যে উপকার সে নেয় তারও কোন মূল্য বা বিনিময় তাকে দিতে হয় না। সুতরাং আরিয়্যাহয় গৃহীত মাল এবং মালের ব্যবহার ও উপকার এর কোনটার জন্যই কোন দায় গ্রহীতার ওপর বর্তায় না। অবশ্য সংরক্ষিত আমানত হিসেবে আরিয়্যাহর বস্তু যথাযথ হেফাজত করা তার দায়িত্ব। তবে যথাযথ হেফাজত করা সত্ত্বেও যদি তার নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত কোন কারণে মাল বিনষ্ট বা ধ্বংস হয়, তাহলেও এর ক্ষতিপূরণ করার দায়িত্ব গ্রহীতার ওপর বর্তায় না। অবশ্য তার গাফলতি বা ত্রুটির কারণে মালের ক্ষতি হলে তার দায়িত্ব তার ওপরই বর্তাবে। সুতরাং আরিয়্যাহ ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে শামিল নয়। এতে সুদ হওয়ার আশংকা নেই। এমনকি, মাল ব্যবহারের মূল্য নেওয়া হলে তা হয় আজর বা ভাড়া; আর চুক্তিটি হয়ে যায় ইজারাহ। ইজারাহ সম্পর্কে পরে আলোচনা আসছে।

আল-ওয়াদিয়াহ ও রিবা

আল-ওয়াদিয়াহ মানে নিরাপদ সংরক্ষণ। আল-ওয়াদিয়াহ হচ্ছে সম্পদের মালিক এবং জিম্মাদারের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তি যেখানে জিম্মাদার মালিকের গচ্ছিত সম্পদের নিরাপদ হেফাজত করে। ফিক্বাহ শাস্ত্রে আল-ওয়াদিয়াকে দুই শ্রেণীতে ভাগ করা হয়েছেঃ ১) আল-ওয়াদিয়াহ আল-আমানাহ ২) আল-ওয়াদিয়াহ আল-জামানাহ।

. আল-ওয়াদিয়াহ আল-আমানাহঃ সম্পদের মালিক যদি চাহিবা মাত্র হুবহু একই সম্পদ ফেরত দেওয়ার শর্তে কোন সম্পদ কারো কাছে নিরাপদ হেফাজতের জন্য গচ্ছিত রাখে, তাহলে সেই চুক্তিকে বলা হয় আল-ওয়াদিয়াহ আল-আমানাহ।

আমানত ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে শামিল নয়, এতে বিনিময় নেই; একই বস্তু যে অবস্থায় রাখা হয় সে অবস্থাতেই সংরক্ষণ করা হয় এবং মালিক চাইলে তার বস্তু হুবহু তাকে ফেরত দেওয়া হয়। জিম্মাদার কেবল হেফাজত করার দায়িত্ব পালন করে; এজন্য সেবামূল্য গ্রহণ করলে তা হয় সেবা ক্রয়-বিক্রয়। অপরদিকে আমানতকারী বা মালিক তার গচ্ছিত সম্পদের নিরাপত্তা পায় এবং দরকার হলে তা ফেরত নিয়ে যায়। তাকে কোন অতিরিক্ত প্রদান করার প্রশ্নই আসে না। সুতরাং আমানতে সুদের উদ্ভব ঘটার কোন আশঙ্কা নেই।

. আল-ওয়াদয়াহ আল-জামানাহঃ সাধারণতভাবে এটি জামানত হিসেবে পরিচিত। সম্পদের মালিক যখন ব্যবহারের অনুমতি ও চাহিবা মাত্র অনুরূপ সম্পদ সমপরিমানে ফেরত দেওয়ার শর্তে কোন অর্থ বা পণ্য কারও কাছে নিরাপদ হেফাজতের জন্য গচ্ছিত রাখে তখন তাকে বলা হয় আল-ওয়াদিয়াহ আল-জামানাহ বা জামানত। যে জামানত রাখার জন্য দেয় তাকে বলা হয় মালিক বা জামানতকারী, আর যে সংরক্ষণের দায়িত্ব পালন করে তাকে বলা হয় জিম্মাদার।

আল-ওয়াদিয়া আল-জামানাহ ঋণঃ আল-ওয়াদিয়া আল-জামানাহ-এর সাথে ঋণ তথা একজাতের পণ্য বাকি ক্রয়-বিক্রয় এবং আরিয়্যাহর যথেষ্ট মিল আছে। তবে ঋণ ও ওয়াদিয়ার মধ্যে পার্থক্য শুধু এতটুকু যে, ঋণে দাতা বস্তুটি বিক্রয় করে এবং মালিকানাসহ তা গ্রহীতার নিকট হস্তান্তর করে দেয়; অতঃপর বস্তুর সকল প্রকার ঝুঁকি এর নতুন মালিক ঋণগ্রহীতার ওপর বর্তায়। কিন্তু ওয়াদিয়ায় মালিক বস্তুর ওপর তার মালিকানা বহাল রেখে শুধু দখল (possession) হস্তান্তর করে এবং গ্রহীতাকে তা ব্যবহার করার অনুমতি দেয়। জিম্মাদার বস্তুর যাবতীয় ঝুঁকি বহন করে এবং বস্তু বা তার কাউন্টার ভ্যালু ফেরতের গ্যারান্টি দ্য়েও ফেরত দিতে বাধ্য থাকে; তাবে তার নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত কোন কারণে সম্পদ বিনষ্ট হলে তা ক্ষতিপুরণের দায়িত্ব তার ওপর বর্তায় না। কিন্তু ঋণের বেলায় এরূপ ঝুঁকি গ্রহীতাকেই বহন করতে হয়।

একেতো ফানজিবল পণ্য তারপর আবার ঋণের সাথে প্রায় মিলে যাওয়ার কারণে আল-ওয়াদিয়াহর বস্তু ব্যবহারের জন্য দাম নেওয়ার কোন সুযোগ নেই। দাতা-গ্রহীতা যদি মালিকাকে এরূপ কোন অতিরিক্ত প্রদানের চুক্তি করে তাহলে চক্তিটি পরিণত হয় ঋণ চুক্তিতে আর অতিরিক্ত লেনদেন হয় রিবা চুক্তি।

দাইন বা দেনা

এখানে দাইন কি, দাইন কিভাবে সৃষ্টি হয় এবং এতে কিভাবে রিবা বা সুদের উদ্ভব ঘটে সে বিষয়ে আলোচনা করা হচ্ছে।

দাইন অর্থঃ ইতোপূর্বে বলা হয়েছে যে, ‘দাইন’ শব্দটি আরবী; দাইন-এর অর্থ হচ্ছে দেনা, ঋণ, debt, liability.

দাইনের সংজ্ঞাঃ বাকি ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে এমন বিক্রয় চুক্তি sale contract) যেখানে বিনিময়ের দুটি বস্তুর মধ্যে একটি অথবা দুটি বস্তই অনুপস্থিত থাকে এবং চুক্তিকালে এর/এদের হস্তান্তর ও সরবরাহ বুঝে (acquisition) নেওয়া হয় না; তবে সংশ্লিষ্ট পক্ষ/পক্ষদ্বয়ের ওপর যথাসময়ে তা পরিশোধ করা বাধ্যতামূলক থাকে। এভাবে কাউন্টার ভ্যালু প্রদান স্থগিত রাখার সংশ্লিষ্ট পক্ষের ওপর তা পরিশোধের যে দায় বর্তায় তাকে বলা হয় দাইন।

হাশিম কামালি সূরা-আল-বাকারাহর ২৮২ আয়াতে ব্যবহৃত ‘দাইন’ শব্দের ব্যাখ্যা করে বলেছেন য, আয়াতে উল্লেখিত ‘তাদইয়ানতুম’ হচ্ছে ক্রিয়াপদ। শব্দটি বর্তমান কাল, বহুবচন ও পারস্পরি মুডে (reciproca; mood) ব্যবহৃত হয়েছে। ভায়াহত দিক থেকে এর দ্বারা একদিকে পারস্পরিকতা (reciprocity) এবং অপরদিকে স্থগিতকৃত দায়ের (deferred liability) ভিত্তিতে পণ্য-সামগ্রী এ সেবার ক্রয়-বিক্রয় বুঝায়। সুতরাং দাইন হচ্ছে স্থগিতকৃত দায় যা পণ্য-সামগ্রী, অর্থ ও সেবার বাকি ক্রয়-বিক্রয় থেকে সৃষ্টি হয়। ক্রয়-বিক্রয়ে দাম প্রদান যদি ভবিষ্যতে পরিশোধের জন্য স্থগিত রাখা হয়, অথবা বিক্রীত পণ্য ভবিষ্যতে প্রদান (delivery) করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়, তাহলে স্থগিত দায়কে (deferred liability) বলা হয় দাইন। “Dayn represents a charge or a personal commitment, on the dhimmah (legal personality) of its bearer”. “অর্থাৎ দাইন হচ্ছে দাবি বা ব্যক্তিগত অঙ্গীকার যা বাহকের (আইনানুগ ব্যক্তিত্ব) জিম্মায় থাকে”। ‘দাইন’ দ্বারা এমন বস্তুকে (asset) বুঝায় চুক্তিকালে যার বাস্তব অস্তিত্ব (tangible existence) থাকে না।

দাইন ক্রয়-বিক্রয়ের বৈধতা

দাইন ক্রয়-বিক্রয়ের বৈধতা আলোচনায়া হাশিম কামালি দেখিয়েছেন যে, দাইন ক্রয়-বিক্রয়ের বৈধতা আল-কুরআনের আয়াত দ্বারা সুপ্রতিষ্ঠিত। সূরাতুল বাকারাহর ২৮২ আয়াতে আল্লাহ স্পষ্টভাবে পরস্পর দাইন লেনদেনের কথা বলে তা লিখে নেওয়ার নির্দেশে দিয়েছেন। আয়াতে এ কথা স্পষ্ট যে, দায় ছোট হোক বা বড় হোক, তা অবশ্যই কোন নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য হতে হবে এবং এতদসংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়সহ সংশ্লিষ্ট পক্ষসমূহের দায়িত্ব ও অধিকার সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করে চুক্তিপত্র তথা দলীলে লিখতে হবে।

অতঃপর কামালি আইনবেত্তাদের বিভিন্ন মতামত তুলে ধরেছেন; এর সারসংক্ষেপ হলোঃ

হযরত ইবনে আব্বাস (রাঃ) বলেছেন যে, আয়াতটি ‘সালাম’ (অগ্রিম ক্রয়-বিক্রয়) সম্পর্কে নাযিল হয়েছে এবং অন্যান্য বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে এ আয়াত প্রযোজ্য নয়।

আর ইমাম রাযীর মতানুসারে এই আয়াত কেবল দুই ধরনের ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে প্রযোজ্যঃ এক প্রকার হচ্ছে বাকি বিক্রয় যেখানে দাম ভবিষ্যতের কোন দিনে পরিশোধ করা হয়; আর একক প্রকার হচ্ছে অগ্রিম বিক্রয় (বাই-সালাম)। এই উভয় প্রকার ক্রয়-বিক্রয়ে কেবল কোন এক পক্ষের ওপর দায় বর্তায়। সুতরাং বাকি ক্রয়-বিক্রয় উভয় পক্ষের মূল্য প্রদান স্থগিত রাখা বৈধ নয়।

কামালি বলেছেন যে, প্রচলিত ফিক্বাহয় এ বিষয়ে এমন রুলিং দেওয়া হয়েছে যে, এর ফলে আসলে যাবতীয় রিয়েল (real) ও বাস্তব (tangible) বস্তু দাইন ক্রয়-বিক্রয়ের আওতা থেকে বাদ পড়ে গেছে। বলা হয়েছে যে, একটি গাড়ী বা একটি বাড়ী বিক্রয় করা হলে উভয় পক্ষের কাউন্টার ভ্যালু অবশ্যই তাৎক্ষণিকভাবে বিনিময় ও হস্তান্তর করে দিতে হবে। তবে কেবল ক্রেতা তার দাম প্রদান স্থগিত রাখতে পারে যদি বিক্রেতা তাতে সম্মত হয়। কিন্তু গাড়ী বা বাড়ীর বিক্রেতাকে কিছুতেই তার গাড়ী বা বাড়ী হস্তান্তর স্থগিত রাখার সুযোগ দেওয়া যাবে না। বরং তা অবশ্য তাৎক্ষণিকভাবে এর নতুন ক্রেতার কাছে হস্তান্তর করতে হবে। হাশিম কামালি বলেনে, আইনহত এই অবস্থান খুব দৃঢ় ও অনমনীয়; ইজতেহাদী এ বিষয়টি পর্যালোচনা করা জরুরী; আর এজন্য নতুনভাবে গবেষণা হওয়া দরকার। তাছাড়া ফিক্বাহর এ সিদ্ধান্ত হাদীসে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত বক্তব্যর পরিপন্হী। হাদীসে বর্ণিত আছে যে, রাসূলের (সাঃ) অন্যতম সাহবী জাবির (রা) রাসূলের (সাঃ) কাছে তাঁর উট বিক্রি করলেন। অতঃপর তিনি আল্লাহর নবীকে জিজ্ঞেস করলেন যে, তিনি কি মদীনায় পৌঁছার পর উটটি নবীর (সাঃ) নিকট হস্তান্তর করতে পারবেন? নবী (সাঃ) এতে সম্মতি দিলেন। হাদীসে উল্লেখ আছে যে, জাবির (রাঃ) মদীনায় পৌঁছার পর উক্ত উটটি রাসূলের (সাঃ) কাছে হস্তান্তর করেছিলেন। এই হাদীসের উদ্ধৃতি দিয়ে ইবনুল কায়্যিম বলেছেন যে, ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ে সম্মত হলে পণ্যের হস্তান্তরও বিলম্বিত করা যেতে পারে; এমনকি সমাজে যদি বিলম্বিত করার প্রথা চালু থাকে, তাহলে প্রথা মুতাবিকও তা বিলম্বিত করা যাবে।

ইবনে আবেদীন বলেছেন যে, আবেদীন বলেছেন যে, “কাউন্টার ভ্যালুদ্বয়ের তাৎক্ষণিক হস্তান্তর করাই হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয়ের নিয়ম; তবে বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে পরিশোধের মেয়াদ যদি এমনভাবে নির্ধারণ করা হয় যে, তা কোন বিরোধের সৃষ্টি করবে না তাহলে বাকি ক্রয়-বিক্রয় অনুমোদিত।

মালিকী ষ্কুলের ফক্বীহবৃন্দও বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে বৈধ বলেছেন। তবে গারার (অস্পষ্টতা, দ্ব্যর্থবোধতা) ও রিবার আশাংকায় তাঁরা বেশ কতিপয় ধরনের বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের অনুমোদন দেন নাই। ইউসুফ আল-কারদাভী এর তীব্র সমালোচনা করেছেন। তিনি বলেছেন, “এসব ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ তালিকাভুক্ত করার বিষয়টি কুরআন অথবা সুন্নাহর ভিত্তিতে করা হয়নি; বরং এর ভিত্তি হচ্ছে ইজতিহাদ। এ কারণে এ বিষয়ে বিভিন্ন মতামত রয়েছে”।

হাম্বলী ফিক্বাহবিদগণও বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে বৈধ বলেছেন যদি তা রিবা ও গারারমুক্ত হয়। ইবনে তাইমিয়া এবং ইবনে আল-কায়্যিম আল-জাওযিয়্যাহ বাকি ক্রয়-বিক্রয়কে বৈধ ঘোষণা করেই ক্ষান্ত হননি; বরং যাঁরা তাৎক্ষণিক হস্তান্তরকে ক্রয়-বিক্রয়ের মূল নিয়ম ও শর্ত বলে উল্লেখ করেছেন তাদের এ অভিমতের কঠোর সমালোচনাও করেছেন।

ইমাম শাফেঈ এ ব্যাপারে উদার দৃষ্টিভঙ্গি করেছেন। তিনি বলেছেন যে, এ বিষয়ে আল-কুরআনের আয়াতটি হচেছ সাধারণ ও ব্যাপক। সকল প্রকার দাইনই এর মধ্যে শামিল। এর অর্থ হচ্ছে, যে কোন দায়ই (debt) বিলম্বিত করা বৈধ; যেমন, অগ্রিম বিক্রয়ের ক্ষেত্রে তা বৈধ হয়। ইবনে আব্বাসের বক্তব্য সম্পর্কে তিনি বলেছেন যে, (periodic loan) বা অন্য কিছু বুঝিয়ে থাকবেন। আমরা আয়াতের উদ্দেশ্য অনুসারে এনালজির (analogy) ভিত্তিতে কুরআনের উক্ত বিধানকে সকল দায় পর্যন্ত সম্প্রসারিত করতে পারে”।

ইবনে কাছিরও অনুরূপ অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেছেন যে, এই আয়াত দ্বারা আল-কুরআন ঈমানদারদেরকে পরস্পর বিলম্বে পরিশোধের ভিত্তিতে ক্রয়-বিক্রয় করার অনুমতি এবং তা লিখে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

উপরোক্ত মতামত উদ্ধৃত করে হাশিম কামালি বলেছেন যে, “দাইন-এর ব্যাখ্যায় বিশেষজ্ঞগণ বিভিন্ন অভিমত ব্যক্ত করেছেন। কেউ কেউ দাইনকে সীমিত রেখেছেন। কিন্তু অন্যান্য স্কলারগণ দাইনকে সাধারণ ও ব্যাপক অর্থবোধক হিসেবে দেখেছেন এবং সকল প্রকার স্থগিত দায়ই দাইন-এর মধ্যে শামিল বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন। বস্তুতঃ আল-কুরআন ‘দাইন’ বা ‘মুদায়্যানাহ’-এর ব্যবহার সাধারণ অর্থেই কারেছে, এর অর্থ নির্দিষ্ট (specify) করে দেয়নি; আর এই সাধারণ অর্থের পরিবর্তে ভিন্নতর অর্থ গ্রহণে বাধ্য করে এমন কোন প্রমান নেই। সুতরাং এ ব্যাপারে আমাদের সুচিন্তিত অভিমত হচ্ছে যে, আল-কুরআনোর ভাষা হচ্ছে সাধারণ ও শর্তহীন (unqualified); আর এই অর্থেই দাইনকে গ্রহণ করা উচিত”। ইবনে আব্বাসরে ব্যাখ্যা সম্পর্কে তিনি বলেছেন, “আয়াতটি বাই-সালাম সম্পর্কে নাযিল হওয়ার কথা যদি মেনে নেওয়া হয় তাহলেও কোন অসুবিধা নেই। কারণ সেটা ছিল আয়াত নাযিলের প্রেক্ষাপট বা শানে নুযূল। আর উসূলে ফিক্বাহর নিয়ম হচ্ছে, কোন নির্দিষ্ট ঘটনাকে কেন্দ্র করে আয়াত নাযিল হতে পারে না। আয়াতটি বাই-সালাম সম্পর্কে নাযিল হয়ে থাকলেও এর অর্থ সাধারণ এবং সকল দায়ের ক্ষেত্রেই তা প্রযোজ্য। সুতরাং সকল প্রকার দাইন-ই শরীয়তে বৈধ, অবশ্য যদি সুদ, জুয়া ও গারার সংক্রান্ত কুরআন ও সুন্নাহয় বর্ণিত কোন বিধি লংঘন করা না হয়।

সূরাতুল বাকারাহর ২৭৫ আয়াত “আল্লাহ ক্রয়-বিক্রয়কে হালাল করেছেন আর সুদকে করেছেন হারাম.” এর উদ্ধৃতি দিয়ে কামালি লিখেছেন যে, আয়াতে ব্যবহৃত ‘বাই’ শব্দটি হচ্ছে এক বচনে বিশেষ্য পদ, আর এর পূর্বে সংযুক্ত করা হয়েছে ‘আল’ (আলিফ লাম); ফলে এখানে বাই এর অর্থ হয়েছে সাধারণ বা আ’ম। এর দ্বারা সকল প্রকার বাইকে বুঝানো হয়েছে। সুতরাং সকল বাই-ই বৈধ।

আল-কুরআনের এই সাধারণ বিধানের মধ্যে সকল প্রকার বাই যেমন, এক পণ্যের বিনিময়ে আর এক পণ্য বিক্রয় (barter) এক মুদ্রার বদলে অন্য মুদ্রা ক্রয় (al-Sarf), অর্থের বিনিময়ে পণ্য ক্রয়-বিক্রয় (cash sale), অগ্রিম বিক্রয় বা সালাম, খরচ দামে বিক্রয় (al-Tawliyah), লাভে বিক্রয় (মুরাবাহা), লোকসানে বিক্রয় (al-Wadiah), মোট দামে বিক্রয় (মুসাওয়ামাহ) এবং নিলামে বিক্রয় (al-Muzayadah) সবই শামিল রয়েছে। এ সব বাই-ই বৈধ, এমনকি ফিউচারস ক্রয়-বিক্রয় যদি সুদ ও গারারমুক্ত হয়, তাহলে তাও বৈধ। তাছাড়া সুন্নাহ দ্বারা সুনির্দিষ্টভাবে নিষিদ্ধ করা হয় নাই এমন সকল বাই-ই বৈধ।[কামালি, মোহাম্মদ হাশিম, পূর্বোক্ত, পৃ: ১৩১-১৪৪।]

দাইনের ওপর রিবা

ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্য, অর্থ ও সেবা ক্রয়-বিক্রয়ের প্রচলিত প্রধান প্রধান ধরন হচ্ছে, বাই-মোয়াজ্জল (বাকি বিক্রয়), বাই-মুরাবাহা বিল আজল (বাকি মুরাবাহা), বাই-সালাম (অগ্রিম বিক্রয়), বাই-ইসতিসনা (আদেশ ক্রয়), ইজারাহ (ভাড়া)। এছাড়া আধুনিক কালে ব্যাপকভাবে চালু হওয়া ফিউচারস ও অপশনস ক্রয়-বিক্রয়কেও বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের মধ্যে শামিল বলে গণ্য করা হয়। এসব বাকি ক্রয়-বিকয়ে কিভাবে সুদ উদ্ভূত হয় সে বিষয়ে আলোচনা নিচে পেশ করা হলোঃ

বাই-মোয়াজ্জাল/বাই-মুরাবাহা রিবাঃ শরয়ী দিক থেকে দাম নির্ধারণের বেলায় বাই-মোয়াজ্জল-এ ক্রয় মূল্য ও মুনাফা আলাদা করে উল্লেখ করা জরুরী নয়; কিন্তু বাই-মুরাবাহায় ক্রয় মূল্য ও মুনাফা পৃথক পৃথকভাবে উল্লেখ করার শর্ত রয়েছে। এছাড়া এদের মধ্যে পদ্ধতিগত আর কোন পার্থক্য নেই। সেজন্য এ দুটি এক সাথে আলোচনা করা হচ্ছে।

বাই-মোয়াজ্জল ও বাই-মুরাবাহা ক্রয়-বিক্রয়ের বস্তু ভিন্ন ভিন্ন জাতের হয়। সুতরাং এক্ষেত্রে ক্রেতা-বিক্রেতার পরস্পরিক সম্মতিতে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণের বিধান প্রযোজ্য। বাই-মোয়াজ্জল ও বাই-মুরাবাহা পদ্ধতিতে বিক্রীত পণ্য তাৎক্ষণিকভাবে ক্রেতার কাছে সরবরাহ করা হয়; কিন্তু নির্ধারিত দাম বা খরচ + মুনাফা হস্তান্তর ভবিষ্যতের কোন নির্দিষ্ট সময়ের জন্য স্থগিত বা বাকি রাখা হয়। উল্লেখ্য যে, ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদিত হওয়ার সাথে সাথে বিক্রীত পণ্যের ওপর বিক্রেতার মালিকানা থাকে না, সে মালিক হয় নির্ধারিত দামের যা ক্রেতার কাছে পাওনা থাকে। আর নির্ধারিত দামের ওপর ক্রেতার মালিকানা থাকে না, সে মালিক হয় ক্রীত পণ্যের যা সে তাৎক্ষণিক বুঝে নেয়। যেহেতু বিক্রীত পণ্যের ওপর বিক্রেতার মালিকানা নেই, সেহেতু এই পণ্য আবার বিক্রি করা বা এর দাম বৃদ্ধি করার কোন অধিকার বিক্রেতার থাকতে পারে না। এতদসত্ত্বেও যদি বিক্রেতা তার পাওনা কাউন্টার ভ্যালুর ওপর কোন অতিরিক্ত ধার্য করে তাহলে সেই অতিরিক্ত হয় রিবা।

উদাহরণস্বরূপ, ধরা যাক ক চালের একজন বিক্রেতা আর খ চালের একজন ক্রেতা। তারা উভয়ে দরকষাকষি ও পারস্পরিক সম্মতিতে প্রতি কেজি ৩০/- টাকা দরে ৪০ কেটি চালের মোট দাম ১,২০০/- টাকা ধার্য করলো; তারা আরও স্থির করলো যে, এক মাসের মধ্যে দাম পরিশোধের শর্তে ক খ-এর কাছে ৪০ কেজি চাল বাকিতে বিক্রি করবে, তবে খ যদি নির্ধারিত মেয়াদের মধ্যে তার দেনা পরিশোধে ব্যর্থ হয়, তাহলে পরবতীতে বর্ধিত মেয়াদের জন্য উক্ত দেনার ওপর বার্ষিক ১৫% সুদ ধার্য হবে এবং খ তা পরিশোধে বাধ্য থাকবে।

এখানে পারস্পরিক সম্মতিতে নির্ধারিত ৪০ কেজি চাল হচ্ছে ১,২০০/- টাকার কাউন্টার ভ্যালু, আর ১,২০০/- টাকা হচ্ছে ৪০ কেজি চালের কাউন্টার ভ্যালু। এখানে মূল্যের সমতা ও পারস্পরিক লেনদেন, ভিন্ন ভিন্ন জাতের পণ্য ক্রয়-বিক্রয়ের দুটি শর্তই পূর্ণ হয়েছে। সুতরাং এই চুক্তিটি হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। কিন্তু পরিশোধে ব্যর্থ হলে বার্ষিক ১৫% সুদ ধার্য করার চুক্তিটি হচ্ছে স্বতন্ত্র আর একটি চুক্তি- রিবা চুক্তি। এই চুক্তি অনুসারে খ তার দেনার ওপর বছরে ১৫% অতিরিক্ত ক-কে দেবে, আর ক তা নেবে কিন্তু তার কোন বিনিময় বা কাউন্টার ভ্যালু দেবে না। সুতরাং এই চুক্তিতে কাউন্টার ভ্যালুর সমতা নেই (খ দিচ্ছে ১৫%, ক দিচ্ছে ০%) আর পারস্পরিক লেনদেনের শর্তও পূরণ হয়নি (খ দিচ্ছে, কিন্তু ক কিছুই দিচ্ছে না)। সুতরাং এ চুক্তিটি পরের সম্পদ মাগনা নেওয়ার অবৈধ রিবা চুক্তি।

অনুরূপভাবে বলা যায় যে, মুরাবাহা চুক্তিও বাকি ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। কিন্তু বাকি থাকা খরচ+লাভ তথা দেনা পরিশোধে ব্যর্থ হলে সময়ের ভিত্তিতে তার ওপর অতিরিক্ত ধার্য করার চুক্তি করা হলে সেই চুক্তি হয় রিবা চুক্তি এবং হারাম। এই চুক্তি দ্বারা পাওনাদার তার মালিকানায় নেই এমন জিনিস বিক্রি করেছে এবং তার নির্ধারিত পাওনার চেয়ে অন্যায়ভাবে বেশি নেওয়ার ব্যবস্থা করেছে এবং অপরের সম্পদের ওপর অবৈধ অধিকার প্রতিষ্ঠত করে নিয়েছে।

বাই-সালাম রিবাঃ বাই-সালাম মানে অগ্রিম বিক্রয়। বাই-সালামে নির্ধারিত দাম তাৎক্ষণিক নগদ পরিশোধ করা হয়; কিন্তু নির্ধারিত (specified) পণ্য ভবিষ্যতের কোন নির্দিষ্ট সময়ে পরেশোধের জন্য বাকি রাখা হয়।

বাই-সালামে দুটি ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তু বিনিময় করা হয়। সুতরাং এক্ষেত্রেও ক্রেতা-বিক্রেতা পারস্পরিক সম্মতিতে যে পারিমাণ পণ্য এবং যে দাম নির্ধারণ করে তাই হয় পরস্পর বৈধ কাউন্টার ভ্যালু। অতঃপর ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদনের পর কাউন্টার ভ্যালুদ্বয়ের মালিকানা পরিবর্তিত হয়ে যায়; অর্থৎ নির্ধারিত পণ্যের মালিক হয় ক্রেতা, আর নির্ধারিত দামের মালিক হয় বিক্রেতা। বিক্রেতা তাৎক্ষণিকভাবে দাম নগদ বুঝে নেয়,কিন্তু পণ্য নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বিক্রেতার জিম্মায় বাকি থাকে। এই পণ্যই হচ্ছে বিক্রেতার দেনা আর ক্রেতার পাওনা। প্রদত্ত দামের ওপর ক্রেতার মালকানা নেই শুঘু তাই নয়, তা বিক্রেতাকে বুঝিয়ে দেওয়াও হয়ে গেছে; সুতরাং দাম আবার হ্রাস করা তথা পণ্যের পরিমাণ বৃদ্ধি করার অধিকার ক্রেতার থাকতে পারে না। এতদসত্ত্বেও দেনাদার ও পাওনাদার সম্মত হয়ে যদি দেনা-পাওনার (বাকি পণ্য) ওপর কোন বাড়তি ধার্য করে, তাহলে সেই বাড়তি হবে কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত একতরফা ও মাগনা, সুতরাং রিবা।

উদাহরণ হিসেবে ধরা যাক, ক একজন ধান বিক্রেতা এবং খ ধানের একজন ক্রেতা। তারা উভয়ে স্থির করল যে, প্রতি কেজি ২০ টাকা দরে ৪০ কেজি ধানের দাম ৮০০/- টাকা। তারা আরও সিদ্ধান্ত করলো যে, খ ৪০ কেজি ধানের কাউন্টার ভ্যালু ৮০০/- টাকা তাৎক্ষণিক নগদ ক-কে পরিশোধ করে দেবে; আর ক ক্ষেতের ধান তোলার পর ডিসেম্বর মাসের ১ তারিখে খ-কে ৪০ কেজি ধান সরবরাহ করবে। তবে ক যদি নির্ধারিত তারিখে ধান হস্তান্তর করতে ব্যর্থ হয় তাহলে প্রতি বিলম্বিত দিনের জন্য ১ কেজি ধান বা ২০/- টাকা করে অতিরিক্ত ধার্য করা হবে এবং ক তা পরিশোধ করতে বাধ্য থাকবে। এখানে প্রথম চুক্তিটি অর্থাৎ ৮০০/- টাকার বিনিময়ে ৪০ কেজি ধান অগ্রিম বিক্রয় চুক্তি হচ্ছে ক্রেতা-বিক্রোতার মধ্যে সম্পাদিত বাই-সালাম চুক্তি। কাউন্টার ভ্যালুর সমতা এবং পারস্পরিক লেনদেনের শর্ত পূর্ণ হওয়ায় এই চুক্তিটি সম্পূর্ণ বৈধ। কিন্ত প্রতি বিলম্বিত দিনের জন্য ১ কেজি ধান বা ২০ টি টাকা ধার্য করার চুক্তি হচ্ছে ভিন্নতর আর একটি চুক্তি যা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদনের পর (প্রথমটির পরই দ্বিতীয়টি হয়) পাওনাদার ক এবং দেনাদার খ এর মধ্যে সম্পাদিত হয়েছে। এই চুক্তি অনুসারে নির্ধারিত মেয়াদের পর যতদিন ক ৪০ কেজি ধান পরিশোধ না করবে ততদিন পর্যন্ত প্রত্যহ ১০ কেজি ধান বা ২০ টাকা হারে খ-কে দিতে থাকবে; আর খ তা নেবে কোন বিনিময়, কাউন্টার ভ্যালু বা দাম না দিয়ে। সুতরাং এই চুক্ত রিবা চুক্তি এবং সম্পূর্ণ অবৈধ।

বাই-ইসতিসনা রিবাঃ এক কথায় বাই-ইসতিসনাকে বলা হয় আদেশ ক্রয় (order sale)। নির্ধারিত দামে সুনির্দিষ্ট পণ্যের আদেশ গ্রহণ পূর্বক আদিষ্ট পণ্য উৎপাদন বা প্রস্তু করে সরবরাহ করা হলে সেই ক্রয়-বিক্রয়কে বলা হয় বাই-ইসতিসনা বা আদেশ ক্রয় (order sale)। ইতোপূর্বে বলা হয়েছে, বাই-মোয়াজ্জল ও বাই-মুরাবাহায় বিক্রীত পণ্য তাৎক্ষণিক নগদ সরবরাহ করা হয়, কিন্তু দাম বাকি থাকে; আর বাই-সালামে দাম নগদ পরিশোধ করা হয়, কিন্তু পণ্য বাকি থাকে। বাই-ইসতিসনায় আদিষ্ট পণ্য উৎপাদন বা তৈরী করতে সময় লাগে, সুতরাং পণ্য সরবরাহ বিলম্বিত করতে হয়; আর ক্রেতা-বিক্রেতা সম্মত হলে দামও বাকি রাখা যায়। সুতরাং ইসতিসনায় পণ্য ও দাম উভয় কাউন্টার ভ্যালুর বাকি থাকতে পারে।

বাই-ইসতিসনাতে ক্রয়-বিক্রয়ের বস্তু ভিন্ন ভিন্ন জাতের বিধায় এক্ষেত্রে ক্রেতা-বিক্রেতার পারস্পরিক সম্মতিতে কাউন্টার ভ্যালু নিরূপণ ও নির্ধারণ করা বিধেয়। অন্যান্য বাকি ক্রয়-বিক্রয়ের ন্যায় কাউন্টার ভ্যালু নিরূপণ ও নির্ধারণ এবং ক্রয়-বিক্রয় চু্ক্তি সম্পাদনের পর কাউন্টার ভ্যালুদ্বয়ের মালিকানা পরস্পর হস্তান্তরিত হয়ে যায়। ফলে বিক্রেতার দেনা হয় আদিষ্ট পণ্য, আর ক্রেতার দেনা হয় নির্ধারিত দাম। বিক্রেতা আদেশমত প্রস্তুত করে পণ্য সরবরাহ করলে ক্রেতা চুক্তির শর্ত মতে দাম পরিশোধে বাধ থাকে। সুতরাং বিক্রেতা (প্রস্তুতকারক) তার মালিকানা নেই সেই পণ্যের পরিমাণে কম-বেশি করতে পারে না।

কিন্তু প্রস্তুতকারক (আদেশ গ্রহীতা) নির্ধারিত সময়ে সরবরাহ করতে ব্যর্থ হলে তার নির্ধারিত পাওনা দাম হ্রাস করা বা তার ওপর জরিমানা আরোজ করা যাবে কিনা?

এ ব্যাপারে আধুনিক ফক্বীহগন বাই-ইসতিসনার আদেশকে কার্যাদেশ হিসেবে বিবেচনা করছেন এবং যথাসময়ে কাজ না করার শাস্তিস্বরূপ (punishment for non performance) জরিমানা আরোপ করা যাবে বলে অভিমত দিয়েছেন। এই জরিমানা রিবা নয় বলে তারা মনে করেন। তবে বিষয়টির ওপর আরও গবেষণা হওয়া দরকার। তাছাড়া, একদিকে আদিষ্ট পণ্য অন্যদিকে অর্থ; একটি অপরটির কাউন্টার ভ্যালু। অর্থ পরিশোধে বিলম্ব করলে এবং এজন্য তার ওপর কোন বৃদ্ধি করার হলে তা হয় রিবা; কিন্তু আদিষ্ট পণ্য (অপর কাউন্টার ভ্যালু) প্রদানে বিলম্ব করণে তার ওপর ধার্যকৃত জরিমানা রিবা নয়। এ বিষয়ে গভীর চিন্তা-ভাবনা করার প্রয়োজন রয়েছে।

অপরপক্ষে চুক্তিতে যদি শর্ত করা হয় যে, ক্রেতা নির্ধারিত সময়ে তার দেনা (নির্ধারিত দাম) পরিশোধ করতে ব্যর্থ হলে বিলম্বিত সময় কালের জন্য উক্ত দেনার ওপর নির্দিষ্ট হারে অতিরিক্ত আরোপ করা হবে, তাহলে এই শর্তটি হচ্ছে রিবা চুক্তি যাতে বিনিময়হীন অতিরিক্ত একতরফাভাবে লেনদেন করার কথা স্থির করা হয়েছে।

উদাহরণস্বরূপ, মনে করা যাক, ক সেগুন কাঠের একটি ডাইনিং টেবিল আর সাথে ৮টি চেয়ার বানিয়ে নিতে চায়। সে কাঠ মিস্ত্রি খ-এর কাছে তার প্রস্তাব পেশ করলো। উভয়ে সম্মত হয়ে টেবিল-চেয়ারের মোট দাম (মজুরীসহ) নির্ধারণ করলো ৫০,০০০/- টাকা। খ এক মাসের মধ্যে তা তৈরী করে ততে রাজী হলো। আর ক সরবরাহ নেয়ার এক মাসের মধ্যে দাম পরিশোধ করবে বলে স্থির করা হলো। অতঃপর উভয়ে সম্মত হয়ে ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি সম্পাদন করলো। তারা পরস্পর এই শর্ত করলো যে, টেবিল-চেয়ার বুঝে নেয়ার এক মাসের মধ্যে ক্রেতা পুরো দাম পরিশোধ করতে ব্যর্থ হলে বিলম্বিত সময়-কালের জন্য তাকে শতকরা বার্ষিক ১৫/- টাকা হারে অতিরিক্ত দিতে হবে।

এখানে প্রথম চুক্তিটি হচ্ছে ইসতিসনা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। এক্ষেত্রে বিক্রেতা খ-এর দনো হলো টেবিল-চেয়ার যা সে এক মাসের মধ্যে প্রস্তুত করে দিবে এবং ক্রেতা ক এর দেনা হলো নির্ধারিত দাম ৫০,০০০/- টাকা। যদি খ নির্ধারিত এক মাসের মধ্যে আদেশ অনুসারে প্রস্তুতকৃত টেবিল সরবরাহ করে এবং ক সরবরাহ গ্রহণের পর থেকে এক মাসের মধ্যে দাম পরিশোধ করে তাহলে তাদের পরস্পরের দেনা-পাওনা চুকে যাবে এবং লেনদেন সমাপ্ত হবে।

কিন্তু দ্বিতীয় চুক্তিটি হচ্ছে দেনাদার ও পাওনাদারের মধ্যে কৃত রিবা চুক্তি। ক্রেতা যদি সরবরাহ নেয়ার এক মাসের মধ্যে তার দেনা শোধে ব্যর্থ হয় তাহলে বিলম্বিত সময়ের জন্য মূল্যের ওপর শতকরা বার্ষিক ১৫ টাকা হারে প্রদত্ত সাকুল্য অতিরিক্ত হবে বিনিময়হীন আর এজন্য রিবা।

মুদ্রা ক্রয়-বিক্রয়ে (সরফ) রিবা

ভিন্ন ভিন্ন জাতের মুদ্রা, যেমন বাংলাদেশী টাকার বিনিময়ে আমেরিকার ডলার, সৌদী রিয়েলের বিনিময়ে যুক্তরাজ্যের পাউন্ট স্টারলিং ইত্যাদি বাকি ক্রয়-বিক্রয়ে সুদ ও গারার থাকার আশঙ্কা করেই সম্মানিত ফক্বীহগণ এরূপ ক্রয়-বিক্রয় নগদে নগদে (on the spot) করার পক্ষে রায় দিয়েছেন। কিন্তু ইতোপূর্বে ক্রয়-বিক্রয় আলোচনায় আধুনিক গবেষক হাশিক কামালির অভিমত তুলে ধরে দেখানো হয়েছে যে, রিবা ও গারারমুক্ত হলে ভিন্ন ভিন্ন জাতের মুদ্রার বাকি ক্রয়-বিক্রয় করা বৈধ। ভিন্ন ভিন্ন জাতের মুদ্রা বাকিতে ক্রয়-বিক্রয় ক্ষেত্রে কিভাবে রিবা হয় সে বিষয়টি জানা থাকা দরকার।

ক্রয়-বিক্রয়ের দুটি মুদ্রা ভিন্ন ভিন্ন জাতের হলে সংশ্লিষ্ট বিধান অনুসারে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয় পক্ষের সম্মতিক্রমে এদের বিনিময় রেশিও বা কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণ করতে হবে। অতঃপর কোন একটি কাউন্টার ভ্যালু প্রদান নির্ধারিত মেয়াদের জন্য স্থগিত রাখা হলে তা হবে বাকি ক্রয়-বিক্রয় যা অবৈধ হওয়ার কোন কারণ নেই। কিন্তু ক্রেতা-বিক্রেতা সম্মত হয়ে স্থগিতকৃত কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বিলম্বিত সময়ের ভিত্তিতে যদি অতিরিক্ত ধার্য ও লেনদেন করে তাহলে সেই অতিরিক্ত হবে একতরফা ও বিনিময়হীন লেনদেন; সুতরাং রিবা যা হারাম।

ইজারাহ রিবাঃ ইজারাহ মূলতঃ দুই প্রকার। এক প্রকার হচ্ছে মানুষ (human beings) ও পশুর (animals) শ্রম বা ব্যবহার বিক্রি করা; শরয়ী পরিভাষায় এক বলা ইজারাহ আল-জিম্মাহ; আর এক প্রকার হচ্ছে নন-ফানজিবল পণ্য বা সস্পদ-সম্পত্তির সেবা (service) (usufruct) বিক্রি করা; শরীয়তের ভাষায় একে বলা হয় ইজারাহ আল-আইন; ইংরেজীতে ‘leasing’ ও বাংলায় ‘ভাড়া’ হচ্ছে এর প্রতিশব্দ। কোন নির্দিষ্ট কাজের জন্য নির্ধারিত মজুরী বা বেতনের বিনিময়ে শ্রমিক ভাড়া করা, অফিসে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ করে, চিকিৎসার জন্য ডাক্তর মামলার জন্য উকিল, শিক্ষার জন্য শিক্ষক ইত্যাদি ভাড়া করা অথবা বিশেষ কোন কাজের জন্য কোন পশু ভাড়া করা হচ্ছে ইজারা আল-জিম্মাহর উদাহরণ। আর জমি, গাড়ী, বাড়ী, মেশিন, যন্ত্রপাতি, পোশাক ইত্যাদি ভাড়া করা হচ্ছে ইজারাহ আল-আইন। বিদ্যুৎ, টেলিফোন, ফ্যাক্স, ই-মেইল ইত্যাদি সার্ভিস বিক্রি করা হচ্ছে ইজারাহ আল-আইনের অন্তর্ভূক্ত।

মোটকথা, ভাড়াদাতা ও ভাড়াগ্রহীতার পারস্পরিক সম্মতিতে নির্ধারিত ভাড়ার বিনিময়ে কোন মানুষ, পশু বা সম্পদ সুনির্দিষ্ট কাজে ব্যবহারের জন্য কাউকে প্রদান করা হলে তাকে বলা হয় ইজারহ। এখানে ভাড়া ও ব্যবহার হচ্ছে একে অপরের কাউন্টার ভ্যালু। কিন্তু যথাসময়ে ভাড়া পরিশোধে ব্যর্থ হলে এবং বিলম্বিত সময়ের জন্য ভাড়ার ওপর কোন অতিরিক্ত ধার্য করা হলে সেই অতিরিক্ত হয় কাউন্টার ভ্যালুহীন অতিরিক্ত বা রিবা।

উদাহরণস্বরূপ, বাড়ীর মালিক ক এবং ভাড়াটিয়া খ পারস্পরিক সম্মতিতে মাসিক ২০,০০০/- টাকা ভাড়া ধার্য করে প্রতি পরবর্তী মাসের ১ তারিখে ভাড়া পরিশোধের শর্তে বাড়ীতে বসবাস করার উদ্দেশ্যে ক খ-এর কাছে তার বাড়ী ভাড়া দিল। তারা আরও শর্ত করলো যে, ভাড়া কার্যকর হওয়ার দিন থেকে প্রত্যেক মাসের ১ তারিখে পূর্ববর্তী মাসের ভাড়া পরিশোধ না করলে বিলম্বিত প্রতি দিনের জন্য খ ভাড়ার ওপর ১% অতিরিক্ত পরিশোধে বাধ্য থাকবে। এখানে প্রথম চুক্তিটি হচ্ছে পরস্পর কাউন্টার ভ্যালুর বিনিময় তথা ইজারাহ বা বাড়ীর সেবা ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। এই চুক্তিটি বৈধ। কিন্তু দ্বিতীয় চুক্তিটি হচ্ছে রিবা চুক্তি বা ভাড়াটিয়া খ-এর সম্পদ বিনামূল্যে হস্তগত করার অবৈধ চুক্তি।

অনুরূপভাবে পারস্পরিক সম্মতিতে নির্ধারিত মূল্যের বিনিময়ে বিদ্যুৎ, টেলিফোন, ফ্যাক্স, ই-মেইল বা ইন্টারনেটের ব্যবহার হচ্ছে ইজারাহ চুক্তি। কিন্তু ভাড়া বিলম্বে পরিশোধের কারণে মূল্যের ওপরে আবার জরিমানা, সুদ ইত্যাদি নামে কোন অতিরিক্ত ধার্য ও আদায় করা হলে সেই অতিরিক্ত লেনদেন হবে কাউন্টার ভ্যালুহীন বাড়তি বা রিবা।

ফিউচার্স, অপশনস ক্রয়-বিক্রয় রিবাঃ ফিউচার্স ও অপশনস ক্রয়-বিক্রয় সাম্প্রতিক কালের উদ্ভাবন। বর্তমানে ফিউচার্স ও অপশনস ব্যাপকভাবে লেনদেন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এরকম অনেক ধরন চালু করা হয়েছে। ফিউচার্স ও অপশনস কাকে বলে, এর মোডাস অপারেন্ডি (Modus Operandi) কি এবং এতে রিবা কিভাবে উদ্ভূত হয়, এসব বিষয়ে ইনশাআল্লাহ পরবর্তীতে আলোচনা করা হবে।

নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবা

আল-কুরআনের পরিভাষায় নগদ ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে ‘তেজারাতান হাজিরাতান’; অর্থাৎ উপস্থিত ক্রয়-বিক্রয়; ইংরেজীতে একে বলা হয় spot exchange বা cash transaction. এ ক্ষেত্রে ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি এবং পণ্য লেনদেনের মাঝে কোন সময় থাকে না। তাছাড়া কাউন্টার ভ্যালু নেওয়া ও দেওয়ার মাঝেও সময় থাকে অনুপস্থিত। এক্ষেত্রে কোন বিলম্ব না করে ক্রেতা-বিক্রেতা তাদের নিজ নিজ পণ্য সেবা বা অর্থ পরস্পর হস্তান্তর করে। এক কথায় এখানে চুক্তি ও উভয় পক্ষের পারস্পরিক হস্তান্তরের কাজ একই বৈঠকে সম্পন্ন করে ক্রয়-বিক্রয় সমাপ্ত করা হয়। এজন্য এ ধরনের ক্রয়-বিক্রয় লিখে নেওয়া বা এর দলীল দস্তাবেজ তৈরী করার প্রয়োজন হয় না। আল্লাহ তা’য়ালা মানুষকে এরূপ ক্রয়-বিক্রয় লিখে নেওয়ার দায়িত্ব থেকে রেহাই দিয়েছেন। (আল-কুরআনঃ ২:২৮২) নগদ ক্রয়-বিক্রয় দুই রকম হতে পারেঃ সমজাতের বস্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয় এবং অসম জাতের বস্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয়।

সমজাতের বস্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবাঃ প্রথমত, এক জাতের পণ্য, সেবা ও অর্থ নগদ বিনিময়ে এদের মানগত সমতার বিধি লংঘন করা হলে এদের মূল্যে অবশ্যই পার্থক্য সৃষ্টি হবে। মনে করা যাক, একজন ক্রেতা ২৪ ক্যারেটের ১ তোলা সোনা বিক্রেতাকে দিল; আর বিক্রেতা ২০ ক্যারটের ১ তোলা সোনা ক্রেতাকে তাৎক্ষণিক হস্তান্তর করল। এখানে পরিমাণে (ওজন) সমান সমান হওয়া সত্ত্বেও মানগত পার্থক্যের দরুন উভয় সোনার দাম সমান নয়। ফলে উভয় সোনার দামের ব্যবধানটাই হচ্ছে রিবা। কিন্তু পূর্বেই বলা হয়েছে যে, একই জাতের দুটি পণ্যের পরস্পর সরাসরি বিনিময় হয় বলে এদের দামের পার্থক্য জানা যায় না। সেজন্য এখানে রিবা কি পরিমাণ তা বলাও সম্ভব নয়। আর একারণেই উভয় পণ্যের মানগত পার্থক্য উল্লেখযোগ্য হলে, সেক্ষেত্রে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এদের সারাসরি বিনিময় করতে নিষেধ করেছেন এবং ভিন্নতর কোন পণ্য বা অর্থের বিনিময়ে খারাপ পণ্য (খেজুর) বিক্রি করে বিক্রয়লব্ধ পণ্য বা অর্থ দ্বারা উন্নত মানের পণ্য (খেজুর) ক্রয় করার নির্দেশ দিয়েছেন।

দ্বিতীয়ত, একই জাতের দুটি পণ্যের মধ্যে বিদ্যমান মানগত পার্থক্যকে বিবেচনায় নিয়ে এদের বিনিময় রেশিওতে কম-বেশি করা হলেও এতে রিবা হওয়ার আশঙ্কা থেকেই যায়। যেমন দুই সা’ খারাপ খেজুরের বদলে ১ সা’ উন্নত মানের খেজুরের সরাসরি বিনিময়ে উভয় খেজুরের দাম সমান হয়েছে একথা নিশ্চিত করে বলা যায় না। সুতরাং সম্মানিত ফক্বীহগণ সকলেই এই বর্ধিত ১ সা’ খারাপ খেজুরকে রিবা বলেছেন। হাদীসে বলা হয়েছে, “এতো রিবার মতই, এতো রিবাই”।

তৃতীয়ত, একজাতের দুটি পণ্যের মান এক রকম হওয়া সত্ত্বেও যদি এদের পরিমাণে কম-বেশি করা হয় যেমন, ১ কেজি লেংড়া আমের বিনিময়ে ১.৫০ কেজি লেংড়া আমের ক্রয়-বিক্রয় হলে ১ কেজি আমের দাম হবে ১ কেজি আম। এটাই পারস্পরের কাউন্টার ভ্যালু। এদের পারস্পরিক বিনিময় হচ্ছে ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি। অতঃপর এক পক্ষ তার প্রদত্ত কাউন্টার ভ্যালুর ওপরে .৫০ কেজি বেশি দিয়েছে; এর কোন বিনিময় বা কাউন্টার ভ্যালু সে পায় নাই। অপরপক্ষে গ্রহীতা তার প্রদত্ত ১ কেজি আমের বিনিময়ে প্রাপ্য কাউন্টার ভ্যালুর ওপর .৫০ কেজি আম বেশি নিয়েছে যার কোন কাউন্টার ভ্যালু সে দেয় নাই; এটি রিবা চুক্তি। এখানেও দুটো চুক্তি কার্যকর রয়েছে।

অসমজাতের বস্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয়ে রিবাঃ বিশেষজ্ঞদের অনেকেই বলেছেন, অসমজাতের পণ্য, অর্থ বা সেবা নগদ ক্রয়-বিক্রয় করার অনুমতি দিয়েছেন। কিন্তু ইতোপূর্বে সুন্নাহর দৃষ্টিতে সুদ শিরোনামে প্রতারণা, সুপারিশ, ঈজাব, নাজিশ ইত্যাদি বিষয়ে উদ্ধৃত হাদীস কয়টি থেকে জানা যায় যে, ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তু নগদ ক্রয়-বিক্রয়েও রিবা উদ্ভূত হতে পারে। নিচে আলোচনা করা হলোঃ

প্রতারণাঃ কেউ যদি প্রতারণা করে দাম বেশি নেয়, তাহলে সেই বর্ধিত অংশটুকু তার জন্য রিবা। উদাহরণস্বরূপ, মনে করা যাক একজন ক্রেতা একটি জিনিসেরে দাম বললো ১০০/- টাকা এবং জানিয়ে দিল এর বেশি সে দেবে না। এ অবস্থায় বিক্রেতা মিথ্যা কথা বললো যে তার কেনা দাম আছে ১০৫/- টাকা; অতএব ক্রেতা যদি আর ৫/- টাকা দেয়, তাহলে অন্তত আসল দামে জিনিসটি তাকে দিতে পারে। ক্রেতা অগত্যা ১০৫/- টাকা দিয়ে জিনিসটি ক্রয় করলো। উদাহরণে এটা স্পষ্ট যে, ১০০/- টাকা হচ্ছে জিনিসটির দাম; অতঃপর বর্ধিত ৫/- হচ্ছে মিথ্যা কথার দাম। বিক্রেতার জন্য এই ৫/- টাকা হচ্ছে রিবা।

অনুরূপভাবে বাজার দর সম্পর্কে ধারণা নেই এমন কোন লোকের কাছ থেকে কোন পণ্য ক্রয়কালে তার অজ্ঞতার সুযোগে যদি দাম কম দিয়ে তাকে ঠকানো হয় তা হলে প্রদত্ত সেই দামে বাজার দর অনুসারে যে পরিমাণ পণ্য হয় তার ওপরে পণ্যের বর্ধিতাংশ হবে কাউন্টার ভ্যালুর ওপর বিনিময়হীন বৃদ্ধি বা রিবা।

একইভাবে নাজাশ করে পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেওয়াও এক ধরনের প্রতারণা। নাজিশ ক্রয় করার উদ্দেশ্যে নয়, বরং দাম বাড়ানোর উদ্দেশ্যে পণ্যের দাম করে যাতে প্রকৃত ক্রেতা উক্ত প্রস্তাবিত দামের চেয়ে বেশি দাম দিয়ে ক্রয় করতে বাধ্য হয়। এভাবে নাজিশ কর্তৃক মিথ্যা দরদামের মাধ্যমে বর্ধিত দামটুকু হয় প্রকৃত দামের ওপার বিনিময়হীন বৃদ্ধি; সুতরাং রিবা।

সুপারিশঃ সুপারিশের বিনিময়ে উপহার/উপঢৌকন গ্রহণ করলে সেই উপহার/উপঢৌকন হয় বিনিময়হীন। আর বিনিময়হীন হলেই তা হয় রিবা।

ঈজাবঃ পাকার পূর্বে ফল বিক্রি করা হলে, অপরিপক্বতার দরুন সে ফল ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। আর যদি তা হয় তাহলে ফলের বিনিময়ে গৃহীত দাম বিনিময়হীন রিবা পর্যবসিত হবে।

প্রতীয়মান হচ্ছে যে, ভিন্ন ভিন্ন জাতের বস্তু ক্রয়-বিক্রয়ে ক্রেতা-বিক্রেতা কর্তৃক পারস্পরিক সম্মতির মাধ্যমে কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারণকালে ধোকা, প্রতারণা, জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে কোন পক্ষের প্রকৃত দামে হ্রাস-বৃদ্ধি করা হলে দামের ওপর বর্ধিত অংশ হয় রিবা।

উপরে বিভিন্ন প্রকার ক্রয়-বিক্রয় চুক্তির সাথে কিভাবে রিবা চুক্তি করা হয় এবং তার ফলে কিভাবে রিবা উদ্ভূত হয় তা বিস্তারিতভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এ থেকে প্রতীয়মান হয় যে, ক্রয়-বিক্রয়ে কোন একটি কাউন্টার ভ্যালুর ওপর অতিরিক্ত ধার্য করা হলে এবং এই অতিরিক্তের বিনিময় বা কাউন্টার ভ্যালু দেওয়া না হলে সেই বিনিময়হীন অতিরিক্ত হচ্ছে রিবা বা সুদ।

এক নজরে ক্রয়-বিক্রয়, ভাড়া মুনাফা সুদের তুলনা

ক্রয়-বিক্রয়, ভাড়া, মুনাফা ও সুদ সম্পর্কে আলোচনার পর এখানে এগুলোর মধ্যে একটি সংক্ষিপ্ত তুলনা পেশ করা হলোঃ

ক্রয়-বিক্রয়, ভাড়া, মুনাফা ও সুদের সংক্ষিপ্ত তুলনা

বিষয় ক্রয়-বিক্রয় ভাড়া মুনাফা সুদ
১) উৎস ক্রয়-বিক্রয়ের উৎস বৈধ চুক্তি। ভাড়ার উৎস উৎপাদন। মুনাফার উৎস উৎপাদন। সুদের উৎস অবৈধ চুক্তি।
২) প্রয়োগ ক্ষেত্র সকল বৈধ পণ্য, মুদ্রা ও সেবা। সকল নন-ফানজিবল পণ্য, মানুষ ও পশুর সেবা। সকল বৈধ উৎপাদন কাজ তথা কৃষি, শিল্প, বাণিজ্য ও সেবা খাতের উৎপাদন। সকল প্রকার ক্রয়-বিক্রয়েই সুদের চুক্তি করা যায়।
৩) ধরন সমান সমান মূল্যের বিনিময়। সমান সমান মূল্যের বিনিময়। ক্রয়-বিক্রয়ে নির্ধারিত কাউন্টার ভ্যালুর অন্তর্ভূক্ত। ক্রয়-বিক্রয়ে একদিকের কাউন্টার ভ্যালুর ওপর ধার্য করা হয়।
৪) মূল্য বা বিনিময় বিনিময় দিয়ে পণ্য বা মুদ্রা নেওয়া হয় তথা বিনিময় আছে। বিনিময় দিয়ে সেবা নেওয়া হয় তথা বিনিময় আছে। বিনিয়োগের মাধ্যমে উৎপাদিত বা সংযোজিত উপযোগ হচ্ছে মুনাফার কাউন্টার ভ্যালু। বিনিময় না দিয়ে নেওয়া হয়; কাউন্টার ভ্যালু বা বিনিময় নেই।
৫) লেনদেন লেনদেন পারস্পরিক। লেনদেন পারস্পরিক। লেনদেন পরস্পরিক। লেনদেন পারস্পরিক। একতরফা দেওয়া ও একতরফা নেওয়া হয়।
৬) নির্ধারণ কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারিত হওয়া আবশ্যকীয়। কাউন্টার ভ্যালু নির্ধারিত হওয়া আবশ্যকীয়। নির্ধারিত কাউন্টার ভ্যালুতে লাভ থাকতেও পারে নাও থাকতে পারে; মুনাফা অনিশ্চিত। পূর্ননির্ধারিত ও নিশ্চত।
৭) ঝুঁকি ঝুঁকিপূর্ণ। ঝুঁকিপূর্ণ। ঝুঁকিপূর্ণ। ঝুঁকি নেই।
৮) পরিণতি পূর্ণ ইনসাফ বহাল থাকে; ক্রেতা-বিক্রেতার কেউ ঠকে না, কেউ জিতে না। পূর্ণ ইনসাফ বহাল থাকে; ক্রেতা-বিক্রেতার কেউ ঠকে না, কেউ জিতে না। পূর্ণ ইনসাফ বহাল থাকে; ক্রেতা-বিক্রেতার কেউ ঠকে না, কেউ জিতে না। বেইনসাফী কায়েম হয়। এক পক্ষের ক্ষতির বিনিময়ে অপর পক্ষ লাভবান হয়।
৯) গুরুত্ব মানব সামজের অস্তিত্বের জন্য অপরিহার্য। মানব সামজের অস্তিত্বের জন্য অপরিহার্য। জীবিকার উৎস, অর্থনীতির চালিকাশক্তি, অর্থনৈতিক উন্নতি ও সমৃদ্ধির চাবিকাঠি। মানব সমাজের জন্য অকল্যাণ ও ধ্বংসের বাহন।
১০) বৈধতা বৈধ বা হালাল বৈধ বা হালাল বৈধ বা হালাল অবৈধ বা হারাম।
             

তুলনায় স্পষ্ট হয়েছে যে, ক্রয়-বিক্রয়ে বিনিময় দিয়ে নেওয়া হয় এজন্য ক্রয়-বিক্রয় হালাল; মুনাফা বিনিময় মূল্যের অংশ-মুনাফার বিনিময় আছে এজন্য মুনাফা হালাল। সুদ বিনময় না দিয়ে নেওয়া হয় এজন্য সুদ হারাম।

 

দ্বিতীঁয় খণ্ড: সুদের কুফল

ভূমিকা

সুদের কুফল আলোচনার পূর্বে সুদী কারবারের স্বরূপ সম্পর্কে আলোচনা করলে সুদের বিরূপ প্রতিক্রিয়া উপলব্ধি করা সহজ হবে। নিচে প্রাচীন ও আধুনিক কালের সুদী কারবারের স্বরূপ আলোচনা করা হলো।

প্রাচীন কালের সুদী কারবার

সুদী কারবারের স্বরূপ সম্পর্কে ধারণা পেতে হলে আমাদের একটু পেছনে গিয়ে স্বর্ণমান ব্যবস্হা থেকে আলোচনা করতে হবে। পাশ্চত্য দেশে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায় যে, দূর অতীতের এক সময়ে স্বর্ণ অর্থ হিসেবে ব্যবহৃত হতো। সে সময়ে সাধারণ মানুষ স্বর্ণ সঞ্চয় করলে নিরাপত্তার জন্য তা এলাকার ধনী স্বর্ণকারদের (Goldsmith) কাছে গচ্ছিত রাখত এবং এ মর্মে স্বর্ণকারদের নিকট থেকে রসিদ লিখে নিত। স্বর্নকরাগণ আমানতকারীদের স্বর্ণ হেফাযত করত, হিসাব সংরক্ষণ করত এবং কেউ তার স্বর্ণ ফেরত নিতে এলে তাকে তার স্বর্ণ যথাযথভাবে ফেরত দিত। প্রথমদিকে স্বর্ণকারগণ তাদের এসব কাজের জন্য স্বর্ণ আমানতকারীদের কাছ থেকে পারিশ্রমিক নিত। কালক্রমে স্বর্ণকারদের দেওয়া রসিদগুলো ক্রয়-বিক্রয় ও লেনদেনের মাধ্যমে হিসেবে ব্যবহৃত হতে লাগল।ফলে স্বর্ণকারদের কাছ থেকে কাঁচা সোনা তুলে নেওয়ার জন্য জমাদানকারীরা খুব একটা আসতো না। স্বর্ণকারগণ দেখলো যে, তাদের কাছে গচ্ছিত স্বর্ণের বিরাট অংশ সারা বছর তাদের সিন্দুকেই পড়ে থাকে এবং শতকরা মাত্র ১০-১৫ ভাগ লোক কোন বিশেষ প্রয়োজনে তাদের সোনা তুলে নিতে আসে। স্বর্ণকারগণ এই অবস্থাকে নিজেদের জন্য এক বিরাট সুযোগ মনে করল। তারা গচ্ছিত সোনার মাত্র ১০-১৫ ভাগ রেখে বাকি ৮৫-৯০ ভাগ সুদের বিনিময়ে ধার দিয়ে সুদ অর্জন করতে লগল। এভাবে তারা স্বর্ণ সংরক্ষণের বিনিময়ে একদিকে স্বর্ণের মালিকদের নিকট থেকে পারিশ্রমিক আদায় করত, অপরদিকে মালিকদের সোনা নিজেরা ধার দিয়ে সুদ উসূল করত।

স্বর্ণকারগণ এটুকুতেই ক্ষান্ত হয়নি। তাদের অর্থলিপ্সা ও চালবাজি আরও অনেক দূর গড়িয়ে গেল। তারা দেখলো যে, তাদের ধার দেওয়া স্বর্ণগুলো ঋণগ্রহণকারীরাও সকলেই তুলে নেয় না; বরং তাদের কাছেই গচ্ছিত রেখে রসিদ নিয়ে যায়। তারা এটাও দেখলো যে, স্বর্ণের প্রকৃত মালিককে দেওয়া রসিদের ন্যায় ঋণগ্রহীতাদের দেওয়া রসিদগুলোও বাজারে বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে স্বর্ণের সব কাজ করে যাচ্ছে। মালিক এবং ঋণগ্রহণকারিগণ সাধারণতঃ শতকরা ১০ থেকে ১৫ ভাগের বেশি সোনা ফেরত নিতে আসে না। ফলে ধার দেওয়া স্বর্ণেরও শতকরা ৮৫-৯০ ভাগ তাদের সিন্দুকেই পড়ে থাকে। অভিজ্ঞতা থেকে তারা যখন স্পষ্ট বুঝতে পারল যে, র্স্বণ ধার দিলে স্বর্ণ দিতে হয় না। কেবল রসিদ দিলেই চলে, তখন তারা একই সোনাকে বারবার ধার দিয়ে ঋণগ্রহীতাদের সোনা গচ্ছিত আছে বলে রসিদ দিতে এবং তার ওপর সুদ নিতে লাগল। বিষয়টি আরও স্পষ্ট করার জন্য একটা দৃষ্টান্ত দেওয়া যেতে পারে। মনে করা যাক, কোন এক ব্যক্তি স্বর্ণকারের কাছে ১০ তোলা স্বর্ণ জমা করল এবং এ মর্মে একটা রসিদ নিল। এই রসিদটি প্রকৃত স্বর্ণ জমার রসিদ। এখন স্বর্ণকার যেহেতু অভিজ্ঞতা থেকে জেনেছে যে, স্বর্ণের প্রকৃত মালিক উক্ত দশ তোলা স্বর্ণের মধ্যে বিশেষ প্রয়োজনে কেবল ১ তোলা অর্থাৎ ১০% সোনা তুলে নিতে পারে; বাকি ৯ তোলা অর্থাৎ ৯০% তার কাছে সারা বছর পড়ে থাকবে। অতএব, স্বর্ণকার এ ৯ তোলা স্বর্ণ ধার দিল। এ স্বর্ণের প্রথম ঋণগ্রহীতা উক্ত ৯ তোলা স্বর্ণ তুলে নিল না, নিল একটা রসিদ, আর স্বর্ণ স্বর্ণকারের কাছেই থাকল। স্বর্ণকার সুদ পাবার লোভে এ ৯ তোলা স্বর্ণ আবারও ধার দিল এবং ঋণগ্রহীতাকে আর একটা রসিদ লিখে দিল। এভাবে স্বর্ণকার উক্ত ৯ তোলা স্বর্ণের কমপক্ষে দশটা রসিদ তৈরী করে দশজনকে (৯×১০=৯০ তোলা) ধার দিল এবং এর বিনিময়ে সুদ আদায় করল। স্বর্ণের প্রকৃত মালিকরা স্বর্ণকারদরে চালাকি বুঝতে পেরে যাতে তাদের স্বর্ণ তুলে না নেয়, সেজন্য মালিকদের কাছ থেকে পারিশ্রমিক নেওয়ার পরিবর্তে স্বর্ণকারগণ এবার তাদের সুদ দিতে শুরু করল। এভাবেই স্বর্ণকাররা সম্পূর্ণ ভূয়া মুদ্রার আকারে শতকরা ৯০ ভাগ জাল মুদ্রা তৈরী করত এবং তার মালিক সেজে প্রভূত পরিমাণে সুদ অর্জন করত।

নিঃসন্দেহে এ ব্যবসা ছিল একটা বিরাট প্রতারণা ও জালিয়াতি। কিন্তু দেশের রাজা, মন্ত্রী, আমীর-উমারা সবাই এ পুঁজিপতিদের ঋণের জালে আটকা পড়েছিল। এমনকি, যুদ্ধ এবং অন্যান্য অভ্যন্তরীণ সংকট মুকারিবলার জন্য বিভিন্ন দেশের সরকারও তাদের কাছ থেকে বড় বড় ঋণ নিয়েছিল। এমতাবস্থায় এ ধনীদের জালিয়াতি ব্যবসার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের মত সাহস-শক্তি কারও ছিল না। এভাবেই একটা বিরাট প্রতারণা ও জালিয়াতি কারবার আইনের ধরা-ছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে, এমনকি, আইন একে বৈধ বলে স্বীকার করে নিয়েছে।[মওদূদী, সাইয়েদ আবুল আ’লা, সুদ ও আধুনিক ব্যাংকিং, আধুনিক প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৭৯, পৃ: ৭৪-৭৫।] এ হলো পুরাতন যুগের স্বর্ণকার ও ধনিক গোষ্ঠীর সুদী কারবারের স্বরূপ। হালে এসব স্বর্ণাকর ও ধনিক গোষ্ঠিীর স্থান পুঁজিপতি শ্রেণী ও ব্যাংকারগণ দখল করে নিয়েছে। আর এদের সুযোগ্য হাতের স্পর্শে সুদের অস্ত্র সকল যুগের চেয়ে অধিকতর ধ্বংসকর ক্ষমতা লাভ করেছে।[উপরোক্ত, পৃ: ৭২।]

আধুনিক ব্যাংকের সুদী কারবার

আধুনিক ব্যাংক-ব্যবসার স্বরূপ আলোচনা করলে এটা স্পষ্ট হয়ে উঠে কিভাবে ব্যাংকগুলো দেশের প্রায় সকল পুঁজি কুক্ষিগত করে নেয় এবং কিভাবে এরা গোটা অর্থনীতির ওপর প্রভাব খাটিয়ে নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করে থাকে।

উপরে স্বর্ণকার ও ধনীদের সুদী কারবারের যে স্বরূপ বর্ণনা করা হয়েছে, তা ছিল ব্যক্তিগত পর্যায়ে এবং বিক্ষিপ্ত। অর্থনৈতিক কায়-কারবার বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে এ সুদী কারবারগুলো বিরাট বিরাট প্রতিষ্ঠানে রূপ নেয় এবং দূর-দূরান্তরে ওগুলোর শাখা-প্রশাখা কায়েম করা হয়। ক্রমে আরও বড় প্রতিষ্ঠান এবং আরও ব্যাপক পুঁজির প্রয়োজন দেখা দেয়। এ পর্যায়ে পুঁজিপতিরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং অন্যান্য শাখর ন্যায় অর্থ-ব্যবসাতেও যৌথ পুঁজির ভিত্তিতে বড় বড় গঠন করল। এরই নাম হলো ব্যাংক।

ব্যাংক দু’ধরনের পুঁজি খাটিয়ে থাকে; এক, অংশীদারদের পুঁজি; আর দুই. আমানতকারীদের জমাকৃত অর্থ। ব্যাংক প্রথমে অংশীদারদের পরিশোধিত স্বল্প পরিমাণ মূলধন নিয়ে ব্যবসা শুরু করে। অতঃপর আমানতকারীদের কাছ থেকে কম সুদের হারে এবং বিনাসুদে আমানত গ্রহণ করে এবং এই সাকল্য অর্থ অধিক সুদে লগ্নি করে বিপুল পরিমান সুদ অর্জন করে থাকে।

ব্যাংক সাধারণতঃ তিন ধরনের আমনত গ্রহণ করে; মেয়াদী আমানত (Fixed Deposit), সঞ্চয়ী আমানত (Savings Deposit) এবং চলতি আমানত (Current Deposit)।

মেয়াদী আমানত কমপক্ষে তিন মাস বা তদূর্ধ সময়ের জন্য রাখা হয়। আমানতকারীগণ মেয়াদ শেষ হবার আগে মেয়াদী আমানতের অর্থ তুলে নিতে পারে না। ব্যাংক মেয়াদী আমানতের ওপর সময়ের ভিত্তিতে বিভিন্ন হারে সুদ দেয়। মেয়াদ যত দীর্ঘ হয় সুদের হার তত বেশি হয় এবং সময় যত কম হয় সুদের হারও তত কম হয়। বাংলাদেশে বর্তমানে মেয়াদী আমানতের ওপর শতকরা ৯.০০ টাকা থেকে ১৩.০০ টাকা হারে সুদ দিয়ে এ ধরনের আমানতকারীদের আকৃষ্ট করা হয়। আমানতকারীগণ প্রধানতঃ নির্দিষ্ট হারে সুদ ধরনের আমানতকারীদের আকৃষ্ট করা হয়। আমানতকারীগণ প্রধানতঃ নির্দিষ্ট হারে সুদ পাওয়ার লোভেই মেয়াদী হিসাবে অর্থ জমা করে।

সঞ্চয়ী আমানত হতে সাধরণতঃ সপ্তাহে একবার বা দু’বার কোন নির্দিষ্ট পরিমাণ পর্যন্ত অর্থ উঠানো যায়। এই পরিমাণের বেশি অর্থ উঠাতে হলে পূর্বাহ্নে নোটিশ দিতে হয়। এরূপ আমানতের ওপর সাধরণতঃ শতকরা ৫ থেকে ৯ ভাগ সুদ দেওয়া হয়। আমানতকারীগণ সাধারণতঃ নিরাপত্তা এবং সঞ্চয়ের উদ্দেশ্যেই এ ধরনের হিসাব খুলে থাকে।

চলতি আমানত থেকে আমানতকারীগণ যে কোন সময়ে যে কোন পরিমাণ অর্থ তুলে নিতে পারে। ব্যাংক সাধারণতঃ এরূপ আমানতের ওপর কোন সুদ দেয় না, বরং কোন কোন ক্ষেত্রে ব্যাংক এরূপ আমানতকারীদের কাছ থেকে হিসাব সংরক্ষণের পারিশ্রমিক আদায় করে। নিরাপত্তা এবং লেনদেনের সুবিধার্থেই আমানতকারীগণ চলতি হিসাব খুলে থাকে।

এভাবে ব্যাংক এর মোট পুঁজির শতকরা ৯০ থেকে ৯৫ ভাগ অর্থ আমানতের মাধ্যমে সংগ্রহ করে। অবশিষ্ট ৫-১০ ভাগ পুঁজি আসে শেয়ার মূলধন থেকে। ব্যাংক জনগনের আমানতের ওপর যে সুদ দেয় মোট আমানতের ওপর তার গড় হার ৫% থেকে ৭% এর বেশি হয় না। অথচ ব্যাংক এই সাকুল্য অর্থ ১৫% থেকে ২০% সুদে খাটিয়ে বিপুল মুনাফা অর্জন করে। নিম্নের উদাহরণ থেকে বিষয়টি আরও পরিষ্কার হবে।

১৯৮৬ সালে (ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড এর) পরিশোধিত মূলধন ছিল ৮,০০,০০,০০০.০০ (আট কোটি) টাকা। এ বছর উক্ত ব্যাংকে গচ্ছিত আমানতের পরিমাণ ছিল ২৭১,১৯,০০,০০০.০০ (দুইশত একাত্তর কোটি ঊনিশ লক্ষ) টাকা। এছাড়া, অন্যান্য কোম্পানী থেকে গৃহীত ঋণের পরিমাণ ছিল ৩৬,০০,৩০,০০০.০০ (ছত্রিশ কোটি ত্রিশ হাজার) টাকা। অর্থাৎ মূলধন, আমানত ও ঋণের মোট পরিমাণ ছিল ৩১৫,১৯,৩০,০০০.০০ (তিনশত পনের কোটি ঊনিশ লক্ষ ত্রিশ হাজার) টাকা। শতকরা হিসাবে পরিশোধিত মূলধনের হার দাঁড়াচ্ছে মোচ পুঁজির ২.৫৩%; আর মোট পুঁজির ৯৭.৪৭% হচ্ছে আমানত ও ঋণ। এ বছর ব্যাংক আমানতকারী ও ঋণদাতাদের সুদ দিয়েছে ২১,২০,৫৬,০০০.০০ (একুশ কোটি বিশ লক্ষ ছাপ্পান্ন হাজার) টাকা।মোট আমনত অর্থাৎ ৩০৭ কোটি টাকার ওপর গড়ে সুদের হার দাঁড়ায় ৬.৯০%। অতঃপর ব্যাংক করপূর্ব নীট মুনাফা দেখিয়েছে ৯,৫০,১৬,০০০.০০ টাকা।[ন্যাশনাল ব্যাংক লিঃ বাংলাদেশ, বার্ষিক প্রতিবেদন, ১৯৮৬।] মোট পরিশোধিত মূলধনের ওপর মুনাফার হার দাঁড়ায় ১১৮.৭৭%।

আধুনিক ব্যাংকের ঋণদার পদ্ধতির দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যায় যে, প্রাচীন স্বর্ণকারদের ন্যায় এরও গচ্ছিত আমানতের নয় গুণ অর্থ ঋণ দিয়ে তার ওপর সুদ অর্জন করে থাকে। অর্থনীতিরি ভাষায় একে বলা হয় ‘বহুগুণ ঋণ সৃষ্টি’ বা Multiple Credite Creation।

প্রাচীন স্বর্ণকারদের ন্যায় বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো তাদের অভিজ্ঞতা থেকে জানতে পেরেছে যে, যারা ব্যাংকে অর্থ জমা রাখে, তারা সকলেই এক সাথে তাদের অর্থ তুলে নেয় না; বরং কেবল ১০% লোক তাদের অর্থ তুলে নিতে আসে, আর বাকি ৯০% অর্থ সর্বদা ব্যাংকের তহবিলেই থাকে। ফলে ব্যাংকগুলো তাদের কাছে গচ্ছিত আমানতের ১০% নগদ অর্থ হাতে রেখে বাকি ৯০% অর্থ সুদের ভিত্তিতে ঋণ দেয়। নিম্নের উদাহরণের মাধ্যমে বিষয়টি ব্যাখ্যা করা যেতে পারেঃ

মনে করা যাক, ক একটি ব্যাংক। আরও মনে করা যাক যে, কোন একজন আমানতকারী ক ব্যাংকে ১০০০.০০ (এক হাজার) টাকা আামনত রাখল। ক ব্যাংক এই আমানতের ১০% বা ১০০.০০ টাকা নগদ হাতে রেখে বাকি ৯০% বা ৯০০.০০ টাকা সুদের ভিত্তিতে লগ্নি করবে। এ ক্ষেত্রে ক ব্যাংকের দেনা-পাওনার হিসাব দাঁড়াবে নিম্নরূপঃ

দেনা পাওনা
আমানত ১,০০০.০০ সংরক্ষিত নগদ ১০০.০০
    ঋণ  
মোট ১,০০০.০০ মোট ১,০০০.০০

প্রত্যেক ব্যাংকেই এককভাবে এর কাছে গচ্ছিত আমানতের ৯০% অর্থ ঋণ দিয়ে থাকে। কিন্তু ব্যাংক ব্যবস্থা সার্বিকভাবে বা সকল ব্যাংক সম্মিলিতভাবে যখন ঋণ দেয়, তখন প্রত্যেকটি ঋণই নতুন আমানতের সৃষ্টি করে এবং এ ধরনের ঋণ-সৃষ্ট আমানতের ৯০% অর্থ আবারও ঋণ দেওয়া হয়। এই ঋণও আবার আমানত সৃষ্টি করে এবং আবারও এর ৯০% ঋণ দেওয়া হয়। এভাবে ঋণ-আমানত-ঋণ-আমানতের এধারা চলতে থাকে মূল আমনত দশগুণ না হওয়া পর্যন্ত।

বিষয়টি সহজ করার জন্য বলা যায় যে, কোন ঋণগ্রহীতা যখন কোন ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়, তখন উক্ত ব্যাংক ঋণগ্রহীতাকে হাতে হাতে নগদ অর্থ দেয় না; বরং ঋণগ্রহীতার নামে একটি ব্যাংক হিসাব খুলে এবং ঋণের অর্থ উক্ত হিসাবে জমা লিখে রাখে। অথবা অন্য কোন ব্যাংকে উক্ত ঋণগ্রহীতার হিসাব থেকে থাকলে সে হিসাবে উক্ত ঋণের অর্থ জমা করে দেয়। এভাবে ঋণগ্রহীতার ঋণের এই অর্থ ঋণদানকারী ব্যাংক অথবা অন্য কোন ব্যাংকে নতুন আমানতরূপে জামা হয়; আর ব্যাংক নতুন জমা পাওয়ার এই জমার ৯০% আবার ঋণ দেয়। এভাবে যতবার ঋণ দেওয়া হয়, ততবারই নতুন আমানত সৃষ্টি হয় এবং আবার নতুন ঋণ দেওয়া সম্ভন হয়। নিম্নের উদাহরণে বিষয়টি আরও স্পষ্ট হতে পারেঃ

ধরা যাক, কোন একজন জমাকারী ক ব্যাংকে ১০০০.০০ টাকা জমা রাখল। আরও ধরা যাক যে, ক ব্যাংক এই আমানত থেকে ১০০.০০ টাকা নগদ হাতে রেখে বাকি ৯০০.০০ টাকা ঋণ দিল এবং ঋণগ্রহীতা এই ৯০০.০০ টাকা খ ব্যাংকে জমা রাখল। এখন খ ব্যাংক এই জমার ১০% অর্থাৎ ৯০.০০ টাকা নগদ রেখে বাকি ৮১০.০০ টাকা ঋণ দেবে; পরবর্তী ঋণগ্রহীতা এই ৮১০.০০ টাকা, আবার ধরা যাক, গ ব্যাংকে জমা রাখল, গ ব্যাংক এর ৯০% অর্থাৎ ৭২৯.০০ টাকার নতুন ঋণ দেবে। এই ঋণ আবার কোন ব্যাংকে জমা হবে এবং এর ৯০% আবার ঋণ দেয় হবে। এভাবে সর্বশেষ ঋণ যখন এত ক্ষুদ্র হবে যে, তা থেকে আর নতুন ঋণ সৃষ্টি সম্ভব নয়, ততক্ষণ পর্যন্ত ঋণ ও আমানত বর্ধিত হতে থাকবে। এতে গোটা ব্যাংক ব্যবস্থায় উক্ত ১০০০.০০ টাকার মূল আমানত থেকে সৃষ্ট সর্বমোট আমানতের পরিমাণ দাঁড়াবে ৯০০+৮১০+৭২৯....=৯০০০.০০ টাকা এবং গোটা ব্যাংক ব্যবস্থার সর্বশেষ অবস্থা হবে নিম্নরূপঃ

দেনা পাওনা
আমানত (মূল) ১,০০০.০০ সংরক্ষিত নগদ (মূল আমানত থেকে) ১০০.০০
আমানত (সৃষ্ট) ৯,০০০.০০ সংরক্ষিত নগদ (সৃষ্ট আমানত থেকে) ৯০০.০০
    ঋণ (মূল আমানত থেকে) ৯০০.০০
    ঋণ (সৃষ্ট আমানত থেকে) ৮,১০০.০০
মোট ১০,০০০.০০ মোট ১০,০০০.০০

দেখা যাচ্ছে যে, যে আমানতের অর্থ ব্যাংকের কাছে কেবল খাতা-কলমে আছে, বাস